রৌহিন RSS feed

রৌহিন এর খেরোর খাতা। হাবিজাবি লেখালিখি৷ জাতে ওঠা যায় কি না দেখি৷

আরও পড়ুন...
সাম্প্রতিক লেখালিখি RSS feed
  • জ্যামিতিঃ পর্ব ৬ (শেষ পর্ব)
    http://bigyan.org.in...
  • বাউন্ডুলে পিঁপড়ের গল্প
    *********বাউণ্ডুলে পিঁপড়ের গল্প*******মহারাজ গল্প টল্প লেখেন না, যা দেখেন তাই। তা আমার সাথে সেদিন এক মক্কেলের মুলাকাত হয়েছিলো, নচ্ছারটা যদিও আমায় নানান কু কথা বলেছে, তাও বন্ধুত্বের খাতিরের ওর কথা গুলো বলে গেলাম। 'এই শোন একটা গাড়ি আসছে বুঝলি একটু চমকাবি ...
  • ১৯৪৬, এক ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের বছর
    সদ্য তখন দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শেষ হয়েছে।ফ্যাসিস্ট বাহিনীর চূড়ান্ত পরাজয় ঘটেছে।পৃথিবীর ইতিহাসে এক যুগসন্ধিক্ষণ।পৃথিবী জুড়ে সব মানুষের বাধ ভাঙা উচ্ছ্বাস। যারা যারা যুদ্ধে নিজের প্রিয়জনকে হারিয়েছে, তারাও এই বিভৎসতার শেষে হাপ ছেড়ে বেঁচেছে।সারা পৃথিবীর ...
  • যৌননির্যাতন সম্পর্কে কিছু কথা যা আমি বলতে চাই
    মিডিয়া ট্রায়ালের পর শুরু হয়েছে এক নতুন ফেনোমেনন সোশ্যাল মিডিয়া ট্রায়াল। সবার কী সুন্দর বিচার, ফাঁসি, জেল, সব কিছুর নিদান দিয়ে দেন। নির্ভয়া কান্ডের পর গোটা ফেসবুক জুড়ে ফাঁসির জন্য কী প্রচণ্ড চিৎকার। শিক্ষিত হোক বা অশিক্ষিত, একটা গোটা জাত ফাঁসি চায়, ...
  • ডারউইন
    মশাদের জগতে একটা বেশ মজার ঘটনা ঘটে চলেছে। ধরুন প্রথম যখন মশা মারবার জন্যে মানুষ কোন কীটনাশক আবিষ্কার করলো। সেই সময় যত মশা ছিলো তার মধ্যে ৯৫% এর ওপর এই কীটনাশক কাজ করে। বাকি ৫% এর ওপর করে না। এবার কীটনাশক আবিষ্কারের আগে এই ৫%কে সেই ৯৫% এর সাথে প্রতিযোগীতা ...
  • রংচুগালা: বিপন্ন আদিবাসী উৎসব
    [ওই ছ্যাড়া তুই কই যাস, কালা গেঞ্জি গতরে?/ছেমড়ি তুই চিন্তা করিস না, আয়া পড়ুম দুপুরে/ হা রে রে, হা রে রে, হা রে রে…ভাবানুবাদ, গারো লোকসংগীত “রে রে”।]কিছুদিন আগে গারো (মান্দি) আদিবাসী লেখক সঞ্জিব দ্রং আলাপচারিতায় জানাচ্ছিলেন, প্রায় ১২৫ বছর আগে গারোরা আদি ...
  • মুক্ত বাজার
    নরেন্দ্র মোদী নিশ্চয় খুশি হয়েছেন। হওয়ারই কথা। প্রধানমন্ত্রী’র ঘনিষ্ঠ বন্ধু, ফোর্বস ম্যাগাজিনে প্রকাশিত ভারতবর্ষের ১০০ জন ধনকুবের’দের ক্রমাঙ্কে টানা দশ বছর শীর্ষ স্থান ধরে রেখেছেন। গত বছরে, রেকর্ড হারে, ৬৭% সম্পত্তি বাড়িয়ে, আজ তিনি ৩৮০০ কোটি ডলারের মালিক। ...
  • আমরহস্য
    শহরে একজন বড় পীরের মাজার আছে তা আপনি জেনে থাকবেন, পীরের নাম শাহজালাল, আদি নিবাস ইয়ামন দেশ। তিনি এস্থলে এসেছিলেন এবং নানাবিদ লৌকিক অলৌকিক কাজকর্ম করে অত্র অঞ্চলে স্থায়ী আসন লাভ করেছেন। গত হয়েছেন তিনি অনেক আগেই, কিন্তু তার মাজার এখনো জাগ্রত। প্রতিদিন দূর ...
  • সিনেমার ডায়লগ নিয়ে দু চার কথা
    সাইলেন্ট সিনেমার যুগে বাস্টার কিটন বা চার্লি চ্যাপ্লিনের ম্যানারিজমের একটা বিশেষ আকর্ষন ছিল যেটা আমরা অস্বীকার করতে পারিনা। চোখে মুখের অভিব্যক্তি সংলাপের অনুপস্থিতি পূরণ করার চেষ্টা করত। আর্লি সিনেমাতে ডায়লগ ছিল কমিক স্ট্রীপের মত। ইন্টারটাইটেল হিসাবে ...
  • সিঁদুর খেলা - অন্য চোখে
    সত্তরের দশকের উত্তর কলকাতার প্রান্তসীমায় তখনো মধ্যবিত্ততার ভরা জোয়ার. পুজোরা সব বারোয়ারি. তবু তখনো পুজোরা কর্পোরেট দুনিয়ার দাক্ষিণ্য পায় নি. পাড়ার লোকের অর্থ সাহায্যেই মা দুর্গা সেজে ওঠেন তখনো. প্যান্ডাল হপিং তখন শুরু হয়ে গেছে. পুজোর সময় তখনই মহঃ আলি ...

আকাশের অর্ধেক = অর্ধেক আকাশ

রৌহিন

সমকামিতা - একটি প্রাকৃতিক / জন্মগত শারিরীক অবস্থা নাকি অভ্যাসগত / আরোপিত? ব্যক্তির পছন্দ-অপছন্দের ওপর কিছু কি নির্ভর করে নাকি তার কোন জায়্গাই নেই? সমকামিতা কি নৈতিক না অনৈতিক? উচিৎ না অনুচিৎ? গ্রহনযোগ্য না বর্জনীয়?
অসংখ্য প্রশ্ন - যার উত্তর নিয়ে কাঁটাছেড়া চলছে৷ চলুক৷ আমরা এখানে এই প্রশ্নগুলির বাইরে বেরিয়ে কিছু বিষয় আলোচনা করতে চাই৷ করতে চাই কারণ সুপ্রীম কোর্ট সম্প্রতি (2013) জানিয়েছেন যে এই সংক্রান্ত আইনটি (দফা 377) বহাল এবং অপরিবর্তিত থাকছে আপাততঃ কারণ দিললী হাইকোর্টের এই আইন পরিবর্তন সংক্রান্ত যে রায়টি বহাল ছিল 2008 থেকে তা যথেষ্ট আইনী ভীতের ওপর দাঁড়িয়ে নেই - কিন্তু এ নিয়ে আলাপ আলোচনা চলতে পারে - আইন পরিবর্তন করতে হলে তা গণতান্ত্রিক দেশে জনমত তৈরীর মাধ্যমে আইনসভায় হওয়াটাই বাঞ্ছনীয়৷
প্রথমে আসা যাক সমকামিতার উৎস সংক্রান্ত প্রশ্নে৷ অনেকের ধারণা এটি জিনগত - যদিও তার সপক্ষে যথেষ্ট বৈজ্ঞানিক প্রমান এখনো অপ্রতুল৷ এখন কথা হল এটা জিনগত অথবা জন্মগত কোন শারিরীক অবস্থা যদি হয়ে থাকে তবে বাদবাকি প্রশ্নগুলি এমনিতেই অবান্তর হয়ে যায় - নৈতিকতা, ঔচিত্য, গ্রহনযোগ্যতা প্রভৃতির প্রশ্নই ওঠে না৷ কিন্তু যেহেতু এই জন্মগত ব্যপারটা প্রমানিত নয়, তাই এই সব প্রশ্নগুলি বারবার সামনে এসে পড়ে৷
অতএব প্রথমে ধরে নেওয়া যাক সমকামিতা কোন জন্মগত বা জিনগত অবস্থা নয়৷ তাহলে পড়ে থাকে নির্বাচনের প্রশ্ন - অর্থাৎ তথাকথিত নৈতিকতার প্রশ্ন৷ প্রশ্নটা হল যেহেতু অধিকাংশ পুরুষ বা নারী যৌনাচারের জন্য তার বিপরীত লিঙ্গের সঙ্গী বা সঙ্গিনী বেছে নেন, তবে কি এটাই প্রাকৃতিক নির্বাচন (Natural Selection)? কেউ যদি তা না করে নিজ লিঙ্গের মানুষের প্রতি আকর্ষণ বোধ করেন তা কি প্রকৃতির বিরুদ্ধতা? প্রায় সব ধর্মই এই অভ্যাসের বিরোধী - কিন্তু বিজ্ঞানও কি তাই? ডারউইনিজমের "টিকে থাকার যুদ্ধ" (Struggle for existence) এবং "যোগ্যতমের উদবর্তন" (Survival of the fittest) ও কি সমকামের বিরুদ্ধে কথা বলে? পাশাপাশি এটা কি তাহলে শুধুমাত্র কিছু অনৈতিক অভ্যাস বা উশৃঙ্খল জীবন যাপনের ফল - যা কিছু তথাকথিত "এলিটিস্ট" এর মদতে ফুলে ফেঁপে উঠেছে?
অর্থাৎ প্রশ্নটি দ্বিমুখী - বৈজ্ঞানিক এবং নৈতিক৷ প্রথমে বৈজ্ঞানিক দিকটি নিয়ে কথা বলব (এখানে মনে রাখা দরকার এটা বিজ্ঞানের সেমিনার নয় - আর আমরা সম্ভাবনার 50 শতাংশ - সমকামিতা জন্মগত, এই সম্ভাবনাটাকে আগেই সরিয়ে রেখে আলোচনায় ঢুকছি)৷ যৌন পক্ষপাত যদি নির্বাচিত বিষয় (Choice) হয়ে থাকে তবে প্রকৃতিতে সংখ্যাগুরু মানুষ / প্রাণী বিপরীত লিঙ্গের প্রতি পক্ষপাত পোষণ করে৷ কারণ সেই যৌনাচার তাকে বংশবিস্তারে সহায়তা করে এবং তদ্বারা তা টিকে থাকার যুদ্ধের হাতিয়ার হিসাবে ক্রিয়া করে৷ এই তত্ত্বের ওপর দাঁড়িয়ে সমকামী যৌনাচরণকে ডারউইনিজমের বিরোধী আখ্যা দেওয়া হয়৷ কিন্তু এখানে ভেবে দেখার বিষয়টি হল, বংশবৃদ্ধি টিকে থাকার যুদ্ধের অন্যতম হাতিয়ার হলেও একমাত্র পথ নয় কারণ টিকে থাকার যুদ্ধটি শুধুমাত্র বংশবিস্তারের ওপর নির্ভর করে না - আরও একাধিক জটিলতর বিষয় থেকে যায়৷ এই মুহুর্তে যেমন জাতি হিসাবে মানুষের টিকে থাকার যুদ্ধে সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ তার জনবিস্ফোরণ - বিপুল জনসংখ্যা যা প্রতিনিয়ত পৃথিবীর স্বাভাবিক বাস্তুতন্ত্রকে ধ্বংস করছে৷ অরণ্য কমছে, নদী-নালা দূষিত হচ্ছে, বাস্তুতন্ত্রের পক্ষে প্রয়োজনীয় বহু প্রজাতি ক্রমশঃ বিলুপ্ত হচ্ছে বা সেদিকে এগোচ্ছে৷ চাহিদা ও জোগানের বৈষম্য বাড়তে বাড়তে স্বাভাবিক সীমা ছাড়িয়ে গেছে অনেকদিন - WHO এর সমীক্ষানুযায়ী পৃথিবীর জনসংখ্যা এই মুহুর্তে তার স্বাভাবিক ধারণক্ষমতার থেকে প্রায় 7 গুণ বেশী - এবং এই বৃদ্ধির হারও ক্রমে বেড়েই চলেছে - এক্সপোনেনশিয়াল হারে৷ তাই টিকে থাকার যুদ্ধে বংশবিস্তারের বাইরেও কিছু জরুরী ক্ষেত্র থেকে যায়৷ সমকামিতা তাই হয়তো প্রকৃতির একটি স্বাভাবিক নির্বাচন (Natural Selection) - যাকে জোর করে আটকে রাখা হয়তো ডারউইনিজমের বিরুদ্ধেই যাচ্ছে শেষ পর্যন্ত৷ যদিও এটি কোন প্রমানিত বৈজ্ঞানিক তত্ত্ব নয় - যুক্তিনির্ভর অনুমান মাত্র৷ টিকে থাকার যুদ্ধে না জিতলে কিন্তু যোগ্যতমের উদবর্তন সম্ভব নয়৷
এবার নৈতিকতা এবং ঔচিত্যের প্রশ্ন৷ এখানেও শুরুতেই ধরে নিচ্ছি সমকানিতা জন্মগত বা জিনগত নয় - স্বনির্বাচিত যৌন পক্ষপাত - কারণ অন্যথায় এই আলোচনার কোন অর্থই নেই৷ এই পক্ষপাত নীতিসম্মত কি না তার উত্তর পেতে হলে প্রথমে নীতি (Principle) বিষয়টিকে সংজ্ঞায়িত করা প্রয়োজন৷ নীতি হল আমরা কোন বিষয়কে কিভাবে এপ্রোচ করব তার একটি ন্যুনতম কিন্তু পূর্বনির্ধারিত নির্দেশিকা৷ যেহেতু অতি বিশেষ পরিস্থিতি ছাড়া সেই নির্দেশিকা পূর্বনির্ধারিত হলেও পরিবর্তনশীল নয় তাই তার ন্যুনতম হওয়াটা জরুরী - অর্থাৎ নীতি হবে মেদহীন, সূক্ষ্ম, যুক্তিযুক্ত৷ নীতি মূলতঃ তিন রকমের হয়ে থাকে - ব্যক্তিগত, সামাজিক এবং রাষ্ট্রীয়৷ স্বাভাবিক সংজ্ঞানুযায়ী নীতি ব্যক্তিগত হওয়াই উচিৎ কারণ প্রতিটি মানুষ এক পৃথক ব্যক্তিসত্ত্বা তাই যে কোন বিষয়ে তার এপ্রোচও পৃথক হতেই পারে৷ তবু মানুষ যেহেতু বৃহত্তর সমাজেরও অঙ্গ, তাই সামাজিক স্বার্থেও কিছু নীতি মেনে চলতে হয়৷ এক্ষেতে নীতি প্রণয়নের সময় মাথায় রাখা হয় যে আমার ব্যক্তিগত নির্বাচন বৃহত্তর সমাজের কোন ক্ষতিসাধন করছে কি না - করলে তা সামাজিক নীতি হিসাবে বর্জনীয় হবে৷ উদাহরণ - প্রকাশ্য স্থানে মূত্রত্যাগ করা - আমি ব্যক্তিগতভাবে তাকে অনৈতিক না-ও ভাবতে পারি, কিন্তু যেহেতু আমি সেটা করলে তার ফলাফলটা অন্য পাঁচজনকেও প্রভাবিত করে, যারা সেটাকে অনৈতিক বা নিদেনপক্ষে অস্বাস্থ্যকর ভাবতেই পারেন, তাই সেটি সামাজিক নীতি হিসাবে বর্জনীয়৷ রাষ্ট্রীয় নীতিও অনেকটা একই ভাবে নির্ধারিত হয়ে থাকে (রাষ্ট্রীয় নীতি একটি বৃহত্তর আলোচনার ক্ষেত্র - তাকে এর মধ্যে আনা হল না মেদবৃদ্ধির ভয়ে)৷ সমস্যাটা হল এদের কারো সীমানা নির্দিষ্ট করা নেই - এবং নীতি যদিও প্রধানত এবং সংজ্ঞাগত ভাবে ব্যক্তিগতই হওয়া উচিৎ, কিন্তু যেহেতু কোন সাধারণ ব্যক্তির তুলনায় সমাজ এবং রাষ্ট্র অধিক ক্ষমতাশালী, তাই তাদের স্বাভাবিক প্রবণতাই হল ব্যক্তিগত নীতিকে প্রায় সমস্ত সম্ভাব্য ক্ষেত্রে গ্রাস করার৷ সমকামিতা প্রসঙ্গে সমাজ বা রাষ্ট্রের দৃষ্টিভঙ্গী বিচার করার সময়ে এই প্রবণতার কথা অবশ্যই মাথায় রাখতে হবে৷
ঠিক যে কারণ দেখিয়ে আমরা প্রকাশ্যে মূত্রত্যাগকে বর্জনীয় সামাজিক নীতি হিসাবে দেখিয়েছি, সমকামিতার বিরুদ্ধে সমাজ (এবং রাষ্ট্রও) সেই একই যুক্তি দেখিয়ে থাকেন - যে তা অন্যের ভাবাবেগকে আঘাত করে এবং সামাজিক দূষণ তৈরি করে৷ এখানে প্রশ্ন - দুটো কি চরিত্রগতভাবে এক? আমি রাস্তায় মূত্রত্যাগ করে চলে গেলেও আমার মূত্র এবং তার দুর্গন্ধ রাস্তাতেই থেকে যায় - বাহ্যিকভাবে, বস্তুগতভাবে (Physically) - তার ফলটাও থেকে যায়৷ অন্য কারো স্বীকার বা অস্বীকার করার ওপর তার অস্তিত্ব নির্ভর করে না, কারণ জীবানু ও দুর্গন্ধের অস্তিত্ব শুধুমাত্র মানসিক নয়৷ কিন্তু এমন কি প্রকাশ্য রাস্তায় যদি দুজন পুরুষ বা দুজন নারী বা দুজন উভলিঙ্গ পরস্পরকে চুম্বন করে চলে যায় (বা এমনকি যৌনক্রিয়া করে গেলেও) তা ভালো না খারপ, স্বস্তিকর না অস্বস্তিকর তা বিচার করবে কেবল আমার মন - ব্যক্তি মানুষের মন, কোন ব্স্তুগত প্রমাণ (Physical Evidence) নয়৷ এবং এহ বাহ্য, এক্ষেত্রে আমরা যে ধরে নিলাম এই যৌনক্রিয়াটি প্রকাশ্যে সঙ্ঘটিত হল, তা একটি অতি বিরল সম্ভাবনা৷ সমকামী মানুষ বিষমকামীদের মতই (বরং বাস্তবতার বিচারে আরো বেশী করেই) তাদের যৌনাচরণ নিভৃতে ব্যক্তিগত পরিসরে করাই পছন্দ করেন - তাই এর "সামাজিক অভিঘাত"টি মূলতঃ মানসিক - বস্তুতঃ তা সমাজ ও রাষ্ট্রের অতি-সক্রিয়তার একটি অভিজ্ঞান৷ সমকামিতা, বিষমকামিতার মতই একটি ব্যক্তিগত বিষয় যা সম্পূর্ণতঃ সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের নির্বাচন ও নৈতিকতার ওপর নির্ভরশীল, তাই নীতিগতভাবে এবং বৈজ্ঞানিকভাবে সমকামিতা কোনরকমেই সমাজ ও রাষ্ট্রের নিয়ন্ত্রণের বিষয় নয়৷


মন্তব্যের পাতাগুলিঃ [1] [2] [3] [4] [5] [6] [7] [8] [9]   এই পাতায় আছে 150 -- 169
Avatar: একক

Re: আকাশের অর্ধেক = অর্ধেক আকাশ

দ্রী
হাড় দিয়ে নাও হতে পারে বধায় । কারণ হাগু নিয়েও প্যালিয়েন্তলোজিস্ট রা প্রচুর কাজ করছেন ।হাড়ের চে বেশি তথ্য পাওয়া যায় ।স্যাম্পল বলতে শুকনো বিষ্ঠা হতে পারে ।
Avatar: একক

Re: আকাশের অর্ধেক = অর্ধেক আকাশ

*শুধুই হাড়
Avatar: pi

Re: আকাশের অর্ধেক = অর্ধেক আকাশ

এখানে পড়ছিলাম, বলেছে, সেক্সুয়াল সিলেকশনও কাজ করে থাকতে পারে।
As for the trend toward lighter colored hair and blue eyes, Thomas and his co-workers suggest that may be due to sexual attraction—what in evolutionary terms is called sexual selection. If so, then the originally rare males or females with light hair and blue eyes might have been attractive to the opposite sex and so had more offspring; this kind of sexual preference for individuals with unusual appearances has been confirmed in other animals, such as guppies.

Of course, in some of today’s cultures, a summer tan is also considered sexy, and here the study may provide some positive news: Modern variants of HERC2 can also make it easier to turn one’s skin golden brown in the sun.

