• খেরোর খাতা

  • রাশি বিচারে জাতক জাতিকার ফলরচনা (সাধারণ কোষ্ঠী নির্ণয়ের ফলাফল)

    Debarpan Chakraborty লেখকের গ্রাহক হোন
    ১৫ মার্চ ২০২১ | ৫১৫ বার পঠিত
  • মেষরাশি - জাতকের প্রকৃতিতে হঠকারিতা ও স্বাধীনতাপ্রীতি দেখা দেবে। জাতক প্রায়শই নিজের মতে কাজ করবে। অন্যের পরামর্শের বিরুদ্ধে চলবে। জাতকের মেজাজ মাঝেমাঝেই খিটখিটে হবে। সহজেই রেগে যাবে, তার মধ্যে খেয়ালি ভাব থাকবে। জাতক বন্ধন ভালোবাসবে না। ধরাবাঁধা কাজ তার পছন্দের হবে না। একটা বিতৃষ্ণা ভাব থাকবে। কর্তৃত্ব করা পছন্দ করবে। তার কাজকর্মে কোনোরকম গোপনীয়তা বা রহস্য থাকা সম্ভব। তার উন্নতির পাশাপাশি পতন অসম্ভব নয়। লোকনিন্দা ও মিথ্যা অপবাদের সম্ভাবনা রয়েছে। খাওয়ার ব্যাপারে তীব্র ও রুক্ষ আহার পছন্দ করবে, বিশেষত শুষ্ক ও ভাজা জিনিস তার পছন্দের হবে। ডিম, মাংস প্রভৃতি উত্তেজক খাদ্য বর্জনীয়। তার মাথার কোনো অসুখ বা মাথায় কোনোরকম আঘাত লাগার সম্ভাবনা আছে।

    বৃষরাশি - জাতকের প্রকৃতিতে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ ও অধ্যাবসায়শীল ভাব থাকবে। জাতক ধীর, স্থীর আবেগ পরিশূন্য হবে। উচ্চভিলাষে পরিপূর্ণ থাকবে। সে নিজের কাজের পূর্ণ সফলতা অর্জন করতে চাইবে। জাতক পরিবর্তন ও সংস্কারের বিরোধী হবে। জাতকের মধ্যে সহ্যশক্তি গুণ খুব বেশি থাকবে। অনবরত চেষ্টা ও পরিশ্রমের দ্বারা জাতক কঠিন কাজও সিদ্ধ করতে পারবে। জাতকের মধ্যে একটু স্বার্থপরতা ভাব থাকা সত্ত্বেও জাতক সামাজিক, সদালাপী হওয়ায় বন্ধু বা পরিচিত মহলে যথেষ্ট খাতির পাবে। জাতক ভোগবিলাসী হবে। জাতকের মধ্যে আকর্ষণী শক্তি থাকবে। চর্বি জাতীয় খাদ্য জাতকের পক্ষে বিশেষ ক্ষতিকারক হবে। মধ্যম উত্তেজক পানীয় গ্রহণে দোষ নেই।

    মিথুনরাশি - জাতক ইঙ্গিতজ্ঞ ও মেধাবী হবে। দৈহিক ও মানসিক দুরকমের কাজেই পটু হবে। হাতের কাজে নৈপুণ্য থাকবে। ভ্রমণ ভালোবাসবে। নানাধরণের কর্মদক্ষতা থাকবে। লেখনী, বক্তব্য পেশ, শিল্পকর্ম বা সাংবাদিকতা কাজে দক্ষতার পাশাপাশি দালালি, কেরানিগিরি, কারিগর প্রভৃতি যোগ্যতাও তার মধ্যে থাকবে। ভূমিসম্পত্তির ব্যাপারে ব্যায় ও নানারকম ঝঞ্ঝাট ও অশান্তি সম্ভব। খেলাধুলায় বেশ পটুত্ব থাকবে। জাতক লটারি, জুয়াখেলা, ফাটকা প্রভৃতির দিকেও আকর্ষিত হতে পারে। জাতক অবশ্যই পরিবর্তন প্রিয়। এবং একটু অব্যবস্থচিত্ত হবে। তার আত্মীয়বর্গের সঙ্গে বিশেষ সদ্ভাব বজায় থাকবে না। সেই কারণে মাঝেমাঝেই তার মানসিক শান্তির অভাব ঘটবে। খাদ্য হিসেবে দুধ, ফল স্বাস্থ্যের পক্ষে হিতকর হবে। মাংস, ডিম প্রভৃতি উত্তেজক খাদ্য জাতকজাতিকার পক্ষে ক্ষতিকর হবে।

    কর্কট রাশি - জাতক আরামপ্রিয়। গার্হস্থ্য ও পারিবারিক জীবনে সুখ তার একান্ত কাম্য। জাতক মাতৃপ্রিয় হবে। এরা পরিবর্তনশীল ও ভ্রমণপ্রিয় হবে। সদালাপী ও সামাজিক হবে। সহানুভূতি ও মনোবেগ খুব প্রবল হবে। জাতকজাতিকার মধ্যে পারিপার্শ্বিকতার প্রভাব খুব বেশি করে দেখা দেবে। তার মধ্যে মানিয়ে নেবার শক্তি থাকবে। স্মরণশক্তি খুব প্রখর হবে। অনুকরণ স্পৃহা অত্যন্ত প্রবল, সবরকম কলাবিদ্যার প্রতি তার কমবেশি ঝোঁক থাকবে। উদ্যান, বাগিচা অথবা কৃষিকর্ম তার প্রিয় হবে। সম্মোহন, জ্যোতিষ, ভৌতিক ও গুপ্তবিদ্যার দিকে ঝোঁক থাকা সম্ভব। জলজ অথবা তরল পদার্থের কোনো ব্যাবসায় এবং গৃহ, ভূমি, পথ, প্রভাতী সংক্রান্ত কাজ তার পক্ষে অনুকূল হবে। জাতক অপরের উপদেশ মতো বা পরের সংস্রবে কাজ করলে বেশি কৃতিত্বের পরিচয় দিতে পারবে। এছাড়া জাতক অন্তর্মুখী প্রকৃতির হবে। তার মধ্যে নীতিবাদকে বড়ো করে দেখার প্রবণতা থাকবে। তার স্বভাব ঠাট্টা করা, অপরকে আনন্দ প্রদান, ভাবাবেগে ভেঙে পড়া, ঠান্ডায় বিব্রত থাকা প্রভৃতির দশ গুণ লক্ষ করা যাবে। খাদ্য হিসেবে মাছ, মাংস, দুধ হিতকর হবে।

    সিংহরাশি - জাতক উচ্চভিলাষী ও প্রভুত্ব প্রিয় হবে। প্রায় সকল ক্ষেত্রেই সকলের উপর থেকে কর্তৃত্ব করার ক্ষমতা থাকবে। জাতক উদার, বদান্য ও উচ্চপ্রকৃতির ব্যাক্তিত্ব নিয়েই জন্মেছে। সবরকম দুর্নীতির উপর একটা স্বাভাবিক বিরাগ থাকবে। সাধারণের নিকট সম্মানিত হওয়ার ও সাধারণের সম্মুখে আসবার একটা প্রবল আকাঙ্খা থাকবে। জাতকের হৃদয়াবেগ বেশ গভীর বলা যায়। স্নেহপ্রীতির বিষয়ে সহজেই আবেগ প্রবন হয়ে উঠবে। জাতক ভোগী প্রকৃতির হবে। তার মধ্যে বিলাসিতার ভাবও দেখা যায়। অর্থের ব্যাপারে জাতককে সৌভাগ্যবান বলা চলে। যদিও অর্থের সম্পদের ব্যাপারে তার বিশেষ ক্ষমতা দেখা যায় না। খাদ্য হিসেবে নিরামিষ খাদ্য হিতকর। চর্বি ও উত্তেজক খাবার ক্ষতিকর হবে।

