Saikat Bandyopadhyay RSS feed

Saikat Bandyopadhyayএর খেরোর খাতা।

আরও পড়ুন...
সাম্প্রতিক লেখালিখি RSS feed
  • স্টার্ট-আপ সম্বন্ধে দুচার কথা যা আমি জানি
    স্টার্ট-আপ সম্বন্ধে দুচার কথা যা আমি জানি। আমি স্টার্ট-আপ কোম্পানিতে কাজ করছি ১৯৯৮ সাল থেকে। সিলিকন ভ্যালিতে। সময়ের একটা আন্দাজ দিতে বলি - গুগুল তখনও শুধু সিলিকন ভ্যালির আনাচে-কানাচে, ফেসবুকের নামগন্ধ নেই, ইয়াহুর বয়েস বছর চারেক, অ্যামাজনেরও বেশি দিন হয়নি। ...
  • মৃণাল সেন : এক উপেক্ষিত চলচ্চিত্রকার
    [আজ বের্টোল্ট ব্রেশট-এর মৃত্যুদিন। ভারতীয় চলচ্চিত্রে যিনি সার্থকভাবে প্রয়োগ করেছিলেন ব্রেশটিয় আঙ্গিক, সেই মৃণাল সেনকে নিয়ে একটি সামান্য লেখা।]ভারতীয় চলচ্চিত্রের ইতিহাসে কীভাবে যেন পরিচালক ত্রয়ী সত্যজিৎ-ঋত্বিক-মৃণাল এক বিন্দুতে এসে মিলিত হন। ১৯৫৫-তে মুক্তি ...
  • দময়ন্তীর সিজনস অব বিট্রেয়াল পড়ে
    পড়লাম সিজনস অব বিট্রেয়াল গুরুচন্ডা৯'র বই দময়ন্তীর সিজনস অব বিট্রেয়াল। বইটার সঙ্গে যেন তীব্র সমানুভবে জড়িয়ে গেলাম। প্রাককথনে প্রথম বাক্যেই লেখক বলেছেন বাঙাল বাড়ির দ্বিতীয় প্রজন্মের মেয়ে হিসেবে পার্টিশন শব্দটির সঙ্গে পরিচিতি জন্মাবধি। দেশভাগ কেতাবি ...
  • দুটি পাড়া, একটি বাড়ি
    পাশাপাশি দুই পাড়া - ভ-পাড়া আর প-পাড়া। জন্মলগ্ন থেকেই তাদের মধ্যে তুমুল টক্কর। দুই পাড়ার সীমানায় একখানি সাতমহলা বাহারী বাড়ি। তাতে ক-পরিবারের বাস। এরা সম্ভ্রান্ত, উচ্চশিক্ষিত। দুই পাড়ার সাথেই এদের মুখ মিষ্টি, কিন্তু নিজেদের এরা কোনো পাড়ারই অংশ মনে করে না। ...
  • পরিচিতির রাজনীতি: সন্তোষ রাণার কাছে যা শিখেছি
    দিলীপ ঘোষযখন স্কুলের গণ্ডি ছাড়াচ্ছি, সন্তোষ রাণা তখন বেশ শিহরণ জাগানাে নাম। গত ষাটের দশকের শেষার্ধ। সংবাদপত্র, সাময়িক পত্রিকা, রেডিও জুড়ে নকশালবাড়ির আন্দোলনের নানা নাম ছড়িয়ে পড়ছে আমাদের মধ্যে। বুঝি না বুঝি, পকেটে রেড বুক নিয়ে ঘােরাঘুরি ফ্যাশন হয়ে ...
  • দক্ষিণের কড়চা
    (টিপ্পনি : দক্ষিণের কথ্যভাষার অনেক শব্দ রয়েছে। না বুঝতে পারলে বলে দেব।)দক্ষিণের কড়চা▶️এখানে মেঘ ও ভূমি সঙ্গমরত ক্রীড়াময়। এখন ভূমি অনাবৃত মহিষের মতো সহস্রবাসনা, জলধারাস্নানে। সামাদভেড়ির এই ভাগে চিরহরিৎ বৃক্ষরাজি নুনের দিকে চুপিসারে এগিয়ে এসেছে যেন ...
  • জোড়াসাঁকো জংশন ও জেনএক্স রকেটপ্যাড-১৪
    তোমার সুরের ধারা ঝরে যেথায়...আসলে যে কোনও শিল্প উপভোগ করতে পারার একটা বিজ্ঞান আছে। কারণ যাবতীয় পারফর্মিং আর্টের প্রাসাদ পদার্থবিদ্যার সশক্ত স্তম্ভের উপর দাঁড়িয়ে থাকে। পদার্থবিদ্যার শর্তগুলি পূরণ হলেই তবে মনন ও অনুভূতির পর্যায় শুরু হয়। যেমন কণ্ঠ বা যন্ত্র ...
  • উপনিবেশের পাঁচালি
    সাহেবের কাঁধে আছে পৃথিবীর দায়ভিন্নগ্রহ থেকে তাই আসেন ধরায়ঐশী শক্তি, অবতার, আয়ুধাদি সহসকলে দখলে নেয় দুরাচারী গ্রহমর্ত্যলোকে মানুষ যে স্বভাবে পীড়িতমূঢ়মতি, ধীরগতি, জীবিত না মৃতঠাহরই হবে না, তার কীসে উপশমসাহেবের দুইগালে দয়ার পশমঘোষণা দিলেন ওই অবোধের ...
  • ৪৬ হরিগঙ্গা বসাক রোড
    পুরোনো কথার আবাদ বড্ড জড়িয়ে রাখে। যেন রাহুর প্রেমে - অবিরাম শুধু আমি ছাড়া আর কিছু না রহিবে মনে। মনে তো কতো কিছুই আছে। সময় এবং আরো কত অনিবার্যকে কাটাতে সেইসব মনে থাকা লেখার শুরু খামখেয়ালে, তাও পাঁচ বছর হতে চললো। মাঝে ছেড়ে দেওয়ার পর কিছু ব্যক্তিগত প্রসঙ্গ ...
  • কাশ্মীরের ভূ-রাজনৈতিক ইতিহাসঃ ১৯৩০ থেকে ১৯৯০
    ভারতে ব্রিটিশ সাম্রাজ্যবাদের সূর্য অস্ত যায় ১৯৪৭ এ। মূল ভারত ভূখন্ড ভেঙে ভারত ও পাকিস্তান নামে দুটি আলাদা রাষ্ট্র গঠিত হয়। কিন্তু ভুখন্ডের ভাগবাঁটোয়ারা সংক্রান্ত আলোচনচক্র ওতটাও সরল ছিল না। মূল দুই ভূখণ্ড ছাড়াও তখন আরও ৫৬২ টি করদরাজ্য ছিল। এগুলোতে ...