এই পুরো লেখাটাই রইলো। বাকি থিয়োরিগুলো ও একসাথে বলেছে দেখলাম।
http://www.huffingtonpost.com/2014/03/11/europeans-light-skin-diet-sex
ual-attraction_n_4942061.html?ir=India


এখানে অবশ্য সেক্স্যুয়াল সিলেকশন কথাটা ব্যবহার করা ঠিক হল কিনা জানিনা। কারণ ইভোলিউশনের জন্য এই সাদা রঙের মেয়েরা বেশি ফিট , তাই তাদের প্রতুই আকর্ষণ বেশি , এরকম কিছু বলা হচ্ছেনা, সাদা রঙের প্রতি আকর্ষণ তৈরির একটা নির্মাণের কথা বলা হচ্ছে।
Avatar: দ্রি

Re: আকাশের অর্ধেক = অর্ধেক আকাশ

একটা জিন নয় এরকম কথা আপনি বলছেন, সোসেনও বলেছেন। অর্থাৎ সমস্ত হেভিওয়েট ইভলিউশানবিদরাই বলছেন। কিন্তু আবার ওদিকে বিজ্ঞানীরা বলছেন তাঁরা বুঝে গেছেন ৭০০০ বছর আগের একটি হাড় একজন কালো চামড়ার মানুষের। তাদের কিছু তো একটা মেথড ছিল। কী সেই মেথড? একটা জিন? দুটো জিন? দশটা জিন? দশ হাজারটা জিন? সামথিং তো আছে।

বিষ্ঠা! ৭০০০ বছরের পুরোনো বিষ্ঠা! বিষ্ঠা বায়োডিগ্রেডেব্‌ল না? মে বি পাথরের মাঝে ট্র্যাপ্‌ড হয়ে যাওয়া এক জুরাসিক বিষ্ঠা? হবেও বা। বিষ্ঠা দেখে কি বোঝা যায় সেটা মানুষের না গ্যাজেলের?
Avatar: pi

Re: আকাশের অর্ধেক = অর্ধেক আকাশ

মানে, ঐ পেল ভার্শন ওয়ালা জিন ই যে সব সাদার মধ্যেই পাওয়া গেছে, এমন নয়।
Avatar: একক

Re: আকাশের অর্ধেক = অর্ধেক আকাশ

পাই
ফস্সা মেয়ের এই থিওরি তো সাংঘাতিক ।এইভাবে যদি সেক্সুয়াল সিলেকশন প্রভাব ফেলে তাহলে মেয়েরা কেন গড়পরতায় ছেলেদের চেয়ে বেঁটে সেটাও একই গ্রাউন্ডে প্রমানিত হবে । ছেলেরা সবাই খুঁজে খুঁজে এটলিস্ট একটু বেঁটে মেয়ে বিয়ে করে । এই ক্রমাগত সিলেক্টিভ ব্রিডিং চলতে চলতে মেয়েরা বেঁটে হয়েই চলেছে :( কেমন থিওরি ?
সমস্যা এই যে এক্ষেত্রে ছেলেরাও খানিক বেঁটে হবার কথা কিন্তু ডেটা বলছে আধুনিক মানুষ গড়পরতায় আগের মানুষের তুলনায় লম্বা ।যদিও সুষম পুষ্টি জনিত লম্বা স্যাম্পল এর বৃদ্ধি আর বেঁটে -সঙ্গিনী নির্বাচন জনিত বেঁটে হওন -এর আলাদা আলাদা করে এক্সিস এ ভেঙ্গে হিসেব করা চাপ । আছে এমন কোনো পেপার ?
Avatar: দ্রি

Re: আকাশের অর্ধেক = অর্ধেক আকাশ

কিন্তু শুধু সেক্সুয়াল সিলেকশানের জন্য হলে বোধহয় পৃথিবীর সব জায়গাতেই ফেয়ার হওয়া উচিত ছিল?
Avatar: Atoz

Re: আকাশের অর্ধেক = অর্ধেক আকাশ

আর ঐ ল্যাক্টোজ টলারেন্সের জিন? ওটা কি বেশ কয়েকটা জিন? ওটা তো মোটামুটি গোটা পৃথিবীতেই দেখা যাচ্ছে, ওটা সিলেক্টেড হলো কীভাবে? সেক্সুয়াল প্রেফারেন্স বা অন্য কোনো উপায়ে?
Avatar: দ্রি

Re: আকাশের অর্ধেক = অর্ধেক আকাশ

যাই হোক। এইসব হল 'হয়ত'। এই হয়ত ফয়তর চেয়ে বেশী ইন্টারেস্টিং হল হাতের পাঁচ। আমার হাতে একটা ৭০০০ বছরের পুরোনো হাড় আছে।

কি উপায়ে আমি কনক্লুড করতে পারি, উইথ কনফিডেন্স, যে ঐ হাড়টি একজন কালো চামড়া নীল চোখো মানুষের? এই মেথডলজিটা ইম্পর্ট্যন্ট।
Avatar: S

Re: আকাশের অর্ধেক = অর্ধেক আকাশ

দুধের প্রোটিনের জন্যে ল্যাকটোস ইনটলারেন্স হয় না। কারোর যদি ল্যাকটেস নামক এনজাইমের ঘাটতি থাকে তাহলে দুধের ল্যাকটোস হজম হয় না। ল্যাকটোস হচ্ছে একরম সুগার, যা কিনা ডাইজেস্ট হয়ে গ্লুকোস আর গ্যালাকটোস তৈরি হয়। আর ল্যাকটেসের রাসায়নিক গঠন 'ওভার দি পিরিয়ড' পাল্টায়নি মানে ঠিক বোঝা গেল না। মানে কি বলতে চাইছেন দশ হাজার বছর আগে মানুষের ল্যাকটোসের অ্যামাইনো অ্যাসিডের সিকোয়েন্স এখনকার সিকোয়েন্সের সাথে মেলে কিনা? এর উত্তর হয়ত হবে হ্যাঁ।
আর অ্যালার্জি হচ্ছে আপনার ইমিউন সিস্টেম ইস অন heywire।
Avatar: pi

Re: আকাশের অর্ধেক = অর্ধেক আকাশ

শুধু তো বলেনি। ঐ ভিটামিন ডি সংক্রান্ত চাপ ছিল। তার সাথে ।
তবে আমি এই নিয়ে আর ঘাঁটাঘাটি করিনি।
হাফিংটন পোস্ট ঐ লেখাটা সায়েন্স থেকে নিয়েছিল দেখলাম।
http://news.sciencemag.org/archaeology/2014/03/new-diet-sexual-attract
ion-may-have-spurred-europeans-lighter-skin

এই থমাসদের পেপার দেখিনি।
Avatar: pi

Re: আকাশের অর্ধেক = অর্ধেক আকাশ

একক , তোর থিয়োরিতে কেবল মেয়েরাই কেন বেঁটে হবে ? মানে, বেঁটে জিনটা মেয়ে স্পেসিফিক না হলে।
যাগ্গে, এই থিয়োরির অনেক গড়বড় বেরোবে। এরকমও পড়লাম, তাই জানালাম।

দ্রি, এখানটা দেখুন।
The researchers were able to sequence three pigmentation-related genes from 48 of the skeletons, dated between 6500 and 4000 years old: the gene TYR, which is involved in the synthesis of melanin; SLC45A2, which helps control the distribution of pigment-producing enzymes in skin cells; and HERC2, the primary gene that determines whether the iris of the eye is brown or blue. These three genes, like all pigmentation genes, come in numerous variants that lead to different shades of skin, hair, and eye color.

By comparing the variants of these genes in the ancient skeletons with those in 60 modern-day Ukrainians, as well as a larger sample of 246 modern genomes from the surrounding region, the team found that the frequency of variants related to lighter skin and hair, as well as blue eyes, increased significantly between the ancient and modern populations. For example, modern Ukrainians on average have more than eight times as many variants of TYR related to light skin, and four times as many variants related to blue eyes, as the ancient Ukrainians, the team reports online today in the Proceedings of the National Academy of Sciences. African populations, on the other hand, have none of these lighter variants.

Thus, while the prehistoric Ukrainians had apparently evolved relatively lighter skin and hair, and a higher frequency of blue eyes, in the time since their ancestors had left Africa, the data suggested that they were not done evolving. To further test this conclusion, the team performed computer simulations designed to distinguish between natural selection and “genetic drift,” a change in the frequency of genetic variants due just to chance. These tests—which take into account ancient population sizes and the rate at which genetic alterations occur, and can determine whether genetic drift alone can account for the speed of evolutionary changes—showed that the pigmentation genes were still undergoing strong natural selection after 5000 years ago; indeed, the selection pressure was as great as that for other genes known to be very strongly selected in humans, such as those involved in the ability to digest lactose and protection against malaria.

“The signs of selection are indeed persuasive,” Rocha says. By using ancient DNA, he says, the team was able to “provide direct evidence” that “strong positive selection was the likely driver” of the changes in pigmentation profiles.
Avatar: একক

Re: আকাশের অর্ধেক = অর্ধেক আকাশ

"মানে কি বলতে চাইছেন দশ হাজার বছর আগে মানুষের ল্যাকটোসের অ্যামাইনো অ্যাসিডের সিকোয়েন্স এখনকার সিকোয়েন্সের সাথে মেলে কিনা? "

হ্যা ,মানে ল্যাকটস হজম করার জন্যে ল্যাক্তেস । তাই তো ? এবার প্রশ্ন হলো ল্যাক্তেস এর গঠন ওভার দ্য পিরিয়ড পাল্টেছে কিনা আর ল্যাকটস এর গঠন ও ওভার দ্য পিরিয়ড পাল্টেছে কিনা ।


Avatar: একক

Re: আকাশের অর্ধেক = অর্ধেক আকাশ

পাই
এট টাইম টি-ওয়ান ম্যামাল দের মধ্যে ফিমেল দের সাইজ মেল এর তুলনায় ছোটো ধরে নিয়ে শুরু করে এবার ডিফারেন্স টা আরও বেড়েছে কিনা জিগ্যেস করছি ।
Avatar: দ্রি

Re: আকাশের অর্ধেক = অর্ধেক আকাশ

এইত্তো। এইটাই চাইছিলাম। এটা একটু পড়ি, ভাবি।

কিন্তু দেখুন, জাস্ট তিনতে জিন দেখেই এরা কনক্লুড করল তাহলে।
Avatar: S

Re: আকাশের অর্ধেক = অর্ধেক আকাশ

ল্যাকটোসের গঠন পাল্টায় নি। কেমিক্যাল ওরকম পাল্টে যায় না। ল্যাকটেসের সিকোয়েন্স বা স্ট্রাকচার পাল্টেছে কিনা বলা মুশকিল। মানে নিয়ানডার্থাল বা হোমো ইরেকটাসের ল্যাকটেসের গঠন কেমন ছিল এখন বলা যাবে না। ফসিল ইত্যাদি অ্যানালিসিস করে ডিএনএ সিকোয়্ন্স জানা যেতে পারে কিন্তু প্রোটিন ইস আ ডিফারেন্ট বল গেম। যেটা করা যেতে পারে সেটা হল অন্যান্য ম্যামালদের, যেমন ইঁদুর, র‌্যাবিট, চিম্প ইত্যাদির ল্যাকটেস অ্যানালিসিস করে তার সব সিকোয়েন্স মানুষের সাথে তুলনা করা যেতে পারে। তবে মনে হয় ল্যাকটেসের মতন একটা গুরুত্বপূর্ণ এনজাইমের (বিশেষ করে ইনফ্যান্টদের জন্যে) হোমোলজি বেশ হাই হবে, ডিফারেন্ট ম্যামালদের মধ্যে।
কোনো একটা প্রোটিন ডেটাবেস থেকে সিকোয়েন্স নিয়ে হোমোলজি বের করা যায়, কিন্তু এখন সময় নেই। কারোর সময় থাকলে করে দেখতে পারেন।
Avatar: S

Re: আকাশের অর্ধেক = অর্ধেক আকাশ

সেকি? আমি এতো ভালো কেমিস্ট্রি আর বায়োলজি জানলাম কবে থেকে?
Avatar: দ্রি

Re: আকাশের অর্ধেক = অর্ধেক আকাশ

These three genes, like all pigmentation genes, come in numerous variants that lead to different shades of skin, hair, and eye color.

এই জায়গাটা আমার ক্লাস নাইনের সিলেবাসের বাইরে হয়ে গেল। আমার গেঁয়ো নোশান ছিল, একটা জিনের দুটো অ্যালিল হবে। একটা সাদা, একটা কালো। বাইনারী। একটা ডমিন্যান্ট, একটা রিসেসিভ। বাকি ক্যালকুলেশান এই ধারনার ভিত্তিতে। কিন্তু একটা জিনের নিউমেরাস ভেরিয়েন্ট এসে যাওয়ায় সব গোলমাল হয়ে গেল। পন্ডিতেরা এটা নিয়ে একটু আলোচনা করতে পারেন, গল্পচ্ছলে।
Avatar: PT

Re: আকাশের অর্ধেক = অর্ধেক আকাশ

"Some population segments exhibit lactase persistence resulting from a mutation that is postulated to have occurred 5,000-10,000 years ago, coinciding with the rise of cattle domestication. This mutation has allowed almost half of the world’s population to metabolize lactose without symptoms."
Avatar: avi

Re: আকাশের অর্ধেক = অর্ধেক আকাশ

পড়লাম। বেশ ভালো আলোচনা ছিল এটা।

মন্তব্যের পাতাগুলিঃ [1] [2] [3] [4] [5] [6] [7] [8] [9]   এই পাতায় আছে 150 -- 169


আপনার মতামত দেবার জন্য নিচের যেকোনো একটি লিংকে ক্লিক করুন