RSS feed

দ'এর খেরোর খাতা।

আরও পড়ুন...
সাম্প্রতিক লেখালিখি RSS feed
  • ৬২ এর শিক্ষা আন্দোলন ও বাংলাদেশের শিক্ষা দিবস
    গত ১৭ই সেপ্টেম্বর বাংলাদেশে ‘শিক্ষা দিবস’ ছিল। না, অফিশিয়ালি এই দিনটিকে শিক্ষা দিবস হিসেবে ঘোষণা করা হয়নি বটে, কিন্তু দিনটি শিক্ষা দিবস হিসেবে পালিত হয়। সেদিনই এটা নিয়ে কিছু লেখার ইচ্ছা ছিল, কিন্তু ১৭ আর ১৯ তারিখ পরপর দুটো পরীক্ষার জন্য কিছু লেখা ...
  • বহু যুগের ওপার হতে
    কেলেভূতকে (আমার কন্যা) ঘুড়ির কর (কল ও বলেন কেউ কেউ) কি করে বাঁধতে হয় দেখাচ্ছিলাম। প্রথম শেখার জন্য বেশ জটিল প্রক্রিয়া, কাঁপকাঠি আর পেটকাঠির ফুটোর সুতোটা থেকে কি ভাবে কতোটা মাপ হিসেবে করে ঘুড়ির ন্যাজের কাছের ফুটোটায় গিঁট বাঁধতে হবে - যাতে করে কর এর দুদিকের ...
  • ভাষা
    এত্তো ভুলভাল শব্দ ব্যবহার করি আমরা যে তা আর বলার নয়। সর্বস্ব হারিয়ে বা যন্ত্রণা সহ্য করতে না পেরে যে প্রাণপণ চিৎকার করছে, তাকে সপাটে বলে বসি - নাটক করবেন না তো মশাই। বর্ধমান স্টেশনের ঘটনায় হাহাকার করি - উফ একেবারে পাশবিক। ভুলে যাই পশুদের মধ্যে মা বোনের ...
  • মুজতবা
    আমার জীবনে, যে কোন কারণেই হোক, সেলিব্রিটি ক্যাংলাপনা অতি সীমিত। তিনজন তথাকথিত সেলিব্রিটি সংস্পর্শ করার বাসনা হয়েছিল। তখন অবশ্য আমরা সেলিব্রিটি শব্দটাই শুনিনি। বিখ্যাত লোক বলেই জানতাম। সে তিনজন হলেন সৈয়দ মুজতবা আলী, দেবব্রত বিশ্বাস আর সলিল চৌধুরী। মুজতবা ...
  • সতী
    সতী : শেষ পর্বপ্ৰসেনজিৎ বসু[ ঠিক এই সময়েই, বাংলার ঘোরেই কিনা কে জানে, বিরু বলেই ফেলল কথাটা। "একবার চান্স নিয়ে দেখবি ?" ]-- "যাঃ ! পাগল নাকি শালা ! পাড়ার ব্যাপার। জানাজানি হলে কেলো হয়ে যাবে।"--"কেলো করতে আছেটা কে বে ? তিনকুলে কেউ আসে ? একা মাল। তিনজনের ঠাপ ...
  • মকবুল ফিদা হুসেন - জন্মদিনের শ্রদ্ধার্ঘ্য
    বিনোদবিহারী সখেদে বলেছিলেন, “শিল্পশিক্ষার প্রয়োজন সম্বন্ধে শিক্ষাব্রতীরা আজও উদাসীন। তাঁরা বোধহয় এই শিক্ষাকে সৌখিন শিক্ষারই অন্তর্ভুক্ত করে রেখেছেন। শিল্পবোধ-বর্জিত শিক্ষা দ্বারা কি সমাজের পূর্ণ বিকাশ হতে পারে?” (জনশিক্ষা ও শিল্প)কয়েক দশক পরেও, পরিস্থিতি ...
  • আমি সংখ্যা লঘুর দলে...
    মানব ইতিহাসের যত উত্থান পতন হয়েছে, যত বিপদের সম্মুখীন হয়েছে তার মধ্যে বর্তমানেও যা প্রাসঙ্গিক রয়ে গেছে এমন কিছু সমস্যার মধ্যে অন্যতম হচ্ছে শরণার্থী সমস্যা। হুট করে একদিন ভূমিহীন হয়ে যাওয়ার মত আতঙ্ক খুব কমই থাকার কথা। স্বাভাবিক একজন পরিবার পরিজন নিয়ে বেঁচে ...
  • প্রহরী
    [মূল গল্প – Sentry, লেখক – Fredric Brown, প্রথম প্রকাশকাল - ১৯৫৪] .......................
  • ইতিহাসের সঙ্কলন, সঙ্কলনের ইতিহাস - একটি বইয়ের প্রেক্ষাপট, উপক্রমণিকা
    ওয়েস্ট বেঙ্গল ডক্টর্স ফোরামের তরফ থেকে, বেশ কিছু লেখালিখি একসাথে সাজিয়ে, একটা সঙ্কলন প্রকাশিত হলো।নাম, ইতিহাসের সঙ্কলন, সঙ্কলনের ইতিহাস।একটা উদবেগজনক আর দুর্ভাগ্যজনক পরিস্থিতিতে আমরা এই বই প্রকাশ করেছি। সত্যি বলতে কি, এই বইয়ের জন্মের কারণই আমাদের উদবেগ, ...
  • সতী
    সতী : প্রথম পর্বপ্রসেনজিৎ বসুমেয়েটা মাসতিনেক হল এসেছে এই পাড়ায়।মেয়ে ? এই হয়েছে শালা এক মুশকিল ! বিয়ের পর মেয়েরা বউ হয়, কিন্তু ডিভোর্সের পর তারা কি বউই থাকে ? নাকি ফের মেয়ে বনে যায় ? জল জমে বরফ হয়। বরফ গললে আবার জল। কিন্তু এক্ষেত্রে ? ডিভোর্সি মহিলারা ঠিক ...


