এই সাইটটি বার পঠিত
ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • একক | 24.99.68.206 (*) | ০৭ এপ্রিল ২০১৫ ০৪:৩৮71821
  • ঈশেনের কষ্ণ টা তো বুঝলুম ।কিনতুক ফেমিনিস্ট রা বলেন :পার্সোনাল ইস পলিটিকাল । সেই জায়গা থেকে ওপেন আর সোশাল ডিসকোর্স আলেদা কইরবেন ক্যামনে :/ যাইহোক কষ্ণ যথাযথ ।উত্তর কী আসে দেখি ।
  • potke | 126.202.136.234 (*) | ০৭ এপ্রিল ২০১৫ ০৪:৪৭71822
  • একক, বানাম নিয়ে একটা ম্যানুয়াল লিখতে পারিস তো, ভাবীকালের কাজে আসে ঃ)
  • s | 108.214.103.233 (*) | ০৭ এপ্রিল ২০১৫ ০৫:২৪71798
  • ইয়ে, এর মধ্যে শ্লীলতাহানীর কেসের কোনো আপডেট আছে কারো কাছে?
    প্রথম কেসের ব্যাপারে শেষ আপাডেট পাচ্ছি যে ICC রিপোর্টে বলা হয়েছে, কোনো শ্লীলতাহানী হয়নি, শুধু ধাক্কাধাক্কি হয়েছিল!
    http://www.iamin.in/en/jadavpur/news/new-twist-jadavpur-university-icc-findings-claim-no-molestation-took-place-51356
    আর দ্বিতীয় কেসে, শেষ জানা গেছিল ২ জন ছাত্রই বেল পেয়ে গেছিল।

    যে কোনো একটা কেসের আপডেট দিলেই চলবে।
  • riddhi | 226.249.140.123 (*) | ০৭ এপ্রিল ২০১৫ ০৬:১৫71823
  • ব্যাকলগ ক্লিয়ার করছি। ঈশান দাকে একটা উত্তর দিই। তুমি যে উদাহরন টা দিলে (তোমার দুটো অত বড়) সেখানে দুজন জড়িত। সে মনে করতে পারে তার রুচিকে তুমি সোজাসুজি আঘাত করছ। তার কাছে এটা প্রায় মলেস্টেশান। কিন্তু সেইটার সাথে একদল লোক জাঙ্গিয়া ঝুলিয়ে প্রতিবাদ করছে, বা মিলিটারি রেপের বিরুদ্ধে উলঙ্গ হয়ে প্রতিবাদ করছে, তার একটা তফাত নেই? তুমি বলেছ সমর্থন করবে কিন্তু দূর থেকে, কাছে থেকে ক
    রলেই বা কি? তুমি শার্ট প্যান্ট পরেই পাশে দাড়ালে। একটা উদাহরন দিই,আমি বয়সে সামান্য বড় (বাঙ্গালী) মানুষকেও দা/দি বলি। নাতো অস্বস্তি হয়।কিন্তু আজ যদি হোস্টেল সিনিয়রিট বা র‌্যাগিং এর বিরুদ্ধে এক প্রতীকী প্রতিবাদে সিনিয়রদের নাম ধরে ডাকার একটা এক সপ্তাহ এভেন্ট চালু হয়, আমি ঐ ইভেন্ট টা সমর্থন করব।যাস্ট ঐ সময়টুকু।এতে আমি অন্তত স্ববিরোধিতা দেখছি না।
  • riddhi | 226.249.140.123 (*) | ০৭ এপ্রিল ২০১৫ ০৬:১৯71824
  • অন্যভাবে বলছি। খিস্তি কি আমরা এই আফিস কাছারি বাড়িতে বলি, না তো? হেব্বি অস্বস্তি হয়। কিন্তু খিস্তি কে র‌্যাডিকাল গল্প নভেলে এক্সেপ্ট করে নি, তাই তো? সারা জীবন ধরে স্যানিটারি ন্যাপকিন পরে ঘুরতে হবে সেটা তো বলা হচ্ছে না। এটাকে ঐ কন্টেক্স্টে দেখব।
  • common | 24.139.222.45 (*) | ০৭ এপ্রিল ২০১৫ ০৬:৩৪71800
  • যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের গেটের ঠিক বাইরে উল্টোদিক জুড়েই বিরাট বাজার এলাকা যেখানে ওষুধ থেকে ন্যাপকিন সবই সহজে পাওয়া যায়। তারপরও এখুনি একেবারে বাথরুমের মধ্যে ন্যাপকিন ডিস্পেন্সর / ফার্মাসি না হলে চলছে না, এইটা কি খুব বাস্তবসম্মত দাবী হল ? বিশ্ববিদ্যালয়ের স্টোরে ন্যাপকিন রাখলেই তো ল্যাঠা চুকে যায় ! আর ট্যাবু ভাঙতে গেলে তো সেটাই দরকার !