    কন্যারাশি - জাতক প্রশান্ত ও সদালাপী। মানসিকতা প্রবল এবং স্মৃতিশক্তি খুবই প্রখর। যে কোনো বিষয় সহজেই বুঝে নিতে পারবে। উচ্চভিলাষের তেমন লক্ষণ খুঁজে পাওয়া মুশকিল। কর্মবহুল উত্তেজনাপূর্ণ জীবনের চেয়ে শান্তিপূর্ণ জীবনই বেশি বাঞ্চনীয়। জাতক জাতিকা নিজের ব্যাপারে শিথিল প্রকৃতির হবে। মাতৃস্থানীয়া স্ত্রীলোকদের শত্রূতার জন্য জীবনে বহু অশান্তি বা ঝড়ঝঞ্ঝা বয়ে যেতে পারে, স্বাধীনভাবে কাজ করার চেয়ে পরের অধীনে কাজ করলে বেশি কৃতিত্বের পরিচয় ঘটতে পারে। খাবার হিসেবে মাছ, মাংস, শাকসবজি, ফলমুল ও দুধ জাতকের পক্ষে হিতকর।

    তুলারাশি - জাতক বুদ্ধিমান ও ইঙ্গিতজ্ঞ। বেশ সামাজিক ও মজলিসী প্রকৃতির। বন্ধুবান্ধবের সংস্রবে আনন্দ পাওয়া পছন্দ করবে। কাব্য, চিত্র ও সংগীতের দিকে তার একটা সহজ আকর্ষণ জন্মাবে। কলাবিদ্যার দিকে ঝোঁক থাকবে। কৃতিত্বের পরিচয় ও দিতে পারবে। জীবনের প্রায় সব কাজই অন্যের সাহচর্যের প্রভাবে তার উপর খুব প্রবলভাবে প্রকাশ পাবে। বিবাহ তার জীবনে স্মরণীয় ঘটনা হয়ে উঠতে পারে। জাতক বেশ স্নেহশীল, মিষ্টভাষী এবং দয়ালু প্রকৃতির মানুষ। নানাবিধ কাজে লিপ্ত থাকা তার পক্ষে সম্ভব। জাতকের প্রতি আগ্রহ থাকবে। অধিক জলপান ও নিরামিষ আহার জাতকের পক্ষে হিতকর।

    বৃশ্চিকরাশি - জাতক খুব দৃঢ় চিত্ত ও স্থীর প্রতিজ্ঞপ্রকৃতির। তার মধ্যে আত্মপ্রত্যয় ও আত্মনির্ভরতা ভাব থাকবে। সে যথেষ্ট কর্ম পটু ও পরিশ্রমী হবে। ভালো ভালো জিনিসের প্রতি তার লোভ থাকবে। সাংসারিক সুখ সাচ্ছন্দ কামনা করবে। নিজের মতে টলবে না। পুরোমাত্রায় রক্ষণশীল। কাজ হাসিল করার জন্য যে কোনো পথ নিতে পারে। সহজে ক্ষমা করতে জানবে না। দীর্ঘদিনের প্রতিশোধের স্পৃহা মনের ভিতর পুষে রাখবে। তার প্রকৃতিতে ক্রোধ অত্যন্ত প্রবল। যৌন আকর্ষণ প্রবল। সুরুচি ও শ্লীলতার অভাব লক্ষ করা যাবে। বিবাহিত জীবন বিশেষ সুখকর হয় না। তার মধ্যে অনর্থক ব্যয় ঝোঁক থাকবে। জীবনে সঞ্চয় খুব কমই হবে। পিতামাতার দিক থেকে বড় বেশি সুখলাভ সম্ভব নয়। নীতিবিরুদ্ধ কাজের জন্য জাতক জাতিকার অপবাদ রটতে পারে। যে কোনো পিত্তপ্রশমনকারী খাদ্য ডাব ও নারকেল প্রভৃতি হিতকর।