বইমেলা হোক বা নাহোক চটপট নামিয়ে নিন রঙচঙে হাতে গরম গুরুর গাইড ।

কাশ্মীর এবং সশক্ত-ভারত

Saikat Bandyopadhyay

মোদীজির সাফল্যের কাছে এভারেস্টও বেঁটে মতো, মারিয়ানা খাতও নেহাৎই ডোবা। মঙ্গলে উপগ্রহ পাঠানোও মাছি-মারার মতই সহজ, হালের চন্দ্রযান তো এমনকি গণেশের প্লাস্টিক সার্জারির চেয়েও সোজা। নিত্যনতুন কর্মকান্ডে তিনি আমাদের আশ্চর্য করেই চলেছেন। এর আগে এইভাবেই মোদীজি নতুন নোটে জিপিএস চিপ লাগিয়ে সন্ত্রাসবাদের সাড়ে-সব্বোনাশ করে দিয়েছিলেন। সে এতই কার্যকরী হয়েছিল, যে, সন্ত্রাসবাদীরা জিপিএস ট্র্যাকিং এর জ্বালায় অতিষ্ঠ হয়ে আক্রমণ বাড়িয়ে দিয়েছিল। তাতে প্রচুর সৈনিক, অনেক অসামরিক মানুষ, কয়েকটি প্লেন, ইত্যাদি নানা জৈব ও অজৈব পদার্থ মারা গেছে ঠিকই, কিন্তু জবাবে মোদীজির নেতৃত্বে পাকিস্তানের মাটিতে অনেক পাইনগাছে এবং একটি কাক মারা হয়েছে, এ কথাও মনে রাখা জরুরি। একেই আপনারা মোদীজির নৈতিক জয় বলতে পারেন।