    কিন্তু ঘুরে ফিরে সেই একই জায়গায় আসা। সেই খিড়কি থেকে সিংহদুয়ার... কোথায় ট্যাবু আর কোথায় আন্দোলন ! জে ইউ তে পড়া কটা মেয়ে আজকের দিনে পিরিয়ড চলাকালীন ঘরে বসে থাকে ? যারা সত্যিই বসে থাকে এই আন্দোলন (?) কি কোথাও তাদের কাছে যেতে চেয়েছে ? দেখলাম না তো।
  • [] | 118.171.159.41 (*) | ০৭ এপ্রিল ২০১৫ ০৬:৩৪71799
  • এইবার প্রগতি ও অগ্রগতির ধারণায় আসতে হচ্ছে। কিছু ট্যাবু ভাঙা একটা যায়গায় সমাজ ও সভ্যতাকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার ধারণার সাথে যুক্ত। অ্যাকটিভিস্টদের সাথে কথা বলুন। এই সব আন্দোলনের ধারণা অচলায়তন ভেঙে এগিয়ে যাওয়ার ধারণা থেকেই আনা। ধরুন একদা ঘোমটা না দেওয়া, সিনেমায় অভিনয় করা, ঘরের বাইরে বেরিয়ে অর্থ উপার্জন এইসব মেয়েরা খুব কম করত বা করত না। এখানেও ইন্ডিভিজুয়ালের প্রাইভেসি বা চয়েস আনা যায়। প্রথা ভাঙা, উদাহরণ স্থাপন করা -এইসব খানিক সামাজিক আন্দোলন তো বটেই। সেভাবেই আজকের জায়গায় সমাজ এসেছে। মেয়েরা এগিয়েছেই তো বলা হয়। আরো এগোনোর অ্যাস্পিরেশন আছে। এবার সকলেরই নিজস্ব লিবারালিজমের, শালীনতার গন্ডি আছে। সে তার বাইরে বেরোতে পারে না। শুভংকরবাবু মেয়েদের পাঞ্জাবি পরা পছন্দ করেন না, মুকেশের উকিল রাতে মেয়েদের ঘোরা, মৌলবাদীরা টু-পীস পরা, কেউ হয়তো ব্রা পোড়ানো আন্দোলন - ফ্রি দ্য নিপল মুভমেন্ট অপছন্দ করবেন, কেউ হট প্যান্ট, কারো কাছে বিবাহপূর্ব বা বিবাহ-বহির্ভূত যৌনতা ট্যাবু, কারো কাছে ইনসেস্ট, ঈশান স্যানিটারি ন্যাপকিন বা প্যান্টি ঝোলানো আন্দোলন নিজস্ব শোভনতা, শালীনতার সীমার নিরিখে অপছন্দ করবেন। এ-সবই ইন্ডিভিজুয়ালিস্টিক পছন্দ অপছন্দ, শোভন-শালীন- অশালীন ধারণা। কিন্তু অ্যাজ এ হোল, যারা কিছু জিনিসকে সামাজিক ট্যাবু বলে মনে করছেন, কাটিয়ে ওঠাকে এগিয়ে যাওয়া বলে মনে করছেন, ভবিষ্যতের জন্য সুঁড়িপথ ভেঙে রাস্তা বানানো মনে করছেন - তারা স্লাইট অন্য রকম ভাবছেন হয়তো। হয়তো, জোর করে ট্যাবু ভাঙার প্রয়োজন বোধ করছেন। সতীদাহ রোধ সমর্থন করলে এখানে পিছিয়ে আসতে পারবেন কি?
  • . | 133.242.242.16 (*) | ০৭ এপ্রিল ২০১৫ ০৬:৫৩71801
  • শোভন বা অশোভন বলে তো ব্যাপার আছে নাকি? স্যান যেমন বলেছেন - হিসি, হাগু, পাদু সবই খুবই নিত্যনৈমিত্ত্ক ব্যাপার। তবু কি আমারা সবার সঙ্গে ছেলে মেয়ে নির্বিশেষে এই নিয়ে কথা বলি? না কি এটাকেও ট্যাবুর দলে ফেলবেন।
    দুইদিন আগেই একদল যেমন লিখেছিলেন ছেলেদের খালি গায়ে ঘোরাও অশোভন - সেটাও নিশ্চই ট্যাবু জনিত ছিল না। আগে তো অনেক পুরুষকেই দেখেছি সবার সামনে চুলকাতে, এখনও নিশ্চই পুরুষদের চুলকায় কিন্তু তারা সেটা গোপনে করেন- এটা কি আর ট্যাবু না শোভন/অশোভন (হানুর) নয়।
  • কল্লোল | 125.242.167.160 (*) | ০৭ এপ্রিল ২০১৫ ০৭:০৯71802
  • শালীনতা আর ট্যাবু সবসময় হাত ধরে চলে না।
    আমাদের দেশে (এখন গ্রামদেশে) খেয়ে দেয়ে লম্বা ঢেকুর তোলাটা আদৌ অশালীন নয়। বরং সেটা না করলে অনেক সময় শুনতে হয় - খাওয়াটা জুৎএর হয় নি বুঝি? আবার শহুরে আমরা ঢেকুর তোলাকে অশালীন মনে করি। তুলে ফেললে সরি বলি।
    চুলকানোও একই রকম।
    কেউ কথা বললে তার মাঝে কথা না বলা শালীনতা। কিন্তু আমাদের গ্রামদেশে কথার মাঝে কথা বললে তা মোটেও অভদ্রতা নয়।
    মাসিকের সময় রান্না না করা, পুজো না করাটা ট্যাবু। লড়াইটা সেটার বিরুদ্ধে।
  • pi | 24.139.221.129 (*) | ০৭ এপ্রিল ২০১৫ ০৭:১৪71825
  • আমি কোন প্রশ্নেরই উত্তর পেলাম না। উল্টে আরো প্রশ্ন জমলো।
    ১। দোকান থেকে ন্যাপকিন কালো প্যাকেটে আনা আর ব্রা প্যান্টি স্বচ্ছ প্যাকেটে হাতে দুলিয়ে দুলিয়ে ঝুলিয়ে না আনা, এক নয় কেন ? একটা ট্যাবু, অন্যটা প্রাইভেসি ? কেন, কোথায় কার টানা কোন লাইন মেনে ?