বইমেলা হোক বা নাহোক চটপট নামিয়ে নিন রঙচঙে হাতে গরম গুরুর গাইড ।

এক উন্মাদ সময়ের স্মৃতিকথন

দেশভাগ, বাটওয়ারা, পার্টিশান – উপমহাদেশের চুপচুপে রক্তভেজা এক অধ্যায় নিয়ে বিস্তৃত আলোচনা, নির্মম কাটাছেঁড়া এই সবই ভারতে শুরু হয় মোটামুটি ১৯৪৭ এর পঞ্চাশ বছর পূর্তির সময়, অর্থাৎ ১৯৯৭ থেকে। তার আগে স্থাবর অস্থাবর সবকিছু ছেড়ে কোনওমতে প্রাণ নিয়ে পালানো মানুষজনও নিজেদের একান্ত আলাপচারিতায় এর হিংস্র ক্ষতবিক্ষত অংশটুকু সযত্নে এড়িয়ে যেতেন বা কোনও রূপকের (আগুনে ঝড় বা ভূমিকম্প) সাহায্যে বর্ননা করতেন। হ্যাঁ খুশবন্ত সিঙের ‘আ ট্রেইন ট্যু পাকিস্তান’ খুবই ব্যতিক্রমী ছিল। খুব সম্ভবত আউটলোক পত্রিকার বিস্তারিত আলোচনার পর থেকে খোলাখুলি কথাবার্তা শুরু হয়। ওরাল হিস্ট্রি নিয়ে কাজ বোধহয় আরো প্রায় দশ বছর পরে শুরু হয়। তা এই সবকিছুর প্রভাবেই গত কয়েক বছরে বেশ কিছু তথ্যপূর্ণ বই প্রকাশিত হয়েছে। ফলে আমি যখন ২০১৭তে দেশভাগ ও তার দ্বারা প্রভাবিত আনুমানিক কুড়ি লক্ষ মানুষের ভাগ্য/দূর্ভাগ্য নিয়ে খোঁজ শুরু করি, তখন পাঠতালিকা বানাতে গিয়ে অন্তত ৭-৮ খানি গুরুত্বপূর্ণ বইয়ের সন্ধান পাই, যেগুলো না পড়লেই নয়। এই হ্যাশট্যাগে মাঝেমধ্যে তারই দুই একটা বিন্দু রক্ত কিম্বা অশ্রু ধরে রাখার চেষ্টা করি।
.
জলন্ধরের রেলরোডের এক বাড়ির একটা প্রায় ঝাপসা সাদাকালো ছবি হাতে সলমন রশিদ, পাকিস্তানের বিখ্যাত ভ্রমণ লেখক, ভারতে আসেন ২০০৮ সালে ও পরে আরেকবার ২০১০ এ। যে পাকিস্তানে তিনি বড় হয়ে উঠেছেন, বাস করেন, তার রাজনৈতিকভাষ্যে ভারত এক শত্রু দেশ – ‘এনিমি কান্ট্রি’। এই ভূপর্যটক কিন্তু এই শত্রু দেশটিকে দেখতে আসেন নি, আসলে তিনি এসেছিলেন শিকড়ের সন্ধানে বা বলা ভাল খুঁজতে এসেছিলেন শিকড় কীভাবে উপড়েছিল, ঠিক কী হয়েছিল তাঁর ঠাকুর্দা ও পিসিদের সেই অগ্নিপ্লাবী সময়ে। হাতের ছবিটি তাঁর পূর্বপুরুষের বাসগৃহ ছিল ১৯৪৭ এ অন্তত তাঁর বাবা জ্যাঠারা পালানোর সময় পর্যন্ত। তাঁর বাবা কাকা জ্যেঠা ও পিসিরা যাঁরা ১৯৪৭ আগস্টএ উঘিতে তাঁদের খেতিজমি ও জলন্ধরের বাড়ির মায়া ত্যাগ করে পালিয়েছিলেন পাকিস্তান নামক স্বপ্নের দেশ – ‘ল্যান্ড অব পিওর’এর উদ্দেশ্যে তাঁদের কাছে জলন্ধরের বাড়ির কথা বহু বহুউবার শুনেছেন সলমন। জলন্ধরে