ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • | ১৯ অক্টোবর ২০২১ ২০:০৬499830
  • এই বইটা বেশ ইন্টারেস্টিঙ্গ বই। নারিকেলছাবা মনে হয় নারকেল আর চিনির শিরা   দিয়ে যে  সরু সরু চিঁড়ের মত খাবারটা তৈরী হয় সেটকে বলে। আমাদের বাড়ি লক্ষ্মীপুজোর দিন হত ঐটে, কিন্তু কোনও কোনও বাড়িতে বিজয়া করতে গিয়েও খেয়েছি। 
  • kk | 68.184.245.97 | ১৯ অক্টোবর ২০২১ ২০:০৭499831
  • চমৎকার লাগলো। তেষ্টা বেড়ে গেলো অবশ্য। আরেকটু পড়তে পেলে হতো।
  • hu | 2603:6011:6506:4600:97d:62a9:6de4:4d4b | ১৯ অক্টোবর ২০২১ ২২:১৩499837
  • আমার আবার মনে হল "নারিকেলছাবা" মানে নারকেলের ছাপ। নাড়ুর মত পুর বানিয়ে সন্দেশের ছাপে ফেলে যেটা বানানো হয় সেটা।

    দ যেটা বললেন সেটা নারকেলের চিঁড়া বলে শুনেছি।
  • এলেবেলে | ১৯ অক্টোবর ২০২১ ২২:৩৯499840
  • বাংলাদেশে দুর্গাপুজোর প্রচলন ও জনপ্রিয়তা আসলে মুশলমান আক্রমণের প্রতিক্রিয়া হিসেবে দেখা উচিত?
     
    প্রশ্নচিহ্ন নয়, এরপর আসলে একটি পূর্ণচ্ছেদ বসা উচিত। নবকৃষ্ণ ও কৃষ্ণচন্দ্র এর মূল হোতা। উপলক্ষ ক্লাইভের পলাশি 'বিজয়'।
  • দীপ | 2402:3a80:196b:51bb:fb3f:5862:eed:36ed | ২০ অক্টোবর ২০২১ ১৫:২৯499882
  • মহামাতব্বর এলেবেলে মহোদয় জানেন না, ৯৯৮ খ্রিস্টাব্দে মল্লরাজারা দুর্গাপূজা করেছেন। তখন মুসলিম আক্রমণ কোথায়? 
    পাল-সেনযুগ থেকেই বর্তমান দুর্গাপূজা শুরু হয়েছে।  তুর্ক-আফগান আক্রমণ তো তার পরের কথা।  ভুলভাল লিখলেই হবে?
  • এলেবেলে | ২১ অক্টোবর ২০২১ ০০:০৬499908
  • এই লোকটা চূড়ান্ত অসভ্য। নরেন্দ্রপুরের মালগুলো যে এত অসভ্য হয়, জানা ছিল না। খড়গপুর আই আই টি থেকে কেমিস্ট্রি পড়ে করেন তো মহায় গঙ্গারমপুরে মাস্টারি, তো কথায় কথায় অন্যকে মাতব্বর বলার দোষ কেন? আর এলেবেলে মন্তব্য করলেই হামলে পড়েন কেন?
     
    এই নিয়ে আনন্দবাজারে আমার উত্তর-সম্পাদকীয় প্রকাশিত হয়েছে। সেখানে স্মরণজিৎ চক্রবর্তী, তমাল বন্দ্যোপাধ্যায় ও সুবোধ সরকারের পাশাপাশি এই অধমের লেখাও প্রকাশিত হয়েছে। কাজেই এই শর্মা বাঙালির দুর্গাপুজোর ইতিহাসটা একটু-আধটু জানে।
     
    শুধু মল্লরাজার উল্লেখ করেই বুঝে ফেল্লেন যে লেখাটা ভুলভাল হয়েছে? মূল লেখাটার কনটেক্সট আদৌ বুঝতে পেরেছেন?
     
    জীমূতবাহনের (আনুমানিক ১০৮০-১১৫০) দুর্গোৎসবনির্ণয়, বিদ্যাপতির (১৩৭৪-১৪৬০) দুর্গাভক্তিতরঙ্গিনী, শূলপানির (১৩৭৫-১৪৬০) দুর্গোৎসববিবেক, বাচষ্পতি মিশ্রের (১৪২৫-১৪৮০) ক্রিয়াচিন্তামণি, স্মার্ত রঘুনন্দনের (১৫-১৬শ শতক) তিথিতত্ত্ব ইত্যাদি গ্রন্থের নাম শুনেছেন? দশম বা একাদশ শতকে বাংলায় দুর্গাপুজো প্রচলিত না থাকলে এগুলো কি গঙ্গারামপুরের লাইব্রেরিতে রাখার জন্য লেখা হয়েছিল?
     
    আমি কৃত্তিবাস ওঝাকে হিসেবে ধরছি না। কারণ ওটার আগাপাশতলা জয়গোপাল তর্কালঙ্কার স্যানিটাইজ করেন। কাজেই কৃত্তিবাস আদৌ অকালবোধনের প্রসঙ্গটা এনেছিলেন কি না, সেটা নিশ্চিতভাবে বলা সম্ভব নয়।
     
    কিন্তু কলকাতা বিচিত্রা-য় রাধারমণ মিত্র যে স্পষ্ট লিখেছেন, কৃষ্ণচন্দ্র আর নবকৃষ্ণ পলাশিতে কোম্পানির জয়কে হিন্দুর জয় মনে করে সবচেয়ে বেশি উল্লাস প্রকাশ করেন - সেটা মিথ্যে? তবু নাহয় কৃষ্ণচন্দ্রের বাড়িতে ১৬৭৬-এই দুর্গাপুজো শুরু হয়েছিল। কিন্তু মুদি নবকান্ত? তিনি যে একই সঙ্গে ঠাকুদালান আর নাচঘর তৈরি করলেন আর পুজো উপলক্ষে মদ, বাইজি আর গোমাংসের ফোয়ারা ছোটালেন - সেটা মিথ্যে?
     
    আপনার মহায় কুচোকৃমি আছে। ভালো চিকিৎসক দেখান। আপনার দ্রুত আরোগ্য কামনা করি। আমেন।
  • এলেবেলে | ২১ অক্টোবর ২০২১ ০০:১০499909
  • নবকান্ত নবকৃষ্ণ
  • দীপ | 2402:3a80:196b:51bb:ba82:c930:20f5:20a6 | ২১ অক্টোবর ২০২১ ০০:১৯499910
  • কৃষ্ণচন্দ্র আর নবকৃষ্ণের উল্লাস থেকে যারা দুর্গাপূজার সূচনা ধরে, তারা হয় অজ্ঞ অথবা ধান্দাবাজ! ‌ 
    খ্রিস্টিয় দশম/একাদশ শতক থেকেই বর্তমান দুর্গাপূজা শুরু হয়েছে। আর মাতব্বর ১৭৫৭ সালের আগে দুর্গাপূজা খুঁজেই পাচ্ছেন না! 
    আবার উল্টে বাকতাল্লা মারছেন!
    আপনি সম্পূর্ণ ভুল কথা বলেছেন, সেটাই দেখিয়েছি!
  • এলেবেলে | ২১ অক্টোবর ২০২১ ০০:৪৬499912
  • জনপ্রিয়তা শব্দটার অর্থ জানেন? সেটা ওই নবকেষ্ট আর কেষ্টচন্দ্রের হাত ধরেই শুরু হয়। মোচ্ছব শব্দটার অর্থ জানেন? সেটা ওই নবকেষ্ট আর কেষ্টচন্দ্রের হাত ধরেই শুরু হয়। তার আগে ওটা আর পাঁচটা পুজোর মতো একটা পুজো ছিল। 
     
    ছাগল কি আর গাছে ধরে! তাই অতগুলো বইয়ের উল্লেখ নজরে এল না এবারেও। বলছি তো ডাক্তার দেখান। সেরে যাবে।
  • দীপ | 2402:3a80:196b:51bb:ba82:c930:20f5:20a6 | ২১ অক্টোবর ২০২১ ০১:৪৭499913
  • হুম, সেজন্য‌ই রমেশ শাস্ত্রী কংসনারায়ণকে অন্য কোনো পূজা না করে কলির অশ্বমেধযজ্ঞরূপে দুর্গাপূজা করতে বললেন।‌
    অন্যান্য যেকোনো পূজার চেয়ে দুর্গাপূজা অনেক বেশি সময়সাপেক্ষ ও ব্যয়বহুল। অর্থবল ও লোকবল ব্যতীত এই পূজা করা সম্ভব নয়। তাই আগেকার দিনে রাজা, জমিদার বা বিরাট ঢনাঢ্য ব্যক্তি ব্যতীত এই পূজা করা সম্ভব নয়। এদের বাড়ীতেই দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হতো। গুপ্তিপাড়ায় বারোয়ারী পূজা হবার পর সাধারণ্যে দুর্গাপূজা জনপ্রিয় হয়ে ওঠে।‌ সাধারণ মানুষ চাঁদা তুলে পূজার অনুষ্ঠান করতে থাকে! এভাবেই পূজা সার্বজনীন হয়ে ওঠে! তার আগে পূজা ধনীগৃহেই সীমাবদ্ধ ছিল! 
    আর নবকৃষ্ণের বাড়ি কেন, সব বড়োলোকের বাড়িতেই পূজা বা যেকোনো উৎসবে মোচ্ছব হতো, কেউ ব্যতিক্রম নয়!
  • জনতা | 2405:8100:8000:5ca1::321:d664 | ২১ অক্টোবর ২০২১ ০২:০৬499914
  • পারি না মামা!  স্মরণজিৎ এর লেখার পাশে নাম উঠেচে, তার রেফারেন্স দেখিয়ে লোকজন কলার তুলে দিয়ে রেলা নিচ্চেন,  এর পরে বাবা রামরহিমের সঙ্গে হ্যান্ডশেকের ছবি দেখিয়ে জনগণ আকাদেমি পুরস্কার দাবী কব্বেন। কিছু জনতা মাইরি।
  • জনতা | 2405:8100:8000:5ca1::321:d664 | ২১ অক্টোবর ২০২১ ০২:০৬499915
  • পারি না মামা!  স্মরণজিৎ এর লেখার পাশে নাম উঠেচে, তার রেফারেন্স দেখিয়ে লোকজন কলার তুলে দিয়ে রেলা নিচ্চেন,  এর পরে বাবা রামরহিমের সঙ্গে হ্যান্ডশেকের ছবি দেখিয়ে জনগণ আকাদেমি পুরস্কার দাবী কব্বেন। কিছু জনতা মাইরি।
  • এলেবেলে | ২১ অক্টোবর ২০২১ ১১:৫৬499927
  • অ, কংসনারায়ণ! তাহলে লেখাটার গোটা অনুচ্ছেদটাই থাক।
     

    কোন সুদূর অতীতে কী ভাবে এই শাদোৎসবের ঘটা শুরু হয়েছিল, তা আজও ইতিহাসবিদদের গবেষণার বিষয়। অনেকে মনে করেন, দুর্গা মূলত শস্যের সাথে জড়িত দেবী বলেই এই শস্যদায়িনী দেবীর আরাধনা করা হয় আবার পুরাণ মতে, রাজা সুরথই বাংলা প্রথম দুর্গাপুজো করেন। তবে তিনি দুর্গাপুজো করেছিলেন চৈত্র মাসে, এখন যা বাসন্তী পুজো নামে খ্যাত। অন্য দিকে, যোগেশচন্দ্র রায়বিদ্যানিধি অমূল্যচরণ বিদ্যাভূষণের মতে, শারদীয় দুর্গোৎসব বৈদিক শরৎকালীন যজ্ঞেরই রূপান্তর। অনেকে তাহেরপুরের রাজা কংসনারায়ণকেই বাংলায় দুর্গাপুজো শুরু করার হোতা মনে করেন। ষোড়শ শতকে তিনি ধূমধাম করে দুর্গাপুজো করেন। অবশ্য এই ধারণার সমর্থনে নানাবিধ পারিপার্শ্বিক প্রমাণও বিদ্যমান। কংসনারায়ণ ছিলেন মনুসংহিতা- প্রসিদ্ধ টীকাকার কুল্লুক ভট্টের সন্তান। তাঁর গুরু রমেশ শাস্ত্রী যে দুর্গাপূজা পদ্ধতি প্রণয়ণ করেন, আজও কম-বেশি সেটাই অনুসরণ করা হয়।

    দুঃখ ঘুচেছে? কিন্তু নবকেষ্ট-কেষ্টকান্তের মোচ্ছবের ধারা যে ঠাকুরবাড়িতেও লেগেছিল, যার জেরে দেবেন্দ্রনাথ-কন্যা সৌদামিনী দেবী লেখেন: আমার ছেলেবেলায় আমাদের বাড়িতে যে-পূজার উৎসব ছিল তাহার মধ্যে সাত্ত্বিকভাব কিছুই দেখা যাইত না। এই পূজা অনুষ্ঠান আমোদে উন্মত্ত হইবার একটা উপলক্ষ্য মাত্র ছিল।” - তার কী ব্যাখ্যা ম্যাস্টের?

    হে নধর গঙ্গারামপুরি ছাগল, মাতব্বরি ফলানোর আগে জেনে নেওয়া উচিত ছিল যে গুপ্তিপাড়ার বারোয়ারিটিতে দুর্গা নয়, জগদ্ধাত্রী পূজিতা হয়েছিলেন। ওটা নেক্সট এডিশনে শুধরে নেবেন, কেমন?

  • দীপ | 2402:3a80:196b:9706:2347:d41d:1d15:eabd | ২১ অক্টোবর ২০২১ ১৪:২৮499935
  • শশিভূষণ দাশগুপ্ত, যোগেশচন্দ্র বিদ্যানিধি, ব্রতীন্দ্রনাথ মুখোপাধ্যায় প্রমুখ বরেণ্য পণ্ডিতমণ্ডলী শক্তিসাধনার সূচনা ও ধারাবাহিক বিবর্তন নিয়ে বিস্তৃত আলোচনা করেছেন। ফেসবুক/ব্লগ সেই আলোচনার যোগ্য ক্ষেত্র নয়। বিদ্যানিধি মহাশয়ের মতে যজুর্বেদে উল্লেখিত শরৎকালীন রুদ্রযজ্ঞ (খ্রিপূ ২৫০০) বিবর্তনের মাধ্যমে বর্তমান দুর্গাপূজায় রূপান্তরিত হয়েছে! 
    অর্থাৎ বিদ্যানিধি মহাশয়ের যুক্তি অনুযায়ী দুর্গাপূজার উৎস আজ থেকে মোটামুটি সাড়ে চার হাজার বছর আগে, ১৭৫৭ নয়! 
    ঠিকমতো না পড়ে টুকলে এইরকম ভূষিমাল‌ বের হয়!
  • একক | ২১ অক্টোবর ২০২১ ১৫:১৩499937
  • সমস্ত প্রথাই বিবর্তনের মধ্য দিয়ে আসে। তাইবলে টিয়াপাখিকে ডাইনোসর বলা যায় না।
     
    যবে থেকে প্রতিমা - পূজারী ও পূজা প্রকরণ একটা রাডিকালি নতুন রূপ গ্রহন কচ্চে,  সেইটে টাইমলাইন ধরা হয়। 
     
     
  • একক | ২১ অক্টোবর ২০২১ ১৫:২০499938
  • বাংলায় কালাচারাল হিস্ট্রির ক্ষেত্রে মিমেটিক্স ধরে আলোচনা হলে সুবিধে হয়। দুর্গাপূজার স্টান্ডারড মেমেটিক্স যা মোটের উপর আজ ও চলেচে, তার বয়েস ও উতস নিয়ে কথা হলে কাজের কাজ হয়।
     
    নইলে এই " আদি রূপ" খোঁজার উতসাহ এই আলচনায় কী এড করচে কে জানে। 
  • এলেবেলে | ২১ অক্টোবর ২০২১ ১৫:৪১499939
  • নরেন্দ্রপুর থেকে এহেন ছাগল পাশ করে কীভাবে? সব বাদ্দিয়ে কেমন ১৭৫৭-এর রেকর্ডে পিন আটকে গেছে নধর ছাগলটার! ওরে ওখান থেকেই প্রকৃতিগত ও পদ্ধতিগত পরিবর্তনের সূচনা। ৯৯% বাঙালি দুর্গার কোন হাতে কোন অস্ত্র থাকে বলতে পারবে না অথচ প্যান্ডেল হপিং মাস্ট। এবং তার সামনে সেলফিও। আর এই পুজোটাকে নিছক মোচ্ছবে পরিণত করার মাতব্বরদের এড়িয়ে ছাগলটা বিদ্যানিধির কাঁঠালপাতা চিবিয়ে চলেছে। বইটা সংগ্রহে আছে, পিডিএফ লাগিবে?
  • এলেবেলে | ২১ অক্টোবর ২০২১ ১৫:৪৩499940
  • এবং ঠিক কায়দা করে সৌদামিনী দেবীকে এড়িয়ে গেছে। কারণ প্রশ্ন কমন পড়েনি! এই না হলে একজন আইআইটিয়ান গঙ্গারামপুরের ম্যাস্টর হয়। এবারে ফের বোধহয় কুমারী পুজোর হ্যাজ নামাবে!
  • bodhisattvagc dasgupta | ২১ অক্টোবর ২০২১ ১৬:১১499942
  • যে কোনো বিশুদ্ধতা ই বিশুদ্ধ অর্থহীন। ভেজাল ই সভ্যতার অগ্অরগতির চাবি কাঠি। এই যেমন এখন বিশুদ্ধ ওয়াহাবী ইসলামে ভেজাল  ঢুকলে বাঙাল হিন্দু রা একটু নিশ্চিন্ত হয়ে পূজো করতে ও সেল্ফি তুলতে পারে।  বাবুরা খুব ভালো কাজ করেছেন পুজোকে মোচ্ছব করে। কিন্তু সেটি তারা করেছেন মুসলমান কে সায়েব বাবুরা হারিয়েছেন এই টা সেলিব্রেট করতে গিয়ে।
    দুদিকেই সনাতনপন্থার জয় নিশ্চিত করা ছাড়া এই বিতর্ক অর্থহীন। আদর্শ হিন্দু সোসাইটি, আর এসেস র স্বর্গ র এই মজা গোটাটাই বিশ্বাসী বর্ণ হিন্দুর আভ্যন্তরীন বিতর্ক। :--))( 
    এবং যেকোনো পুরোনো জিনিসকেই স্যাঙ্্কটিফায়েড ভাবার কোনো অর্থ হয় না, সভ্যতার কে কত পুরোনো র লড়াইটা আরো মজার এবং আরো মিনিংলেস। সেখানে আবার দেখানো হয় , মানে সকলেই আডভান্সমেন্ট দেখাতে গিয়ে নিজেদের নাগরিকতার রাজনৈতিক প্যাঁচপয়জারের  যুদ্ধজয়ের ইতিহাস দেখায় আর তাতে আবার মরালি অবিশুদ্ধ থাক গুলো চেপে যায় ইত্যাদি।
    সভ্যতার আসল বিতর্ক হল আর্বান‌ প্লুরালিটি বনাম পাস্তোরাল বা কৃষিভিত্তিক বিশুদ্ধতা এবং প্রাইমরডিয়াল কনশাসনেস এর রূদ্ধদ্বার। 
     
    অবিশুদ্ধ, যৌনতায় ভরপুর , নেশার সরঞ্জামে ভর্তি জাতপাতের ঠিক ঠিকানাহীন আর্বানিটির  ইতিহাস পড়ুন ও পড়ান। তাতেই ভবিষ্যতে র পৃথিবীর মঙ্গল। বিশুদ্ধতা শুধুই মন্দির মসজিদ পোড়াবে , সব শিব মন্দির কেই গ্রামের কোণে র পোড়ো করবে, সামান্য একটু মৈথিলী লম্বা কানের বিহারী মতো হবার অপরাধে বুদ্দ্ধ কে পাঠাবে চীনের সোয়েটশপে। 
     
    জ্ঞাণচর্চায় অবিশুদ্ধতা আনুন:--))))))
     
     :--)))))))
  • s | 2a0b:f4c0:16c:2::1 | ২১ অক্টোবর ২০২১ ১৬:১৬499945
  • ধুর্মশাই, আধুনিক দুর্গাপুজোর শুরু সুব্রত মুখার্জির একডালিয়ার পুজোর মধ্যে দিয়ে। এর মধ্যে মুসলমান সাহেব এসব টেনে এনে কি চতুর্বর্গ লাভ হবে কে জানে। টিয়াপাখিকে কেউ ডাইনোসর বলে না, শুনলেনই তো। ইংরেজির ম্যাস্টর ওখানেই আটকে পড়ে আছে।
  • dc | 171.49.222.4 | ২১ অক্টোবর ২০২১ ১৬:২০499946
  • টিয়াপাখিকে ডাইনোসর না বলুক, টেরোডাক্টিল বলে। নিজের কানে শুনেছি। 
  • কিন্তু কিন্তু | 2a03:e600:100::21 | ২১ অক্টোবর ২০২১ ১৬:৩৭499947
  • এই চাড্ডিটা মাস্টের!? ছাত্তরদের তাদের গাজ্জিয়ানদের এইরম ধমকে বেড়ায়? ইদিকে একটা রচনা গুছিয়ে লিখতে পারে না ছ্যার ছ্যারর করে  মিনিটে ৫ টা পোস্ট করে। তা বলি আপুনেরও কি ডাবল ডিমাই দশ অক্টেভ ম্যাগনাম ধপাস আছে নাকি এলেব্লের মতন?
    দুজনের ক্কোস্তাকুস্তি অবিশ্যি জমেছে বেশ।
  • সিএস | 103.99.156.98 | ২১ অক্টোবর ২০২১ ১৬:৫২499949
  • ধুস।। দুর্গার হাতে কোন অস্ত্র আছে, সেই পুজোয় কি মন্ত্র পড়া হয়, তারপর বলা হবে নিয়ম - আচার কি, সেসব তো লোকে জানে না, এসবের কোন মানে আছে নাকি। তারপর আর এক্দল বলবে, পুজোয় মাংস কেন, এটা কেন, ওটা কেন, এর কোন শেষ আছে নাকি ?

    বাবুদের হাতে পড়ে আর সাহেবদের খুশী করতে গিয়ে দুগ্গাপুজো মোচ্ছবে পরিণত হয়েছে। হয়েছে ভালই হয়েছে। সে তো পক্ষীর দল গুলি খেত আর পাখি হয়ে উড়ত। সেই কথা দেখিয়ে আজকের এফ এল শপের সামনের ভিড়ের বিশ্লেষণ হবে নাকি।

    উনিশ শতক নিয়ে কচলাতে কচলাতে সব তো prdusih হয়ে যাবে।

    আর এক্ডালিয়া নয়, আমার তো মনে হয় মহম্মদ আলি পার্কই সেই আদি মোচ্ছবের পুজো, বড় করে, লোক ডেকে। কিন্তু এখানেও তো আবার মুসলমানি নামে পুজো মিশে আছে।

    আর 'মুসলমান' নবাব হারলে, হিন্দু দলপতিদের উৎসব, বাংলার নবাবের পদ কি আর নিরঙ্কুশ ছিল নাকি ? আলিবর্দী খাঁয়ের বিরুদ্ধে নাতি সিরাজই বিদ্রোহ করেছিল, পাটনা থেকে আসছিল মুর্শিদাবাদের দিকে, তাকে কি আর 'হিন্দু' দলপতিরা মদত দেয়নি ? পরে আর এক দল ঘুরে গেছে তার বিরুদ্ধে। এই খেলা ক্রমাগত চলেছে।
     
     
  • সিএস | 103.99.156.98 | ২১ অক্টোবর ২০২১ ১৬:৫৭499950
  • যার যা দরকার এই পুজো থেকে খুঁজে নেবে।

    যদি কারোর মাতৃমূর্তি দেখাই ইচ্ছে হয়, সামনে নত হওয়ার ইচ্ছে হয়, তাহলে তা সে দেখবে, করবে, ভোরবেলা, রাতের বেলা, যখন সুবিধে তখন নয় দেখবে।

    যার রোল খাওয়ার ইচ্ছে হবে খাবে, যার পাঁঠা খাওয়ার ইচ্ছে খাবে, যার মন্ত্র জানার ইচ্ছে হয়, পড়বে, জানবে, শিখবে। যে তার ছেলে-মেয়েদের দুর্গার গল্প জানাতে চাইবে, সে বইপত্তর খোঁজ করবে, পড়াবে, মহালয়া শোনাবে।

    সকলের জন্যই সব ব্যবস্থা আছে। উপরন্তু ইদানীং পুরো শহরটাই আর্ট ইন্স্টলেশন হয়ে ওঠাও আছে।
     
     
  • দীপ | 2402:3a80:196b:9706:2347:d41d:1d15:eabd | ২১ অক্টোবর ২০২১ ১৭:২৫499951
  • বঙ্গদেশে প্রতিমায় দুর্গাপূজা মোটামুটি হাজার বছরের প্রাচীন। একাদশ-দ্বাদশ শতকের বিভিন্ন স্মৃতিগ্রন্থে দুর্গাপূজার উল্লেখ পাওয়া যায়। এই স্মৃতিগ্রন্থ থেকে বিভিন্ন উপাদান সংগ্রহ করে শূলপাণি (১৩৭৫-১৪৬০) রঘুনন্দন (১৫০০-১৫৭৫) দুর্গাপূজার নিয়ম লিপিবদ্ধ করেন। বর্তমান দুর্গাপূজা মোটামুটি এগুলো অনুসরণ করেই হয়। 
     
    বিষ্ণুপুরের মল্লরাজাদের পূজা ৯৯৮ খ্রিস্টাব্দে শুরু হয়েছে। কবিকঙ্কণের চণ্ডীমঙ্গলের ফুল্লরার বারোমাস্যায় আশ্বিনে অম্বিকাপূজার উল্লেখ আছে। চৈতন্যদেবের পার্ষদ নিত্যানন্দ খড়দহে দুর্গাপূজা করতেন। আজো তাঁর বংশধরেরা এই পূজা করেন। সাবর্ণ রায়চৌধুরীদের পূজা ১৬১০ খ্রিস্টাব্দে শুরু হয়েছে এবং আজো অনুষ্ঠিত হচ্ছে! 
     
    এই প্রত্যেকটি পুজো ১৭৫৭ র আগে শুরু হয়েছে!
  • দীপ | 2402:3a80:196b:9706:2347:d41d:1d15:eabd | ২১ অক্টোবর ২০২১ ১৭:২৭499953
  • আর নবকৃষ্ণের বাড়ি কেন, সব বড়োলোকের বাড়িতেই পূজা বা যেকোনো উৎসবে মোচ্ছব হতো, কেউ ব্যতিক্রম নয়!
    মাতব্বর মহোদয়ের এটা চোখে পড়েনি!
  • | 2402:3a80:d22:6a5b:81ca:aaec:d4f8:478 | ২১ অক্টোবর ২০২১ ১৮:৫৮499958
  • ও মাসিমা , ও মেসো   আজ তো পোঙটা পন্ডিত এলেবেলে পুরো নেচে বেড়াচ্ছে | দারুন দারুন  চলুক  চলুক | সঙ্গে  লালু টাও জ্ঞান দিচ্ছে |
    এতো জ্ঞান রাখে কোথায় ? বালিশ এর নিচে ?
  • দীপ | 2402:3a80:196b:9706:2347:d41d:1d15:eabd | ২১ অক্টোবর ২০২১ ১৯:০০499959
  • বৃহদ্ধর্মপুরাণে (দশম-ত্রয়োদশ শতাব্দী) রামচন্দ্রের অকালবোধনের কথা আছে । কৃত্তিবাস সম্ভবত এখান থেকেই অকালবোধনের কাহিনী সংগ্রহ করেছেন।
    "রাবণস্য বধার্থায় রামস্য অনুগ্রহায় চ।
    অকালে তু শিবে বোধস্তব দেব্যাঃ কৃতো ময়া।।"
  • এইত্তো | 2605:6400:10:a06:82cc:75df:a2c1:a7e9 | ২১ অক্টোবর ২০২১ ২১:০৫499962
  • ভালো লেগেছিলো এলের নাচন গুরুর পাতায়।
    সৃষ্টির আদি থেকে সব পুজা ফলো করে প্রথম মোচ্ছবের খবর দেবার জন্য স্টার আনন্দের চাকুরি পাক্কা হইল।
  • lcm | ২১ অক্টোবর ২০২১ ২১:১২499964
  • "... দুর্গাপূজার উৎস আজ থেকে মোটামুটি সাড়ে চার হাজার বছর আগে..."

    ৪,৫০০ বছর আগে ! একটু বেশি হয়ে গেল না, প্রায় প্রস্তর যুগে।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : guruchandali@gmail.com ।


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। মন শক্ত করে মতামত দিন