• মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • এলেবেলে | 2345.110.674523.71 (*) | ১৮ জানুয়ারি ২০১৯ ০৬:৩৬50337
  • 'লটারি হেতু সরকারি স্কুলের মান পড়ে গেছে' এটি আরেকটি আগে থেকে ধারণা করা সিদ্ধান্তকে চাপিয়ে দেওয়া। প্রচুর বাংলা মাধ্যম স্কুল ধারাবাহিকভাবে মাধ্যমিকে ভালো ফল করছে, উঠে আসছে বহু নতুন স্কুলও। একন ক্যাচমেন্ট এরিয়া বলে একটি বিষয় চালু হয়েছে, চালু অভিভাবকেরা বেসরকারি প্রাথমিকে পড়ালেও কাঙ্ক্ষিত ভালো স্কুলটির ক্যাচমেন্ট এরিয়ায় তাঁর সন্তানকে ক্লাস ফোরে ভর্তি করিয়ে রাখছেন। কাজেই সবটা না জেনে এসব না বলাই ভালো।

    ও হ্যাঁ, আমার একমাত্র কন্যা বাংলা মাধ্যমেই পড়েছে।
  • lcm | 9006712.229.0112.212 (*) | ১৮ জানুয়ারি ২০১৯ ০৬:৩৭50338
  • সাউথ কোরিয়া-তে এটা বড় প্রবলেম - ওভার এডুকেশন। সাউথ কোরিয়া-তে পৃথিবীর মধ্যে সবথেকে বেশি উচ্চশিক্ষিত স্ট্রিট ফুড ভেন্ডর আছে।
    ওদের ভোকেশ্যানাল প্রোগ্রাম আছে, কিন্তু কেউ যেতে চায় না, সোশ্যাল প্রেস্টিজ নেই। খানিকটা ভারতের মতনই। আইটিআই থেকে কাজ শিখে ফোরম্যান-এর চাকরির সমাজিক সম্মান নেই, গ্র্যাজুয়েট ডিগ্রি করে অটো চালানো তার চেয়ে বেটার।
  • S | 458912.167.34.76 (*) | ১৮ জানুয়ারি ২০১৯ ০৬:৪৯50340
  • "লটারি হেতু সরকারি স্কুলের মান পড়ে গেছে।"
    সেটা হতেই পারে। কিন্তু সেটা দিকভ্রষ্ট নীতি কেন বুঝলাম না। সরকার এবং সরকারি ইস্কুলের উদ্দেশ্যটা কি? সর্বশিক্ষা? নাকি কিছু স্টেলার ছাত্র-ছাত্রি তৈরী করা? আগে সেইটা ঠিক হোক।
  • sm | 2345.110.673412.230 (*) | ১৮ জানুয়ারি ২০১৯ ০৬:৪৯50339
  • এলেবেলে, সার্ভের উত্তরের জন্য আপনাকে ধন্যবাদ। আপাতত সার্ভের রেজাল্ট 3:1
  • এলেবেলে | 2345.110.674523.71 (*) | ১৮ জানুয়ারি ২০১৯ ০৬:৫২50341
  • @এসেম, আপনি পারেনও বটে! সেই তখন থেকে জেলা স্কুল জেলা স্কুল বলে হেদিয়ে মরছেন যার সংখ্যা সারা রাজ্যে বোধহয় তেত্তিরিশটা, তার অনেকগুলো আবার কলকাতা বা তার আশপাশে। বাকি বেসরকারি বাংলা মাধ্যম স্কুলগুলো কি বানের জলে ভেসে আসা? আমার শহরে চারটি স্কুলে (দুটি বয়েজ, দুটি গার্লস) ছাত্রছাত্রীর সংখ্যা পাঁচ হাজার।

