Sumana Sanyal RSS feed

Sumana Sanyalএর খেরোর খাতা।

আরও পড়ুন...
সাম্প্রতিক লেখালিখি RSS feed
  • মন ভালো নেই
    ভালোবাসায় আদর আসে,সোহাগ আসে,মন ভেঙে যাওয়া আসে, যন্ত্রণা আসে, বিরহ জেগে থাকে মধুরাতে, অপেক্ষা আসে, যা কখনো আসেনা, তার নাম 'জেহাদ'। ভালোবাসায় কোনো 'জেহাদ' নেই। ধর্ম নেই অধর্ম নেই। প্রতিশোধ নেই। এই মধ্যবয়সে এসে আজ রাতে আমার সেই হারিয়ে যাওয়া বাংলা কে মনে ...
  • ৯০তম অস্কার মনোনয়ন
    অনেকেই খুব বেশি চমকে গেলেও আমার কাছে খুব একটা চমকে যাওয়ার মত মনে হয়নি এবারের অস্কার মনোনয়ন। খুব প্রত্যাশিত কিছু ছবিই মনোনয়ন পেয়েছে। তবে কিছু ছবি ছিল যারা মনোনয়ন পেতে পারত কোন সন্দেহে ছাড়াই। কিন্তু যারা পাইছে তারা যে যোগ্য হিসেবেই পেয়েছে তা নিঃসন্দেহে বলা ...
  • খেজুরবটের আত্মীয়তা
    খুব শান্তি পাই, যখন দেখি কালচারগুলো মিলে যাচ্ছে।বিধর্মী ছেলের হাত ধরে ঘুরে বেড়াচ্ছো শহরের একপ্রান্ত থেকে অন্যপ্রান্ত। দুটি হাত ছোঁয়া সংবেদী বিন্দুতে ঘটে যাচ্ছে বনমহোৎসব। দুটি ভিন্ন ধর্মের গাছ ভালোবাসার অক্সিজেন ছড়িয়ে দিচ্ছে। যেন খেজুর বটের অপার ...
  • ম্যাসাজ - ২
    কবি অনেকদিন হতেই “জীবনের ধন কিছুই যাবে না ফেলা” বলে আশ্বাস দিয়ে এলেও ছোটবেলায় হালকা ডাউট ছিল কবি কোন ধনের কথা বলেছেন এবং ফেলা অর্থে কোথায় ফেলার হুঁশিয়ারি দিয়েছেন? ধন যে ফ্যালনা জিনিস নয়, সেটা আবার নিমোর ছেলেদের থেকে ভালো কে বুঝত! কিন্তু সেই নিয়ে কাব্যি ...
  • মম দুঃখ বেদন....
    সেদিন, অঝোর ধারে কাঁদতে কাঁদতে বাবার চেয়ারের হাতল ধরে মেঝেতে বসে পড়েছি। দৃশ্যত শান্ত বাবা, খানিকক্ষণ কাঁদার সুযোগ দিলেন। এ দুটি বাক্যে ভেবে নেবার কোনো কারণই নেই, বাবা আর আমার সম্পর্ক অতি সুমধুর ও বোঝাপড়ার। বরং তার অব্যবহিত কয়েক মাস আগে পর্যন্তও উত্তপ্ত ...
  • হিন্দু স্কুলের জন্মদিনে
    হিন্দু স্কুলের জন্মদিনেআমাদের স্কুলের খেলার মাঠ ছিল না। থাকার মধ্যে ছিল একটা উঠোন, একটা লাল বেদী আর একটা দেবদারু গাছ। ওই লাল বেদীটায় দাঁড়িয়ে হেডস্যার রেজাল্ট বলতেন। ওই উঠোনটায় আমরা হুটোপাটি আর প্রেয়ার করতাম। আমাদের ইস্কুলের প্রেয়ার ছিল জনগনমন। তখনো ...
  • জার্মানী ডাইরী-১
    পরবাস পর্ব:অদ্ভুত একটা দেশে এসে পড়েছি! এদেশের আকাশ সবসময় মেঘাচ্ছন্ন.. সূর্য ওঠেই না বললে চলে! হয় বৃষ্টি নয়তো বরফ!!বর্ষাকাল আমার খুবই প্রিয়.. আমি তো বর্ষার মেয়ে, তাই বৃষ্টির সাথে আমার খুব আপন সম্পর্ক। কিন্তু এদেশের বৃষ্টিটাও বাজে! এরা অতি সন্তর্পণে ঝরবে! ...
  • মাতৃরূপেণ
    আমার বাবাকে জীবনকালে , আমার জ্ঞান ও বিশ্বাসমতে, থানায় যেতে হয়েছিলো একবারই। কোনো অপরাধ করায় পুলিশ ধরে নিয়ে গিয়েছিলো তা নয়, নিছক স্নেহের আকুল টান বাবাকে টেনে নিয়ে গিয়েছিলো 'মামা'দের মাঝে। 2007 সাল। তখন এপ্রিল মাস। 14ই মার্চ ঘর ছেড়ে মাসতুতো বোনের বাড়ী চলে ...
  • খাগায় নমঃ
    মাঘ এলেই মনে পড়ে শ্রীপঞ্চমীর বিকেলে অপু বাবার সাথে নীলকন্ঠ পাখি দেখতে বেরিয়েছিল।নিজে ও রোজকার রুটিন বদলে ফেলতাম পুজোর দিনপনেরো আগে। স্কুল থেকে রোজ বিকেলে বাড়ি ফিরে খুঁটিয়ে দেখতাম উঠোনের আমগাছটায় মুকুল এলো কিনা, আর গাঁদার চারায় কতগুলো কুঁড়ি এলো, তারপর ...
  • হেলেন
    এমন হয়, প্রায়শই হয়। কথাবার্তায় উঠে আসে কোনও কোনও নাম। আমাদের লেখকের ক্ষেত্রেও তাই হলো। লেখক ও তার বন্ধু হাসানুজ্জামান ইনু সেইদিন রাত আটটা ন’টার দিকে জিন্দাবাজারে হাঁটছিলেন। তারা বাদাম খাচ্ছিলেন এবং বলছিলেন যে রিকাবিবাজার যাবেন, ও সেখানে গুড়ের চা খাবেন।তখন ...

