• হরিদাস পাল  ধারাবাহিক  ইতিহাস

    Share
  • ।।দেশবিদেশের অন্ত্যেষ্টি শিল্প।‌। (দ্বিতীয় পর্ব: বিদায়-উপহার)

    Sudipto Pal লেখকের গ্রাহক হোন
    ধারাবাহিক | ইতিহাস | ২৭ জুন ২০২০ | ৩৩৬ বার পঠিত | জমিয়ে রাখুন পুনঃসম্প্রচার
  • আগের পর্বে আমরা ছিলাম নব্য প্রস্তর যুগের শুরুতে। আজকে আরো পিছিয়ে যাব। আজকের পর্বে দেখব সমাধিকৃত মানুষের উপহার সামগ্ৰী।

    ১) সাঙ্গির সমাধি: রাশিয়ায় য়ুরোপীয় অংশে মস্কো থেকে ২০০ কিমি দূরে সাঙ্গির। সেখানে পাওয়া গেছে ৩৫০০০ বছর পুরনো কিছু কবর। এগুলো প্রাচীন প্রস্তর যুগের, এবং সে যুগে মানুষ শিকার জোগাড় করেই বাঁচতো। তবে এটা প্রাচীন প্রস্তর যুগের শেষ দিককার যে সময়টাকে বিহেভিওরাল মডার্নিটি বা কগনিটিভ রিভলিউশনের যুগ বলা হয়। আগের পর্বে বলেছি এই সময়টাতে মানুষ ধীরে ধীরে ভাষা, গান, কারুশিল্প, ধর্ম ইত্যাদির বিকাশ করতে শুরু করে যদিও তখনো মানুষ চাষবাস শেখেনি। আগের পর্বে বলেছি নবীন প্রস্তর যুগের শুরুতে মানুষ যখন চাষবাস শিখলো, সেই সময়েই জমি, পরিবার, উত্তরাধিকার এসবের ধারণা আসতে থাকে এবং সমাজে বৈষম্য দেখা দিতে থাকে। এই সময়ে বা বলা ভালো আরো পরে তাম্রযুগে, কবরের আড়ম্বর ও সেই আড়ম্বরের বৈচিত্র্য দেখা যেতে থাকে, যা বৈষম্যের ইঙ্গিত দেয়। কিন্তু তার থেকে অনেক পুরনো এই সাঙ্গিরের কবরগুলোতে আড়ম্বরপূর্ণতা ও বৈষম্যের আভাস আমরা দেখব।

    তাম্র যুগের কবরে কী কী থাকতো? মূলত বাসন-কোসন আর গয়না। প্রাচীন প্রস্তর যুগে বাসন তো ছিলনা কিন্তু গয়না ছিল। এই সাঙ্গিরের কবরগুলোতে আমরা দেখব মানুষকে কত কত অলংকার সহকারে সমাধিস্থ করা হয়েছে। একটি বছর চল্লিশেক বয়সের মানুষের কবরে ম্যামথের দাঁতের আইভরির পুঁতি প্রায় ৩০০০ টি এবং অনেকগুলি শেয়ালের দাঁতের পুঁতি পাওয়া গেছে। আবার ওখানেই দুটি ১০-১২ বছরের প্রতিবন্ধী বাচ্চার অত্যন্ত আড়ম্বরপূর্ণ কবর পাওয়া গেছে যেখানে ম্যামথের দাঁতের পুতি প্রায় ১৩ হাজার খানি পাওয়া গেছে।

    দুটি জিনিস লক্ষ্য করুন। এক তো ঐ মানের ১৩০০০ খানা ম্যামথের দাঁতের পুতি বানাতে ১০০০০ ঘন্টা সময় লাগে বলে বিজ্ঞানীদের অনুমান। অর্থাৎ একজন মানুষ দিনে ১২ ঘন্টা কাজ করলে তার এই পুরো কাজ শেষ করতে প্রায় আড়াই বছর লাগার কথা। হয় একদল মানুষ অনেক অনেক সময় বার করে এই কাজগুলো করেছে অথবা একজন মানুষ ছিল যার হাতে প্রচুর সময় ছিল। দুটোই কিন্তু শ্রমবিভাজন বা ডিস্ট্রিবিউশন অফ লেবারের ইঙ্গিত দেয় যেটা প্রাচীন প্রস্তর যুগের শিকার জোগাড় করা মানুষের পক্ষে বেশ কঠিন ছিল। শ্রমবিভাজন ব্যাপারটাকে আগে ঐতিহাসিকরা নব্য প্রস্তর যুগের চাষবাসের ফল হিসেবে ভাবতো কিন্তু এই কবরগুলো কিছুটা তাদেরকে ভুল বলে প্রমাণ করে।

