খবর্নয় (ফেব্রুয়ারী ১৭)


লিখছেন -- শমীক মুখোপাধ্যায়


আপনার মতামত         


গন্ধবিচার
--------------
সেই যে রাজা মন্ত্রীর জামায় গন্ধ পেয়েছিলেন, সেই গন্ধ বিচার করতে সাহস করে কেউ এগিয়ে আসে নি, শের পালোয়ান ভীমসিং থেকে রাজার শালা চন্দ্রকেতু, সকলেই নিজ নিজ নাক এই বিচারে গলাতে অস্বীকার করেছিলেন। শেষমেশ ভাগ্যিস নবতিপর বৃদ্ধ নাজির হাজির ছিলেন, তাই সে যাত্রা শেষরক্ষা হয়েছিল।

কিন্তু মজার কবিতাতেই শুধু নয়, গন্ধের ক্ষমতা আসলে মোটেই হেলাফেলা করার মত নয়। জীবনসঙ্গী / সঙ্গিনী বাছার ক্ষেত্রেও গন্ধবিচার যথেষ্ট প্রাসঙ্গিক। ক্লেইম করছে একটি ডেটিং ওয়েবসাইট, সঙ্গী নির্বাচনের চাবিকাঠি নাকি আসলে লুকিয়ে আছে গায়ের গন্ধে। মেয়েরা পছন্দ করে সেই ছেলেদের, যাদের গায়ের গন্ধ তাদের নিজেদের গায়ের গন্ধের থেকে সবচেয়ে বেশি আলাদা। অ্যান্ড ভাইসি ভার্সা।

রিসার্চ জানাচ্ছে, আমাদের গায়ের ঘামে থাকে শরীরের প্রতিরোধ ক্ষমতা সংক্রান্ত জিন, আর তারই গন্ধে নাকি আকৃষ্ট হয় বিপরীত লিঙ্গ। নিজের এবং সম্ভাব্য সঙ্গীর পারস্পরিক গন্ধ যত বেশিমাত্রার আলাদা হবে, তত বেশি নাকি একে অপরের প্রতি আকৃষ্‌ত হবার সম্ভাবনা। মাত্র হাজার পাউন্ডে এই ওয়েবসাইটটি আপনার ঘাম থেকে DNA বের করে অন্যান্য বিপরীত লিঙ্গের ঘামের সাথে তুলনা করে আপনাকে ধরিয়ে দেবে সম্ভাব্য সঙ্গী / সঙ্গিনীদের লিস্টি। বাকিটা আপনার নাকের ক্যাপা। যে ঘামের গন্ধ আপনার বেশি পছন্দ হবে, তাকেই বিয়ে করার কথা ভাবতে পারেন।

রিসার্চ জানাচ্ছে, এই ধরণের নির্বাচনের পেছনে নাকি লুকিয়ে আছে নিজের ব্লাড রিলেশনের মধ্যে কারুর মিলিত হবার সম্ভাবনা প্রতিরোধের ধারণা, অথবা একই রকমের জিনসম্বলিত দুটি মানুষের মিলিত হবার সম্ভাবনা প্রতিরোধের ধারণা। ভিন্নধর্মী গন্ধে আকৃষ্ট হবার কারণই নাকি জিনে লেখা আছে, কারণ, ক্রস জেনেটিক মিলন, কে না জানে, সবচেয়ে বেশি কাম্য।


হর ফিক্‌র কো ধুঁয়ে মে উড়াতা ...
-----------------------------------------
অবসর নেবার পর জীবন আরও আরামে কাটাতে চান? পেনসন বেশি পেতে চান? রিটায়ারমেন্ট প্ল্যান ফ্ল্যান সে সব তো পুরনো আইডিয়া, বরং কষে ধূমপান করুন। না-হয় অ-ধূমপায়ীদের থেকে ছ-সাত বছর কম বাঁচবেন, তাতে কী? যদ্দিন বাঁচবেন, লিভ লাইফ কিং সাইজ।

ব্রিটেনের এক ইনস্যুরেন্স কোম্পানি স্মোকারদের জন্য বেশি টাকার পেনসন প্যাকেজ ঘোষণা করেছেন, কারণ, গত দশ বছর ধরে দিনে অন্তত দশটা করে সিগারেট খেয়েছেন, এমন লোকেদের মৃত্যু আসবে অন্যদের তুলনায় তাড়াতাড়ি। তা, মৃত্যু তো কারুর হাতে নেই, কম বাঁচবেন বলে অবসরজীবনে কম পেনসন পাবেন, এ কি এক ধরণের ডিসক্রিমিনেশন নয়? তাই উন্নত দেশে উন্নততর পেনসন স্কিম, স্মোকাররা পাবেন নন-স্মোকারদের থেকে তিরিশ পার্সেন্ট বেশি পেনসন। ইনস্যুরেন্স কোম্পানির কাছে এটা কোনও বিগ ডিল নয়, কারণ বেশিদিন তো চালাতে হবে না, বুড়ো এমনিতেই তাড়াতাড়ি টেঁসে যাবে লাং ক্যানসার হয়ে।

ভাবছি, সিগারেটটা ধরেই ফেলি। সেই যে কবি বলেছিলেন, যাবজ্জীবেৎ সুখেন জীবেৎ ...


