• টইপত্তর  অন্যান্য

  • পুরোনো বাংলার ছড়াগুলি

    Parolin
    অন্যান্য | ২০ জুন ২০০৬ | ৮৯৬৮ বার পঠিত
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • tan | 131.95.121.251 | ২১ জুন ২০০৬ ২১:০০603105
  • "শেয়ালে নিলো ধ-অ-রে,
    গহন বনপারে
    খাড়া পাহাড় ঘুরে
    খর নদীর ধারে"
    ওটা দাও না দাও না কলি!
  • Arjit | 128.240.229.3 | ২১ জুন ২০০৬ ২১:০২603107
  • রাশান ছড়া আম্মো দিই -

    "পাঁচ বছুরে ভালুক ভায়া
    শিখলে উচিত সভ্য হওয়া
    লোকের বাড়ি যাবে যখন
    গ্যাঁকগ্যাঁকানি নয়কো তখন,
    অসভ্যতা করতে নেই,
    চেনা লোককে দেখবে যেই,
    টুপি খুলে সুমুখে তার
    করবে আগে নমস্কার।

    লোকের পা মাড়িও না
    মাছিতে মুখ বাড়িও না
    চার হাতপায়ে চলা বারণ
    হাই তোলা নয় সভ্য ধরণ
    নেহাত যদি ওঠেই হাই
    থাবাতে মুখ ঢাকাই চাই।

    সভ্য হয়ো, ভব্য হয়ো
    কেউ এলে পথ ছেড়ে দিও
    শ্রদ্ধা করো বুড়োদেরকে
    পাছে বা যায় পা হড়কে
    পিছল যখন বরফ পড়ে
    পৌঁছে দেবে হাতে ধরে।

    এমনি করেই ভালুক ছানা
    সভ্য হল, বুঝলে কিনা?
    বাইরেটা বেশ ভদ্র হল
    ভালুক তবু রয়েই গেলো।
    চেয়াল ভালুক পড়শী হলে
    মাথা নোয়াত টুপি খুলে
    কিন্তু চেনা নয়কো যারা
    তাদের দিত বিষম তাড়া।
    যথা তথা ঢোকাত নাক,
    কোথায় গাজর কোথায় বা শাক,
    ট্রামে বাসে যেখানে লোক
    বুড়ো হোক কি বুড়িই হোক,
    ঝাঁপিয়ে পড়ে দিত কামড়
    ভয় দেখাত ভাঙবে পাঁজর।

    পাঁচ বছুরে ভালুক ভায়া
    শিখলে উচিত সভ্য হওয়া
    দু:খু কেবল মাস্টারের
    খামোখা গেল সময় ঢের।
  • Arjit | 128.240.229.3 | ২১ জুন ২০০৬ ২১:০৮603108
  • লেপ খানা, মেলে ডানা
    বালিশটা পালালো
    কম্বলও উড়ে গেলো,
    বড় দেখি জ্বালালো।
    মোমদানিটা লে লুল্লি
    ছুটলো যেথায় জ্বলে চুল্লি,
    বই কই রে?
    বইও পালায়
    ডিঙ্গি মেরে খাটের তলায়।
    কি আর করি, দু এক ঢোক
    ইচ্ছে হল চা খাওয়া হোক,
    সামোভারটা আঁতকে উঠে
    ভুঁড়ি পেটে পালায় ছুটে।

    হল'টা কি বিদিকিচ্ছে
    ঝাঁকে ঝাঁকে ডাক দিচ্ছে
    হাঁক দিচ্ছে চড়কি পাকে?
    ইস্ত্রী কিনা জুতির পিছে
    বিড়ালছানা পুঁথির পিছে
    বুট দুখানা সবার পিছে
    সবার মাঝে শিকগাছি
    সব জুটেছে, সব ছুটেছে
    ঘুরছে খেয়ে ডিগবাজি।

    হঠাৎ মায়ের ঘর খুলে
    ল্যাগব্যাগে তার ঠ্যাং তুলে
    বেরিয়ে এলো ওয়াশস্ট্যাণ্ড
    হুড়মুড়িয়ে দুদুম দাম।
    "ওরে তুই কেলে ভুত
    শাঁকচুন্নির পুত"
    বলে মাথা দুলিয়ে,
    "ঘাড়ে তোর ময়লা
    নাকখানা কয়লা
    এত তুই নোংরা
    রেখে তোকে ন্যাংটা
    এমনকি প্যান্টটা,
    এমনকি প্যান্টটা
    ছুটে গেলো পালিয়ে।

    সকাল হতেই শত শতই
    হাঁসের ছানা, ভোঁদর ছানা, বিড়াল ছানা
    নিয়ম করে হাত-মুখ ধোয়,
    একলা তুই মুখ ধুলি নে
    একলা তুই জল ছুঁলি নে
    হয়ে রইলি কেলেভুতো
    তাই পালালো মোজা জুতো।

    আমি সেই গ্র্যাণ্ড ওয়াশস্ট্যাণ্ড
    ...

