Sumeru Mukhopadhyay RSS feed
Sumeru Mukhopadhyayএর খেরোর খাতা।

আরও পড়ুন...
সাম্প্রতিক লেখালিখি RSS feed
  • ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা... বাংলাদেশের রাজনীতির গতিপথ পরিবর্তন হওয়ার দিন
    বিএনপি এখন অস্তিত্ব সংকটে আছে। কিন্তু কয়েক বছর আগেও পরিস্থিতি এমন ছিল না। ক্ষমতার তাপে মাথা নষ্ট হয়ে গিয়েছিল দলটার। ফলাফল ২০০৪ সালের ২১ আগস্টে তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেত্রী শেখ হাসিনাকে গ্রেনেড মেরে হত্যার চেষ্টা। বিরোধীদলের নেত্রীকে হত্যার চেষ্টা করলেই ...
  • তোমার বাড়ি
    তোমার বাড়ি মেঘের কাছে, তোমার গ্রামে বরফ আজো?আজ, সীমান্তবর্তী শহর, শুধুই বেয়নেটে সাজো।সারাটা দিন বুটের টহল, সারাটা দিন বন্দী ঘরে।সমস্ত রাত দুয়ারগুলি অবিরত ভাঙলো ঝড়ে।জেনেছো আজ, কেউ আসেনি: তোমার জন্য পরিত্রাতা।তোমার নমাজ হয় না আদায়, তোমার চোখে পেলেট ...
  • বার্সিলোনা - পর্ব ২
    বার্সিলোনা আসলে স্পেনের শহর হয়েও স্পেনের না। উত্তর পুর্ব স্পেনের যেখানে বার্সিলোনা, সেই অঞ্চল কে বলা হয় ক্যাটালোনিয়া। স্বাধীনদেশ না হয়েও স্বশাসিত প্রদেশ। যেমন কানাডায় কিউবেক। পৃথিবীর প্রায় সব দেশেই মনে হয় এরকম একটা জায়গা থাকে, দেশি হয়েও দেশি না। ...
  • বার্সিলোনা - পর্ব ১
    ঠিক করেছিলাম আট-নয়দিন স্পেন বেড়াতে গেলে, বার্সিলোনাতেই থাকব। বেড়ানোর সময়টুকুর মধ্যে খুব দৌড় ঝাঁপ, এক দিনে একটা শহর দেখে বা একটা গন্তব্যের দেখার জায়গা ফর্দ মিলিয়ে শেষ করে আবার মাল পত্তর নিয়ে পরবর্তী গন্তব্যের দিকে ভোর রাতে রওনা হওয়া, আর এই করে ১০ দিনে ৮ ...
  • লাল ঝুঁটি কাকাতুয়া
    -'একটা ছিল লাল ঝুঁটি কাকাতুয়া।আর ছিল একটা নীল ঝুঁটি মামাতুয়া।'-'এরা কারা?' মেয়েটা সঙ্গে সঙ্গে চোখ বড়ো করে অদ্ভুত লোকটাকে জিজ্ঞেস করে।-'আসলে কাকাতুয়া আর মামাতুয়া এক জনই। ওর আসল নাম তুয়া। কাকা-ও তুয়া বলে ডাকে, মামা-ও ডাকে তুয়া।'শুনেই মেয়েটা ফিক করে হেসে ...
  • স্টার্ট-আপ সম্বন্ধে দুচার কথা যা আমি জানি
    স্টার্ট-আপ সম্বন্ধে দুচার কথা যা আমি জানি। আমি স্টার্ট-আপ কোম্পানিতে কাজ করছি ১৯৯৮ সাল থেকে। সিলিকন ভ্যালিতে। সময়ের একটা আন্দাজ দিতে বলি - গুগুল তখনও শুধু সিলিকন ভ্যালির আনাচে-কানাচে, ফেসবুকের নামগন্ধ নেই, ইয়াহুর বয়েস বছর চারেক, অ্যামাজনেরও বেশি দিন হয়নি। ...
  • মৃণাল সেন : এক উপেক্ষিত চলচ্চিত্রকার
    [আজ বের্টোল্ট ব্রেশট-এর মৃত্যুদিন। ভারতীয় চলচ্চিত্রে যিনি সার্থকভাবে প্রয়োগ করেছিলেন ব্রেশটিয় আঙ্গিক, সেই মৃণাল সেনকে নিয়ে একটি সামান্য লেখা।]ভারতীয় চলচ্চিত্রের ইতিহাসে কীভাবে যেন পরিচালক ত্রয়ী সত্যজিৎ-ঋত্বিক-মৃণাল এক বিন্দুতে এসে মিলিত হন। ১৯৫৫-তে মুক্তি ...
  • দময়ন্তীর সিজনস অব বিট্রেয়াল পড়ে
    পড়লাম সিজনস অব বিট্রেয়াল গুরুচন্ডা৯'র বই দময়ন্তীর সিজনস অব বিট্রেয়াল। বইটার সঙ্গে যেন তীব্র সমানুভবে জড়িয়ে গেলাম। প্রাককথনে প্রথম বাক্যেই লেখক বলেছেন বাঙাল বাড়ির দ্বিতীয় প্রজন্মের মেয়ে হিসেবে পার্টিশন শব্দটির সঙ্গে পরিচিতি জন্মাবধি। দেশভাগ কেতাবি ...
  • দুটি পাড়া, একটি বাড়ি
    পাশাপাশি দুই পাড়া - ভ-পাড়া আর প-পাড়া। জন্মলগ্ন থেকেই তাদের মধ্যে তুমুল টক্কর। দুই পাড়ার সীমানায় একখানি সাতমহলা বাহারী বাড়ি। তাতে ক-পরিবারের বাস। এরা সম্ভ্রান্ত, উচ্চশিক্ষিত। দুই পাড়ার সাথেই এদের মুখ মিষ্টি, কিন্তু নিজেদের এরা কোনো পাড়ারই অংশ মনে করে না। ...
  • পরিচিতির রাজনীতি: সন্তোষ রাণার কাছে যা শিখেছি
    দিলীপ ঘোষযখন স্কুলের গণ্ডি ছাড়াচ্ছি, সন্তোষ রাণা তখন বেশ শিহরণ জাগানাে নাম। গত ষাটের দশকের শেষার্ধ। সংবাদপত্র, সাময়িক পত্রিকা, রেডিও জুড়ে নকশালবাড়ির আন্দোলনের নানা নাম ছড়িয়ে পড়ছে আমাদের মধ্যে। বুঝি না বুঝি, পকেটে রেড বুক নিয়ে ঘােরাঘুরি ফ্যাশন হয়ে ...


