• খেরোর খাতা

  • জিলিপি

    Asis Banerjee লেখকের গ্রাহক হোন
    ১০ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ২৪৫ বার পঠিত | রেটিং ৫ (২ জন)
  • জিলিপি রসিক জলিদা মজমজে গরম জিলিপি খেতে খেতে জিলিপির দিকে তাকিয়ে মুখে জল টেনে মোহিত হয়ে বলতে শুরু করলো -

    যেমন তোর গড়ন, তেমনি তোর স্বাদ।
    রসের প‍্যাঁচে টইটুম্বুর, নেইকো কোন খাদ।
    আহা রে! আহা রে!
    আহা বেশ্ বেশ্ বেশ্!
    আহা বেশ্ বেশ্ বেশ্!

    বাহিরে বৃষ্টি। ক্লাবঘরে গুচ্ছের জিলিপি আনা হয়েছে।

    কেষ্ট, বিষ্টু, খেঁদু, বুনো, পিন্টু আরো অনেকে সকলেই, জিলিপির স্বাদে মহিত। ওরা সমস্বরে চীৎকার করে উঠলো - হক কথা বলেছো জলিদা। চিয়ার্স।

    আজ রথযাত্রা। আজ রথের রশিতে পড়েছে টান। রিমঝিম বৃষ্টি পড়েই যাচ্ছে।

    আর রথ বললেই ওদের মনে পড়েছে জিলিপির কথা। জলযোগ থেকে জলিদা বিশেষ ওর্ডারে নানা রকমের বিস্তর জিলিপি এনেছে। ওদের আজ তাই রথের দিনে জিলিপি পার্টি।

    এমন বর্ষার সন্ধ্যায় বিশেষ দিনে একসঙ্গে হয়েছে ওরা সবাই অনেক দিন বাদে, অনেক কথা বাকী থেকে গেছে। ফাটাফাটি জমাটি আড্ডা জমে উঠেছে।

    খেঁদু এর ফাঁকে বলে উঠলো - জলিদা শুনেছি জিলিপি নাকি ভিনদেশি? অমৃতির আসল বাড়িটি কোথায় জানো?

    জলিদা কৌতুহলী মানুষ। কৌতুহলও পছন্দ করে। জলিদার কাছে কমন প্রশ্ন। কমন পেয়ে গেছে। তার পরম প্রিয় খাদ্য - জিলিপির আদ্যোপান্ত খবরও সে রেখে দিয়েছে। এখন কাজে লাগাতে চায়।

    জিলিপি দুটো মুখে তাড়াতাড়ি ঢুকিয়ে চিবুতে চিবুতে সট্ করে রস টেনে পরম আনন্দে চোখ গোল গোল করে বলতে সুরু করলো -

    বুঝলি তবে শোন জিলিপির বয়সের গাছপাথর নেই। সেই তেরোশো শতকে মুহম্মদ বিন হাসান আল-বোগদাদি যে রান্নার বইখানা লিখেছিলেন, সেখানে জিলিপি সগৌরবে স্বমহিমায় হাজির হয়ে ছিল ।

    শোন, মিশরে ইহুদিরাও নাকি এই মিষ্টি বানিয়ে ফেলেছিল সেকালেই। এছাড়া রমজান মাসে ইরানে গরিব মিশকিনদের মধ্যে বিলি করা হয় জিলিপি। ওখানে এর নাম হয়েছে অবশ্য জেলেবিয়া। পণ্ডিতরা বলছেন, জিলিপি শব্দটা নাকি এসেছে ফারসি ‘যবালিয়া’ থেকে। মানে, গোল হয়ে পাক খেতে খেতে যাওয়া। আর, ফারসি-বলা তুর্কিদের হাত ধরেই ভারতে পা রেখেছিল আমাদের আজকের প্রিয় জিলিপি।

    জিলিপির অন্যান্য নাম আছে। জিলেবি, জুলবিয়া মধ্যপ্রাচ্যে, জালেবি, জেরি নেপালে বুঝলি ।

    তোরা শুনে রাখ, কেবল এই বাংলা নয়, ওপার বাংলাতেও জিলিপির কদর কম নয় কিন্তু ।

    শুনে রাখ জিলিপি পুরানো ঢাকার পুরোনো খাবারগুলোর মধ্যে একটা। তারও আবার অনেক রকমফের আছে। সবচেয়ে বড় জিলিপিতে প্যাঁচ থাকে একটা-দুটো নয়, পাক্কা কুড়িটা! এর নাম শাহি জিলিপি।

    এই নামের মতো ওজনেও ইনি বেশ ভারিক্কি। এক কেজি থেকে চার কেজি অব্দি ওজন হয় এক-একখানার, ভাবতে পারিস! এলাহাবাদ বা ত্রিবেণীতে বসে পেটভরে জিলিপি না খেলে পুনর্জন্ম হয় না বলে যে গল্পটা শোনা যায়, সে গল্পে ভাগ্যিস ঢাকা বা কলকাতার নাম ঢুকে পরে নি!