    ওই সমাধি ক্ষেত্রে অন্তত তিন রকমের কবর পাওয়া গেছে। কিছু অত্যন্ত আড়ম্বরপূর্ণ, কিছু সাদামাটা আর কিছু একেবারে মাটিতে ফেলে দেওয়া শবদেহ। এটাও কিন্তু বৈষম্যের ইঙ্গিত দেয়। যারা বলে প্রাচীন প্রস্তর যুগে বৈষম্য ছিল না তাদেরকে এগুলো ভুল বলে প্রমাণ করে।

    শিকার জোগাড় করা মানুষেরা প্রতিবন্ধীদেরকে নিজেদের গোষ্ঠীতে রাখত না, বাচ্চা বয়সেই হত্যা বা পরিত্যাগ করত- এরকম আগে ভাবা হতো, কিন্তু এখন অনেক উদাহরণ পাওয়া গেছে যেখানে দেখা গেছে প্রতিবন্ধী মানুষদেরকে অনেক বয়স অবধি গোষ্ঠীর সবল মানুষেরা ভরণ-পোষণ করেছে, তাদের খাবারের ব্যবস্থা করেছে।

    প্রশ্ন জাগে ওই প্রতিবন্ধী বালক দুটিকে কেন এত অতিরিক্ত আড়ম্বর সহকারে কবর দেওয়া হলো? এক তো তাদেরকে অনেক বয়স অবধি ভরণপোষণ করা হয়েছিল, তার উপর এত এত অলংকার। তারা কি কোন গোষ্ঠী প্রধানের সন্তান ছিল? না কি ওই গোষ্ঠীতে প্রতিবন্ধীদেরকে বিশেষ দৈব ক্ষমতার অধিকারী বলে মনে করা হতো? না কি তাদের বলি দেওয়া হয়েছিল আড়ম্বর সহকারে?

    প্রথম সম্ভাবনাটি বৈষম্যের আভাস দেয়। শেষ দুটি সম্ভাবনা কিন্তু একটা ধর্মীয় আচরণের ইঙ্গিত দেয়। আর কবরের মধ্যে উপহারসামগ্রী রাখাটাও পরলোকে বিশ্বাসের ইঙ্গিত দেয়।

    অর্থাৎ ধর্মের কিছু গুরুত্বপূর্ণ ভিত্তি- যেমন অসাম্য, পরলোকে বিশ্বাস, কাল্পনিক বস্তুর প্রতি আকর্ষণ- এগুলো এখানে দেখা যায়। এছাড়াও এখানে মৃতদেহগুলিকে সাজানো হয়েছে লাল গিরিমাটি (ochre) দিয়ে। পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্তে ঐযুগের কবরে লাল গিরিমাটির ব্যবহার একটা দূরপ্রসারিত বিশ্বায়িত সাধারণ বিশ্বাসের ইঙ্গিত দেয়। কেন কবরে লাল গিরিমাটি ব্যবহার হত তার নানারকম ব্যাখ্যা আছে, তবে এটা পরলোক বা পরজন্মের প্রতীক বলেই মনে করা হয়। মাতৃগর্ভের রক্তের রঙ এবং নূতন করে একটি গর্ভে জন্ম নেবার প্রতীক বলে অনেকে লাল গিরিমাটিকে ভাবেন। যাই হোক এই একটা সাধারণ উপাচার অস্ট্রেলিয়া থেকে য়ুরোপ এতদূর প্রচলিত ছিল- সেই যুগে- এটা আশ্চর্যের।

    (ছবিতে সাঙ্গিরের আইভরির পুঁতি দিয়ে অলংকৃত শবদেহ, image credit: https://www.cambridge.org/core/journals/antiquity/article/diversity-and-differential-disposal-of-the-dead-at-sunghir/B7672FB594E94A505A35E10C869F3808/core-reader)

    ২) হরপ্পা: নব্য প্রস্তর যুগের কথা আগের পর্বেই হয়েছে, অতএব এবার আমরা লাফিয়ে চলে আসব তাম্রযুগে। আমাদের বহু পরিচিত সিন্ধু সভ্যতায়। এখানে বিদায় উপহার হিসাবে থাকত বাসন- রং করা, নকশা করা বাসন- ছোট বড় মাটির ঘড়া- তাতে শস্যও রাখা থাকত। অর্থাৎ পরলোকযাত্রায় খাবারের রসদও থাকত। এছাড়া সোপস্টোন আর কড়ি-ঝিনুকের গয়না পরানো হত বিদায়যাত্রার শুরুতে। মহিলাদের অনেক সময় একটা বাড়তি জিনিস সঙ্গে দেয়া হত- তামার আয়না।

    মোট কথা মানুষ যাতে পরলোকে একটু খেয়ে পরে সেজেগুজে "বেঁচে" থাকে তার ব্যবস্থা।

    সমসাময়িক সুমের, ব্যাবিলন বা মিশরের তুলনায় হরপ্পায় বৈষম্য কম ছিল এটা কবরের আয়তনের বৈচিত্র্যের অভাব থেকে বলা হয়। তবে অসাম্য ছিল না, তা কিন্তু নয়। উপহারসামগ্রী কিন্তু কম বেশি থাকত। একটি কবর যেটিকে কোনো সর্দারের কবর বলে মনে করা হয় সেটিতে ৭০ টা মাটির ঘড়া পাওয়া গেছে। ধনী মানুষের পরলোকেও কিছু বাড়তি রসদের প্রয়োজন হয়!

