• বুলবুলভাজা  ভ্রমণ  ঘুমক্কড়  খাই দাই ঘুরি ফিরি

  • জয়ের বিশ্বজয় - ৯

    জয় মণ্ডলের সাথে আলাপে নীলাঞ্জন হাজরা
    ভ্রমণ | ঘুমক্কড় | ১৪ জানুয়ারি ২০২১ | ৭৮৮ বার পঠিত | ২ জন
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন পুনঃপ্রচার
  • ১৯৭৬ সালের ২৬ নভেম্বর। বাঁকুড়ার ছোট্ট মফস্‌সল শহর বিষ্ণুপুর থেকে বিশ্বভ্রণে বেরিয়ে পড়লেন দুই তরুণ। গন্তব্য—আফ্রিকা। একজন হাল ছাড়েন কিছু পরেই। অন্যজন চলতে থাকেন—১৭ বছর। ৩ লক্ষ ৮৪ হাজার কিলোমিটার। ১৫৪ টি দেশ। আজও এ কীর্তিতে তিনি অদ্বিতীয়। এই প্রথম দীর্ঘ সাক্ষাৎকারে সে পরমাশ্চর্য সফরের অনুপুঙ্খ কাহিনি শোনাচ্ছেন জয় মণ্ডলআলাপে নীলাঞ্জন হাজরা


    চতুর্থ পর্ব—আফ্রিকা (পূর্বে প্রকাশিত অংশের পর)


    নীলাঞ্জন হাজরা — আগের দিন তুমি বলছিলে পথে পথে তোমার যেমন অনেক সুন্দর অভিজ্ঞতা হয়েছে, তেমনই আবার মার খেতে খেতেও কোনোক্রমে বেঁচেছ। বলছিলে একবার ক্যামেরাও কেড়ে নিয়েছিল। এটা কোথায়?

    জয়ন্ত মণ্ডল — উগান্ডাতে, বুঝলে। কেনিয়া থেকে উগান্ডাতে ঢুকছি। প্রথমেই যে জায়গাটাতে পৌঁছলাম তার নাম ম্‌বালে, বুঝলে, Mbale। বিকেল বিকেল ঢুকেছি, একটা বাড়ি পড়ল, দেখি তার সামনে এক ভদ্রলোক দাঁড়িয়ে আছেন। তাঁকেই জিজ্ঞেস করছি, একটু থাকার জায়গা হতে পারে কি না। তখনও মনমোহন ছিল আমার সঙ্গে। উনি আমাদের ভিতরে আসতে বললেন, ওনার স্ত্রী চা নিয়ে এলেন। তো কথায় কথায় উনি বললেন, আমাদের এখানে একজন ভারতীয় শিক্ষক আছেন। বললাম, দেখা হলে খুব ভালো হয়। ফোন করা হল। মিনিট দশেকের মধ্যেই তিনি এলেন। সাইকেলটা দেখলেন—তাতে তো লেখা আছে, ওয়ার্ল্ড সাইকেল ট্যুরিস্ট, ক্যালকাটা, ইন্ডিয়া। দেখেই বললেন, আরি! বাঙালি! কমলদা। কমল রায়। তেরো বছরের ওপরে আছেন। উগান্ডারই নাগরিক হয়ে গেছেন। ওঁর স্ত্রীও ওখানে শিক্ষক। তাঁর বাড়িতেই উঠলাম। তো আমি মাঝে মাঝে একাই বেরিয়ে পড়তাম, আশপাশের সব গ্রামে-টামে যেতাম। তেমনই একদিন। একটা গ্রামে গেছি। দেখি খুব নাচ-গান হচ্ছে। একটা দল। রাস্তায়। অদ্ভুত সব আফ্রিকান বাজনা বাজাচ্ছে। আর সকলে নাচছে। আর জানো তো, আফ্রিকানদের ছন্দ-বোধ সাংঘাতিক। একটু যদি কোথাও বাজনা শোনে, কোনো দ্বিধা না করে নাচতে শুরু করে। আফ্রিকার সব দেশে এটা দেখেছি।

    তো, আমি রাস্তায় দাঁড়িয়ে দেখছি। তারপর ছবি তুলতে আরম্ভ করেছি। দলটার একেবারে সামনে ছিল একটি এগারো-বারো বছরের মেয়ে। আমি ছবি তুলছি। হঠাৎ দলের মধ্যে থেকে একটি ছেলে সাংঘাতিক ক্রুদ্ধ মুখে আমার ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে ক্যামেরাটা ছিনিয়ে নিয়ে সপাটে আমাকে একটা থাপ্পড় মারল। তারপরেই অন্যরা এসে কিল-চড় মারতে শুরু করল। আর শুধু দেখছি আঙুলটা মেয়েটার দিকে দেখাচ্ছে। আমি তো কিছুই বুঝতে পারছি না। চুপ করে সহ্য করে যাচ্ছি। ইংরেজিতে দু-একটা কথা বলার চেষ্টা করলাম, কিছুই বুঝছে না কেউ। ঠিক এই সময়, রাস্তা দিয়ে সাইকেল নিয়ে এক ভদ্রলোক যাচ্ছিলেন। স্যুট পরে, মাথায় টুপি। এটাও সেসময় আফ্রিকাতে দেখেছিলাম বেশ অবাক হয়ে। দিনের বেলা দেখেছি, মাঠে কাজ করছে, গাঁইতি নিয়ে মাটি কোপাচ্ছে। সন্ধ্যেবেলা, টিপ-টপ। কালো স্যুট, মাথায় টুপি, হাতে ছাতা নয়তো ছড়ি। যাবে কোথায়? বারে। বারে কী খাবে? শুধু বিয়ার! আফ্রিকানদের মদ্যপান মানে বিয়ার খাওয়া। যাই হোক, সে ভদ্রলোকটিকে তো আমি বললাম, প্লিজ হেল্প মি। তো উনি সঙ্গে সঙ্গে দাঁড়ালেন। কী হয়েছে? বললাম, আমি দুনিয়া ঘুরছি সাইকেলে। ইন্ডিয়া থেকে এসেছি। আমি কিচ্ছু বুঝিনি। যদি কিছু অন্যায় করে থাকি আমি খুবই দুঃখিত। আমি ক্ষমা চাইছি। উনি ওদের সঙ্গে কথা বললেন। তারপরে আমাকে বললেন, তুমি অন্যায় তো করেছ। এই যে উৎসবটা হচ্ছে, এটার পর এই মেয়েটিকে ‘সারকামসাইজ’ করা হবে! আমি তো অবাক। বললেন, হ্যাঁ। এটাই এখানে পরম্পরাগত রীতি। মেয়েদের বয়ঃসন্ধির সময় এটা করা হয়। তো, উনি আমার হয়ে সেই ছেলেগুলিকে অনেক বোঝানোর পর ব্যাপারটা মিটেছিল। ক্যামেরাও ফেরত পেয়েছিলাম।



    উগান্ডার গ্রামে কোনো মহিলার ‘সারকামসিশন’-এর প্রস্তুতি


    কিন্তু, জানো, এটাও আমার একটা বড়ো শিক্ষা হল। ফটোগ্রাফার মানেই ছবি তোলার অধিকার নয়। কীসের ছবি তুলছি, কী পরিস্থিতিতে সেটা বুঝতে হবে। মানুষের ভাবাবেগের সম্মান দিতে হবে। তখনও ফটোগ্রাফি আমার পেশা হয়নি। তার আগেই শিখেগেলাম। আমি এখন খুব জোরগলায় বলি, আমি পাপারাৎজো নই। আমি ফটো-জার্নালিস্ট। ফটো তোলা যাবে না যদি নিয়ম হয় কোথাও, তো ফটো তোলা যাবে না, ব্যাস।
    নী.হা. — হ্যাঁ! আমি এই সমস্যাটার কথা জানি। তা, আর অন্য কোথাও তোমায় অসুবিধার মুখোমুখি হতে হয়েছিল?



    মহিলাদের ‘সারকামসিশন’-এর কুসংস্কারের বিরুদ্ধে প্রচার


    জ. ম. — প্রথমের দিকে, মাসাইদের একটা গ্রামে। তানজানিয়াতে একটা জায়গা আছে, বুঝলে, আরুশা। এই আরুশা থেকে যেতে হয় আফ্রিকার উচ্চতম পর্বত কিলিমাঞ্জারো, আর সেরেঙ্গিটি অভয়ারণ্য। তো সেই অঞ্চলে যখন যাচ্ছি, পথে একটা রাত মাসাইদের সঙ্গে কাটিয়েছিলাম। প্রথমদিকে কিন্তু তারা মোটেই বন্ধুত্বপূর্ণ হাবভাব দেখায়নি। গ্রামে কোনো বহিরাগত এসেছে এটা তাদের মোটেই পছন্দ হয়নি। আসলে ব্যাপার কী জানো তো, আমি এটা দেখেও অবাক হয়েছিলাম, যে ওই দেশে ভারতীয় বংশোদ্ভূত যারা আছে তারা স্থানীয় মানুষদের সঙ্গে একেবারেই মেশে না। আদিবাসীদের সঙ্গে তাদের কোনো সম্পর্কই নেই।

    এই প্রসঙ্গেই একটা অন্য ঘটনা তোমাকে একটু বলে নিই, তাহলে বুঝবে স্থানীয়দের সঙ্গে এই ভারতীয় বংশোদ্ভূতদের দূরত্বটা কীরকম, এবং কেন। আমি তখন লেক ভিক্টোরিয়া-র তিরেমোয়াঞ্জা বলে একটা শহরে গেছি। তানজানিয়াতেই। তো মিস্টার সোম বলে এক বাঙালি ভদ্রলোকের সঙ্গে পরিচয় হয়। তিনি আমাকে তাঁর নিজের কিছু অভিজ্ঞতা বলেছিলেন। তিনি চার্টার্ড অ্যাকাউন্টান্ট ছিলেন। তানজানিয়া সরকারের একটা পদে চাকরি করতে গিয়েছিলেন। তো প্রথম প্রথম যখন এসেছেন, একদিন বাজার করতে গেছেন, কিছু স্থানীয় লোক ওঁকে হুমকি দিতে থাকে যে তুমি চলে যাও এখান থেকে, কারণ তুমি এসেছ বলে স্থানীয়রা চাকরি পাচ্ছে না। সোম আমাকে বলেছিলেন, খানিক্ষণ এইভাবে বিরক্ত করার পরে আমি ওদের বুঝিয়ে বলি যে আমার যে কোয়ালিফিকেশন আছে সেটা তোমাদের নেই, তাই তোমরা কাজটা পাওনি। তারপরে মিস্টার সোম বললেন, কিন্তু পরে আমার মনে হল কেন স্থানীয়রা ভারতীয়দের সম্পর্কে এরকম বিরূপ? তো বুঝলে জয়, খুব শিগগিরি আমি একটা জিনিস বুঝলাম। দোষটা এই ভারতীয় বংশোদ্ভূতদেরই। কার্যত তারাই দেশের অর্থনীতিটা চালায়। আমি এমন ঘটনা শুনেছি যে ভারতীয় হিসেবে আমার লজ্জায় মাথাকাটা গেছে। এবং পরে বুঝেছি হ্যাঁ কথাটা মিথ্যে নাও হতে পারে, এরা এমন করতেই পারে। আমি মিস্টার সোমকে জিজ্ঞাসা করলাম, কেন কী এমন করেছে। উনি বললেন, আফ্রিকান একজন এলেন (ভারতীয় একটা দোকানে), কম্বল চাই। তো কম্বল দেখাল। এত দাম। দিয়েদিল। বেঁধে দিল কম্বলটা। বাড়িতে গিয়ে খুলে দেখে ওর মধ্যে চট দিয়ে দিয়েছে! তিনি আবার যখন ছুটে এলেন, (ভারতীয় বংশোদ্ভূত দোকানদার) পুলিশ ডেকে এনে বলছে, দেখ আমাকে ডিস্টার্ব করছে এই লোকটা!

