বইমেলা হোক বা নাহোক চটপট নামিয়ে নিন রঙচঙে হাতে গরম গুরুর গাইড ।

এই সুতোর পাতাগুলি [1]     এই পাতায় আছে1--26


           বিষয় : ২০০৯-২০১৯, দশ বছরে যাদবপুরের পরিবর্তন ও রাজ্যের ছেলেমেয়েদের ভবিষ্যত
          বিভাগ : অন্যান্য
          শুরু করেছেন :কৌশিক মাইতি
          IP Address : 90090012.65.12.29 (*)          Date:18 Jan 2019 -- 10:35 AM




Name:  কৌশিক মাইতি          

IP Address : 90090012.65.12.29 (*)          Date:18 Jan 2019 -- 10:36 AM

***-২০০৯-২০১৯, দশ বছরে যাদবপুরের পরিবর্তন ও রাজ্যের ছেলেমেয়েদের ভবিষ্যত***

ঠিক দশটা বছর আগে(২০০৯) ভর্তি হয়েছিলাম যাদবপুরে, হোস্টেলে থাকতাম। ইঞ্জিনিয়ারিং-এর প্রতিটা বিভাগই জেলার ছেলেমেয়েতে ভর্তি ছিল। এমনিই ইঞ্জিনিয়ারিং এ মেয়ের সংখ্যা খুব কম। জেলার বিখ্যাত কিছু স্কুল ছিল যেমন বাঁকুড়া জেলা স্কুল, জলপাইগুড়ি জেলা স্কুল, কয়েকটা রামকৃষ্ণ মিশন, আরামবাগ হাইস্কুল, কৃষ্ণনগর কলেজিয়েট স্কুল, বর্ধমান সিএমএস স্কুল ইত্যাদি- এই সব স্কুল থেকে অনেক ছেলে চান্স পেত যাদবপুরে। তারা তো সিবিএসই র ছেলেমেয়েদের সাথে প্রতিযোগিতা করেই চান্স পেতো মেধার জোরেই।

যাদবপুরে ভর্তিতে ডোমিসাইল নীতি ছিল। সেটা উঠে গেল। গ্রাম-বাংলার মানে জেলার ছেলেমেয়েদের, গরীব ছেলেমেয়েদের পিছিয়ে দেওয়া হচ্ছে নানা ভাবে। ডোমিসাইল একটা গুরুত্বপূর্ণ ট্যুল। যাদবপুরে ডোমিসাইল নীতি উঠে যাওয়ায়, আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ে বাইরের রাজ্যের ছেলেমেয়ে হু হু করে ঢুকছে। মানে রাজ্য সরকারি কলেজে ভর্তি হতে আসলে উত্তর ভারতের ছেলেমেয়েদের সাথেও প্রতিযোগিতায় যেতে হচ্ছে। এটা অন্যায্য। এটা অনৈতিক। অন্যান্য রাজ্যে তো এসব হয় না। রাজ্য সরকারি কলেজ আর কেন্দ্র সরকারি কলেজের মধ্যে পার্থক্য কি? রাজ্যের কলেজে রাজ্যের ছেলেমেয়েরা অগ্রাধিকার পাবে এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু রাজ্যের ছেলেমেয়েদের সে অধিকার কেড়ে নেওয়া হল অনৈতিক ভাবে।

এর ফলে যা হওয়ার তাই হয়েছে। আজ সালটা ২০১৯ যাদবপুরের ইঞ্জিনিয়ারিং বহিরাগত ছাত্র-ছাত্রীতে ভরে গেছে। রিজারর্ভড সীটে শুধুমাত্র রাজ্যের ছেলেমেয়েরা সুযোগ পায়, এটাই নিয়ম। কিন্তু জেনেরাল ক্যাটেগোরিতে রাজ্যের ছেলেমেয়ের সংখ্যা তলানীতে। আর গ্রাম-বাংলা, মফঃস্বল বা জেলা সদরের বড় স্কুল গুলো থেকেও আর যাদবপুরে চান্স পাচ্ছে না। এভাবেই ভ্রান্ত ডোমিসাইল নীতির কারণে গ্রাম-বাংলা তথা রাজ্যের ছেলেমেয়েদের পিছিয়ে দেওয়া হচ্ছে। পিছিয়ে দেওয়া হচ্ছে রাজ্য বোর্ডকে।

