লাল মানুষের চিঠি


শয়রর


আপনার মতামত         


১৮৫৪ সালে আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রপতি সিয়াটল উপজাতির লোকদের লোকদের নির্দেশ দেন তাদের বসতি এলাকা ছেড়ে চলে যেতে। কেননা সেখানে তৈরি হবে আধুনিক শহর। তার উত্তরে উপজাতি প্রধান "বড় সাদা সর্দার' আমেরিকার রাষ্ট্র পতিকে যে চিঠিটি দেন, ইংরিজি থেকে তার একটি যথাসম্ভব মূলানুগ অনুবাদ এখানে প্রকাশ করা হল।

রাষ্ট্র সংঘ এই চিঠিটিকে জাতিসমূহের অধিকারের প্রতীক বলে গ্রহণ করেছে। কূটকচা৯ বিভাগে একে জায়গা দেওয়া হচ্ছে নিতান্তই স্থানাভাবে। কারণ এই দলিলে বিন্দুমাত্র কূটকচালি নেই।


কি করে তোমরা বেচাকেনা করবে আকাশ, ধরিত্রীর উষ্ণতা? আমরা তোমাদের চিন্তা বুঝতে পারিনা।

বাতাসের সতেজতা, জলের ঝিকিমিকি -- আমরা তো এগুলোর মালিক নই, তবে তোমরা (আমাদের থেকে) এগুলো কিনবে কেমন করে?

এই ধরিত্রীর প্রতিটি অংশই আমার লোকদের কাছে পবিত্র। পাইন গাছের প্রতিটি চকচকে ডগা, বালুকাময় প্রতিটি সমুদ্রতট, অন্ধকার বনভূমিতে জমে থাকা কুয়াশা, প্রতিটি প্রান্তর, প্রত্যেকটি পতঙ্গের গুণাগুণ আমার লোকেদের দীর্ঘ অভিজ্ঞতা ও স্মৃতিতে পবিত্র। প্রতিটি বৃক্ষের ভিতর দিয়ে যে বৃক্ষরস প্রবাহিত হচ্ছে তারা লালমানুষদের স্মৃতি বয়ে নিয়ে চলেছে।

সাদা মানুষদের মৃতেরা তাদের নিজেদের দেশকে ভুলে দূর আকাশের তারার কাছে চলে যায়, আমাদের মৃতেরা এই সুন্দর পৃথিবীকে কখনও ভোলেনা, কেননা এ লালমানুষের মা।

আমরা এই ধরিত্রীর অংশ, এও আমাদের অংশ।

সুগন্ধ ফুলগুলি আমাদের বোন, হরিণ ঘোড়া বিশাল সব ঈগল পাখি -- এরা আমাদের ভাই।

পাহাড়ের পাথুরে সব গহ্বর, সরস মাঠ, ঘোড়ার বাচ্চার গায়ের যে উষ্ণতা আর মানুষ -- সবকিছু মিলে একই পরিবার।

ওয়াশিংটনের বড় সাদা সর্দার যখন বলে পাঠায় যে সে আমাদের দেশ কিনতে চায় তখন সে আমাদের কাছ থেকে অনেক বেশি কিছুই চায়। বড় সর্দার আমাদের জানিয়েছে সে আমাদের বাস করবার জন্য একটা রিজার্ভ অঞ্চল দেবে যেখানে আমরা আরামে থাকব। সে আমাদের পিতার মতো হবে আমরা তার সন্তানের মতো। আমরা তার কথা বিবেচনা করে দেখব।

কিন্তু এটা এত সহজ নয়। এই ভূমি আমাদের কাছে পবিত্র। এই যে নদীর জল ঝিলমিল করে বয়ে যাচ্ছে এ শুধু জল নয়, এ আমাদের পূর্বপুরুষের রক্ত।

যদি আমরা এই ভূমি তোমাদের দিয়ে দিই তাহলে তোমাদের মনে রাখতে হবে যে এই ভূমি পবিত্র। তোমরা তোমাদের ছেলেমেয়েদেরও নিশ্‌চয় করে শেখাবে এর পবিত্রতার কথা। তাদের শিখিও যে এখানকার হ্‌দগুলির পরিষ্কার জলের মধ্যে দেখতে পাওয়া যেকোনো রহস্যময় ছায়াই আমাদের মানুষদের জীবনের কোনো না কোনো ঘটনার স্মৃতি, ঝরণাগুলোর জলের মর্মরে আমার বাবার ও তার পিতৃপুরুষদের স্বর শোনা যায়।

নদীরা আমাদের ভাই, তারা আমাদের তৃষ্ণা মেটায়। নদীরা আমাদের বয়ে নিয়ে যায়, আমাদের ছেলেমেয়েদের মুখে খাবার যোগায়। যদি আমরা আমাদের দেশ তোমাদের দিই তাহলে তোমরা মনে রেখ, তোমাদের ছেলেমেয়েদের শিখিও যে, নদীরা মানুষের ভাই। সুতরাং তোমরা নদীদের সেরকমই যত্ন কোরো যেমন তোমরা তোমাদের ভাইদের কর।

আমরা জানি সাদা মানুষরা আমাদের ধরণধারণ বোঝেনা। তার কাছে পৃথিবীর এক অংশের সঙ্গে অন্য অংশের কোনো তফাত নেই কেননা সে ভিনদেশী -- রাত্রির অন্ধকারে আসে, নিজের যা দরকার মাটির কাছ থেকে কেড়েকুড়ে নিয়ে চলে যায়। এই ধরিত্রী তার আত্মীয় নয়, তার শত্রু। সে এক জয় করে, তারপর ফেলে দিয়ে যায়।

সে পিছনে ফেলে যায় তার পিতার কবর, নিজের সন্তানদের কাছ থেকে পৃথিবীকে সে চুরি করে, তাদের এতে কিছুই এসে যায়না।

তার পিতৃপুরুষের কবর, তার সন্তানদের অধিকার সে ভুলে যায়। তার মা এই ধরিত্রী, তার ভাই আকাশ -- এসবকে সে মনে করে ভেড়া কিংবা রঙিন পুঁতির মতো কেনাবেচা করার, লুঠ করার জিনিস।

তার লোভ এই পৃথিবীকে খেয়ে ফেলবে, পড়ে থাকবে কেবল এক মরুভূমি।

আমরা এসব বুঝতে পারিনা। আমাদের ভাবনা অন্যরকম তোমাদের শহরগুলি লালমানুষদের চোখে ব্যথা দেয়। অবশ্য আমরা লালমানুষরা তো জংলি, তাইজন্যই হয়ত এমন হয়।

সাদা মানুষদের শহরে কোথাও শান্ত নিরিবিলি জায়গা নেই -- যেখানে বসে বসন্তকালে পাতার কুঁড়িগুলোর খুলে যাবার শব্দ শোনা যায়।

অবশ্য হয়ত আমরা জংলি বলেই এরকম মনে হয়। এত গোলমাল, মনে হয় যেন তা মানুষের কানকে অপমান করছে। জীবনের কি মূল্য আছে একজন লোক যদি জলের ঘূর্নির আপনমনে একা গুনগুন করার শব্দ না শুনতে পায়? কিংবা রাত্রে ব্যাঙেদের বকবকানি? আমি একটা লাল মানুষ, এসবের কিছু বুঝতে পারিনা।

আমরা লাল মানুষেরা ছোট পুকুরের জল ছুঁয়ে বয়ে যাওয়া বাতাসের হালকা শব্দ শুনতে ভালবাসি,ভালবাসি দুপুরের বৃষ্টিতে ধুয়ে পরিষ্কার হয়ে যাওয়া বাতাসের নিজস্ব গন্ধ, পাইনবনের গন্ধ।

লাল লোকেদের কাছে বাতাস পবিত্র আর মূল্যবান কেননা জন্তু গাছ মানুষ সবার নি:শ্বাস এই একই বাতাসের মধ্যে ধরা আছে।

সাদা মানুষেরা যে বাতাসে নি:শ্বাস নেয় তার দিকে মন দেয়না। অনেকদিনের বাসি মৃতদেহের মত হয়ে আছে তারা, তাদের আশেপাশে বাতাসের দুর্গন্ধ তারা আর বোধ করেনা।

আমরা তোমাদের দিয়ে দেব আমাদের জমি, কিন্তু মনে রেখ এই বাতাস আমাদের কাছে মূল্যবান। বাতাস যে জীবনকে বাঁচিয়ে রাখে তার সঙ্গেই মিশে থাকে। যে বাতাস আমাদের পূর্বপুরুষের বুকে প্রথম নি:শ্বাসটি দিয়েছিল, সেই তার নি:শ্বাসটিকে ধরে রেখেছে।

যদি আমাদের জমি আমরা তোমাদের দিই তাহলে একে আলাদা এবং পবিত্রই রাখতে হবে তোমাদের, যাতে এমনকি সাদা মানুষদেরও জায়গা থাকে কখনও মাঠের ফুলের মিষ্টি গন্ধে ভরা বাতাসে নি:শ্বাস নেবার।

