• টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। যে কোনো নতুন আলোচনা শুরু করার আগে পুরোনো লিস্টি ধরে একবার একই বিষয়ে আলোচনা শুরু হয়ে গেছে কিনা দেখে নিলে ভালো হয়। পড়ুন, আর নতুন আলোচনা শুরু করার জন্য "নতুন আলোচনা" বোতামে ক্লিক করুন। দেখবেন বাংলা লেখার মতো নিজের মতামতকে জগৎসভায় ছড়িয়ে দেওয়াও জলের মতো সোজা।
  • দ্যা পারফেক্ট ক্রাইম

    Abhisek Bhattacharya ফলো করুন
    অন্যান্য | ০৮ জুলাই ২০২০ | ১৫৬ বার পঠিত

  • বিয়ের প্রথম রাত্তিরেই আমি সৌমিকে জানিয়ে দিলাম আমি পারব না। আমার দ্বারা ওর সাথে শোয়া সম্ভব নয়। কারণ আমি গে।

    সৌমি প্রথমে ভাবল মজা করছি। তারপর যখন বুঝল মজা না সত্যিই, তখন বলল, বিয়ে করলেন কেন তাহলে? আমি বললাম, করেছি কারণ আমি একটা মেয়ের জীবন নষ্ট করে দেবার আনন্দটা নিতে চাই। আমি শুধু গে না, আমি স্যাডিস্টও।

    শুনে সৌমি ঠাস করে একটা চড় কষিয়ে দিল। বলল আমি একটা কুত্তা। আমি ওর সাথে প্রতারণা করেছি। আরও বলল, আমার মত ব্যাকডেটেডই নাকি খালি ভাবতে পারে যে এতে আজকের দিনে একটা মেয়ের জীবন নষ্ট হবে। কাল সকালেই ও সবাইকে সব বলে দেবে আর বাপের বাড়ি চলে যাবে। আর ক'দিন পরেই ও ডিভোর্স ফাইল করবে। শুধু তাই না, ওর উকিল কাকার সাথে পরামর্শ করেও দেখবে আমার এগেনস্টে কোনও লিগাল স্টেপ নেওয়া যায় কি না।

    এসব শুনে আমি হেসে ফেলে বললাম, সৌমি আমি মজা করছিলাম। তোমার জীবন নষ্ট করার কোনও ইচ্ছে আমার নেই।

    সৌমি আনন্দে কেঁদে ফেলল। মুখে হাসি, চোখে জল। বলল, সত্যি? পারেন বাবা আপনি!

    আমি বললাম, হ্যাঁ সৌমি। আমি তোমায় ভাল দেখে একটা ছেলের সাথে বিয়ে দেব। হ্যান্ডসাম, সেনসিটিভ। তুমি তার সাথে সেক্স করবে। আমি পাশে দাঁড়িয়ে দেখব। ভিডিও করব। তারপর সেই ভিডিও দেখতে দেখতে হস্তমৈথুন করব।

    শুনে সৌমি আবার একটা চড় মেরে দিল। আরও খারাপ খারাপ গালাগাল দিল। বলল আমি একটা সাইকো। আমায় ডাক্তার দেখানো উচিত। আরও অনেক কিছু বলল।

    আমি কিছুক্ষণ শুনে আর থাকতে না পেরে এবারে সত্যি সত্যি হেসে ফেললাম। বললাম, আমি ইয়ার্কি মারছি সৌমি। তোমাকে রাগিয়ে সত্যি মজা আছে দেখছি!

    সৌমি বিশ্বাস করবে কি করবে না বুঝতে পারছিল না। বিষাক্ত চোখে তাকিয়ে রইল।

    আমি আলমারি খুলে লম্বা ছুরিটা বের করলাম। ঘুরে দাঁড়িয়ে বললাম, কারোর সাথেই আমি তোমার বিয়ে দেব না সৌমি। কারণ এখন আমি তোমায় নিজের হাতে একটু একটু করে কাটব। সারারাত ধরে। একটা একটা করে তোমার শরীরের অঙ্গগুলো কাটব। তবে সবচেয়ে আগে কোনটা কাটব বলো তো?

    সৌমি চীৎকার করতে যেতেই আমি বললাম, লাভ নেই। দরজা ভেতর থেকে ডবল লক দিয়ে বন্ধ। লকটা আমারই কেনা। ঐ লক ভেঙে কেউ ঢুকতে পারবে না। শুধু গে আর স্যাডিস্ট না, আমি একজন মার্ডারারও।

    সৌমি ধড়ফড় করে দেয়ালের একদম কোণে গিয়ে বিস্ফারিত চোখে তাকাতে লাগল। আমি ছুরিটা নিয়ে ওর একদম কাছে চলে গিয়ে এবারে হো-হো করে হেসে উঠলাম।

    আধঘন্টা লাগল সৌমিকে শান্ত করে বোঝাতে যে আমি আসলে ফাজলামি মারছি, আমি ওকে খুন করব না। ওর অঙ্গপ্রত্যঙ্গ কাটব না। সৌমি ফুঁপিয়ে ফুঁপিয়ে কাঁদছিল। আমি ওর থুতনিটা ধরে মুখটা তুলে বললাম, বোকা মেয়ে কোথাকার! এত ভয় পায় কেউ? আমি তো রক্তারক্তি সহ্যই করতে পারি না।

