এই সাইটটি বার পঠিত
ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • খেরোর খাতা

  • যুদ্ধ আর বইয়ের প্রচার

    Sudeep Chatterjee লেখকের গ্রাহক হোন
    ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২২ | ৩৫৮ বার পঠিত
  • যুদ্ধ শুরু হয়ে গেছে। চটপট একটা বইপ্রচারের পোস্ট করে কেটে পড়ছি।

    ১) রাশিয়া যে একদিন ইউক্রেনে সামরিক অনুপ্রবেশ করবে, সেটা প্রায় নিশ্চিত ছিল। সারা দুনিয়ার পলিটিকাল স্ট্র‍্যাটেজিস্টরাই জানত, এ শুধু সময়ের অপেক্ষা। ইউএস আর ন্যাটোর অন্যান্য সদস্যরাই পরোক্ষভাবে রাশিয়াকে এ জন্য কাঠি করেছে। প্রথমে ইউক্রেনকে সামরিক সাহায্য আর প্রশিক্ষণ দিয়ে, তারপর তাদের ইইউতে ঢোকানোর প্রতিশ্রুতি দিয়ে। আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যমে প্রচুর ফেক নিউজ সার্কুলেট করা হয়েছে, গুজবও ছড়ানো হয়েছে কম নয়। আর ইন্টেলিজেন্স জগতে কী কী হয়েছে সেটা তো ছেড়েই দিলাম। মোদ্দা কথা, ইউক্রেন যে খুব তাড়াতাড়ি ন্যাটোর সদস্য হতে চলেছে আর এরপর তারা ডাকাতদলের সর্দারের কথায় নেচে রাশিয়ার বাড়া ভাতে ছাই দেবে, এই কথা বিভিন্নভাবে পুতিনদার মাথায় গিঁথে দেওয়া হয়েছে। বালকান কান্ট্রিজগুলো এমনিতেই মস্কোর সঙ্গে তেড়িয়া ভঙ্গিতে কথা বলে আজকাল, তারপর ইউক্রেনও ন্যাটোতে গেলে তাকে আর পাত্তা দেবে কে? তিরিশ বছর আগের সাধ্য না থাক, দাদার সাধ তো আছে। শীতের দেশে থাকলে ওইটুকু রকবাজি না করলে চলে?

    ২) বোঝা গেছে, ইউএস কর্পোরেট লবিং জগতের লোকজন এক একটা জিনিস বটেক। কিয়েভে ইমার্জেন্সি ডাকার পর সাধারণ মানুষকে ফায়ার আর্মস সংগ্রহ করার অনুমতি দেওয়া হয়েছে, ফলে আইনি বেআইনি অস্ত্র মার্কেটে প্রায় 'বুম' এসে গেছে দু' দিনে। ডার্ক ওয়েবে বাচ্চা বাচ্চা রাইফেলের দাম হুহু করে বাড়ছে, আমেরিকার অস্ত্র কোম্পানিগুলোর শেয়ারও চড়চড় করে বেড়ে আকাশ ছুঁয়েছে। ইতিমধ্যেই রিপোর্ট এসেছে, আর্মস ট্রেড মার্কেটে সক্রিয় দালালরা তিন দিনে কোটি কোটি ডলার কামিয়েছে। ইউক্রেন ও প্রতিবেশী দেশগুলো ধুমধাড়াক্কা অর্ডার করছে অস্ত্রশস্ত্র, ফলে মধ্যস্থকারীরা তো কমিশন লুটবেই। প্রাক যুদ্ধ পরিস্থিতিতে সবচেয়ে বেশি লাভ অবশ্য ইউএস আর্মস মেকারদেরই হবে। এসব না করলে অস্ত্র ব্যবসা চলবে ক্যামনে? ফলে এই পরিস্থিতি তৈরি করাটাও পরিকল্পনার অংশ ছিল। আমি বলছি না, খবরের কাগজে বেরিয়েছে স্যার। আমাকে মারবেন না, আমি নিমিত্ত মাত্র।

    ৩) দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর এক যুগ কেটে গেছে। এখন সবাই চালাক। হিজ হিজ হুজ হুজ-এ বিশ্বাসী। সবাই জানে, যুদ্ধ দীর্ঘায়িত হলে পকেটে টান পড়বে, ওতে নাক না ঢুকিয়ে বরং নাকে তেল দিয়ে ঘুমানোই বেস্ট। ঝামেলা শুধু একটাই। তেল। তেল আর ন্যাচুরাল গ্যাসের মার্কেটে রাশিয়ার উপর ইউরোপের নির্ভরশীলতা আছে, কারণ কম্পিটিশন শেষ করতে পুতিনদা সস্তায় তেল দিয়ে দেয় ইউরোপকে। ডেয়ারডেভিলের শ্বশুর! নিজে মরলে মরব, কিন্তু সবাইকে নিয়ে মরব, এই আর কি! জার্মানি আর অস্ট্রিয়া সহ বেশ কিছু দেশের গ্যাস আর বিদ্যুৎ কোম্পানিতে রাশিয়ান স্টেক আছে, তারপর নর্ড স্ট্রিম টু পাইপলাইন নিয়ে ইউরোপের আশাভরসা কিছু কম নয়। এই পাইপলাইন চালু হলে রাশিয়া থেকে জার্মানি গ্যাস পৌঁছানো সহজ হয়ে যাবে। কিন্তু আপাতত প্রোজেক্ট শুরু হয়নি, সার্টিফিকেশন আর অ্যাপ্রুভালের 'লোচা' আছে। মার্কিন নেতারা হুড়কো দিয়ে রেখেছে বলেই মনে হয়! কিন্তু  নিজের উপর পড়লে জার্মানি কোনদিকে ঝুঁকবে বলা মুশকিল। এমনিতেই অস্ট্রিয়াতে গ্যাস আর বিদ্যুতের দাম গেছে বেড়ে। ছোট ছোট কয়েকটি কোম্পানি নাকি এখনই দেউলিয়া হয়ে পগারপার হয়ে গেছে। এখন রাশিয়ার উপর ধুমধাম নিষেধাজ্ঞা চাপানো হবে, ইউএস ট্রেড থেকে ডলার আসা বন্ধ হয়ে যাবে। কিন্তু পুতিনদাও চৌকস লোক। মাথায় কি এমনি টাক পড়েছে? স্যাঙ্কশন লাগালে কোন ব্রহ্মাস্ত্র ব্যবহার করতে হবে, তিনি ভালোই জানেন। ইয়াপ। তিনি স্যাটাস্যাট তেল আর গ্যাসের দাম বাড়িয়ে লোকসান কম্পেনসেট করবেন। এহে! সরি সরি। ভুল হল, করবেন না, করছেন। তেলের দাম প্রায় একশো চোদ্দ ডলার পার ব্যারেল ক্রস করে গেছে, অয়েল মার্কেটে হুড়োহুড়ি। এরপর তেলের দাম আরো বাড়বে, ইনফ্লেশনও আসবে। আসলে এটাও পরিকল্পনার অংশ! স্কুইড গেম! কার কত প্রভাব বেশি! ইউএস রাশিয়ার তেলের ব্যবসার কোমর ভেঙে দিতে চায়, রাশিয়া চায় ঠিক উল্টোটা। আর এটাও মনে রাখা দরকার,  ইউক্রেনে অয়েল ফিল্ডের সংখ্যা খুব কম নয়। ওটার দখল নিতে পারলে সমীকরণ বদলে গেলেও যেতে পারে! ফলে...দেখতে গেলে এই যুদ্ধটাই আসলে অয়েল ওয়ার। এদিকে ইউক্রেনের সেনা এদিকে একদম দু হাত তুলে নেত্য শুরু করে দিয়েছে রাশিয়ার সামনে, কোনো প্রতিরোধই করছে না। এতদিন কোটি কোটি ডলার খরচ করে ট্রাম্প জেঠু তাদের কী ট্রেনিং দিলেন কে জানে?
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • Neptune_Pluto | 37.111.193.214 | ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২২ ১২:৫৫504352
  • স্যার ।..আপনার লেখাটি পড়লাম ....
  • Sudeep Chatterjee | ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২২ ১৫:৫৩504388
  • ধন্যবাদ 
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। আলোচনা করতে মতামত দিন