বইমেলা হোক বা নাহোক চটপট নামিয়ে নিন রঙচঙে হাতে গরম গুরুর গাইড ।

এই সুতোর পাতাগুলি [1]     এই পাতায় আছে1--3


           বিষয় : মেয়েদের চেতনা ভারত ও কোরিয়ায়
          বিভাগ : অন্যান্য
          শুরু করেছেন :Tuli
          IP Address : 68.140.208.8 (*)          Date:30 Mar 2018 -- 07:27 PM




Name:  Tuli          

IP Address : 68.140.208.8 (*)          Date:30 Mar 2018 -- 07:28 PM

কদিন ধরেই ভারতের মেয়েদের সাথে কোরিয়ার মেয়েদের চেতনার মধ্যে একটা ফারাক লক্ষ করেছি। ধন্ধে আছি। কোরিয়ায় বাসে ট্রামে কোনো শ্লীলতাহানী হয় না। অচেনা জগতে আচম্বিতে এখানে বিপদ আসে না। কিন্তু আমার খুব কাছ থেকে মনে হয়েছে কোরিয়ান মেয়েরা চেনা জগতে যথেষ্ট নিরাপদ নয়। তবু তারা প্রতিবাদ করে না। করতে চায়, সুযোগ ভারতের চেয়ে বেশি, তবু করেনা। অথচ প্রতি মুহূর্তে এখানে সচেতনতা বৃদ্ধির প্রচেষ্টা চলছে। তবুও শিক্ষিত ভারতীয় মহিলাদের যে চেতনা আছে তা এদের মধ্যে কম লক্ষ করি।

ছোট ছোট উদাহরণ দিলে পরিষ্কার বুঝতে পারবেন। উর্ধস্তন কর্মচারীর দ্বারা অধঃস্তনের শ্লীলতাহানি আমার কাছে বারবার এসেছে গল্পের বই, খবরের কাগজ বা সিনেমার মাধ্যমে। নিজে তা কখনও চাক্ষুস করিনি ভারতে থাকতে। কিন্তু কোরিয়ায় তা প্রায়সই চোখে পড়ে। বলা ভালো চোখে লাগে। একটু নেট ঘাঁটলেই দেখবেন কোরিয়ার একটা ট্র্যাডিশন অনুযায়ী গুরুজন যদি মদ খেতে অনুরোধ করে তবে তা প্রত্যাখ্যান করা অপমানের সামিল। আর এরা একে অপরকে মদ ঢেলে দেয়। তা না হয় হল। এই পর্যন্ত ঠিক আছে। কিন্তু এটা একটা সময়ের পর গিয়ে অত্যাচারে দাঁড়ায়। অফিস পার্টিতে মেয়ে গুলো আর মদ খেতে চাইছে না। কিন্তু বস বা অধ্যাপকের অনুরোধে তাকে খেয়ে যেতেই হচ্ছে। ভদ্রতা করে সে মদ ঢেলে দিচ্ছে বসের গ্লাসে। কিচ্ছুক্ষন পর মাতাল বসের হাতে থাকা গ্লাস থেকে মদ চলকে পরে ভিজিয়ে দিল মেয়েটির স্কার্ট। বস মাতাল হয়ে হাত ছুঁড়ছে এপাশে ওপাশে। সেই হাত গিয়ে ছুঁচ্ছে এপাশে ওপাশে থাকা অধস্তন মহিলা কর্মীদের। কই তারাতো একত্রিত হয়ে কোনো প্রতিবাদ করে না। এ ঘটনা চলতে থাকে। একটু বুদ্ধিমান মেয়েরা পরের পার্টিতে বসের থেকে একটু দূরে বসার চেষ্টা করে। কিন্তু প্রতিবাদে সামিল হয় না। ভারতে এরম কোনো উল্লেখযোগ্য প্রতিষ্ঠানে এসব কিছু হলে প্রতিবাদ যথাযত হবে বলেই মনে করি।

চেতনা সব দিক থেকেই কম। তারা অসম্ভব সৌন্দর্য সচেতন। বয়ফ্রেন্ড কে তারা জানায় না তাদের চশমা আছে। নতুন বয়ফ্রেন্ডের সাথে গাড়ি চালিয়ে যেতে হবে বলে কন্ট্রাক্ট লেন্সের অর্ডার দিয়েছে একজন। আমার দেশোয়ালি মেয়েদের মধ্যেও অবশ্য কন্ট্রাক্ট লেন্সের জনপ্রিয়তা আজকাল বেড়েছে লক্ষকরি। তবে তা নিজেকে না আর কাউকে তুষ্ট করতে তা আমার জানা নেই। এমনি টুকরো টাকরা অভিজ্ঞতা আমাকে একটু ভাবিয়ে তুলেছে।


