বইমেলা হোক বা নাহোক চটপট নামিয়ে নিন রঙচঙে হাতে গরম গুরুর গাইড ।

এই সুতোর পাতাগুলি [1]     এই পাতায় আছে1--1


           বিষয় : স্মার্ট এবং আনস্মার্ট
          বিভাগ : অন্যান্য
          শুরু করেছেন :মঞ্জিস রায়
          IP Address : 237812.68.674512.241 (*)          Date:29 Jul 2019 -- 08:31 PM




Name:  মঞ্জিস রায়           

IP Address : 237812.68.674512.241 (*)          Date:29 Jul 2019 -- 08:33 PM

স্মার্ট এবং আনস্মার্ট

মঞ্জিস রায়

সেদিন অর্কদের বাড়িতে অমলজেঠু এসেছিলেন l শহরের এক নামকরা কলেজের অঙ্কের অধ্যাপক l অর্ক ওনাকে খুব শ্রদ্ধা করে l একথা সেকথার পর উনি অর্ককে বললেন, হ্যাঁরে, শেষ কবে বৃষ্টি দেখে কবিতা আউরেছিলি ? এখন কি আর রোদ্দুর হতে চাস না গাছের পাতায় ? ফেসবুকের স্ক্রিনে চোখ রেখে তুই কি পড়শির মুখের আদলও ভুলে গেছিস ? অর্ক চুপ করেই ছিল l এরপর উনি আবার বললেন , শোন অর্ক, আমি একটা মানসিক স্বাস্থ্য সংগঠনের সঙ্গে যুক্ত, সেখানে তোর জেনারেশনের ছেলেমেয়েদের সমস্যা নিয়ে অনেক আলোচনা হয় l তার মধ্যে একটা বিষয় হল এখনকার প্রজন্মের ওপর social media র প্রভাব l জানিস কি, কি সব ভয়াবহ অভিজ্ঞতার মুখোমুখি হন ডাক্তারবাবুরা l ওনাদের থেকে একটা মেয়ের কথা জানলাম - এই তোদের চেয়ে কিছুটা ছোট হবে l সে ফেসবুকে তার বন্ধুদের মত লাইক আর কমেন্ট পায় না বলে চূড়ান্ত অবসাদের শিকার l অথচ দেখ, আমরা এসব না ব্যবহার করে কখনও কোনও কিছুর অভাব বোধ করিনি রে l
অর্ক এখন একটি প্রতিষ্ঠিত ইউনিভার্সিটির তুলনামূলক সাহিত্যের ছাত্র l ও খুব প্রতিভাবান এবং মেধাবী l ও ফেসবুকে নিজের কবিতা ও বিভিন্ন বিষয় নিয়ে লেখা ও ছবি পোস্ট করে l লাইক ও পায় l কিন্তু অমলজেঠুর কথাগুলো ওকে ভাবিয়েছে l ও বলল , কিন্তু জেঠু, ফেসবুক তো ভালোভাবেও ব্যবহার করা যায় l তখন জেঠু বলল, নিশ্চয়ই যায় বাবা l কিন্তু তরুণ প্রজন্ম অনেকসময়ই সাতপাঁচ ভেবে সবকিছু করে না l এই যে সবাই সেলফি তোলে আজকাল, সেটা দিয়ে তো তারা নিজেদেরই বিজ্ঞাপন করে l এই " আমাকে দেখো" মনোভাব
একটা চূড়ান্ত পর্যায়ে পৌঁছেছে l নদী বা সমুদ্রের সামনেও নিজের ছবি দিতেই হবে l এদের আত্মপ্রেম এতটাই প্রবল যে এরা মনে করে আমার তুলনা আমিই, বাকি সব ফ্যাকাসে l তখন অর্ক মুচকি হেসে বলল, " তাহলে বলতে হয় সেলফিস সেলফি l জেঠু বলল, অথচ ফেসবুক অনেকের কাছেই আশার আলো l যে ছেলেমেয়েদের বন্ধু নেই, তারা ফেসবুকে কিছুটা হলেও বন্ধুত্বের স্বাদ পায় l নিজের মনের কথা বলতে পারে l


অর্ক বলল , জেঠু আমার এক সহপাঠী আছে সোমক l সে কিন্তু আনন্দ খুজে নেয় বাড়ির ছাদে, গাছের ছায়ায়, পাখির ডাকে l ও সাইকেলে করে স্টেশনের রাস্তায় ঘুরে বেড়ায় বিকেলের হালকা হাওয়ায় lএক দৃষ্টে তাকিয়ে থাকে কদম গাছটার দিকে l social media র কৃত্ৰিম জগৎটা বড্ড একঘেয়ে ওর কাছে l ওর বন্ধুরা যখন ফেসবুক, হোয়াটস্যাপ নিয়ে ব্যস্ত, তখন ও অনেকটা একা হয়ে যায় l অনেকেই ওকে '' বুড়োটে'', আনস্মার্ট" বলে অপাংক্তেয় করে রাখে l
যখন আজকাল সেলফি আর ইনস্টাগ্রামের রমরমা দেখি, সোমকের কথাই ভাবি l কি অসম্ভব মনের জোর l ও social media র হাতছানি অনায়াসে উপেক্ষা করে l আমিও কখনও কখনও ভাবি এই অবাস্তব বন্ধুত্বের দুনিয়ায় তো স্পর্শ গন্ধ নেই l অনেক নকল আবেগ থাকে l
জেঠু বললেন, 'তোর বন্ধু তাহলে আমারই মত আনস্মার্ট l স্মার্টফোনের ব্যবহারই জানে না ! দুজনেই হাসল l

বিকেল ফুরিয়ে আসছে l সন্ধে নামছে গাছের পাতায় l অর্ক কবিতা বলছে -

হাতছানি দিয়ে ডাকে না আর
সেই এক্কাদোক্কা মাঠ - বিকেল

তোমার স্বপ্নহীন চোখে শুধুই
ছায়া ফেলে রঙিন পর্দা
চুম্বকের মত টেনে নেয়
সৃষ্টিহীন চক্রব্যূহের দিকে l

জেঠু শুনছেন l আলো জ্বালানো হয়নি l স্ট্রিট লাইটের আলো এসে পড়েছে জেঠুর চশমায় l

এই সুতোর পাতাগুলি [1]     এই পাতায় আছে1--1