আপনার মতামত         


আর্যনীল মুখোপাধ্যায়





Ýস্ক্রালচিত্র

বাসাসারাইয়ের মানুষ বা পাখিরা
পাহাড়ে মস্তিষ্কপ্রস্তর সাফ করার শব্দ উঠলো
আসছে ঝর্ণা ক্রমশ কাছে আসছে, কান্না আসছে
!;;;;;;!;;;;;;!;;;;;;!;;;;;;!;;;;;;!

অপসরণশিল্প কাঁকড়ার কাছে শিখুন
এই ভরা অনুভূতি তার Ýখালে, এই খরা
অঘ্রাণের খামার কতটা Ýসানালি, বলবে খামারমুর্গির আনঝুটি
#======#======#======#======#======#

দীর্ঘ জীবনের ঋতু জীবনদীর্ঘ
তার বাহু ভ'রে পীচ ঝুলছে
মাটি নরম ইন্দ্রিয় প্রস্তুত
বীজবপন আরো Ýভতরে হবে
// // // // 0 // // // // 0 // // // // 0 // // // //


এইরঙ এনে দিল বৃষ্টি নির্যাস মাটিবাদল আর
পতঙ্গের অঙ্কনপ্রবৃত্তি
নীলচারা Ýছঁচে Ýয বর্র্ণ এলো Ýসই রঙ
কত Ýয Ýকাথায় Ýগল নীলচাষির ধারণাতেও Ýনই
¡ ¡ ¡ ¡ < < ¡ ¡ ¡ ¡ < < ¡ ¡ ¡ ¡ << ¡ ¡ ¡ ¡

একÝজাড়া হাত মুসুর পুঁতে এলো
আর এক Ýজাড়া Ýমদিনীমাখা আমাদের ডালের বাটির রচয়িতা
ফড়িং আঁকছিলেন চীনেমাটির কাঁচায়
রাত হল চল শুয়ে পড়বে
চুল্লীর আনে সারারাত ছবিটা পাকছে
@ ।।।।। @ ।।।।। @ ।।।।। @ ।।।।। @ ।।।।।





সান্ধ্যভাষা

সান্ধ্যভাষার প্রয়োজনে আবার আমার লিখতে মন হয়
মনে হয় আবার লিখতে লিখতে সন্ধ্যা হোক
আরো পুরাতন হয়ে যাক সারস্বত কবিতার ভাষা
মূলদরজার সামনে বসে আছি যেখানে দুলছিল যে গাঁদার গাছ
তার পায়ের কাছে ইলিয়ট বলেছিলেন -
কবি এমন কিছু অনুরণন বোঝেন যা গড়পড়তার শরীর ছোঁয় না

বৃষ্টি কি স্থির ও বদ্ধপরিকর তার ধারায় দেখো
অথচ আজ নাটকের ক্লাস শুরু হবে আবার
আবার আবার আজ তোমার হাত ধরার কথা
হাত ধরলে সন্ধ্যা হবে
আমাদের প্রজন্মে হাত ধরার কোন আলাদা তাৎপর্য ছিল না
তবু স্পর্শের অনুভবে অর্থের অন্যতর আসে, অন্ধকার ছলে
পীয়ার গাছে খয়েরী খরগোশরা মাচা বানিয়েছিল
আজ নাটকের ক্লাস শুরু হবার কথা

এমন সমস্ত সন্ধ্যায়, বিশ্বাস কর, গল্প করার মতও কেউ নেই
অথচ কত বিকেল দেখি সান্ধ্যভাষা শিখে রাতের টেবিলের কিনারা পর্যন্ত
গড়ানো কুঁজো থেকেই রমনীর গড়ন আসতো
জলবায়ু আর আবহাওয়ার মধ্যে কতটা সময় ?
আজকের চিঠিলো খামের পোশাক খুলে অসভ্য আমার মত একা একা।
শূন্যতা সবসময় নন করে। আসছেনা, তবু আসবে আসবে বলে গানের ভেতর

মনে হবে আমাদের রক্তের ফোঁটা ফোঁটা প'ড়ে ঐ কার্ডিনাল পাখিরা
এত রক্তমস্তু, উহাদের অথচ গান নেই
আমাদের জানলার কাঁচগুলি এমন
আমি সারাদিন বাইরে যার ওড়াউড়ি দেখি, সে কি আমায় দেখতে পায় নিরু ?
সে আমায় দেখতে নিরুপায়
দেখে সন্ধ্যার পর, যখন কেবল সেই দ্যাখে
আমি তাকে দেখতে পাই না।





কলম করা পংক্তিগুলো

Ýগালাপের Ýভতরে এই গহিন কমলা কালো সায়ান পুঁতিগুলো
তুলতে Ýগলেই ছড়াবে
মুঠো খুললেই গড়াবে
Ýরখা খুলতে খুলতে আমার পায়ের কাছে ঝিনুক দিয়ে থামলো

এতলো নির্জন বছর Ýপরিয়ে সাগরের ধারে এলো বাড়ীগুলো
একার ছায়ায় সিগারেট খাচ্ছে দাঁড়িয়ে একা
বালির ওপর বড্ড Ýবশী জমি ছিল
Ýখালা জল গড়ানোর আয়োজন

Ýদখবেন
বাছাই অঢেল হলেই মনের মত লুকোচ্ছে
অথচ Ýযই Ýজার করবেন
গাঁদার টবে Ýপট্যুনিয়া মরে যাবে

তবু আমাদের জানলায় কত ফাঁক ছিল বলুন
আমাদের জানায় কত
ওয়াইনকর্ক দিয়ে Ýয ভুল অঙ্কটা Ýমাছা যায়
বা আমিনাকে Ýয অত সুন্দর Ýদখাবে
Ýময়ে Ýদখার দিন
বা আলুবখরার চাটনি Ýচখে
Ýচাখে Ýচাখে বা:! বলে ওঠা কাঠবিড়ালিটা

মনটা Ýয কি খারাপ নীল ক'Ýর আজ আছে ।
(Ýদখুন রঙের Ýভতরেও কি সাংষ্কৃতিক ধাক্কা
"একটার পর একটা পাখি ডাকÝছ, নীল' - বললে
যিনি আনন্দে Ýহসে উঠলেন তার Ýদওর কাঁদছে)
Ýকন Ýয বুÝড়া গীতিকার তার হুইলচেয়ার গড়িয়ে গঙ্গায় ঝাঁপাল
আর হাত Ýথকে Ýফলে
বিকেলের Ýশষ ডিমটা ঠিক তখনি তুই ফাটালি

এইসব অনুতাপ Ýথকেই শুরু হয়েছিল আমার কলম করা পংক্তিগুলি ।।





অর্থাৎ চিত্রনাট্য

গানের Ýভতরে তাকেই খুঁজে Ýবড়াচ্ছি
হারানো সুর।
আর আমি একটা অন্যবাড়ীতে বসে রইলাম Ýতামার জন্য।

Ýক আপনি ?
প্রশ্নটা শক্ত হলে উত্তর Ýদওয়া যায়, অন্যায় হলে যায় না
Ýস্টশনটা Ýকানদিকে ?

মানুষের সংষ্কৃতি তার Ýচাখেমুখে Ýলখা থাকে।
রঙটা Ýবশ। জায়গাটার নাম কি ? আজ কত তারিখ ?
তুমি ভুলে একটা অন্যবাড়ীতে চলে Ýগলে ?

এক্ষুনি যিনি ওপরে Ýগলেন
Ýবড়াতে Ýবরিয়েছে হয়তো
যদি তার স্মৃতিকে জাগাতে পারি !

সবাই ঘুমিয়ে পড়েছে আমি ঘুমোতে পারিনা Ýকন ?
আমাকে ভুলে Ýগছেন।
অবস্থার চাপ কবে Ýশষ হবে ?

আসলে আমার খানিকটা সময় হারিয়ে Ýগছে
আবার নতুন করে বুনবো বলে
Ýততাল্লিশ টাকা সাড়ে চার আনা।

অলোকবাবু
অলোকবাবু, কি ভাবছেন ?
Ýপছনের কথা কিছু মনে পড়ছে ?