বইমেলা হোক বা নাহোক চটপট নামিয়ে নিন রঙচঙে হাতে গরম গুরুর গাইড ।

[42161]  [42160]  [42159]  [42158]  [42157]  [42156]  [42155]  [42154]  [42153]  [42152]  [42151]  [42150]  [42149]  [42148]  [42147]  [42146]  [42145]  [42144]  [42143]  [42142]  [42141]  [42140]  [42139]  [42138]  [42137]  [42136]  [42135]  [42134]  [42133]  [42132]  [42131] 

name:  Atoz               mail:                 country:                

IP Address : 236712.158.678912.251 (*)          Date:07 Oct 2019 -- 03:50 AM

সাধুসন্ন্যাসীরা প্রায় সকলেই গাঁজার ভক্ত।


name:  gNaaja               mail:                 country:                

IP Address : 236712.158.4578.248 (*)          Date:07 Oct 2019 -- 03:39 AM

বিবেকানন্দ কিন্তু গাঁজা খেতে সত্যি সত্যি পছন্দ করতেন।


name:  Atoz               mail:                 country:                

IP Address : 890112.162.893423.160 (*)          Date:07 Oct 2019 -- 03:36 AM

টি আই এফ আর !!!!! টাটা স্টিল কোম্পানি !!!! তব্যে? এসবের আইডিয়া কোথা থেকে পেলেন? সব ওই গাঁজার জাহাজে। দুইজনে মিলে ডেকে বসে গাঁজা খাচ্ছিলেন আর এইসব আইডিয়া নিয়ে আলোচনা করছিলেন। ঃ-)


name:  wiki               mail:                 country:                

IP Address : 236712.158.676712.216 (*)          Date:07 Oct 2019 -- 02:53 AM

Meeting with Jamsetji Tata
In the journey from Yokohama to Canada on the ship Empress, Vivekananda accidentally met Jamsetji Tata who was also going to Chicago. Tata, a businessman who made his initial fortune in the opium trade with China[5] and started one of the first textile mills in India, was going to Chicago to get new business ideas. In this accidental meeting on the Empress, Vivekananda inspired Tata to set up a research and educational institution in India. They also discussed a plan to start a steel factory in India.[4]

(4) Niranjan Rajadhyaksha (5 December 2006). The Rise of India: Its Transformation from Poverty to Prosperity. John Wiley & Sons. pp. 30–. ISBN 978-0-470-82201-2. Retrieved 18 December 2012.




name:  amar layout               mail:                 country:                

IP Address : 236712.158.4578.242 (*)          Date:07 Oct 2019 -- 02:31 AM

আমার ধারনা আমি সাড়ে তিন আনা ডেনিসোভান, দেড় আনা নিয়েনডার্থেল, সিকি আনা আরো কি কি যেন, বাকিটা হোমো স্যাপিয়েন্স। এদিকে ডেনিসোভান্দের জন্য পুজোপাঠ নিষিদ্ধ!



name:  অর্জুন               mail:                 country:                

IP Address : 236712.158.1234.155 (*)          Date:07 Oct 2019 -- 02:19 AM

অষ্টপ্রহর নাম গান কর্ণ পীড়াদায়ক তো হতে বাধ্য। আমি দিল্লীতে গুরুদ্বারের পাশে থেকেছি। গুরুদ্বার আমার খুব প্রিয় জায়গা। যেমন প্রিয় ঊষা লগ্নে বা গোধূলিবেলায় মসজিদের আজান। আহা! আজান আমাকে একটা অন্য জগতে নিয়ে যায়! কিন্তু গুরুদ্বারে এবং বৈষ্ণবদের অষ্টপ্রহর নাম কীর্তন মাথা ঝালাপালা করে দিতে বাধ্য। ওটা ওভারডোজ হয়ে যায় ।

এখন কীর্তন শিল্প সে ভাবে কোথায় শোনা যায় !


name:  অর্জুন               mail:                 country:                

IP Address : 236712.158.1234.155 (*)          Date:07 Oct 2019 -- 02:13 AM


শাক্ত আর বৈষ্ণবদের এই বিরোধ সব সময়ে মজারও নয়। বৈষ্ণবদের মধ্যেও বিভিন্ন ভাগ আছে, শাক্তদেরও আছে। তবে সুধীর চক্রবর্তীর তাঁর বইতে লিখেছেন রামকৃষ্ণ আন্দোলনের জন্যে এবং শ্রীরামকৃষ্ণ জীবিত থাকতেই বৈষ্ণবদের বিভিন্ন সেক্ট যথা কত্তাভজা, মতুয়া'রা শাক্তদের আক্রোশের সম্মুখীন হয়। পূর্ববঙ্গে কত্তাভজাদের গ্রামকে গ্রাম জ্বালিয়ে দেওয়া হয়েছিল। ঐ গোষ্ঠীর সাধক, সাধিকাদের মধ্যে কিছু সেক্সচ্যুয়াল প্র্যাকটিস নিয়ে রামকৃষ্ণ খুব তাচ্ছিল্য প্রকাশ করেছিলেন। সম্ভবত 'কথামৃত' এও এর উল্লেখ আছে।