    ২। ট্যাবুটা কার ? যিনি কালো প্যাকেটে মুড়িয়ে দিচ্ছেন না নিচ্ছেন ? যদি দ্বিতীয় জনের কথা বলা হয়, তো যাঁরা ব্রা প্যান্টি ইত্যাদি কেনার ব্যাপারে কোন 'ট্যাবু' না রেখে, স্বচ্ছন্দে কেনাকাটা করতে পারেন, তাঁরা ন্যাপকিন কেন কালো প্যাকেটে মুড়িয়ে নিয়ে আসেন ? যদি এটা তাঁদের প্রাইভেসি গত চয়েস না হয়, তবে তাহলে কি তাঁরাও 'ট্যাবু'র স্বীকার ? তো, সেই ট্যাবু কে চাপিয়ে দিল ? যদি বলেন সমাজ, তাহলে বাধ্যবাধকতাটা ঠিক কীরকম, সেই নিয়ে প্রশ্ন থাকবে।
    ৩। আর যদি চাপিয়ে দেওয়া ট্যাবুই হয়, তাহলে সেটা ভাঙতে বাধা কীসের ? কালো প্যাকেটে যাদের আপত্তি , তারা কালো প্যাকেটে দিতে বারণ করলেই পারে/পারতো বা দিলে বের করে নিয়ে রাস্তা দিয়ে আসতো /আসে না কেন ? যদি না নিজের প্রাইভেসি সংক্রান্ত ঢেকে রাখার কোন ইচ্ছে থাকে। আর আবারো সেটা থাকতেই পারে মনে করি। তাই কেউ কালো প্যাকেট মুড়ে আনলে সেটা ট্যাব্য না হয়ে প্রাইভেসি রক্ষাও মনে হতে পারে, কারু কারু কাছে। না হলে, কেন ?
    ৪। দেখলাম, বলা হয়েছে, কেউ কেউ হয়তো ব্রা পোড়ানো আন্দোলন - ফ্রি দ্য নিপল মুভমেন্ট অপছন্দ করবেন। আর সেটা করলে সতীদাহ রোধ সমর্থন করলে এখানে পিছিয়ে আসতে পারবেন কিনা জানতে চাওয়া হয়েছে। ব্রা পোড়ানোর আন্দোলনের সাথে সতীদাহর উদাঃ ঠিক যায় কি ? এখানে কজন আজ ব্রা পোড়াতে চাইবেন বা নিজেরা ব্রা পরতে চাইবেন না কিম্বা অরণ্যদ্ব স্টাইলে জামার উপরে ব্রা পরে ঘুরে বেরাতে চাইবেন বা উন্মুক্তবক্ষে ? বা সেরকম আন্দোলন হলে সলিডারিটি জানাতে যাবেন ? তো, তাহলে এঁদের সবাইকে নিশ্চয় সেই একই প্রশ্ন করা যাবে, এঁরা সতীদাহ রোধ সমর্থন করলে এখানে কেন পিছিয়ে আসছেন ?
    ৫।'তবে সকল ট্যাবুই হয়তো কোনো না কোনো দিন আউটডেটেড হবে', যেমন ব্রা সংক্রান্ত ট্যাবু ? মানে, ঐ ওপরে যা যা বললাম সেসব ই করতে হবে, নইলেই ট্যাবু ? যা কিছু প্রাইভেট তাই ট্যাবু, এই থিয়োরিও বেশ গণ্ডগোলের লাগে।
    ৬। কোথাও না কোথাও প্রাইভেসির রেখা সকলেই টানি। সেজন্যেই দীপিকার চুল নিয়ে বলা হলে প্রাইভেসি লঙ্ঘন হচ্ছে বলে আপত্তি তোলা হয়না, ব্রা নিয়ে বললে হয়। তো, একই কথা, পিরিয়ড নিয়ে কথা বললেও ট্যাবুর প্রশ্ন না, কারুর প্রাইভেসি লঙ্ঘিত হতে পারে। আর পাবলিক প্লেসে ব্রা ঝোলালে বা ন্যাপকিন ঝোলালেও কারুর মনে হতে পারে ব্যক্তিগত জিনিস বাইরে আনা।
    এবার অবশ্যই আইন করে এটা বন্ধ করতে বা কেউ করলে তাকে শাস্তি দিতে বলছিনা, সেটাও আপত্তিকর। কিন্তু কারুর এটা পছন্দ না হলেই ট্যাবুর কারণে এমনটাও বোধহয় নয়, তাই না ?