Name:  Tuli          

IP Address : 68.140.208.8 (*)          Date:30 Mar 2018 -- 07:43 PM

কদিন ধরেই ভারতের মেয়েদের সাথে কোরিয়ার মেয়েদের চেতনার মধ্যে একটা ফারাক লক্ষ করেছি। ধন্ধে আছি। কোরিয়ায় বাসে ট্রামে কোনো শ্লীলতাহানী হয় না। অচেনা জগতে আচম্বিতে এখানে বিপদ আসে না। কিন্তু আমার খুব কাছ থেকে মনে হয়েছে কোরিয়ান মেয়েরা চেনা জগতে যথেষ্ট নিরাপদ নয়। তবু তারা প্রতিবাদ করে না। করতে চায়, সুযোগ ভারতের চেয়ে বেশি, তবু করেনা। অথচ প্রতি মুহূর্তে এখানে সচেতনতা বৃদ্ধির প্রচেষ্টা চলছে। তবুও শিক্ষিত ভারতীয় মহিলাদের যে চেতনা আছে তা এদের মধ্যে কম লক্ষ করি।

ছোট ছোট উদাহরণ দিলে পরিষ্কার বুঝতে পারবেন। উর্ধস্থন কর্মচারীর দ্বারা অধঃস্থনের শ্লীলতাহানি আমার কাছে বারবার এসেছে গল্পের বই, খবরের কাগজ বা সিনেমার মাধ্যমে। নিজে তা কখনও চাক্ষুস করিনি ভারতে থাকতে। কিন্তু কোরিয়ায় তা প্রায়সই চোখে পড়ে। বলা ভালো চোখে লাগে। একটু নেট ঘাঁটলেই দেখবেন কোরিয়ার একটা ট্র্যাডিশন অনুযায়ী গুরুজন যদি মদ খেতে অনুরোধ করে তবে তা প্রত্যাখ্যান করা অপমানের সামিল। আর এরা একে অপরকে মদ ঢেলে দেয়। তা না হয় হল। এই পর্যন্ত ঠিক আছে। কিন্তু এটা একটা সময়ের পর গিয়ে অত্যাচারে দাঁড়ায়। অফিস পার্টিতে মেয়ে গুলো আর মদ খেতে চাইছে না। কিন্তু বস বা অধ্যাপকের অনুরোধে তাকে খেয়ে যেতেই হচ্ছে। ভদ্রতা করে সে মদ ঢেলে দিচ্ছে বসের গ্লাসে। কিচ্ছুক্ষন পর মাতাল বসের হাতে থাকা গ্লাস থেকে মদ চলকে পরে ভিজিয়ে দিল মেয়েটির স্কার্ট। বস মাতাল হয়ে হাত ছুঁড়ছে এপাশে ওপাশে। সেই হাত গিয়ে ছুঁচ্ছে এপাশে ওপাশে থাকা অধঃস্থন মহিলা কর্মীদের। কই তারাতো একত্রিত হয়ে কোনো প্রতিবাদ করে না। এ ঘটনা চলতে থাকে। একটু বুদ্ধিমান মেয়েরা পরের পার্টিতে বসের থেকে একটু দূরে বসার চেষ্টা করে। কিন্তু প্রতিবাদে সামিল হয় না। ভারতে এরম কোনো উল্লেখযোগ্য প্রতিষ্ঠানে এসব কিছু হলে প্রতিবাদ যথাযত হবে বলেই মনে করি।

চেতনা সব দিক থেকেই কম। তারা অসম্ভব সৌন্দর্য সচেতন। বয়ফ্রেন্ড কে তারা জানায় না তাদের চশমা আছে। নতুন বয়ফ্রেন্ডের সাথে গাড়ি চালিয়ে যেতে হবে বলে কন্ট্রাক্ট লেন্সের অর্ডার দিয়েছে একজন। আমার দেশোয়ালি মেয়েদের মধ্যেও অবশ্য কন্ট্রাক্ট লেন্সের জনপ্রিয়তা আজকাল বেড়েছে লক্ষকরি। তবে তা নিজেকে না আর কাউকে তুষ্ট করতে তা আমার জানা নেই। এমনি টুকরো টাকরা অভিজ্ঞতা আমাকে একটু ভাবিয়ে তুলেছে।


Name:  avi          

IP Address : 57.11.198.32 (*)          Date:30 Mar 2018 -- 10:18 PM

আচ্ছা। কিন্তু কোন কোরিয়া?

এই সুতোর পাতাগুলি [1]     এই পাতায় আছে1--3