    (ছবিতে হরপ্পার কবরের বাসন, image credit: https://www.harappa.com/slide/painted-burial-pottery)

    ৩) মিশর: অন্ত্যেষ্টি শিল্পের পরাকাষ্ঠা বলা যায় তাম্রযুগের মিশরকে। উপহারসামগ্রীর বৈচিত্র্য চরম বৈষম্যের ইঙ্গিত দেয়। তবে মিশরীয় সংস্কৃতি কতটা আড়ম্বরপূর্ণ ছিল তারও সাক্ষ্য এরা বহন করে। সবচেয়ে আড়ম্বড়পূর্ণ কবরে থাকত: সোনা ও রূপার কারুকৃত সামগ্ৰী, কাঠ এবং মূল্যবান পাথর দিয়ে তৈরি বোর্ড গেমস, বিছানা, চেয়ার, গয়না, পোশাক এবং পুতুল। থাকত সুন্দর সুন্দর দেয়ালচিত্র। কফিনের উপর একটা চিত্রিত মুখ থাকত যেটা মানুষটা কেমন দেখতে ছিল তার ইঙ্গিত দেয়।

    এছাড়াও সহমরণে পাঠানো দাসদাসীরাও বিদায়োপহারের তালিকায় অনেক সময় থাকত। এটা অবশ্য প্রথম রাজবংশের যুগে হত। সহমরণে যে সবসময় জোর করে পাঠানো হত তা নয়। অনেকে স্বেচ্ছায় যেত তার কারণ এতে তার ইহলৌকিক ও পারলৌকিক সামাজিক অবস্থানের উন্নতি হত। স্বয়ং দেবতুল্য ফারাওয়ের সাথে একই ঘরে পরলোকবাসের সুযোগ, একজন রাজপুরুষের সমান সমান আড়ম্বড় (অর্থাৎ সম্মান) পাবার সুযোগ! বুঝুন, পরলোকে বিশ্বাস ও একটা কাল্পনিক আদর্শ কতটা জোরদার হলে মানুষ এগুলো করে। তবে প্রথম রাজবংশের পতনের পর এই প্রথা প্রায় বন্ধ হয়ে যায়- দাসের জায়গায় আসে দাসপুত্তলিকা। সম্ভবতঃ মানুষ বুঝতে পারে ফারাওরা একেবারে ভগবান নয়- তাদের বংশেরও পতন হয়!

    কবরের উপহার সামগ্ৰী সেযুগের সমাজের একটা জীবন্ত চিত্র তুলে ধরে- অনেক হাজার বছরের ইতিহাসকে এরা বাঁচিয়ে রেখেছে। পশ্চিমী দেশগুলোতে খৃষ্টধর্ম ও ইসলামের প্রসারের ফলে উপহারসামগ্রীর আড়ম্বর কমে আসে, আর ভারতেও শবদাহের প্রচলনের ফলে কবরের ব্যবহার কমতে থাকে। যাই হোক এই উপহারগুলো শুধুই পরলোকগত মানুষের প্রতি উপহার নয়- এগুলো আমাদের মত ইতিহাসপিপাসু ও তথ্যোৎসাহী মানুষের জন্য সেযুগের মানুষের দেয়া উপহারও বটে।

    পরের পর্বেও থাকবে মিশর। তবে একটু অজানা মিশর।
    (চলবে)

    পরবর্তী পর্ব: https://www.guruchandali.com/comment.php?topic=17805

    (তুতেনখামেনের জন্য সমাধি-উপহার, image credit: Patty, . (2017, April 20). Antechamber of Tutankhamun's TombAncient History Encyclopedia. Retrieved from https://www.ancient.eu/image/6525/)

    (সমাধিগৃহের দেয়ালচিত্র, image credit: Nebamun fowling in the marshes, Tomb-chapel of Nebamun, c. 1350 B.C.E., 18th Dynasty, paint on plaster, 83 x 98 cm, Thebes
    © Trustees of the British Museum)

    (মিশরের একটি সুচিত্রিত সমাধিকক্ষ, image credit: JAKUB KYNCL, https://www.telegraph.co.uk/travel/destinations/africa/egypt/articles/inside-the-valley-of-the-kings/)

    তথ্যসূত্র:
    https://en.wikipedia.org/wiki/Sungir
    https://en.wikipedia.org/wiki/Ancient_Egyptian_retainer_sacrifices
    Harappa: miscellaneous sources like harappa.com, Dilip Chakrabarti, Early Indians etc.

  • বিভাগ : ধারাবাহিক | ২৭ জুন ২০২০ | ৩৩৬ বার পঠিত | | জমিয়ে রাখুন পুনঃসম্প্রচার
    Share
আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত