জান্নাতুল ফেরদৌস লাবণ্য RSS feed

Lilaboti Lbএর খেরোর খাতা।

আরও পড়ুন...
সাম্প্রতিক লেখালিখি RSS feed
  • ফেসবুক একাউন্ট
    ঘর ঝাঁট দিতে এসে কাজের মেয়ে নিচু গলায় বললো, আপা! আমার রিকোয়েস্টটা এক্সেপ্ট করেন। আমি হতভম্ব গলায় বললাম, কিসের রিকোয়েস্ট?-ফেসবুক। রিকোয়েস্ট পাঠাইছি।: ও আচ্ছা! নাম কি?-ড্যাডিস প্রিন্সেস শাপলা!আমি নিজেকে সামলালাম।‌ এত অবাক হ‌চ্ছি কেন? কিছুদিন আগেই তো ...
  • ব্যালেন্স
    ছুটতে ছুটতে বাসের দরজার হাতলে হাত পেয়ে গেল স্মিতা। পাদানিতে পা রেখে আস্তে ছুঁড়ে দিল নিজেকে ভেতরে। জানলা থেকে রে রে করে ওঠা মুখগুলো এবার সোচ্চার, " এমনি করে কেউ ওঠে? বাড়িতে কেউ নেই নাকি?" মাথা নিচু করে সামনের দিকে এগিয়ে যায় স্মিতা। ড্রাইভারের পেছনের দরজায় ...
  • রুপচর্চা
    প্রোফাইল পিক আপডেট দেয়ার কিছুক্ষণ পর‌ই এক নামকরা বিউটিশিয়ান ফেসবুক ফ্রেন্ড আপু আমাকে নক দিলেন,-হ্যালো! একটা কথা জানতে পারি?আমি রিপ্লাই দিলাম, শিওর আপু,বলেন।আপু-কি ক্রিম ইউজ করোআমি একটা চশমাপরা ইমোজি দিয়ে রিপ্লাই দিলাম, ফেয়ার এন্ড লাভলী।আপু মেসেজ সিন ...
  • সমাজ গঠনের জন্য নৈতিক ঈশ্বরের প্রয়োজন হয়নি, সমাজের জটিলতাই নির্ধারণ করেছে ধর্মকে
    ধর্মের গুরুত্ব কী - এই প্রশ্নের উত্তরে অনেকেই বলে থাকেন সমাজের স্থিতিশীলতা ও নৈতিকতা রক্ষা করা, অনেকে বলেন যদি ধর্ম না থাকে তবে মানুষ অনৈতিক কাজ করা শুরু করবে। কেউ খারাপ কাজ করলে ইহকালে বা পরকালে তার শাস্তি হবে, আর ভাল কাজ করলে তিনি পুরস্কৃত হবেন এটা ...
  • সাইকো
    কয়েকদিন ধরে আমি প্রচন্ড আতঙ্কে আছি। ভয়ে রাতে ঘুমাতে পারি না।‌ সারাটা দিন অদ্ভুত এক অনুভূতি কাজ করে নিজের মধ্যে। কেন‌ জানিনা আমার মন বলছে আমার বর আমাকে খুন করবে। এটা মনে হ‌ওয়ার পেছনে কোনো যুক্তি নাই। আমার বর খুব ভালো একজন মানুষ।‌ নরম-সরম,কখনো‌ কোনো ...
  • জুম চাষ: একটি সংক্ষিপ্ত পর্যালোচনা
    [ও ভেই যেই বেক্কুনে মিলি জুম কাবা যেই/পূব ছড়া থুমত বর রিজেভ' টুগুনোত/ পুরান রাঙ্গা ভূঁইয়ানি এবার বলি উত্যে হোই চেগার/ সে জুমোনি এ বঝরত মিলিমুলি খেই।...চাকমা কবিতা...ও আমার ভাই বন্ধুরা চল চল সকলে মিলে জুম কাটতে যাই/ বড় বড় পাহাড়ের চূড়ায়/ দূরের পূর্ব ...
  • দুটি বই
    ইতিহাসে যদি প্রশ্ন আসত, "অ্যামেরিকার স্বাধীনতা যুদ্ধে ছিয়াত্তরের মন্বন্তরের প্রভাব আলোচনা করো" আমি দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে ফেল করতাম। কিন্তু এখন এলে এই লিখব - ১৭৫৭ সালে যুদ্ধ নামক প্রহসনে বাংলা চলে গেলে লর্ড ক্লাইভের হাতে। শাসনের থেকেও বড় কথা যথেচ্ছ শোষণের ভার ...
  • গুহাচিত্র
    গত এক বছর হল আমরা গুহাচিত্রের মাধ্যমে পরস্পরের সঙ্গে কথা বলছি। আমরা মানে আমাদের পাড়ার লোকেরা। আমরা ফ্ল্যাটের দেয়ালে গুহাচিত্র আঁকছি। আমরা ছাদের জলের ট্যাঙ্কে গুহাচিত্র আঁকছি। আমরা সর্বত্র গুহাচিত্র আঁকছি।এই গুহাচিত্র আঁকার সূচনাকালকে আমরা প্যালিওলিথিক ...
  • মৃত্যুর চার ঘণ্টা পরও মৃত শূকরের মস্তিষ্কের কার্যকারিতাকে আংশিকভাবে ফিরিয়ে আনতে সক্ষম হলেন বিজ্ঞানীগণ! মৃত্যুর ধারণা নিয়ে শুরু হল নতুন বিতর্ক…
    https://ichef.bbci.c...
  • আমার ছেলেবেলার শবেবরাত
    ছেলেবেলার শবেবরাতগুলো ছিল বেশ আদরের। সকালে শীতের আমেজ। রোদ ঝলমল। বিকেলে হাল্কা ঠান্ডার উলের হাফ শোয়েটার। রমজান মাস আসছে।তারই আনন্দমুখর ট্রেলার শবেবরাত। স্মৃতি গুলো আজও মনে বাঁসা করে আছে। ক্ষনে ক্ষনে ঝিলিক দেয়। মনের অতল গভীরে কিজানি আবার মিলিয়েও যায়। মধুর ...


বইমেলা হোক বা নাহোক চটপট নামিয়ে নিন রঙচঙে হাতে গরম গুরুর গাইড ।

তাবিজকবচ

জান্নাতুল ফেরদৌস লাবণ্য

জামাইকে বশে আনার জন্য জনৈক বান্ধবী আমাকে বুদ্ধি দিলো জামাইকে তাবিজকবচ করার। আমি এসবের ঘোর বিরোধী। প্রথমেই ওর বদবুদ্ধি শুনে রাগী গলায় বললাম,আমি এসব পারবো না!

ও আমার কাঁধে হাত রেখে বললো, আরে.. পুরুষমানুষের স্বভাব তো তুই জানিস! তারপর তোর জামাই হ্যান্ডসাম,সুন্দর। একে বশ না রাখলে চলে? তোর হুমায়ূন আহমেদের‌ই তো একটা কথা আছে, পুরুষ মানুষ আর ছাগল এই দুই জিনিসকে সবসময় বেঁধে বেঁধে রাখতে হয়!

হুমায়ূন আহমেদের নাম শুনে আমি একটু নরম হলাম। হুমায়ূন আহমেদ আমার দূর্বলতা। হুমায়ূন আহমেদের নাম নিয়ে কেউ কিছু বললে আমি না করতে পারি না। সুতরাং রাজি হলাম। বান্ধবী নিজেও তার স্বামীকে তাবিজ করবে।

এক শুক্রবারে বান্ধবীর সাথে চলে গেলাম হুজুরের কাছে। আমি ভেবেছিলাম হুজুর মানেই তার একটা খাস কামরা থাকবে,আশেপাশে কর্মরত খাদেম আর বাইরে মুরিদের লাইন...

কিন্তু বাস্তব কখনো উপন্যাসের মতো‌ সুন্দর হয় না। গিয়ে একেবারেই অন্য জিনিস দেখলাম। গ্রামের এক চালাঘরে হুজুরের বসবাস। আমরা যখন পৌঁছলাম সে গাছের তলায় বসে এক হাত দিয়ে অন্য হাতের বগল চুলকাতে‌ চুলকাতে ব‌উয়ের সাথে ঝগড়া করছে। ব‌উ বলছে, আরেকদিন যদি তুমি আমার বাপ মা তুলে কথা ক‌উ আমি বাপের বাড়ি চলে যামু...

হুজুর জবাব দিতে গিয়েও আমাদের দেখে থেমে গেলেন। আমার মাথায় প্রথমেই এই কথাটা এলো যে, যার নিজের সংসারেই আগুন লেগে রয়েছে সে আমাদের সমস্যার কি সমাধান করবে?

হুজুর গম্ভীর মুখে একটা পাঞ্জাবী গায়ে দিয়ে এসে বসেছেন। আমাদের সমস্যা শুনে আরো গম্ভীর হয়ে গেলেন। বললেন,

বুঝতেছি তোমাদের মন অত্যাধিক চিন্তাযুক্ত! সমাধান হবে, চিন্তা নাই। আমার কাছে আসছো, সমাধান হবে!আমার কাছে আজ পর্যন্ত যারা আসছে তাদের বর ছাগলের মতো এখনো পর্যন্ত তাদের পেছন পেছন ঘোরে!

আমি বিরক্ত হয়ে ভাবলাম, কোথায় আসলাম এইটা? বরকে ছাগলের মতো ঘোরানোর দরকারটা কি? পুরুষ মানুষ সবসময় পেছন পেছন ঘুরলেও তো বিরক্ত লাগবে!

কিন্তু একবার এসে যখন পড়েছি পিছু হটার কোনো সুযোগ নেই।

সুতরাং, হুজুর আমাদের দুইজনকে দুইটা তাবিজ দিলেন। শোবার ঘরের বিছানায় রাখতে হবে। আর একটুকরো জাফরান মেশানো ছোট্ট একটা কাগজ যেটা বরের ব্যবহৃত যেকোনো বস্তুর মধ্যে রেখে দিতে হবে।

নিয়মানুযায়ী তাবিজটা বরের বালিশের ওয়ারের ভেতর রাখলাম আর কাগজটা বরের ব্যবহৃত পারফিউম খুলে তার ভেতর ডুবিয়ে রেখে দিলাম।

কয়দিন কেটে গেল। এখনো কোনো ফল পাওয়া যায়নি। তবে একটা অদ্ভুত জিনিস লক্ষ্য করছি, আমাদের বিড়ালটা আমার পিছু ছাড়ে না। আগে শুধু ক্ষুধা লাগলে আমার পেছনে পেছনে ঘুরত। বাচ্চা হ‌ওয়ার সময় ওর বেশী ক্ষুধা লাগে। কয়দিন আগেই তার বাচ্চা হয়ে গেছে। এখন আর তেমন বাড়িতেও থাকে না, সারাদিন বাইরে বাইরে ঘুরে সন্ধ্যার দিকে ওর জন্য বাটিতে রেখে দেয়া ভাত খেয়ে গিয়ে শুয়ে পড়ে। কিন্তু গত একসপ্তাহ ধরে ও আমার পেছন‌ পেছন‌ই ঘুরছে। মনে মনে আমি হাসি আর ভাবি, যেখানে আমার বরের আমার পেছনে পেছনে ঘোরার কথা সেখানে ঘুরছে ও!

অফিস থেকে বাড়ি ফিরেছে বর। আমি আড়চোখে দেখলাম সে আমাকে লক্ষ্য করছে কি না,আমার জন্য ফুলটুল কিছু এনেছে কি না। কিন্তু ক‌ই? কোনো কিছুই তো উন্নতি হয়নি। ভন্ড হুজুরের পেছনে দুই হাজার টাকা খামাখাই দিলাম।

আমি বরের পাশে গিয়ে বসে তার হাত ধরে বললাম,আমার কথা মনে পড়েনি সারাদিন অফিসে?

সে বিরক্ত হয়ে হাত ছাড়িয়ে নিয়ে বললো, আগে পানি গরম করো! পা কাদায় পড়েছিল,বিচ্ছিরি অবস্থা!

বর উঠে চলে গেছে এদিকে বিড়ালটা আমার কোল থেকে নামছে না!

রাতে ঘুমাতে এসেছি,বিড়ালটা কিছুতেই আমার পিছু ছাড়ছিলো না বাধ্য হয়ে ঝাঁটা পেটা করে তাড়িয়ে দরজা দিয়ে দিয়েছি।

কি মনে করে বরের পারফিউমের শিশি দেখতে গেলাম,শিশি খালি।
বালিশের ওয়ার দেখতে গেলাম। তার ভেতরে তাবিজ নেই!

কৌতূহল দমন করতে না পেরে আমি সরাসরি ওকেই প্রশ্ন করতে গেলাম,

শোনো! তোমার পারফিউম শেষ? আমাকে বলোনাই কেন? আরেকটা কিনতাম!

বর পত্রিকার পাতা উল্টাতে উল্টাতে জবাব দিলো, শেষ হতো না! আমাদের বিড়ালটা ইঁদুর নিয়ে এসে ওর ঘরে বিচ্ছিরি গন্ধ করে ফেলছিলো।ঐখানে স্প্রে করে দিয়েছি,রুম স্প্রে পাইছিলাম না।

-আর বালিশ কি করছো? বালিশ তো তোমার ঐটা না!

:হুম বিড়ালের সদ্য বাচ্চা হয়েছে না! ছোট বাচ্চা, মেঝেতে ঘুমাতে পারে না। দেখলাম বালিশের ওপর উঠে বসে থাকে, তাই ওদের দিয়েছি ওটা!!!!

😦😦😦

জান্নাতুল ফেরদৌস লাবণ্য

212 বার পঠিত (সেপ্টেম্বর ২০১৮ থেকে)

শেয়ার করুন



আপনার মতামত দেবার জন্য নিচের যেকোনো একটি লিংকে ক্লিক করুন