    ৯। ইন্স্টাগ্রামের ঐ ছবিটা জামায় হাগু হিসি লেগে থাকা ছবির থেকে আলাদা কীসে ? সেগুলো যদি প্রাইভেসি বা শালীনতার কারণে কারুর আপত্তিকর লাগে, সেখানে যদি কোন 'ট্যাবু' কাজ না করে, তো এখানে কেন আপত্তি উঠলেই তাকে ট্যাবু বলা হবে । বা এই কাজটাকে ট্যাবু ভাঙা বলা হবে।
    ১০। একজন একটা পোস্ট করেছেন দেখলাম,'সিক হচ্ছে বলে মেয়েদের স্বাভাবিক জীবন থেকে সরিয়ে রাখা অবশ্যই খুব অন্যায়। কিন্তু প্রজনন সংক্রান্ত ব্যাপারে একটু সঙ্কোচ (সে ট্যাবু বলুন আর নাই বলুন) মনে হয় সব মানুষেরই থাকে। কোন ছেলে কি বলবে, অনেকদিন স্বপ্নদোষ হয় না, আজকে তোদের বাড়ী রাতে থাকব না। যদি তোর বিছানা নোংরা হয়।' একক ও এরকম কিছু লিখেছিল। তো, এগুলোকেও কি ট্যাবু বলা হবে ?
  • pi | 24.139.221.129 (*) | ০৭ এপ্রিল ২০১৫ ০৭:১৯71826
  • ১১। কেউ কোথাও একটা লিখেছেন দেখেছিলাম, কে মনে নেই, আমাদের কোথাও কেটে গেলে রক্ত পড়লে আমরা কি ব্যাণ্ডেড লাগানো নিয়ে কোন রাখঢাক করি , তো পিরিয়ডের রক্ত পড়লে তাই নিয়ে কেন। আমাদের জননাঙ্গের কাছাকাছি কোথাও কেটে গেলে বোধহয় রাখবো। আর সেটা প্রাইভেসির কারণে।
    এবার এসবের মানে ট্যাবু নেই, তা একেবারেই নয়, বলতে চাইও না। কিন্তু সবার সব আপত্তি বা অস্বস্তিই ট্যাবু থেকে আসছে , একথাটা বলারও কারণ দেখিনা।
  • riddhi | 226.249.140.123 (*) | ০৭ এপ্রিল ২০১৫ ০৭:২৮71827
  • "অরণ্যদ্ব স্টাইলে জামার উপরে ব্রা পরে ঘুরে বেরাতে চাইবেন বা উন্মুক্তবক্ষে ?"
    আমাদের মধ্যে অরণ্যদাই যে ট্রু রাদিকাল, সেটা কিন্তু আমার অনেক দিনের হান্চ । কিন্তু এত প্রচার-বিমুখ হলে চলবে ঃ( কি সব ফালতু অফিস- সংসারের ক্যামোফ্লেজ দিয়ে রাখে ঃ(
  • riddhi | 226.249.140.123 (*) | ০৭ এপ্রিল ২০১৫ ০৭:৩৪71828
  • 'কোন ছেলে কি বলবে, অনেকদিন স্বপ্নদোষ হয় না, আজকে তোদের বাড়ী রাতে থাকব না। যদি তোর বিছানা নোংরা হয়।' এটা হাইলি আজকালকার একটা ছেলে তার বান্ধবীকে বলে দেবে। এইটা হল একটা ঊদাহারন, যেখানে আমাদের যুগের 'শোভন' বাবাদের 'শোভন' এর থেকে আলাদা। অবশ্যই হনুদার 'শোভন' এ সবের থেকে আলাদা।
  • pi | 116.212.45.35 (*) | ০৭ এপ্রিল ২০১৫ ০৯:২০71829
  • এখানে বান্ধবী বলতে প্রেমিকা মিন করিনি কিন্তু ( যিনি লিখেছেন তিনি কী ভেবে লিখেছেন জানিনা) কিন্তু। প্রেমিক, প্রেমিকার মধ্যে এরকম কথা চলেই থাকতে পারে।
  • prithibite sob i fetsu kore | 222.73.197.225 (*) | ০৭ এপ্রিল ২০১৫ ১০:২৯71803
  • "মানে সেই সংরক্ষণের বিরুদ্ধে ফেটসুর জুতো পালিশ করা থেকেই এদের সম্পর্কে একটা বিরক্তি ও বিতৃষ্ণা গোছের আছে। "----- এটা আবার কি ও কবে? ঠিকঠাক মনে নেই... কিন্তু সেই ইয়ুথ ফর ইক্যুয়ালিটির বাজারে কোথায় একটা কিছু ডাক্তারি ছাত্রছাত্রী করেছিলেন তো মনে হয়... ফেটসু কবে এরকম কিছু করল তথ্যসূত্র পাওয়া যাবে?
