Zarifah Zahan RSS feed

Zarifah Zahanএর খেরোর খাতা।

আরও পড়ুন...
সাম্প্রতিক লেখালিখি RSS feed
  • সাম্মানিক
    বেশ কিছুদিন এই :লেখালিখি'র কচকচানিতে নিজেকে ঝালিয়ে নেওয়া হয়নি। নেওয়া হয়নি বলতে ইচ্ছে ছিল ষোল'র জায়গায় আঠারো আনা, এমনকি, যখন আমাদের জুমলাবাবু 'কচি' হতে হতে তেল-পয়সা সবাইকেই ডুগডুগি বাজিয়ে বুলেট ট্রেনে ওঠাচ্ছেন তখনও আমি 'ঝালিয়ে নেওয়া'র সুযোগকে কাঁচকলা ...
  • তোত্তো-চান - তেৎসুকো কুররোয়ানাগি
    তোত্তো-চানের নামের অর্থ ছোট্ট খুকু। তোত্তো-চানের অত্যাচারে তাকে স্কুল থেকে বের করে দিয়েছে। যদিও সেই সম্পর্কে তোত্তো-চানের বিন্দু মাত্র ধারনা নেই। মায়ের সঙ্গে নতুন স্কুলে ভর্তি হওয়ার জন্য সে চলছে। নানা বিষয়ে নানা প্রশ্ন, নানান আগ্রহ তার। স্টেশনের টিকেট ...
  • চলো এগিয়ে চলি
    #চলো এগিয়ে চলি#সুমন গাঙ্গুলী ভট্টাচার্য প্রথম ভাগের উৎসব শেষ। এরপরে দীপাবলি। আলোর উৎসব।তার সাথে শব্দবাজি। আমরা যারা লিভিং উইথ অটিজমতাদের ক্ষেত্রে সব সময় এই উৎসব সুখের নাও হতে পারে। অটিস্টিক মানুষের ক্ষেত্রে অনেক সময় আওয়াজ,চিৎকার, কর্কশ শব্দশারীরিক ...
  • সিনেমা দেখার টাটকা অভিজ্ঞতা - মনোজদের অদ্ভুত বাড়ি
    চট করে আজকাল সিনেমা দেখতে যাই না। বাংলা সিনেমা তো নয়ই। যদিও, টেলিভিশনের কল্যাণে আপটুডেট থাকা হয়ে যায়।এইভাবেই জানা যায়, এক ধাঁচের সমান্তরাল বাংলা ছবির হয়ে ওঠার গল্প। মধ্যমেধার এই রমরমার বাজারে, সিনেমার দুনিয়া আলাদা হবে, এমন দুরাশার কারণ দেখিনা। কিন্তু, এই ...
  • কিংবদন্তীর প্রস্থান স্মরণে...
    প্রথমে ফিতার ক্যাসেট দিয়ে শুরু তারপর সম্ভবত টিভিতে দুই একটা গান শোনা তারপর আস্তে আস্তে সিডিতে, মেমরি কার্ডে সমস্ত গান নিয়ে চলা। এলআরবি বা আইয়ুব বাচ্চু দিনের পর দিন মুগ্ধ করে গেছে আমাদের।তখনকার সময় মুরুব্বিদের খুব অপছন্দ ছিল বাচ্চুকে। কী গান গায় এগুলা বলে ...
  • অনন্ত দশমী
    "After the torchlight red on sweaty facesAfter the frosty silence in the gardens..After the agony in stony placesThe shouting and the crying...Prison and palace and reverberationOf thunder of spring over distant mountains...He who was living is now deadWe ...
  • ঘরে ফেরা
    [এ গল্পটি কয়েক বছর আগে ‘কলকাতা আকাশবাণী’-র ‘অন্বেষা’ অনুষ্ঠানে দুই পর্বে সম্প্রচারিত হয়েছিল, পরে ছাপাও হয় ‘নেহাই’ পত্রিকাতে । তবে, আমার অন্তর্জাল-বন্ধুরা সম্ভবত এটির কথা জানেন না ।] …………আঃ, বড্ড খাটুনি গেছে আজ । বাড়ি ফিরে বিছানায় ঝাঁপ দেবার আগে একমুঠো ...
  • নবদুর্গা
    গতকাল ফেসবুকে এই লেখাটা লিখেছিলাম বেশ বিরক্ত হয়েই। এখানে অবিকৃত ভাবেই দিলাম। শুধু ফেসবুকেই একজন একটা জিনিস শুধরে দিয়েছিলেন, দশ মহাবিদ্যার অষ্টম জনের নাম আমি বগলামুখী লিখেছিলাম, ওখানেই একজন লিখলেন সেইটা সম্ভবত বগলা হবে। ------------- ধর্মবিশ্বাসী মানুষে ...
  • চলো এগিয়ে চলি
    #চলো এগিয়ে চলি #সুমন গাঙ্গুলী ভট্টাচার্যমন ভালো রাখতে কবিতা পড়ুন,গান শুনুন,নিজে বাগান করুন আমরা সবাই শুনে থাকি তাই না।কিন্তু আমরা যারা স্পেশাল মা তাঁদেরবোধহয় না থাকে মনখারাপ ভাবার সময় না তার থেকে মুক্তি। আমরা, স্পেশাল বাচ্চার মা তাঁদের জীবন টা একটু ...
  • দক্ষিণের কড়চা
    দক্ষিণের কড়চা▶️অন্তরীক্ষে এই ঊষাকালে অতসী পুষ্পদলের রঙ ফুটি ফুটি করিতেছে। অংশুসকল ঘুমঘোরে স্থিত মেঘমালায় মাখামাখি হইয়া প্রভাতের জন্মমুহূর্তে বিহ্বল শিশুর ন্যায় আধোমুখর। নদীতীরবর্তী কাশপুষ্পগুচ্ছে লবণপৃক্ত বাতাস রহিয়া রহিয়া জড়াইতে চাহে যেন, বালবিধবার ...


বইমেলা হোক বা নাহোক চটপট নামিয়ে নিন রঙচঙে হাতে গরম গুরুর গাইড ।

জাকারিয়া স্ট্রিটে

Zarifah Zahan

ভরা জৈষ্ঠ্যের গরমে খানিক উনুন সেঁকা ফিলিং আসছে ক'দিন, সাথে মাঝে মাঝেই আঁচে নব্বইকালীন বেড়ে ওঠার সূক্ষ্ম রোম্যান্টিসিজমে কয়লার গুল দেওয়া উল্টেপাল্টে ঘামাঘামি ট্র‍্যাপিংস। জনগণের সিকিম-দার্জিলিং ডায়েরির নামে বরফে ঢাকা ছবির গায়ে লাইক পুজো পেত‍্যয় দিতে গিয়ে মানসচক্ষের ঠান্ডায় যখন হ‍্যাঁচ্চো তোলার জোগাড়, ওদিকে আঙুল, ভিরমির নামে ফ্রেমে লটকানো মালা গলায় তোলার জোগাড় ঠিক তখনই এই ১৫ ঘন্টা পেটের ইঁদুরকে র‍্যাটাটুলের রেমি বানানোর মাসিক উৎসবকালে উপায়ান্তর না দেখে সোজা পাড়ি দিয়েই দিলাম জাকারিয়া স্ট্রিট।