    সৌমির মুখে এতক্ষণে অল্প একটু হাসি ফুটল। বুঝেছে পুরোটাই ইয়ার্কি। আমি এই মুহূর্তটারই অপেক্ষা করছিলাম। ওর কানের কাছে মুখ নিয়ে গিয়ে বললাম, সৌমি, আমি ইয়ার্কি মারছি ঠিকই তবে একটা কথা তোমায় জানানো দরকার। অফিসে আমার গত দশ বছর ধরে প্রোমোশন হচ্ছে না। স্যালারি বাড়ছে না। এটা বাড়ানোর উপায় একটাই। আমি বসের সঙ্গে কথা বলে রেখেছি। তোমাকে ওনার সাথে শুতে হবে। উনি যা বলবেন তাই করতে হবে। উনি কথা দিয়েছেন এটা হয়ে গেলেই নেক্সট প্রোমোশন সাইকেলে আমার সিওর প্রোমোশন।

    সৌমি এবারে আর বিশ্বাস করল না, ভয়ও পেল না। বিরক্ত গলায় বলল, আর ইয়ার্কি ভাল্লাগছেনা, যান। আর এটা খুব নিম্নরুচির ইয়ার্কি। একটুও হাসি পেল না শুনে।

    সবকিছুই আমার প্ল্যানমাফিক হচ্ছে। সৌমি আর আমাকে ভয় পাচ্ছে না। এটাই সুযোগ। আমি পকেটে এতক্ষণ ধরে রাখা দড়িটা ফট করে বের করে এক ঝটকায় সৌমির গলায় পরিয়ে দিলাম। অন্যপ্রান্ত হাত দিয়ে হাল্কা টেনে রাখলাম যাতে সৌমি ফাঁসটা খুলে ফেলতে না পারে।

    সৌমি এখনও ভয় পায়নি। হাল্কা গলাতেই বলল, আবার ফাজলামি করছেন? কী হচ্ছে কী এসব?

    সুবর্ণ সুযোগ। ভিকটিম একবিন্দু বাধা দেবে না, কোনও স্ট্রাগল করবে না। কারণ এতবার ইয়ার্কি দেখে দেখে তার ধারণা হয়ে গেছে এটাও ইয়ার্কিই হচ্ছে। বডিতে কোনও ধস্তাধস্তির চিহ্ন থাকবে না। ফলে পোস্টমর্টেমে পাতি সুইসাইড ছাড়া কিছুই বেরোবে না। নিজের প্ল্যান এত নিখুঁতভাবে চলছে দেখে নিজেকেই মনে মনে বাহবা দিলাম। বাড়ির লোকের সঙ্গে আমার অলরেডি আগে থেকে কথা হয়ে আছে। একটু পরে পুলিশে খবর যাবে। কাল কাগজেও বেরোবে। জোর করে বিয়ে দেওয়ায় বিয়ের রাতে একা ঘরে গলায় দড়ি দিয়ে আত্মঘাতী হলেন বধূ। আমি জেরায় বলব আমি কিছুই জানি না। আমি ঐ ঘরে ছিলাম না। সৌমি একা ঘরে ঢুকে দরজা আটকে দিয়েছিল। বাড়ির লোকও তাই বলবে। এই ঘরের দরজা বাইরে থেকে টেনে দিলে বন্ধ হয়ে যায়, তখন ভেতর থেকে চাবি ছাড়া খোলার উপায় নেই। সৌমিকে ঝুলিয়ে দিয়ে দরজা টেনে আমি বেরিয়ে যাব। তারপর সবাই মিলে দরজা ভেঙে ঢুকে পুলিশে খবর দেব। আগাথা ক্রিস্টির কথা মনে পড়ল। আলফ্রেড হিচককের কথাও। ওনারা যদি এখন এখানে থাকতেন তো নিশ্চয়ই আমায় বাহবা দিতেন। দ্যা পারফেক্ট ক্রাইম। সৌমির বাবা-মাও ভাববেন মেয়ে আত্মহত্যাই করেছে। কেউ কোনওদিন জানবে না আসল ঘটনাটা কী।

    ফ্যানের ওপর দিয়ে দড়ির প্রান্তটা গলিয়ে দিয়ে আমি বললাম, তোমার ওজন কত সৌমি?

    সৌমি হাসি-হাসি মুখে আমার দিকে তাকিয়ে আছে। মেয়েটা এখনও ভাবছে আমি ইয়ার্কি মারছি। দড়ির একপ্রান্ত সৌমির গলায় পরানো, অন্যপ্রান্ত ফ্যানের ওপর দিয়ে গলে আমার হাতে। এবার দড়ি ধরে একটা হ্যাঁচকা টান দিলেই…

    আমি হাসব কি না ভাবছি, তার আগেই সৌমি হেসে ফেলল। বলল, অনেক রোল-প্লেইং হয়েছে, ঘুম পাচ্ছে, এবার শুতে আয়।

    দড়িটা খুলে নিয়ে আলো নিভিয়ে আমি শুয়ে পড়লাম সৌমির পাশে। তারপর ওর কানের কাছে মুখ নিয়ে গিয়ে বললাম, একটা কথা তোমায় বলি সৌমি…

    সৌমি বলল, ধ্যার বাল, ঘুমো না!
  • আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা

  • করোনা

  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত