• বুলবুলভাজা  অপার বাংলা

  • আবার লজ্জা!

    মুহম্মদ সাদেকুজ্জামান শরীফ
    অপার বাংলা | ০১ নভেম্বর ২০২১ | ১৬৩৮ বার পঠিত | রেটিং ৪ (৫ জন)

  • এবারের দুর্গাপূজায় যা হয়ে গেল বাংলাদেশে, তা নিয়ে বলতে হলে কোথা থেকে শুরু করব? সেদিনের ঘটনা থেকে? কুমিল্লার পূজামণ্ডপে কোরান শরীফ রাখা হয়েছে, সকালে আগে থেকে তৈরি থাকা লোকজন সেই কোরানকে ঘিরে মুহূর্তে পরিবেশ ঘোলা করে ফেলল। পুলিশ আসল, কোরান নিয়ে যাওয়া হল। ইন্টারনেটের যুগে এই খবর ছড়িয়ে পড়তে কয়েক পলক হয়তো লেগেছে। যারা ফাঁদ পেতে এই মুহূর্তের সৃষ্টি করল, তারা তাদের কার্যক্রম এগিয়ে নিয়ে গেল। মণ্ডপ ভাঙচুর হল, প্রতিমা ভাঙা হল। পুলিশ মোটামুটি সেখানকার পরিস্থিতি স্বাভাবিক করল। কিন্তু কেন জানি, কর্তাব্যক্তিরা পুরো চিত্র দেখতে পেল না। সেদিন পার হলেও, পরের দিন থেকে শুরু হয়ে গেল বিভিন্ন জায়গায় সাম্প্রদায়িক শক্তির আস্ফালন, শক্তি প্রদর্শন। চট্টগ্রাম, ফেনি, চাঁদপুর রণক্ষত্রে পরিণত হল। হিন্দুদের বাড়ি পুড়ল, হতাহত হল, মন্দির ভাঙা হল। পরেরদিনও জারি থাকল এই কাণ্ড। ১৫ অক্টোবর, দশমীর দিন, সমস্ত হিসাব নিকাশ পাল্টে গিয়ে, কুরুক্ষেত্রে পরিণত হল নানা জায়গা। অনেক জায়গায় সকাল সকাল প্রতিমা বিসর্জন দিয়ে নিরাপদে থাকতে চেয়েছে অনেকেই। কিন্তু সবাই তো আর নিরাপদে থাকতে পারে না। দিনভর চলেছে পিশাচ-নৃত্য। সারা দেশে নানা জায়গায় শুরু হয়ে গেল ধ্বংসলীলা। এর ভিতরে রংপুর আরও এগিয়ে গেল। পুরো একটা গ্রাম জ্বালিয়ে দিল ধার্মিক পরিচয় দেওয়া পিশাচেরা।

    আমি সেখান থেকেই শুরু করব? শুরু কি কুমিল্লা থেকেই হয়েছিল? এর বীজ কি আগে পোঁতা হয়নি? এখন যে মহীরুহ দেখছি, যার শিকড় কত গভীরে পৌঁছেছে তার কোন হিসাব নেই, তার কথা না বললে বলা হবে পুরো কথা?

    ডঃ মুহম্মদ জাফর ইকবাল প্রায়ই একটা কথা বলেন। তিনি বলেন, একটা দেশ কেমন তা জানতে হলে, সেই দেশের সংখ্যালঘুরা কেমন আছে তা জানতে হবে। আমাদের দেশের সংখ্যালঘুরা কেমন আছে? এখানেই লজ্জায় মুখ লুকাতে হয় সংখ্যাগুরুর। আমারা ভাল রাখতে পারিনি আমার প্রতিবেশীকে। নানা প্রতিবেদন, গবেষণা প্রমাণ করছে যে আমরা কত যত্ন করে দেশের বিশাল একটা অংশের মানুষকে স্রেফ দেশ থেকে তাড়িয়ে দিয়েছি। গবেষণা বলছে, প্রায় একটা দেশের মত জমি আমরা দখল করেছি শুধু মাত্র দেশছাড়া করেই! কত চমৎকার না ব্যাপারটা? এই যে পরিস্থিতি – তা হুট করেই তৈরি হয়েছে? আকাশ থেকে নাজিল হয়েছে গজব?

    সংখ্যাগুরুর পায়ের পাতা থেকে মাথার চুল পর্যন্ত নানা অনুভূতি। পোশাকে অনুভূতি, জুতাতে অনুভূতি, চোখের দৃষ্টিতে অনুভূতি। পান থেকে চুন খসলে এই সব অনুভূতি আঘাত প্রাপ্ত হয়। সেই সংখ্যাগুরুর ধর্ম-অনুভূতি কত শক্তিশালী হতে পারে? এখানে পান থেকে চুন খসা অনেক বড় ব্যাপার – পান আর চুন নেওয়া পছন্দ না হলেও কারো কারো অনুভূতিতে আঘাত লাগতে পারে!

    অন্যদিকে সংখ্যালঘুর কোন অনুভূতি নাই। পেটে নাই, রক্তে নাই, ঘরবাড়ি কোথাও কোন অনুভূতি নাই। এই যাদের অবস্থা, তাদের আবার ধর্মের অনুভূতি? এগুলা বিলাসিতার পর্যায়ে চলে গেছে এখন। এখন অবস্থা হচ্ছে – ভিক্ষা চাই না মা, তোর কুত্তা সামলা!