মোদীজির কোনো ক্লান্তি নেই, তাই এই বিরাট সাফল্যের পরের ধাপ ৩৭০ বিলোপও কয়েক মাসের মধ্যেই এসে গেছে। হোয়াটস্যাপ ইউনিভার্সিটির ফরোয়ার্ড দেখলেই আপনারা সেসব সম্পর্কে বিশদে জানতে পারবেন। চাদ্দিকে নানা বার্তা দৌড়চ্ছে, যার মূল কথা হল, এতদিন কাশ্মীর পাকিস্তানে ছিল, মোদীজি তাকে ধরে-বেঁধে ভারতবর্ষে এনে ফেলেছেন। এখন থেকে কাশ্মীরে ভারতের পতাকা উড়বে (নিশ্চয়ই আগে উড়তনা)। এখন সুপ্রিম কোর্টের আওতায় চলে এল কাশ্মীর (আগে গিলানির ফাঁসির আদেশ দিতে ঘেমে-নেয়ে একশা হয়েছে, আফজল কে কোনোমতে দিতে পেরেছিল)। জিহাদিদের শাসন থেকে আজ চিরমুক্তি, আজ কাশ্মীর দিবস। যেভাবে নোটে চিপ লাগিয়ে সন্ত্রাসমুক্তি হয়েছে, সেভাবেই ৩৭০ তুলে দিয়ে কাশ্মীরের ভারতভুক্তি হল। মেসেজের নিচে জ্বলজ্বলে হ্যাশট্যাগ দিয়ে আবার লেখা থাকছে #সশক্তভারত। এ কোনো বাংলা শব্দ নয় (আইটি সেলের করবার, সবাই কপিপেস্ট মারছে), তবু পড়লেই বুঝতে পারবেন, যে, এতদিন, এমনকি মোদীবাবুর ৫ বছরেও ভারত অশক্ত ছিল, এবার "সশক্ত" হয়ে গেছে।

সশক্ত হয়ে আপনি এবার কী করবেন? সাধারণ জ্ঞান না থাকলে চারদিকে অন্তত কান পাতুন। শুনবেন নাগাড়ে ৩৭০ আর ৩৫এর চাষ হচ্ছে। পাড়ার বড়দা-বড়দিরা, অবিরত জ্ঞান ঝাড়ছেন, আপনার কটি হাত, কটি নতুন পা, আর কটি ব্র্যান্ড-নিউ ন্যাজ গজালো সেই নিয়ে। মোদ্দা কথা হল, এবার আপনার জীবনে অপার সুখ-শান্তি নেমে এল, তার জন্য আর স্বপনে কিংবা শ্মশানে যেতে হবেনা। এবার থেকে বাঙালি ছোঁড়ারা যতখুশি কাশ্মীরি কন্যা বিয়ে করতে পারবে (যেন এতদিন কাশ্মীরি কন্যারা বাঙালি বিয়ে করতে না পেরে মূহ্যমান হয়ে পড়েছিল)। বাঙালি মেয়েদেরও কোনো ভয় নেই, শালওয়ালা পেলেই টপ করে পাকড়ে নিতে পারবেন, বিয়ে-থা হলে আপনাকে আর কাশ্মীরি হয়ে যেতে হবেনা। আরও গুরুত্বপূর্ণ যেটা, সেটা হল, বাঙালি মধ্যবিত্তরা স্রেফ ৩৭০ এর অভাবে এতদিন শ্রীনগর উপত্যকায় রিটায়ারমেন্ট হোম বানাতে পারছিলেননা, এখন সেই সমস্যা মিটল। এবার ডাল লেকের পাড়ে-পাড়ে দেখবেন, ঘোষ-বোস-মিত্তিরদের বাগানবাড়ি। রাস্তা দিয়ে হাঁটলেই আলুপোস্তর সুবাস আসবে নাকে। মোড়ে-মোড়ে হবে রসগোল্লার দোকান (সে অবশ্য হলদিরাম দেবে)। চালাও পানসি বেলঘরিয়ার বদলে এখন নতুন প্রবাদ হবে, ঘোরাও হাউসবোট ডাল লেকে। এইসব অধিকার থেকে বঞ্চিত হয়ে বাঙালি মরে যাচ্ছিল, আজ এল তার আকাশে ওড়ার দিন। এখন স্রেফ এক দেশ, এক আইন।