যখন দেশভাগ পরবর্তী দাঙ্গা শুরু হয়, সলমনের ঠাকুর্দা ডঃ বদরুদ্দিন ঠাকুমা, দুই পিসি ও আরো কিছু আত্মীয় ছিলেন জলন্ধরের বাড়িতে, শহরে দ্রুত ছড়িয়ে যাওয়া রক্তাক্ত হত্যালীলায় এঁরা আর পালাতে পারেন নি। শহরের বাইরে থাকা বাকীরা পাকিস্তানের দিকে রওনা হন এই ভরসায় যে গোলমাল একটু কমলে যাতায়াত নিরাপদ হলে পুরো পরিবার আবার এক জায়গায় হবেন। সে আর কোনওদিনই হয় নি, ডঃ বদরুদ্দিন ও তাঁর গৃহে বাসকারী বাকীদের পরবর্তী কোনও খবরই আর সলমন রশিদ জানতে পারেন নি তাঁর ৫৬ বছর পূর্ণ হওয়ার সময় পর্যন্ত।
.
বাড়িটি যদি তখনও থাকে, তা দেখতে ও ডঃ বদরুদ্দিন ও বাকীদের পরিণতি জানতে ভারতে আসেন, ফিরে গিয়ে লেখেন ‘আ টাইম অব ম্যাডনেস – আ মেমোয়ার অব পার্টিশান। বইটির উৎসর্গপত্রে লেখা “Dedicated to all those Hindus, Sikhs and Muslims who lost their worldly possessions and sometime their lives for the creation of Pakistan.” বুঝিয়ে দেয় এ বই নিছক “শত্রু দেশ’এ পারিবারিক দূর্ভাগ্যের ইতিহাস খুঁজতে আসা কোন উত্তরপুরুষের বয়ান নয় বরং এক নির্মোহ উদাসীন পর্যটক, যিনি শুধু দেশ নয়, তার ইতিহাস, তার মানুষকেও দেখেন পরম মমতায়। তাঁর যাত্রা শুরুর বর্ণনা তিনি লিপিবদ্ধ করছেন আর এক বাড়ির উদ্দেশ্যে যাত্রা – “But I knew it as a country where my ancestors had lived and died over countless generations. That was the home where the hearth kept the warmth of a fire first kindled by a matriarch many hundred years ago, nay, a few thousand years ago and which all of a sudden had been extinguished in a cataclysm in 1947.” সলমন নির্মমভাবে নিজ দেশ, তার লোকজন, রাস্তায় কোনো মহিলা দেখলে সাধারণ লোকের উদগ্র সেক্সিস্ট আচরণ, ভারত ও পাকিস্তানে ট্র্যাফিক রুল বা রুল মানা ও না মানার প্রবণতা লিপিবদ্ধ করে গেছেন। পাকিস্তানের ক্রমশঃ এক ব্যর্থ দেশ ও জাতিসত্ত্বা হয়ে ওঠার কথা, ক্রমশঃ আরবীকরণের কথা বলে চলেন তিনি, যে আরবীকরণ শুধু যে ভাষায় প্রভাব ফেলেছে তাই নয়, রাস্তার ধারের আম, কাঁঠাল বটগাছের বিলুপ্তি ঘটিয়ে ভরিয়ে তুলেছে অজস্র খেজুরগাছেও। গোটা দেশটিকে যেন সর্বার্থেই আরবদেশের ক্ষুদ্র সংস্করণ বানানোর মরীয়া চেষ্টা।
.
ভারতেও কি আর পেয়েছেন সকলই শোভন সকলই বিমল! নাঃ, পরিবারের পরিণতি খুঁজতে গিয়ে ঠোক্করও খেয়েছেন বৈকী। দিল্লির রেলদপ্তরের এক কেরাণী অথবা জলন্ধরে তাঁদের ভূতপূর্ব বাসগৃহের বর্তমান মালিকের স্ত্রী – এঁরা বুঝিয়ে দিয়েছেন এক পাকিস্তানি, এক মুসলমান চরম অনাকাঙ্খিত। কখনও সংশয়ে ঢেকে গেছে লেখকের মন – তবে কি এঁরা ভয় পাচ্ছেন তিনি জনাব বদরুদ্দিনের পরিণতি জানলে খেপে উঠতে পারেন , তাই কি তাঁকে কোনও খবরই দিচ্ছে না কেউ? এদিকে যে ভিসার সময় শেষ হয়ে আসছে! আবার অযাচিত অঢেল ভালবাসাও পেয়েছেন সম্পূর্ণ অপরিচিত লোকজনের কাছ থেকে আর সেকথা লিখে গেছেন অপরিসীম ভালবাসায়, মমতায়। এই সন্ধানেই জানতে পারেন তাঁর ঠাকুর্দা ডঃ বদরুদ্দিন, যিনি ধর্মনিরপেক্ষ উদার রোগীবৎসল ডাক্তার বলেই পরিচিত ছিলেন, কীভাবে আস্তে আস্তে মুসলিম লীগের দিকে ঝুঁকে পড়েন। এতটাই ঝুঁকে পড়েন যে ঈদের সময় রাস্তার মোড়ে গরু বলি দেবার উদ্যোগও নিয়েছিলেন! শুনে সলমনের বিস্ময় আর বাঁধ মানে না – তিনি তো তাঁর বাবা জ্যেঠাদের পাকিস্তানে বসেও কখনো এ জিনিষ করতে দেখেন নি – ভাবেন তবে হয়ত এইভাবেই বপন হয়েছিল বদরুদ্দিন ও তাঁর পরিবারের পরিণতির বীজ। পূর্বপুরুষের এই রূপ, এই পরিচয় জানাও তাঁর জন্য জরুরী ছিল। অবশেষে মুখোমুখী হন চরম সত্যের - তাঁদের পরিবার শুধু নয়, তাঁদের পরিবারের এক কর্মচারীর দুই আড়াই বছরের শিশু সন্তানটিকেও তিনতলার ছাদ থেকে ছুঁড়ে ফেলে হত্যা করা হয়েছিল। মুখোমুখী হন হত্যাকারী বাহিনী পরিচালনাকারীর শিখ সর্দারের পুত্রের সাথে- সেই পুত্র যিনি তাঁর পিতাকে এক মুর্খ হঠকারী খুনী বলেই মনে করেন; পরম সমাদরে সলমনকে ঘুরিয়ে দেখান তাঁর পুর্বপুরুষের বাড়িটি, দেখান হত্যাস্থল। সলমন ফিরে যান এক হিংস্র উন্মাদ সময়ের হারিয়ে যাওয়া জিগস পাজলের টুকরোগুলো খাপে খাপে বসিয়ে, এক উন্মাদ সময় ও তার উন্মাদ হয়ে যাওয়া সকল শুভ-অশুভবোধ লোপ পাওয়া সন্তানদের, যাদের অধিকাংশের শেষ জীবনের সঙ্গী ছিল অসহায় অপরাধবোধ, গ্লানি ও লজ্জা, তাদের উত্তরাধিকারীদের আন্তরিক ক্ষমাপ্রার্থনা শুশ্রুষা করে তুলতে পারে সত্তর বছরের পুরানো ক্ষতও - সঙ্গে নিয়ে যান এই বোধ।
.
বই - A Time of Madness : A Memoir of Partition
লেখক - Salman Rashid
প্রকাশক - Alef Book Company

#পার্টিশানের_অজানা_কাহিনী ২
#মাসকাবারি_বইপত্তর জুলাই-২০১৮


https://s15.postimg.cc/sy46v1nwb/Salman_Rashid.jpg

2 বার পঠিত (সেপ্টেম্বর ২০১৮ থেকে)

শেয়ার করুন


Avatar: দ

Re: এক উন্মাদ সময়ের স্মৃতিকথন

#
Avatar: শঙ্খ

Re: এক উন্মাদ সময়ের স্মৃতিকথন

,,,
Avatar: বিপ্লব রহমান

Re: এক উন্মাদ সময়ের স্মৃতিকথন

স্বীকার করি, রক্তের ধারা পেছনে যায় না। দেশ বিভাগের শেলও আমরা বহন করি প্রজন্ম থেকে প্রজন্মে, প্রকাশ গোপন।

দীপালি, শেফালি, অঞ্জলি রে,
দেশ বিভাগে কোথা হারালি রে...

https://youtu.be/nv_dP8eUkCY




Avatar: i

Re: এক উন্মাদ সময়ের স্মৃতিকথন

বই নিয়ে লেখা কমে গেছে অনেক। লেখাটি পেয়ে খুশি হ'লাম।দ সম্ভবতঃ একটি সিরিজ শুরু করেছিলেন একদা- এক মাসে কী কী বই পড়লেন ইত্যাদি। সেটি আবার শুরু করতে অনুরোধ জানাই।
Avatar: দ

Re: এক উন্মাদ সময়ের স্মৃতিকথন

'মাসকাবারি বইপত্তর' একটু খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে হলেও ফেসবুকে চলে সিরিজটা। এটাও ফেবুতে লিখেছিলাম অজ্জিনালি। দেড় না দুইদিন বাদে কি খেয়াল হতে এখানে দিলাম। তারপরই দেখি ফেবু স্ট্যটাস ব্লগ ইত্যাদি নিয়ে ক্যাঁচম্যাচ। তো পরের বইটা নিয়ে এখানে তোলার আগে অনেকবার ভাবব আর কি।

Avatar: ফেবুপ্রেমী

Re: এক উন্মাদ সময়ের স্মৃতিকথন

হ্যাঁ, সাইটটা এবার তুলে দিলেই হয়। সবই ফেবু দিয়েই হয়ে যাচ্ছে যখন।


আপনার মতামত দেবার জন্য নিচের যেকোনো একটি লিংকে ক্লিক করুন