গুরুচণ্ডা৯র খবরাখবর নিয়মিত ই-মেলে চান? লগিন করুন গুগল অথবা ফেসবুক আইডি দিয়ে।

সমবেত কুরুক্ষেত্রে

Sumana Sanyal

"হে কৃষ্ণ, সখা,আমি কীভাবে আমারই স্বজনদের ওপরে অস্ত্র প্রয়োগ করবো? আমি কিছুতেই পারবো না।" গাণ্ডীব ফেলে দু'হাতে মুখ ঢেকে রথেই বসে পড়েছেন অর্জুন আর তখনই সেই অমোঘ উক্তিসমূহ...রণক্ষেত্রে কেউ স্বজন নয়। হে পার্থ,তুমি যা করছো, তা আমারই ইচ্ছায়। শরীর কে হনন করলেও আত্মা নিহত হন না। সেই অঙ্গুষ্ঠ পরিমাণ পুরুষ ন হন্যতে হন্যমানে শরীরে। অত:পর ধর্মযুদ্ধে অর্জুন আবার অস্ত্র ধরলেন। ইতিপূর্বে পরশুরামের কুঠার অনেকবার ক্ষত্রিয়শূন্য করেছে এই দ্যাবা পৃথিবী কে। সেও এক অন্য ধর্মযুদ্ধ। ভারতবর্ষের আদি অধিবাসী,কালো মানুষটি কে ছলচাতুরীর আশ্রয় নিয়ে, পেছন থেকে এক ভাই কে খুন করে, তার বিধবাকে অন্য ভাইটির ভোগ্যবস্তু হিসেবে ভেট চড়িয়ে ইজ্জত রক্ষার্থে বউ কে উদ্ধার করে তাকে পূর্ণ গর্ভবতী অবস্থায় বেড়াল পার করেছেন ঈক্ষাকু বংশের রাজপুত্র, যাঁকে তাঁর দুর্বলচিত্ত ক্সমুক বাবার কথা রাখতে বনে আসতে হয়েছিলো। এবং আদি অধিবাসীকে তাড়িয়ে সাদা চামড়ার আর্য আধিপত্য বিস্তার যার এজেণ্ডা ছিলো। এও কিন্তু লাভ জিহাদ। রাজস্থানের খুনের ঘটনার বিভিন্ন নিউজ লিঙ্কে, বিশেষত এবিপির লিঙ্কের মন্তব্যগুলো পড়ে শিউরে উঠছি। বেশ হয়েছে। ঠিক হয়েছে। জেহাদি নিপাত যাক। আজ আমার ফেসবুক পোস্টে দেবযানী হালদার উষ্মা প্রকাশ করেছেন। তিনি লিখেছেন কেরলের আরএসএস হত্যার পরে অথবা বাদুড়িয়া আর বনগাঁ র নিতাই আর দীপঙ্কর যখন মুসলমান মেয়েকে বিয়ে করে 'কাফের' হবার অপরাধে মেয়েদুটির পরিবারের হাতে খুন হয়, তখন এ রাজ্যের মিডিয়া নীরব থাকে কেনো? এছাড়া এই নিহত দীনমজুরটির পরিবারের একজন কে চাকরী আর তিন লক্ষ টাকা দেওয়াতেও দেবযানীদেবী যারপরনাই উত্তেজিত। তিনি একা নন, এবিপির ওই থ্রেডে বহুলোক লিখেছেন হিন্দু হলে চাকরী টাকা দিতোনা। আমার মনে পড়ছে সম্প্রতি নিহত এস আই অমিতাভ মালিকের স্ত্রী সদ্য চাকরী পেয়েছেন স্র তাদের তো হিন্দু বলেই জানি। যে লোকটা পোড়াচ্ছিলো আফরাজুল কে, সেই