  • common | 24.139.222.45 (*) | ০৭ এপ্রিল ২০১৫ ১০:৩০71804
  • যারা মনে করেন পিরিয়ড নিয়ে দরকারী আলোচনাও কোথাও অচ্ছুত হয়ে আছে আর সেই অবস্থাটা বদলানো দরকার তাদের কাছে জানতে চাই এই বিষয়ে আলোচনাটা ঠিক কোথায় দরকারী ও কেন দরকারী? দরকারটা নিশ্চই স্বাস্থ্য বিষয়ক। তা হলে সেই আলোচনাটা ডক্তারের / স্বাস্থ্যকর্মীর সঙ্গে হলেই তো যথেষ্ট, রাস্তাঘাটে, সহকর্মীর বা সহপাঠির (পুরুষ) সঙ্গেই হতে হবে কেন ? মানে হলে আমার কোনো আপত্তি নেই কিন্তু হলে (মানে ঈশান যেমন বলেছেন) কি বিশেষ সুবিধে হবে ? শুধুই বন্ধুত্ব গভীরতর হবে নাকি অন্য কোনো সুবিধেও হবে ? আর ঐ পুজো-আচ্চা জাতীয় বিষয় তো এমনিতেই অযৌক্তিক ব্যাপারেই ভর্তি, সেখানে পিরিয়ড ট্যাবু ভেঙ্গে আর বিশেষ ভালো কি হবে ?
    মনে পড়ছে কয়েকবছর আগে একটা লেখায় বিভিন্ন ছোট কোম্পানীর সফল্যের চাবিকাঠি কি এইরকম কিছু পড়ছিলাম। কোনো একটা মিডিয়া গ্রুপের কর্তা বলেছিলেন তাঁর কোম্পানীতে মেয়েদের একটু বিশেষ সুবিধে দেওয়া হয়। যেহেতু পিরিয়ডের সময় মেয়েদের মুড সুইং হয় তাই পিরিয়ডের আগে-পরে সাতদিন তাদের হালকা কাজ দেওয়া হয় যাতে চাপ বেশি না পড়ে। এটা বাস্তবসম্মত কিনা সেই প্রশ্নে না গিয়েই বলছি তাহলে কি কোম্পানীতে জয়েন করতে গেলে পিরিয়ডের ডেট জানানো বাধ্যতামূলক ? তারপর নিয়মিত আপডেট ইত্যাদি !
  • riddhi | 226.249.140.123 (*) | ০৭ এপ্রিল ২০১৫ ১০:৪৯71830
  • আরে বান্ধবী --একেবারেই প্রেমিকা নয়, এই ডিসক্লেমারটই দিতে যাচ্ছিলাম।
  • একক | 24.99.230.220 (*) | ০৭ এপ্রিল ২০১৫ ১০:৫১71831
  • এটা তো থার্ড প্যাটার্ন অফ ডিসকোর্স । সোশাল-কমন এর বাইরে । সম্পর্ক কেমন এবং সেই বান্ধবী ঐরকম কথায় কমফর্টেবল কিনা তার ওপর ডিপেন্ড করছে । প্রেমিকা নয় ,বান্ধবী ধরেই বলছি ।
    এগুলো একেবারেই ব্যক্তিগত স্তরের কে কিভাবে মেশে তার ব্যাপার। ওরম কমন কিছু
    হয়না । কোনো বান্ধবী বল্লো : ঝাঁট জ্বালাস না বলে দিচ্ছি !! তাকে বল্লুম ..এত সহজে যা জ্বলে তা কামিয়ে ফ্যাল ,আর এন্টিসেপটিক ব্লেড ইউস করিস ।এরপর বাছা কিছু গালি খেলুম ও দিলুম ।
    কিন্তু অবস্যই এটা সবার সঙ্গে না । "ঝাঁট জ্ব্লাস না" বললেও না । এমনকি হতেও পারে আরেকজনও খুবই ঘনিষ্ট বান্ধবী । তবুও না ।

    এবিউসিভ-একস্প্লিটিভ-প্রাইভেসি ব্রেকিং ওয়ারড পারমিসিবল কিনা এগুলো পুরোটাই দুজন মানুষ সম্পর্কটা কিভাবে দেখে তার ওপর ডিপেনড করছে ।এবং যেখানে পারমিসিবল তারাও যখন ওপেনলি দশজনের সাক্ষাতে একসঙ্গে আড্ডা দিচ্ছে তখন আবার সেই সোশাল এন্ড ওপেন ডিস্কোর্সের নীতি মেনে চলবে । পার্সোনাল হবেনা । সবার সামনে যা মুখে আসবে গাল দেবেনা বা এভরিথিং আন্ডার ফার্মামেন্ট নিয়ে কথা তুলবেনা।
