বইমেলা হোক বা নাহোক চটপট নামিয়ে নিন রঙচঙে হাতে গরম গুরুর গাইড ।

এই সুতোর পাতাগুলি [1]     এই পাতায় আছে1--1


           বিষয় : ল র ব য হ
          বিভাগ : অন্যান্য
          শুরু করেছেন :সৌমেন চট্টোপাধ্যায়
          IP Address : 5634.0.782312.52 (*)          Date:04 Sep 2018 -- 02:36 PM




Name:  সৌমেন চট্টোপাধ্যায়          

IP Address : 5634.0.782312.52 (*)          Date:04 Sep 2018 -- 02:36 PM

তারপর হয়েছে কি আমি তো পাম্পে গিয়ে বলে দিলুম '৬৫ টাকার ভরে দিন তো, যা দাম বেড়েছে আর তেল কিনতে হবে না আর ঐ একটা সিলিপ দিন যাতে বাড়িতে দেখাতে পারি তেলের দাম সত্যিই ৮২.৫৬ টাকা' , তিন কত্তে সাত হাতে রইল ব্যারেল অমনি ধাঁ করে তেলের পাইপ নিয়ে চকচকে ঝকঝকে পোশাক পরে লাল নীল হলুদ সবুজ ফুলের পশরা সাজিয়ে রানার হেজ লাগিয়ে দেবদারু আজিয়ে সিরিঙ্গে ছেলেটা এক চোখ খচাৎ করে মেরে বলে উঠল, 'কত বললেন?'
'আজ্ঞে ৬৫ টাকার ভরে দিন'
'না মানে দাম কত যেন বললেন?'
বেশ বেরসিক তো! নিজের চোখের সামনে ডিজিটাল বোর্ডে লেখা আছে ইংরেজিতে ৮২.৫৬ টাকা আর আমাকেই জিজ্ঞেস করছে দাম কত!
'ঐ তো স্পষ্ট লেখা আছে ৮২.৫৬ টাকা, চোখের মাথা কি খেয়েছ?' আমি রেগে গিয়ে আপনি থেকে তুমিতে নেমে যাই।
'বাড়তি না কমতি?'
'মানে?'
' বলছি দামটা বাঁ দিক থেকে না ডান দিক কোন দিক থেকে ধরলেন যাতে কমতি না বাড়তি বুঝে ফেললেন?'
'সে আবার কি! বোর্ডে লেখাটা যখন ইংরেজিতে, তখন সবাই তো এই লেখা বাঁ দিক থেকেই পড়বে।'
'তাই আবার হয় নাকি! তাহলে দাম বাড়তে বাড়তে এক্কেবারে একশো ছাড়িয়ে যাবে যে!'
'হ্যাঁ তাই তো হবার কথা'
'ওসব তোমাদের দেশে হয়, আমাদের ডিজিটাল দেশে পেট্রলের দাম বাঁদিক থেকে পড়া হয় ততক্ষন যতক্ষন না তা আশি হচ্ছে। যেই আশি হবে অমনি লেখা ডান দিক থেকে পড়তে হবে বলে আমরা নির্দেশ জারি করি। গতকাল যেই আশি পার হল অমনি ঘুরিয়ে পড়ার নির্দেশ জারি হয়েছে, পড়োনি বুঝি?'
আপনি থেকে পাম্পের ছেলেটিও তুমিতে নেমে গেছে। বুঝলাম রেগেছে।
তাও আমি নাছোরবান্দা হয়েই জিজ্ঞেস করলাম,'তাতে কি লাভ?'
'বারে তাতে করে দাম কত দেখাচ্ছে নিজেই দেখ না কেন, মেলা ফ্যাচফ্যাচ করছ কেন?কি কত দেখাচ্ছে?'
'আজ্ঞে ৬৫.২৮ টাকা'
'তবে সেই থেকে যে দাম বেড়েছে বেড়েছে বলে চিল্লাচ্ছ! এখন দেখলে তো দাম কত কমে গেল। এইবার বল কত টাকার দেব?'
আমার মাথা গুলিয়ে টুলিয়ে একশা। আমি ৬৫ টাকার চাইব না ৫৬ টাকার বুঝলাম না। তারপর মাথাটাথা চুলকেটুলকে যেই ভাবতে বসলাম ছাপ্পান্নই বলি অমনি দেখি আমার বাইকটা প্যাঁকপ্যাঁক করতে করতে জলের দিকে ছুটছে। আর পাম্পটাম্প ছেলেটেলে পাইপফাইপ সব এক নিমেষে পাল্টে একটা ফিতে হয়ে গেল আর একটা দর্জির দোকান। সেখানে যাই মাপি দেখি ছাপ্পান্ন। ছাতি ছাপ্পান্ন, বুক ছাপ্পান্ন, গলা ছাপ্পান্ন, কোমর ছাপ্পান্ন। ইঞ্চি না সেমি না মিমি তা অবশ্য জানি না। একক ছাড়া কি হয় আর কি হয় না তা মিমি চক্রবর্তীকেই না হয় জিজ্ঞেস করে নেবখন।

@সৌমেন চট্টোপাধ্যায়

এই সুতোর পাতাগুলি [1]     এই পাতায় আছে1--1