Arijit Guha RSS feed

Arijit Guhaএর খেরোর খাতা।

আরও পড়ুন...
সাম্প্রতিক লেখালিখি RSS feed
  • বইয়ের গ্রাম ভিলার
    মহারাষ্ট্রের পঞ্চগণি মহাবলেশ্বর হিলস্টেশান হিসেবে বিখ্যাত, বিখ্যাত এর স্ট্রবেরী চাষের জন্যও। বছরে ৪০ থেকে ৫০ কোটি টাকা লাভ হয় শুধু এই অঞ্চলে উৎপাদিত স্ট্রবেরী বিক্রি করে। দাক্ষিণাত্যের বিখ্যাত কৃষ্ণা নদীর উৎসও এই মহাবলেশ্বর অঞ্চল। সারাবছর পর্যটকের ...
  • আমার সোহিনী আর বাবার বউ
    সবচেয়ে ভোরে উঠে একটা মোক্ষম জিনিশ টের পাই। শালা, য-ফলাতেই মেয়েদের কাঁখতল দেখি আমার নির্ঘাৎ ঘোর অসুখ করেছে। এবং, রোগটা অস্বস্তির। এ যৌনব্যাধির একটা স্পেসিফিক নাম নিশ্চয়ই আছে, কিন্তু তজ্জন্যে মাকুন্দ ডাক্তারের মদত নেব না। কেননা রোগটা আমারই। অন্য কারো ...
  • নকশার উল্টো পিঠ
    আমার দিদার ছিল গোটা চারেক ভালো শাড়ী। একটা বিয়ের বেনারসী, একটা গরদ, মাঝবয়েসে বেনারস বেড়াতে গিয়ে সেখান থেকে কেনা একটা কড়িয়াল বেনারসী, এছাড়া শেষের দিকে তসরও হয়েছিল। মায়ের প্রথম দামী শাড়ী পশ্চিমবঙ্গ সরকারের কোন হস্তশিল্প মেলা থেকে কেনা দুধে আলতা রঙের একটা ...
  • আরও একটি ভ্রমণ কাহিনী - কুমায়ুনে চারদিন
    প্রাককথনযেমন আর পাঁচটা বেড়াতে যাওয়ার ক্ষেত্রে হয়, কোথায় যাওয়া হবে, তারিখ, ফেরা কবে, কতদূর যাব এইসব টালবাহানা চলে, এবারেও ঠিক তাই ছিল। তা, সেই পর্ব মিটে যায় ভালোয় ভালোয়। আরও একটা বেড়াতে যাওয়ার পরিকল্পনা যেমন থাকে, তবু তার বাইরেও অনেকটা অনিশ্চয়তা থাকে, ...
  • জ্যামিতিঃ পর্ব ৫
    http://bigyan.org.in...
  • সেখ সাহেবুল হক
    শ্রীজগন্নাথ ও ছোটবেলার ভিড়-----------------...
  • মাতৃত্ব বিষয়ক
    এটি মূলতঃ তির্যকের 'রয়েছি মামণি হয়ে' ও শুচিস্মিতা'র 'সন্তানহীনতার অধিকার'এর পাঠপ্রতিক্রিয়া।-----...
  • ভারতে বিজ্ঞান গবেষণা
    ভারতে বিজ্ঞান গবেষণা ও সেই সংক্রান্ত ফান্ডিং ইত্যাদি নিয়ে কিছুদিন আগে 'এই সময়' কাগজে একটা লেখা প্রকাশিত হয়েছে। http://www.epaper.ei...
  • কেমন হবে বেণীমাধব?
    - দিস ব্লাডি ইউনিয়ন কালচার ইস ক্র্যাপ। আপিস ফেরত পথে চিলড্ বিয়ারে চুমুক দিয়ে বলেছিল অসীম। কেতাদুরস্ত মাল্টিন্যাশন্যালে প্রজেক্ট ম্যানেজার অসীম। ব্যালেন্স শিট, ডেটা মাইনিং, ক্লায়েন্ট মিটিং’র কচকচানি, তার উপর বিরক্তিকর ট্রাফিক, আর গোদের উপর বিষ ফোড়া ...
  • ইফতার আর সহরির মাঝে
    কলকাতার বুকের মধ্যে যে কত অগুন্তি কলকাতা লুকিয়ে আছে! রমজান মাসে সূর্য ডুবে গিয়ে রাত ঘনিয়ে এলে মধ্য কলকাতার বুকে জেগে ওঠে এক আশ্চর্য বাজার। যে বাজার শুরু হয় রাত দশটার থেকে আর তুঙ্গে ওঠে রাত বারোটা একটা নাগাদ। ফিয়ার্স লেন, কলুটোলা, জাকারিয়া স্ট্রিট, সাবেক ...