শিবপুর বি ই কলেজ কেন্দ্রীয় কলেজ হয়ে গিয়ে এমনিই রাজ্যের কোটা কমে গেছে। বাংলার ছেলেমেয়েদের ক্ষতি হয়েছে বিস্তর, একটা বড় সরকারি ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজে পড়ার সুযোগ হারিয়েছে।

তাই রাজ্যের ছেলেমেয়েদের স্বার্থ সুরক্ষিত করতে যাদবপুর সহ সব সরকারি কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তিতে সঠিক ডোমিসাইল নীতি চাই
এটা সময়ের দাবি।


Name:  spa          

IP Address : 1267.95.784512.180 (*)          Date:18 Jan 2019 -- 06:48 PM

ছাত্র ইউনিওন কেন কিছু বলে না, সেই ব্যাপারে কিছু জানা আছে?


Name:  কৌশিক মাইতি          

IP Address : 127812.51.9004512.174 (*)          Date:18 Jan 2019 -- 09:54 PM

ছাত্র সংগঠন গুলির মধ্যে পিডিএসএফ ডোমিসাইলের পক্ষ বলেছে। বাকি কেউ পাশে দাঁড়ায়নি। কেউই আন্দোলন করছে না কেন কেউ জানে না।

আশা রাখছি আগামী দিনে সব ছাত্র সংগঠনই ডোমিসাইলের পক্ষে দাঁড়াবে। না দাঁড়ানো মানে বাংলার ছেলেমেয়েদের সাথে শত্রুতা করা।


Name:  Spa          

IP Address : 238912.66.6712.91 (*)          Date:18 Jan 2019 -- 10:21 PM

যাদবপুরে মনে হয় এখনও 200 টাকা মাসে দিয়ে ইঞ্জিনিয়ারিং পড়া যায়। প ব সরকারের দেওয়া ভর্তুকি তে চলা উনিভার্সিটিতে বাইরের রাজ্য থেকে এসে 200 টাকায় ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ে চলে যাবে, এতে কতটা যুক্তি আছে, কে জানে।
আমার মনে হয় এটা দিদি এখনো টের পায় নি।


Name:  AS          

IP Address : 340112.227.89900.227 (*)          Date:18 Jan 2019 -- 11:12 PM

এর থেকে কি বোঝা যাচ্ছেনা যে অন্য রাজ্যের ছাত্ররা আমাদের ছাত্রদের থেকে পড়াশুনায় ভাল? আমরা সোজাসুজি প্রতিযোগিতায় ওদের সঙ্গে পারবোনা? তাই ডোমিসাইলের সুরক্ষা কবচ চাই আমাদের?


Name:  কৈশিক মাইতি          

IP Address : 342323.233.7856.157 (*)          Date:19 Jan 2019 -- 01:58 AM

রাজ্য সরকারি কলেজে কাউকে বাইরের ছেলের সাথে প্রতিযোগিতায় যেতে হয়না। বাংলা ছাড়া।

আর রাজ্য সরকারি কলেজ ও কেন্দ্র সরকারি কলেজের তফাৎ আছে। সেটা বুঝলে এই প্রশ্ন আসতো না।


Name:  AS          

IP Address : 340112.227.89900.227 (*)          Date:19 Jan 2019 -- 09:06 AM

তাহলে তো পরিষ্কার বোঝা যাচ্ছে যে -
১. অন্য রাজ্যের সরকারী কলেজে তাদের রাজ্যের ছাত্ররা সহজে সুযোগ পাচ্ছে।
২. তার নীচের স্তরের ছাত্ররা রাজ্যে সুযোগ না পেয়ে বাইরে মানে পব তে এসে এখানের প্রথম স্তরের ছাত্রদের হারিয়ে বেশিরভাগ সীট দখল করছে।
৩. তাহলে যা দাঁড়াচ্ছে তা হল, বাইরের রাজ্যে ডোমিসাইল নীতি তুলে দিলেও পব’র ছাত্ররা, যারা ওদের না পাওয়া ছাত্রদের থেকেও পড়াশুনায় দুর্বল, কোনমতেই কিছু পাবেনা।
৪. আমাদের নিজেদের ভিত শক্ত না করে অন্যকে দোষ দিয়ে লাভ নেই।


Name:  Ishan          

IP Address : 89900.222.34900.92 (*)          Date:19 Jan 2019 -- 11:20 AM

এটা কী করে বোঝা গেল? মানে অন্য রাজ্যের সরকারি কলেজের চেয়ে যাদবপুরের প্রেফারেন্স সেই রাজ্যের ছেলেপুলের কাছে বেশি নয় এটা কী করে জানা গেল।


Name:  a          

IP Address : 340123.63.8956.69 (*)          Date:19 Jan 2019 -- 11:24 AM

আমার মনে হয় ধরে নেওয়া হয়েছে রাজ্যের কলেজে পেলে আর বাইরে আসবে কেন। Kইন্তু এর বিরোধী কি কোন তথ্য আছে? মানে যাদবপুর অন্য রাজ্যের তুলনায়্ব্বেশি প্রেফারেবল?


Name:  Ishan          

IP Address : 89900.222.34900.92 (*)          Date:19 Jan 2019 -- 11:34 AM

তথ্য নেই। তবে লজিকালি তাই হওয়া উচিত। সেন্টার অফ এক্সেলেন্স হিসেবে নটা না কটা ইউনিভার্সিটি বেছেছে। তার মধ্যে যাদবপুর একটা।

এছাড়া শিবপুরেও শুনি প্রচুর বহিরাগত এবং এবিভিপি/বিজেপির রমরমা। সেটা এখন সেন্ট্রাল ইউনিভার্সিটি। কো-রিলেশন/কজেশন জানা নেই। কারণ ভর্তির প্রসিডিওরটাই জানিনা ঠিকঠাক।


Name:  sswarnendu          

IP Address : 2367.202.128912.199 (*)          Date:19 Jan 2019 -- 02:32 PM

আর প্রেফারেন্সের কারণ শুধুই অ্যাকাডেমিক উৎকর্ষই নয়, যাদবপুরের খরচা কম ( understatement of year এর দৌড়ে থাকবে বাক্যটা
:) ).


Name:  S          

IP Address : 458912.167.34.76 (*)          Date:19 Jan 2019 -- 04:39 PM

সেকি এই ব্যাপারটা তো জানতাম না। একটা রাজ্য সরকার পরিচালিত বিশ্ববিদ্যালয়ে সেই রাজ্যের ছেলেপিলেদের অধিকার সবার আগে। ডোমিসাইল নীতির তো একটা ভিত্তি আছে। সেইটাই তো এতোকাল ছিলো। এখন হঠাত সেই নীতির থেকে পিছিয়ে আসার কারণও বা কি? আর অন্য রাজ্যের ছেলেপিলেরা পড়লে ফুল টিউশান (নো ভর্তুকি) দিয়ে পড়ুক। কি যে হচ্ছে, কিছুই বুঝিনা। আর এইসব ব্যাপার স্যাপার সব চুপিসাড়ে হয়ে যায়। অ্যালামনিদের তো কোনোকালেই যদুপুর কোনো প্রয়োজনেই ডাকেনা, সে আর কি বলবো।


Name:  lcm          

IP Address : 900900.0.0189.158 (*)          Date:19 Jan 2019 -- 05:08 PM

যাদবপুরে ইঞ্জিনিয়ারিং-এ অ্যাডমিশন ক্রাইটেরিয়া তো পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য লেভেলে WBJEE পরীক্ষায় বসে ভাল র‌্যাংক করা। ভারতের যে কোনো রাজ্যের ছাত্র এই পরীক্ষায় বসতে পারে। ভাল র‌্যাংক করলে ঢুকতেই পারে।

একই কথা অন্য রাজ্যের ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজের ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য।

পশ্চিমবঙ্গের কেউ ইচ্ছে করলে ওড়িশা JEE তে পরীক্ষা দিয়ে কেওনঝড়ে ওড়িশা গভর্নমেন্ট ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজে যেতেই পারে। বা, অন্য কোনো রাজ্যের পাবলিক ইউনিভার্সিটিতে। যায়ও অনেকে।

তফাৎ হল, কেওনঝড়ে ওড়িশা সরকারী ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজে টিউশন ফি গড়ে বছরে ৩৫,০০০ টাকা করে। যাদবপুরে বছরে ৪০০০ টাকা। পড়াশোনার মান যাদবপুরে খারাপ নয়।

শস্তা, তাই অন্য রাজ্যের স্টুডেন্টরা যাদবপুরে আসে।

এখন প্রশ্ন হল যাদব্পুরে কি পশ্চিমবঙ্গ সরকারের ফান্ড থেকে টাকা যায়? যদি যায় তাহলে সেটি পশ্চিমবঙ্গ বাসীদের ট্যাক্সের থেকে আসা টাকা। সেক্ষেত্রে, পশ্চিমবঙ্গের ইন-স্টেট অ্যাপ্লিক্যান্ট-দের কোটা থাকা উচিত। কিন্তু তেমন কোনো আইন বোধহয় নেই।


Name:  S          

IP Address : 458912.167.34.76 (*)          Date:19 Jan 2019 -- 05:26 PM

এইযে ওড়িশা JEE তে কি লেখা আছেঃ

Candidates belonging to ‘S category’ will be eligible for admission on the basis of their rank in the merit list to the Government & Private colleges and for the category of lateral entry (LE). Outside state candidates (ZZ) will be considered only for admission into Private colleges.

https://odishajee.com/important_doc/Information-Brochure-OJEE_GENERAL-
INSTRUCTIONS.pdf

১০ নম্বর পাতা।


Name:  S          

IP Address : 458912.167.34.76 (*)          Date:19 Jan 2019 -- 05:28 PM

যদুপুর রাজ্য সরকারের টাকায় চলে।


Name:  lcm          

IP Address : 900900.0.0189.158 (*)          Date:19 Jan 2019 -- 05:47 PM

সেকি! আমাদের চেনা একজন তো দিব্যি ওড়িশা জয়েন্ট দিয়ে কেওনঝড়ে পড়তে গেল, পাশও করে গেছে বোধহয়। ওর দুজন বন্ধু তো পাঞ্জাবে গভর্নমেন্ট কলেজে গেল।


Name:  S          

IP Address : 458912.167.34.76 (*)          Date:19 Jan 2019 -- 05:50 PM

সেইসব বন্ধুদের গ্রীন কার্ড আছে কি?


Name:  lcm          

IP Address : 900900.0.0189.158 (*)          Date:19 Jan 2019 -- 05:53 PM

না, না, পশ্চিমবঙ্গের - চেতলার ছেলে। আমেরিকার সঙ্গে কিস্যু নাই।

কেওনঝড়ের ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজের অফিসিয়াল ওয়েব সাইটে কিন্তু লেখা রয়েছে -

Admission criteria to Under-graduate- Engineering Programs are made through JEE-Main only and Lateral Entry through O-JEE.

http://www.gcekjr.ac.in/admission/ug-admission/



Name:  lcm          

IP Address : 900900.0.0189.158 (*)          Date:19 Jan 2019 -- 05:55 PM

ও তো বলেছিল, আজকাল নাকি গাদা গাদা ছেলেমেয়েরা অন্য রাজ্যের সরকারি এবং বেসরকারি কলেজে পড়তে যায়।


Name:  S          

IP Address : 458912.167.34.76 (*)          Date:19 Jan 2019 -- 06:01 PM

হ্যাঁ। ঐ ক্রাইটেরিয়াটাই তো দিলাম।


Name:  lcm          

IP Address : 900900.0.0189.158 (*)          Date:19 Jan 2019 -- 06:10 PM

কিসের ক্রাইটেরিয়া - বুঝলাম না। এক রাজ্যের ছেলেমেয়েরা অন্য রাজ্যের সরকারি কলেজে অ্যাডমিশন পায়, না পায় না? পেলে কি নিয়ম আলাদা কিছু? টিউশন ফি কি আলাদা কিছু?


Name:  lcm          

IP Address : 900900.0.0189.158 (*)          Date:19 Jan 2019 -- 06:12 PM

Main JEE টা কি? এটা কি সেন্ট্রাল কোনো পরীক্ষা? এটা দিলে কি পাওয়া যায়?


Name:  S          

IP Address : 458912.167.34.76 (*)          Date:19 Jan 2019 -- 06:33 PM

Outside state candidates (ZZ) will be considered only for admission into Private colleges.
এইটা ঐ ক্রাইটিরিয়া ডকুতে বহু জায়্গায় লেখা আছে।

মেইন-JEE দিয়ে iit, iiit, nit, central government funded enginneering college এ অ্যাডমিশান পাওয়া যায়। যেমন শিবপুর। এছাড়া বোধয় কিছু সেল্ফ সাসটেইনিঙ্গ ইনস্টিটিউটও কিছু ছেলেপিলে এই পরীক্ষা থেকে নেই। কেওনঝার সেই লিস্টে হতে পারে।


Name:  lcm          

IP Address : 900900.0.0189.158 (*)          Date:19 Jan 2019 -- 07:11 PM

হ্যাঁ, কিন্তু ঐ ক্লজটা লেখা আছে শুধু S-ক্যাটাগরির কলেজের জন্য


Name:  spa          

IP Address : 238912.66.8912.91 (*)          Date:19 Jan 2019 -- 08:10 PM

MHRD 3 বছর হলো national institutional ranking framework বার করছে। 2018 এর ranking এ ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ গুলোর মধ্যে যাদবপুর আছে 12 নম্বরে। কিছু IIT, Anna University আর NIT, Trichy র পরে। কোনো রাজ্যের govt কলেজ ই যাদবপুরের ওপরে নেই। তার ওপর যাদবপুরে পড়তে সবথেকে কম টাকা লাগে। তাই পশ্চিমবঙ্গের আশপাশের অনেক রাজ্যের ছেলেদের কাছেই যাদবপুর preference পায়।
JEE Mains দিয়ে এখন NIT(আগের RE College) গুলো তে, Indian Institute of Information Technology তে আর কিছু central institute তে যেমন IIEST(আগের B E College ) ভর্তি হওয়া যায়। NIT আর IIEST তে 50% state quota আর বাকি 50 % other state এর ছেলেদের মধ্যে rank দেখে ভর্তি করে। তাই এখন IIEST তে এতো বাইরের ছেলে।
JEE Mains এখন দেয় প্রায় 12 থেকে 13 লাখ ছেলেমেয়ে। তাদের মধ্যে মোটামুটি প্রথম দুই থেকে আড়াই লাখ ছেলেমেয়ে JEE Advance দিতে পারে। JEE Advance দিয়ে ভাল rank করতে পারলে তারা IIT তে ভর্তি হতে পারে।
JEE Mains দিয়ে IIT তে ভর্তি হওয়া যায় না। LCM যে কলেজে ওনার পরিচিতরা চেতলা থেকে পড়তে গেছে বললেন, সেগুলো ওই central institute, যেখানে 50% state আর 50 % other state এর ছেলেরা rank হিসেবে ভর্তি হয়।


Name:  spa          

IP Address : 238912.66.8912.91 (*)          Date:19 Jan 2019 -- 08:19 PM

আর যেখানে NIT তে পড়তে এখন 4 বছরে 7 থেকে 8 লাখ লাগে, সেখানে যাদবপুরে চার বছরে পড়তে10 থেকে 12 হাজার টাকা লাগে।

এই সুতোর পাতাগুলি [1]     এই পাতায় আছে1--26