এই শুনে আবার মিনমিন করে সিকুলার লিবারালদের মতো প্রশ্ন করতে যাবেননা কিন্তু, যে, উত্তর-পূর্বের রাজ্যে-টাজ্যে তো নানারকম বিধিনিষেধ এখনও আছে, বা, আসামে একটি বিদঘুটে পদ্ধতিতে নাগরিকত্ব যাচাই হচ্ছে, যা ভারতের আর কোথাও হয়না, তাহলে এক-দেশ, এক-আইন টা হল কীকরে? তাহলেই দেশপ্রমিকরা আপনাকে ধুইয়ে দেবেন। "হোয়াট্যাবাউটারি করবেন না তো"। এ অবশ্য আপনারই শিক্ষা। আপনি লিবারাল হয়ে জন্মেছেন, প্রশ্ন উঠলেই নাক-কুঁচকে চতুর্দিকে এইসব লব্জ ঝেড়েছেন নির্বিচারে, এখন সেসব ফেরত পাবেন না বললে হবে? আজ কাশ্মীর দিবস, পে-ব্যাক ডে। কাশ্মীর ভারত ফেরত পেয়েছে, আপনিও তাই ফ্রিতে ফেরত পাচ্ছেন আপনার লব্জ। এ হল মুক্তির দিন। জয় ভারত, সশক্ত ভারত।

1185 বার পঠিত (সেপ্টেম্বর ২০১৮ থেকে)

শেয়ার করুন


মন্তব্যের পাতাগুলিঃ [1] [2] [3]   এই পাতায় আছে 1 -- 20
Avatar: শেখর

Re: কাশ্মীর এবং সশক্ত-ভারত

লা জবাব, সৈকত।
Avatar: পিসিচলোযাই

Re: কাশ্মীর এবং সশক্ত-ভারত

দুপুর থেকে হোয়াটসঅ্যাপে কত কী মিম আসছে। মোদীর পক্ষে ও সেকুলারদের বিপক্ষে। একটা গ্রুপে একজন এসে বলে গেলেন আজ সেকেন্ড ইন্ডিপেন্ডেন্স ডে। ইন্ডিপেন্ডেন্স এর বানান ভুল ছিল সে অবিশ্যি অন্য কথা। আরেকজন তো বললেন, আপনি আগে ভারতীয় হন, তারপর শিক্ষিত হবেন। ভক্তদের সঙ্গে কাঁহাতক আর তর্ক করা যায়।
Avatar: pp

Re: কাশ্মীর এবং সশক্ত-ভারত

আফনের দুঃসাহ্স তো কম না ভক্তদের সঙ্গে তর্ক করতে গেছেন।
Avatar: ব্রতীন

Re: কাশ্মীর এবং সশক্ত-ভারত

ঈশেন কাঁপিয়ে দিয়েছো তো

😃😃
Avatar: dc

Re: কাশ্মীর এবং সশক্ত-ভারত

"সশক্ত হয়ে আপনি এবার কী করবেন?"

এসব প্রশ্ন না করাই ভালো।
Avatar: দ

Re: কাশ্মীর এবং সশক্ত-ভারত

পরের টার্গেট নিশ্চয় মেঘালয়। নিশ্চয় মৌসিনরামে কেন জমি কেনা যাবে না সেই নিয়ে হোয়া মেসেজ তৈরী হচ্ছে। ইতিমধ্যে কাশ্মীরে সব অ্যাকসেস বন্ধ করে প্রচুর ল্লোক নিরুদ্দেশ করে চাট্টি জমি আম্বানি আদানিরা দখল করুক। ব্যবসাপাতির হাল তো খুবই খারাপ।
Avatar: PM

Re: কাশ্মীর এবং সশক্ত-ভারত


পাকিস্তানি রা কি ভাবছেন সেটা শুনে দেখতে পারেন। একটা টক শো র লিন্ক দিলাম। এমনিরে খুব ই সেন্সিবল টক শো, ভারতে বিরল । তবে কাশ্মির নিয়ে কোনো দেশের ই পুরো বায়াস ফ্রি হওয়া মুসকিল। তবু শুনে দেখুন

https://youtu.be/-L6TH-hi_jM
Avatar: PM

Re: কাশ্মীর এবং সশক্ত-ভারত

এরা বলছে , এই অ্যানেক্সেসনের পর ১৯৪৯-২০১৯ এর কোনো সমঝোতাই ভ্যালিড নয় , সিমলা চুক্তি সমেত।

