ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • টইপত্তর  অন্যান্য

  • ধর্ষণ ও বিবর্তন নিয়ে কিছু কথা

    sosen
    অন্যান্য | ১৭ অক্টোবর ২০১২ | ৬৬১৮ বার পঠিত
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • গান্ধী | 213.110.246.230 | ১৮ অক্টোবর ২০১২ ২১:০১575043
  • ধরে না নেওয়াই ভালো। আমার মত পাঠকও আছে। যে এসব কম জানে। কমেন্ট করার সাহস নেই। নতুন টার্ম পাচ্ছি আর গুগলে সার্চ মারছি
  • pi | 24.99.164.163 | ১৮ অক্টোবর ২০১২ ২১:০৬575044
  • সোসেন, প্রাণিজগতে শুধু সমকামিতার (মানে উভকামিতা নয় আর কি ) উদাঃ ও তো বেশ কিছু আছে।
  • sosen | 125.241.11.58 | ১৮ অক্টোবর ২০১২ ২১:১৬575045
  • পাই -আছে বলতে, বলতে পারো সমকামী একটিভিটি বা এক্সক্লুসিভলি সমকামী দম্পতিও দেখা যায়। কিন্তু সব ক্ষেত্রেই মেজরিটি উভকামী। মানে স্পেসিস তো এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে, বাঁচাতেও হবে। সমকামিতা কিভাবে বিবর্তনের মধ্যে বেঁচে রয়েছে , স্পেসিসের কোনো উপকারে না লেগে, সেটা আরেকটা এরকমই কুয়াশাচ্ছন্ন প্রশ্ন ।
  • sosen | 125.241.11.58 | ১৮ অক্টোবর ২০১২ ২১:১৭575046
  • গান্ধী- আরামসে কমেন্ট কর, কোনো চাপ নেই!
  • pi | 24.99.164.163 | ১৮ অক্টোবর ২০১২ ২১:২৫575047
  • প্রাণিজগতে পলিঅ্যান্ড্রি ও আলোচনায় আসবে তো ? ওটার তো মেটেরিয়াল আর জেনেটিক দুই বেনেফিট ই আছে বলে থিয়োরী আছে। এটা এই কনফ্লিক্টের থিয়োরীতে কীভাবে ফিট করবে ?
  • pi | 24.99.164.163 | ১৮ অক্টোবর ২০১২ ২১:৩০575048
  • মানে, স্পিসিস হিসেবে উভকামী বলছো, ইন্ডিভিজ্যুয়াল নয় ? একটা স্পিসিসের মধ্যে মেজরিটি উভকামে, খুব অল্পসংখ্যক এক্সক্লুসিভ সমকামী, সেটা ? তাহলে তো মানুষের ক্ষেত্রেও বলা যায়, অল্পসংখ্যক এক্সক্লুসিভ সমকামী। মানুষের মধ্যেও মেজরিটি উভকামী কিনা, সে নিয়ে তোমার বক্তব্য পড়ি আ্গে, তারপর লিখব।
  • 3Q | 161.141.84.239 | ১৮ অক্টোবর ২০১২ ২১:৩১575049
  • চমৎকার লেখা হচ্ছে, খুবই ভালো। মনে নানান প্রশ্ন, কিন্তু আমার জানার পরিধি খুব অল্প বলে এখনি প্রশ্নগুলো করছি না। পরে করে ফেলবো। ঃ-)
  • sosen | 125.241.11.58 | ১৮ অক্টোবর ২০১২ ২১:৫২575050
  • হুম, পাই, এখানে আমি চাইছি সেক্সুয়াল ভায়োলেন্স একটা ট্রেট কি না, এবং ভায়োলেন্স রেজিস্ট করা বিবর্তনের বিপক্ষে কি না, এই দুটো প্রশ্নের উত্তর। সেজন্য ইন্ডিভিজুয়াল হিসাবে কনসিডার করছিনা, জাস্ট দেখাতে চাইছি একটা স্পেসিস থেকে পরবর্তী স্পেসিসে এই ট্রেটদুটো সংরক্ষিত হয়েছে , এবং হতে হতে মানুষে এসে কিভাবে স্পেশালাইজড হয়েছে। পলিঅ্যান্ড্রি এক্ষেত্রে অত প্রাসঙ্গিক নয়। কিন্তু কনফ্লিক্টের থিওরিতে বিশ্লেষণ করা যায়, করে দেখানোর চেষ্টা করব।
    মানুষের মধ্যে এই স্টাডিগুলো খুব থিওরিতিক্যাল এবং সংখ্যাতত্ত্বের ওপর বড্ড নির্ভরশীল; যাই হোক, বলব। সঙ্গে থাকুন :)
  • | 24.96.112.158 | ১৯ অক্টোবর ২০১২ ০৮:০৭575051
  • যাঃ রাতে কিছু লেখে নি মেয়েটা। :-(
  • প্পন | 190.215.115.59 | ১৯ অক্টোবর ২০১২ ০৮:৩৪575053
  • দমুকে থ্যাংকু কৌস্তভের লিংদুটো শেয়ার করার জন্য।
  • nina | 78.34.167.250 | ১৯ অক্টোবর ২০১২ ০৮:৪২575054
  • মন দিয়ে পড়ার মতন একটা টই অনেকদিন পর পেলাম-----সোসেন , দারুণ ইন্টারেস্টিং লাগছে।
  • siki | 132.177.209.175 | ১৯ অক্টোবর ২০১২ ০৮:৫১575055
  • অনেকদিন বাদে বেশ মন দিয় পড়ার মত একটা টই পড়ছি। সোসেন, গুজ্জব।