    নী. হা. — ইন্ডিয়ানরা এই কাণ্ড করে?

    জ. ম. — এই কাণ্ড করেছে। মিস্টার সোম আমাকে একটা উদাহরণ দিয়েছিলেন। নানাভাবে মানুষকে ঠকায়। এই ভারতীয়দের প্রায় সবাই ব্যবসায়ী, প্রকৃত শিল্পপতি খুবই কম।

    নী. হা. — যাই হোক, আমরা মাসাইদের গ্রামের কথা শুনছিলাম…।

    জ. ম. — হ্যাঁ। তো ওদের ওখানে গিয়ে পৌঁছলাম তিনটে-সাড়ে তিনটে নাগাদ। দেখলাম, সবাই ছ-ফুটেরবেশিলম্বা। আর ছিপছিপে। বুঝতে পারছ। আর আমি তো ৫ ফুট ৪ ইঞ্চি! দেখলাম অধিকাংশই মেরুন রঙের পোশাক পরে আছে। আর করে কী, লুঙ্গির মতো একটা কাপড় বুক থেকে হাঁটুর একটু নীচ পর্যন্ত পরে। প্রত্যেকের হাতে বল্লম। এটা কিন্তু ১৯৮০র দশকের একেবারে গোড়ার কথা বলছি। এখন অনেক বদলে গেছে। আমি শুনেছি, একটা বয়সে এসে ছেলেদের প্রমাণ করতে হয় যে তারা প্রাপ্তবয়স্ক হয়েছে। সেটা করা হয় একটা সিংহকে ওই বল্লম দিয়ে মেরে।



    মাসাই যোদ্ধার সিংহ শিকার। ১৯৩২। ছবি এ এইচ ওয়ার্ডল অ্যান্ড কোং


    একা নয় অবশ্য বড়ো দল থাকে। এখন সেটা বন্ধ হয়ে গেছে। এখন ওরা সিংহটাকে ঘিরে কোণঠাসা করে ফেলে, তারপর ছেড়ে দেয়, মারে না। আমি বহু চেষ্টা করেছিলাম এই ব্যাপারটা দেখার, কিন্তু সম্ভব হয়নি। যাই হোক, ওদের বাড়িগুলো সব মাটির তৈরি। ওড়িশার কোরাপুটে আমি যখন আদিবাসীদের সঙ্গে ছিলাম, ওরকম বাড়ি দেখেছি। বাড়িতে শুয়োর, ছাগল আর গোরু পোষে। আর চারদিকে এমন বেড়া দেওয়া যে সিংহ ঢুকতে পারবে না। জঙ্গলের মধ্যে গ্রাম। সেখানে একজনকে পাওয়া গেল যে ভাঙা ভাঙা ইংরেজি বলে। সে বলল, এখানে থাকা-টাকা যাবে না। তুমি বহিরাগত। আমি বললাম, আমিও তো মানুষ, তোমাদেরই মতো। শুধু চামড়ার রংটা আলাদা। তারপর দেখি একটা সভা মতো বসল। গ্রামের লোকেরা নিজেদের মধ্যে কথা বলল। আমি চুপ করে একপাশে দাঁড়িয়ে রইলাম। তারপরে, বলল, হ্যাঁ, ঠিক আছে। তুমি থাকো। তো সেখানে একটা জিনিসই চোখে পড়েছিল, সকালবেলা গোরুর দুধ দুইল। তারপর একটা তির দিয়ে গোরুটার গলার কাছটা চিরে দিল। যে রক্তটা বার হল সেটা দুধের সঙ্গে মিশিয়ে তারপর খেল। আমাকেও দিল। তো আমি একটু খেলাম যাতে অসম্মান না হয়। কিন্তু বেশি খেতে পারলাম না। তারপরে সেখান থেকে সেরেঙ্গেটি চলে গিয়েছিলাম।