    ধনুরাশি - জাতক জাতিকা ব্যস্ত ও চঞ্চলপ্রকৃতির। সবকাজ চটপট শেষ করতে চায়। অত্যন্ত স্বাধীনতা প্রিয়। যে কোনো রকম বন্ধন এদের একেবারেই অপছন্দ। ভ্রমণ ভালোবাসবে এবং জীবনে ভ্রমণ ও অনেক ঘটবে। এদের মন উচ্চ ও সাধুবাদে পূর্ণ। হৃদয়ে আন্তরিকতা আছে। ধর্মজ্ঞান ও বিশ্বাসে ভরপুর। অধ্যাত্বিকতা জাতক জাতিকার জীবনে একটা বড়ো অংশ জুড়ে থাকবে। গুপ্তবিদ্যা, যোগ, সম্মোহন বা অতীন্দ্রিয় বিষয়ের প্রতি যথেষ্ট আগ্রহ থাকতে পারে। এরা একসঙ্গে একাধিক বিষয়ের কাজে লিপ্ত হতে পারে। শিক্ষা ও সদসঙ্গের অভাব ঘটলে জাতকের চরিত্রে পাশবিক দিকটার প্রকাশ ঘটতে পারে। খেলাধুলায় ধনুরাশির জাতক জাতিকারা বেশ আনন্দ পেয়ে থাকেন। নিরামিষ খাদ্য, দুধ ও ছানা এদের স্বাস্থ্যের পক্ষে হিতকর।

    মকররাশি - জাতকের জীবনে অসংখ্য বাধা অতিক্রম করতে হয়। তবে যতই বাধা পায় ততই এদের জোর বাড়তে থাকে। সুখ্যাতি বা অখ্যাতি যাই হোক এদের প্রসিদ্ধিলাভ কিছু পরিমানে হয়েই থাকবে। জাতক বা জাতিকার মধ্যে প্রবল অধ্যাবসায় লক্ষ করা যাবে। তবে মাঝে মাঝেই নৈরাশ্যের ভাব থাকবে ও আত্মপ্রত্যয়ের অভাব লক্ষ করা যাবে। পারিবারিক ব্যাপারে বা পিতামাতার মধ্যে বনিবনার অভাব বা বিচ্ছেদ প্রভৃতি ঘটতে পারে। নিজের বিবাহের ব্যাপারে কোনো গুরুজনের সঙ্গে মতভেদ হতে পারে। বিবাহে শ্বশুর বা শাশুড়ির অমত থাকতে পারে। চন্দ্র পাপপীড়িত হলে বিবাহ নাও হতে পারে। জাতকের কর্মসংক্রান্ত ব্যাপারে বহু বাধা ও প্রতিদ্বন্দ্বিতা অতিক্রম করতে হবে। তার জীবনে প্রকাশ্যে বা গুপ্তশত্রু থাকবেই। শত্রুরা তার নামে অপবাদ বা কুৎসা রোটাতে পারে। জাতক নিতান্ত হিসাবি সাবধানী প্রকৃতির মানুষ। আত্মকেন্দ্রিক প্রকৃতিরও বটে। নিজের দিকেই তার খেয়াল বেশি। অন্যের সুখ সাচ্ছন্দের দিকে তেমন দৃষ্টিপাত থাকবে না। জাতক ভোগী প্রকৃতির হলেও অমিতাচারী হবেনা। সাধারণ উত্তেজক খাদ্য সমুহই এদের পক্ষে ক্ষতিকর।

    কুম্ভরাশি - জাতককে বোঝা কঠিন। তাকে খেয়ালি লোক বলে মনে হতে পারে। সবসময় নতুন কিছু অনুভব করার ইচ্ছা খুব বেশি। মৌলিক ও অভিনব দিকে ঝোঁক থাকবে। বর্তমান জগতের চেয়ে বেশি অগ্রসর হওয়ার বাসনা জন্মাতে পারে। সেইজন্যে সবসময় গূঢ় ও রহস্যের বিদ্যা তাকে আকৃষ্ট করবে। জাতক উদার ও সহানুভূতিশীল লোক। অন্যের সদিচ্ছা কামনা করে তাকে অনেক সময় নিরীহ ভালোমানুষ ও সমাজের অবিরোধী বলে মনে হলেও অন্যের সদিচ্ছা কামনার্থে তার মধ্যে স্বাধীনতাপ্রিয় সমাজদ্রোহীতার ভাব লক্ষিত হতে পারে। প্রকৃত অর্থে এদের জন্মটা নিজের জন্য হয় না। অন্যের সদিচ্ছার কারণেই এরা পৃথিবীতে জন্মে থাকে। তাই অধিকাংশ সাধু সন্ন্যাসীর এই রাশিতেই জন্ম হতে দেখা যায়। স্ত্রীলোক বা মাতৃস্থানীয় কারুর কাছে এরা প্রিয় হয়ে থাকে। তাদের থেকে কিছু প্রাপ্তির সম্ভাবনাও রয়েছে। তবে তা সম্ভব যদি চন্দ্র শুভ হয়ে থাকে। চন্দ্র পাপপীড়িত হলে স্ত্রীলোকের দ্বারা প্রাপ্তির বদলে তাদের দ্বারা অর্থনাশ, ঋণের দ্বারা অশান্তি প্রভৃতি অশুভফলের সম্ভাবনা। জাতকের বিবাহে গোলযোগ বা বিবাহিত জীবনে অশান্তির সম্ভাবনা রয়েছে।