  • [] | 118.171.159.41 (*) | ০৭ এপ্রিল ২০১৫ ১১:১৪71805
  • অশোভনতা অশালীনতা প্রাইভেসি অনৌচিত্য এই সব সানির নিদানে এবং বেসিক স্বাস্থ্যবিধি ডাক্তারিবিদ্যা এই সব কাঁবার ব্যাকগ্রাউন্ড সাপোর্টেই ট্যাবু তৈরি হয়।

    সব ট্যাবুই ভাঙা দরকার ক্কিনা, আর কোনো ট্যাবুই আদৌ ভাঙা দরকার কিনা এই দুয়ের মধ্যে দিয়ে সামাজিক আন্দোলন চলে।

    প্রত্যেকের মতামত ব্যক্তিগত উদারতার লক্ষনরেখা-সীমানা দিয়ে নিয়ন্ত্রিত হয়।

    তবে সকল ট্যাবুই হয়তো কোনো না কোনো দিন আউটডেটেড হবে যেহেতু স্বাস্থ্যবিধি ও ডাক্তারিবিদ্যা ক্রমান্বয়ে আপডেট ও অ্যাডভান্স হচ্ছে। সামাজিক মূল্যবোধ ও সততই পরিবর্তনশীল।

    এবার ট্যাবু ভাঙতে ভাঙতে সমাজ এগোয় নাকি সমায় এগোতে থাকলে ট্যাবু ভাঙতে থাকে এটা একটু ডিম-মুরগি কেস মনে হয়।
  • a x | 60.171.26.111 (*) | ০৭ এপ্রিল ২০১৫ ১১:২০71806
  • একদম যেরকম কল্লোলদা বলেছেন। আপনার একদিন পেট খারাপ হলে, আপনি মেইল করে জানাতে পারেন, যে আপনার স্টমাক আপসেট, ডায়ারিয়া, ফুড পয়েজেনিং ইত্যাদি হয়েছে। কিন্তু আপনি মেনস্ট্রুয়াল ক্র্যাম্প, এক্সেসিভ ব্লিডিং এইসব জানাতে পারেন না। যদিও দুটোই একই ধরণের জৈবিক ব্যাপার। জানাতে পারেন না মানে কেউ নিশ্চয়ই বারণ করেনি কিন্তু ঐ অলিখিত কী "শোভন" এবং কী না তার বোঝাপড়া হয়ে গেছে।

    আর হ্যাঁ, এইযে জনতাকে এতবার পিরিয়ড শব্দটা বলতে হল, এইযে এটা নিয়ে এত কথা হল, পুরো একটা হাশ হাশ গোপন (এবং ইম্প্লিসিটলি নোংরা) ব্যাপার থেকে পাব্লিক স্ফিয়ার, ন্যাশনাল চ্যানেল, খবরের কাগজ হল, এটাই কম না আমার মতে।
  • Ekak | 24.99.193.207 (*) | ০৭ এপ্রিল ২০১৫ ১১:২৯71807
  • "তবে সকল ট্যাবুই হয়তো কোনো না কোনো দিন আউটডেটেড হবে যেহেতু স্বাস্থ্যবিধি ও ডাক্তারিবিদ্যা ক্রমান্বয়ে আপডেট ও অ্যাডভান্স হচ্ছে।"

    নট নেসেসারিলি ! বরং যত বেশি এডভান্সমেন্ট আসবে মানুষ তত পার্সোনাল চয়েস এক্সপ্লোর করার বলুন বা ট্যাবু মেইন্টেইন করার সুযোগ বেশি পাবে ।
    একটা সময় মহিলা রোগীর বুকে কাগজের নল ঠেকিয়ে বিট শোনা হত । বুকের কাছে হাত নিয়ে যাওয়া ট্যাবু ছিল । ছেলেদের ক্ষেত্রে সরাসরি কান ঠেকিয়ে হত তখন ।তারপর স্টেথস্কোপ এলো।ইনফ্যাক্ট স্টেথ তৈরীর উদ্যোগ নেওয়াই হয় মহিলাদের প্রাইভেসির কথা ভেবে । আর এখন আরও বেটার টেকনোলজি আছে যাতে কেয়ার প্রভাইডার রিমোটলি বসে অনেক বেশি কার্ডিও ইনফরমেশন পাবেন । খেয়াল করে দেখুন প্রসেস গুলো ক্রমশ ফিসিকালি ইন্ভেসিভ থেকে লেস ইন্ভেসিভ হয়ে নন ইন্ভেসিভ এর দিকে এগোচ্ছে । কাজেই আপনার ট্যাবু আছে ডাক্তার বুকে কান দেবেনা বলে বিজ্ঞানের উন্নতিতে ট্যাবু ভেঙ্গে যাবে এমন নয় ।