ঘুর্ণিঝড়ের পরে
--------------------
একে বাংলায় বলে আফটারমাথ। ইংরেজিতে কী বলে জানি না অবশ্য। হুইটল্যান্ডের কেনোশা কাউন্টিতে এক বিধ্বংসী টর্নেডো প্রায় দু ডজন ঘরবাড়ি গুঁড়িয়ে দেয় এবং ৮০টিরও বেশি বাড়ি আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত করে বিদায় নেয়। ক্ষয়ক্ষতি ব্যাপক, সন্দেহ নেই, তবে সব শান্ত হয়ে যবার পরে এক গৃহহীনের কাছে টাইম্‌স ওয়ার্নার কেব্‌ল কোম্পানির একটি বিল এসে পৌঁছয়, মাত্র দু হাজার ডলারের, কেব্‌ল ইকুইপমেন্ট ড্যামেজ করার চার্জে।

বিল পেয়ে মাথায় হাত ঘরহারা টর্নেডো ভিক্টিম অ্যান বিম-এর। অ্যান যখন কেব্‌ল কোম্পানির অফিসে ফোন করেন, নিজেকে ম্যানেজার বলে পরিচয় দেওয়া এক ব্যক্তি ফোনের অপর প্রান্তে বসে জানান, এ ব্যাপারে তাঁর "কিছুই করার নেই'। অ্যান যেন বিল নিয়ে ইনস্যুরেন্স কোম্পানির সাথে যোগাযোগ করেন এ ব্যাপারে।

অ্যানের বাড়িতে কেবলের ইকুইপমেন্ট ন' বছরের পুরনো, ইনস্যুরেন্স কোম্পানি তার একটা ডেপ্রিশিয়েটেড ভ্যালুই দেবে, যদি ক্লেইম করা হয়, কিন্তু টাইম্‌স ওয়ার্নার চায় সম্পূর্ণ দাম।

এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে কেব্‌ল কোম্পানির তরফে মুখপাত্র ফ্লিন জানান, এটা নিতান্তই একটা ভুল বোঝাবুঝি। অ্যান যদি আরেকবার ফোন করে বক্তব্যটা পরিষ্কার করে জানান, তা হলে ওয়ার্নার কোম্পানি তাঁর অ্যাকাউন্ট থেকে ইকুইপমেন্টগুলো সরিয়ে নিয়ে তাঁকে বিল পেমেন্ট থেকে অব্যাহতি দিতে পারেন।


শ্লোগান দিতে গিয়ে ...
------------------------
আমেরিকার একটি অনলাইন টিশার্ট কোম্পানি, যারা নিজেদের biggest "funny" shirt retailer on the Web বলে দাবি করে, তারা পাঁচ বা তার কম বয়েসী বাচ্চাদের জন্য এমন সব টি-শার্ট বাজারে ছাড়ছে, যাতে বিভিন্ন অশ্লীল বা রেসিস্ট শ্লোগান লেখা। উদাহরণ: একটি টি-শার্টে লেখা " I'm this many ', সাথে একটি মধ্যমাঙ্গুলি উঁচিয়ে রাখা হাত, যার আক্ষরিক অর্থ FUCK ।

ছোট বাচ্চারা, যাদের মনে কোনও পাপ ঢোকে নি, তাদের মাধ্যমে এই ধরণের নোংরা শ্লোগান বাজারে ছড়িয়ে ফেলার এই অভিনব পন্থার নিন্দা করেছেন সুশীল সমাজ। এক ব্রিটিশ পাবলিশিং কোম্পানির এটিকেট অ্যাডভাইসার জো ব্রায়ান্টের মতে, এটা বাচ্চাদের একটা আনফেয়ার বিলবোর্ড হিসেবে ব্যবহার করে মজা পাবার মত ব্যাপার। শ্লোগান হবে এমন কিছু ফ্রেজ, যা তুমি তোমার বাচ্চার উপস্থিতিতে আর পাঁচজন লোকের সামনে জোরে জোরে উচ্চারণ করতে পারবে; এমন কিছু নয় যা তোমাকে লজ্জিত করে, কিংবা তোমার সামনে দাঁড়ানো আর পাঁচজনকে।

অন্যদিকে টিশার্ট হেল্‌ নামক সেই টিশার্ট কোম্পানির ডিরেক্টর অফ অপারেশনস দাবি করেছেন, এই সিরিজের টিশার্ট পিতামাতাদের মধ্যে যথেষ্ট পপুলার হয়েছে। তাঁরা অনেকদিন ধরেই এমন কিছু "হাট্‌কে' লাইনওয়ালা টিশার্ট খুঁজছিলেন, যেগুলো আর পাঁচটা টিশার্টের মত কনভেন্‌শনাল হবে না। " parents are looking for something that's not the same, that has a little more attitude. '

হায় রে, এই যদি অ্যাটিট্যুডের নমুনা হয় ...



ফেব্রুয়ারি ১৮, ২০০৭