• বুলবুলভাজা  ভ্রমণ  ঘুমক্কড়  খাই দাই ঘুরি ফিরি

  • জয়ের বিশ্বজয় - ২

    জয় মণ্ডলের সাথে আলাপে নীলাঞ্জন হাজরা
    ভ্রমণ | ঘুমক্কড় | ০১ অক্টোবর ২০২০ | ১৮৬৯ বার পঠিত | ৪/৫ (১ জন)
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন পুনঃপ্রচার
  • ১৯৭০-এর গোড়া। বাঁকুড়ার ছোট্ট মফস্‌সল শহর বিষ্ণুপুর থেকে বেরিয়ে পড়লেন তিন তরুণ। দুনিয়া ঘুরে দেখতে হবে। সাইকেলে। ইন্টারনেট নেই। জিপিএস নেই। গুগ্‌ল ম্যাপ নেই। অর্থবল নেই। মাতৃভাষা বাংলা বই দুটি ভাষা জানা নেই। সম্বল স্রেফ স্বপ্ন। আর জেদ। হাল ছাড়লেন দুজন। ঘুরতে থাকল তৃতীয়জনের সাইকেলের চাকা। ১৭ বছর। ৩ লক্ষ ৮৪ হাজার কিলোমিটার। ১৫৪ টি দেশ। আজও এ কীর্তিতে তিনি অদ্বিতীয়। এই প্রথম দীর্ঘ সাক্ষাৎকারে সে পরমাশ্চর্য সফরের অনুপুঙ্খ কাহিনি শোনাচ্ছেন জয় মণ্ডলএ পর্বে চম্বলের ডাকাতের খপ্পর ও ইন্দিরা গান্ধির সঙ্গে সাক্ষাৎআলাপে নীলাঞ্জন হাজরা


    প্রথম পর্ব—প্রস্তুতি (পূর্বপ্রকাশিত অংশের পর...)


    চম্বলের ডাকাত

    নীলাঞ্জন হাজরা—শুনেছিলাম এই ভারত ঘোরার সময়েই তোমাদের চম্বলের ডাকাতে ধরেছিল। তুমি ওই চম্বলের অভিজ্ঞতাটা বলো।

    জয় মণ্ডল—তখন আমরা সিমলা থেকে ফিরছি। নারকাণ্ডা থেকে নাহান হয়ে একেবারে এটাওয়ার দিকে চলেছি। বেশ বেলা আছে। তো একটা জায়গায় একজনকে জিজ্ঞেস করলাম জায়গাটার নাম কী? বলল পাওন্টা সাহিব। পাশ দিয়ে যমুনা নদী বইছে। তো কথায় কথায় বলল, যে এর উলটোদিকেই হল চম্বল। তো, আমি বললাম, এখানে চম্বল? বলল, হ্যাঁ, এখান থেকেই চম্বল উপত্যকা শুরু হয়েছে। আমরা তখনই ঠিক করলাম, এটোয়ার দিকে না গিয়ে সাইকেল ঘুরিয়ে চম্বলে যাব। চম্বলের দিকে চলতে শুরু করলাম।

    তো সেই চম্বলে গিয়ে যখন পৌঁছোলাম তখন প্রায় সন্ধ্যা হয়ে গেছে। সেইখানে একজন এসে বলল, তোমরা আর যাবে না। আমার সঙ্গে আমার বাড়িতে যাবে।

    নী.হা.—দাঁড়াও। আর একটু পরিষ্কার করে বুঝি। তোমরা একটা গ্রামে পৌঁছোলে?

    জ.ম.—হ্যাঁ। উত্তরপ্রদেশ, মধ্যপ্রদেশে যেরকম ছোটো ছোটো গ্রাম হয়। চারপাশে পাহাড়, আর গিরিখাত। সব দেয়ালে ঘুঁটে দেওয়া। লোকটা আমাদের একটা জায়গায় নিয়ে গেল, সেখানে দেখি সকলের হাতে বন্দুক। তো সে আমাদের নিয়ে একটা ঘরে সবে ঢুকেছে, দেখি আর একটা লোক এসে হাজির। এরপর ওদের দু-জনের মধ্যে কী যে কথা হল দেহাতি ভাষায় কিছুই বুঝলাম না। কিন্তু তারপরেই সেই লোকটা বলল, ইহাঁসে চলিয়ে আপলোগ! আমি বললাম, কোথায় যাব? বলল, আপ আইয়ে। হামারে তেহশিলদার সাহাব আপকো বুলা রাহা হ্যায়।

    তা আমি তো ভাবলাম থানার তহশিলদার ডেকে পাঠিয়েছে। ওমা, কোথায় থানা? থানা-টানা নেই। আমাদের নিয়ে যাওয়া হল একটা বিশাল চেহারার লোকের কাছে। তার খুব যত্ন করা বিশাল গোঁফ। মোটা-সোটা। লম্বা। ধুতি পরে আছে। চল্লিশের শেষের দিকের মতো বয়স। সেটা শীতকাল। ফেব্রুয়ারির গোড়া। সে তো আমাদের একটা ঘরে বসাল। চারপাইয়ের ওপর। বলল, বাব্বা, তোমরা তো অনেক বড়ো কাম করছ। সাইকেলে করে আসছ বাংগাল থেকে। আরও নানা কথা। তো আমি বললাম, আপনার কী নাম? বলল, তেহশিলদার সিং!! আমি বললাম, আমাদের এখানে আনলেন কেন? বলল, উয়োলোগ বদমাশ হ্যায়। ডাকু হ্যায়! আমি খবর পেলাম যে তিনটে বাচ্চা ছেলে এসেছে সাইকেলে করে, তাদের রাস্তা থেকে ধরে নিয়ে গেছে। ওদের লক্ষ্য হল বন্দি করে তারপর পণ চাইবে। আমি বললাম, তোমার কথাতেই ছেড়ে দিল? বলল, হ্যাঁ, আমি আমার শাগরেদকে পাঠিয়েছিলাম তো। ও কিন্তু নিজের বিষয়ে কিছুই বলল না।



    রাত্রিবেলায় রুটি খেলাম। জীবনে প্রথম বাজরার রুটি খেলাম। বিশুদ্ধ নিরামিষ খানা, বুঝেছ। আর একটার বেশি রুটি খেতে পারলাম না। এত মোটা মোটা সেই রুটি। তো তাই দেখে উনি রসিকতা করলেন, বাঙ্গালিলোগ খেতে পারে না, ওইজন্য এত ছোটো ছোটো চেহারা! তারপর বলল, কিন্তু বাঙালিরা মাছ খায়, তাই ওদের অত্যন্ত বুদ্ধি হয়! তারপর রাত্রে গল্প করতে করতে জিজ্ঞেস করলাম, আপনি কী করেন? তো বলল, আমি কিছু করি না। তবে আমার বাবা এই অঞ্চলের খুব নাম-করা মানুষ ছিলেন। বললাম, কী নাম আপনার বাবার? বলল, ডাকু মান সিং!!

    তখন আমি বললাম, সে কী? কী বলছেন? বলল, হ্যাঁ। আমার বাবার নাম মান সিং! আর তাউজি-র নাম নবাব সিং! আমি ভাবলাম, মাই গড! দু-জনেরই তো নাম শুনেছি। বলল, আমার বাবা তো মারা গেছেন। কিন্তু তাউজি এখনও বেঁচে আছেন। কাল তোমাদের নিয়ে যাব। বারান্দায় চারপাই পেতে দিল, কম্বল দিয়ে দিল।

    পরের দিন ভোরবেলা পাশেই চম্বল নদীর পাড়ে প্রাতঃক্রিয়া সেরে টেরে, হাত-মুখ ধুয়ে, চা খেয়ে, ওর জ্যাঠামশাইয়ের কাছে গেলাম। দেখলাম সত্তরের মতো বয়স। তাঁর চোখগুলো নেই। তো আমি জিজ্ঞেস করলাম কী হয়েছে, প্রথম থেকেই অন্ধ? উনি আবার যা বলছিলেন তার অর্ধেক বুঝতে পারছিলাম না, দেহাতি ভাষায় কথা বলছিলেন। তেহশিলদার সিং ট্র্যান্সলেট করে দিচ্ছিল। তো বললেন, না। আমাদের পুলিশ টর্চার করত তো, আর কে আছে বল্‌ তোদের দলে, আমরা বলতাম না, তখন আমাদের ওপর টর্চার করা হত। তো একবার চোখের মধ্যে শিক ফুঁড়ে দিয়েছিল। আমি বললাম, কী বলছেন? বলল, হ্যাঁ। তারপর ওনার ছবি তুললাম। তেহশিলদার সিংয়ের ছবি তুললাম। তারপর তেহশিলদার আমাদের একেবারে মেন রাস্তা পর্যন্ত ছেড়ে দিয়ে গেল, দুপুরের খাবার খাইয়ে।

    নী.হা. —তারপর?

    জ.ম. —তারপর বিকেলের দিকে চা-টা খাবার জন্য একটা পুলিশস্টেশনে দাঁড়ালাম। পুলিশস্টেশনে দাঁড়াতাম কারণ তাহলে বিকেলের খাবারটা ফ্রি-তে হয়ে যেত, একটা সিঙাড়া, কী একটু পকোড়া, যা হোক। নিজেদের খরচ করতে হত না। তো যাই হোক, আমি তেহশিলদার সিংকে দিয়ে লিখিয়ে নিয়েছিলাম যে আমরা গেছি। সেটা আমি দারোগাকে দেখালাম। সে বলে, ইয়ে তেহশিলদার সিং উয়ো তেহশিলদার সিং?! মান সিং-কা বেটা?! আমি বললাম, হ্যাঁ। বলল, তুম উনকো মিলে হো? আমি বললাম, হ্যাঁ। কেন? বলল, আরে উয়ো তো কিসিসে ভি মিলতা নেহি। আমি বললাম, আমাদের তো রাস্তা থেকে একটা লোক ডেকে নিয়ে গিয়েছিল, তারপর তেহশিলদার সিং নিজেই লোক পাঠিয়ে ডেকে নিল। তখন সেই দারোগা বলে, ‘আচ্ছা! তো উয়ো তুম থে?’ তা আমি বললাম, কেন? বলল, আমাদের কাছে খবর এসেছিল তিনটে ছেলে সাইকেলে এসেছে বাইরে থেকে, উসকো উঠাকে লে গয়া। ওরা এরকমই করে। ধরে রাখে তারপর র‍্যানসম চাইবে। কিন্তু তারপর আমরা আর ট্রেস করতে পারলাম না! আচ্ছা, তো তুম থে?

    তো সেই পুলিশ অফিসার এত প্লিজ্‌ড হয়েছিল, বুঝলে নীলাঞ্জন, যে বলল, এখন তো চারটে বেজে গেছে, এখন আর কোথায় যাবে? আপ ইধরহি ঠহর যাইয়ে। পুলিশস্টেশনের পাশেই ছিল ওর কোয়ার্টার। কোথা থেকে মুরগি আনিয়ে, রান্না করে আমাদের খাওয়াল। খাওয়ার সময় বিবিকে পর্যন্ত বলছে, ‘সুনতি হো, ইয়ে তেহশিলদার সিংকো মিলকে আয়েঁ হ্যায়ঁ!!’ তখন আমি বুঝলাম তেহশিলদার সিংয়ের এলেমটা! এই হল আমাদের চম্বলের সামান্য অভিজ্ঞতা!



    ইন্দিরা গান্ধি

    নী.হা.—বেশ, আমি এও শুনেছি যে ইন্দিরা গান্ধির সঙ্গেও তুমি সেসময় দেখা করেছিলে বহু কষ্টে, সেটা কী করে সম্ভব হল?

    জ.ম.—প্রথমে সেটা সম্ভব হয়নি। সেসময় মিসেস গান্ধি ১ নং সফদরজং রোড-এ থাকতেন। যেটা এখন মিউজিয়াম। মিসেস গান্ধি সেসময় দরবার বসাতেন। তো, সেই জেনে আমি তো সফদরজং রোডে চলে গেলাম। আমাকে ঢুকতেই দিল না। আমি তারপর রেলভবনের এক বড়ো অফিসার, নাম ছিল আর কে গোয়েল, তাঁর কাছে গেলাম। তিনি বললেন, ‘সাইকেলমে হিন্দুস্তান সয়ের কর রহে হো তো কেয়া? প্রাইম মিনিস্টারকে সাথ মিলনে কা জরুরত কেয়া হ্যায়। কোয়ি জরুরত নেহি। চলো ইঁহাসে! টাইম বরবাদ করতা হ্যায়!’ এই বলে আমাদের বার করে দিলেন।

    এবার, এনসিসি করতাম তো। তো যিনি আমাদের গ্রুপ ক্যাপ্টেন ছিলেন তাঁর নাম ছিল গুরদয়াল সিং। সেনাবাহিনী থেকে এনসিসি-তে ডেপুটেশনে ছিলেন। তো তিনি আমাদের এই কাশ্মীরের ট্রিপটার শুরুর সময় সি-অফ করেছিলেন। যাই হোক, এর মধ্যে গুরদয়াল সিংকে সেনাবাহিনীর হেডকোয়ার্টার্‌স-এ ট্রান্সফার করে দেওয়া হয়েছিল। তো আমি তাঁর সঙ্গে যোগাযোগ করলাম। তিনি একটা বুদ্ধি দিলেন—বললেন তুমি একটা চিঠি লেখো। তাতে লেখো, আমরা সাইকেলে ভারত তো ঘুরছিই, কিছু অর্থও জোগাড় করছি, তার থেকে সামান্য কিছু হলেও, কিছুটা টাকা প্রাইম মিনিস্টার্স রিলিফ ফান্ডে দিতে চাই। সেটা নিয়ে আবার গোয়েলের কাছে যাও। উনিই চিঠিটার ড্রাফ্ট করে দিলেন। তো আমি একটা মানি অর্ডার চেক তৈরি করে ফের চলে গেলাম।

    গোয়েল সব দেখে-টেখে বললেন, তুমলোগ তো বহত তঙ্গ কর রহে হো। ঠিক হ্যায় কাল সুবে আ যাও। আমরা চলে গেলাম সকালবেলাতেই তিনজনেই। গোয়েল দেখলাম সেখানে রয়েছেন। তিনি বলেদিলেন। ঘরে ঢুকে দেখি বেশ কিছু লোক বসে আছে। পঞ্চাশ-ষাটজনেরও বেশি। মাটিতে তিরপল পাতা। আমরা একেবারে সামনের সারিতে গিয়ে বসলাম। মিসেস গান্ধি এলেন। আমি তো থ। কী যে লাবণ্যময়ী! তো উনি বাঁদিক থেকে সবাইকার সঙ্গে একে একে এক-দুমিনিট কথা বলতে বলতে এগোচ্ছিলেন। যেই আমাদের সামনে এলেন আমি দাঁড়িয়ে পড়লাম। সবাই আমায় বসিয়ে দিতে চাইছিল, কিন্তু আমি শুনিনি। আমি সেই চিঠি আর মানিঅর্ডারের রিসিপ্‌ট শুদ্ধু খাম ওঁর হাতে দিয়েদিলাম। উনি সেটা পাশের লোকের হাতে চালান করে দিলেন। এইবার আমি লগ-বুকটা ওনার হাতে ধরিয়ে দিলাম। উনি তাতে শুধু দুটি জিনিস লিখলেন। কী লিখলেন শুনলে তুমি অবাক হবে—উনি শুধু লিখলেন ইন্দিরা গান্ধি। প্রথমে ইংরেজিতে। তারপর পরিষ্কার বাংলা হরফে! এরপর আমাদের জিজ্ঞাসা করলেন, আচ্ছা! তো তোমরা সাইকেলে ঘুরছ? আমি বললাম, হ্যাঁ। আর সেই সুযোগে এটাও বলেদিলাম যে এবার দুনিয়াও ঘুরতে চাই। তো উনি জিজ্ঞাসা করলেন, তোমরা সারা ভারত দেখেছ? বললাম, না। বললেন, আগে সেটা দেখো। এতরকমের মানুষ, এতধরনের সংস্কৃতি, খাওয়া-দাওয়া। এটাই তো একটা দুনিয়া। আগে নিজের দেশটাকে চেন। বিশ্বাস করো, আজও ওনার সেই গলাটা আমার কানে বাজে—ওই কথাটা! এবং আমি কিন্তু সেটা পরে করেও ছিলাম। সেসব কথাও তোমায় বলব। যাই হোক, তারপরে উনি আমাদের আর আরও কয়েকজনের সঙ্গে ছবি তুলে চলে গেলেন। সেই ছবি এখনও আমার কাছে আছে। দেখলে আমাকে চিনতেই পারবে না!



    [এই সাক্ষাৎকারে বর্ণিত অনেক ঘটনারই ফটোগ্রাফ জয় মণ্ডলের কাছে রয়েছে। দুর্ভাগ্যবশত সেগুলি সবই তাঁর নিউইয়র্কের বাড়িতে এবং তিনি লকডাউনে আটকে রয়েছেন বিষ্ণুপুরে। তাই কোনো ছবিই দেওয়া গেল না। এমনকি সেই সাইকেল চড়ে তাঁর নিজের ছবিও নয়।—নীলাঞ্জন হাজরা]

    তরুণকুমার ভাদুড়ীর ‘অভিশপ্ত চম্বল’ ছাড়াও উইকিপিডিয়ার এই সাইটে মিলবে তেহশিলদার সিং-এর কথা।

    (ক্রমশ… পরের কিস্তি পড়ুন ১৫ অক্টোবর)



    ১) এই মানচিত্র দেখলে বোঝা যাবে, পাওন্টা সাহিব থেকে চম্বল নদী-অঞ্চল প্রায় ৪৫০ কিলোমিটার। চম্বল উপত্যকা অবশ্য আরও বিস্তীর্ণ। কাজেই দূরত্ব আরও কম হওয়াই স্বাভাবিক। এই মানচিত্র অনুযায়ী, গুগ্‌ল-এর হিসেবে হেঁটে গেলে ৯০ ঘণ্টা, দিনে আট ঘণ্টা করে হাঁটলে (যেটা ট্রেকিংয়ে মোটেই অস্বাভাবিক নয়) মোটামুটি ১১ দিন। সাইকেলে গড়ে ঘণ্টায় ১৫ কিলোমিটার গতিতে গেলে ৩০ ঘণ্টা। দিনে ১০ ঘণ্টা সাইকেল করলে কমবেশি তিন দিন লাগার কথা। আমার ধারণা ৪৭ বছর আগের এই ঘটনার একেবারে নিক্তি মাপা দিনক্ষণের হিসেব মনে না থাকাটাই বাস্তবোচিত। তা ছাড়া জয় মণ্ডল সাক্ষাৎকারের সময় বলেননি ‘সেদিনই সন্ধ্যায় গিয়ে পৌঁছোলাম’। তবু পাঠকের মনে সন্দেহ উদ্রেক হলে তা নিরসনের জন্য এই টীকা জরুরি মনে হল। নীলাঞ্জন হাজরা


    গ্রাফিক্স: স্মিতা দাশগুপ্ত
  • বিভাগ : ভ্রমণ | ০১ অক্টোবর ২০২০ | ১৮৬৯ বার পঠিত | ৪/৫ (১ জন)
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন পুনঃপ্রচার
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • | ০১ অক্টোবর ২০২০ ১৫:৫৭97901
  • অপূর্ব 

  • r2h | 73.106.235.66 | ০১ অক্টোবর ২০২০ ১৯:১২97913
  • দারুন! ভবিষ্যতে ছবি দেখার কৌতুহলও রইল।

    তেহশিলদার সিং পড়ে সিনেমায় দেখা সুবেদার সিং - পান সিং তোমর মনে পড়লো।

    একটাই অস্বস্তি - এত চমৎকার বিভাগটার নাম ঘুমক্কড় না হয়ে আরেকটু বাংলা কোন শব্দ হতে পারতো না?

  • নীলাঞ্জন হাজরা | 103.18.170.217 | ০১ অক্টোবর ২০২০ ২১:৪৮97927
  • সাক্ষাৎকারটি — মানে আসলে জয় মণ্ডলের কাহিনি — পড়ে যাঁদের ভাল লাগছে তাঁদের পাঠপ্রতিক্রিয়াই আমাদের উৎসাহের আসল উৎস। সকলকে ধন্যবাদ। ‘ঘুমক্কড়’ নামটা অনেক ভেবে রেখেছি। সেটা প্রণম্য রাহুল সাংকৃত্যায়নের একটি দুরন্ত বইয়ের নাম থেকে সরাসরি নেওয়া। এ শব্দটার মধ্যে যে দ্যোতনা আছে ঠিক সেটা বোধকরি কোনও ‘বাংলা’ শব্দে পাওয়া মুশকিল। অজস্র আরবি ফারসি ইংরেজি পোর্তুগিজ শব্দতো বাংলা হয়েই গিয়েছে। ঘুমক্কড়কেও একাত্ম করে নিলে ক্ষতি কী। যেহেতু জয়ন্ত মণ্ডলকে  ৪০ বছরেরও বেশি চিনি মানুষটাকে এক মহাঘুমক্কড় ছাড়া আর কিছুই ভাবতে পারি না!! পড়তে থাকুন মতামত দিতে থাকুন।

  • Moulik Majumder | ০৮ অক্টোবর ২০২০ ২৩:২০98185
  • অসাধারণ অভিজ্ঞতা। 

  • Abhisek Mondal | ১৩ অক্টোবর ২০২০ ০৭:৫২98375
  • দু চাকায় দুনিয়া পড়েছিলাম। এটা পড়ে ভালো লাগলো। পরবর্তী কিস্তির আশায় রইলাম।

  • reeta bandyopadhyay | ১৩ অক্টোবর ২০২০ ১৩:১৭98400
  • অপেক্ষার শুরু. ....কি যে ভালো লাগছে ।

  • aranya | 2601:84:4600:5410:f837:bb28:a710:1621 | ১৯ অক্টোবর ২০২০ ০৭:০৫98618
  • দারুণ 

  • aranya | 2601:84:4600:5410:f837:bb28:a710:1621 | ১৯ অক্টোবর ২০২০ ০৭:০৬98619
  • ঘুমক্কড় = ? 

  • Ranjan Roy | ২৯ অক্টোবর ২০২০ ১৮:৫৬99339
  • ঘুমক্কড় শব্দটির কাছাকাছি বাংলা প্রতিশব্দ হল "ভবঘুরে"।


    আজকে সবকটি পর্ব পড়ে ফেললাম,  একটানা। 


    অসাধারণ।  অবশ্যই  ""দুচাকায় দুনিয়া" মনে পড়বে।


    কিন্ত  জয়ের সহায় সম্বল কম, পরিশ্রম বেশি।

আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। সুচিন্তিত মতামত দিন