    এই যে অনেকে বলছেন দোকান থেকে ওপেনলি স্যানিটারি ন্যাপকিন কেনা নিয়ে ট্যাবু আছে ।আমরা কিছুদিন আগেই কথা বলছিলুম একটা সস্তার মোবাইল বেসড সার্ভিস চালু করা যায় কিনা যেখানে গ্রামেও অঙ্গনওয়ারি বা স্বাস্থ্যকর্মী মেয়েরা মোবাইলে কল পেলে বাড়ি গিয়ে ন্যাপকিন পৌছে দেবে ।বা এটিএম বুথ-এ টেলর মেশিন বসানো যায় কিনা যা থেকে ন্যাপকিন/কনডম বেরোবে । ইন্ডিয়াতে বিশাল মার্কেট এবং বহু মানুষের প্রবলেম সলভ করবে .............উইদাউট ব্রেকিং এনি ট্যাবু :)

    কাজেই..হিসেব অত সোজা না ,একমুখীও না ।
  • common | 24.139.222.45 (*) | ০৭ এপ্রিল ২০১৫ ১১:৫৯71808
  • নাহ, মার্কেটের দোহাই দিয়ে ট্যাবু সযত্নে লালন করার কোনো মানে হয় না। তবে ট্যাবু ভাঙ্গতে যাবার আগে নিজের উদ্দেশ্য ও বিধেয় বিষয়ে পরিস্কার ধারণা থাকা দরকার। একটি মেয়ে নিজে সরাসরি গিয়ে ন্যাপকিন কিনবে, এটাই হওয়া উচিত। তার জন্য যেখানে ক্যাম্পেন করা দরকার করা উচিত, কিন্তু তার জন্য জে ইউ এর দেওয়ালে ন্যাপকিন ঝোলানো বা ভি সি কে দিয়ে পিরিয়ড বলিয়ে কিছু লাভ নেই। ইন ফ্যাক্ট গুরুর পাতায় মাসিক বা পিরিয়ড শব্দটা লেখাতেও কিচ্ছু হল না।
  • একক | 24.99.193.207 (*) | ০৭ এপ্রিল ২০১৫ ১২:১৩71809
  • প্রশ্নটা দোহাই এর নয় । সেক্ষেত্রে সমাজে কোনটা ট্যাবু আর কোনটা নয় এনিয়ে "উচিত" বলে দেওয়াটাও ইদীয়সিন্ক্রাতিক । লেট ইন্দিভিজুয়াল্স চুস দেয়ার পাথ । আমার বলার উদ্দেশ্য শুধু এইটুকুই যে বিজ্ঞান বা টেকনোলজির গতিপ্রকৃতির সঙ্গে সমাজ সংস্কার এজেন্ডার কোনো ডিরেক্ট সম্পর্ক নাই । এরপর যে ইন্ডিভিজুয়াল এর যা উচিত মনে হয় তা নিয়ে একশবার গলা ফাটাবার অধিকার আছে ।জাস্ট ডোন্ট এক্সপেক্ট টেকনোলজিকাল এডভান্সমেন্ট "শুড" কনফর্ম উইথ দ্যাট ।
  • একক | 24.99.193.207 (*) | ০৭ এপ্রিল ২০১৫ ১২:১৮71810
  • আর অক্ষ কে একটাই কথা বলার ।গুরুর পাতায় এমনিতেই হাজার রকম সোশাল-পলিটিকাল ট্যাবু কে আঘাত করা হয় । এখানকার জনতা অভ্যস্ত :) সিকি হারিয়েছে অন্ধকার নালার ধারে ,সেটা ল্যাম্পপোস্ট এর তলায় খুঁজে কী হবা ! আপনি যদি পিবিবি (প্রবাসে বাংলার বধূ) বা "পুরুষদের রক্ষা করুন" কমিউনিটি তে গিয়ে একটা হইচই বাঁধাতে পারেন তাহলে সেটা একটা স্যাম্পল টেস্টিং হয় :D
  • dc | 132.164.92.44 (*) | ০৮ এপ্রিল ২০১৫ ০২:৩৩71832
  • "যারা মনে করেন পিরিয়ড নিয়ে দরকারী আলোচনাও কোথাও অচ্ছুত হয়ে আছে আর সেই অবস্থাটা বদলানো দরকার তাদের কাছে জানতে চাই এই বিষয়ে আলোচনাটা ঠিক কোথায় দরকারী ও কেন দরকারী? দরকারটা নিশ্চই স্বাস্থ্য বিষয়ক। তা হলে সেই আলোচনাটা ডক্তারের / স্বাস্থ্যকর্মীর সঙ্গে হলেই তো যথেষ্ট, রাস্তাঘাটে, সহকর্মীর বা সহপাঠির (পুরুষ) সঙ্গেই হতে হবে কেন ?"