    আর মনে নেই:-(( মানে অল্প অল্প মনে আছে...

  • kali | 160.36.205.19 | ২১ জুন ২০০৬ ২১:০৯603109
  • তনু,

    ঐ তো তুমি লিখেইছো। তার পর আর দুটো মাত্র লাইন আছে,

    ও শালিখ ও বেড়াল রে
    আয় না বাঁচা মোরে।

    এই ভালুক ভায়ার ছড়াটা দেখলেই মনে পড়ে যায়,আমরা ছোটবেলায় এমন শয়তান ছিলাম যে বলতাম আমাদের নিয়ম হলো

    লোকের পা মাড়াবে
    মাছিতে মুখ বাড়াবে
    দুই পায়েতে চলা বারণ
    হাই তোলাটইঅ সভ্য ধরণ..... ইত্যাদি।
  • mita | 24.163.123.37 | ২১ জুন ২০০৬ ২২:৪৮603110
  • এগুলো আমাদের কলেজ আমলের ছড়া। কাজেই পুরোনো তো বটেই!
    প্রথম দুটো অমিতাভ চৌ, শেষেরটা একজন ছাত্রের।

    হাতে নিয়ে ডিক্‌শনারী,
    চড়েছেন রিক্‌শা নারী
    ছড়াখানি কাল্পনিক
    অর্থাৎ ফিক্‌শনারী

    মিস সেন চলেছেন বিলাতে
    শেষ করে সঙ্গীত চর্চা
    রাত্তিরে ঘুমোবার আশাতে
    প্রতিবেশি দিয়েছেন খর্চা

    পাশে বসেছি, সাথে হাটি নি
    চোখে দেখেছি, দাঁতে কাটি নি
    এক কথায় সহপাঠিনি
  • samran | 59.93.242.234 | ২১ জুন ২০০৬ ২৩:০৫603111
  • তনু ,শক্তিশেল-

    উলুকঝুলুক ময়নার
    গা ভরা এক গয়না
    সোনার বরন কন্যের
    মন ভারি কার জন্যে ?

    ( মিষ্টি কথায়, বৃষ্টিতে নয় )
  • tan | 131.95.121.251 | ২১ জুন ২০০৬ ২৩:০৮603112
  • সামরান,দারুন।থ্যাংকু।
    আমি অ চৌ য়ের বার্লিন দিয়ে দিই এই ফাঁকে।

    চুকিয়ে বাকী কর্ম যা
    জুতোর ভেতর পর মোজা
    সস্তাদরে টিকিট কেটে
    যা চলে যা ফরমোজা।
    নয়তো রে চল বার্লিনে
    সঙ্গে সাগু বার্লি নে,
    অন্য কোথাও কাছাকাছি
    যখন যেতে পারলি নে!

  • dri | 199.106.103.254 | ২১ জুন ২০০৬ ২৩:১৪603113
  • ট্যানের কবিতাটায় মনে হয় --

    ফুলকলি ছোট রে

    আর

    শোন ঐ রামা হৈ

    রুশদেশের উপকথা মনে করিয়ে দেবার জন্য কলিকে ধন্যবাদ। যাদুকরী ভাসিলিসা ছিল আমার প্রথম প্রেম।

    আর রুশদেশের উপকথাই যখন হল তখন গৌরী ধর্মপালের পঞ্চতন্ত্রই বা বাদ যায় কেন? সেই একটা গল্পে ছিল না --

    কালো পাথরের ধা-আ-আ-রে
    সাদা পাহাড়ের চু-উ-উ-ড়ো
    মিলে মিশে রয়েছে সেথায় ছেলে মেয়ে বু-উ-উ-ড়ো
    পাথর বেয়ে গড়িয়ে পড়ে লাল ঝর্ণার জল
    (???) কে কে যাবি চল

  • Arjit | 128.240.229.67 | ২২ জুন ২০০৬ ১৬:০৯603114
  • এটা মনে আছে?

    খেলি আমরা, খেলি সবাই মিলে
    দেখি কোন এক গোমড়ামুখো ছেলে
    নামটা ভোভা, মুখটা হাঁড়িপানা,
    ঠিক যেন এক রামগড়ুরের ছানা।

    বাগানখানা খেলায় একাকার
    ভোভা কিন্তু মুখ করেছে ভার,
    ভাব করতে চায় না কারো সাথে,
    হাত এগিয়ে দেয় না কারো হাতে।

    দূরেই বসি আমরা দলবল,
    দিই এগিয়ে রঙচঙা ফুটবল
    ছোঁয় না সে বল, গোমড়াপানা ঠোঁটে
    এই সেরেছে, কেঁদেই বুঝি ওঠে।

    ভাবনা হল, ভাবতে বসি সব
    ভেবে ভেবে বেরুলো মতলব
    মুখের ভাবটা ভোভার মতই করবো
    ভুরু কুঁচকে গোমড়া মুখে ঘুরবো।

    সেই থেকে সব বাইরে বেরোই যেই
    গোমড়া মুখে কথাটি আর নেই,
    ...
    এমনকি যে ছোট্ট লুব্যা ওই
    বয়সটি যার মোটে বছর দুই,
    ঠোঁট ফুলিয়ে গাল ফুলিয়ে নাকটা করে বোঁচা,
    মুখ করলে ঠিক যেন এক প্যাঁচা।
    ...
    ...
    এখন ওকে চিনেই ওঠা দায়
    একসঙ্গেই বসি বেঞ্চিটায়
    ...

    আর মনে নাই:-(( বই দেখতে হবে।

  • Samik | 221.134.239.110 | ২২ জুন ২০০৬ ২০:৪৬603116
  • এই ছড়াটা বোধ হয় কেউ লেখে নি এখানে, না?

    ওয়ান টু থিরি
    কালিবাবুর বিড়ি

    বিড়িতে নেই আগুন
    হয়ে গেল বেগুন

    বেগুনে নেই বিচি
    হয়ে গেল কাঁচি

    কাঁচিতে নেই ধার
    হয়ে গেল হার

    হারে নেই লকেট
    হয়ে গেল পকেট

    পকেটে নেই জিনিস
    হয়ে গেল ফিনিশ।।

    (মতান্তরে)

    পকেটে নেই টাকা
    হয়ে গেল ফাঁকা।

  • dd | 202.122.18.241 | ২২ জুন ২০০৬ ২৩:০২603117
  • যীশুর কৃপায় দাড়ি গজায়
    শীতকালে খাই শাঁকালু
    যীশু পরম দয়ালু

    এরকম ভক্তিরসে টইটম্বুর অপিচ আদ্যোপান্ত ননসেন্স ছড়া আর দুইটি হয়না।
  • vikram | 134.226.1.194 | ২২ জুন ২০০৬ ২৩:০৯603118
  • এটা দিয়ে নাকি এক সময় ধর্মপোচার হত।

    বিক্রম
  • Samik | 221.134.224.182 | ২২ জুন ২০০৬ ২৩:২৬603119
  • এই একটা প্রশ্নোত্তরের ছড়া ছিল। কচু দিয়ে শুরু।

    কচু খাবি?
    কী কচু?
    মানকচু।
    কী মান?
    বর্ধমান।
    কী বর্ধ?
    রাধাবর্ধ।
    কী রাধা?
    কেষ্ট-রাধা।
    কী কেষ্ট?
    ধিনিকেষ্ট।
    কী ধিনি?
    তাক ধিনি।
    কী তাক?
    চুপ করে থাক।
  • m | 67.173.95.147 | ২৩ জুন ২০০৬ ০৯:২৯603120
  • মুনিয়া পাখি
    নাচো তো দেখি
    না বাবা না নাচবো না
    পড়ে গেলে বাঁচব না।
  • J | 192.6.178.101 | ২৩ জুন ২০০৬ ১৪:৩২603121
  • একটা কথা
    ব্যাঙের মাথা
    কী ব্যাঙ?
    কোলা ব্যাং
    কি কোলা?
    চিতি কোলা
    কি চিতি?
    মানুষের চিতি
    কি মানুষ?
    বন মানুষ
    কি বন?
    খেজুর বন
    কি খেজুর
    ঠিক মজুর
    কি ঠিক
    বেঠিক।