    'এই জন্যই সরকার এইসব ধুঁকতে থাকা স্কুলগুলি ইমি তে রূপান্তরিত করছে। সাড়াও মিলছে ভালোই' মুণ্ডু মিলছে! সরকার ইমিতে পড়া শিক্ষকশিক্ষিকাদের তালিকা চেয়েছে যাতে কিছু স্কুলে তাঁদের ইমিতে পড়ানোর সুযোগ করে দেওয়া যায়। সেই স্কুলগুলো শুধু ইমিই হবে না, বামিও থাকবে। প্রসঙ্গত নদীয়ার বেথুয়াডহরিতে জেসিএম স্কুলে ক্লাস ফাইভে ইমি করা হয়েছিল, সিক্সে উপযুক্ত শিক্ষকের অভাবে তা উঠে যায়। আর ওই একশো ছাত্রবিশিষ্ট স্কুলগুলোকে ক্রমে তুলে দেওয়ার পরিকল্পনা আছে সরকারের।

    @পিটি, ঝগড়া করার হলে একশোবার করবেন, আপত্তি জানাবো না।
  • S | 458912.167.34.76 (*) | ১৮ জানুয়ারি ২০১৯ ০৬:৫৩50342
  • হুম এইটা ঠিক যে লটারি হওয়ার ফলে বহু ভালো ছাত্র যারা আমাদের সময় ভালো বামিতে ভর্তি হতো, তারা ইমিতে চলে যাচ্ছে। আসলে প্রাইভেটে যাচ্ছে, আর প্রাইভেট ইস্কুলগুলো তৈরীই হয়েছে ইংরেজিকে ইউএসপি ধরে। আর লোকেও ভাবে যে স্বপ্নেই যখন নুচি খাচ্ছি তখন ঘি দিয়েই ভাজি।
  • sm | 2345.110.673412.230 (*) | ১৮ জানুয়ারি ২০১৯ ০৬:৫৭50343
  • আমার মনে হয় জন মোহিনী নীতি। ভোট ব্যাংক বাড়ানো।
    ভারতের রাজনীতি সম্পর্কে নিশ্চয় একটা পরিষ্কার ধারণা আছে।
  • sm | 2345.110.673412.230 (*) | ১৮ জানুয়ারি ২০১৯ ০৭:০৮50344
  • সেতো যাবেই । আমার কাছে অপশন না থাকলে,আমিতো প্রাইভেট স্কুলেই যাবো।পড়তে তো হবে নাকি!
    আপনি লিখলেন লটারি হেতু সরকারি স্কুলের মান কমেছে।
    কেন,সেটা এক্সপ্লেন করুন।
    অর্থাৎ ক্লাস ওয়ান থেকে শিশু ভর্তি করে,সেম স্কুলে,সেম সেট অফ টিচার সেম রেজাল্ট দিতে পারছে না কেন?
    এলেবেলে, আমি এইসময়ের একটা লিংক ভাটিয়ালিতে দিয়েছিলাম। পড়েছিলেন কি?বাংলা মিডিয়ামের স্কুল গুলো কে ইমি তে রূপান্তকরণ নিয়ে।
    রিপোর্টটি কয়েকটি স্কুলের উদাহরণ দিয়েছিলো।স্টুডেন্ট সংখ্যা বাড়ার তথ্য ও পরিসংখ্যান দিয়েছে,এবং ফলাফল আশা ব্যঞ্জক লিখেছে। ভবিষ্যতে আরো এমন অনেক স্কুল হবে সেটাও লিখেছে।
    আপনার স্বরচিত অভিজ্ঞতার সঙ্গে মেলানো যাচ্ছে না।
    আরো কিছু লিংক পেলে দিতে পারেন।
  • sswarnendu | 9002312.132.674512.236 (*) | ১৮ জানুয়ারি ২০১৯ ০৭:৪১50345
  • lcm,
    হ্যাঁ খানিকটা সেই জাতীয় কথাই বলতে চাইছিলাম। ঠিক কি লাগবে আমিও স্পষ্ট নই, কিন্তু এই পড়ে গিয়ে কিছু লাভ হচ্ছে আখেরে আমাদের সার্বিকভাবে বলে মনে তো হয় না।
  • PT | 340123.110.234523.19 (*) | ১৮ জানুয়ারি ২০১৯ ০৮:২৯50270
  • @sm
    আপনার সব বক্তব্যকেই কাউন্টার করতে পারি। কিন্তু আপনি তিনোর তুমুল সমর্থক হওয়ার কারণে আমার সব বক্তব্যই বাম-সমর্থক বাক্য বলে মনে হবে।

    শুধু একটা ইস্যু নিয়ে বলি। আমি একদম বাল্যকাল থেকে ইংরিজি শেখানোর পক্ষে নই। স্কুলের প্রাথমিক শিক্ষা মাতৃভাষাতেও দেওয়ার পক্ষপাতি। রবীন্দ্রনাথ এইরকম কিছু একটা বলেছিলেন বটে। কিন্তু এই ধারণাটি আমি রবীন্দ্রনাথ বা আলিমুদ্দিন কারো থেকেই পাইনি-পেয়েছি একটি অ-ইংরিজিভাষী দেশে থাকার কারণে (১৯৮৩ সাল থেকে)। তার আগে আমি সিপিএমকে কস্মিনকালেও ভোট দিইনি-বিশ্বাস করা না করা আপনার ব্যাপার।

    কি শিখলাম সুইডেনে গিয়ে? কাজ চালানোর মত কথ্য সুইডিশ দু মাসে শেখা/শেখানো যায়। সেই শেখানোর পদ্ধতি তখন তো বটেই-এখনো অনেক ভারতীয় মন্ত্রী/সান্ত্রী এবং আম-জনতার কাছে অজানা। এর পরে জর্মানিতেও ভাষা-শিক্ষার ক্লাশ করেছি দু মাস। তাতেও দেখেছি যে এই সামান্য সময়েই কাজ চালানোর মত কথ্য ভাষা শিখে নেওয়া যায়। ইংরিজি বলতে পারেনা এমন হবু ডাক্তারদের বোধহয় ৬ মাস ভাষা শেখানো হত যাতে তারা রুগীদের সঙ্গে কথা বলতে পারে।

    পরে দেখলাম যে এই ব্যাপারটা দেশেও জানা ছিল। আমরা অনেকেই ৬/৭ বা ৭/৮ ক্লাশে সংস্কৃত শিখেছিলাম। ভাল নম্বরও পাওয়া যেত। এখনো কাউকে কাউকে চিনি যারা "বেশী বয়স" থেকে সংস্কৃত শিখেও পরে সংস্কৃত সাহিত্য নিয়ে উচ্চশিক্ষা করেছে।

    "ভালো ইংলিশ না শিখলে দেশে বিদেশে চাকরি পাওয়া কঠিন"-এই বাক্যটি অর্ধসত্য। প্রথমতঃ সরকারী ক্ষেত্রেই যথেষ্ট চাকরী সৃষ্টি না হওয়ার কারণে লোকে চাকরী পাচ্ছে না।("In spite of massive vacancies within the government sectors, the NDA government has been reluctant in not only creating employment but also in filling the sanctioned positions.")। আর ব্যক্তিপুঁজি চাকরী সৃষ্টি করতে বাধ্য নয়। "The Unemployment Paradox: Looking at Growth Without Jobs. " কাজেই ইংরিজির জানা/নাজানার সঙ্গে চাকরীর সম্পর্ক আপাততঃ প্রতিষ্ঠা করা যাচ্ছে না। তাই রাজ্য ও কেন্দ্রীয় সরকারের যথাক্রমে "ইং-মাধ্যম সরকারী স্কুল" এবং "উচ্চবর্ণের সংরক্ষণ" জাতীয় ঢপ দেওয়া ছাড়া বিশেষ কিছু করার নেই।

    ইংরিজি "তুলে" দেওয়া আর ইংরিজি উঁচু ক্লাশ থেকে শেখানোর মধ্যে বিস্তর ফারাক আছে। এই শব্দসমষ্টি নিয়ে রাজনৈতিক খেলা খেলাই যায় আর বামেদের পিণ্ডি চটকানো-ই যায়। কিন্তু তাতে আসল লাভ কিছু হয়না।

    বুঝতেই পারছেন আপনার সব বক্তব্য কাউন্টার করতে গেলে কত বড় পোস্টিং করতে হবে।
  • sm | 2345.110.893412.182 (*) | ১৮ জানুয়ারি ২০১৯ ০৯:২১50271
  • আপনার পরিশ্রম করার কোন দরকার নেই।
    ইংলিশ স্পিকিংগ কান্ট্রি (ইউ এস,ইউ কে,অস্ট্রেলিয়া,কানাডা) ইত্যাদি..।
    এখানে ডাক্তারি,ওকালতি,ইঞ্জিনিয়ার পেশায় কাজ করতে গেলে বা কোন কোর্স করতে গেলেও আই ই এল টি এস/টোইফেল পরীক্ষায় ভালো স্কোর করতে হয়।
    আই ই এল টি এস পরীক্ষায় 7.5/9এর ভেতর স্কোর করতে গেলে বাঘা বাঘা ইংরেজি জানা লোক ফেল করে যাবে।
    6 মাস ক্র্যাশ কোর্স তো দূর অস্ত, সারদা সুন্দরী বিদ্যালয়ে 10 বছর ইংলিশ পড়েও জিনিষ টি রপ্ত করা কঠিন।
    দেশের মধ্যে,আপনি যেকোন আই টি সেক্টরে হিউম্যান রিসোর্সের ব্যক্তিকে জিগাতে পারেন।
    মোটামুটি ভালো ইংলিশ স্পিকিং স্কীল রপ্ত না হলে কাজে নেবেই না।
    সুতরাং অর্ধসত্য হয় আপনি বলছেন বা ভাবের ঘরে চুরি করছেন।
    এতো লক্ষ ছেলে মেয়েদের বাবা মা বোকা নয় যে,সুবিধে না থাকা সত্বেও তারা ইংলিশ মিডিয়ামের দিকে ঝুঁকেছেন।
    নিশিকান্ত বসু বলে এক ভদ্রলোক প্রায় একশ বছর আগে তাঁর ছেলেকে সেন্ট জেভিয়ার্স এ পড়িয়েছিলেন।
    ওঁর নাতি কি মিডিয়ামে পড়েছিলেন?
  • PT | 340123.110.234523.22 (*) | ১৮ জানুয়ারি ২০১৯ ১০:২০50272
  • কত শতাংশ বাঙালী বিদেশে যায় চাকরী করতে?
    আমি নিজে অন্য ভাষাশিক্ষার ক্লাশের অভিজ্ঞতা থেকে বলছি যে ভাল ইংলিশ স্পিকিং স্কিল রপ্ত করতে ছমাস লাগে। তার জন্য প্রথম শ্রেণী থেকে ইংরিজি পড়ানোর কোন প্রয়োজন নেই।
    বাবা-মাদের এই কথাটা পরিষ্কার করে অ-বাম দল গুলো বোঝায় নি। কেননা সরকারী ইং মাধ্যম স্কুলে একটা সীট মানে দলের পক্ষে দুটি ভোট।
  • sm | 2345.110.893412.182 (*) | ১৮ জানুয়ারি ২০১৯ ১০:৩৩50273
  • ধুর, কি যে বলেন?6 মাসে রপ্ত করা গেলে, এসব আই ই এল টি এস/টোইফেল পরীক্ষা গুলো রেখেছে কেন?
    বর্তমানে ভালো চাকরী তো বিদেশেই।
  • PT | 340123.110.234523.20 (*) | ১৮ জানুয়ারি ২০১৯ ১০:৫৩50274
  • উচ্চশিক্ষা বা তার আগে/পরে বিদেশ যাওয়া ইত্যাদি ব্যাপারগুলো ছেড়ে দিন। ওটা ঠিক আপনার area of expertise নয়।

    ৯২/৯৩ থেকে দশ বছর ধরে কয়েকশো ছাত্র-ছাত্রীকে পব থেকে পুণায় আসতে দেখেছি NCL -এ PhD করতে। ধ্যার্ধ্যারে গ্রামের ছেলে-মেয়েরা ১/২ মাসের মধ্যে ইংরিজি বলা শুরু করত, কোন ট্রেনিং ছাড়াই। আমার নিজের এমন কয়েকটি ছাত্র ছিল যাদের মধ্যে প্রায় সকলেই দেশী অথবা বিদেশী প্রবাসী। কোন HR-এর কর্তারা এদের চাকরী আটকাতে পারেনি।

    গতকাল এখানকার আমার PhD ছাত্র ইংরিজিতে presentation দিল। সে এখনো শহুরে বাংলা বলতে পারে না। করতিছি, খাইতিছি ইত্যাদি বলে এবং কাল পর্যন্ত ইউক্যালিপটাসকে ইউ-কালি-পটাস উচ্চারণ করত। এ কোন গুল-গপ্প নয়। চলে আসুন এখানে। আলাপ করিয়ে দেব। এদের মধ্যে অনেকেই বিদেশ যাবে। ফিরে এসেও, ইজ, ওয়াজ, বিকজ ইত্যাদি বিকৃত ইংরিজি বলে তোফা জীবন কাটাবে।

    আর এ সবই আমার নিজস্ব অভিজ্ঞতা। নিশিকান্ত বসু বা ছেলে কিম্বা নাতির প্রসঙ্গ এক্ষেত্রে অর্থহীন। কিন্তু আমাকে "একবগগা বাম সমর্থক" বলে দেগে দেওয়ার বাসনা এতটাই প্রবল যে আপনি খামোকা তাদের নিয়ে টানাটানি করছেন।
  • sm | 2345.110.893412.182 (*) | ১৮ জানুয়ারি ২০১৯ ১১:০২50275
  • এই জন্যই আপনার বক্তব্য জঞ্জাল বলে মনে হয়।
    কারণ আপনি তর্ক করার জন্য তর্ক করছেন।
    রিসার্চ আর ডাক্তারি/ওকালতি/নার্স/ইঞ্জিনিয়ার প্রফেশন এক নয়।
    এক্ষেত্রে আপনার সঙ্গে তর্ক করলে মনে হয় আলুর দোকানির সঙ্গে কথা বলছি।
    আপনি জানেন ই না আই ই এল টি এস পরীক্ষায় কোন প্রফেশনে কাজ করতে কতো স্কোর করতে হয়?
    আর একটা বিষয় পরিষ্কার আপনি ইংলিশ স্পিকিং কান্ট্রি গুলোতে বেশি দিন কাজ ই করেন নি।
  • PT | 340123.110.234523.20 (*) | ১৮ জানুয়ারি ২০১৯ ১১:০৬50276
  • @sm
    আমি "ইংলিশ স্পিকিং কান্ট্রি"-তে ছিলাম না আপনি সেটা জানলেন কি করে?
    আর বাংলা মিডিয়মে পড়ে " ডাক্তারি/ওকালতি/নার্স/ইঞ্জিনিয়ার" তৈরি হয়নি পবতে?
    আসুন বিষয়ে থাকি।
  • sm | 2345.110.893412.182 (*) | ১৮ জানুয়ারি ২০১৯ ১১:১৬50279
  • এই লিংক টা পড়ুন। কিছু জানুন বা শিখুন।
  • PT | 340123.110.234523.20 (*) | ১৮ জানুয়ারি ২০১৯ ১১:৩৩50280
  • দাঁড়ান, দাঁড়ান। IIT-র ছাত্র আর নার্স এই দুই মেরুর ইংরিজির প্রয়োজনীতার মধ্যে পেন্ডুলামের মত দুলবেন না। IIT-ছাত্রদের ব্যাপারটা অন্যরকমের। খবরের কাগজ পড়ে কিছু বুঝতে পারবেন না। কিন্তু এব্যাপারে আমি কিছু লিখব না প্রফেশনল কারণে।
    কিন্তু উল্টো ব্যাপারটা ভেবে দেখুন। ইংরিজি না জেনেই এরা কেমন IIT-র জন্য কোয়ালিফাই করেছে!! সেটা আবার আপনার তত্বের উল্টোদিকে চলে যাচ্ছে।
    এর সঙ্গে পব-র স্কুলে ইংরিজির কোন যোগাযোগ নেই।
  • sm | 2345.110.893412.182 (*) | ১৮ জানুয়ারি ২০১৯ ১১:৩৪50281
  • বাংলা মিডিয়ামে পড়ে কেউ ডাক্তার/ইঞ্জিনিয়ার হবে না কেন?হচ্ছে তো। কিন্তু অসুবিধাও হচ্ছে।ওপরের লিংকটা পড়ুন,আই আই টি থেকে স্রেফ ইংরাজি কম জানে বলে ব্রিলিয়ান্ট স্টুডেন্টদের ড্রপ আউট হচ্ছে।
    এর জন্য কিছু আই আই টি টে হিন্দিতে স্টাডি মেটেরিয়াল করতে হচ্ছে।
    ভাবুন তো,বেঙ্গলি,অহমিয়া,ওড়িয়া মিডিয়ামের জন্য কি ভাষায় স্টাডি মেটেরিয়াল তৈরি করবে কতৃপক্ষ?
    অতএব ইংলিশ মিডিয়ামের স্টুডেন্টরা এডভ্যান্টেজ পেয়েই যাচ্ছে।এটা মানতে অসুবিধে কোথায়?
    বাবা ,মায়েরা বেশি ইংলিশ মিডিয়ামের দিকে ঝুঁকছে,তাতেই বা কি অসুবিধে?
    বিশেষত যখন আগ মার্কা বামনেতা দের ছেলে পুলে দল বেঁধে ইমি তে পড়তে যায় তখন আমার প্রত্যয় আরো সুদৃঢ় হয়।মনে হয় আমি ঠিক বলছি। কারণ আমি ওনাদের বুদ্ধির ওপর ভরসা রাখি। সে সুবুদ্ধি ই হোক বা কুবুদ্ধি।
  • PT | 340123.110.234523.20 (*) | ১৮ জানুয়ারি ২০১৯ ১১:৪২50282
  • "আই আই টি টে হিন্দিতে স্টাডি মেটেরিয়াল করতে হচ্ছে।"
    সত্যি? তাহলে সেটা শুধু আমার ডিপার্টমেন্ট বাদ দিয়ে হচ্ছে।
  • sm | 2345.110.893412.182 (*) | ১৮ জানুয়ারি ২০১৯ ১১:৪৮50283
  • এবার কিছু নিজস্ব অভিজ্ঞতার কথা বলি।আপনি কোন দিন এন্ট্রান্স একজামে বসেছেন কি?আমাদের আমলে জয়েন্টে 100 নম্বরের ইংলিশ এর পেপার থাকতো আর আই আই টি তে ইংলিশে কোশ্চেন পেপার সেট করা হতো আর ইংলিশে একটা মিনিমাম কোয়ালিফাইং মার্ক্স পেতে হতো।ইংলিশ মিডিয়ামের স্টুডেন্টরা একটা এডভ্যান্টেজ পেতোই।
    এখন বোধহয় রিজিওনাল মিডিয়ামে পরীক্ষা দেওয়া যায় আর ইংলিশ বলে কোন আলাদা পেপার থাকে না।
    যদুপুরে গিয়ে দেখলাম, ফার্স্ট ইয়ারে ইংলিশ সাবজেক্ট রয়েছে।একটা সেমিস্টারে বোধহয়।
    যাই হোক, মোদ্দা কথা ইমি থাকলে উচ্চ শিক্ষা ও চাকরির ক্ষেত্রে একটা এডভ্যান্টেজ থাকে।এটা বুঝতে অসুবিধে কোথায়?আপনি না বুঝলেও বাবা,মায়েরা বুঝেছে।তাই ইমির দিকে ঝুঁকেছে।
    সিমপুলস
  • sm | 2345.110.893412.182 (*) | ১৮ জানুয়ারি ২০১৯ ১১:৫৫50287
  • এই লিংকটা পড়ুন তো একবার।
    এদের কে গিয়ে আপনার 6 মাসের অভিনব ক্র্যাশ কোর্স এর কোথাও উত্থাপন করতে পারেন।
  • PT | 340123.110.234523.20 (*) | ১৮ জানুয়ারি ২০১৯ ১১:৫৫50286
  • বাবা-মা কিস্যু বোঝেনি।
    আমার মতে ৮/৯ ক্লাস থেকে প্রতিটি স্কুলে স্পোকেন ইংলিশের বাধ্যতামূলক ক্লাস চালু করা উচিৎ। ছেলেপুলেদের ফড়ফড় করে ইংরিজি বলতে শুনলেই বামা-মায়েরা মুগ্ধ হয়ে যাবে। তার পরে বুঝবে যে ইংরিজি বলতে পারলেই চাকরী পাওয়া যায় না কেননা ভারতে যথেষ্ট সংখ্যায় চাকরীর সৃষ্টিই হচ্ছে না।
  • sm | 2345.110.893412.182 (*) | ১৮ জানুয়ারি ২০১৯ ১১:৫৫50285
  • এই লিংকটা পড়ুন তো একবার।
    এদের কে গিয়ে আপনার 6 মাসের অভিনব ক্র্যাশ কোর্স এর কোথাও উত্থাপন করতে পারেন।
  • PT | 340123.110.234523.20 (*) | ১৮ জানুয়ারি ২০১৯ ১২:০১50288
  • আরে বাপু, এই সব ছাত্রদের নিয়ে আমি প্রতিনিয়ত সংপৃক্ত হয়ে আছি। কিছু কথা লেখা যাবে না বলে লিখছি না।
    আপনি IIT-র ছাত্রদের বাদ রেখে অন্যদের ইংরিজির প্রয়োজনীয়তা নিয়ে আলোচনা করুন।
    ও, সোমনাথ চ্যাটার্জী দেখলাম মিত্র ইন্সটিটুশনে পড়েছিলেন। তিনি তো নিশিকান্তবাবুর ছেলের থেকে কিছুতে কম ছিলেন না।
  • পাটকেল | 780112.77.23900.33 (*) | ১৮ জানুয়ারি ২০১৯ ১২:০২50289
  • পিটি নিজেই তো সুইপিং স্টেটমেন্টের একছত্র সম্রাট । এমন ভাবে বক্তব্য রাখেন যেন পশ্চিমবঙ্গের কোটি কোটি মানুষের নাড়িনক্ষত্র সব ওনার নখদর্পনে । উনি জানেন পশ্চিমবঙ্গের সমস্ত স্কুলের পরিচালন কমিটিতে কারা আছেন, তাদের পলিটিক্যাল ভিউ, তাদের যোগ্যতা সব তথ্য যেন ওনার হাতের মুঠোয়।
    অন্যদের বলে দেন যে তাদের উচ্চশিক্ষা বা বিদেশের শিক্ষা পদ্ধতি নিয়ে আলোচনার কোনো জ্ঞান নেই, যেন এ বিষয়ে তিনিই শেষ কথা বলার যোগ্যতা রাখেন।
    ওনার তর্কের পদ্ধতি হল গোল গোল করে ঘুরে যাওয়া, শিক্ষা ব্যবস্থা নিয়ে তর্কের সময় উনি জিজ্ঞেস করবেন তসলিমা নাসরিন এর কথা ।
    অন্যদের ছাগল, ভেড়া, দালাল, মিথ্যেবাদী যা খুশি বলবেন, এবং এরপর যখন কেউ ওনার সঙ্গে তক্কো বন্ধ করে দেবেন তখন উনি বলবেন - কই আজকাল তো আর তাদের দেখি না, সব ধান্দাবাজ ।
  • PT | 340123.110.234523.20 (*) | ১৮ জানুয়ারি ২০১৯ ১২:১১50290
  • একটু স্পেসিফিক কিছু বলুন। উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করব।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:

কুমুদি পুরস্কার   গুরুভারআমার গুরুবন্ধুদের জানান


  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। ঝপাঝপ মতামত দিন