• বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়।
    বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে।
  • নতুন শিক্ষানীতি, বাংলা ভাষা টিকবে?

    সৈকত বন্দ্যোপাধ্যায়
    আলোচনা | ৩০ জুলাই ২০২০ | ৮২৯২ বার পঠিত

  • শিক্ষানীতির লক্ষ্য

    এবারের চমকের বিষয় রাষ্ট্রীয় শিক্ষানীতি। চারদিকে হইচই, খবরের কাগজের হেডলাইন, "এবার প্রাথমিক স্তরে শিক্ষাদানের মাধ্যম হতে চলেছে স্থানীয় ভাষা"। শিক্ষানীতির পরিমার্জিত খসড়ায় (আপাতত যেটি সরকারি সাইটে আছে) দ্ব্যর্থহীন ভাষায় ঘোষণা করা হয়েছে, যে, বহুভাষিকতাই ভারতবর্ষের শক্তি। ভারতীয় ভাষাগুলি গভীর, অভিব্যক্তিসম্পন্ন এবং বৈজ্ঞানিক, তবুও সমাজ এবং শিক্ষায় কথোপকথনের এবং শিক্ষাদানের মাধ্যম হিসেবে ইংরিজিকে ব্যবহার করার এক দুর্ভাগ্যজনক প্রবণতা দেখা যায়। যুক্তি দিয়ে বললে, অবশ্যই, ইংরিজির আলাদা করে ভাবপ্রকাশ করার বিশেষ কোনো ক্ষমতা নেই। বরং ঠিক উল্টো। ভারতীয় ভাষাগুলি শতাব্দীর পর শতাব্দী এবং প্রজন্মের পর প্রজন্ম ধরে বিশেষ করে ভারতীয় প্রেক্ষিতে, জলহাওয়ায়, সংস্কৃতিতে ভাবপ্রকাশের জন্যই বিকশিত হয়েছে।  ("Despite the rich, expressive and scientific nature of Indian languages, there has been an unfortunate trend in schools and society towards English as a medium of instruction and as a medium of conversation. Logically speaking, of course, English has no advantage over other languages in expressing thoughts; on the contrary, Indian languages have been specifically developed over centuries and generations to express thoughts in the Indian scenario, climate, and culture." -- পাতা ৮১। )


    তাহলে ইংরিজির বিশেষ মর্যাদা এতদিন কেন দেওয়া হয়েছে? কারণ খুব পরিষ্কার। তাও খসড়ায় স্পষ্ট করেই বলা আছে। ভারতীয় এলিটরা ঐতিহাসিকভাবেই ইংরিজি ব্যবহার করেন। তাঁরা ওতেই পোক্ত। যদিও ভারতে ইংরিজি বলতে পারেন মাত্র ১৫% মানুষ, কিন্তু তাঁরাই ভারতের চাকরির এবং কাজকর্মের বাজার নিয়ন্ত্রণে রাখেন। রাখতে চান। এমনকি ইংরিজি জানাকে অনেক সময়ই "শিক্ষা"র প্রতিশব্দ হিসেবে ব্যবহার করা হয়। যেন ইংরিজি শিক্ষাই হল শিক্ষার পরাকাষ্ঠা। এবং এতে করে ভারতের বিপুল সংখ্যক জনসমষ্টিকে প্রান্তিক করে রাখা হয়েছে। (পাতা ৮২। আলাদা করে আর ইংরিজি উদ্ধৃতিটা টুকে দেওয়া হলনা। ভাবানুবাদ লেখকের, কিন্তু "এলিট" শব্দটা খসড়াতেই আছে)। 


    অতঃপর ভাষাগতভাবে এই শিক্ষানীতির উদ্দেশ্য কী? এলিটদের এই বঞ্চনার বিরুদ্ধে চণ্ডাল ভারতবাসী, দরিদ্র ভারতবাসী, নেটিভ ভারতবাসীকে ন্যায়বিচার দেওয়া। যে ব্যবস্থা তাদের এতদিন ধরে বঞ্চিত করে রেখেছে সেটাকে পাল্টানো। যদি সমাজে সত্যিকারের সমতা এবং সকলের সর্বাঙ্গীণ উন্নতি চাওয়া হয়, তাহলে ভাষাকে কেন্দ্র করে গোটা দেশজুড়ে শিক্ষা এবং চাকরির জগতে যে ক্ষমতাচক্র তৈরি হয়েছে, তাকে যত শীঘ্র সম্ভব, থামানো দরকার। ভারতের ভূমিজ ভাষাকে ফিরিয়ে দেওয়া দরকার তাদের হারিয়ে যাওয়া সম্মান, প্রাপ্য পরিসর। ("For true equity and inclusion in society, and in the education and employment systems across the country, this power structure of language must be stopped at the earliest. A major effort in this direction must be taken by the elite and the educated to make increased use of languages native to India, and give these languages the space and respect that they deserve" -- পাতা ৮২


    এই ঘোষণার পর আর কোনো সন্দেহ থাকেনা, যে, ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার এলিট ও ভদ্রজনদের আধিপত্য রুখে দিতে দৃঢ়্প্রতিজ্ঞ। এবার "ছোটোলোক"দের জয় হবেই। ভাষাগতভাবে। আর উঁচুনিচু কিছু থাকবেনা। আমরা করব জয়। নিশ্চয়।


    অ-এলিট ভারতে কেমন ভারতবাসী চাই? 

    এই শিক্ষাব্যবস্থায় "ছোটোলোক"দের জয় হবে, তা না হয় বোঝা গেল। কিন্তু শিক্ষার ফল হিসেবে বেরিয়ে আসবে যে ভারতবাসী, ভাষাগতভাবে সে কেমন হবে? শিক্ষানীতি একদম গোড়াতেই সেটাও স্পষ্ট করে দিয়েছে। বহুভাষিকতাই ভারতের শক্তি। তার অর্থ খুবই সোজা। অর্থাৎ, লোকে বহুভাষিক হবে। অর্থাৎ কিনা, নানা এলাকায় আলাদা আলাদা একটি ভাষার চর্চাই আর হবেনা। সবাই একাধিক ভাষা বলতে, পড়তে ও বুঝতে পারবে। এবং সেটা শেখানো হবে একদম কচি বয়স থেকে, অর্থাৎ ইশকুলের প্রথম দিন থেকেই। কারণ কী? কারণ, কচি বেলায় ভাষা শেখানো শুধু সহজ, তাইই নয়। সঙ্গে এও ঠিক, যে দুনিয়াজোড়া অধ্যয়নে দেখা গেছে, যে, যে বাচ্চারা একটিমাত্র ভাষা শেখে, তাদের চেয়ে যারা একাধিক ভাষা শেখে, তারা অনেক তাড়াতাড়ি শেখে। জীবনে অনেক বেশি উন্নতি করে। সংস্কৃতি, অভিব্যক্তি, ভাবপ্রকাশ, সব কিছুতেই এগিয়ে থাকে। বহুভাষিক এক ভারতবর্ষ তাই হবে, বেশি শিক্ষিত এবং জাতীয় সংহতিতে বেশি ঐক্যবদ্ধ। ("Children learn languages extremely quickly when immersed early, and multilingual children in studies around the world have also been found to learn faster and be placed better later in life than those who are unilingual. It enriches them intellectually and culturally, and allows them, throughout their lives, to think in more than one way, by being equipped with the structures of expression, vocabulary, idioms, and literature of more than one language. A multilingual India is better educated and also better nationally integrated." -- পাতা ৮১)। কোন অধ্যয়নের কথা এখানে বলা হচ্ছে, তার কোনো সূত্রোল্লেখ এখানে নেই।   


    ব্যাপারটা সোজা কথায় একটু ভালো করে বুঝে নেওয়া যাক। নতুন শিক্ষানীতিতে বিদ্যালয় শিক্ষাকে চার ভাগে ভাগ করা হয়েছেঃ 


    ১। প্রথম পাঁচ বছরের বুনিয়াদি স্তর : ৩ বছর প্রাক প্রাথমিক এবং প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণী। 