পুরো পরিস্থিতি ১৯৪৮ এর অবস্থায় ফিরে গেছে। সেক্ষেত্রে যুদ্ধ পরিস্থিতিতে জেনিভা কনভেন্সন অ্যাপ্লিকেবল । আর যেহেতু সিমলা চুক্তি ভ্যালিদ নয়--- তাই কাশ্মীর আর দিপক্ষিক বিষয় নয়, তো ইন্টার্নেশনাল ইন্ভলভ্মেন্ট এ এখন আর কোনো বাধা নেই
Avatar: Amit

Re: কাশ্মীর এবং সশক্ত-ভারত

কাশ্মীর জিওগ্রাফিকালি এতো টাই সেনসিটিভ যে ভারত কেন, কোনো দেশ ই ও রকম একটা স্ট্রাটেজিক জায়গা কে কোনো দাবি দাওয়া ছাড়া জাস্ট ছেড়ে দিতে পারবে না। অন্য যেকোনো একটা দেশের উদা দেখানো হোক, যারা এর অর্ধেক সেনসিটিভ জায়গা গণভোট নিয়ে সোনামুখ করে ছেড়ে দিয়েছে। আর পাকিস্তান বা চীন ও কম কাদা ঘাটে নি ওদের দখলে কাশ্মীর র অংশ নিয়ে।

মোদী একটা বিরাট গ্যাম্বল খেলেছে, বোঝাই যাচ্ছে ২০২৪ এর গুটি সাজাচ্ছে। ওর রিস্ক টেকিং ক্যাপাবিলিটি সাংঘাতিক, সেটা বারবার দেখা গেছে। বাকিরা যেটা বহু ভেবেচিন্তে পিছিয়ে যেত, ও সোজা ঝাঁপিয়ে পড়ে। পাকিস্তান এখন নিজের আর্থিক সমস্যায় গলা অব্দি ডুবে আছে, এর দাপটে যদি পাকিস্তান ল্যাজ গুটিয়ে নেয় , তাহলে আর মোদী কে পায় কে। যদি অবশ্য উল্টো ভেবে পাকিস্তান একটা মরণ কামড় দিতে চায়, তাহলে যুদ্ধ যুদ্ধ লেগে গেলে বাকি সব ইসু টেবিল এর তলায় এমনিই চলে যাবে।

আর শুধু সরকারকে অন্তর্জালে গাল দিয়ে কি হবে-? বিরোধী রা সব কোথায় ? প্রধান বিরোধী দল তো নেতা ছাড়া দু মাস ধরে খাবি খাচ্ছে, গান্ধী স্ট্যাম্প না থাকলে তেনাদের আবার নেতা তৈরী হয়না। বাকিরা ছন্নছাড়া বললেও কম বলা হয়। বিরোধী ঐক্য কালকেই রাজ্যসভায় দেখা গেছে। :)

মাঝের থেকে অবশ্য সাধারণ কাশ্মীরি দের দের আম ছালা দুটোই যাচ্ছে। সে আর দুনিয়াতে কোথায় সব কিছু ঠিক ঠাক চলছে? এভাবেই চলবে। উলুখাগড়া রা মরবে।



Avatar: মোহিত রণদীপ

Re: কাশ্মীর এবং সশক্ত-ভারত

'কাশ্মীর এবং সশক্ত ভারত' পড়লাম। এই দুঃসময়ে এমন লেখা বড় জরুরি মনে হয়। কিন্তু, এই স্যাটায়ার বোঝার বোধও বোধহয় হারিয়ে ফেলেছেন বাংলার বহু মানুষ! সংবেদনহীন মানুষের সংখ্যাই ক্রমশ যেন বাড়ছে চারপাশে!
একটা ছোট্ট সংশোধন করতে পারলে বোধহয় ভালো হয় লেখাটিতে। এক জায়গায় লেখা আছে,
'বাঙালি মধ্যবিত্তরা স্রেফ ৩৭০ এর অভাবে এতদিন শ্রীনগর উপত্যকায় রিটায়ারমেন্ট হোম বানাতে পারছিলেননা, এখন সেই সমস্যা মিটল।'
এখানে 'অভাবে' শব্দটি নিয়ে একটু ভাবতে অনুরোধ করবো লেখককে।
Avatar: dc