পাক্কা দু'ঘন্টার বাসযাত্রা শেষে যখন নামলাম এস্প্ল্যানেড, রোদে-ঘামে তন্দুরসেঁকা আমার অবস্থা তখন ভাগাড়ের মাংসের ওপর টং হয়ে থাকা মাছির চেয়েও সঙ্গিন। টিপু সুলতানের দিকে রাস্তা পেরিয়ে হাঁটা লাগলাম সোজা। দিদির লন্ডনের দিব্যি, এ গরমে শিওর ম্যাডাগাস্কার সিনেমাটার কাঠি করা পেঙ্গুইনপোলাগুলোও রেলা বাদ দিয়ে নিজেদের কালো কোট ছেড়ে ফতুয়া পরে নিত। এদিকে এত খাটাখাটনির পর কলুটোলা চত্বরে পৌঁছে দেখি, আদম বাবা তখনও আপেলটি পারবেন কিনা ভাবা তো দূরস্ত,কঞ্চিই সাইজ করে উঠতে পারেননি...অগত্যা কাবাবেরা 'শিকে'য়। আশায় আপাতত টুনি বাল্ব জ্বেলে টুনির মা'কে খুঁজতে বেরোলাম। অন্তত পেটে দু'টো দানা-পানি পড়ুক, গুছিয়ে খাতিরদারি করার সময় এলে বাল্বের ফিউজ শুধু না উড়লেই হল। রাস্তা জুড়ে নানাবিধ শুকনো খাবার, ফল, বিস্কিটের আয়োজন পাশ কাটিয়ে হানা দিলাম তাসকিন মুলুকে। সে ব্যাটারাও সবে মাংসের গায়ে মশলার প্রলেপে ফাইনাল টাচ দিতে ব্যস্ত। এদিকে আমার পেটের ইঁদুর বাবাজী ততক্ষনে রাস্তার দু'পাশ থেকে সারি সারি বিরিয়ানি-হালিমের গন্ধে স্পেকট্রাম চেঞ্জ করে রিসিভার অ্যাডজাস্ট করে ফেলেছে নিজের মত, সাদা-কালো টিভি-ছাতে বসা কাক-আমাদের আ্যান্টেনা মোচড় পরবর্তী ফিডব্যাক হাঁকের ভয়ঙ্কর ট্রায়ো ছক যাকে বলে। উল্টোদিকেই জিশান...না মানে ইনি 'হলমার্ক দেখিয়া লইবেন' গোত্রেরও নন, আর সেন-গাঙ্গুলি-রায় পরিবারমার্কা আতুপুতু চাপও নেননি বলাই বাহুল্য যে বাড়ির ছেলের নাম কালেভদ্রে অমর্ত্য-সৌরভ-সত্যজিৎ রেখে ফেললেই আমৃত্যু 'পাছে লোকে কিছু বলে' ট্রমায় ডুবে ভগাদার দরবারে হত্যা দেবেন। ইনি গরীব এবং স্বতন্ত্র...'আমাদের কোন শাখা নেই' বলার আগেও বোধ করি দু'বালতি জলে গার্গল করে উঠবেন। বিরিয়ানি প্লেট ৫৫ টাকা, হালিম ৬৫। আহঃ...এ স্বাদ- সুগন্ধ বলে বলে ১৬০-১৯০ এর নামডাককে কম্পিটিশন দিয়ে দেবে। পাঁচ রকমের ডাল-চাল-তুলতুলে নরম মিনি সাইজের মাংস-মেথি- জিরে মেশানো গরম মশলার গন্ধ, ওপরে শরতের আকাশে ভাষা মিহি রোদ্দুরের মত সে বাটির গায়ে ঘিয়ের রাজকীয় ঝলকানি, সঙ্গে ফাউ ঝুরি পেঁয়াজ বেরেস্তা, কাঁচালঙ্কা, ধনেপাতা কুচি আর লেবু।