বইমেলা হোক বা নাহোক চটপট নামিয়ে নিন রঙচঙে হাতে গরম গুরুর গাইড ।

মদ খেতে খেতে খেতে খেতে

Sumeru Mukhopadhyay



গোলদরি আভাস ছিল। বছর শেষের নানান কমিটমেন্ট। ফোন ধরি, আর না না করি। সম্বিত বলে যাও সন্ধ্যেবেলা দু-পত্তর চাপাও। আমি বলি না, দুই আর দশের তফাত আমি বুঝি, ওকে অত ভাঙ্গিনা। সে দুই জানু লন্ডন ফিরে যাবে। কাজ এগানো যাক। কাল বলেই রেখেছিল, এডিট যখন লক তো একটু দু পাত্তর। বছর ও তো শেষ প্রায়। আপত্তি ধোপে টেকে না। বিকেলে ছয়টা গ্লাস কেনা হয়, দুই বোতোল সিংগল মল্ট আর দুই লিটার জল। সবারই বাড়ি ফিরতে হবে, ফালতু সময় নষ্ট করে লাভ নেই তাই খাবার কেনা হয় না। বরং রাইচুর জন্যে কেনা হয় এক বোতল গোল্ড রিজারভ। সে বেচারা কালার করবে সারা রাত, তার আবার কাল তিন জায়গায় পার্টি। অফ।

প্রথমে খোলা হয় গ্লেন্ফিডিশ। তারপর গ্লেন্লিভেট। পরে কম হয়ে যায় সেই ভয়ে দুষ্টুকে পঠিয়ে এক বোতল ব্লেন্ডর্র্স কেনা থাকে খাওয়া হয় না। দুষ্টু খচ্ছিল না। সে ডোক্সিসিলিন খাচ্ছিল মাঝে মাঝে। টকাস টকাস করে। সে মদ কিনে দিয়ে বেরিয়ে যায় হাত নাড়তে নাড়তে। মদ শেষ হয় সঠিক টাইমে। নয়টা দশ, মানে দোকান খোলা। রাইচু দৌড়ে বেরিয়ে যায় সম্বিতের ক্রেডিট কার্ডটা হাতে নিয়ে। দুই একবার স্ক্রিপ্টের ওপরেই সই প্র্যাকটিশ করে নিয়ে। ফেরে আর এক বোতল গ্লেন্ফিডিশ নিয়ে প্রায় দশটা নাগাদ। তখন আমরা প্রকৃতই ঝাপশা। হম্বি তম্বি করি আর মদ খাই। সে কাঁচু মচু। এটাও ঠিক সব দোকানে কার্ড নেয় না। তবু তাকে বকা খেতেই হয়।


মদ খেতে খেতে খেতে খেতে কেটে যায় কতগুলি বছর। ছাইভষ্ম কাজে সুখ পাই না। চারিদিকে মেলা মেলা আবহাওয়া। বছর শেষে কত জায়গায় তো কাটাতে পারতাম। যাই না। অন্ধকার ঘরে বসে মদ খাই আত্মগোপনকারী ইচ্ছারা কদাচ ঘুরে বেড়ায় গোলটেবিলের চারপাশে। মুক্তিপণ চাই মদের কাছে। ঝাপসা বইগুলি ছড়িয়ে রাখি ঘরময় যেন কলসের ছিদ্রদিয়ে ঘরময় ছড়িয়েছে আলোর বাতাসা। মথ্গুলি আমার শরীরে ড্রিল করে ঢুকে পড়ছে পাতাল শহরে, নখেরা এমন হয় বা টিউবরেল। আমি বুঝতে পারি মুর্চ্ছা মহেন্দ্রক্ষণ। বুঝতে পারি আমার ভেসে ওঠা। ফোনটা ধিরে ধিরে পড়ছে দূরবর্তী ঝরণার মত। মেঝেটা পাহাড়ের মত ফুঁসে উঠছে। কালো রঙের দেওয়াল তখন বাইসন, আমার আটকানোর ক্ষমতা নেই। বছর কেটে যায়।

254 বার পঠিত (সেপ্টেম্বর ২০১৮ থেকে)

শেয়ার করুন


Avatar: dd

Re: মদ খেতে খেতে খেতে খেতে

বাওয়া।

কথায় কথায় সিংগুল মল্ট !! আচ্ছা !!

তবে কোন শালা বলে আচ্ছে দিন এখনো আসে নাই।
Avatar: I

Re: মদ খেতে খেতে খেতে খেতে

আমারে কেউ মদ দেয় না।
Avatar: dd

Re: মদ খেতে খেতে খেতে খেতে

তো আমারে দিলো। একজন স্নেহাস্পদ।
ল্যাফ্রয়ে। এক লিটর।

সেটি - এক নৈকষ্য কুলীন স্কস। প্রোথোমে বেশ সুগন্ধো পেলেম। পন্ডিতে বল্লো "ওটা কোল মাইনের সুবাস। ওখানেই ওকের পিপেয় বারো বৎসর জাড়িয়ে রেখেছে, কয়লা,আঙুরে ক্যামোন মিলে মিশে গেচে, খ্যাল করো ডিডি "। ফার্স্ট দু তিন গ্যালাসের পর আর খোসবাই টের পাই নি।

শুধু এক ছলাৎ ছল অস্ফুটতা। এক নিঃশব্দো নির্য্যাস।অবোধ আঙুলে কাঁচের গ্যালাসের অসীম ছোঁয়াচ।

তিন চার পাচ গ্যালাসে একটি ব্রহ্মানন্দ। এক অন্তরীন পিয়াসা।নিঃসপত্ন্য আন্তরিকতায় মাখামাখি এক তুখোর তুরীয়তা।

ধুর। যারা মাল খান্না, তাঁরা আর ক্ষী বুঝবেন?
Avatar: মোহর

Re: মদ খেতে খেতে খেতে খেতে

আঙ্গুর??
Avatar: ASG

Re: মদ খেতে খেতে খেতে খেতে

"তিন চার পাচ গ্যালাসে একটি ব্রহ্মানন্দ। এক অন্তরীন পিয়াসা।নিঃসপত্ন্য আন্তরিকতায় মাখামাখি এক তুখোর তুরীয়তা।"
এই ল্যাখাটা পাচ এর পর লিকিত হয়েছে কিনা, তাই আঙ্গুর, মল্ট, বার্লি, গুড়, - কুন শ্রেনী ভেদ নাই।

Avatar: ranjan roy

Re: মদ খেতে খেতে খেতে খেতে


ডিডি--"ধুর। যারা মাল খান্না, তাঁরা আর ক্ষী বুঝবেন?"

ঠাকুর বলে গেছেন (কথামৃত)ঃ "পাঁচবছরের শিশুকে কি রমণসুখের আনন্দ বোঝানো যায়!"


আপনার মতামত দেবার জন্য নিচের যেকোনো একটি লিংকে ক্লিক করুন