    আর ইয়ে, আমি বাংলা মিডিয়াম কিনা, তাই অভিযোজন এক কথায় বুঝে গেছিলাম। :) অ্যাডাপশন লেখার পর ইংরেজিটা মনে পড়ল।
  • ladnohc | 116.218.49.78 | ১৯ অক্টোবর ২০১২ ০৯:৪৩575056
  • প​ড়ছি মন দিয়ে।
    ক​য়েকটা পোশ্চেন করে ফেলি......
    ব্রেস্ট্/নিপ্ল্ কে কোনো অন্য স্তন্যপায়ীরা কি সেক্সুয়াল্ অর্গ্যান্ হিসাবে ডিল করে? ব্রেস্ট্ অর্গ্যাজ্ম্ কে কিভাবে ব্যাখ্যা করা হ​য়?
  • কল্লোল | 125.242.148.3 | ১৯ অক্টোবর ২০১২ ০৯:৫৫575057
  • আমার এট্টা কোশ্ন আছে। পুরুষ স্তনবৃন্তের কোন ব্যাবহার না থাকা সত্ত্বেও এটা রয়ে গেছে। লেজের মতো খসে যায় নি। তার মানে এটার এখনো কোন কাজ আছে। যৌন উদ্দীপক হিসাবে কাজ তো করেই। এছাড়া অন্য কোন কাজ আছে কি?
    বহুকাল আগে কোথাও পড়েছিলাম আদিমতম মানুষ শুধুই নারী ছিলো, যারা সন্তানধারণ ও স্তন্যপান করাতো। পরে পুরুষ প্রজাতির উদ্ভব হয়। পুরুষ স্তনবৃন্ত তারই সাক্ষী।
    সোসন - দুপহা দিও সময় হলে।

    এই একটা নো ননসেন্স টই হয়েছে। অধিকারী মানুষ লিখলে কতো সুন্দর হতে পারে, এই টইটা তার নিদর্শন। চলুক সোসন। আর হ্যাঁ, দেখা হলেই খাওয়া পাওনা রইলো।
  • ডিডি | 120.234.159.216 | ১৯ অক্টোবর ২০১২ ১০:১৬575058
  • সেই যে ডেসমন্ড মরিস লিখলেন। (দ্য নেকেড এপ/হিউম্যান জু/ ইন্টিমেট বিহেভিয়ার - কোনটা মনে পরছে না )

    নারীর স্তনের অমন স্ফেরিক্যাল চেহারা আর কোনো স্তন্যপায়ীদের নেই। সেক্ষের কারনেও আর কোনো প্রজাতিতে গন্য হয় না।

    মরিস বলেন এপ থেকে দু পেয়ে হলে মানুষের সেক্ষ পসিশনও বদলায়। তাই নিতম্বের মিমিক্রি হয়েছে স্তনে। টিটিলেশনের ব্যবস্থাও সে কারনে।

    মরিস বাবু মানুষের সেক্ষ নিয়ে এরম অনেক কথা বলেছেন;জন্তু জানোয়ার থেকে মানুষের - একটা কমপেরেটিভ ইতিহাস। সোসেন,তুমি পড়েছো নিশ্চয়ই।
  • b | 135.20.82.164 | ১৯ অক্টোবর ২০১২ ১১:১৮575059
  • নেকেড এপ এ ছিলো।
  • riddhiman | 118.218.136.234 | ১৯ অক্টোবর ২০১২ ১১:২১575060
  • শুধু বৃন্ত নয়, পুরো প্যাকেজ টাই কিছু লাকি পুরুষ পেয়ে থাকেন। বাংলাতে একে বাবাই বলে । তাপস পাল, জর্জ বেকার, ও আরো কীর্তিমান পুরুষদের বাবাই আছে। বাবাই রেভলুশানরি বাই-প্রোডাক্ট । বুকের ভেতর অবক্ষয় আর সংশোধনবাদ দানা বাঁধলে বাবাই গজায়। বাবাই- কামড় মেয়েরা খেতে আর ছেলেরা খাওয়াতে ভালবাসে। তবু বাবাই-এনভি নিয়ে রিসার্চ বলতে প্রায় কিছুই হয়নি । 'বুড়ো' আর 'বাবু'র পরেই 'বাবাই' বাঙ্গালী সমাজে সবচে জনপ্রিয় ডাকনাম।
  • sosen | 24.139.199.1 | ১৯ অক্টোবর ২০১২ ১২:১৪575061
  • ব্রেস্ট ডেভেলপমেন্ট নিয়ে অনেক সম্ভব অসম্ভব থিওরি আছে। সেকন্ডারী সেক্স অর্গ্যান হিসেবে এর ব্যবহার নিয়েও। দু-পয়সা দেব, কিন্তু এই লেখা টার সঙ্গে তা খুব একটা সম্পর্কিত নয়। অত রোমান্টিকও হবেক নাই। তা এখন ই বলব, না কি এই লেখা শেষ হলে বলব?
  • ডিডি | 120.234.159.216 | ১৯ অক্টোবর ২০১২ ১২:২৪575062
  • এখনই লেখো, না হলে পরেও লিখতে পারো। অথবা ধরো পরেই লিখলে, না হোক এখনই লিখে ফেলতে পারো।
  • sosen | 24.139.199.1 | ১৯ অক্টোবর ২০১২ ১২:২৬575064
  • মানে এখনি লিখি- এই তো! :D বেশ। ইট্টু টেইম দ্যান।
  • | 24.96.153.185 | ১৯ অক্টোবর ২০১২ ১২:৪১575065
  • না না পরেই লিখো। এখন যা লিখছ লেখো না বাপু।
  • sosen | 24.139.199.1 | ১৯ অক্টোবর ২০১২ ১২:৫৯575066
  • ক্যা কনফিউশন!

    :(
  • b | 135.20.82.164 | ১৯ অক্টোবর ২০১২ ১৩:১৪575067
  • এক দফা এক কাম যব্তক হোনা পুরা..

    এখন এটাই লিখুন।
  • sosen | 24.139.199.1 | ১৯ অক্টোবর ২০১২ ১৩:২৪575068
  • যে কথা লিখছিলাম। এক বার মনে করিয়ে দিই আপাতত আমাদের অবস্থান :
    ১) আমরা দেখলাম, ধর্ষণ এবং গণ ধর্ষণ শুধুমাত্র মানুষ করে, এটা ঠিক নয়। প্রকৃতির বিভিন্ন সন্ততিতেই এই ধর্ম দেখা যায়।কখনো কখনো এই ধর্ম বিশেষ আকৃতিগত অঙ্গের সাহায্য নেয়। মনে রাখা দরকার, বলপ্রয়োগ না করে স্বাভাবিক মিলনের ক্ষেত্রে এই সব বিশেষ আকৃতির অঙ্গের প্রয়োজন পড়ত না। বিবর্তনের মধ্য দিয়ে বেঁচে থাকা এই সব অঙ্গ , অতএব, পুরুষ প্রাণীর পক্ষে সুবিধাজনক, এবং নির্বাচিত।
    ২) যে সব পশুকুলে এই বিশেষ ব্যবহার রয়েছে, তাদের নারীদের মধ্যে কিছু কিছু রেজিস্ট্যান্স মেকানিজম তৈরী হয়েছে। তাদের দেহ বিভিন্ন ভাবে ধর্ষণ থেকে নিজেদের বাঁচাবার পথ খুঁজে নিয়েছে। সেই পন্থাগুলি নারীদের পক্ষে সুবিধাজনক, অতএব নির্বাচিত।
    ৩) এই সমস্ত এনাটমিগত বৈশিষ্ট্য তৈরী করার জন্য নতুন জিন ও মেটাবলিক পাথ ওয়ে তৈরির প্রয়োজন পড়েছে। এনার্জি ক্ষয় হয়েছে, যাকে আমরা বলব কস্ট অফ অ্যাডাপ্টেশন। মনে রাখতে হবে, নিতান্ত অপ্রয়োজনে প্রকৃতি কোন অঙ্গের গঠনে শক্তিক্ষয় করেনা। সুতরাং, নারী ও পুরুষের মধ্যে বিবর্তনের ধারায় এই যুদ্ধ যে কোনো স্পেসিস কে বাঁচিয়ে রাখার জন্য জরুরি ছিল। নতুবা একটি জেন্ডার বাঁচত, অন্যটি ক্রমশ লোপ পেত, প্রজন্ম গুণগত ভাবে দুই স্পেসিসের মধ্যে যুদ্ধে হেরে যেত।
    বলতে পারি, সেক্সুয়াল কনফ্লিক্ট, অর্থাৎ যৌনতাকে কেন্দ্র করে স্ত্রী ও পুরুষের মধ্যে হিংসার ইতিহাস মানুষে শুরু নয়, এবং স্পেসিসের ক্ষেত্রে detrimental নয়। কিন্তু, আলাদা করে স্ত্রী ও পুরুষ একটি দাম দিচ্ছে, স্পেসিসের স্বার্থে নিজেদের শারীরিক ও মানসিক স্বার্থকে বিপন্ন করছে। স্বার্থপর জিন, কোনো নতুন কথা নয়।
  • sosen | 24.139.199.1 | ১৯ অক্টোবর ২০১২ ১৪:৩৩575069
  • এবার মানুষের কথা ভাবতে হয়। ধর্ষণ নিয়ে কে-ই বা মাথা ঘামাত, যদি মানুষ না থাকত।
    সব প্রাইমেটের মধ্যে যৌনতার ইতিহাসে মানুষের একটি বিশেষ স্থান আছে, কয়েকটি ধর্মের কারণে।