  • J | 192.6.178.101 | ২৩ জুন ২০০৬ ১৪:৩৩603122
  • ভুল লিখেছি-
    কি চিতি?
    সোনাচিতি
    কি সোনা মানুষের সোনা
    কী মানুষ?-
  • Parolin | 213.94.228.210 | ২৩ জুন ২০০৬ ১৬:২৫603123
  • আচ্ছা এটা মনে আছে কারুর -

    বাঁশবাগানের মাথায় মাথায়
    চাঁদ উঠেছে ঐ
    মা গো আমার শোলকবালা
    কাজলা দিদি কই

    সেই যে অপু প্রথমবার ট্রেনে বসে দুর্গার কথা ভাবছিল , সেই এক হুতাশ।
  • vikram | 134.226.1.136 | ২৩ জুন ২০০৬ ১৭:০৩603124
  • যতীন্দ্রমোহন বাগচীর লেখা এটা কবিতা, পরে গান গেয়েছে বনশ্রী? প্রতিমা?

    বাঁশবাগানের মাথার ওপর চাঁদ উঠেছে ঐ
    মাগো আমার শোলোক বলা কাজলা দিদি কই
    পুকুর পাড়ে গাছের তলে থোকায় থোকায় জোনাই জ্বলে
    ফুলের গন্ধে ঘুম আসে না তাইতো জেগে রই...

    ..... আসবে আবার কবে
    .... পুতুল বিয়ে হবে ...

    কেউ লেখো না।

    বিক্রম
  • Arjit | 128.240.229.6 | ২৩ জুন ২০০৬ ১৭:০৬603125
  • এইটা ওপাড়ার আর্কাইভে খোঁজ - বার দুই তিন এসেছে।
  • Parolin | 213.94.228.210 | ২৩ জুন ২০০৬ ১৮:২৬603127
  • বলি আমার উইশ কি
    এক পো সোডায়
    কয়েক ছটাক হুইস্কি ।

    ধুর.. ভুল হল মনে হচ্চে।
  • vikram | 134.226.1.136 | ২৩ জুন ২০০৬ ১৮:৫২603128
  • যদি জোটে রোজ
    এমনি বিনি পয়সার ভোজ
    সঙ্গে তারই হুইস্কি সোডা দু চার রয়েল ডোজ।

    বিক্রম
  • Samik | 202.131.141.197 | ২৩ জুন ২০০৬ ১৯:১৭603129
  • অভয় দাও তো বলি আমার উইশ কী

  • Parolin | 213.94.228.210 | ২৩ জুন ২০০৬ ১৯:২৯603130
  • ঠিক বলেছো শমীক। জানতুম একটা ভুল হচ্ছে।
  • Parolin | 213.94.228.210 | ২৩ জুন ২০০৬ ২০:৪২603131
  • আচ্ছা এবারে কাঠবেড়ালির টাও হয়ে যাক যদি কারুর মনে আছে।
  • tan | 131.95.121.251 | ২৩ জুন ২০০৬ ২১:১৬603132
  • হয়তো কটা ভুল আছে,যা মনে আছে তাই দিলাম!কাজলাদিদি।

    বাঁশবাগানের মাথার উপর চাঁদ উঠেছে ঐ
    মাগো আমার শোলোকবলা কাজলাদিদি কই?
    পুকুরপাড়ে নেবুর তলে
    থোকায় থোকায় জোনাই জ্বলে
    ফুলের গন্ধে ঘুম আসে না একলা জেগে রই।
    মাগো আমার শোলোকবলা কাজলাদিদি কই?

    ভুঁইচাপাতে ভরে গেছে শিউলিগাছের তল
    মাড়াস নে মা পুকুর থেকে আনবি যখন জল,
    ডালিমগাছের ফাঁকে ফাঁকে
    বুলবুলিটি লুকিয়ে থাকে
    উড়িয়ে তারে দিসনে মাগো পাড়তে গিয়ে ফল,
    দিদি এসে শুনবে যখন বলবে কি মা বল?

    সেদিন হতে কেন মা আর দিদিরে নাহি ডাকো?
    দিদির কথায় আঁচল দিয়ে মুখটি কেন ঢাকো?
    খাবার খেতে আসি যখন
    দিদি বলে ডাকি তখন
    ওঘর থেকে কেন মা আর দিদি আসে নাকো?
    আমি ডাকি তুমি কেন চুপটি করে থাকো?

    বল মা দিদি কোথায় গেছে আসবে আবার কবে?
    কাল যে আমার নতুন ঘরে পুতুল বিয়ে হবে!
    দিদির মতন ফাঁকি দিয়ে
    আমিও যদি লুকাই গিয়ে
    তখন তুমি একলা ঘরে কেমন করে রবে?
    দিদিও নাই আমিও নাই কেমন মজা হবে?
  • Arjit | 128.240.229.6 | ২৩ জুন ২০০৬ ২১:২৪603133
  • অভয় দাও তো বলি আমার উইশ কি
    তিন ছটাক সোডার জলে
    পাকি তিন পোয়া হুইস্কী।

    নৃপবালা আর নীরবালাকে বে' করতে আসা দুই মক্কেলের গান:-)
  • kali | 160.36.205.19 | ২৩ জুন ২০০৬ ২২:৫৬603134
  • কেন আরো তো ছিলো? অক্ষয়ের সেই

    কতকাল রবে বলো ভারত হে
    শুধু ডাল, ভাত, জল পথ্য করে।
    দেশে অন্ন জলের হলো ঘোর অনটন,
    ধরো হুইস্কী সোডা আর মুর্গী-মটন।

    এটা ওয়াজিদ আলী শাহ এর 'যব ছোড় চলে লক্ষনৌ (বানান হচ্ছে না) নগরী'র সুরে গাইতে হতো।
  • dri | 199.106.103.254 | ২৩ জুন ২০০৬ ২৩:০৯603135
  • হ্যাঁ অরিজিত, শুধু

    একটি ছটাক সোডার জলে বাকি তিন পোয়া হুইস্কি।

    আর কলি, পরের দুটো লাইন,

    যাও ঠাকুর চৈতন চুটকি নিয়া
    এস দাড়ি নাড়ি কলিমুদ্দি মিঞা।
  • Samik | 202.131.141.197 | ২৬ জুন ২০০৬ ১২:১৬603136
  • কাঠবিড়ালি, কাঠবিড়ালি, পেয়ারা তুমি খাও?
    গুড়মুড়ি খাও?
    বেড়ালবাচ্চা, কুকুরছানা, তা-ও?

    ডাইনি তুমি হোঁৎকা পেটুক
    খাও একা পাও যেথায় যেটুক
    তবে যে ভারি ল্যাজ উঁচিয়ে পুটুস পাটুস চাও?

    ছোঁচা তুমি, তোমার সঙ্গে
    আড়ি আমার, যাও।

    কাঠবিড়ালি, বাঁদরিমুখী, মারবো ছুঁড়ে ঢিল
    দেখবি তবে? রাঙাদাকে ডাকবো? দেবে কিল।

    ... ... তাপ্পর অনেকখানি ভুলে গেছি।

    পেটে তোমার পিলে হবে, কুড়িকুষ্টি মুখে
    হেই ভগবান, একট অপোকা যাস পেটে ওর ঢুকে।

    ......

    এ রাম, তুমি ন্যাংটাপুঁটো?
    ফ্রকটা নেবে? জামাদুটো?
    আর খেয়ো না পেয়ারা তবে,
    বাতাবি লেবুও ছাড়তে হবে
    দাঁত দেখিয়ে দিচ্ছ যে ছুট?
    অ মা, দেখে যাও ...
    কাথবিড়ালি, তুমি মরো, তুমি কচু খাও।
  • Jujutsu | 218.208.111.10 | ০৫ জুলাই ২০০৬ ১৩:০৩603138
  • এক যে আছে একানড়ে,
    সে থাকে তালগাছে চড়ে।

    এর পরে কি?
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:

কুমুদি পুরস্কার   গুরুভারআমার গুরুবন্ধুদের জানান


  • কোনোরকম কর্পোরেট ফান্ডিং ছাড়া সম্পূর্ণরূপে জনতার শ্রম ও অর্থে পরিচালিত এই নন-প্রফিট এবং স্বাধীন উদ্যোগটিকে বাঁচিয়ে রাখতে
    গুরুচণ্ডা৯-র গ্রাহক হোন
    গুরুচণ্ডা৯তে প্রকাশিত লেখাগুলি হোয়াটসঅ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে যুক্ত হোন। টেলিগ্রাম অ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলটির গ্রাহক হোন।
    • কি, কেন, ইত্যাদি
    • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
    • আমাদের কথা
    • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
    • বুলবুলভাজা
    • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
    • হরিদাস পালেরা
    • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
    • টইপত্তর
    • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
    • ভাটিয়া৯
    • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
    গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
    মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


    পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। লাজুক না হয়ে প্রতিক্রিয়া দিন