    ২। প্রস্তুতি স্তর : ক্লাস ৩, ৪ ও ৫। 

    ৩। মধ্য বিদ্যালয় : ক্লাস ৬, ৭, ৮। 

    ৪। উচ্চ বিদ্যালয় : ক্লাস ৯, ১০, ১১, ১২। 

    (পাতা ৭৫


    এর মধ্যে কচি বয়সে (বুনিয়াদি এবং প্রস্তুতি স্তরে, পঞ্চম শ্রেণী পর্যন্ত) শিক্ষাদানের মাধ্যম মূলত স্থানীয় বা মাতৃভাষাই হবে (যদিও সেখানে কিছু অস্পষ্টতা আছে, কিন্তু তা এখন থাক)। এর বাইরে ওই বয়স থেকেই বাচ্চাদের করে তোলা হবে বহুভাষিক। তারা একাধিক ভাষা শিখবে। এই ভাষাশিক্ষা চলবে শিক্ষার পরবর্তী স্তরেও। এতে বাচ্চাদের শিক্ষায় উন্নতি হবে। একই সঙ্গে জাতীয় সংহতিও বৃদ্ধিপ্রাপ্ত হবে। 


    কী ভাষা শেখা হবে

    বহুভাষিকতা ব্যাপারটা বোঝা গেল, কিন্তু বহুভাষিকতা মানে ঠিক কী? বাচ্চারা ঠিক কী ভাষা শিখবে? তার অভিমুখও খসড়ায় স্পষ্ট করেই বলা আছে। এক্ষেত্রে কচি বয়স থেকেই অনুসরণ করা হবে ত্রিভাষা সূত্র। এই ত্রিভাষা সূত্রটা কী জিনিস? খুব নতুন কিছু নয়। ভারতে ভাষা বিতর্ক পুরোনো। ত্রিভাষা সূত্রও। এর নানারকম বিবর্তন হয়েছে, নানারকম আঞ্চলিক পার্থক্যও আছে। গুজরাল এবং জাফরি কমিটি এ ব্যাপারে যা সূত্র দিয়েছিল, তা হল এইঃ 

    হিন্দিভাষী রাজ্যে শিখতে হবে তিনটি ভাষাঃ ১। হিন্দি (সংস্কৃত সমেত), ২। উর্দু বা অন্য কোনো আঞ্চলিক ভাষা, ৩। ইংরিজি বা অন্য কোনো ইউরোপীয় ভাষা।

    অ-হিন্দিভাষী রাজ্যে যে ভাষাগুলি শিখতে হবেঃ ১। আঞ্চলিক বা স্থানীয় ভাষা। ২। হিন্দি। ৩। উর্দু বা অন্য কোনো আঞ্চলিক ভাষা। ৪। ইংরিজি বা অন্য কোনো ইউরোপীয় ভাষা। 


    অর্থাৎ, কার্যত, হিন্দি এবং ইংরিজি শেখাটা প্রতিটি ভারতীয় শিক্ষার্থীর জন্য বাধ্যতামূলক। এই সূত্র অবশ্য কোথাওই হুবহু অনুসরণ করা হয়না। তৃতীয় ভাষা সেভাবে জোর দিয়ে পড়ানোও হয়না। কিন্তু নতুন শিক্ষানীতি এই সূত্রকেই ব্যাপকভাবে অনুসরণ করার কথা বলছে। একদম প্রাক-প্রাথমিক স্তর থেকে। অর্থাৎ, কার্যত হিন্দি ও ইংরিজিকে প্রতিটি রাজ্যের প্রতিটি মানুষের জন্য বাধ্যতামূলক করার সম্ভাবনা প্রবল। এতে করে, নতুন শিক্ষানীতি দাবী করছে, ইংরিজির এলিটীয় আধিপত্য কমে আসবে। এবং জাতীয় সংহতি স্থাপিত হবে। 


    হিন্দির আধিপত্য

    হিন্দির আধিপত্যের এই সম্ভাবনা নিয়ে নতুন নীতির খসড়ায় কিছু ভাবা হয়নি এমন না। বরং উল্টোটাই। নীতিপ্রণয়নকারীরা এই নিয়ে প্রচুর ভাবনাচিন্তার স্বাক্ষর রেখেছেন পরিমার্জিত খসড়ায়। বলা হয়েছে হিন্দি এলাকার বিদ্যালয়গুলিরও অন্যান্য জায়গার ভাষা পড়ানো উচিত ( "schools in Hindispeaking areas should also offer and teach Indian languages from other parts of India." -- পাতা ৮৭)। এ ব্যাপারটা অবশ্য তাদের ঔচিত্যের উপরেই ছেড়ে রাখা হয়েছে। অর্থাৎ, অ-হিন্দিভাষী এলাকায় বিদ্যালয়ে ৩ বছর বয়স থেকে হিন্দি শেখাতেই হবে। উল্টোদিকে হিন্দিভাষী এলাকায় হিন্দি-উর্দুও পড়ানো যেতে পারে, বা হিন্দি-তামিল। অবশ্যই তামিল পড়ালে ভালো হয়, কমিটির এই মত। কিন্তু বাধ্যতার কোনো জায়গা নেই। ফলে প্রকৃত প্রস্তাবে এই শিক্ষানীতি হুবহু অনুসরণ করলে ভাষাগতভাবে ব্যাপারটা দাঁড়াবে এই, যে, গোটা দেশের প্রতিটি বাচ্চাকে কচি বয়স থেকে হিন্দি শিখতেই হবে। এটা বাধ্যতামূলক। হিন্দি বলয়ের বাচ্চারা অন্য কোনো ভাষা শিখবে কি আদৌ? সেটায় বাধ্যতার কিছু নেই। 


    বাংলার হাল

    বাধ্যতা না থাকলেও, যদি ধরে নেওয়া যায়, হিন্দিভাষী এলাকার প্রতিটি বিদ্যালয় এই শিক্ষানীতির "আত্মা"টি উপলব্ধি করে ফেলল, এবং উর্দুর বদলে অন্য কোনো আঞ্চলিক ভাষা শেখাতে শুরু করল। এই শিক্ষানীতি অনুসরণ করলে হিন্দিভাষী বাচ্চাটি কোন ভাষা শিখবে? এই বহুভাষী ভারতবর্ষে বাংলার কী হাল হবে? 


    ভারতীয় সরকার ইতিমধ্যেই ঘোষণা করেছে, যে ভারতবর্ষে হিন্দি ছাড়াও কিছু ধ্রুপদী ভাষা আছে। তামিল, তেলুগু, কন্নড়, মালায়লম, ওড়িয়া এবং অসমীয়া। জাতীয় শিক্ষানীতি জানাচ্ছে, এই ভাষাগুলি এবং তাদের সাহিত্যকে রক্ষা করা অবশ্য কর্তব্য। ("India also has an extremely rich literature in other classical languages, including classical Tamil, as well as classical Telugu, Kannada, Malayalam, and Odia, in addition to Pali, Persian, and Prakrit; these classical languages and their literatures too must be preserved for their richness and for the pleasure and enrichment of posterity." -- পাতা ৯০)। লক্ষ্যণীয় যে, রক্ষা করার তালিকায় বাংলা কোথাও নেই। এটা শুধু প্রতীকি তা নয়, শিক্ষানীতিতে স্পষ্টই বলা হচ্ছে, কোনকোন ধ্রুপদী ভাষার বিস্তারে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। কোন ভাষার জ্যান্ত থাকা দরকার। এবং বিদ্যালয়ে ব্যাপকভাবে কী ভাষায় শিক্ষা পাওয়া যাবে। ("the teaching of other classical languages and literatures of India, including Tamil, Telugu, Kannada, Malayalam, Odia, Pali, Persian, and Prakrit, will also be widely available in schools, to ensure that these languages and literatures stay alive and vibrant" -- পাতা ৮৭)। এই ভাষাগুলিতে তৈরি হবে কোর্স। ভারতের প্রতিটি স্কুলে ধ্রুপদী ভাষার যে আলাদা কার্যক্রম থাকবে, সেখানে এই ভাষাগুলি থাকবে। বাংলার সেখানে কোনো জায়গা নেই। 


    খুব সহজ ভাষায় বললে, কোনো যাদুমন্ত্রবলে যদি হিন্দিভাষী বিদ্যালয়গুলি উর্দুর বদলে অন্য ভাষা শেখাতে শুরু করে, তাহলেও তারা তামিল, তেলুগু, কন্নড়, মালায়লম, ওড়িয়া বা অসমীয়া শিখবে। অথবা সংস্কৃত বা পালি বা ফার্সি। বাংলা নয়। বাঙালির বাচ্চারা বাংলার বিদ্যালয়ে বসে হিন্দি শিখবে, কিন্তু হিন্দিভাষী বা অন্য কোনো রাজ্যভাষীরা বাংলা শিখবেনা।


    হাতে থাকা পেনসিল

    তাহলে যা দাঁড়াল। 

    ১। "স্থানীয় ভাষায় শিক্ষা"এর অর্থ, বাঙালিদের জন্য হলঃ বাঙালি বাচ্চা তিন বছর বয়স থেকে ইংরিজি এবং হিন্দি শিখবে। "বহুভাষিকতা"র মূল কথা দাঁড়াল এই, যে, বাঙালির বাচ্চারা বাংলার বিদ্যালয়ে বসে হিন্দি শিখবে, কিন্তু হিন্দিভাষী বা অন্য কোনো রাজ্যভাষীরা বাংলা শিখবেনা। বাংলা হয়ে উঠবে হিন্দি বলয়ের এক উৎকৃষ্ট সাংস্কৃতিক বাজার, একেই সম্ভবত এক কথায় "জাতীয় সংহতি" বলা হবে। কেবলমাত্র  এলিটদের গর্ব কীকরে খর্ব হবে বোঝা গেলনা, কারণ ইংরিজি সর্বরাজ্যে নার্সারি থেকেই বহাল থাকবে। এমতাবস্থায় বাংলার রাজনৈতিক শক্তিদের কী কর্তব্য তা তাঁরাই ঠিক করুন।


    পুঃ  এই লেখা কেবলমাত্র শিক্ষানীতির ভাষাগত দিক নিয়েই লেখা। মূল প্রশ্নটাই এখানে তোলা হয়নি, যে, শিক্ষা আদৌ কেন্দ্রীয় তালিকায় থাকবে কেন। ৪০০ পাতার শিক্ষানীতি খুঁজলে মাথাভারি কেন্দ্রীয় অস্তিত্বের আরও গাদা নিদর্শন পাওয়া যাবে, যা মূলত যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামোর পরিপন্থী। এই লেখায় সেসব ধরা হয়নি। তার মানে এই নয়, যে, সেগুলো নেই। 


     


    সূত্রঃ শিক্ষানীতির পরিমার্জিত খসড়া -- https://mhrd.gov.in/sites/upload_files/mhrd/files/Draft_NEP_2019_EN_Revised.pdf

  • বিভাগ : আলোচনা | ৩০ জুলাই ২০২০ | ৮২৯২ বার পঠিত
আরও পড়ুন
খোপ - রৌহিন
  • আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা

  • পাতা : 1 | 2
  • dc | 103.195.203.174 | ৩০ জুলাই ২০২০ ১৯:৪৯95699
  • নতুন শিক্ষানীতি এখনও অবধি অল্প পড়ে দেখেছি, খারাপ কিছু এখনও চোখে পড়েনি। তবে অনেক কিছু পরিষ্কার হয়নি, যেমন মাধ্যমিক পরীক্ষার কি হবে। আগামী দিনে আশা করি এগুলো আরও পরিষ্কার হবে।

    বাংলা ভাষা টিকবে কিনা সে নিয়ে আমার তেমন কোন চিন্তা নেই। অনেক ভাষা তৈরি হয়েছে, অনেক ভাষা বিলুপ্ত হয়ে গেছে। বাংলা ভাষা টিকতে পারলে টিকবে, না পারলে বিলুপ্ত হবে। এমনকি এখন আমরা যে বাংলা ভাষা বলি বা লিখি, সেও একশো বছর আগে এরকম ছিলো না, হয়তো একশো বছর পরে এরকম থাকবে না (যদি আদৌ টিকে থাকে তো)। ইংরেজিও তাই। ভাষা ক্রমাগত পরিবর্তন হয়, থেমে থাকেনা।
  • S | 69.146.151.28 | ৩০ জুলাই ২০২০ ২০:৩৯95700
  • আসল উদ্দেশ্য তিনটেঃ

    ১) প্রাইভেট স্কুলগুলোর বাজার ভালো হবে। ইংরেজি ভালো করে শিখতে গেলে লোকে এখন সেখানেই যাবে।
    ২) বাংলা এবং অন্য কিছু প্রদেশে হিন্দির প্রসার ঘটবে। এর ফলে বিজেপি মনে করে যে তাদের সীট সংখ্যা বাড়বে। উত্তর প্রদেশীয়রা যে কারণে গুজরাতি মোদিকে নিজেদের লোক মনে করে।
    ৩) হিন্দিভাষীদের জন্য বাজার আরো বাড়ানো হবে।

    ভবিষ্যতে এর ফলে যা যা হবেঃ
    ১) ভারতে দুই ধরনের জনগণ তৈরী হবে। এক যারা প্রাইভেট স্কুলে গিয়ে ভালো করে ইংরেজী শিখে প্রাইভেট কোম্পানি, এমেনেসিতে চাকরী পাবে। সরকারি স্কুলগুলোতে পড়ে সেসব চাকরী পেতে সমস্যা হবে। এখন যেমন চলছে আরকি।

    ২) হঠাত করে কিছু বাঙালী ভালো হিন্দি শিখে ফেলবে। তখন তারাও হিন্দির চাকরীতে ভাগ বসাবে। তখন আবার দেখবেন দাবী উঠবে যে না ওদের অত ভালো হিন্দি শেখাতে হবেনা।

    ৩) বর্তমান সরকার ভারতের অর্থনীতির যেভাবে হাঁটু ভেঙে দিয়েছে, তাতে চাকরিবাকরি আপাতত কমই থাকবে। সেই কারণে শিক্ষার প্রসার কমাতে হবে। সেই চেষ্টাই চলছে। এলিটদের স্বার্থ রক্ষা করা এই সরকারের মূল উদ্দেশ্য।
  • r2h | 49.37.10.161 | ৩০ জুলাই ২০২০ ২১:০৯95701
  • ডিসি, একশো বছর আগে মানুষ অন্য মানুষের কথা আজকের থেকে কম ভাবতো, ইতিহাসে যত পিছিয়ে যাবো, মানুষকে তত বেশি নিষ্ঠুর দেখতে পাবো। জাতপাত অস্পৃশ্যতা সামন্ততান্ত্রিকতাজনিত নিষ্ঠুরতা যুদ্ধবন্দীদের প্রতি নিষ্ঠুরতা দাসপ্রথা - মানুষের প্রতি মানুষের ব্যবহার প্রায়শই মনুষ্যোচিত হত না। এখনো হয় না তা না, খুবই হয়, তবে সেসব যে খারাপ সেই বোধটা অন্তত সভ্য ও শিক্ষিত সমাজে এসেছে।

    তাই একশো বছর আগে কী হত তা দিয়ে বিচার করে লাভ নেই। বাংলা ভাষার থেকে উন্নততর কিছু হলো, আর বাংলা ভাষার ঝাঁপ পড়ে গেল, সে হলে কোন সম্স্যা নেই। কিন্তু লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড, ফেয়ার প্রতিযোগিতা হওয়াটা দরকার। একশো বছর আগের হিসেবে কি আর একশো বছর পর চলে।
  • dc | 103.195.203.174 | ৩০ জুলাই ২০২০ ২১:২৮95702
  • r2h, একশো বছর আগে কি হতো তা দিয়ে বিচার করিনি। বলতে চেয়েছি যে কোন ভাষাই ক্রমাগত পাল্টাতে থাকে। শুধু বাংলা না, সব ভাষাই তাই। আজ আমরা বাংলা ভাষা বলতে যা বুঝি, সেটা একশো বা হয়তো পঞ্চাশ বছর আগেও এরকম ছিলোনা, বোধায় পঞ্চাশ বা একশো বছর পরেও এরকম থাকবে না। কাজেই বাংলা ভাষা থাকলো না উঠে গেলো সে নিয়ে আমি খুব একটা চিন্তা করি না। শুধু বাংলা কেন, ইংরেজি, হিন্দি, ফরাসী, যে কোন ভাষাই বিলুপ্ত হয়ে যেতে পারে, তার বদলে অন্য কোন ভাষা পপুলার হতে পারে। আমার জীবিত থাকা অবস্থায় সেরকম হলে সেই ভাষা শিখে নেব। এই আর কি।
  • r2h | 2405:201:8805:37c0:5175:bb15:ba9:1ba0 | ৩০ জুলাই ২০২০ ২১:৩৫95703
  • ভাষা পাল্টানো আর ভাষার গলা টিপে দেওয়া তো আলাদা

  • S | 2a0b:f4c2::1 | ৩০ জুলাই ২০২০ ২১:৩৯95704
  • যাইহোক ঈশানদাকে ধন্যবাদ দিয়ে যাই। এইসব নিয়ে এখন কেউ আর মাথা ঘামায় না। সবাই নেপোটিজম, রাফালে, আর মন্দির নিয়ে ব্যস্ত। তার মধ্যেও তিনি লিখেছেন। কিন্তু এই শিক্ষানীতিতে কি শুধু ভাষার কথাই রয়েছে, নাকি ইতিহাসও বদলানো হবে?
  • nc | 144.214.166.98 | ৩০ জুলাই ২০২০ ২১:৪৫95705
  • সংখ্যাগুরু বাঙালি যে ভাষায় কথা বলে তাতে "নানা, ফুফা, খালা, আফা, মাগার, ইন্তেকাল, দাওয়াত, নাস্তা" ইত্যাদি আরবি-ফার্সি এবং উত্তরপ্রদেশীয় গো-বলয়ের শব্দের ছড়াছড়ি। 
    আরবি-ফার্সি শব্দ যদি বাংলা হিসেবে মান্যতা পেতে পারে, আরবি পোশাক-সংস্কৃতি যদি সংখ্যাগুরু বাঙালির "বাঙালি পোশাক-সংস্কৃতি" হিসেবে মান্যতা পায়, তাহলে হিন্দি কি অপরাধ করল ?
     

  • π | 14.139.221.129 | ৩০ জুলাই ২০২০ ২৩:২৫95708
  • বাংলা ধ্রুপদী ভাষা হলে তো এই সমস্যা অনেকটাই কমত।
    শুনছি, বাংলা ধ্রুপদী ভাষা হয়নি বাংালিদের ল্যাদে কিম্বা অনাগ্রহে আর ওঢ়িশার অতিসক্রিয়তায়। চর্যাপদ কীকরে উড়িষ্যা পায়!!
  • এলেবেলে | 202.142.96.24 | ৩১ জুলাই ২০২০ ০১:০৮95710
  • বহু দিন পরে সৈকতবাবুর প্রবন্ধ পড়লাম। উনি কতগুলো আশঙ্কার কথা ব্যক্ত করেছেন এবং সেগুলো যে অমূলক আশঙ্কা, তা আদৌ নয়। তবে ভাষাশিক্ষার সঙ্গে দীর্ঘদিন জড়িত থাকার সুবাদে আমার মনে হয়েছে, তিনি একটু বেশিই শঙ্কিত হয়ে পড়েছেন।

    এটা একেবারেই প্রাথমিক স্তরে আছে এবং মনে রাখতে হবে এ দেশে শিক্ষা বিষয়টা যৌথ তালিকাভুক্ত। কাজেই রাজ্যকে পাশ কাটিয়ে গায়ের জোরে ভাষানীতি প্রয়োগ করার বিষয়টা যতটা সহজ বলে মনে হচ্ছে, আসলে ততটা হবে না।

    উদাহরণ হিসবে বলা যায়, ত্রিভাষা নীতি এ রাজ্যে দীর্ঘদিনই আছে। কিন্তু সরকারি বাংলা মাধ্যম স্কুলগুলোতে এখনও সেখানে ধ্রুপদী ভাষা হিসবে সংস্কৃত বা আরবি পড়ানো হয়, হিন্দি নয়। সেটা রাতারাতি পাল্টে যাবে, তেমনটা বোধহয় নয়। ইংরেজি মাধ্যমের পড়ুয়াদের নিয়ে আমি চিন্তিত নই, কারণ বাংলাকে তারা অশ্রদ্ধা চিরকালই করে।

    আসলে বাংলা ভাষাটা যাঁদের জন্য টিকে আছে এবং আগামী একশো বছর পরেও টিকে থাকবে, তাঁরা শহুরে ভদ্রলোক নন। প্রচুর ঝড়ঝাপটার পরেও তাঁরা যখন টিকে আছেন, তখন এমতাবস্থায় টিকে না থাকার কিছু নেই।

    আসলে সৈকতবাবুর প্রবন্ধটা এ বিষয়ের শুরুয়াত মাত্র। এখনও গঙ্গা-যমুনা দিয়ে বহু জল বয়ে যাওয়া বাকি আছে।

    কাজেই অত সহজে হাল ছাড়বেন না।

    আর 'ধ্রুপদী' তকমাটা দিয়েছিল সাহেবরা। তাদের ভাষা নির্মাণের রাজনীতির প্রয়োজনে। সেটাকে ফের ফিরিয়ে আনার খুব একটা দরকার আছে বলে আমি অন্তত মনে করি না।

  • S | 2405:8100:8000:5ca1::482:c19e | ৩১ জুলাই ২০২০ ০১:২৯95711
  • ধ্রুপদী মানে কি? ক্লাসিকাল? আমি কিন্তু ক্লাস ৭-৮এ হিন্দি পড়েছিলাম।
  • এলেবেলে | 202.142.96.24 | ৩১ জুলাই ২০২০ ০১:৫১95712
  • সাহেবদের কাছে 'ধ্রুপদী'-র অর্থ ছিল গ্রিক, লাতিন ও সংস্কৃত। বাকি সমস্ত ভারতীয় ভাষা হয় তদ্ভব, নতুবা দিশি। বাংলাও কি কালে কালে ধ্রুপদী হয়ে উঠবে? যদি ওঠে তবে কোন বাংলা? সেখানেও তো মার্জিনাইলেজশনের প্রশ্ন অবধারিতভাবে উঠবে। তখন কী করিতে হইবে?

  • dc | 103.195.203.190 | ৩১ জুলাই ২০২০ ০৮:৩৬95715
  • ক্লাস ৭-৮ এ হিন্দি তো আমিও পড়েছিলাম।

    চর্যাপদ মানে কি কেলাস ১১-১২য় বাংলা ভাষার ইতিহাস নামে একটা বিভীষিকা পড়তে হতো ওইটা? উরেব্বাবা, ওটা পুরো দুঃস্বপ্ল ছিলো আমার কাছে। লুইপাদ, ভুসুকুপাদ, আরও কতো রকমের যেন পাদ ছিল। ওটা যদি উড়িষ্যার বাসিন্দাদের পড়তে হয় এখন থেকে আর পবতে না পড়তে হয় তাহলে পবর উচ্চমাধ্যমিকের ছাত্রছাত্রীরা ওটার হাত থেকে বাঁচবে।
  • dc | 103.195.203.190 | ৩১ জুলাই ২০২০ ০৮:৫৩95716
  • নতুন শিক্ষানীতির কয়েকটা হাইলাইট এখানে ওখানে পড়লামঃ

    ১। জিডিপির ৬% শিক্ষায় ব্যায় করা হবে। এটা হলে তো খুবই ভালো হয়।

    ২। সায়েন্স, হিউম্যানিটিস ইত্যাদি আলাদা ভাগ থাকবে না। এটা হলেও খুব ভালো হয়।

    ৩। বোর্ড এক্সামের গুরুত্ব কমিয়ে দেওয়া হবে। এটা হলে খুব খুব খুব ভালো হয়। এই বিভীষিকাটাকে তুলে দিতে পারলে সবচে ভালো হয়।

    ৪। নত্ন ৫+৩+৩+৪ সিস্টেমটা এখনো পুরোটা বুঝিনি।

    ওপরের পয়েন্টগুলো যদি ঢপ না হয় তো ভালো পদক্ষেপ।
  • dc | 103.195.203.190 | ৩১ জুলাই ২০২০ ০৮:৫৬95717
  • আরও একটা ব্যপার দেখলাম, সরকারি আর প্রাইভেট দুরকম শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের জন্যই নাকি ফি রেগুলেট করা হবে। এটা বোধায় পরিষ্কার ঢপ। যেখানে রাইট টু এডুকেশান ইতিমধ্যেই গভীর সমুদ্রে ডুবিয়ে দেওয়া হয়েছে সেখানে ফি রেগুলেশান অনেক দূর কি বাত।
  • T | 146.196.45.93 | ৩১ জুলাই ২০২০ ০৯:১২95718
  • বাংলা ভাষার ইতিহাসই শুধু বিভীষিকা নয়, বাংলা বা ইনফ্যাক্ট ইতিহাসই তো বিভীষিকাময়। পলাশীর যুদ্দু কবে হয়েছিলো সে জেনে কার কী হবা? শুদু জানা উচিত খানিক অংক ইংরিজি আর মেশিন লার্ণিং। তাই না? 

    আমাদের বিপ সায়েব যেমন বলেন।

  • T | 146.196.45.93 | ৩১ জুলাই ২০২০ ০৯:১৬95719
  • এই আজকেই কাগজে দেখলাম মুখে বলে ৬% এদিকে বরাদ্দ আসলে ০.৪৪%, তো ঢপই হচ্ছে তাহলে। আর একটিই স্যাট মার্কা এগজ্যাম ও সিলেবাস নিয়ন্ত্রিত হবে আন্তর্জাতিক পরিষদ দ্বারা, সেই বেড়াল বেরিয়েছে নাকি এখনো ঝুলির ভেতর? 

  • S | 2001:920:198c:83c:6368:537d:f8b4:5555 | ৩১ জুলাই ২০২০ ০৯:২১95720
  • এই সরকারের কাজকর্মই তো এইরকম। ৫ ট্রিলিয়ন ডলারের ইকনমি করবে বলে জিডিপি গ্রোথ ৪%এ নামিয়ে এনেছিল। দুর্নীতি দূর করবে বলে রাজনীতিতে অবাধ টাকার ব্যবস্থা করে ফেলে। তবে মন্দির বলেছিল, করে দেখিয়েছে। অতেব ১০০০ মুসলমান খুন মাপ।
  • | 2401:4900:1fe9:957c:55c7:9fba:9eb8:54f2 | ৩১ জুলাই ২০২০ ০৯:২৪95721
  • কিন্তু... কিন্তু 'বাংলা ভাষার টিকবে?' এই বাক্যবন্ধটা কেমন কেমন। বাংলা ভাষার কী? ভাষার প্রতিপত্তি? ভাষার ব্যবহার? ভাষার রমরমা?
    আর নয়ত বলতে হয় 'বাংলা ভাষা টিকভে?' র বাদ দিয়ে।
  • Atoz | 151.141.85.8 | ৩১ জুলাই ২০২০ ০৯:২৬95722
  • এইসব অঙ্ক টঙ্ক বিজ্ঞান টিজ্ঞান শিখেই বা কী হবে? হুমদো হুমদো আর চিকন চিকন মেশিনেরা সব অঙ্ক বিজ্ঞান ইত্যাদি যা শেখার শিখুক। লোকে পুশ বাটন করে করে যখন যা দরকার নিয়ে নেবে।
  • | 2401:4900:1fe9:957c:55c7:9fba:9eb8:54f2 | ৩১ জুলাই ২০২০ ০৯:৩০95723
  • তবে এই শিক্ষানীতির সবচে ইন্টারেস্টিং পার্ট হল একটা ফেক ডিগ্রিধারী শিক্ষানীতি প্রণয়ন করছে আর লোকে আবার তাতে ভাল জিনিস খুঁজেও পাচ্ছে।
    দারুণ ব্যপার।
  • T | 146.196.45.93 | ৩১ জুলাই ২০২০ ০৯:৩২95724
  • ভাষার টিকবে টা মনে হয় নির্মোহ ব জাতীয় কিছু হয়ে গ্যাছে। মিসটেক মিসটেক।

  • π | 2402:3a80:a04:3d6a:0:65:ba96:a501 | ৩১ জুলাই ২০২০ ০৯:৫২95725
  • আরে ওটা টাইপো,ঠিক করা যাচ্ছেনা।

    কিন্তু কথা হল, যা দেখলাম, সাহেবদের ক্লাসিকাল লাংংংগুজের হিসেব অনুযায়ী ভারতীয় ধ্রুপদী ভাষার তকমা পড়েনি।
    "Classical Language in India" is an official status within the Republic of India, awarded by the Government of India. It is without direct relation to the usual definition of "classical language" (viz., a specific classical register within a larger literary tradition), for which see Category:Classical languages.

    কী হিসেবে পড়েছে, কেউ বুঝিয়ে দিলে ভাল হয়। ভাষায় প্রাচীন সাহিত্য রচিত হয়েছে, এটাই নির্ণায়ক আশা করি। সে হিসেবে বাংলার না পাওয়ার কোন কারণই দেখিনা। আর চর্যাপদের কারণে ওড়িয়া পেয়ে থাকলে, সেটারও। এতো মস্ত ভুলভাল ব্যাপার।

    আর দক্ষিণের চারটি ভাষা বা অসমিয়ার ধ্রুপদী তকমা নিয়ে আপত্তি না থাকলে বাংলা নিয়ে কেন?

    ডিসি, আপনা মাংসে হরিণা বৈরী, এ শব্দবন্ধ কখনো ব্যবহার করেননি?
    টালত ঘর মোর নাহি প্রতিবেশী, হাড়িত ভাত নহি নিতি আবেশী ( কিছু ভুল থাকতে পারে), এগুলো পড়ে সুন্দর লাগেনি, বোঝা যায়নি? আপনার কি বাংলা ভাষাটাই না থাকলে, বা ইংরাজি বাদে আর কোন ভাষা না থাকলেই কিছু এসে যেতনা মনে হয়? ইয়ার্কি মারছেন না ধরেই জিজ্ঞাসা করলাম। আপনাকে তো সাহিত্য অনুরাগীও মনে হত। ইংরাজি সাহিত্য ভালবাসলে তিনি অন্য ভাষা সাহিত্যকে দুচ্ছাই করেন, এটা এখনো যদিও ইয়ার্কিই মনে হচ্ছে কিম্বা শয়তানের ওকালতি ঃঃ)
  • π | 2402:3a80:a04:3d6a:0:65:ba96:a501 | ৩১ জুলাই ২০২০ ১০:০০95727
  • প্রাইভেটাইজেশন, কর্মাশিয়ালাইজেশন বাড়বে।

    এই অন্যদের সংগে আলোচনা না করা আর তাই নিয়ে কতিপয় লোকজন বাদে কারুর মাথাব্যথা না হওয়াও উদবেগজনক।

    https://zeenews.india.com/bengali/kolkata/biman-bose-reacts-against-new-education-policy-of-center_330056.html
  • Tim | 174.102.66.127 | ৩১ জুলাই ২০২০ ১০:০০95728
  • স্কুলের পড়ার সময় দেখতাম ক্লাসের অধিকাংশ ছেলে (বাংলা বয়েজ) ইতিহাস, সাহিত্যের ইতিহাস, বাংলা ভাষা শিক্ষার ক্লাস এইসব নিয়ে খুব বিরক্তি দেখাত। এরাই সংখ্যাগরিষ্ঠ। এখনও, এদেরই ভোটে মোটের ওপর ফল নির্ধারিত হয় (আমার অনুমান)। সেদিক থেকে বেশিরভাগ লোকের পছন্দের জিনিসপত্রই হচ্ছে।
  • sm | 2402:3a80:196b:a32e:678:5634:1232:5476 | ৩১ জুলাই ২০২০ ১০:০১95729
  • রাজ্য সরকার চাইলে অনেক কিছু করতে পারে।কেন্দ্রীয় সরকার চেষ্টা করলেও বিশেষ কিছু করতে পারবে না।

    প্রথম ধাপ হলো ফার্স্ট ও সেকেন্ড ল্যাঙ্গু়েএজ এর মধ্যে ফ্লেক্সিবিলিটি বাড়ানো।অর্থাৎ প্রথম ল্যাঙ্গু এজ হিসাবে বাংলা,হিন্দি,ইংলিশ যেটা মন চায় রাখো।কিন্তু সেকেন্ড ল্যাঙ্গু়েএজ, বাধ্যতামূলক ভাবে হবে বাংলা বা যাঁরা ফার্স্ট ল্যাঙ্গু এজ বাংলা নিয়েছে,তাঁদের ক্ষেত্রে ইংলিশ।এটা সরকারী, বেসরকারি সব স্কুলের জন্য গ্রাহ্য হোক।অর্থাৎ পশ্চিম বঙ্গে বাস করলে, বাংলা কে একটি ভাষার মাধ্যম হিসাবে পড়তে হবেই।

    দ্বিতীয় দিক হলো, ব্যাবহারিক বাংলা ভাষার প্রসার বৃদ্ধি।অর্থাৎ ব্যাংক,পোস্ট অফিস,থানা,সর্বত্র বাংলা ভাষায় আবেদন,নিবেদন, ফর্ম ফিলআপের বন্দোবস্ত।

    এমনিতে, বাংলা ভাষার বিরাট কোন গুরুত্ব নেই,জীবিকার বাজারে। বাংলা জেনে চাকরী, বাকরী তে সুবিধে হবে না।

    কিন্তু সরকারী ভাবে ব্যাবহারিক বাংলা ভাষা চালু রাখতেই হবে।এটা পশ্চিম বঙ্গ ভাষী বাঙালি দের আইডেন্টিটি রক্ষার ব্যাপার। নয় তো, কেন্দ্রীয় সরকার হিন্দি চালু করলো,কেন করলো ;এসব ইনিয়ে বিনিয়ে কেঁদে লাভ নেই।

  • π | 2402:3a80:a04:3d6a:0:65:ba96:a501 | ৩১ জুলাই ২০২০ ১০:০৩95730
  • "এমনিতে, বাংলা ভাষার বিরাট কোন গুরুত্ব নেই,জীবিকার বাজারে। বাংলা জেনে চাকরী, বাকরী তে সুবিধে হবে না।"

    এটাকেই কেন বদলানো দরকার, কেন সেটা হবেনা, সেই নিয়ে তো দাবিদাওয়া দেখিনা!
  • dc | 103.195.203.190 | ৩১ জুলাই ২০২০ ১০:১৩95731
  • "টালত ঘর মোর নাহি প্রতিবেশী, হাড়িত ভাত নহি নিতি আবেশী ( কিছু ভুল থাকতে পারে), এগুলো পড়ে সুন্দর লাগেনি, বোঝা যায়নি?"

    এ দুটোই ভারি সুন্দর ঃ-)

    "আপনার কি বাংলা ভাষাটাই না থাকলে, বা ইংরাজি বাদে আর কোন ভাষা না থাকলেই কিছু এসে যেতনা মনে হয়?"

    ইংরেজি ভাষা না থাকলেও আমার কিছু অসুবিধে হবে না। ধরুন কোন কারনে ইংরেজি উঠে গিয়ে সোয়াহিলি সারা পথিবীতে চালু হলো, তো আমি সোয়াহিলি শিখে নেব। এখন যেমন চেন্নাইতে থাকি বলে তামিল শিখে নিয়েছি। ব্যাঙ্গালোরে সেটল করলে কন্নড় শিখে নেব, বা জাপানে থাকলে জাপানি শিখে নেব। জাপানি ভাষায় মাঙ্গা পড়বো, ইংরেজি ভুলে যেতে হলে কোন অসুবিধে হবে না।
  • π | 2402:3a80:a04:3d6a:0:65:ba96:a501 | ৩১ জুলাই ২০২০ ১০:১৭95732
  • আর এইসব ভাষাগুলোই উঠে গেলে?
  • dc | 103.195.203.190 | ৩১ জুলাই ২০২০ ১০:২১95733
  • সব ভাষা কেন উঠে যাবে? কোন না কোন ভাষা তো থাকবেই! সেটাই শিখে নেব ঃ-)
  • sm | 2402:3a80:196b:a32e:678:5634:1232:5476 | ৩১ জুলাই ২০২০ ১০:২৬95734
  • বাংলা জেনে কিছু শিক্ষকতার চাকরি হতে পারে।সংস্কৃত জানলে সেই সুযোগ আরো কম।বাস্তবতার খাতিরে,বাংলা জানার একমাত্র কারণ হলো,বাঙালি আইডেন্টিটি রক্ষা।বাংলায় বসবাস কারি,অবাঙালি জনগোষ্ঠীর ক্ষেত্রেও বাংলা ভাষাকে জানার চেষ্টা চালাতে হবে,সরকারী ভাবেই।যাতে করে পৃথক পৃথক ভাষা গোষ্ঠী র লোকজন এটলিস্ট পরস্পর কে,কমিউনিকেট করতে পারে।

    অনেক ব্যাংক ,পোস্ট অফিসে বেশ কিছু কর্মী বাংলায় কথা বার্তাই চালাতে পারে না।অনেক গ্রাহক,বিশেষত স্বল্প শিক্ষিত ও প্রান্তিক মানুষ জন,বাংলা ছাড়া কিছু জানেন বা বোঝেন না।এঁদের নিয়ে চলে অমানুষিক টানা হিঁচড়ে। এইসব ক্ষেত্রে ওই প্রান্তিক মানুষ জন খুব অসহায় বোধ করেন।কোন ইংলিশ বা হিন্দি জানা গ্রাহক এর কৃপা প্রার্থী হন বা শরণাপন্ন হন। এইসব জিনিষ দূর করার জন্যই ব্যাবহারিক বাংলা শিক্ষা পশ্চিমবঙ্গে বাধ্যতা মূলক করা উচিত।

  • Amit | 203.0.3.2 | ৩১ জুলাই ২০২০ ১০:২৯95735
  • ডিসি, একটু ঠান্ডা জল, শরবত তৎ খেয়ে একটু শান্ত হন আগে মশাই. গরমে পেট গরম হয়ে গেছে মনে হচ্ছে.

    সেতো একটা মেজর ডিসাস্টার হলে মানুষ জাত টাই বিলুপ্ত হয়ে যেতে পারে, শুধু ভাষা কেন. কথাটা সেটা নয়, আজকে ডায়নামিক দুনিয়াতে আগামী 20-30 বা কয়েকশো বছরে অনেক ভাষা র ই হয়তো ন্যাচারাল ডেথ হবে, কাজের দরকারে, মাইগ্রেশন এর দরকারে অনেক লোকেই অন্য ভাষা শিখবে বা শিখতে বাধ্য হবে. সেসব নিয়ে কে কমপ্লেন করেছে ?

    কিন্তু সেটা যখন ন্যাচারাল ডেথ না হয়ে, একটা নাজী সরকার নিজেদের এজেন্ডা চাপানোর জন্যে একটা ভাষাকে গলা টিপে, জোর করে খুন করতে চাইছে, তখন কি প্রতিবাদ টাও জরুরি নয় ?
  • π | 2402:3a80:a04:3d6a:0:65:ba96:a501 | ৩১ জুলাই ২০২০ ১০:৩১95737
  • ওড়িয়া চর্যাপদের জন্য পেয়েছে এই দাবি কি ঠিক?

    পলিসির ৮৭ নংং পাতায় ওড়িয়ার 'সরল দশা' র উল্লেখ দেখলাম, যেটা পড়াতে রেকমেন্ড করেছে।

    এই সব ধ্রুপদী ভাষাতেই প্রাচীন সাহিত্য শিক্ষার কথা লিখেছে দেখলাম।

    আবার অনেকে বলছেন, এর সংগে ত্রিভাষার যোগ নেই, সব গুলিয়ে যাচ্ছে।

    এই নীতি অনুযায়ী কি ক্লাস ৫ অব্দি ইংলিশ মিডয়ম স্কুলগুলোতেও বাংলায় পড়াতে হবে? আর ৫ এর পরে কি বাংলা মাধ্যম স্কুল ও ইংরাজি মাধ্যমে পড়াতে পারে?

    অহিন্দি রাজ্যে ত্রিভাষা সূত্রে এখন কী হয়, নতুন নীতিতে কী বদলালো, কেউ একটু স্পষ্ট করুন।
  • S | 2a0b:f4c2:2::1 | ৩১ জুলাই ২০২০ ১০:৪৭95739
  • আমার বাংলা ভাষার ইতিহাস পড়তে ভালো লাগতো। কিন্তু তখন জয়েন্টের চিন্তায় আর ওসব বেশি হয়নি। মধ্যবিত্ত বাড়ির ছেলেদের যা হয় আরকি। যাইহোক এখন মনে হয় ভাষা হল রাজনীতির একটা বিশাল বড় অস্ত্র, যা ধর্মের থেকেও অনেক বেশি ধারালো।
  • sm | 2402:3a80:196b:a32e:678:5634:1232:5476 | ৩১ জুলাই ২০২০ ১০:৫৩95741
  • ভাষা ধারালো,ধর্ম ছুঁচলো,গায়ের রং জোড়ালো (বি এল এম),দেশের সীমা ধাঁধালো (ডোকলাম, গালোয়ান)।তাহলে রাজনীতিটা হবে কি নিয়ে ?ঘোড়ার ঘাস কাটা নিয়ে?

  • π | 2409:4065:304:a798:15d4:550e:f660:443d | ৩১ জুলাই ২০২০ ১০:৫৯95742
  • ব্যবহারিক বাংলা ভাষা কীরকম ব্যাপার হবে? স্পোকেন বাংলা গোত্রের কোর্স?
  • π | 2409:4065:304:a798:15d4:550e:f660:443d | ৩১ জুলাই ২০২০ ১০:৫৯95743
  • ব্যবহারিক বাংলা ভাষা কীরকম ব্যাপার হবে? স্পোকেন বাংলা গোত্রের কোর্স?
  • sm | 2402:3a80:196b:a32e:678:5634:1232:5476 | ৩১ জুলাই ২০২০ ১১:১৪95744
  • আগেই বলে দিয়েছি,পোস্ট অফিস,ব্যাংক,থানা,আদালত,দলিল সর্বত্রই বাংলায় আবেদন,নিবেদন ও ফর্ম ফিলাপ করা যায়,এই ব্যবস্থা রাখতে হবে। পশ্চিম বঙ্গে কিছু ব্যাংকের ফর্মে ইংলিশ এর সঙ্গে বাংলা আছে,কিন্তু  অধিকাংশ ব্যাংকে হিন্দি। বেসরকারি পোস্টব্যাংক গুলোতে তো বাংলা বা হিন্দি কোন কিছুরই চল নেই। পোস্ট অফিসেও, বাংলার চল কম।জমির দলিল এর ক্ষেত্রে ইংলিশ এর চল বেশি।সহজ বোধ্য।কিন্তু অজ্ঞাত কারণে বাংলা রূপান্তর খুব জটিল।এগুলোকে সহজ সরল করতে হবে।আদালত এর কার্য কলাপ এর ক্ষেত্রেও তাই হওয়া বাঞ্ছনীয়।ব্যাবহারিক বাংলা যেন সহজ বোধ্য হয়।বহুকাল ধরে এ নিয়ে প্রশাসন উদাসীন।মানে কাজ চলে যাচ্ছে,নতুন করে ঝামেলা বাড়িয়ে কি লাভ! এই হলো মানসিকতা।

  • Suman Das | 2409:4060:2018:5b54:e058:2699:4388:e617 | ৩১ জুলাই ২০২০ ১১:২৯95745
  • যা ইচ্ছা লিখে দেয়া হচ্ছে।

    অসুবিধা টা কোথায় তামিলনাড়ুর ১টা ছেলে বাংলা শিখছে না বলে নাকি বাংলা ১টা ছেলে কে হিন্দি শেখানো হচ্ছে বলে।

    তামিলনাড়ুতে বাংলা না যানলে জীবন চলে যাবে, কিন্তু বাম এবং ডান শাষনের ফলস্বরুপ যারা বাইরে কাজ করতে যায় তার হিন্দি জানতেই হয়।

    Being multilingual doesn't make you a less of a bong.

  • Shuvam Roy | 47.11.250.245 | ৩১ জুলাই ২০২০ ১১:৩৮95746
  • হিন্দি আবার কবে থেকে classical language হলো? লেখক কি লেখেন? আমি তো জানি তামিল, সস্কৃত, ওড়িয়া, কন্নর , তেলেগু, মালায়ালাম এরা।

  • Amit | 203.0.3.2 | ৩১ জুলাই ২০২০ ১১:৪৯95747
  • এই সো কলড ক্লাসিকাল ল্যাংগুয়েজ গুলোকে নিয়ে হটাৎ করে এতো আদিখ্যেতার কি হলো কেজানে. কয়েকশো বছর আগে তার কি ইতিহাস পাতিহাঁস, ছিল , সে যাদের জানার ইচ্ছে আছে হাইয়ার স্টাডিতে জানুক বসে বসে. এখন যা কারেন্ট দেশের ডেমোগ্রাফিক, পলিসি তার ওপর বেস করে বানানো দরকার. বাংলা হোক বা পাঞ্জাবি বা মনিপুর - যেখানে একটা ভাষা ভিত্তিক রাজ্য হয়েছে, সেখানে রোজকার কাজের জন্যে সেই ভাষাকে প্রাধান্য দিলেই তো চুকে যায়.

    প্রতিটা স্টেট্ এ নিজের ভাষার পাশাপাশি ইংলিশ বা হিন্দি তে ফর্ম বা দরকারি ইনফো সব থাকলেই তো হলো. মোদ্দা কথা জোর করে অন্য ভাষা চাপানো কবে কেন ?
  • অনিন্দিতা | 103.87.57.178 | ৩১ জুলাই ২০২০ ১২:১০95748
  • বহুদিন বাংলার বাইরে থাকি। হয়তো সেজন্য টানটা একটু বেশী। বর্তমানের বাংলা ভাষা শুনে অবাক হই, বেদনা পাই। কলকাতার মেয়েরা কানে ‘চিপকানো’ দুল পরে শুনে ভেবেছিলাম এটা বোধ হয় ইংরাজী  মিডিয়ম স্কুলের হিন্দী বন্ধুদের প্রভাব। পরে টিভি তে শুনলাম বিখ্যাত নাট্যব্যক্তিত্ব ডায়লগ বলছেন, ‘কান খুলে শুনে নাও’ কিংবা ‘তাহলে আমার চেয়ে খারাপ আর কেউ হবে না’। এ তো হিংলা! কোন বাঙালীর কোন বাঙলার জন্য ভাবছি আমরা? 

  • dc | 103.195.203.190 | ৩১ জুলাই ২০২০ ১২:১১95749
  • যেকোন ল্যাঙ্গুয়েজই ল্যাঙ্গুয়েজ, তার কি ক্লাসিকাল আর কি অক্লাসিকাল। মাওরিরা যে ভাষায় কথা বলেন সেটা কেন ক্লাসিকাল নয়?
  • এলেবেলে | 202.142.71.89 | ৩১ জুলাই ২০২০ ১২:১৩95750
  • আমার এই 'ধ্রুপদী' তকমাটা নিয়েই জোরালো আপত্তি আছে। এটা প্রথমে করে হ্যালহেড ১৭৭৮ সালে, তার থিওরিকে ১৭৮৬-তে পাকাপোক্ত করে জোন্স। ভাষার রাজনীতি, ভাষার সংস্কৃতায়ন এবং সে ভাষায় সাহেবরাই পণ্ডিত - এরকম অনেক খেলা এর সঙ্গে জড়িয়ে ছিল। এই নিয়ে আমার লেখা আসবে কিছু দিন পরে (বিজ্ঞাপন করছি না!)।

    এই দুই বদমাইশের দেখাদেখি আমরাও সেই নিয়ে আদিখ্যেতা শুরু করেছি। শুধু বাংলাকে ধ্রুপদী বলাতে আমার আপত্তি তা বলিনি। ভারতীয় কোনও ভাষাকে ধ্রুপদী বলা মানে ভাষার ক্ষমতায়নের প্রশ্ন চলে আসে। থাকবন্দি মানসিকতা শুরু হয়।

    একটা ভাষাকে আইডিয়াল ধরে নিয়ে তার সাপেক্ষে অন্য ভাষাগুলোকে বিচার করার মানসিকতাটা ভাষাবিজ্ঞানের বিরোধী। ভারতের মতো বহুভাষী দেশে প্রতিটি ভাষারই সমান মর্যাদা থাকা উচিত।

    সাহিত্য রচনা যদি ভাষাকে ধ্রুপদী তকমা দেয়, তবে তা আরও হাস্যকর।

    আর চর্যাপদ একটা 'নির্মাণ'। কারণ ওটা পাওয়া না গেলে সাহেবদের মতো আদি-মধ্য-আধুনিক মার্কা থাকবন্দি করতে বড্ড অসুবিধা হচ্ছিল। আমি নিজে রামপ্রসাদ কেন মধ্যযুগীয় কিংবা ভারতচন্দ্র অথচ ঈশ্বর গুপ্ত কেন আধুনিক - সে বিষয়টা হাজার চেষ্টা করেও বুঝতে পারিনি। সৈকতবাবু বলতে পারেন।

  • sm | 2402:3a80:196b:a32e:678:5634:1232:5476 | ৩১ জুলাই ২০২০ ১২:১৪95751
  • পশ্চিমবঙ্গে র,অফিসিয়াল সমস্ত কাজে বাংলা ভাষার প্রয়োগ হওয়া উচিত।সঙ্গে ইংলিশ বা হিন্দি থাকুক চাহিদা মতোন।

    বিদ্যুৎ সংস্থার বিল লেখা হয়, ইংলিশে।দুপাতা জুড়ে হাবি জাবি এবংবিজ্ঞাপন।কেন? মূল বিলের অংশে ইংলিশ এর সঙ্গে সঙ্গে বাংলা য় লেখা হবে না কেন?বৃহত্তর জন গোষ্ঠীর সুবিধে হয়।সরকারী  হাসপাতালে তো দিব্যি বাংলায় আউট ডোর টিকিট হয়!বেসরকারি হাসপাতালে নয় কেন?

    একটি ড্রাইভিং লাইসেন্স লেখা হয়,ইংলিশে।ইংলিশ এর সঙ্গে বাংলায় লেখা থাকলে কি অসুবিধে?

  • sm | 2402:3a80:196b:a32e:678:5634:1232:5476 | ৩১ জুলাই ২০২০ ১২:৩০95752
  • লাও,ধ্রুপদী ভাষার ব্যাখ্যা ও সাহেব দের অবদান বাজারে এসে গেলো!সংস্কৃত ধ্রুপদী ভাষা। ঠিক আছে।কিন্তু,আমি এড়িয়ে চলি।কি অসুবিধে হচ্ছে??

    আমার চাকরির সুবিধার জন্য ইংলিশ দরকার।এই ইংলিশ বৃহত্তর বিশ্বের ভাষা।ক্ষমতার ভাষা।চাকরী দেবার ভাষা।ভারত এবং ভারতের বাইরে ; দুজায়গাতেই বিরাট দাম আছে।এ ভাষা শক্তি প্রদান করে।ইংলিশ অস্বীকার করা নির্বোধের কাজ।

    কিছু লোক অবিশ্যি,নিজেদের ছেলে মেয়ে, নিকট জনদের ইংলিশ মিডিয়ামে পড়িয়ে, মাতৃভাষা  ই মাতৃদুগ্ধ বলে ,তুমুল প্রচার করে।উদ্দেশ্য হলো,যাতে বিরাট একটা শ্রেণী ,ইংলিশ না জেনে অবদমিত থেকেই যায়।

    আমার মতে ইংলিশ ভাষা শেখা বিরাট গুরুত্বপূর্ণ।পশ্চিম বঙ্গে থাকলে,বাংলা ভাষা শেখা ও আবশ্যিক। হিন্দি থাকুক অপশনাল।যদি নিজের তাগিদে শিখতে চায় ,শিখুক।কারণ কেন্দ্রীয় সরকারী চাকরী পেতে হিন্দি দরকারী।উত্তর ভারতীয় সংস্কৃতির অংশীদার হতে গেলেও হিন্দি জানলে সুবিধাজনক হয় ,পরিস্থিতি।

  • dc | 103.195.203.190 | ৩১ জুলাই ২০২০ ১৪:০৮95753
  • আমার মতে ইংরেজি, ফ্রেঞ্চ/ইটালিয়ান, আর চিনে/জাপানী, এই তিনটে ভাষা শেখা উচিত। ইংরেজি এখন লিঙ্গুয়া ফ্রাঙ্কা, এটা জানলে অনেক দেশেই সুবিধে। একটা য়ুরোপিয়ান ভাষা জানলে য়ুরোপে সুবিধে। আর চিনে বা জাপানী জানলে সেসব দেশে সুবিধে। অর্থাত দিব্যি সারা পৃথিবী ঘোরা যাবে, সেসব দেশের কোন একটায় সেটল করা যাবে।

    আর ইন্ডিয়াতে থাকলে হিন্দি শেখা উচিত, তাতে বেশ কয়েকটা শহরে থাকা/কাজের সুবিধে। আর নর্থের লোকেদের সাউথের একটা ভাষা শিখে নেওয়া উচিত আর ভাইসি ভার্সা। এছাড়া মাদার টাং বা নেটিব ভাষা তো আছেই, যেমন আমাদের বাংলা ভাষা বা উড়িষ্যা বাসীদের ওড়িয়া ভাষা।

    তাহলে হলো ছটা ভাষা। মোট ছটা ভাষা রপ্ত করা কি এমন ব্যপার?
  • dc | 103.195.203.190 | ৩১ জুলাই ২০২০ ১৪:০৮95754
  • আমার মতে ইংরেজি, ফ্রেঞ্চ/ইটালিয়ান, আর চিনে/জাপানী, এই তিনটে ভাষা শেখা উচিত। ইংরেজি এখন লিঙ্গুয়া ফ্রাঙ্কা, এটা জানলে অনেক দেশেই সুবিধে। একটা য়ুরোপিয়ান ভাষা জানলে য়ুরোপে সুবিধে। আর চিনে বা জাপানী জানলে সেসব দেশে সুবিধে। অর্থাত দিব্যি সারা পৃথিবী ঘোরা যাবে, সেসব দেশের কোন একটায় সেটল করা যাবে।

    আর ইন্ডিয়াতে থাকলে হিন্দি শেখা উচিত, তাতে বেশ কয়েকটা শহরে থাকা/কাজের সুবিধে। আর নর্থের লোকেদের সাউথের একটা ভাষা শিখে নেওয়া উচিত আর ভাইসি ভার্সা। এছাড়া মাদার টাং বা নেটিব ভাষা তো আছেই, যেমন আমাদের বাংলা ভাষা বা উড়িষ্যা বাসীদের ওড়িয়া ভাষা।

    তাহলে হলো ছটা ভাষা। মোট ছটা ভাষা রপ্ত করা কি এমন ব্যপার?
  • dc | 103.195.203.190 | ৩১ জুলাই ২০২০ ১৪:০৯95755
  • বোঝ, ছটা ভাষার লিস্ট বানাতে দুবার পোস্ট হয়ে গেল।
  • Atoz | 151.141.85.8 | ৩১ জুলাই ২০২০ ১৪:১১95756
  • ছ'টা ভাষা!!!!
    বলতে পড়তে লিখতে ?
  • করোনা

  • পাতা : 1 | 2
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত