বইমেলা হোক বা নাহোক চটপট নামিয়ে নিন রঙচঙে হাতে গরম গুরুর গাইড ।

[40540]  [40539]  [40538]  [40537]  [40536]  [40535]  [40534]  [40533]  [40532]  [40531]  [40530]  [40529]  [40528]  [40527]  [40526]  [40525]  [40524]  [40523]  [40522]  [40521]  [40520]  [40519]  [40518]  [40517]  [40516]  [40515]  [40514]  [40513]  [40512]  [40511]  [40510] 

name:  Kaju               mail:                 country:                

IP Address : 122312.242.016712.210 (*)          Date:12 Feb 2019 -- 03:20 PM

দানবকৃষ্ণ, সেতো একশোবার সত্যি, আমিও কি চাই না? তবে এইগুলো না করতে পারলে উনি নিজেই কষ্ট পাবেন। আসলে এটায় পরেরদিনেরটাও সরস্বতী পুজোর দিনকেই করে রাখা বলেই ডবল খাটনি পড়ে যায়।


name:  pi               mail:                 country:                

IP Address : 2345.110.9004512.172 (*)          Date:12 Feb 2019 -- 03:19 PM

আমি তো আজও সজনে ফুলের চচ্চড়ি খাচ্ছি। ফ্লাইটে নিয়ে এলাম। কড়াইশুঁটি দিয়ে দারুণ লাগে! এখানে গাছে গাছে কত্ত সজনে ফুল, ঝরে পড়ে থাকে মাটিতে। এগুলো তোলে কীকরে, গাছের তলায় চাদর পেতে রাখে?


name:  সৈকত               mail:                 country:                

IP Address : 340112.99.675612.98 (*)          Date:12 Feb 2019 -- 03:13 PM

বাঙালরা কেনই বা শুধু শুধু তরকারী সেদ্ধ খেতে যাবে ? নদীতে মাছ, ইলিশের মরশুম শুরু হবে, পুজোর দিন, কাজকর্মের মধ্যে রান্নার ঝামেলায় না গিয়ে ঐ মাছই সেদ্ধ/ভাপা করে নিলেই হল। সাবড়ে ভাত নেমে যাবে। ঘটিদের অত মাছ-টাছ নেই, তাই তরকারী সেদ্ধই। কিন্তু ব্যাপারটাকে মশলাদার করতেই হবে, তাই নুন, লঙ্কা, তেল, মশলা, চচ্চড়ি এসে পড়বেই। তা না হলে রোগীর পথ্য, সে খাওয়া যায় না। আর এ নিশ্চয় একদিনের মামলা ছিল না, শীত গিয়ে গরম আসবে, রোগ-বালাই শুরু হবে, তার আগে হয়ত টানা দিন কয়েক খাওয়া হত। কালে কালে নিমিত্ত রক্ষা।




name:  অর্জুন অভিষেক               mail:                 country:                

IP Address : 561212.96.343412.67 (*)          Date:12 Feb 2019 -- 03:09 PM


আমাদের বাঙাল বাড়িতে গোটা সেদ্ধ কখনো হতনা। আমার ছোট পিসির শ্বশুরবাড়ি খাস ঘটি। পিসির বাড়ি থেকে আসত। দারুণ লাগত। সেদ্ধর মধ্যে একটা মশলা দেওয়া হত।

আমার মাকে অনেকবার বলেছি গোটা সেদ্ধ করতে, মা বলে আমরা ঘটি নই, অসব করব না। ঃ-(

ঘটিদের বিশ্বকর্মার সময় আরেকটা হয় 'রান্নাপুজো'।


name:  Ela               mail:                 country:                

IP Address : 238912.66.9005612.186 (*)          Date:12 Feb 2019 -- 03:03 PM

ঠিক, শীতল ষষ্ঠী। থ্যান্কু দ!


name:  দানবকৃষ্ণ               mail:                 country:                