    আমি ব্যক্তিগতভাবে পূজার সময়টাতে আমার শহরে ছিলাম না। কিন্তু খুব মিস করতেছিলাম আমার জেলার, আমার শহরের পূজাকে। তড়িঘড়ি করে উপস্থিত হলাম অষ্টমীর রাতে। সন্ধ্যায় যখন আমি শেরপুর পৌঁছাই, তখন শহরে পা দিয়েই বুঝলাম, কোথাও একটা তার কেটে গেছে। আমাদের ছোট শহরে প্রায় পাঁচশ’ পূজামণ্ডপে পূজা হয়। পূজার কয়টা দিন শহরে পুলিশ আমাদেরকে রিকশা নিয়ে ঢুকতে দেয় না। আগেই নামিয়ে দেয়। সবাই রিকশা বা অটো নিয়ে শহরে ঢুকলে শহর জ্যামে একেবারে বন্ধ হয়ে যাবে। তাই এই বুদ্ধি। আমি বাস থেকে নেমে, বাড়ি না গিয়ে আগে শহরে ঢুকলাম। অষ্টমীর দিন রাতে বেধুম মজা হয়, আমি সেই মজা কোনোমতেই হারাতে চাইনি। কিন্তু আমি শুরুতেই বুঝলাম সব স্বাভাবিক না। মানুষ আছে কিন্তু নাইও। যে পরিমাণ মানুষ আমরা দেখে অভ্যস্ত, তার সিকিভাগ মানুষ নাই শহরে। আমার বুঝতে খুব একটা দেরি হয়নি। কুমিল্লার ভূত এসে হাজির হয়েছে এখনেও। তীব্র রাগ হল। কিন্তু কিছুই করারও নাই। আমি জানি শহর হিসেবে শেরপুর বেশ শান্ত। এখানে তেমন কিছু হওয়ার ভয় নাই, যার জন্য আতঙ্কিত হতে হবে কাওকে। কিন্তু আমি তো ভাগ্যগুণে সংখ্যাগুরুর দলে, আমি কি জানি একজন সংখ্যালঘুর মনে কী চলছে? কোনোদিন জানা সম্ভব? একটা সময় পর্যন্ত আমি মানতে চাইতাম না। আমি বলতাম – আরে দেশ তোর, মাটি তোর, কেউ কিছু বললেই কাঁটাতার পার হতে হবে? আমাদের উপরে জুলুম হয় না? আমরা দৌড় দেই? আমরা এখানেই দাঁতে কামড় দিয়ে পড়ে থাকি; জীবন যায় তবুও এখানেই জীবন দেই – আমাদের যাওয়ার জায়গা কই? তোরা কেন পারস না? এগুলা কত বেহুদা কথা, তা যদি জানতাম! আমার উপরে জুলুম হয় যে কারণে, সেই কারণে তাঁদের উপরেও হয় জুলুম। তাঁদের সাথে যুক্ত হয় আরেকটা বাড়তি বিষয়, তুই সংখ্যালঘু! তুই হিন্দু, তুই ভাগ এখান থেকে! এই অনুভূতি আমার বুঝে আসা সম্ভব? আমি কোনোদিন বুঝতে পারব, ঈদের দিন কেউ এসে ঈদের নামাজে আক্রমণ করে নামাজ ভণ্ডুল করে দেওয়ার অনুভূতি? সংখ্যাগুরুর মস্তিষ্ক দিয়ে সংখ্যালঘুর অনুভূতি বুঝা মুশকিল। খুব বেশি হলে আমি আমার জ্ঞান-বুদ্ধি দিয়ে বুঝতে পারি, যে একটা অন্যায় হচ্ছে। কিন্তু অনুভূতি বুঝি কী দিয়ে?

    প্রতিবার পুজা শুরুর আগে আমি মনে মনে শঙ্কিত অবস্থায় থাকি। মনে মনে কামনা করতে থাকি, এবার কোথাও কোন গণ্ডগোল হবে না। এবার অন্তত পুরো দেশের সকল মানুষ উৎসবে অংশ নিবে, মনের কোথাও কোন দ্বিধা, কোন তিক্ততা থাকবে না, কোন অজানা ভয়ে কেউ শিউরে উঠবে না। আমি পাপীতাপী মানুষ, আমার চাওয়ায় কোনো কিছুই হয় না। প্রতিবারই তাই কোথাও না কোথাও, কেউ না কেউ, বিপুল বিক্রমে ধর্ম প্রতিষ্ঠা করতে লেগে যায়। ঈদের দিন কেউ ঈদগায়ে ময়লা আবর্জনা ফেলে দিয়ে আসল, ক্যামন লাগবে? উৎসব চলছে, কেউ অবিশ্বাস্য অভিযোগ এনে বেধুম পিটুনি দিল আপনাকে, ক্যামন লাগবে? আমরা জানি না। আমরা এই দেশে সংখ্যাগুরু, আমাদের বোধের বাহিরে এই সব। কিন্তু আমাদেরই প্রতিবেশী, আমাদেরই বন্ধু বান্ধবদের প্রতি বছর এমন অভিজ্ঞতার ভিতর দিয়ে যেতে হয়। এর চেয়ে লজ্জার কিছু হতে পারে? আমার মন প্রতিবারই কুঁকড়ে যায়, যখন শুনি কোথাও আঘাত হেনেছে শকুনেরা। আমার মনে হয় প্রত্যেক হিন্দু বন্ধুবান্ধব, ভাইবোনদের কাছে গিয়ে করজোড়ে ক্ষমা চাই আমি। এই দায় আমাদের, এই লজ্জা আমাদের। দিনের পর দিন অদ্ভুত এক পিশাচ নেচে যাচ্ছে আমাদের সামনে, আমরা দেখেও দেখি না, শুনেও শুনি না। আর ধীরে ধীরে এদের শক্তি বৃদ্ধি পাচ্ছে। এর দায় আমাদের নিতে হবে না? সরকার কিছু করল না বলে বসে থাকার সময় আছে? রক্তের বিনিময়ে পাওয়া দেশ, কারো দয়া-দক্ষিণায় পাওয়া দেশ না। এত সহজে মৌলবাদের উত্থান মেনে নেওয়া যায়? এর জন্য দেশ স্বাধীন হয় নাই। এর জন্য মুক্তিযুদ্ধ হয় না। মৌলবাদের জন্য জর্জ হ্যারিসন গান গায় নাই, এই দেশের জন্য জ্যঁ ক্যুয়ে বিমান ছিনতাই করে নাই, এমন দেশের জন্য বাল্টিমোরে সাধারণ মানুষ পাকিস্তানের জাহাজ আটকে দেয় নাই। ভিন্ন-ধর্মাবলম্বীদের তাদের ধর্ম পালন করতে দিবেন না – এমন দেশের জন্য কোনো মুক্তিযোদ্ধা যুদ্ধ করে নাই। রক্তের হিসাব দিতে গেলে, দাম হিসাব করতে গেলে দেখা যাবে সবচেয়ে বেশি রক্ত দিয়েছে হিন্দুরাই। আজকে রেডিমেড দেশ পেয়ে ধর্মশিক্ষার ক্লাস নিচ্ছে জারজেরা!

    লজ্জার এই দিন একদিনে আসেনি। ক্ষেত্র তৈরি করা হয়েছে, জমিতে পানি দেওয়া হয়েছে, হাল চাষ করা হয়েছে, বীজ রোপা হয়েছে। বৃক্ষ বড় হয়েছে, এর শেকড় পৌঁছে গেছে কতদূর আমরা জানি না। আমরা সব দেখেছি। অদ্ভুত এক কারণে আমরা কিছুই করিনি। আমরা মেনে নিয়ে চুপ করে দেখেছি। বিচ্ছিন্ন ঘটনা বলে মনোযোগ সরিয়ে রেখেছি। হেফাজতের মত দলকে সরকার যেভাবে পারছে সেভাবে সাহায্য করে গেছে। হেফাজতের নেতারা খুশি হয়ে সরকার প্রধানকে কওমি জননী উপাধি দিয়েছে। কওমি জননী উপাধিও রক্ষা করতে পারেনি, দুই দিন পরেই সরকার পতনের আন্দোলনে ডাক দিয়েছে এই নেতারা। কে কোন মন্ত্রণালয় নিবে – এই দ্বন্দ্বে ক্ষমতা আর নেওয়া হয়নি। এই যে মৌলবাদকে মাথায় তোলা, এর দায় কে নিবে? সব বিরোধী দলের ষড়যন্ত্র বলে পার পাওয়া যাবে? বিএনপি ক্ষমতা ছাড়ছে সেই ২০০৬ সালে! দুই বছর তত্ত্বাবধায়ক সরকার দেশ চালানোর পর থেকে আওয়ামীলীগ ক্ষমতায়। এখনও যদি বিএনপি জামাতের কথা শুনতে হয় তাহলে বিপদ না? তারা ক্ষমতার জন্য নানা কাণ্ড করবে, তা প্রতিহত করবে কে? কোরান রাখার পরে যখন পরিষ্কার বুঝা যাচ্ছিল, একটা বড় গণ্ডগোলের দিকে যাচ্ছে, তখন প্রশাসন কেন সেই নাশকতা ফেরাতে ব্যর্থ হল? প্রায় ঘোষণা দিয়ে আক্রমণ হল মন্দিরে – যে প্রশাসন ব্যর্থ হল এই আক্রমণ প্রতিহত করতে, তাদের কোথায়, কোন আলমারিতে রাখা উচিত?