শম্ভু কী দৃপ্ত ভঙ্গীতে জেহাদ শব্দটা উচ্চারণ করছিলো। দেবযানী এবং আরও অনেকেই লিখলেন কী??? এতবড়ো আস্পর্ধা? ঘরে বউ থাকতেও হিন্দু মেয়েকে বিয়ে করার প্ল্যান? শালা নেড়ে,কাটার বাচ্চা। মার শালাকে। এরপর একেবারে খাপ পঞ্চায়েতের হিট সীন!! শম্ভুর ১২ বছরের ভাইপো ভিডিও তুললো। অথচ ওই দৃশ্য দেখে ১২ বছরের ছেলেই শুধু নয়, অনেক দেড়েলেরও প্যান্ট ভিজিয়ে ফেলার কথা! আসলে এরা, এই আরএসএস রা এইসব বাভচাদের এভাবেই ট্রেনিং দিচ্ছে। জেহাদি খতম ট্রেনিং।
হিন্দু লোকজন যখন বউ কে লুকিয়ে মন্দারমণিতে ফুর্তি করে, প্রতিটি সিরিয়ালে যখন হিন্দু পুরুষদের একাধিক বউ এর একই বাড়িতে সহাবস্থান দেখায়, তখন সেটা কি লাভ জেহাদ নয়? নাকি ধর্মযুদ্ধ? অর্জুন বনবাসে গিয়ে চিত্রাঙ্গদা উলুপী কে কি করেছিলো গুরু? আর সুভদ্রা হরণ? লাভ জেহাদ নয়? কোথাও লিঙ্ক পাইনি চাড্ডিদের লেখা ছাড়া, বাদুড়িয়ার নিতাই দাস আর বনগাঁর দীপঙ্কর কে মুসলিম মেয়ে বিয়ে করার অপরাধে মেয়ে দুটির পরিবার লহুন করে। লিঙ্ক না পেলেও প্রতিবাদ করলাম। কারণ স্যেকুলারিজম কখনো একপাক্ষিক, সিলেক্টেড হয়না। কিন্তু এই সমবেত কুরুক্ষেত্রে মরছে তো মানুষ। "মড়ার আবার জাত থাকে নাকি?" শ্রীকান্ত কে বলেছিলো ইন্দ্রনাথ। ইন্দ্রনাথ যোগী আদিত্যনাথকে চিনতো না আর "নেক্রোফিলিয়া" শব্দটাও জানতো না। জানলে কি বমি করে দিতো?
প্রেম পোড়ার গন্ধে গা গুলাচ্ছে। ভালোবাসার ধ্বংসস্তূপে আমি তোমাকেই খুঁজছি মুর্শিদ আমার! আমার অধরচাঁদ।
আজও আমি অবৈধতা বুঝিনা, জেহাদ বুঝিনা। কিন্তু প্রেম কে খুন করতে এলে এবার আমিও হাতে অস্ত্র তুলে নেবো, ওয়াশিকুর, অনন্তবিজয়, আজরাফুলের দিব্যি। জলের ওপর পানি না পানির ওপর জল তাও আমি বুঝিনা দয়াল। শুধু জানি আমি বন্ধুর প্রেমাগুণে পোড়া, আমি মরলে পোড়াস নে তোরা!!! এখানে কোনো জেহাদ নেই, চামড়া পোড়ার গন্ধও নেই। এখানে আমি চিরকাল সেই অধর মানুষ কে খুঁজে ফিরবো।
"ভয় হতে তব অভয়মাঝে
নূতন জনম দাও হে"

শেয়ার করুন


Avatar: সিকি

Re: সমবেত কুরুক্ষেত্রে

...


আপনার মতামত দেবার জন্য নিচের যেকোনো একটি লিংকে ক্লিক করুন