    ১) মানুষ মনোগ্যামাস পেয়ার বন্ডিং এ উত্সাহী।শুধু এটুকু হলেই অবশ্য স্পেশাল হত না, কারণ মনোগ্যামাস ওয়ান টু ওয়ান বন্ডিং পাখিদের মধ্যেও বেশ মেলে। মনোগ্যামাস পেয়ার বন্ডিং আমরা তাকেই বলব, যেখানে দুটি প্রাণী একত্রে বসবাস করার চেষ্টা করে, নিজের সংগ্রহ করা খাবার সঙ্গীকে দেয়, এবং সঙ্গীকে প্রটেক্ট করে, যৌন মিলনের সময় ছাড়াও। তা ছাড়াও পুরুষ/নারী প্রাণীর সন্তানের প্রতি বন্ডিং ও এর মধ্যে ইনক্লুড করা হবে, কিন্তু সে প্রসঙ্গে আমরা পরে বিশদে আসবো।
    মনোগ্যামাস পেয়ার বন্ডিং এর মধ্যে সমকামী সম্পর্ক আসবে। ব্ল্যাক সোয়ান, হাতি, জিরাফ, বোতলনাসা ডলফিন ইত্যাদি বেশ কিছু প্রাণীকে সমকামী এসোসিয়েশন-এ (শুধুমাত্র ব্যবহার/প্র্যাকটিস নয়) আসতে দেখা যায়। অনেক সময়েই পশু সমকামী দম্পতিরা অন্য দম্পতির ডিম বা শিশু চুরি করে বা ছিনিয়ে এনে পালন করে। অনেকেই স্বল্প সময়ব্যাপী উভকামী সম্পর্কে ব্যাপৃত হয়।
    [সমকামী সম্পর্কের বিশদে না গিয়েও এখানে দুটি পয়েন্ট হাই লাইট করি -ক) লক্ষ্য করুন, সমকামী সম্পর্কের নিজস্ব বিবর্তনগত সুবিধা। দুই মেট এর মধ্যে কনফ্লিক্ট নেই।একে অন্যকে আঘাত করার চেষ্টা করেনা।
    খ) অসুবিধা- একে অন্যের সন্তান ধারণে অক্ষমতা, ফলত: অন্য উভকামী সম্পর্কের সাহায্য না নিলে জিনের গতি হবে রুদ্ধ। ]

    ২) মানুষের বন্ডিং সিজনাল নয়। অর্থাৎ, এক মিলন-ঋতুতে আমার পার্টনার এক , অন্য মিলন-ঋতুতে আর একজন, এরকম হয়না। পশুপাখিদের বন্ডিং এক মিলন-ঋতু থেকে দ্বিতীয়টিতে প্রায়শই যায়না, নারীদের মনোগ্যামি ও ওই এক ঋতুর জন্য।

    ৩) প্যাটার্নাল বন্ডিং। আরে মা শিশুকে আগলাবে তো বটেই। কিন্তু বাবা ও শিশুর দীর্ঘস্থায়ী বন্ধন, শিশুর যত্নে বাবার দীর্ঘ অংশগ্রহণ অন্যান্য স্পেসিস এ বিরল।এটাকে যদি একটা বিহেভিয়ারাল অ্যাডাপ্টেশন ধরি, এক্ষেত্রে কস্ট এন্ড বেনিফিট অফ অ্যাডাপ্টেশন কি সেটা জানতে হবে। তবে এজন্য কিছু মডেল আছে , যেমন পেংগুইন, যেমন হামিং বার্ড, যেমন সেলার মাকড়সা।