বৈষ্ণবদের ভক্তি ভাবটা ইউনিফর্মের মত।


name:  Atoz               mail:                 country:                

IP Address : 890112.162.893423.166 (*)          Date:07 Oct 2019 -- 02:03 AM

আমাদের পাড়ায় ছিল ভীষণ বৈষ্ণব প্রভাব(আবার সঙ্গে সঙ্গে কিছু শাক্ত প্রভাবও ছিল)। প্রায়ই এখানে সেখানে অষ্টপ্রহর সংকীর্তনের ব্যবস্থা হত। ওরে বাব্বা। সে জিনিস শুনলে কানে তুলো গুঁজে শাক্ত হয়ে যাবেন মশাই। ঃ-)
সেই তুলনায় ফলহারিণী কালিকাপূজা ইত্যাদি তে অনেক কম ঝামেলা ছিল। বটগাছতলায় পুজো পাঠিয়ে দিলেই হত, পরে প্রণাম করে প্রসাদ নিয়ে আসা।


name:  অর্জুন               mail:                 country:                

IP Address : 236712.158.1234.135 (*)          Date:07 Oct 2019 -- 01:58 AM


আমার পিতৃ পরিবারে বেশ শাক্ত বিরোধিতা ছিল, আবার মাতৃ পরিবারে বৈষ্ণবদের বেশ নীচু করে দেখা হত। খুব মজার ব্যাপার।

পিতৃ পরিবারে দুর্গা পুজো বাদ দিলে শাক্ত কোনো উৎসব রীতিমত এড়িয়ে চলা হত। বাবা'র এক পিসির বাড়িতে কালী পুজো হত। বাবার সেই পিসি সে যুগে ব্রাহ্মণ বিয়ে করেছিলেন। আমাদের পরিবারে ইন্টারকাস্ট ম্যারাজের প্রচলন খুব। কিন্তু দাদুর ওই কালী পুজোতে বাড়ির কারো যাওয়ায় একদম পছন্দ ছিল না। নিমন্ত্রণ রক্ষার জন্যে ঠাকুমা কবার গিয়ে চলে এসেছেন। কারো বাড়িতে বৈষ্ণবদের নিয়ে ঠাট্টা, হাসি তামশা হলে তাদের সংস্রব ত্যাগ করা হত।

বাড়িতে প্রতি শনিবার কীর্তন হত। আমার জন্মের আগে মহানামব্রত ব্রহ্মচারী প্রতি বছর পাঠ ও কীর্তন করতে আসতেন। বাড়িতে বৈষ্ণব সাহিত্যে ও দর্শনের ঠাসাঠাসা বই । দাদুর খুব প্রিয় ছিল রাধাগোবিন্দ নাথের লেখা বই।

কীর্তন শুনে, শুনে আমার নিজেরও কীর্তন খুব প্রিয়।


name:  Atoz               mail:                 country:                

IP Address : 236712.158.678912.251 (*)          Date:07 Oct 2019 -- 01:34 AM

শাক্ত আর বৈষ্ণবের মূল তফাৎটা কী? শক্তি আর ভক্তি? মানে শাক্তেরা বলেন অনেক কঠোর সাধনা ইত্যাদি করতে হবে আর বৈষ্ণবেরা বলেন ভক্তি(নারদীয় ভক্তিবাদ) দিয়েই হয়ে যাবে? শাক্তেরা বৈষ্ণবদের বলেন, "ওরে তোরা তো রসকলি কেটে বৃন্দাবনলীলা করিস। তোদের আর কী বলবো?" বৈষ্ণবেরা বলেন, "আরে তোরা তো কাপালিক! তোরা যে কী করতে পারিস না পারিস সে আর না বলাই ভালো।" অর্থাৎ দুই দলই জানেন, কোনটা ভালো আর কোনটা মন্দ। আর দুই দলই নিজেদের সাধনাকে ভালো বলেন। ঃ-)




    পরের পাতা         আগের পাতা
**এই বিভাগের কোনো মন্তব্যের জন্যই এই সাইট দায়ী নয়৷ যে যা মন্তব্য করছেন, তা ব্যবহারকারীদের ব্যক্তিগত মতামত৷ গুরুচন্ডালি সাইটের বক্তব্য নয়৷