    মীনরাশি - জাতকের শরীরে বা মনে চাঞ্চল্যভাব দেখা দেবে। জাতকের দৌড়ঝাঁপ, খেলাধুলা এবং তাড়াতাড়ি কাজকর্ম করা পছন্দ হবে। ভ্রমণের দিকে ঝোঁক থাকবে। তার মধ্যে ভাবপ্রবণতা থাকবে। হৃদয়আলোড়নকারী বিষয় পছন্দ করবে। যুক্তি ও বুদ্ধির চেয়ে অনুভূতি প্রবল। কাব্য, চিত্র ও সঙ্গীতে স্বাভাবিক আকর্ষণ থাকবে। দরদী মনের অধিকারী হবে। রোমান্স ও অদ্ভুত বিষয় তাকে বেশি করে টানবে। সঙ্গ নির্বাচন তার জীবনে প্রধান হয়ে দাঁড়াবে। সৎসঙ্গে স্বর্গবাস করতে পারে আবার অসৎসংগে জীবন বরবাদ হতে পারে। এদের কথাবার্তা, রচনা, ভাষণ সংযমের বদলে বাহুল্যভাব বেশি দেখা যায়। এদের মধ্যে কল্পনা ও অতিরঞ্জনের চেষ্টা লক্ষ করা যাবে। এরা সামান্য আশাতেই উৎফুল্ল হয়ে ওঠে আবার ক্ষুদ্র বাধা পেয়েই হতাশ হয়ে বসে। সবসময় এদের মধ্যে সহজ জ্ঞানের অভাব এবং সাধারণ পরিহাস বোধের অভাব লক্ষ্য করা যায়। সাংসারিক উন্নতির পথে এদের অনেক বাধাবিঘ্ন সহ্য করতে হবে। অনেক ভাগ্য বিপর্যয় সহ্য করতে হবে। চন্দ্র দুর্বল হলে খুব বেশি পারিবারিক সুখ পাবে না। জীবনে অনেক প্রকাশ্য বা গুপ্ত শত্রূর মোকাবিলা করতে হতে পারে। এরা ভোগী প্রকৃতির হয়ে থাকে। অর্থসংক্রান্ত ব্যাপারে জাতকের বিশেষভাবে দেখেশুনে চলা প্রয়োজন, তা নাহলে কষ্ট অবশ্যম্ভাবী।

     

  • আরও পড়ুন
    বার্ড - Sambaran Sarkar
  • বিভাগ : অন্যান্য | ১৫ মার্চ ২০২১ | ৫১৫ বার পঠিত
  • কোনোরকম কর্পোরেট ফান্ডিং ছাড়া সম্পূর্ণরূপে জনতার শ্রম ও অর্থে পরিচালিত এই নন-প্রফিট এবং স্বাধীন উদ্যোগটিকে বাঁচিয়ে রাখতে
    গুরুচণ্ডা৯-র গ্রাহক হোন
    গুরুচণ্ডা৯তে প্রকাশিত লেখাগুলি হোয়াটসঅ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে যুক্ত হোন। টেলিগ্রাম অ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলটির গ্রাহক হোন।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:

কুমুদি পুরস্কার   গুরুভারআমার গুরুবন্ধুদের জানান


  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। লাজুক না হয়ে প্রতিক্রিয়া দিন