Sumon Ganguly Bhattacharyya RSS feed

Sumon Ganguly Bhattacharyyaএর খেরোর খাতা।

আরও পড়ুন...
সাম্প্রতিক লেখালিখি RSS feed
  • নবদুর্গা
    গতকাল ফেসবুকে এই লেখাটা লিখেছিলাম বেশ বিরক্ত হয়েই। এখানে অবিকৃত ভাবেই দিলাম। শুধু ফেসবুকেই একজন একটা জিনিস শুধরে দিয়েছিলেন, দশ মহাবিদ্যার অষ্টম জনের নাম আমি বগলামুখী লিখেছিলাম, ওখানেই একজন লিখলেন সেইটা সম্ভবত বগলা হবে। ------------- ধর্মবিশ্বাসী মানুষে ...
  • চলো এগিয়ে চলি
    #চলো এগিয়ে চলি #সুমন গাঙ্গুলী ভট্টাচার্যমন ভালো রাখতে কবিতা পড়ুন,গান শুনুন,নিজে বাগান করুন আমরা সবাই শুনে থাকি তাই না।কিন্তু আমরা যারা স্পেশাল মা তাঁদেরবোধহয় না থাকে মনখারাপ ভাবার সময় না তার থেকে মুক্তি। আমরা, স্পেশাল বাচ্চার মা তাঁদের জীবন টা একটু ...
  • দক্ষিণের কড়চা
    দক্ষিণের কড়চা▶️অন্তরীক্ষে এই ঊষাকালে অতসী পুষ্পদলের রঙ ফুটি ফুটি করিতেছে। অংশুসকল ঘুমঘোরে স্থিত মেঘমালায় মাখামাখি হইয়া প্রভাতের জন্মমুহূর্তে বিহ্বল শিশুর ন্যায় আধোমুখর। নদীতীরবর্তী কাশপুষ্পগুচ্ছে লবণপৃক্ত বাতাস রহিয়া রহিয়া জড়াইতে চাহে যেন, বালবিধবার ...
  • #চলো এগিয়ে চলি
    #চলো এগিয়ে চলি(35)#সুমন গাঙ্গুলী ভট্টাচার্যআমরা যারা অটিস্টিক সন্তানের বাবা-মা আমাদের যুদ্ধ টা নিজের সাথে এবং বাইরে সমাজের সাথে প্রতিনিয়ত। অনেকে বলেন ঈশ্বর নাকি বেছে বেছে যারা কষ্ট সহ্য করতে পারেন তাঁদের এই ধরণের বাচ্চা "উপহার" দেন। ঈশ্বর বলে যদি কেউ ...
  • পটাকা : নতুন ছবি
    মেয়েটা বড় হয়ে গিয়ে বেশ সুবিধে হয়েছে। "চল মাম্মা, আজ সিনেমা" বলে দুজনেই দুজনকে বুঝিয়ে টুক করে ঘরের পাশের থিয়েটারে চলে যাওয়া যাচ্ছে।আজও গেলাম। বিশাল ভরদ্বাজের "পটাকা"। এবার আমি এই ভদ্রলোকের সিনেমাটিক ব্যাপারটার বেশ বড়সড় ফ্যান। এমনকি " মটরু কে বিজলী কা ...
  • বিজ্ঞানের কষ্টসাধ্য সূক্ষ্মতা প্রসঙ্গে
    [মূল গল্প - Del rigor en la ciencia (স্প্যানিশ), ইংরিজি অনুবাদে কখনও ‘On Exactitude in Science’, কখনও বা ‘On Rigour in Science’ । লেখক Jorge Luis Borges (বাংলা বানানে ‘হোর্হে লুই বোর্হেস’) । প্রথম প্রকাশ – ১৯৪৬ । গল্পটি লেখা হয়েছে প্রাচীন কোনও গ্রন্থ ...
  • একটি ঠেকের মৃত্যুরহস্য
    এখন যেখানে সল্ট লেক সিটি সেন্টারের আইল্যান্ড - মানে যাকে গোলচক্করও বলা হয়, সাহেবরা বলে ট্র্যাফিক টার্ন-আউট, এবং এখন যার এক কোণে 'বল্লে বল্লে ধাবা', অন্য কোণে পি-এন্ড-টি কোয়ার্টার, তৃতীয় কোণে কল্যাণ জুয়েলার্স আর চতুর্থ কোণে গোল্ড'স জিম - সেই গোলচক্কর আশির ...
  • অলৌকিক ইস্টিমার~
    ফরাসী নৌ - স্থপতি ইভ মার একাই ছোট্ট একটি জাহাজ চালিয়ে এ দেশে এসেছিলেন প্রায় আড়াই দশক আগে। এর পর এ দেশের মানুষকে ভালোবেসে থেকে গেছেন এখানেই স্থায়ীভাবে। তার স্ত্রী রুনা খান মার টাঙ্গাইলের মেয়ে, অশোকা ফেলো। আশ্চর্য এই জুটি গত বছর পনের ধরে উত্তরের চরে চালিয়ে ...
  • চলো এগিয়ে চলি 3
    #চলো এগিয়ে চলি #সুমন গাঙ্গুলী ভট্টাচার্যআমরা যখন ছোট তখন থেকেই দেখবেন মা -বাবা রা আমাদের সম্ভাব্য বিপদ সম্পর্কে শেখান।সাঁতার না জানলে পুকুরের ধারে যাবেনা,খোলা ইলেকট্রিক তার এ হাত দিতে নেই,ভিজে হাতে সুইচ বোর্ড ধরতে নেই, ইত্যাদি। আমাদের সন্তান রা যেহেতু ...
  • কেয়া শরম কি বাত!! ব্যভিচারও লীগ্যাল হলো শেষে
    কেয়া শরম কি বাত!! ব্যভিচারও লীগাল হলো শেষে!!বিষাণ বসুরায় বেরোনোর পর থেকেই, বেজায় খিল্লি।বস, আর চাপ নেই। সুপ্রীম কোর্ট ব্যভিচারকে আইনী করে দিয়েছে।আরেক মহল, জ্যেঠামশাইয়েরা, বলছেন, দেশের কী হাল। একশো তিরিশ কোটি মানুষের সমাজকে অন্ধকারের দিকে ঠেলে দিলো কয়েকটা ...


বইমেলা হোক বা নাহোক চটপট নামিয়ে নিন রঙচঙে হাতে গরম গুরুর গাইড ।

চলো এগিয়ে চলি

Sumon Ganguly Bhattacharyya

#চলো এগিয়ে চলি
#সুমন গাঙ্গুলী ভট্টাচার্য
মন ভালো রাখতে কবিতা পড়ুন,গান শুনুন,
নিজে বাগান করুন আমরা সবাই শুনে থাকি তাই না।কিন্তু আমরা যারা স্পেশাল মা তাঁদের
বোধহয় না থাকে মনখারাপ ভাবার সময় না তার থেকে মুক্তি। আমরা, স্পেশাল বাচ্চার মা
তাঁদের জীবন টা একটু অন্যরকম ভাবে সাজাতে হবে ,যেদিন থেকে বুঝবেন আপনি
একজন spl বাচ্চার মা।
আমাদের অনুভূতি বোধকরি প্রথম থেকেই কন্ট্রোল করা ভালো।ধরুন আপনি এবং আপনার স্বামী দুজনেই বাচ্চার অটিজম মেনে
নিয়েছেন, ভালো বোঝাপড়া।কিন্তু দিনের শেষে দুজনে বসে "আর কি এই ভাবেই চলি",,,
"আমাদের কি হবে গো ,তুমি চোখ বুঝলে",,,,
এটা একটু বন্ধ করা যায় কিনা ভেবে দেখুন।
রোশনারা কাল আমাকে বলছিলেন ,তাঁদের স্বামী স্ত্রী তে কোথায় যেনচাপা অভিমান "আমি কত কাজ করছি, বাচ্চারপিছনে ব্যর্থ শ্রম দিচ্ছি দ্যাখো",,,, এই
অবস্থানের কারণে দুজনে কেউ মানসিক ভাবে
সুস্থ থাকছে না।এখন কথা হচ্ছে ,আমরা যাই
করিনা কেন সে NT বাচ্চা হোক বা স্পেশাল
আমাদের কাজ টা করতেই হবে।হ্যাঁ এটা বলতে পারেন NT বাচ্চাদের মা, বাচ্চা সফল হলে "মায়া প্রকাশনী" র বিজ্ঞাপনের মুখ হতে পারেন।লোকে ধন্য ধন্য করবে এই টুকুই।
দু দিন পর সেই বাচ্চা সফল হয়েতাঁকে ভুলে নিজের কাজ করবে,মানুষ জন ও ভুলে যাবে।সুতরাং আমরা ওই ব্যাপার টি বাদ দিয়েভাবি।
বাচ্চার বাবা মা এর মধ্যে চাপান উতর ,কে প্রকৃত দায়ী এই ভাবনা যেমন সমস্যা ,দীর্ঘস্থায়ী দীর্ঘ নিঃশ্বাসও বর্জন করুন কোনোটাই স্বাস্থ্যকর নয়।সবার যুদ্ধ হয় তো সমান কঠিন নয়,কিন্তু যুদ্ধ সবাই করছি। বাচ্চার ,মা বাবা পারস্পরিক নির্ভরতা বাড়ানো বোধকরি সঠিক পথ।সাধ্যমত দুজনে দুজনার বন্ধু হয়ে উঠুন।সমস্ত রকম সফল সম্পর্ক বন্ধুত্বের উপর দাঁড়িয়ে এ কথা অনস্বীকার্য।
ভবিষ্যৎ এর একটা পরিকল্পনা করবো এবং নিজেরা ভালো থাকবো এ ভাবে বোধকরি ভাবলে ভালো।
আমি একজন স্পেশাল মম।
শ্রীমান বিনায়করুকু আমার পুত্র। রুকু কে ছোট থেকে উৎসাহ জোগাই ঠিক , কিন্তু আমি আর তার পাপা কখনো বলিনা" তোমাকে আরো ভালো করতে হবে"।আমাদের মনে হয় রুকু যা করে সেটাই মন দিয়ে করে।আবার যেটা করবে সেটাও মন দিয়ে করবে।"আরো ভালো"বলে চাপ বাড়িয়ে দরকার নেই।
আমরা শুধু প্রতি মুহূর্তে বোঝাই আমরা আছি।
সামনেই পুজো।এই সময় পুরো দুনিয়া আনন্দে ভাসবে।আমাদের অটিজম স্পেকট্রাম এ থাকা বাচ্চারা ভুগতে পারে রুটিন ব্রেক এর একটাঅনিশ্চয়তা। তাই আমার মনে হয় যেকোন বড় উৎসব পুজো,ঈদ,ইত্যাদির পর বাচ্চারা একটু অসুবিধে করতেই পারে।এবং আগে থেকে তার জন্য তৈরি হওয়া।
আমরা রুকু কে পুজোর কয়েকদিন আগে থেকেই বলে রাখতাম পুজো তে কি কি অসুবিধে হতে পারে।আমাদের এখানে প্রথমে দুর্গা পুজো তারপর থাকে জাঁকজমক করে জগদ্ধাত্রী পুজো।দুটো পুজো মানে লম্বা সময়
মাঠে প্যান্ডেল ,রাস্তায় ভিড়,মাইকের আওয়াজ,রাস্তার ধারে অসংখ্য এগরোলের দোকানে অনবরত খুন্তি ঠুকে আওয়াজ,বেলুন ফাটার শব্দ, মানুষের কোলাহল,তীব্র হর্ন, অটোমেটিক লাইট এর ঝিকি মিকি ,বিসর্জনের চিৎকার, প্রসেশন,অসাবধান হলেই পা মাড়িয়ে চলে যেতে পারে ব্যস্ত মানুষজন ,'সরি' বলতে শেখানো কারণ রুকুও কাউকে মাড়িয়ে দিতেই পারে। ,,,,,,
ইত্যাদি সম্পর্কে আগে থেকে ছবি দেখিয়ে রাখতাম।চাটু তে খুন্তির আওয়াজ শোনাতাম,প্রথম বিরক্ত হোত কান চেপে থাকতো।আসতে আসতে অভ্যেস হয়ে যায়।
ছোটবেলা তে পুজোতে বেড়াতে যাওয়ার আগে একটা ছোট পরিচয় পত্র গলায় ঝুলিয়ে দিতাম।বিশেষ করে বড় পুজো মণ্ডপে গেলে।পা ঢাকা জুতোএইসময় অবশ্যই।আজও নুন চিনির জল
ব্যান্ডএড,একটা এন্টিসেপটিক মলম থাকেই রুকুর পিঠে ব্যাগে। ব্যাগের মধ্যে পরিচয় পত্র থাকে।আর একটা সুতির বড় রুমাল।
ভিড় সাধারণত এড়িয়ে চলি আমি।আমার নিজের খুব কষ্ট হয়।তাও মানুষের হঠাৎ ভিড় হলে নিজে শান্ত থাকার চেষ্টা করি।রুকুর একটা সুবিধে ও খুব লম্বা তাই ভিড় ম্যানেজ করতে পারে এখন।এবং ওকে বলা আছে সামনে এগিয়ে ফাঁকা জায়গায় দাঁড়াবে।আমরা খুঁজে নেবো।ভরসা রেখো।
সবাই আনন্দ করুন।
এক নীল সমুদ্র ভালোবাসা।
https://m.facebook.com/story.php?story_fbid=10214880708883005&id=15857
35784


632 বার পঠিত (সেপ্টেম্বর ২০১৮ থেকে)

শেয়ার করুন


Avatar: b

Re: চলো এগিয়ে চলি

এই সিরিজটা খুব মন দিয়ে পড়ছি। লাইন/প্যারাগ্রাফ ব্রেকগুলো একটু ঠিক্ঠাক হলে ভালো লাগবে।

রুকু ও আপনাদের শুভেচ্ছা জানাই।
Avatar: বিপ্লব রহমান

Re: চলো এগিয়ে চলি

সাদা পোলো শার্টের ছবিটি কী শ্রীমান বিনায়করুকুর আঁকা? লম্বা একটি লবির ভেতর দিয়ে একা একজন হেঁটে যাচ্ছে।... খুব বিষন্নতা ছবি জুড়ে।

ব্রেভো স্পেশাল মাম। 🌷
Avatar: de

Re: চলো এগিয়ে চলি

রুকুকে অনেক অনেক ভালোবাসা -

খুব ভালো লাগলো লেখা!


আপনার মতামত দেবার জন্য নিচের যেকোনো একটি লিংকে ক্লিক করুন