    তাই এই জিলিপিকে না হয় বিদেশি বলে ধরেই নেওয়া গেল।

    কিন্তু অমৃতি, জিলিপির বড় ভাই? শুনতেও যেমন, স্বাদেও - অমৃতের থেকে বিশেষ ফারাক নেই। না না, আমি না, এই সার্টিফিকেট দিচ্ছেন স্বয়ং প্রেমেন মিত্রের ঘনাদা। কিন্তু এই অমৃতি যে কোথা থেকে এল, দেশবিদেশ ঘুরলেও তার খবর তিনি রাখতে যান নি।

    তিনি না বলুন, সুকুমার সেন অমৃতি বানানোর সব ক্রেডিট দিয়েছেন কলকাতার হালুইকরদের।

    জিলিপির উপাদান ও পরিবর্তন হয়েছে অনেক জায়গায়। আবিষ্কারও বলতে পারিস।

    কিন্তু, খোদ সম্রাট জাহাঙ্গিরের আত্মজীবনী ‘জাহাঙ্গিরনামা’-তে এক মিষ্টির উল্লেখ পাওয়া যাচ্ছে, তার নাম ‘জাহাঙ্গিরি’ বা ‘ইমরতি’।

    ময়দার বদলে এর উপাদান অড়হর ডাল। বাংলায় যদিও ব্যবহার করা হয় কলাইয়ের ডাল বাটা, কোথাও বা কাঁচা মুগ ডাল কিংবা বরবটির বেসন। উত্তরবঙ্গে ডালের সঙ্গে যোগ হয় আতপ চালের গুঁড়ো। এই অঞ্চলে অমৃতির নামটিও ভারী মিষ্টি। ‘কাঙনি জিলিপি’। মেয়েদের হাতের কঙ্কণ থেকে কাঙনি।

    সুতরাং তোরা বুঝতেই পারছিস, অমৃতির নাম যতই সংস্কৃত ঘেঁষা হোক আর জিলিপিকে সংস্কৃতে ‘কুণ্ডলিকা’ বলা হোক, এরা কেউই ঘরের লোক নয়। তবে তাতে বল কি আসে যায়? পরকে আপন করে নিতে বাঙালির জুড়ি মেলা ভার। আর তাই আমাদের খাদ্যরসিক বাঙালির কাছে জিলিপি, অমৃতিও হয়ে উঠেছে অনেকের আপনজন।

    জলিদা দম নিয়ে আর একটা জিলিপি মুখে ঢুকিয়ে ফের বলতে শুরু করলো -

    জানিস, মানুষের কূটবুদ্ধিকে জিলিপির প্যাঁচের সঙ্গে তুলনা করা হয়। খুব খারাপ লাগে। এমন ঋণাত্মক কথা মহান সুস্বাদু জিলিপির সঙ্গে কেন আসবে? এতে বেচারা জিলিপির কি দোষ আছে ভেবে দেখেছিস?

    জীবন ভাবনা জটিল কি
    জিলিপির প‍্যাঁচ?
    গরম সরস, সরল জিলিপি কহে
    - এ কুৎসা নামে, কদাপি সহে,
    অঙ্গীকার রসধারা, ঘূর্ণাবর্তে
    তৃপ্তি রসধারা, নেহি তো শর্তে -
    আস্বাদনে লহ আনন্দ - আশ্বাস।

  • বিভাগ : অন্যান্য | ১০ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ২৪৫ বার পঠিত | রেটিং ৫ (২ জন)
  • কোনোরকম কর্পোরেট ফান্ডিং ছাড়া সম্পূর্ণরূপে জনতার শ্রম ও অর্থে পরিচালিত এই নন-প্রফিট এবং স্বাধীন উদ্যোগটিকে বাঁচিয়ে রাখতে
    গুরুচণ্ডা৯-র গ্রাহক হোন
    গুরুচণ্ডা৯তে প্রকাশিত লেখাগুলি হোয়াটসঅ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে যুক্ত হোন। টেলিগ্রাম অ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলটির গ্রাহক হোন।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • kk | 68.184.245.97 | ১১ সেপ্টেম্বর ২০২১ ০০:১১497931
  • বেশ লাগলো।
  • বিপ্লব রহমান | ১১ সেপ্টেম্বর ২০২১ ০৫:২৫497933
  • রীতিমত পাকা হাতের লেখা, রসে টইটম্বুর। 
    আরো লিখুন
  • Asis Banerjee | ১১ সেপ্টেম্বর ২০২১ ০৭:১২497934
  • ধন্যবাদ
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:

কুমুদি পুরস্কার   গুরুভারআমার গুরুবন্ধুদের জানান


  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। লড়াকু মতামত দিন