    ৪) কনসেপ্ট অফ অর্গ্যাজম এবং নন- রিপ্রোডাক্টিভ সেক্স : অর্গ্যাজম যৌনতার সেই অংশকে চিহ্নিত করে, যা কিনা প্রজননের সাথে আদৌ সম্পর্কিত নয়। এখন পশুদের অর্গ্যাজম সম্পর্কে তেমন কোনো তথ্য আমাদের কাছে নেই। অল্পবিস্তর আছে, যা আমি পরে বলব। শুধু এইটুকু খেয়াল রাখা যাক, পশুরা যৌন মিলনের সময় সন্তানার্থে মিলিত হচ্ছে এমন কোনো কথা ভেবে মিলিত হয়না বলেই মনে হয়। অর্থাৎ, রিপ্রোডাক্টিভ সেক্স বা সেক্স ফর প্লেজারের ফারাক করার এবং তাকে কন্ট্রোল করার পদ্ধতি তাদের অজ্ঞাত। সুতরাং সেক্স ও ফোরপ্লে করার সময় instinct ফর প্লেজার এন্ড হরমোনাল রিলিজ ছাড়া কোনো কিছুই তাকে ড্রাইভ করে না। তাদের অর্গ্যাজম কিভাবে হয় সেটা আমাদের অজ্ঞাত কিন্তু যদি অর্গ্যাজম ফুলফিলমেন্ট অফ সেক্সুয়াল ড্রাইভ হয়, তা পশুরা এচিভ করে, এবং সেকেন্ডারী সেক্সুয়াল উদ্দীপক-যথা ক্লিটরাল উদ্দীপনেও তা সম্ভব। শিম্পাঞ্জি ও রীস্যাস বানরে ক্লিটরাল উদ্দীপনেও দেখা গেছে তাদের হার্টবিট, রক্তচাপ ও নার্ভ সংবেদন যৌন মিলনের মত এক ই ভাবে বাড়ে, কিন্তু অর্গ্যাজম জানা কিঞ্চিত জটিল।

    এখানে এতক্ষণ ধরে বলে আসা একটি তত্ত্বকে আমরা আর একটু পরিষ্কার করে দেখতে পাচ্ছি-স্পেসিসের উদ্দেশ্য যদিও প্রজনন এবং রিপ্রোডাক্টিভ সেক্স ,ইন্ডিভিজুয়াল মানুষ /পশুর উদ্দেশ্য তা নাও হতে পারে। অর্থাৎ , স্পেসিসের বিবর্তনের ধারার সাথে ইন্ডিভিজুয়াল এর ব্যবহারের কনফ্লিক্ট থাকতে পারে। মানুষের মধ্যে এই তৃতীয় কনফ্লিক্ট অত্যন্ত প্রকট, স্ট্রাগল বিটুইন ইন্ডিভিজুয়াল এন্ড সোসাইটি।
  • quark | 24.139.199.1 | ১৯ অক্টোবর ২০১২ ১৪:৪৫575070
  • ২ নং পয়েন্ট (মানুষের বন্ডিং সিজনাল নয়) কি বিহেভিয়রাল/সোশিওলজিক্যাল অ্যাড্প্টেশন নাকি ফিজিওলজিক্যাল?
  • তাতিন | 132.252.251.244 | ১৯ অক্টোবর ২০১২ ১৫:১২575071
  • কল্লোলদা, ল্লয়েড-এর একটা পেপারের লিংক দিয়েছিলাম আগে। সেখানে পুরুষের স্তন নিইয়ে একটা হাইপোথিসিস আছে- যেহেতু একই গর্ভে সিমিলার ভ্রুনাবস্থা থেকে পুরুষ ও নারী জন্মায়, ইভলিউশন পদ্ধতি তাদের মধ্যে কিছু মিল রেখে দিয়েছে। নারীর স্তন দরকার, সেহেতু পুরুষ ভ্রূণেও একটা পর্যায়ে স্তনগ্রন্থি তৈরি হয়েছে। কারণ একই রকম ভ্রূণ থেকে দু ধরণের মানুষ/জীব আসবে।
    ল্লয়েডের মতে অরগ্যাজম ব্যাপারটাও নাকি সেরকম। বংশবিস্তারের জন্য পুরুষের অরগাজমিক ইন্সেন্টিভ লাগে, নাহলে সে বলপ্রয়োগ করে নারীকে সঙ্গমমে বাধ্য করবেনা। সেইজন্য, প্রাণির শরীরে অরগ্যাজম তৈরি করার পদ্ধতিতে নারীকেও কিছুটা অরগ্যাজম-ক্ষম করে ফেলতে হয়েছে। মেয়েদের জন্য অরগ্যাজমকে 'অ্যাডেড এক্সট্রা অ্যাডভান্টেজ' বলেছেন লয়েড
  • b | 135.20.82.164 | ১৯ অক্টোবর ২০১২ ১৫:২০575072
  • সোশেন যদি আরেকটু দু পয়্সা দেনঃ মানুষ ছাড়া অন্য প্রায় সব প্রাণীর-ই একটি নির্দিষ্ট মেটিং সিজন আছে। এর কারণ কি?
  • sosen | 24.139.199.1 | ১৯ অক্টোবর ২০১২ ১৬:৩০575073
  • quark , মানুষের বন্ডিং সিজনাল নয় -সেটা অ্যাডাপ্টেশন, কিন্তু কমপ্লেক্স অ্যাডাপ্টেশন , অনেক কম্পোনেন্ট আছে। একটু পরে সেটায় আসছি। বি , মানুষের মেটিং সিজনাল নয়, তার কারণ ইস্ট্রাস সাইকল-যে সময় নারীরা সেক্সুয়ালি রিসেপটিভ হয়। ওই সময় ওভারিয়ান ফলিকল পরিণত হয়, ডিম্বাণু পরিণত হয় এবং ইস্ট্রোজেন সবচেয়ে বেশি থাকে। মানুষের ক্ষেত্রে এই ফেজ প্রতি আঠাশ দিনে ঘুরে ঘুরে আসে। ওই সময় নারী রিসেপটিভ থাকে, এবং সফল মিলনের হার ও বাড়ে। আবার ভালুক, শিয়াল বা নেকড়ে র ক্ষেত্রে বছরে একবার আসে। আবার খরগোশ সর্বসময় ইস্ট্রাস, খুব ছোট সাইকল।

    এই সাইকলের দৈর্ঘ্য ডিপেন্ড করে গর্ভাবস্থায় যথেষ্ট খাবার পাওয়া যাচ্ছে কিনা, আবহাওয়া কি রকম, প্রিডেটর স্পেসিস চতুর্দিকে কেমন, মাইগ্রেশনের সময় এইসবের উপর। সাধারণত বছরের যে সময় কোনো স্পেসিসের জীবনযাত্রার সবচেয়ে ফেভারেবল সময় , সেই সময়ে তাদের ইস্ট্রাস সাইকল চলে। ডোমেস্টি কেশন ইস্ট্রাস সাইকলকে কমিয়ে আনে। মানুষের জীবনে যেহেতু সিজনের বিশেষ কোনো প্রভাব নেই, তাই মেটিং সিজনাল নয়।
  • sosen | 125.184.60.118 | ১৯ অক্টোবর ২০১২ ২০:০৬575075
  • দুজনার পরিবার, কখন, কেন তৈরী হলো
    ____________________________

    মানুষের বিবর্তনের প্রথমদিকের মুশকিল ছিল পুরুষের। এখন, এতদিন (প্রাইমেটের আগে তো বটেই, পরেও ) নারী আদৌ প্রজননের জন্য সঠিক সময়ে পৌঁছেছে কিনা, বোঝা মুশকিল ছিলনা পুরুষ প্রাণীর পক্ষে। কেউ ফেরোমোন নি:সরণ করত(যেমন বাঘ)। কারো যৌনাঙ্গ ফুলে উঠত এবং রক্তাভ হয়ে উঠত (যেমন বেবুন)। কিন্তু লুকোনো ওভিউলেশন শুরু হওয়ায় পুরুষ পড়ল ভারী মুশকিলে। এতদিন সে সন্তানধারণের জন্য প্রস্তুত এমন রমণীকে ধর্ষণ ও করতে পারত, কিংবা সাময়িক পছন্দসই ব্যবহার করে রমণের সুযোগ পেতে পারত। মোদ্দা কথা , সঙ্গমে পার্শ্ববর্তী পুরুষটিকে হারাবার জন্য তার হিসেব ছিল সোজা সাপটা। যত পারো ripe নারীর সঙ্গে যৌন মিলন করতে হবে। ঐটুকু গুনলেই যথেষ্ট! কিন্তু এখন, সে তো আর বুঝতেই পারেনা কখন তার পছন্দের রমণী রিসেপটিভ। তাকে ধীরে ধীরে হয়ে পড়তে হচ্ছে নারীর সিগন্যালের উপর নির্ভরশীল। এদিকে, নারী মানুষ খুবই চালাক হয়ে উঠছে আজকাল। কনসিলড ওভিউলেশন তাকে নতুন adaptive সুবিধা দিল। সে পলিগ্যামাস হতেই পারে ইচ্ছামত, কার সন্তান ধারণ করবে সে তার নিজের ব্যাপার, কারণ নিজের ওভিউলেশন এর সময়টুকু এদিক ওদিক হিসেব করে সে বুঝে ফেলে। এই লস অফ এক্সটার্নাল সিগন্যাল ফর ফার্টিলিটি পুরুষকে মহা বিপদে ফেলল। আগের মত মাল্টিপল পার্টনার খুঁজে বেড়ানো, এবং তার পর আশা করা যে মিলনের সময় সে ফার্টাইল এ পদ্ধতি কাজ করছিল না। একেই নারী মানুষ ছোট্ট সময়ের জন্য ফার্টাইল, একটি দুটির বেশি সন্তান হয়না। সেই সন্তানেরাও বেজায় দুর্বল, যত্ন না করলে বাঁচেনা। রিপ্রোডাক্টিভ ফিটনেস বজায় রাখতে এবার প্রকৃতি পুরুষ মানুষকে তার এক অপছন্দের খেলায় ঠেলে দিল। শুরু হলো আদম ও ইভের গল্প। পুরুষ মাল্টিপল নারীর সঙ্গে সঙ্গমের ঝুঁকি না নিয়ে একটি নারীর সঙ্গে দীর্ঘ সময় ধরে বারংবার সঙ্গম শুরু করলো, এবং সন্তান জন্মের পরেও তাকে বাঁচানোর জন্য হাত লাগালো নারীর সাথে। গর্ভাবস্থায় নারীর সঙ্গে মিলন, সন্তান জন্মের পর সঙ্গম, এই সব কিছুতেই পেয়ার-বন্ডিং বাড়ে। এই সময় থেকে সেক্সুয়াল প্র্যাকটিসের মধ্যে স্তনবৃন্ত উদ্দীপন এলো। (এটা স্তনের উদ্ভবের গল্প নয়, সেইটা পরে বলব। ) স্তন শিশুকেই যে শুধু পুষ্টি দিল তা নয়, nipple fondling and sucking প্র্যাকটিসের মধ্যে দিয়ে পুরুষের শরীরে ঠেলে দিল এগ্রেসিভনেস কমানোর জন্য কয়েকটি হর্মোন, অক্সিটোসিন, প্রজেসটেরণ। প্রকৃতি পুরুষকে বদলানোর এই খেলায় কিছু কন্ট্রোল যোগ করলো। ইনিশিয়াল শিশু-পিতা বন্ডিং তৈরী করার জন্য, যখনই শিশুকে কোলে নিল পুরুষ, তার এই হর্মোন গুলি বাড়তে শুরু করলো।
    সোজা কথায়, মানুষের বিবর্তনের প্রথম ধাপে সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছিল রমনীকুল।

    কাজেই, সংসার সুখের হয় রমণীর গুণে, এ শুনে নারীবাদীদের রেগে যাওয়ার কোনো কারণ দেখিনে।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। যা মনে চায় প্রতিক্রিয়া দিন