বার পঠিত
ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • বুলবুলভাজা  আলোচনা  সমাজ

  • মৃত কিশোরীর বিচারপ্রার্থী আত্মা আজও ঝুলে আছে সীমান্ত কাঁটাতারে

    ডঃ দেবর্ষি ভট্টাচার্য
    আলোচনা | সমাজ | ০৭ জানুয়ারি ২০২২ | ১৮১০ বার পঠিত

  • হবু জীবনসঙ্গীর সাথে কীভাবে কাটাবে কুয়াশাচ্ছন্ন রাতভর! হিমেল শীত ফিরে গেলে কীভাবেই বা কাটবে শিমূলরঙা বসন্ত! এইসব ভাবতে ভাবতেই আধো-তন্দ্রাচ্ছন্ন অপেক্ষার কনকনে রাতটা কখন যে বয়ে গেল, কে জানে! আসামের বঙ্গাইগাঁওয়ের বাজার থেকে কিনে সঙ্গে রাখা আছে টকটকে লিপস্টিক, চকচকে নেলপালিশ, রিনিঝিনি কাচের চুড়ি। নিজেকে নিটোল কনে সাজানোর বাসনায় আরও কত কী! অপেক্ষার আর একটা দিন কেটে গেলেই যে তাকে বসতে হবে বধূর সাজে।

    ফেলানি খাতুন। বয়স ১৫। আদি নিবাস বাংলাদেশের কুড়িগ্রাম জেলার সীমান্তবর্তী গ্রাম দক্ষিণ রামখানা। আশৈশব কেটেছে ভারতের আসামে। অভাবের তাড়নায় বাবা মহম্মদ নূর ইসলাম সীমান্তরক্ষীদের ফাঁকি দিয়ে সপরিবারে সেই কবে বে-পাসে বাংলাদেশ থেকে আসামের বঙ্গাইগাঁওয়ে চলে এসেছিলেন। সেখানেই প্রথমে জনমজুরের কাজ, পরে রিক্সাচালক এবং তারও পরে একটি পানের দোকান খুলেছিলেন। মেয়ে পনেরো বছরে পা দিতেই বাংলাদেশ-নিবাসী তুতো ভাইয়ের সাথে ২০১১ সালের ৮ই জানুয়ারি তার বিয়ে ঠিক করে ফেলেন। আর সেই বিয়ের সুবাদেই নিজগ্রামে ফেরার তোড়জোড়। নগদ তিন হাজার টাকায় চোরাপথে সীমান্ত পারাপারের দালালদের মাধ্যমে ভারতের কোচবিহার জেলার চৌধুরী-হাট বর্ডারের কাঁটাতারের বেড়া টপকানোর বন্দোবস্ত হয়ে যায়। সেইমত, ৬ই জানুয়ারি রাতেই নূর ইসলাম তাঁর মেয়ে ফেলানিকে নিয়ে সীমান্ত-সংলগ্ন একজন দালালের বাড়িতে পৌঁছে যান। দালালদের সাহায্যে গভীর রাতে বাঁশের মইয়ের সাহায্যে সীমান্ত-কাঁটাতারের বেড়া ডিঙানোর পরিকল্পনা আগে থেকেই স্থির করা ছিল। কিন্তু সেদিন রাতে চোরাপথে সীমান্ত পার হওয়ার মত অনুকূল পরিস্থিতি তৈরি না হওয়ায়, ফেলানি ও তার বাবাকে রাতভর দালালের বাড়িতেই আত্মগোপন করে থাকতে হয়।

    ঘন কুয়াশাচ্ছন্ন থাকায় পরদিন খুব ভোরে সীমান্ত পার হওয়ার জন্য দালালরা নূর ইসলামকে খুব পীড়াপীড়ি করতে থাকে। কিন্তু দিনের আলো ফুটে যাওয়ায় অত ঝুঁকি নিয়ে চোরাপথে কাঁটাতার পারাপার হতে তিনি রাজি ছিলেন না। কিন্তু দালালদের অত্যন্ত পীড়াপীড়ি, এমন আর্থিক প্রয়োজনের কালে নগদ তিন হাজার টাকা জলে যাওয়ার আশঙ্কা এবং মেয়ের বিয়ের দিন আসন্ন থাকায় ফেলানির বাবা নিমরাজি হয়ে, মেয়েকে সঙ্গে নিয়ে, দালালদের সঙ্গে ৯৪৭-এস সীমান্ত পিলারের কাছে কাঁটাতারের পাশে এসে জড়ো হন।