    স্বাধীন জিম্বাব্যোয়ের প্রতীকী দীপ প্রোজ্জ্বলিত করছেন প্রথম প্রধানমন্ত্রী রবার্ট মুগাবে। ১৮ এপ্রিল, ১৯৮০


    হঠাৎ মনে পড়ল, জানো, এই দফায় আমি আফ্রিকায় একটা খুব বড়ো ঘটনার সময় উপস্থিত ছিলাম। জিম্বাবোয়ের স্বাধীনতা। ১৯৮০ সালের ১৭-১৮ এপ্রিল রাত্রে এক বিশাল উৎসবে ব্রিটিশ কলোনি রোডেশিয়া স্বাধীন, সার্বভৌম দেশ জিম্বাবোয়ে হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়। প্রথম প্রেসিডেন্ট ছিলেন কানান বানানা, আর প্রথম প্রধানমন্ত্রী রবার্ট মুগাবে। আর গেস্ট অফ অনারদের মধ্যে ছিলেন প্রিন্স চার্ল্‌স, ইন্দিরা গান্ধি, পাকিস্তানের তখনকার মিলিটারি ডিকটেটর জিয়াউল হক। সেই সভা হয়েছিল স্যালিসবেরি শহরে। সেটাই পরে হয় রাজধানী হারারে। সেই সভা কভার করতে গিয়েছিলাম আমি। একটা মজার কথা খুব মনে আছে—জিয়াউল হক খুব চেষ্টা করছিলেন মিসেস গান্ধির সঙ্গে কথা বলতে, আর মিসেস গান্ধি তাকালেনই না একবারও!!


    (ক্রমশ… পরের কিস্তি পড়ুন ২৮ জানুয়ারি)




    গ্রাফিক্স: মনোনীতা কাঁড়ার
  • বিভাগ : ভ্রমণ | ১৪ জানুয়ারি ২০২১ | ৭৮৮ বার পঠিত | ২ জন
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন পুনঃপ্রচার
  • কোনোরকম কর্পোরেট ফান্ডিং ছাড়া সম্পূর্ণরূপে জনতার শ্রম ও অর্থে পরিচালিত এই নন-প্রফিট এবং স্বাধীন উদ্যোগটিকে বাঁচিয়ে রাখতে
    গুরুচণ্ডা৯-র গ্রাহক হোন
    গুরুচণ্ডা৯তে প্রকাশিত লেখাগুলি হোয়াটসঅ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে যুক্ত হোন। টেলিগ্রাম অ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলটির গ্রাহক হোন।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • Moulik Majumder | ১৫ জানুয়ারি ২০২১ ০১:১৬101708
  • অসাধারণ 

  • b | 14.139.196.12 | ১৭ জানুয়ারি ২০২১ ১৪:২৬101793
  • চলুক । 

  • | ১৭ জানুয়ারি ২০২১ ১৫:৪৭101799
  • এই সিরিজটার জন্য অপেক্ষায় থাকি।  নিয়মিত আসুক।

  • ?? | 2402:3a80:1352:e299:aec7:bcb5:452:52cd | ০৪ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ২১:৪৭102298
  • এটাও থেমে গেছে। ২৮ জানুয়ারি আসে নি, আজও আসে নি। 

  • পিনাকী | ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ০০:১১102301
  • থামেনি। সামনের সপ্তাহে আসবে। আপডেট দেওয়া হয়নি। 

  • Prabir Biswas | ২১ এপ্রিল ২০২১ ০৭:২৭104970
  • অসাধারন। ভাবতে আশ্চর্য লাগে। তখন গুগল ম্যাপ ছিলনা

আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। হাত মক্সো করতে প্রতিক্রিয়া দিন