    প্রশাসনের ব্যর্থতা নিয়ে কোন দ্বিমত নাই। কিন্তু ওই যে বললাম একটু আগে শিকড় – এই শিকড় কত গভীরে পৌঁছে গেছে – তার খোঁজ যদি কেউ না নেয়, তাহলে সরকার বেটে তাবিজ করে গলায় ঝুলিয়ে দিলেও কোনোদিন এর সমাধান হবে না।

    অশিক্ষিত জনগোষ্ঠী আমাদের এই সমস্যার সবচেয়ে বড় উপাদান। যারা শিক্ষিত, তারাও মানসম্পন্ন শিক্ষায় শিক্ষিত হয়েছে, এমন কথা জোর গলায় বলতে পারা যাবে? ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে বিবর্তন পড়ানো হয় এই কথা বলে, যে এগুলা সব ভুয়া, পরীক্ষার জন্য পড়, বিশ্বাস করার দরকার নাই! আরেকদিন দেখলাম, কোন শিক্ষক শুধু ক্লাসে ইভল্যুশন শব্দটা বলেছে সাথে সাথে একজন উঠে তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছে, যে ইভল্যুশন নিয়ে কথা বলা যাবে না – এগুলা বলা হারাম! অন্ধকার কত তীব্র বুঝা যাচ্ছে?

    মৌলবাদকে আপনি রুখবেন কী দিয়ে? সংস্কৃতিক আন্দোলন ছাড়া সম্ভব? এই দিক দিয়ে আমরা দিনদিন নির্জীব হয়ে যাচ্ছে। যার ফলে মৌলবাদী শক্তির পক্ষে মাথাচাড়া দেওয়া সহজ হচ্ছে। যে ছেলে পাড়ায় গান বাজনা, নাটক নিয়ে মজে থাকত, তাকে বুঝানো কষ্টকর হত যে ধর্মের নামে অমুকের বাড়ি জ্বালিয়ে দেও। আমাদের দুর্দান্ত সামাজিক পরিবেশটা আমরা নষ্ট করেছি। বা কেউ পরিকল্পিত ভাবে নষ্ট করেছে, আমরা ধরতেই পারিনি – যে কেউ কলকাঠি নেড়ে এই সব বন্ধ করছে। শীতের আগমনী বার্তা পাওয়ার পরেই দেখতাম পাড়ার বড় ভাই বোনেরা কী থেকে কী দিয়ে নাটকের আয়োজন করছে। কারো একজনের বাসায় চলছে মহড়া। আমরা ছোটরা চোখ বড় বড় করে দেখছি তাদের কাণ্ডকারখানা। আমাদের আশেপাশে অন্তত দুই চার বাড়ি পরে পরেই এমন বাড়ি পাওয়া যেত যাদের বাসায় হারমোনিয়াম আছে, কিছু হোক বা না হোক চেষ্টা চলত সঙ্গীত চর্চার। দরাজ গলায় আবৃত্তি শুনার অভিজ্ঞতা তো আমার ঢাকা গিয়ে হয়নি, তা তো আমার বাড়িতেই হয়েছে। চমৎকার আবৃত্তি করতেন মেজোপা, মনে আছে পুরো বিদ্রোহী কবিতা মুখস্ত ছিল উনার। আমার দাঁত লেগে যেত পড়তে গেলেই আর উনি এক টানে বলে যাচ্ছেন!

    টাউন হলে সর্ব প্রথম মঞ্চ নাটক দেখেছিলাম আমাদের শেরপুরের পেশাদার থিয়েটার মোস্তফা থিয়েটারের। এতদিন পাড়ার ছেলেমানুষী জিনিস দেখে যখন মঞ্চের প্রকৃত চেহারা দেখলাম, তখন আমার সে কী শিহরণ! সবাইকে চিনি, তাঁরা কেমন পাল্টে গিয়ে চরিত্রের ভিতরে চলে যাচ্ছে! এই সব অলীক গল্প এখন। সমস্ত থিয়েটার বন্ধ। সর্বশেষ কবে মঞ্চনাটক হয়েছে, তা আমরা কেউ বলতেই পারি না।

    টাউন হলে আরও কত কি হত। উপস্থিত বক্তৃতা, নাচ, বিতর্ক, নানান কুইজ! এগুলা সরকারি নানা আয়োজনের বাহিরেই হত। এখন সরকারিগুলোই হয় কি না, জানি না আমি।
    আমার শহর পিছিয়ে আছে আর সব জায়গায় জোরেশোরে চলছে সব কিছু? না। মঞ্চনাটক ঢাকায় বন্দী হয়ে রয়েছে। মূলত সাংস্কৃতিক আন্দোলন যা বা যেটুকু টিকে আছে তা ঢাকাকেন্দ্রিক। আর ঢাকা, বাংলাদেশ না।

    আমার কাছ থেকে সংস্কৃতি কেড়ে নিয়ে কী দেওয়া হল? আমাদের জন্য বহাল করা হয়েছে ওয়াজ! নানান কিসিমের বক্তা তৈরি হয়েছে। এক সময় সাইদি একা ছিল ওই মাঠের সুপার স্টার। এখন শত শত সাইদি। এরা মনের সুখে নিজেদের মত করে ধর্ম বয়ান করে চলছে। শীতের এই কয়দিন কোনো রোগী থাকতে পারবে না, বিধর্মীদের কানে তুলো দিয়ে থাকতে হবে, এখন কেউ শব্দদূষণ ধরনের কথা বলতে পারবে না। রোগী হোক বা ধর্মীয় কিছু হোক, এদের বিরুদ্ধে কিছু বললে ব্লাসফেমি হয়ে যাবে! কারো না কারো, কোথাও না কোথাও আঘাত লেগে যাবে! দেশ তরতর করে এগিয়ে যাচ্ছে তো এদের জোরেই! চিরশান্তির দেশ না আমাদের? প্রতি বছর দুর্নীতিতে প্রথম হওয়ার জন্য তীব্রভাবে চেষ্টা করি আর এই দেশেই ধর্মের অবমাননা হয় বলে প্রাণ যায় নিরীহ মানুষের।