প্রেইরি জুড়ে আমি দেখেছি অগণিত মহিষের পচতে থাকা শব, চলন্ত ট্রেন থেকে যাদের গুলি করে মেরেছে সাদারা। আমি জংলি লোক, আমি বুঝতে পারিনা এই ধোঁয়া ওঠা লোহার ঘোড়া কিকরে বেশি জরুরি ও মূল্যবান হয় সেই সব বুনো মহিষের থেকে, যাদের দু একজনকে আমরা কখনও সখনও মারি নিজেদের বেঁচে থাকার প্রয়োজনে।

জীবজন্তু ছাড়া মানুষ কি! যদি পৃথিবীতে কোন জানোয়ার না থাকে তার আত্মার একাকীত্বে মানুষ নিজেও মরে যাবে।

জন্তু জানোয়ারদের যা হবে কিছুদিন পর মানুষেরও তাই হবে। সবকিছুই একে অন্যের সঙ্গে জড়ানো।

তোমাদের সন্তানদের শিখিও যে তাদের পায়ের তলায় যে মাটি তাতে আছে তাদের পিতৃপুরুষদের দেহাবশেষ, তাই মাটিকে যেন তারা শ্রদ্ধা করে। তোমার সন্তানদের শিখিও যে এই মাটিতে আছে তার পূর্বজদের ছাই। আমাদের স্বজনদের প্রাণ মাটিতে মিশে একে সমৃদ্ধ করেছে।

তোমার ছেলেমেয়েদের শিখিও যা আমরা আমাদের সন্তানদের শেখাই -- এই ধরিত্রী আমাদের মা। যা মায়ের হবে সন্তানদেরও তাই হবে। যদি কেউ মাটিতে থুতু ফেলে সে তার নিজের গায়েই তা ফেলছে।

এ কথা আমরা জানি যে, এই পৃথিবী মানুষের সম্পত্তি নয়, মানুষই পৃথিবীর।

প্রতিটি জিনিস একে অন্যের সঙ্গে বাঁধা, যেমন রক্তের সম্পর্ক একটা পরিবারের লোকেদের বেঁধে রাখে। সবকিছুই একে অন্যের সঙ্গে বাঁধা।

এই পৃথিবীর যা হবে পৃথিবীর সন্তানদেরও তাই হবে। জীবনের এই যে ছড়ানো জাল, মানুষ একে বোনেনি, সে কেবল একটি সুতো মাত্র। এই জালটিকে সে যা করবে তার নিজেরও ঠিক তাই হবে।

এমনকি সাদা লোকেরা, যাদের ঈশ্বর বন্ধুর মত তাদের সঙ্গে চলাফেরা করেন, কথা বলেন, তারাও সকলেই সাধারণ নিয়তির বাইরে নয়।

শেষ অবধি হয়ত দেখা যাবে যে আমরা সকলেই একে অন্যের ভাই, যেকথা আমরা জানি হয়ত একদিন সেকথা সাদারাও বুঝতে পারবে -- আমাদের ঈশ্বর আসলে একই।

আজ তোমরা ভাব ঈশ্বর তোমাদেরই। যেমন তোমরা আমাদের দেশকে দখল করে নিতে চাও তোমাদের নিজেদের বলে, কিন্তু তা তোমরা পারবেনা। তিনি সব মানুষের ঈশ্বর, তাঁর দয়ার কাছে সাদা এবং লাল মানুষ একই রকম।

এই পৃথিবী তার কাছে অতি মূল্যবান, এর ক্ষতি করা মানে সৃষ্টিকর্তার প্রতি তাচ্ছিল্য দেখানো।

সাদা মানুষেরাও চলে যাবে পৃথিবী থেকে, হয়তো অন্যদের থেকে একটু তাড়াতাড়িই যাবে। একদিন রাতে নিজের আবর্জনাতেই দম আটকে মরে যাবে তুমি।

হয়ত ধ্বংস হয়ে যাবার সময়েও তোমাদের দেখাবে উজ্জ্বল, ঈশ্বরের শক্তির আগুনে দীপ্যমান, কেননা ঈশ্বর তোমাদের এই দেশে এনেছেন, লাল মানুষদের উপরে আধিপত্য দিয়েছেন কোনো বিশেষ উদ্দেশ্য নিয়ে। সেই নিয়তি আমাদের কাছে এক রহস্য কেননা তাকে আমরা বুঝতে পারিনা। যখন সমস্ত মহিষ নিহত হবে, সব বুনো ঘোড়াকে পোষ মানানো হয়ে যাবে, অরণ্যের প্রতিটি কন্দর ভারি হয়ে উঠবে ভিড়ের গন্ধে, প্রবীণ পাহাড়গুলি আড়াল করে ফেলবে কথা বলতে থাকা তার ঝোপজঙ্গলগুলো -- কোথায়? নেই। ঈগলগুলো কোথায়? নেই।


অনুবাদ ও সৌজন্য: রোয়াক, ভূমধ্যসাগর।