Sarit Chatterjee RSS feed

Sarit Chatterjeeএর খেরোর খাতা।

আরও পড়ুন...
সাম্প্রতিক লেখালিখি RSS feed
  • মসলিন চাষী
    ঘুমালে আমি হয়ে যাই মসলিন চাষী, বিষয়টা আপনাদের কাছে হয়ত বিশ্বাসযোগ্য মনে হবে না, কিন্তু তা সত্য এবং এক অতি অদ্ভুত ব্যবস্থার মধ্যে আমি পড়ে গেছি ও এর থেকে নিস্তারের উপায় কী তা আমার জানা নেই; কিন্তু শেষপর্যন্ত আমি লিখে যাচ্ছি, যা থাকে কপালে, যখন আর কিছু করা ...
  • সিরিয়ালচরিতমানস
    ‘একটি বনেদি বাড়ির বৈঠকখানা। পাত্রপক্ষ ঘটকের সূত্রে এসেছে সেই বাড়ির মেয়েকে দেখতে। মেয়েকে আনা হল। বংশপরম্পরা ইত্যাদি নিয়ে কিছু অবান্তর কথপোকথনের পর ছেলেটি চাইল মেয়ের সঙ্গে আলাদা করে কথা বলতে। যেই না বলা, অমনি মেয়ের দাদার মেজাজ সপ্তমে। ছুটে গিয়ে বন্দুক এনে ...
  • দেশ এবং জাতীয়তাবাদ
    স্পিলবার্গের 'মিউনিখ' সিনেমায় এরিক বানা'র জার্মান রেড আর্মি ফ্যাকশনের সদস্যের (যে আসলে মোসাদ এজেন্টে) চরিত্রের কাছে পিএলও'র সদস্য আলি ঘোষনা করে - 'তোমরা ইউরোপিয়ান লালরা বুঝবে না। ইটিএ, আফ্রিকান ন্যাশনাল কংগ্রেস, আইরিশ রিপাব্লিকান আর্মি, আমরা - আমরা সবাই ...
  • টস
    আমাদের মেয়েবেলায় অভিজ্ঞান মেনে কোন মোলায়েম ডাঁটির গোলাপ ফুল ছিলনা যার পরিসংখ্যান না-মানা পাঁচটাকা সাইজের পাপড়িগুলো ছিঁড়ে ছিঁড়ে সিরিয়ালের আটার খনি আর গ্লিসারিনের একটা ইনডাইরেক্ট প্রোপরশন মুখে নিয়ে টেনশনের আইডিয়ালিজম ফর্মুলায় ফেলবো - "He loves me, he loves ...
  • সান্ধ্যসংলাপ: ফিরে দেখার অজ্যামিতিক রুপরেখা
    গত রবিবার সন্ধ্যেবেলা সাগ্নিক মূখার্জী 'প্ররোচিত' 'সাত তলা বাড়ি'-র 'সান্ধ্যসংলাপ' প্রযোজনাটি দেখতে গিয়ে একটা অদ্ভুত অনুভব এসে ধাক্কা দিল। নাটকটি নিয়ে খুব বেশি কিছু বলার নেই আলাদা করে আমার। দর্শকাসনে বসে থেকে মনের ভেতর স্মিতহাসি নিয়ে একটা নাটক দেখা শেষ ...
  • সান্ধ্যসংলাপ: ফিরে দেখার অজ্যামিতিক রুপরেখা
    গত রবিবার সন্ধ্যেবেলা সাগ্নিক মূখার্জী 'প্ররোচিত' 'সাত তলা বাড়ি'-র 'সান্ধ্যসংলাপ' প্রযোজনাটি দেখতে গিয়ে একটা অদ্ভুত অনুভব এসে ধাক্কা দিল। নাটকটি নিয়ে খুব বেশি কিছু বলার নেই আলাদা করে আমার। দর্শকাসনে বসে থেকে মনের ভেতর স্মিতহাসি নিয়ে একটা নাটক দেখা শেষ ...
  • গো-সংবাদ
    ঝাঁ চকচকে ক্যান্টিনে, বিফ কাবাবের স্বাদ জিভ ছেড়ে টাকরা ছুঁতেই, সেই দিনগুলো সামনে ফুটে উঠলো। পকেটে তখন রোজ বরাদ্দ খরচ ১৫ টাকা, তিন বেলা খাবার সঙ্গে বাসের ভাড়া। শহরের গন্ধ তখনও সেভাবে গায়ে জড়িয়ে যায় নি। রাস্তা আর ফুটপাতের প্রভেদ শিখছি। পকেটে ঠিকানার ...
  • ফুরসতনামা... (পর্ব ১)
    প্রথমেই স্বীকারোক্তি থাক যে ফুরসতনামা কথাটা আমার সৃষ্ট নয়। তারাপদ রায় তার একটা লেখার নাম দিয়েছিলেন ফুরসতনামা, আমি সেখান থেকে স্রেফ টুকেছি।আসলে ফুরসত পাচ্ছিলাম না বলেই অ্যাদ্দিন লিখে আপনাদের জ্বালাতন করা যাচ্ছিলনা। কপালজোরে খানিক ফুরসত মিলেছে, তাই লিখছি, ...
  • কাঁঠালবীচি বিচিত্রা
    ফেসবুকে সন্দীপন পণ্ডিতের মনোজ্ঞ পোস্ট পড়লাম - মনে পড়ে গেলো বাবার কথা, মনে পড়ে গেলো আমার শ্বশুর মশাইয়ের কথা। তাঁরা দুজনই ছিলেন কাঁঠালবীচির ভক্ত। পথের পাঁচালীর অপু হলে অবশ্য বলতো কাঁঠালবীচির প্রভু। তা প্রভু হোন আর ভক্তই হোন তাঁদের দুজনেরই মত ছিলো, ...
  • মহাগুণের গপ্পোঃ আমি যেটুকু জেনেছি
    মহাগুণ মডার্ণ নামক হাউসিং সোসাইটির একজন বাসিন্দা আমিও হতে পারতাম। দু হাজার দশ সালের শেষদিকে প্রথম যখন এই হাউসিংটির বিজ্ঞাপন কাগজে বেরোয়, দাম, লোকেশন ইত্যাদি বিবেচনা করে আমরাও এতে ইনভেস্ট করি, এবং একটি সাড়ে চোদ্দশো স্কোয়্যার ফুটের ফ্ল্যাট বুক করি। ...

হৃৎপিণ্ড

Sarit Chatterjee

হৃৎপিণ্ড
সরিৎ চট্টোপাধ্যায় / ভৌতিক অণুগল্প

ডাঃ সিদ্ধেশ্বর মুখোপাধ্যায়, চিফ সাইকিয়াট্রিস্ট, প্যারাসাইকোলজিস্ট ও অ্যাসাইলাম সুপার। যেমন কাজ পাগল লোক তেমনি দোর্দণ্ড প্রতাপ।
আজ যদিও নিউ ইয়ার, তাও দোতলার রাউন্ডে ঢুকছেন রাত এগারোটায়। ফ্লোর ইনচার্জ রাখাল ছুটে আসে।
- কাকে দেখবেন স্যার?
- চার আর সাত নম্বর। ওদের কন্ডিশন কদিন হল ডিটোরিয়েট করছে। আজ থেকে দুবার করে কাউন্সেলিং করব।

চার নম্বর ঘরে, অরুণিমা সেন, ৫৫। এককালে নামকরা অভিনেত্রী ছিলেন। ঘরে ঢুকতেই ফ্যাসফ্যাসে গলায় বললেন, লজ্জা করে না আপনার? আবার এসেছেন আপনি! বেরিয়ে যান! এখনই!

সিদ্ধেশ্বর একমাত্র চেয়ারটায় বসেন; ওঁর কথাগুলো সম্পূর্ণ ইগনোর করেন। মুচকি হাসি হেসে বলেন, এখনো আসেন, তাঁরা? এখনো দেখতে পান?
- হ্যাঁ।
- আজ কে কে এসেছিল?
- প্রত্যুষ।
- ও, আপনার সাত নম্বর প্রেমিক? বেচারা! পুলিশ আত্মহত্যা ভেবেছিল। কী দিয়েছিলেন, আর্সেনিক?
- কেন আপনি এসব বলেন আমায়? আমি কেন ওকে মারব? ও আমায় ভালবাসতো! বিশ্বাস করুন, আমি ওকে মারি নি! কান্নায় ভেঙে পড়ে অরুণিমা।
- আপনি পাগল নন অরুণিমা। অত সহজে রেহাই আপনি পাবেন না। ওই ফাঁসিকাঠেই আপনার মুক্তি। আর সেটাই হবে।
অট্টহাস্যে ঘর কাঁপিয়ে বেরিয়ে আসেন সিদ্ধেশ্বর।

সাত নম্বরে, শামিম, ২৪। ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ত। এখন স্ট্রেট জ্যাকেটে আষ্ঠে-পৃষ্ঠে বাঁধা। সিদ্ধেশ্বর চেয়ারে বসার আগেই হিস হিস করে বলে উঠল শামিম, আবার এসেছিস? আমার হাত খোলা থাকলে তোকে ছিঁড়ে টুকরো টুকরো করে ফেলতাম, কুত্তার বাচ্চা!
আবার হোহো করে হাসেন সিদ্ধেশ্বর। বলেন, যেমন ময়নার লাশটাকে করেছিলি, বল?
- ময়নাকে আমি ভালবাসতাম!
- তাই তো ওকে মরতে হলো! তাই না? শালা, দুমাসের পেট ছিল রে শুয়োরের বাচ্চা! তোর সন্তান!
- তোকে আমি ...! বাঁধা অবস্থাতেও ঝাঁপ দেয় শামিম। কোনক্রমে আটকায় রাখাল।

সিদ্ধেশ্বরের অট্টহাসি ঘুরতে থাকে অ্যাসাইলামের করিডোরে করিডোরে।

*

দু'দিন পর, তেসরা জানুয়ারি, অ্যাসাইলামে নতুন সুপার জয়েন করলেন। রেকর্ড দেখে জানতে পারলেন যে গত তিন বছরে এগারজন রুগী আত্মহত্যা করেছে এই অ্যাসাইলামে।

আর সাতদিন আগে, আঠাশে ডিসেম্বর, দোতলার করিডোরে প্রাক্তন সুপার ডাঃ সিদ্ধেশ্বর মুখোপাধ্যায় ও ফ্লোর ইনচার্জ রাখাল দাসের মৃতদেহ পাওয়া গেছিল। শরীরে কোনো আঘাতের চিহ্ন ছিল না। কিন্তু পোস্টমরটেমে দেখা গেছিল দুজনেরই হৃৎপিণ্ডদুটিকে কীভাবে যেন কেউ দুমড়ে মুচড়ে রেখে দিয়ে গিয়েছে।

*


Avatar: avi

Re: হৃৎপিণ্ড

বাপস, গল্পের সময়টা কী হতে পারে?
Avatar: Du

Re: হৃৎপিণ্ড

সেটা আগের নজন মিলে? নাকি ময়্না আর সাত নম্বর?
Avatar: Rit

Re: হৃৎপিণ্ড

ডিটিরিওরেট।


আপনার মতামত দেবার জন্য নিচের যেকোনো একটি লিংকে ক্লিক করুন