Re: কাশ্মীর এবং সশক্ত-ভারত

অমিতের সাথে সম্পূর্ণ সহমত। ইন ফ্যাক্ট আজকের অবস্থার জন্য আরেসেস যদি সরাসরি দায়ী হয় তো কংগ্রেস পরোক্ষে দায়ী। একটা ন্যাশনাল পার্টি এইভাবে উবে গেল, দেশে বেসিকালি এখন আর কোন বিরোধী পার্টি নেই। ফলে সরকার পক্ষ যা খুশী করতে পারছে।
Avatar: দ

Re: কাশ্মীর এবং সশক্ত-ভারত

ওমিত কি বলতে চাইলেন লেখাটা মোটেই ঠিক হয় নি? ``
Avatar: Amit

Re: কাশ্মীর এবং সশক্ত-ভারত

দ-কে,
না তো । সেটা কখন বললুম আবার ? লেখাটা র মধ্যে যে সুক্ষ ব্যঙ্গ আছে, সেটা নিশ্চয় পাঠক হিসেবে ১০০-% উপভোগ করেছি। তার কৃতিত্ব দিতে কোনো আপত্তি নেই।

কিন্তু প্রশ্ন এটাই তুলেছি বাস্তব দুনিয়াতে গণতন্ত্র আর মিলিটারি তন্ত্র কোন দেশে প্রাক্টিক্যালি হাত ধরা ধরি করে চলে- ? সেটা কোনো দেশেই হয়না বোধহয়, হলে কি আর UK ৭০০০ মাইল দূরে সমুদ্রে একটা পুচকে ফকল্যান্ড আইল্যান্ড এর জন্য লড়াই করতে যায় ? তখন UK -র ইন্টারনাল আর্থিক অবস্থা র সাথে এখনকার ইন্ডিয়ার অনেক মিল পাবেন, থ্যাচার ও একটা এক্সটার্নাল ডিভর্সন চাইছিলেন ডেসপারেটলি আর আর্জেন্টিনা ওনাকে একেবারে কলার কাদি সাজিয়ে দিয়েছিলো।

আরো হাজার উদাহরণ বেরিয়ে আসবে যেখানে এসব নিয়ে গুচ্ছের লড়াই হয়েছে, বেশি লিখে লাভ নেই , সবাই জানেন ওসব। বরং কেও অন্য দিকের উদা জানা থাকলে (যেখানে নির্ঝঞ্জাটে এরকম স্ট্রাটেজিক অঞ্চল হাতবদল হয়েছে ) বলুন না এখানে , জানলে ভালোই লাগবে।
Avatar: A

Re: কাশ্মীর এবং সশক্ত-ভারত

Saikat-er lekha ta ekpeshe laglo; banglider tene ene ki laabh holo - borong kashmiri der ki holo na holo focus korle bhalo hoto ...

Amit e-r shonge sohomot - birodhi nei sutarang sorkar target korbei ...

tobe property kena becha tar bapar ta besh interesting -- ekta whatsapp group e dekhlam sudhu property niyei discussion cholche - jeno 370 r 35 bondho hoye geche bole sobai real estate business korbe
Avatar: Amit

Re: কাশ্মীর এবং সশক্ত-ভারত

উদা দিতে গিয়ে কেও আবার প্লিজ আলাস্কা টেনে আনবেন না। রাশিয়ান রা এখনো হাত কামড়ায় ওটা নিয়ে :) :) আমার নিজের দুটো বন্ধু আছে। :) :) মাইরি বলছি।

ওখানে যে তেলের ভান্ডার আছে, সেটা 18th সেঞ্চুরি তে খুঁজে পায়নি ওরা, আর তখন জেওপলিটিক্স এর সাথে এখনকার হাজার মাইল তফাৎ। একটু রিসেন্ট উদা দেবেন প্লিজ।
Avatar: প্রভাস চন্দ্র রায়