    বই পড়া তো আমরা পাপ বলে মনে করি। এইটা নিয়ে বেশি কিছু বললে মানুষ বিরক্ত হয়ে চলে যেতে চায় এদিক সেদিক। আরে, তুমি পড় না! সবাইকে বই পড়তে হবে কেন? জানার কিছু হলে গুগল করব, না হয় তোমাকেই জিজ্ঞাস করব, বই পড়তে হবে কেন? আমরা বই পড়ি না, বইয়ের আর বইয়ের লেখকের নাম মুখস্ত করি। এইটা লাভ, এতে লাভ আছে, চাকরির পরীক্ষায় কাজে লাগে। বই পড়তে হবে কেন? একজন সরকারি কর্মকর্তা আমার হাতে চিলেকোঠার সেপাই দেখে বলেছিল, এই বই তুই পড়ছস? উনার আরেকটা উপন্যাস আছে না? খোয়াবনামা? আমি আগ্রহ নিয়ে জানতে চাইলাম, ও পড়ছে কিনা? সে উত্তর দিছিল, আরে নাহ্‌! মুখস্ত করছিলাম চাকরির পরীক্ষার জন্য! এ যেন সহজ স্বীকারোক্তি, আমি যুগান্তরী নই! অতএব বই পড়ার দরকার নাই। আখতারুজ্জামান ইলিয়াসের জন্ম কোথায়, কত সালে, এগুলা কি আমি জানি? তারা জানে এবং তারা সরকারি কর্মকর্তা! লাভ কোনটা – হাড্ডি খিজিরকে চেনা, না দুধ ভাতে উৎপাত কার লেখা তা মুখস্ত করা? বই পড়া বন্ধ এই দেশে। বই পড়া ছাড়া অন্ধাকার দূরের আর কোনো রাস্তা আমার জানা নাই।

    প্রসঙ্গ থেকে দূরে সরে এসেছি মনে হয়। নব্বইয়ে লজ্জা লিখে তসলিমা নাসরিন দেশ ছাড়া হয়েছিলেন। লজ্জার যে গল্প, তা থেকে এত বছরে কতদূর আসতে পেরেছি আমরা? কুমিল্লার ঘটনা কি আমাদের চোখে আঙুল দিয়ে দেখাচ্ছে না, যে আমরা সেখানেই স্থির হয়ে দাঁড়িয়ে আছি কিংবা আরও পিছনে দৌড়াচ্ছি?
    আশার আলো দেখা যায় কোথাও? প্রশাসন এখন পর্যন্ত প্রচুর মামলা আর আসামি ধরেছে। কুমিল্লার ঘটনার মূল কারিগর ইকবাল আর তার সহযোগীদের ধরেছে। কিন্তু কারা তাদেরকে উস্কে দিল, কাদের প্ররোচনায় এই কাণ্ড করা হল, তার ব্যাপারে খুব একটা কিছু আমরা জানতে পারিনি। বিপদ এখানেই শেষ হলে বেঁচেই যেতাম আমরা। সমস্ত আসামিদের ধরলেই কি এই বিপদ থেকে মুক্তি লাভ হবে? সাধারণ মানুষের মগজে যে বিষ সেই বিষের চিকিৎসা কই? শখ করে যারা বিষ নিয়ে ঘুরছে, তাদের থেকে রক্ষা পাওয়ার উপায় কী?

    আমার জানা নাই। প্রতিবার একটা ঘটনা বা দুর্ঘটনা ঘটার পরে আমরা লেখালেখি করি, ঢাকাবাসী মিছিল করে, মানব বন্ধন করে শাহবাগের রাস্তা আটকে, টিএসসিতে তীব্র প্রতিবাদ হয়। পত্রিকায় শিরোনাম হয়। কিছুদিন পরে সব স্বাভাবিক। মানুষ ক্রিকেট, মেসি, রোনাল্ডো, বার্সা-রিয়েলে ভুলে যায়। আবার একজনের ঘরে আগুন দেওয়া হলে, একজন সব হারিয়ে সর্বস্বান্ত হলে, আবার কোন প্রতিমা ভাঙা হলে, কোথাও কারো রক্তপাত হলে আমাদের স্মরণ হয় যে আমরা একটা অন্ধকার সময় পার করছি। অন্ধকার আমাদের এমন ভাবে সয়ে গেছে, যে আমরা এখন আর আলো-অন্ধকারের পার্থক্য বুঝি না। আলোই দেখি না বলে হয়তো বুঝি না।

     

  • বিভাগ : অপার বাংলা | ০১ নভেম্বর ২০২১ | ১৬৩৮ বার পঠিত | রেটিং ৪ (৫ জন)
  • কোনোরকম কর্পোরেট ফান্ডিং ছাড়া সম্পূর্ণরূপে জনতার শ্রম ও অর্থে পরিচালিত এই নন-প্রফিট এবং স্বাধীন উদ্যোগটিকে বাঁচিয়ে রাখতে
    গুরুচণ্ডা৯-র গ্রাহক হোন
    গুরুচণ্ডা৯তে প্রকাশিত লেখাগুলি হোয়াটসঅ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে যুক্ত হোন। টেলিগ্রাম অ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলটির গ্রাহক হোন।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • পাতা :
  • aranya | 2601:84:4600:5410:60f7:65f3:d568:68ff | ০১ নভেম্বর ২০২১ ২২:০৭500558
  • 'সমস্ত থিয়েটার বন্ধ। সর্বশেষ কবে মঞ্চনাটক হয়েছে, তা আমরা কেউ বলতেই পারি না'
    - নাটক-ও করা ​​​​​​​যাচ্ছে ​​​​​​​না ​​​​​​​:-(
  • প্রত্যয় ভুক্ত | ০১ নভেম্বর ২০২১ ২২:০৯500559
  • খুব সহজ ভাষায়,উপর-উপর,ভাসা-ভাসা চিত্র হলেও একটা ভয়ঙ্কর অন্ধকারের যতখানি আভাস এ লেখায় ফুটেছে,তা এক কথায় শিহরিত করে,আমাদের , যুগপৎ ভয়ে ও ঘৃণায়।কিন্তু এই অন্ধকার ছিঁড়ে বেরোনোর হাতিয়ার এক ও একমাত্র , ব‌ই,সুস্থ,উদার,স্বাভাবিক ,মানবিক রুচি ,সম্পর্ক ও আন্তরিকতার কথা বলে যে ব‌ই।এই ওষুধ মুখের কাছেই রয়েছে,শুধু জেদ আর অন্ধবিশ্বাসের বশে তা দূরে সরিয়ে দিলে এ আঁধারের রোগ‌ই বাংলাদেশকে একদিন গিলে খাবে,যা আগেও অন্যন্য দেশে,অন্যন্য যুগে ঘটেছে বারংবার।দেশের রাজধানীর প্রধান বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষাব্যবস্থায় এরকম বিকৃতির প্রকাশ‌ই জগৎসভা থেকে সেই দেশের স্বেচ্ছা নির্বাসনের এক দুঃখজনক অথচ সত্য প্রমাণ।
  • aranya | 2601:84:4600:5410:60f7:65f3:d568:68ff | ০১ নভেম্বর ২০২১ ২২:১৪500560
  • শক্তিশালী লেখা। এই লেখাটা বহুল প্রচারিত হলে ভাল হত। তবে তার ঝুঁকিও আছে। সাবধানে থেকো, শরীফ 
  • বিপ্লব রহমান | ০১ নভেম্বর ২০২১ ২৩:১৭500563
  • ধর্মীয় সংখ্যালঘুর এ দেশে হিন্দু-বৌদ্ধ মন্দির পদ্ধতিগতভাবে নানান মৌসুমে পোড়ে, সত্যিকার অর্থে মুর্তি-ভাঙাভাঙি শুরু হলে টের পাওয়া যায়, দুর্গা পূজা আসন্ন।

     কিন্তু বরাবরই আরেক পৌত্তলিক খ্রিষ্টানের গির্জা ঘরে একটি ঢিলও পড়ে না, যিশু তো বটেই, সাধু-সন্ত সমেত কুমারি মাতা মরিয়মের পরিবার অক্ষুন্নই থেকে যান।

     কি আয়রনি!!

  • aranya | 2601:84:4600:5410:55b4:19d:37aa:2712 | ০১ নভেম্বর ২০২১ ২৩:২৪500564
  • বিপ্লব, এর কারণ কী - গির্জা পোড়ালে পশ্চিমী দেশগুলোর সাহায্য পাওয়া যাবে না? 
  • বিপ্লব রহমান | ০১ নভেম্বর ২০২১ ২৩:২৯500565
  • অরণ্য,  
     
    হতে পারে, আবার মোল্লার গডফাদার সিআইএ, এটিও কারণ হতে পারে! গভীর কারণ অনুসন্ধানের বিষয়
  • aranya | 2601:84:4600:5410:55b4:19d:37aa:2712 | ০১ নভেম্বর ২০২১ ২৩:৩১500566
  • ঠিক, তাও হতে পারে 
  • ar | 173.48.167.228 | ০২ নভেম্বর ২০২১ ০৮:০৯500570
  • আল কিতাবিয়া!! (আহল আল-্কিতাব!!)
     
  • guru | 103.135.229.175 | ০২ নভেম্বর ২০২১ ১৩:৩১500595
  • বিপ্লব একেবারে ঠিকঠাক ধরেছেন | আচ্ছা এমন তো নয় যে বাংলাদেশে আসলে জামাত হেফাজত সবাই আসলে খ্রীষ্টান হয়ে গেছে গোপনে |জামাত হেফাজত অনেকেই আসলে আমেরিকা বা ইউরোপে রেফিউজি নিচ্চে কাজেই হয়তো এরা খৃস্টানদের উপর হামলা করতে ভয় পায় | আপনার কি মনে হয় বিপ্লবভাই ? 
  • guru | 103.135.229.175 | ০২ নভেম্বর ২০২১ ১৩:৫১500598
  • তছাড়া আমার এক মার্কিন ইভাঞ্জেলিস্ট খৃস্টান বন্ধু আমাকে বলেছিলো প্রায় বছর ১৫ আগে, যে বাংলাদেশে ছোট মফস্সল শহরে আর গ্রামে সবাই খৃস্টান হয়ে গেছে আজকাল আর কেউ মসজিদ বা মাজারে যায়না এমনকি বাংলাদেশের ক্রিকেট দলে আর সরকারেও অসংখ্য খ্রীষ্টান আছে যারা মূলত বিদেশী NGO দের কারণেই সবাই খ্রীষ্টান হয়ে গেছে | বাংলাদেশে ছোট মফস্সল শহরে আর গ্রামে সবাই শুধু চার্চ যায় এবং মসজিদ মাজার প্রায় দেখাই যায়না | বাংলাদেশের দুজন বিখ্যাত ক্রিকেটার  শেখ রফিক আর শেখ রাসেল আসলে খ্রীষ্টান | হাসিনার নিজের ছেলেও খ্রীষ্টান | 
     
    বিপ্লব আর সাদেক ভাই তাহলে কি বাংলাদেশের এই নব্য খৃষ্টানরাই হিন্দুদের উপর অত্যাচার করছে ? আপনারা যেহেতু ব গ্রামে যাতায়াত করেন তারা কি মনে করেন যেহেতু বাংলাদেশের গ্রামে এখন প্রায় অনেকে খ্রীষ্টান তাই হয়তো হিন্দুদের উপর অত্যাচারের ঘটনা বেড়ে গেছে ?আপনাদের মতামতের অপেক্ষায় রইলাম |
  • Parichaya Sengupta | ০২ নভেম্বর ২০২১ ১৯:৫৩500608
  • ধর্মীয় মৌলবাদ গোটা উপমহাদেশের সমস্যা। আমি পশ্চিমবঙ্গে থাকি, বাংলাদেশকে খুব কাছে থেকেই দেখি। দুই দেশেই সংখ্যালঘুরা সংকটে রয়েছে। বাংলাদেশে কুমিল্লাতে যে মন্ডপে কোরাণ রেখেছে তারই মৌলবাদতুতো নিকটাত্মীয় ভারতের মন্দিরে গোমাংস ফেলে যায়। দুই দেশেই রাজনৈতিক দলগুলি এইসবব ঘটনাকে প্রশ্র‍য় দেয়। ভারতে হিন্দুধর্মের রক্ষাকর্তা বলে চিহ্নিত দলের ওপরমহল মুসলমানদের ঊৎসবে টুইট করে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির ভড়ং করে আর নিচের তলাকে ছেড়ে দেয় হোয়াটসঅ্যাপে সাম্প্রদায়িক হিংসা ছড়ানোর জন্যে। গোটা উপমহাদেশে সংখ্যালঘুরা সর্বত্র সংক্টে। 
  • Haranath Bhattacharya | ০২ নভেম্বর ২০২১ ২০:০৬500610
  • বাঃ! খুব ভালো
  • Muhammad Sadequzzaman Sharif | ০৩ নভেম্বর ২০২১ ০১:২১500617
  • guru, একেবারে কাঁচা গুল মেরে দিছি কেউ আপনাকে। শেখ রফিক আর শেখ রাসেল নামে কোন ক্রিকেটার নাই। অন্তত জাতীয় পর্যায়ে নাই। মিশনারিরা কাজ করে আদিবাসীদের নিয়ে, সেখানে ভালই অগ্রগতি হয়েছে। এর পক্ষে বিপক্ষে অনেকই আছেন। আমি ধর্ম পরে খুঁজে আগে অন্য জিনিস খুঁজি। এই মিশনারিরা এদেরকে চিকিৎসা, শিক্ষার ব্যবস্থা করে দিয়েছে। যখন কেউ এদের খোঁজ নিত না তখন এরাই একেবারে বদ্ধ গ্রামে, পাহাড়ি অঞ্চলে যেখানে চলাচলের সহজ উপায় নেই সেখানে মানুষের চিকিৎসা, শিক্ষা, খাদ্যের ব্যবস্থা করে দিয়েছে। এর বিনিময়ে ধর্ম ধরায় দিয়েছে। এতে ক্ষতি হয়েছে কিনা জানি না। তবে এদের জীবন পরিবর্তন হয়েছে এটা সত্য। এদের পরিমাণ খুবই অল্প। দেশে তলে তলে সবাই খ্রিস্টান হয়ে গেছে এই খবর মোল্লারা পেলে আরেক কেলেঙ্কারি করে বসতে পারে। ৯০% মুসলিমের দেশ বলে গলা ফাটায় সকাল বিকাল আর আজকে যদি শুনে বেশির ভাগ খ্রিস্টান তাহলে কেলেঙ্কারি না? 
    সিআইএ এর পিছনে কাজ করছে কিনা আমার জানা নাই। অত বড় মাথা নিয়ে জন্ম নেই নাই যে আমেরিকান চাল বুঝে ফেলব। আমার কাছে যা মনে হয় খ্রিস্টানদের উপাসনালয় ভাঙে না কারণ এদের সাথে লড়ে ফায়দা কম। হিন্দু জনগোষ্ঠীর সাথে সহজেই ভারতকে মিলিয়ে ফেলা যায়। ভারতের দালাল বলা যায়। রাজনৈতিক ফায়দা হাসিল করা যায়। ধর্ম তো এখানে মুখ্য না। ধর্ম মুখ্য হলে না হয় যুক্তি পাওয়া যেত যে সারা দুনিয়ায় খ্রিস্টান তথা আমেরিকানরা মুসলিমদের ওপরে অত্যাচার করছে কাজেই দেশে যে কয়টা খ্রিস্টান আছে তাদের জীবনকে নরক করে তুলব। তা হচ্ছে না কারণ আসলে ধর্ম মুখ্য না। ধর্মের আবরণে অন্য কিছু হাসিল করার চেষ্টা। ধর্মের জন্য কেউ মন্দির ভাঙে না, মানুষ মারে না। ধর্মের নামে সম্পূর্ণ ভিন্ন কিছু পাওয়া হচ্ছে মূল লক্ষ্য। 
  • সৌর | 45.118.9.32 | ০৩ নভেম্বর ২০২১ ০১:২২500618
  •  আর কি মতামত দেবো? না পারি বিদ্রোহ করতে, না পারি দেশদ্রোহী হতে। ক্লীব হয়ে যাচ্ছি না বুড়ো হয়ে সেটিই বুঝতে পারি না আজকাল।
  • Amit | 203.0.3.2 | ০৩ নভেম্বর ২০২১ ০৪:২২500619
  • এই গুরু নামক তালিবান মানসিকতার ব্যক্তিটির পোস্টগুলো কিন্তু খুব ভালো লাগে পড়তে। যেখানেই ইনি ইসলামিক বর্বরতা বা সাম্প্রদায়িকতা দেখেন সেখানেই আলোচনার ভান করে বেশ সুন্দর ভাবে কল্পিত খ্রীষ্টান কন্সপিরেসি , পাকিস্তানী মেয়েদের প্রসঙ্গ , তালিবানের আফিং চাষ , লেবানন এর রাজনীতি ইত্যাদি ভাট এনে ফেলে বেশ সুন্দরভাবে জল ঘুলিয়ে দেয়ার চেষ্টা চালিয়ে যান। 
     
    প্রথম প্রথম চিনতে ভুল হয়েছিল। এখন আর অবাক হইনা। দিব্যি ছকে এসে গেছেন। 
  • গৌতম চৌধুরী | 115.187.35.225 | ০৩ নভেম্বর ২০২১ ০৮:০৯500625
  •  সত্যি চিত্রটা দেখা গেল। শিহরিত হতে হয়
  • aranya | 2601:84:4600:5410:38f2:1abd:ea04:d9d8 | ০৩ নভেম্বর ২০২১ ০৯:১৫500628
  • 'বাংলাদেশের দুজন বিখ্যাত ক্রিকেটার  শেখ রফিক আর শেখ রাসেল আসলে খ্রীষ্টান | হাসিনার নিজের ছেলেও খ্রীষ্টান '
    - গুরু খুবই কল্পনাপ্রবণ ​​​​​​:-) , ​​​​​​​বিনয়ীও ​​​​​​​বটে , ​​​​​​​সবার মূল্যবান ​​​​​​​মতামত ​​​​​​​জানতে চান। 
  • aranya | 2601:84:4600:5410:38f2:1abd:ea04:d9d8 | ০৩ নভেম্বর ২০২১ ০৯:১৭500629
  • 'বিপ্লব আর সাদেক ভাই তাহলে কি বাংলাদেশের এই নব্য খৃষ্টানরাই হিন্দুদের উপর অত্যাচার করছে ? '
    - এমন সরল ​​​​​​​প্রশ্ন,  ​​​​​​​দেখেও ​​​​​​​শিহরণ ​​​​​​​জাগে :-)​​​​​​​
  • &/ | 151.141.85.8 | ০৪ নভেম্বর ২০২১ ০২:৩৩500664
  • আহা গুরু গেলেন কই আপনি? জানেন, চাঁদে নেমেই নীল আর্মস্ট্রং শুনতে পান আজানের সুর। দেখতে পান সত্তরজন পরমা উদ্যানে নাচছেন। তিনি সঙ্গে সঙ্গে ইসলামের ছায়াতলে আশ্রয় নিয়ে মুসলমান হয়ে যান। তবু দেখুন অবিশ্বাসীরা কিছুই মানতে চায় না। কী করা যায় বলুন দেখি?
  • Amit | 203.0.3.2 | ০৪ নভেম্বর ২০২১ ০৩:২৩500665
  • সাদেকের পোস্টের লাস্ট লাইনটা কে কুর্নিশ:  
    আসলে ধর্ম মুখ্য না। ধর্মের আবরণে অন্য কিছু হাসিল করার চেষ্টা। ধর্মের জন্য কেউ মন্দির -মসজিদ ভাঙে না, মানুষ মারে না। ধর্মের নামে সম্পূর্ণ ভিন্ন কিছু পাওয়া হচ্ছে মূল লক্ষ্য। " - এটাই সার সত্যি ​​​​​​​কথা।  
     