    পিরিয়ড সংক্রান্ত কিছু স্পেসিফিক কুসংস্কার অনেকের মধ্যেই আছে, গ্রামে, শহরে, ছেলে, মেয়ে সবার মধ্যে। কুসংস্কার ভাঙ্গতে হলে সমাজের সর্বস্তরে সেটা নিয়ে আলোচনা করা দরকার। ডাক্তার/স্বাস্থ্যকর্মী রা তো আলোচনা করবেনই, তার সাথে ছেলেমেয়েদের নিজেদের মধ্যেও এই অ্যাওরনেসটা আসা উচিত যে এগুলো কুসংস্কার। আলোচনাটা ছড়িয়ে না দিয়ে শুধু ডাক্তার/স্বাস্থ্যকর্মীদের মধ্যে আটকে রাখলে সেটা আসবেনা বলেই মনে হয়।

    অন্য একটা কুসংস্কারের কথা ভাবুন, গ্রহনের সময়ে রান্না করা বা খাওয়া যাবেনা। আগে এটা অনেক বেশী ছিল, এখন কমেছে। কমেছে কারন এটা নিয়ে অনেক আলোচনা হয়েছে, পেপারে রিপোর্ট বেরিয়েছে। যেকোন কুসংস্কার ভাঙ্গতে হলে সেই বিষয়ে অ্যাওয়ারনেস আনতে হয়, পাবলিক ডিসকোর্স তৈরী করতে হয়। পিরিয়ড সংক্রান্ত কুসংস্কারের ক্ষেত্রেও তাই।
  • Ishan | 202.43.65.245 (*) | ০৮ এপ্রিল ২০১৫ ০৩:৫৩71840
  • সাদা থান, আমিষ না খাওয়া, একাদশী, এসব কমেছে নিঃসন্দেহে। ফেং-শুই, হনুমান-চালিশা, ধনলক্ষ্মী, যেকোনো জিনিসকেই মিসোজিনি আখ্যা দেওয়া, এইসব বেড়েছে। হাতে-হাত ধরে। কোনটা কু আর কোনটা সু সে অবশ্য জানিনা। :-)
  • একক | 24.96.43.175 (*) | ০৮ এপ্রিল ২০১৫ ০৪:১৮71841
  • সাদা থান কমা এবং আমিষ ভক্ষণ বাড়ার ক্ষেত্রে তথাকথিত "আলোচনা" চালানো কতটা প্রভাব ফেলেছে সন্দেহ আছে ।
    যাঁরা এখনো ধুতি কেনেন তাঁরা জানবেন সাদা থানের দাম (অরবিন্দ ইত্যাদি হাতে গোনা কয়েকটি মিল আছে যারা এখনো সাদা থান বেচে) কী হারে বেড়েছে । সেনগুপ্ত প্রমুখ পুরনো কলকাতার ব্র্যান্ড রা বহু আগে বন্ধ হয়ে গেছে । "ছাপা শাড়ি" র বাজার বৃদ্ধির ফলে সাধারণ মানুষের কাছে ভালো কোয়ালিটির সাদা থান কেনার চে ওই দামে দুটি বেশ মোটামুটি ভালো ছাপা শাড়ি কেনা বেটার অপশন । সাদা কাপড় আর রঙ্গীন কাপড়ের জিএসএম আলাদা হয় খ্যাল রাখবেন ।

    আমিষ ভক্ষনেও তাই । মেথির শাগ ,বেতো ,হিন্চে,পালং,গিমে ,ছোলা শাগ ,লাল শাগ,ওল,আমাদা,চালতা এসবের কী বিটকেল ভাবে দাম বেড়েছে কহতব্য নয় । বাঙালি "নিরামিষ ভক্ষণ" বলতে যা বুঝতো সেটা আজকের বাজারে চালিয়ে যেতে গেলে আমিষ ভক্ষণের দুগুন খরচ । তার মধ্যে পোলট্রি ব্যবসার রমরমা ,দাক্ষিণাত্য থেকে মাছ আসার প্রভাব আছে । পিওর নিরামিষ তো বড়লোকে খায় । পোস্তর দাম কিরকম বেড়েছে বলুন তো সেই পোস্ত চাষ কন্ট্রোল করার পর থেকে ? খোসা ওয়ালা কলাই পাওয়াই দুস্কর । ওদিকে অন্য রাজ্য থেকে হুলিয়ে মুসুর ডাল ঢোকা শুরু হলো ,যে মুসুর বাঙালি বিধবা রা এক্কালে ছুঁতেন না । এইভাবেই আগেকার ওই সাদা থান -ময়দা -ফলার-ব্যঞ্জন এ ঘিরে থাকা লাইফস্টাইল বাধ্য হয়েছে পরিবর্তিত হতে ।
  • PT | 213.110.246.230 (*) | ০৮ এপ্রিল ২০১৫ ০৫:১০71842
  • যে ছটা আটটা জ্যোতিষের চ্যনেল চলে শুধু বাংলাতেই সেগুলোর খদ্দের কারা? আর গ্রহ-কল্যাণের জন্য হাত ভর্তি পাথর কিনছে কারা? "বিজ্ঞান" পড়তে আসা "আধুনিক" ছেলেপুলেদের আংটি দেখিয়ে পর্শন কলে বলে, "মা বলেছে তাই জন্য পরে আছি...."

    ISRO Chairman Dr K Radhakrishnan ..... offering special prayers and performing pooja with the replica of Mars Orbiter Mission at the Lord Venkateshwara temple in Tirupati .....
  • কল্লোল | 125.242.187.247 (*) | ০৮ এপ্রিল ২০১৫ ০৭:৩০71833
  • ডিসির উপরের পোস্টকে ক্ক।
    একই রকমভাবে বিধবাদের সাদা থান, আমিষ না খাওয়া, একদশী করা - এসব অনেক কমেছে (অবশ্যই শহরে) কথা বলতে বলতেই।
  • Arpan | 116.200.54.70 (*) | ০৮ এপ্রিল ২০১৫ ০৮:৪২71834
  • কুসংস্কার কমেছে? তালে এই ধনলক্ষ্মী যন্ত্র, গোমেদ, পোখরাজ, বাস্তু, ফেং শুই এসবের খদ্দের কারা?
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। দ্বিধা না করে মতামত দিন