উদরপূর্তি উৎসবের শুভ সূচনা যাকে বলে। এখানকার পাট চুকিয়ে আবার গেলাম তাসকিনে। মুর্গ চাঙ্গেজি এবার মশলার চাদর সমেত জনসমক্ষে হাজিরা দিয়েছেন। নিলাম ওজনে শ'পাঁচেক। এ কাবাব খেয়ে আমি চাঙ্গা হব না চেঙ্গিজ খাঁ খেয়ে এ কাবাবেরে বহাল মর্যাদা দিয়েছেন তা ভাবতে গিয়ে মুর্গির মত এক আদ্যন্ত ভেজ খাবার কোন যুদ্ধ জয়ের কারণ হতে পারে আশঙ্কায় যে দুঃখটুকু আসতে চাইছিল তার প্রতি ভাজতে যাওয়ার আগে ঘিয়ের উপদেশ হতে পারত, 'তুমি আসবে বলে তাই...আমি স্বপ্ন দেখে যাই...আর একটা করে মুর্গি কাবাব হয়ে যায়'। প্রথম এক দফায় প্রমাণ সাইজের টুকরোটাকে কড়াই ভর্তি ঘিয়ে ভেজে তুলে আবার কয়েক পিসে কাটা এবং ডাবল ঘিয়ের পোঁচে কিংবদন্তি সোনালী উত্তরণ। সবকিছুর সাথে পাতে হাল্কা পুদিনা চাটনি। ডেজার্টে ফালুদারও অর্ডার ছিল। তবে সত্যি বলতে, মুর্গি ব্যাটা চাঙ্গার নামে আমায় পিওর মুর্গিই করেছে। এই ঘন্টার পর ঘন্টার ম্যারিনেশনের পর মুখে দিলেই গলে যাওয়া, মাংসের প্রতিটা পরতে মশলার নবাবী স্বাদের যে ফরমায়েশি যুগল হতে পারত তারা স্রেফ ঘি-তেল-ডালডাদের পাড়ার কাকু-কাকিমা মার্কা অতিরিক্ত কৌতূহলের অত্যাচারে কেমন ম্যাদামারা, বেগড়বাই, রুক্ষ্ম, ঢুঁসো। বরং এদের ফালুদাকে বলা যেতে পারে প্রেমসে থাকা রোমিও-জুলিয়েট।সিমাই-দুধ-মিষ্টি-ফ্রুটফ্লেভার সবকিছু যেন ন্যানো সাইজের যত্নটুকু দিয়ে সেজেছে। এতটুকু আতিশায্যের বাড়-বাড়ন্ত নেই, মুখে দিলেই নিক্তিতে মাপা আতিথেয়তা। পাশেই দিল্লি সিক্স থেকে শিরমল চেখে দেখার ইচ্ছে ছিল বটে তবে তেনারা বিকেল পাঁচটাতেও ঝাঁপ খোলেননি ফুল ফ্লেজে। অগত্যা পাততাড়ি গোটানো সেদিনের মত। আস্তে আস্তে ভিড় বাড়ছে মার্কেটে। ইফতারের সময় প্রায় আগত। তাসকিনে গোটা দশেক প্যাকেট এল কাতলার পেটি ভর্তি। প্রতিটা লম্বায় প্রায় ১ ফিট (হ্যাঁ, ঠিকই পড়েছেন আর আমি ইঞ্চি ফিটের হিসেব দিয়ে আইটি সেল এ এন্ট্রি পাবার আশাও রাখিনে)। এই পেটি দিয়েই তৈরি হবে স্পেশাল মাহি আকবরী। চেঙ্গিজ বিট্রে করলে আকবরের কাছে ফেরাই যেত তবে কিনা আমার ততক্ষনে পেটমশাই এমন তাবৎ এলাহিখানায় দ্বীনদয়ালী। পাশেও বেশক'টা দোকানে এই প্রমাণ সাইজের পেটির পিঠোপিঠি আঁতাত, লেয়ারে লেয়ারে। ফিরতে হবে, যাওয়ার আগে হাসান ভাইয়ের থেকে তুলে নিলাম দু'টো বাখরখানি। বিঘত সাইজের গোল পাঁউরুটিতে ঘি, গুঁড়ো দুধ, তিসি আর কয়েক কুচি বাদাম...সব মিলে স্বর্গীয় অ্যাসেটিসম। আপাতত দিন তিনেক এনাকে না'হয় ধীরেসুস্থে আত্মস্থ করা যাক...।


https://s15.postimg.cc/xcfk84pcb/IMG_20180602_150748624.jpg


https://s15.postimg.cc/5p2utu98r/IMG_20180602_160253565_HDR.jpg


https://s15.postimg.cc/c41vqnl57/IMG_20180602_153939186.jpg


https://s15.postimg.cc/ngeh8k45n/IMG_20180602_153838375_HDR.jpg


https://s15.postimg.cc/qbrkf1q1n/IMG_20180602_150652055.jpg

22 বার পঠিত (সেপ্টেম্বর ২০১৮ থেকে)

শেয়ার করুন


Avatar: h

Re: জাকারিয়া স্ট্রিটে

আমি একটা কনফিউশন এ থাকি প্রতিবার, ক্লিয়ার করা হয় না, কথাটা বাখরখানি না বাকরখানি। আর এই রুটির রুট টা কি?
Avatar: Root

Re: জাকারিয়া স্ট্রিটে

Avatar: paps

Re: জাকারিয়া স্ট্রিটে

বাখরখানি বা বাকরখানি নিয়ে আলি সাহেবের বেশ ফেটিশ ছিল। ওনার সাহিত্য়ে এই রুটির রেফারেন্স এসেছে বেশ উল্লেখযোগ্য সংখ্য়ায়। অফ টপিক: কলকাতায় ভালো হালিম কোথায় পাওয়া যায় কেউ বলবেন? এই জিনিসটি চেখে দেখিনি কখনো।
Avatar: h

Re: জাকারিয়া স্ট্রিটে

রুট আর পাপলু কে ধন্যবাদ। ছবি দেখে কিরকম মনে হত, সোভিয়েত এশিয়া র বইগুলোতে যেরকম রুটির ছবি থাকতো সেরকম। আমি ভাবতাম বুখারা আর বাকরখানি র কোন যোগসূত্র আছে কিনা। এই রুটি টার নানা ভ্যারিয়েশন, আমি অনেক জায়গায় খেয়েছি, বিশেষতঃ পোলিশ আর ড্যানিশ জিউইশ দোকানে। কিন্তু জাকারিয়া স্ট্রীট ক্লিয়ারলি সেরা। কোন কথা হবে না।
Avatar: paps

Re: জাকারিয়া স্ট্রিটে

হানুদা, আপনার দেওয়া নামটা (পাপলু) হেব্বি পছন্দ হয়েছে। ধন্যবাদ প্রাপ্য আপনার।
Avatar: h

Re: জাকারিয়া স্ট্রিটে

ও সরি, আসলে আমাদের একজন খুব প্রিয় আত্মীয়সম ছেলে আছে পাপলু নামের, সেইটা বেরিয়ে গেছে।
Avatar: paps

Re: জাকারিয়া স্ট্রিটে

ওহ সরি কেন? নামটা পছন্দ হয়েছে,অনেস্টলি। আমি সারকাজম করি নি।
Avatar: Atoz

Re: জাকারিয়া স্ট্রিটে

কী ভালো ভালো সব জিনিস! দারুণ। ঃ-)
Avatar: বিপ্লব রহমান

Re: জাকারিয়া স্ট্রিটে

বাপ্রে! এতো খাইদাই! লেখাটি সেরাম উপাদেয়।
Avatar: প্রতিভা

Re: জাকারিয়া স্ট্রিটে

তেমন ভোজনরসিক নই, তবু জিভে জল এল। লেখাখানও বড় স্বাদু !
Avatar: যুগান্তর মিত্র

Re: জাকারিয়া স্ট্রিটে

চমৎকার ! জিভে জল এসে গেল লেখাটি পড়তে পড়তে। ভাষাবিন্যাসও দারুণ।


আপনার মতামত দেবার জন্য নিচের যেকোনো একটি লিংকে ক্লিক করুন