    এই ​​​​​​​কঠোর বাস্তবটা ​​​​​​​যারা ​​​​​​​ইচ্ছে করে ​​​​​​​গুলিয়ে ​​​​​​​দিতে ​​​​​​​চায় ​​​​​​​উল্টোপাল্টা ফাল্তু ​​​​​​​বকে, তাদের সাথে ​​​​​​​আদতে যেসব দাঙ্গাবাজ গুলো  ​​​​​​​রাস্তায় নেমে ভাঙচুর ​​​​​​​করছে ​​​​​​​ইন ​​​​​​​প্রিন্সিপাল ​​​​​​​কোনো ​​​​​​​তফাৎ ই ​​​​​​​নেই। 
  • Ranjan Roy | ০৪ নভেম্বর ২০২১ ০৮:২২500670
  • টাকার এপিঠ আর ওপিঠ। 
    হিন্দি বলয়ে মুসলমানদের খোলা জায়গায় নমাজ পড়ার বিরুদ্ধে সংগঠিত ভাবে বাধা দেয়া হচ্ছে। বলা হচ্ছে সরকারি জমিতে এসব চলবেনা।  সরকার পুলিশ  কয়েকবার এদের গ্রেফতার করে, তারপর স্থানীয় লোকেদের দাবি-ও শান্তিরক্ষার  অজুহাতে সংখ্যাগুরুদের কথা মেনে নেয়। 
    গত বছর একটি ধর্মীয় সংস্থার লোকজনকে মিথ্যে ভিডিও ছড়িয়ে গ্রেফতার করা হোল; ওরা নাকি পরিকল্পিত ভাবে কোভিড ছড়াচ্ছিল। পরে কোর্টের বিচারে সবাই ছাড়া পেল। দেখা গেল সব অভিযোগ মিথ্যে। ওদের কাছে কেউ ক্ষমা চায়নি।
    না সরকার, না কোন রাজনৈতিক দল বা নাগরিক সমাজ!
    আমি লজ্জিত।
    সেদিন দিল্লির ইন্টারন্যাশনাল সেন্টারে একটি বই রিলিজ প্রোগ্রামে তসলিমা নাসরীন এসেছিলেন। বললেন ইউ এস পাসপোর্ট থাকা সত্ত্বেও উনি দেশে নয়তো কোলকাতায় থাকতে চান, বাংলাভাষায় লিখতে চান।
    কিন্তু কোনটাই সম্ভব হচ্ছে না। বাম জমানায় তাড়িয়ে দেওয়া হোল, মমতা জমানায় উনি অবাঞ্ছিত। কোন বাংলা পত্রিকা ওঁর লেখা ছাপতে চায়না। এখানে দিল্লিতে সরকার তাঁকে পুলিশ পাহারা দিয়েছে, কিন্তু স্বাধীনতা?
     আমার অনুরোধ, কোন গুরু বা চণ্ডাল যদি এখানে রবি ঠাকুরের "ধর্মদ্রোহ" কবিতাটি টাইপ করে দেন।
    দেখবেন, এই কবিতাটি দু'দেশের জন্যেই প্রাসংগিক, যেমন দু'দেশের জাতীয় সংগীত।
  • guru | 146.196.45.201 | ০৪ নভেম্বর ২০২১ ২০:৪৮500688
  • @সাদেক ভাই, খুব ভালো বলেছেন অনেক ধন্যবাদ আপনাকে প্রকৃত সত্য তুলে ধরার জন্য|
     
    "অশিক্ষিত জনগোষ্ঠী আমাদের এই সমস্যার সবচেয়ে বড় উপাদান। যারা শিক্ষিত, তারাও মানসম্পন্ন শিক্ষায় শিক্ষিত হয়েছে, এমন কথা জোর গলায় বলতে পারা যাবে? ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে বিবর্তন পড়ানো হয় এই কথা বলে, যে এগুলা সব ভুয়া, পরীক্ষার জন্য পড়, বিশ্বাস করার দরকার নাই! আরেকদিন দেখলাম, কোন শিক্ষক শুধু ক্লাসে ইভল্যুশন শব্দটা বলেছে সাথে সাথে একজন উঠে তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছে, যে ইভল্যুশন নিয়ে কথা বলা যাবে না – এগুলা বলা হারাম! অন্ধকার কত তীব্র বুঝা যাচ্ছে?"
     
    "মৌলবাদকে আপনি রুখবেন কী দিয়ে? সংস্কৃতিক আন্দোলন ছাড়া সম্ভব? এই দিক দিয়ে আমরা দিনদিন নির্জীব হয়ে যাচ্ছে। যার ফলে মৌলবাদী শক্তির পক্ষে মাথাচাড়া দেওয়া সহজ হচ্ছে। যে ছেলে পাড়ায় গান বাজনা, নাটক নিয়ে মজে থাকত, তাকে বুঝানো কষ্টকর হত যে ধর্মের নামে অমুকের বাড়ি জ্বালিয়ে দেও। আমাদের দুর্দান্ত সামাজিক পরিবেশটা আমরা নষ্ট করেছি। বা কেউ পরিকল্পিত ভাবে নষ্ট করেছে, আমরা ধরতেই পারিনি – যে কেউ কলকাঠি নেড়ে এই সব বন্ধ করছে।"
     
    খুব সহজ সরল ভাষায় আপনি সমস্যাটি বুঝিয়েছেন | এই একই সমস্যা এখন সারা উপমহাদেশেই | ৯০ এর দশকে ভারতে বিজেপি বা আরএসএস এর উত্থানের পিছনে বড়ো ভূমিকা ছিল প্রতি রবিবার সকালে রামায়ণ সিরিয়ালিটি শুরু হবার পর থেকেই মানুষের মধ্যে অনুসন্ধানী মনের বদলে বিশ্বাস ও ভক্তি নির্ভর একটা ভাবধারা আস্তে আস্তে গড়ে ওঠে | পরবর্তীকালে এর সুযোগ নেয় বিজেপি বা আরএসএস |ekhon তো পুরো বলিউড পুরোপুরি ঘৃণার উপর চলছে | ভারতের মানুষের এখন অস্তিত্ব টিকে আছে পাকিস্তানের প্রতি ঘৃণার উপর নির্ভর করে | মানে আমি ভারতীয় কতটা তা নির্ভর করে আমি পাকিস্তানকে কতটা ঘৃণা করি তার উপরে |
     
    কিন্তু বাংলাদেশে যা আপনি দেখেছেন তা কীকরে হল ? শাহবাগ আন্দোলনের পরেও এটি কি করে ঘটলো ? আপনি যে সাঈদীর কথা বলেছেন তার তো অনেকদিন আগেই ফাঁসি হয়ে গেছে |tahole শত শত সাঈদী কথা থেকে এলো ?
  • বিপ্লব রহমান | ০৪ নভেম্বর ২০২১ ২২:১৪500698
  • "আচ্ছা এমন তো নয় যে বাংলাদেশে আসলে জামাত হেফাজত সবাই আসলে খ্রীষ্টান হয়ে গেছে গোপনে |জামাত হেফাজত অনেকেই আসলে আমেরিকা বা ইউরোপে রেফিউজি নিচ্চে কাজেই হয়তো এরা খৃস্টানদের উপর হামলা করতে ভয় পায় | " 
    @guru,  
     
    ল্যাঞ্জা ইজ ডিফিকাল্ট টু হাইড! 
     
    =))
  • বিপ্লব রহমান | ০৪ নভেম্বর ২০২১ ২২:২২500700
    • "Amit | 203.0.3.2 | ০৩ নভেম্বর ২০২১ ০৪:২২500619
    • এই গুরু নামক তালিবান মানসিকতার ব্যক্তিটির পোস্টগুলো কিন্তু খুব ভালো লাগে পড়তে। যেখানেই ইনি ইসলামিক বর্বরতা বা সাম্প্রদায়িকতা দেখেন সেখানেই আলোচনার ভান করে বেশ সুন্দর ভাবে কল্পিত খ্রীষ্টান কন্সপিরেসি , পাকিস্তানী মেয়েদের প্রসঙ্গ , তালিবানের আফিং চাষ , লেবানন এর রাজনীতি ইত্যাদি ভাট এনে ফেলে বেশ সুন্দরভাবে জল ঘুলিয়ে দেয়ার চেষ্টা চালিয়ে যান। 
       
      প্রথম প্রথম চিনতে ভুল হয়েছিল। এখন আর অবাক হইনা। দিব্যি ছকে এসে গেছেন।"
    • এ ক ম ত। 
    • মাল একখান! তবে সাদেকের এলেম আছে, এরেও ছবক দেয়!? :O 
  • syandi | 45.250.246.29 | ০৪ নভেম্বর ২০২১ ২৩:৩০500703
  • কোথায় যেন পড়েছিলাম 'হাফ-সিভিলাইজড দেশে সংখ্যালঘু বেঁচে থাকে একরাশ ভয় নিয়ে, আর বিবেকবান সংখ্যাগুরু বাঁচে একরাশ লজ্জা নিয়ে।' একদম খাঁটি সত্য।
  • guru | 146.196.44.56 | ০৫ নভেম্বর ২০২১ ১৩:১১500729
  • অমিত আর অরণ্য  নামধারী এই দুই দুগু ব্যক্তি কোনো ইসু নিয়ে সত্যি কথা বলেওনা না শুনতেও চায়না | যেকোনো আলোচনাতে এই দুগু ব্যাক্তি দুইটা নিজেকে খুব একটা প্রগ্রেসিভ আঁতেলের মুখোশ পরে আসলে পুরোপুরি গেরুয়াধারীদের পক্ষে কথা বলে |
     
    অরণ্য তো আমার সৌজন্যমূলক সাধারণ কথাটাও নিয়ে মস্করা করে এমন অদ্ভুত দুগু এইটা |দুগুশ্রেষ্ঠ মাননীয় অরণ্য  বাবু  আমি  লেবানন  নিয়ে কোথায় কি বলেছি একটু  দেখাবেন কি আপনার  মূল্যবান সময় নষ্ট করে  ?
     
    এই দুগু দুইটার asol প্যাটার্নটার এবার বোঝা গেছে আর ওদের আসল মুখোশও খুলে গেছে |
     
    যাকগে আমাকে তালিবানি বললেও আমি কিন্তু খুব একটা আপত্তি করছিনা | আজ থেকে আমি তালিবানি ছাগু গুরু এই আপনাদের মতো দুগুদের এগেনস্টে বলার মতো আরো মোটিভেশন পেলাম | দেখি আপনি আমার লেবানন নিয়ে পোস্টটা বার তো করুন আগে যদি অবশ্য বার করতে পারেন !
     
    @&/
    আমি কি বলি বলুন তো আপনার কথাটা শুনে ? হাসবো কি ? যাক আমার মতো এতো নগন্য একজন তালিবানি ছাগুর জন্য এতো সুন্দর সুন্দর শব্দ খরচ করেছেন শুনেই ভালো লাগছে | আপনার সমস্যাটি আমি বুঝি আসলে কোনো সুন্দর মুসলিম মেয়ে প্রত্যাখ্যান করলে আপনার মতো দুগুরা তা মন থেকে মেনে নিতেই পারেননা আর তারপর থেকেই সমস্ত আমার মতো তালিবানি আর ছাগুলোককে  ঘৃণা করতে শুরু করেন | তা এই মুসলিম মেয়েটির কেসটি কবে হয়েছে ? মুসলিম মেয়েটি কি Pakistani naki Lebanese ছিল ? খুলেই বলুন না ভাই |
     
    প্রথম খ্রীষ্টান নিয়ে পোস্টটি তো আপনি করেছিলেন | আমি তার উত্তরে শুধু আমার এক মার্কিন বন্ধুর একটা বক্তব্য তুলে ধরেছিলাম | দুগুদের মধ্যে একজন হবার আপনার তো দেখছি খুব শখ | আপনার ল্যাঞ্জা তো আরো বিকশিত দেখছি |  হটাৎ দুগু হবার এতো শখ হলো কেন ?
     
     
  • বিপ্লব রহমান | ০৫ নভেম্বর ২০২১ ১৩:৪৯500733
  • @guru, 
     
    জ্বি ফেকি মাল ভাই, ল্যাঞ্জা নেড়ে আপনি সত্যিই অনেক কিছু বুঝেছেন দেখছি। আপনার ক্ষুরে ক্ষুরে প্রণাম! :))
  • ' | 43.243.207.145 | ০৫ নভেম্বর ২০২১ ২০:০৬500746
  • guru নামের চাড্ডিটা খুব লম্ফঝম্প করছে দেথি। এডমিনের উচিত একে খুঁটিতে বেধে রাখা। 
  • বিশ্ব | 2a06:1700:0:15::1 | ০৫ নভেম্বর ২০২১ ২৩:৪২500756
  • '
    ওরে এই guruটাচাড্ডি নয় ছাগু। ধর্মান্ধতা আর সাম্প্রদায়িক হিংস্রতায় চাড্ডি আর ছাগু সমান সমান হলেও এদের মধ্যে কিছু ফারাকও আছে। জামাতি ছাগল বা তাদের উত্তরপুরুষ কে ছাগু বলে ডাকা হয় লম্বা শিঙওলা রামছাগলের মুন্ডুর চিহ্ন দিয়ে  রেফার করা হয়। চাড্ডিরা হল সাভারকর গোলওয়ালকরের উত্তরপুরুষ। গরু বা বানরের ছবি দিয়ে চাড্ডিদের রেফার করা হয়। 
  • &/ | 151.141.85.8 | ০৬ নভেম্বর ২০২১ ০৫:২৩500763
  • ওহ গুরু, গেলেন কই ভাই? আর বলবেন না, এক্কেবার ঠিক ধরেছেন। সেই লেবানীজ সুন্দরী কিনা আমাকে ছেড়ে চলে গেল! এতদিন ধরে এত ঘুরেফিরে, এত রেস্টুতে খেয়ে, এত পারফুম, গ্যাজেট, ড্রেস গিফ্ট নিয়ে, এত টাকা খসিয়ে শেষে পালালো! হায়, আমার এখন সব খালি। সব শূন্য। মহাব্যোম। বাক্স শূন্য, টাকা নেই। হৃদয় শূন্য, প্রেম নেই। ঘর শূন্য, সে নেই ! এখন নয়নজলে গান গাই, "কাছে এসে ঘেঁষে ঘেঁষে/ এত ভালো বেসে বেসে /টাকা মেরে পালালি শেষে?"
    কী করা যায় বলুন তো ভাই?
  • পাতা :
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:

কুমুদি পুরস্কার   গুরুভারআমার গুরুবন্ধুদের জানান


  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। ঝপাঝপ মতামত দিন