IP Address : 232312.172.1289.109 (*)          Date:12 Feb 2019 -- 02:51 PM

Date:12 Feb 2019 -- 02:08 PM

সবই ভালো, তবে মাঝেমধ্যে মাকে সারাদিনের পরিশ্রম থেকে ছুটি দিলে মন্দ হয়না।

অবশ্য মায়ের পরিশ্রম খুব গ্লোরিফাইড জিনিস, এসব নিয়ে কথা বলা স্যাক্রিলেজ।


name:  দ               mail:                 country:                

IP Address : 453412.159.896712.72 (*)          Date:12 Feb 2019 -- 02:33 PM

শীতল ষষ্ঠী।

নাহ ঠান্ডা গোটা সেদ্ধ খাওয়ার চেষ্টা করি নি কখনো। গরমই ভাল লাগে। যে মাসীমা দিয়ে যেতেন তিনি আবার একটা ভাজা মশলা ছড়িয়ে দিতেন উপরে।


name:  Ela               mail:                 country:                

IP Address : 238912.66.9005612.186 (*)          Date:12 Feb 2019 -- 02:29 PM

শীষ পালং হল শীষ (স্টেম) সহ পালং শাক। এই সময়েই পাওয়া যায় শুধু, সারা বছর বাজারে দেখি না।


name:  b               mail:                 country:                

IP Address : 562312.20.2389.164 (*)          Date:12 Feb 2019 -- 02:25 PM

শীষ পালংটা কি বস্তু? হয়ত অন্য নামে চিনি।
সেদিন শুনি বাজারে এক ভদ্রমহিলা মুড়কি কিনছেন, কিন্তু মুড়কি না বলে বললেন "উপ্রা"। পরে ভেরিফাই করলাম, ঢাকাইয়া লোকজন তাই বলে।


name:  PT               mail:                 country:                

IP Address : 340123.110.234523.22 (*)          Date:12 Feb 2019 -- 02:13 PM

সজনে ফুলের চচ্চড়ি ভুলে গিয়েছিলাম। Ela-কে ধন্যবাদ। তবে কোন রান্নাতেই নুন দেওয়া হবেনা। তাহলে এঁঠো হয়ে যাবে। পরের দিন খাওয়ার সময়ে মেখে খেতে হবে। এসব খেলে নাকি মা শীতলাও দয়া করেন যাতে ঐ ২১ দিন মশারির মধ্যে আটকে থাকার অসুখটা না হয়!!

ঠান্ডা ঠান্ডা বেশ লাগে। খানিকটা পান্তা খাওয়ার মত। বেশ এট্টু ঝিমুনি আসে খাওয়ার পরে। এ হচ্ছে পাতি বাংলা খাবার। তাই কিছুর সঙ্গে তুলনীয় নয়। তাছ্ড় এর স্বাদ য্খন জিভে বসেছে তখন চাউ-পিৎসা ভাবাও যেতনা। সরস্বতী পূজোর আবেশ, অরন্ধন, মা-ঠাকুমাদের ব্যস্ততা-সব মিলিয়ে অন্য রকম ব্যাপার। নাস্তিক পিতৃদেব কিম্বা পিতৃব্যের কখনই ভুল হত না সব আইটেমগুলো বাজার থেকে নিয়ে আসতে।

বাজারে শীষ পালং দেখলেই সেই সময়্টা মাথার মধ্যে ফিরে ফিরে আসে। কাল ফোনে কথা হল দিদিদের সঙ্গে। মাকে বেবি সিটিং করতে এসেছে। আনন্দের কথা, গোটা সেদ্ধ, শেষ পালং, সজনে ফুল, কুলের চাটনি সব এসেছে......
....... আমি কাজের চাপে অনুপস্থিত!!




    পরের পাতা         আগের পাতা
**এই বিভাগের কোনো মন্তব্যের জন্যই এই সাইট দায়ী নয়৷ যে যা মন্তব্য করছেন, তা ব্যবহারকারীদের ব্যক্তিগত মতামত৷ গুরুচন্ডালি সাইটের বক্তব্য নয়৷