Re: কাশ্মীর এবং সশক্ত-ভারত

demonetization করে হাজার হাজার মানুষের রুজি হারিয়েছে, এক পয়সা কালো টাকা উদ্ধার হয়নি। সার্জিক্যাল স্ট্রাইকের পর সন্ত্রাস কমেনি। শিল্পে মন্দা, লক্ষ লক্ষ মানুষ বেরোজগারের পথে। শেয়ার বাজারে পতন। টাকার দাম আন্তর্জাতিক বাজারে সর্বনিম্ন। প্রতি দিন ব‍্যাঙ্কে গচ্ছিত টাকায় সুদ কমছে।
আমরা আনন্দিত, সব সমস্যার সমাধান এখন হাতের মুঠোয়।
কোন সমালোচনা করে দেশদ্রোহী হতে চাইনা। সুতরাং--
Avatar: S

Re: কাশ্মীর এবং সশক্ত-ভারত

ঈশানদার লেখাটা দারুন হলেও আমার ভালো লাগেনি। বিজেপির ক্রমাগত বজ্জাতি, অপদার্থতা, আর কালকের সর্বনেশে সিদ্ধান্তের পরে আমার পক্ষে আর স্যাটায়ার নেওয়া সম্ভব হচ্ছেনা।
Avatar: পারমিতা

Re: কাশ্মীর এবং সশক্ত-ভারত

সপাটে.
Avatar: Ekak

Re: কাশ্মীর এবং সশক্ত-ভারত

কোন্গ্গ্রেস কোন মুখে বিরোধিতা কোর্বে ? এইজে গভর্নর্কে দলে টেনে স্টেট ল্য চেন্জ করা এসব দুগ্গিবাজি কোঙ্গুরাও করেছে। বিজেপি একই রাস্তায় উইথ ফুল ডেস্পারেশন খেল্ছে ।
Avatar: PM

Re: কাশ্মীর এবং সশক্ত-ভারত

Kআশ্মিরের সাথে তুলনা হয় না , কিন্তু অনেক ছোটো স্কেলে হয়েছে

যাস্ট উদাহরনের জন্য রিসেন্ট দুটো ঘটনা--

১। বাংলাদেশের সাথে বহুদিন ধরে বিতর্কিত ছিটমহল বিনিময়
২। ঐ বাংলাদেশের সাথেই বহুদিনের বিতর্কিত জলসীমা সংক্রান্ত সমস্যার শান্তিপুর্ন সমাধান যেখানে ভারত ICJ র মধ্যস্ততায় বঙ্গপোসাগরের প্রায় ২০০০০ বর্গ কিমি এলাকার ওপোর দাবী প্রত্যাহার করে।

কাল ঐ এলাকায় তেল বা অন্য কিছু পাওয়া যাবে না তার গ্যারান্টি নেই। ওর কাছাকাছি জায়্গায় ওরা গ্যাস পেয়েচে বলে শুনেছি।

https://www.thedailystar.net/bangladesh-gets-19-467sq-km-area-in-bay-3
2400


আমার কাছে আরো একটা জিনিষ ক্লিয়ার নয়। ভারতের ভাগের কাশ্মীরের জিও স্ট্র্যাটেজিক গুরুত্ব কি? পাকিস্তানের ভাগের গিল্গিট- বাল্টিস্থান এর গুরুত্ব অনেক অনেক বেশী। ওটা ভারতে থাকলে , আফগানিস্থান এর সাথে সরাসরি বর্ডার থাকত (ছোট্টো হলেও) । মধ্য এশিয়া আর টার্কির সাথে পাকিস্থান কে বাই পাস করে স্থলপথে যোগাযোগ হতো। অন্য দিকে পাক চীনের মাঝে কোনো বর্ডার থাকত না। সেক্ষেত্রে কয়েকদশক আগে তৈরী চিন পাক কারাকোরাম হাইওয়ে আর এখনকার সিপেক কোনোটাই হতো না। পাক চীন প্রতিবেশীও হত না। গিলগিট বাল্টিস্থানের স্ত্র্যাটেজিক গুরুত্ব অনেক বেশী।

ভারতের কাছে যতটুকু কাশ্মীর আছে তার ইমোসনল গুরুত্ব আছে , কিন্তু স্ট্রটেজিক গুরুত্ব কি ?






মন্তব্যের পাতাগুলিঃ [1] [2] [3]   এই পাতায় আছে 1 -- 20


আপনার মতামত দেবার জন্য নিচের যেকোনো একটি লিংকে ক্লিক করুন