    তখন সবে ভোরের আলো ফুটেছে। কিন্তু ঘন কুয়াশার আড়ালে অস্পষ্ট চৌদিক। আদিগন্ত যেন ঝাপসা কাচে মোড়া। দালালরা ততক্ষণে একটি বাঁশের মই এনে সীমান্তের কাঁটাতারের গায়ে হেলিয়ে দাঁড় করিয়ে ফেলেছে এবং অন্য একটি মই কাঁটাতারের শীর্ষে বিছিয়ে দিয়েছে। নূর ইসলামকে প্রবল তাড়া দিয়ে দাঁড় করানো মইয়ের ওপর তুলে দেয়। তিনি যখন মই বেয়ে কাঁটাতারের শীর্ষে পৌঁছে গেছেন, দালালরা প্রায় জোর করেই ভীতসন্ত্রস্ত ফেলানিকে দাঁড় করানো মইয়ে উঠিয়ে দেয়। কিন্তু মই বেয়ে উঠতে গিয়ে ফেলানির কামিজ কাঁটাতারে আটকে যায়। ফেলানি আতঙ্কে চিৎকার করে ওঠে। অদূরে বাঁশের মাচায় বসে প্রহরারত বিএসএফের জওয়ান। কিন্তু ঘন কুয়াশার কারণে কাঁটাতারের গা ঘেঁসে কি হচ্ছে, তা তখন পর্যন্ত তাঁর নজরে আসেনি। ফেলানির চিৎকার শুনে কর্তব্যরত প্রহরী বন্দুক উঁচিয়ে ছুটে চলে আসে কাঁটাতারের কাছে। নূর ইসলাম ততক্ষণে পৌঁছে গেছেন কাঁটাতারের শীর্ষে বিছানো মইয়ের শেষ প্রান্তে আর ফেলানি তখন কাঁটাতারের গায়ে হেলানো মইয়ের শীর্ষে দাঁড়িয়ে। অভিযোগ – কোনোরকম মৌখিক সতর্কতা ছাড়াই, কর্তব্যরত বিএসএফ প্রহরী সরাসরি ফেলানির শরীর লক্ষ্য করে গুলি চালায়। গুলিটা ফেলানির বুকের ডানদিক ভেদ করে পিঠ দিয়ে বেরিয়ে যায়। মৃত্যু পথযাত্রী কিশোরীর মুখ থেকে শুধুমাত্র একটি শব্দই বেরিয়ে আসার সুযোগ পায় – “আব্বাআআআআ...”। ফিনকি দিয়ে ঝরে পড়ে রক্তস্রোত। ঘাড় ঝুলে পড়ে, এলিয়ে পড়ে হাত-পা। তবু ধরিত্রীর বুকে জায়গা হয় না বিবাহ-আসন্ন কিশোরীর। কাঁটাতারে বেঁধা তার নিথর শরীর আটকে থাকে সীমান্ত কাঁটাতারে। এই ভয়াবহ দৃশ্য দেখে ফেলানির বাবা কাঁটাতারের শীর্ষে বিছানো মই থেকে ছিটকে পড়েন বাংলাদেশের দিকে এবং ক্ষণিকের জন্য জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন। সংজ্ঞা ফিরতেই নূর ইসলামের কানে বাজতে থাকে ফেলানির সেই অসহায় আর্ত-চিৎকার ... “আব্বাআআআআ”! আর তাকিয়ে দেখেন কাঁটাতারের বেড়ায় ঝুলে আছে আদুরি মেয়ের তরতাজা লাশ। ফেলানির আর্ত-চিৎকার ও বন্দুকের গুলির শব্দে ভারত ও বাংলাদেশ উভয় দেশেরই সীমান্ত-সংলগ্ন মানুষজন কাঁটাতারের কাছে ছুটে আসেন। বাংলাদেশের প্রান্তের মানুষজন ধরাধরি করে নূর ইসলামকে তাঁর গ্রামের বাড়িতে নিয়ে যান। প্রাণহীন ফেলানি ঝুলে থাকে সীমান্ত-কাঁটাতারেই।

    মাথা নীচের দিকে, তারও নীচে চুলের গোছা। বাঁহাত ঝুলন্ত, ডানহাত আটকে কাঁটাতারে। দুই পা ছড়ানো, কাঁটাতারে বেঁধা। এমনিভাবেই প্রায় পাঁচ ঘণ্টা ঝুলে থাকে হতভাগ্য ফেলানির প্রাণহীন দেহ। অবশেষে বিএসএফের জওয়ানরা এসে কাঁটাতার থেকে লাশ নামিয়ে, বাঁশে বেঁধে, ঝুলিয়ে নিয়ে যায় ময়না তদন্তের উদ্দেশ্যে। এরপর দুই প্রতিবেশী দেশের সীমান্ত প্রহরীদের মধ্যে বসে ফ্ল্যাগ মিটিং। অতঃপর লাশ হস্তান্তর। মর্মান্তিক ঘটনার প্রায় তিরিশ ঘণ্টা পরে ফেলানি ফিরে আসে তার গ্রামের বাড়িতে। এ জীবনে বিয়ের পিঁড়িতে বসার সৌভাগ্য না হোক, চিরনিদ্রায় শায়িত থাকার জন্য অন্তত তার ঠাঁই হল নিজদেশে। এরপর সিঙ্গিমারি নদী দিয়ে রাশি রাশি জলের ধারা বয়ে গেছে। ঘন কুয়াশাচ্ছন্ন এগারোটা ঝাপসা সকাল পার হয়ে গেছে। তবু ফেলানির হতভাগ্য বাবা-মা আজও প্রতীক্ষা করে আছেন তাঁদের আদুরি মেয়ের মৃত্যুর সুবিচারের আশায়।

    ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তে একদিকে চোরাচালান ও বেআইনি পাচারের উদাহরণ যেমন ভুরি ভুরি, অন্যদিকে সীমান্তরক্ষীর গুলিতে মনুষ্য-হত্যার সংখ্যাটাও কিন্তু নেহাত কম নয়। আর এই সব লাশে যেমন প্রভূত চোরাকারবারের গন্ধ রয়েছে, তেমনি নিরস্ত্র, নিরীহ মানুষের রক্তের দাগও লেগে আছে। ২০১৯ সালের ১১ই জুলাই ভারতের মহামান্য স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পার্লামেন্টে একটি বিবৃতি দিয়ে জানান, যে বিএসএফের দ্বারা সীমান্ত হত্যার ঘটনা ক্রমশই কমছে। ২০১৯ সালের ১৯শে সেপ্টেম্বর বিএসএফের ডিজি এই বলে আশ্বস্ত করেন, যে অচিরেই সীমান্ত-হত্যার ঘটনা শূন্যে নিয়ে আসা হবে। রূঢ় বাস্তব কিন্তু অন্য কথা বলে! কলকাতার একটি মানবাধিকার সংস্থা, ‘মাসুম’-এর দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তে ফি-বছর বিএসএফের দ্বারা সীমান্ত-হত্যার ঘটনা গড়ে ১৮০ থেকে ২০০। যার মধ্যে অধিকাংশই ভারতীয়। ঢাকার একটি মানবাধিকার সংস্থা, ‘অধিকার’-এর দাবি করা তথ্য অনুযায়ী, ২০০০ থেকে ২০১৯ সালের মধ্যে ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তে বিএসএফের দ্বারা হত্যার ঘটনার সংখ্যা অন্ততপক্ষে ১,২৩৬। যার মধ্যে নারী ও শিশুও রয়েছে। বাংলাদেশ সীমান্তরক্ষী বাহিনী ‘বিজিবি’-র পরিসংখ্যান অনুযায়ী, ২০০১ থেকে ২০১৭ সালের মধ্যে বিএসএফের দ্বারা সীমান্ত-হত্যার ঘটনার সংখ্যা ৭৬৭।

    দীর্ঘ এগারো বছর ধরে অপেক্ষার প্রহর গুনতে গুনতে আজও সুবিচার অধরা। একটি নিরস্ত্র, আত্ম-নিরাপত্তাহীনা কিশোরীর মর্মান্তিক মৃত্যুর জন্য কেউ দোষী সাব্যস্ত হয়নি। ২০১৩ সালের সেপ্টেম্বর মাসে বিএসএফের বিশেষ আদালত অভিযুক্ত জওয়ানকে নির্দোষ বলে রায় দিয়েছে। ২০১৫ সালে সেই রায়ের পুনর্বিবেচনা মামলায় সেই একই আদালত অভিযুক্ত জওয়ানকে পুনরায় নির্দোষ ঘোষণা করেছে। ফেলানি ও তার বাবা অবৈধভাবে বাংলাদেশ থেকে ভারতে অনুপ্রবেশ করেছিল এবং একই কায়দায় তারা আবার স্বদেশে ফিরতে চেয়েছিল। সেটা নিশ্চিতভাবে বেআইনি কাজ এবং শাস্তিযোগ্য অপরাধই বটে। কিন্তু এ হেন অপরাধের শাস্তি কি মৃত্যু হতে পারে? আর এই মৃত্যুদণ্ড তো বিচার প্রক্রিয়ার মাধ্যমে আদালত-স্বীকৃত নয়! সীমান্তরক্ষীবাহিনীর কি কোনো নিরস্ত্র অনুপ্রবেশকারীকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়ার অধিকার আছে? ফেলানি সম্পূর্ণ নিরস্ত্র হওয়া সত্ত্বেও কেন তাঁকে গ্রেপ্তার করে বিচার প্রক্রিয়ার মাধ্যমে দোষী সাব্যস্ত করে শাস্তি দেওয়া হল না? কেনই বা একজন নিরস্ত্র কিশোরীর (হোক না সে অবৈধ অনুপ্রবেশকারী) সরাসরি বুকে গুলি করা হল? সুদীর্ঘ এগারো বছরের নীরবতা ফুঁড়ে উত্তর ফিরে আসে না!

    ২০১৫ সালে ভারতের জাতীয় মানবাধিকার কমিশন ফেলানির পরিবারকে পাঁচ লাখ** ভারতীয় টাকা ক্ষতিপূরণ দেওয়ার জন্য দেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রককে নির্দেশ দেয়, যদিও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক অদ্যাবধি তা কার্যকর করেনি। এই প্রসঙ্গে জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের তাৎপর্যপূর্ণ মন্তব্য হল, “যদিও দেশের সীমান্তরক্ষীবাহিনী সীমান্তে অত্যন্ত সংবেদনশীল দায়িত্ব পালন করে থাকে, কিন্তু সেই দায়িত্ব পালনের ক্ষেত্রে তাদের বেশ কিছু শৃঙ্খলা ও নিয়মবিধি মেনে চলা উচিত।” এই প্রসঙ্গে জাতীয় মানবাধিকার কমিশন ২০০৫ সালে প্রকাশিত বিএসএফেরই একটি আদেশনামার উল্লেখ করে। ঐ আদেশনামায় নির্দেশিত ছিল, যে প্রবল উস্কানিমূলক অবস্থাতেও সীমান্তে নিরস্ত্র মহিলা-শিশু এবং সশস্ত্র অনুপ্রবেশকারীদের মধ্যে চূড়ান্ত ফারাকটা বুঝে নিয়ে সেইমত ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। এক্ষেত্রে জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের গুরুত্বপূর্ণ মন্তব্যটি হল, “আলোচিত ঘটনার ক্ষেত্রে মৃত একজন নিরস্ত্র কিশোরী। ফলে যে বিএসএফ জওয়ান গুলি চালিয়েছিলেন, তিনি নিশ্চিতভাবে ২০০৫ সালে নির্দেশিত বিএসএফের আদেশনামা মেনে চলেননি।”

    দেশ, সীমানা, সীমান্ত রক্ষা – এই সব কিছুকে ছাপিয়ে যায় ঠায় দাঁড়িয়ে থাকা মানবিক সহানুভূতি। শতসহস্র সীমান্তে বিভাজিত আমাদের এই সাধের পৃথিবীটার শীর্ষ জুড়ে বিরাজ করুক মানবতা। এতকিছুর পরেও আশার কথা হল, ফেলানির বাবার ন্যায়বিচারের আবেদন গ্রাহ্য করে ভারতের মহামান্য শীর্ষ আদালত ফেলানি-হত্যা মামলাটি গ্রহণ করেছে। শীর্ষ আদালতের মহামান্য প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন বেঞ্চে সেই মামলার শুনানি ধার্য হয়েছিল ২০১৯ সালের ১৮ই জানুয়ারি। কিন্তু ভারতে করোনা ভাইরাসের দৌরাত্ম্যের কারণে সেই শুনানি স্থগিত হয়ে যায়। হয়তো অদূর ভবিষ্যতে ভারতের শীর্ষ আদালতে ফেলানি-হত্যা মামলাটির শুনানি পর্ব শুরু হবে। ততদিনে মৃত ফেলানির বুক থেকে মাথা তুলে চেয়ে থাকবে রাশি রাশি তিরতিরে চারাগাছ। চেয়ে থাকবে ঘরের চালে গুড়িসুড়ি দিয়ে শুয়ে থাকা চালকুমড়ো। উঁকি মেরে থাকবে পুঁইয়ের ডগা। নিকানো উঠোন। আর অন্তহীন প্রতীক্ষার প্রহর গুনতে গুনতে চেয়ে থাকবে ফেলানির হতভাগ্য মা-বাবা। আজ নয়, হয়তো কাল। নয়তো পরশু। নিশ্চয়ই কোনো এক হিমেল ভোরে কুয়াশার চাদর ফুঁড়ে ঠিক একদিন উদ্ভাসিত হবে আদুরি মেয়ের হৃদয়বিদারক মৃত্যুর ন্যায় বিচার!



    ** সংশোধিত



    Sources :
    1.“Teenage girl Felani killed by the BSF firing at Anantapur border under Kurigram District”, odhikar(অধিকার).org
    2.“Felani Khatun and a decade of unabated border killings”, ‘NewAge’, January 10, 2021.
    3.“10 years of Felani killing: family’s wait for justice continues”, ‘The Daily Star’, January 7, 2021.
    4.“Felani murdered nine years ago: Odhikar’s statement on the killings of and human rights violations on Bangladeshi nationals along the border by Indian Border Security Force”, ‘Asian Forum for Human Rights and Development’, January 6, 2020.
    5.“Last hope: Family of Bangladeshi girl shot by India’s BSF waits for justice from Supreme Court”, ‘Scroll.in’, January 9, 2018.
    6.“ফেলানি খুনে রেহাই জওয়ানের”, ‘Anandabazar Patrika’, July 4, 2015.
    7.“Divided bodies: Crossing the India-Bangladesh border”, ‘Economic and Political Weekly (EPW)’, March 2014.

  • আলোচনা | ০৭ জানুয়ারি ২০২২ | ১৮১০ বার পঠিত
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • | ০৮ জানুয়ারি ২০২২ ০৭:৫৮502545
  • একদম প্রথম দিন থেকেই জানা ছিল এর কোন বিচার হবে না। হয়ও নি।
  • santosh banerjee | ০৮ জানুয়ারি ২০২২ ১১:৫০502547
  • বিচার ? ভারতে ? কে‌ করবে ? সুপ্রিম কোর্ট ? কার বিচার করবে? একটি ""উইঘুর"" বালিকার ? মে বালিকার জীবনের সব স্বপ্ন একটা নির্বোধ বি এস এফ'র গুলি তে ? বিচার ? এ দেশে অর্নব গোস্বামীর মামলা যুদ্ধ তৎপরতায় শুনানি হয়, প্রধানমন্ত্রী'র তথাকথিত প্রান নাশ শুনে কেঁদে আকুল বিচারপতি গন। ঐ মেয়ের জীবনের দাম এদের কাছে নেই। মিথ্যে বিচার ব্যাবস্থা।ভড়ঙবাজী সব। কিন্তু, আমরা মেয়েটির জন্য কাঁদব। আমরা এখনও ঐ রাস্ট্রের মুৎসুদ্দী দের মতো, পদলেহী কুকুরের মতো শিরদাঁড়া টা ভাঙি নি !!
  • Somenath Guha | ০৮ জানুয়ারি ২০২২ ১২:৪৪502548
  • মর্মান্তিক। আর এই খুনি বাহিনীর একতিআর আরো বাড়িয়ে দেওয়া হলো। 
  • সে | 2001:1711:fa42:f421:20d9:6ac1:af07:3763 | ০৮ জানুয়ারি ২০২২ ১৫:০৪502550
  • সম্পূর্ণ ফেইলড স্টেট।
  • কৌশিক সাহা | ০৮ জানুয়ারি ২০২২ ২১:২৫502554
  • "গুলিটা ফেলানির বুকের ডানদিক ভেদ করে পিঠ দিয়ে বেরিয়ে যায়। "
     
    এই বর্ণনাটি কি নির্ভুল? মই বেয়ে ওঠার সময় তো বুক মইয়ের দিকে এবং পিঠ বাইরের দিকে থাকে।  এবং নিহত মেয়েটি যদি গুলি লাগার সময় মইয়ের মাথায় থেকে থাকে, তবে গুলির গতিপথ পিঠ থেকে বুকে এবং নিচ থেকে উপর দিকে হওয়ার কথা।
  • Debarshi Bhattacharya | ০৮ জানুয়ারি ২০২২ ২২:৪৪502555
  • @ কৌশিক সাহা
    যতদূর জেনেছি, গুলিটা নীচ থেকে ওপরের দিকে করা হয়েছিল এবং মইটা কাঁটাতারের গায়ে হেলানো ছিল। ফলে ঠিক নীচ থেকে ওপরের হেলানো মানুষকে গুলি করলে গুলিটা বুকেই লাগা স্বাভাবিক।
  • Abhyu | 47.39.151.164 | ০৮ জানুয়ারি ২০২২ ২৩:০৮502559
  • যদিও সেটা কোনো কথা নয়। এক্ষেত্রে ভারতের সমাজ ও বিচার ব্যবস্থার যে ছবি ফুটে ওঠে তার সঙ্গে আজকের পলিটিক্যাল সিচুয়েশন খুব ভালো ভাবে মিলে যায়।
  • Debarshi Bhattacharya | ০৮ জানুয়ারি ২০২২ ২৩:২৬502560
  • @ Abhyu 
    হ্যাঁ। পাঁচ লাখ হবে। ধন্যবাদ।
  • কৌশিক সাহা | ১০ জানুয়ারি ২০২২ ১০:৫৭502589
  • Debarshi Bhattacharya
     
    আপনার পঠিত 'অধিকার' সংস্থার reportএ বেশ কিছু অসঙ্গতি আছে, এমনকী ময়নাতদন্তকারী ডাক্তারের বিবৃতিতেও। 
     
    যথা, একটি জ্যামিতিক অসঙ্গতি স্পষ্ট।   কাঁটাতারের বেড়ায় হেলান দেওয়ার মই বেয়ে যে ব্যক্তি উঠছে, তার বুকে গুলি করতে হলে  সিপাহীকে মইয়ের নীচে দাঁড়িয়ে, কাঁটাতারের দিকে পিঠ ফিরিয়ে ওপর দিকে fire করতে হত। কোনো প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত সিপাহী এমন ঝুঁকি নেবে না।
     
    গুলি যেহেতু বুকের ডানদিকে লেগেছিল, অতএব ফুসফুস ফুটো হয়ে রক্তক্ষরণ হতে বাধ্য। এমনরূপে আহত ব্যক্তি আব্বুউউউ বলে আর্তনাদ করার অবস্থায় থাকে না। সমস্ত শ্বাসনালী রক্তে ভরে যায়। গুলি লাগার পর মেয়েটির আর্তরব আপনার কল্পনাপ্রসূত অলঙ্করণ। 
     
    কিন্ত এহ বাহ্য। কিন্ত কথা হচ্ছে, এমন একটি মর্মান্তিক ঘটনার বিবরণে এমন melodramatic
    অলঙ্কারের ব্যবহার কি নিতান্তই প্রয়োজনীয়? 
     
    দ্বিতীয়তঃ, মামলার নথিতে যদি 'অধিকার' সংস্থার report এর মত amateurish দলিল ব্যবহার হয়ে থাকে, তবে এ মামলা কস্মিনকালেও টিকবে না। বিচারব্যবস্থাকে দোষারোপ করা অর্থহীন। 
     
    তৃতীয়তঃ,  সৈনিক বা সিপাহীরা আমাদের মতই ছাপোষা মধ্য বা নিম্ন মধ্যবিত্ত ঘরের হুকুম তামিলকারী চাকুরীজীবি।  তাদের বোকা বুদ্ধিহীন বলে  ফাঁকা গালাগালি করলে কারোই গৌরববৃদ্ধি হয় না।
  • Debarshi Bhattacharya | ১০ জানুয়ারি ২০২২ ২২:৩৭502607
  • @ কৌশিক সাহা
     
    ১। গুলি লাগার পর মেয়েটির আর্তনাদ আমার কল্পনাপ্রসূত বলে মনে হওয়াটাই নিশ্চিতভাবে "কল্পনাপ্রসূত"!  অনুগ্রহ করে এটা পড়ে দেখবেন ... https://partitionstudiesquarterly.org/article/partition-prolonging-along-the-bengal-borderlands/
     
    ২। আমার বক্তব্য সিস্টেমের বিরুদ্ধে কোন ব্যক্তি বিশেষের বিরুদ্ধে নয়। তাই আমি অভিযুক্ত জওয়ানের নাম পর্যন্ত করিনি। কারণ তিনি একটা বৃহৎ সিস্টেমের একটি ক্ষুদ্র যন্ত্রাংশ মাত্র।
     
    ৩। Melodramatic অলঙ্কার ব্যবহার প্রশ্নে শুধু এইটুকুই বলার আছে যে, লেখক কোন ভঙ্গি ও শব্দ চয়ন করে তাঁর লেখা গড়বেন,সেটা একান্তই লেখকের পরিধির মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকা উচিত। সেটা কারও ভালো লাগতে পারে, আবার নাও লাগতে পারে। কিন্তু অন্যের সীমানায় অহেতুক মাথা গলানোকে সভ্য সামাজ "অনুপ্রবেশকারী" হিসেবেই চিহ্নিত করে থাকে।
     
    ভালো থাকবেন। শুভেচ্ছা অফুরান।
  • বিপ্লব রহমান | ১২ জানুয়ারি ২০২২ ০৭:০২502634
  • "ফেলানি" অপুষ্ট কিশোরীটি পরিবারে এতই অনাহুত ছিল, এতই ফেলনা ছিল যে, নামও রাখা হয়েছিল সে রকম। 
     
    কিন্তু তার নাম শুনলে, বিশেষ করে কাঁটাতারে উল্টো হয়ে ঝুলতে থাকা মৃতদেহের ছবি দেখলে, এতবছর পর আজও কলজের ভেতর মুচড়ে ওঠে!
    মনে আছে, সে সময় গুরুতেই এ নিয়ে তুমুল বিতর্ক উঠেছিল, এক পক্ষ জোর গলায় বলেছিল, সীমান্তে চোরাকারবারি বা অবৈধ মানুষ পাচার হলে গুলি হবেই! ঠিকই তো, সারা দুনিয়ার এই তো আইন...
     
    কিন্তু অভাব? দুকেজি চিনি বা চালের জন্য বা নিশ্চিত জীবনের  আশায় যে হতভাগ্য জীবন বাজি রেখে কাঁটাতার টপকায়, তার কী ভাতের অধিকার নাই? অধিকার নাই মুক্ত আকাশে মানুষের মতো বাঁচার? 
     
    এখনো মনে আছে, গুরুতে সে সময় অনেকটা এরকম লিখেছিলাম, কাঁটাতারে উল্টো হয়ে ঝুলছে অপুষ্ট, সস্তা জামা-কাপড়ে কিশোরী মেয়ে ফেলানি নয়, আসলে কাঁটাতারে উল্টো হয়ে  ঝুলছে আমার দুখিনী বাংলা! 
     
     
    ফেলানি হত্যার বিচার চাই না! কারণ, বিচার চেয়ে লাভ নাই, বি চা র  হ বে না
  • বিপ্লব রহমান | ১২ জানুয়ারি ২০২২ ০৭:০৬502635
  • পুনশ্চঃ এই লেখাটির বিভাগ "সমাজ" কেন? "অপর বাংলা" নয় কেন? "মানবাধিকার"ও তো হতে পারে? অথবা  "ফেলানি" নামে নতুন বিভাগ? 
  • সে | 2001:1711:fa42:f421:19d6:c498:59f4:d02 | ১২ জানুয়ারি ২০২২ ১১:০৮502636
  • "সীমান্তে চোরাকারবারি বা অবৈধ মানুষ পাচার হলে গুলি হবেই! ঠিকই তো, সারা দুনিয়ার এই তো আইন..." — না। সারা দুনিয়ায় এরকম আইন নয়। এভাবে গুলি চালানো আইন নয়। যে সব দেশ এভাবে মানুষের ওপর গুলি চালায়, সে সব দেশে মানবাধিকার নেই।
  • প্যালারাম | ১৫ জানুয়ারি ২০২২ ০৭:৩৪502673
  • @বিপ্লব রহমান, ঠিক বলেছেন - এ সবই হতে পারতো মনে হয়। মনে হচ্ছে, সাইটের যে রোবট লেখা পাবলিশ করে, সেটার অ্যালগো-তে গোলমাল আছে। 
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। সুচিন্তিত মতামত দিন