টুকরোটাকরা ৪

Arijit Guha

দাদামণি অশোক কুমারের প্রপিতামহ মানে মায়ের ঠাকুরদা ছিলেন ভাগলপুরের রাজা শিবচন্দ্র ব্যানার্জি।আগেই লিখেছি সে কথা।ছোটবেলায় অশোক কুমার একটা বড় সময় ভাগলপুরে কাটিয়েছিলেন।সেই সময় মাঝে মাঝেই রাজা শিবচন্দ্র ব্যানার্জি বাচ্চা অশোক কুমারকে ডেকে বলতেন 'অ্যাই ছোড়া, একটা গল্প শোনা'।আসলে অশোক কুমার ছোটবেলায় খুব ভালো বানিয়ে বানিয়ে গল্প বলতে পারতেন।এবার পরদাদা,মানে প্রপিতামহর নির্দেশে গল্প বলতে শুরু করতেন, 'কাল আমি একটা জঙ্গলের মধ্যে দিয়ে হাঁটছিলাম তখন কত কত পাখিরা কিচিরমিচির করছিল ময়ূর নাচছিল আমার খুব ভালো লাগছিল।এই সময়ে কি হল জানো,একটা বাঘের গর্জন শুনতে পেলাম।ঘুরে তাকাতেই দেখি একটা বাঘ আমার দিকে তাকিয়ে রয়েছে।আমি তো ভয়ে ছুটে পালাতে লাগলাম।বাঘটা এই ধরে ফেলে ধরে ফেলে,সেই সময়ে আমার দু পাশ থেকে দুটো পাখা বেরিয়ে এলো আর বাঘটা ধরার আগেই আমি গাছপালা ভেদ করে উড়ে উড়ে বাড়িতে চলে এলাম।'
শিবচন্দ্র ব্যানার্জি জিজ্ঞাসা করল, 'বটে, তা তখন আমি কি করছিলাম!এত কিছু হয়ে গেল আমি জানতেই পারলাম না।'
অশোক কুমার বললেন, 'তুমি তো দুপুরবেলা তখন নাক ডাকিয়ে ঘুমাচ্ছিলে।'
এরকম মাঝে মাঝেই এক বৃদ্ধ আর এক শিশুর গল্প জমে ওঠে।একদিন এরকম গল্পের মাঝেই একজন যুবক ঢুকল।গায়ের রঙ কালো কিন্তু দেখতে খুব সুন্দর।আর সবথেকে উজ্জ্বল তার চোখদুটো।
উনি ঘরে আসতেই শিবচন্দ্র বলে উঠলেন, 'আরে এসো এসো,বসো।তারপর তোমার মামার সাথে সেদিন দেখা হল।খুব দুঃখ করে বলছিলেন জানেন রাজা সাহেব,আমার ভাগ্নেটা কিছু করে না।খুব দুশ্চিন্তায় আছি ওকে নিয়ে।মানুষ হল না।' বলে অশোক কুমারকে দেখিয়ে বললেন এই দেখো এ হচ্ছে আমার নাতনির ছেলে অশোক।
যুবকটি বলল অশোক নামে তো একজন পৃথিবীবিখ্যাত সম্রাটও ছিলেন।
রাজা সাহেব তখন বললেন আমার পুতিও কিন্তু তোমার চেয়ে কম যায় না।ও-ও খুব ভালো গল্প বলে জানো।
যুবকটি শুনে বলল,তাই নাকি?তা বেশ বেশ।আমাকে একটা গল্প শোনাও তো।
অশোক কুমার তখন যুবকটিকে বলল তুমি রুপোর ভাত আর রুপোর পটলভাজা খেয়েছ?
যুবকটি হেসে তখন বললেন,ওসব রুপোর জিনিস দেখলেই খেয়ে ফেলব সাথে সাথে।
দুজনের জমে গেল খুব।

এর অনেক পরে যখন অশোক কুমার সিনেমার হিরো আর তার ছবি পরপর হিট হয় তখন কলকাতার নিউ থিয়েটার্স এর এমডি বীরেন্দ্র সরকার অশোক কুমারকে নিউ থিয়েটার্সে যোগ দেওয়ার আহ্বান জানান এবং অশোক কুমারকে ওনাদের অফিসে আসতে বলেন।
নিউ থিয়েটার্সের অফিসে এসে অশোক কুমার দেখেন বোর্ডের সদস্যরা ছাড়াও আরো একজন কালো মত সুদর্শন লোক বসে আছেন।মাথার চুলগুলো ধবধবে সাদা আর চোখ দুটো উজ্জ্বল হয়ে জ্বলছে।
ভদ্রলোক অশোক কুমারকে বলে উঠলেন,আমাকে চিনতে পারছ?ছোটবেলায় আমাকে রুপোর ভাত আর রুপোর পটলভাজার গল্প শুনিয়েছিলে মনে আছে?
পাশ থেকে বীরেন্দ্র সরকার অশোক কুমারের সাথে ওনার পরিচয় করিয়ে দিলেন, 'ইনি আমাদের গর্ব শ্রীযুক্ত শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়।'
অশোক কুমার নিচু হয়ে প্রণাম করলে পর শরৎচন্দ্র বলে ওঠেন 'ওই রুপোর ভাত আর রুপোর পটলভাজা কিন্তু এখনো জোটে নি।'

এরপর অশোক কুমার সবাইকে বললেন 'শরৎ বাবুর মামা নভেলিস্ট উপেন্দ্রনাথ গঙ্গোপাধ্যায় আমার পরদাদাকে খালি বলতেন আমার ভাগ্নেটাকে নিয়ে খুব দুশ্চিন্তায় আছি।কিছুতেই মানুষ হল না।


Avatar: Arindam

Re: টুকরোটাকরা ৪

প্রমাতামহ?

Avatar: Du

Re: টুকরোটাকরা ৪

ভালো লাগলো পড়ে। আঅরো হোক এরকম।


আপনার মতামত দেবার জন্য নিচের যেকোনো একটি লিংকে ক্লিক করুন