সুকান্ত ঘোষ RSS feed

নিজের পাতা

কম জেনে লেখা যায়, কম বুঝেও!

আরও পড়ুন...
সাম্প্রতিক লেখালিখি RSS feed
  • লাল ঝুঁটি কাকাতুয়া
    -'একটা ছিল লাল ঝুঁটি কাকাতুয়া।আর ছিল একটা নীল ঝুঁটি মামাতুয়া।'-'এরা কারা?' মেয়েটা সঙ্গে সঙ্গে চোখ বড়ো করে অদ্ভুত লোকটাকে জিজ্ঞেস করে।-'আসলে কাকাতুয়া আর মামাতুয়া এক জনই। ওর আসল নাম তুয়া। কাকা-ও তুয়া বলে ডাকে, মামা-ও ডাকে তুয়া।'শুনেই মেয়েটা ফিক করে হেসে ...
  • স্টার্ট-আপ সম্বন্ধে দুচার কথা যা আমি জানি
    স্টার্ট-আপ সম্বন্ধে দুচার কথা যা আমি জানি। আমি স্টার্ট-আপ কোম্পানিতে কাজ করছি ১৯৯৮ সাল থেকে। সিলিকন ভ্যালিতে। সময়ের একটা আন্দাজ দিতে বলি - গুগুল তখনও শুধু সিলিকন ভ্যালির আনাচে-কানাচে, ফেসবুকের নামগন্ধ নেই, ইয়াহুর বয়েস বছর চারেক, অ্যামাজনেরও বেশি দিন হয়নি। ...
  • মৃণাল সেন : এক উপেক্ষিত চলচ্চিত্রকার
    [আজ বের্টোল্ট ব্রেশট-এর মৃত্যুদিন। ভারতীয় চলচ্চিত্রে যিনি সার্থকভাবে প্রয়োগ করেছিলেন ব্রেশটিয় আঙ্গিক, সেই মৃণাল সেনকে নিয়ে একটি সামান্য লেখা।]ভারতীয় চলচ্চিত্রের ইতিহাসে কীভাবে যেন পরিচালক ত্রয়ী সত্যজিৎ-ঋত্বিক-মৃণাল এক বিন্দুতে এসে মিলিত হন। ১৯৫৫-তে মুক্তি ...
  • দময়ন্তীর সিজনস অব বিট্রেয়াল পড়ে
    পড়লাম সিজনস অব বিট্রেয়াল গুরুচন্ডা৯'র বই দময়ন্তীর সিজনস অব বিট্রেয়াল। বইটার সঙ্গে যেন তীব্র সমানুভবে জড়িয়ে গেলাম। প্রাককথনে প্রথম বাক্যেই লেখক বলেছেন বাঙাল বাড়ির দ্বিতীয় প্রজন্মের মেয়ে হিসেবে পার্টিশন শব্দটির সঙ্গে পরিচিতি জন্মাবধি। দেশভাগ কেতাবি ...
  • দুটি পাড়া, একটি বাড়ি
    পাশাপাশি দুই পাড়া - ভ-পাড়া আর প-পাড়া। জন্মলগ্ন থেকেই তাদের মধ্যে তুমুল টক্কর। দুই পাড়ার সীমানায় একখানি সাতমহলা বাহারী বাড়ি। তাতে ক-পরিবারের বাস। এরা সম্ভ্রান্ত, উচ্চশিক্ষিত। দুই পাড়ার সাথেই এদের মুখ মিষ্টি, কিন্তু নিজেদের এরা কোনো পাড়ারই অংশ মনে করে না। ...
  • পরিচিতির রাজনীতি: সন্তোষ রাণার কাছে যা শিখেছি
    দিলীপ ঘোষযখন স্কুলের গণ্ডি ছাড়াচ্ছি, সন্তোষ রাণা তখন বেশ শিহরণ জাগানাে নাম। গত ষাটের দশকের শেষার্ধ। সংবাদপত্র, সাময়িক পত্রিকা, রেডিও জুড়ে নকশালবাড়ির আন্দোলনের নানা নাম ছড়িয়ে পড়ছে আমাদের মধ্যে। বুঝি না বুঝি, পকেটে রেড বুক নিয়ে ঘােরাঘুরি ফ্যাশন হয়ে ...
  • দক্ষিণের কড়চা
    (টিপ্পনি : দক্ষিণের কথ্যভাষার অনেক শব্দ রয়েছে। না বুঝতে পারলে বলে দেব।)দক্ষিণের কড়চা▶️এখানে মেঘ ও ভূমি সঙ্গমরত ক্রীড়াময়। এখন ভূমি অনাবৃত মহিষের মতো সহস্রবাসনা, জলধারাস্নানে। সামাদভেড়ির এই ভাগে চিরহরিৎ বৃক্ষরাজি নুনের দিকে চুপিসারে এগিয়ে এসেছে যেন ...
  • জোড়াসাঁকো জংশন ও জেনএক্স রকেটপ্যাড-১৪
    তোমার সুরের ধারা ঝরে যেথায়...আসলে যে কোনও শিল্প উপভোগ করতে পারার একটা বিজ্ঞান আছে। কারণ যাবতীয় পারফর্মিং আর্টের প্রাসাদ পদার্থবিদ্যার সশক্ত স্তম্ভের উপর দাঁড়িয়ে থাকে। পদার্থবিদ্যার শর্তগুলি পূরণ হলেই তবে মনন ও অনুভূতির পর্যায় শুরু হয়। যেমন কণ্ঠ বা যন্ত্র ...
  • উপনিবেশের পাঁচালি
    সাহেবের কাঁধে আছে পৃথিবীর দায়ভিন্নগ্রহ থেকে তাই আসেন ধরায়ঐশী শক্তি, অবতার, আয়ুধাদি সহসকলে দখলে নেয় দুরাচারী গ্রহমর্ত্যলোকে মানুষ যে স্বভাবে পীড়িতমূঢ়মতি, ধীরগতি, জীবিত না মৃতঠাহরই হবে না, তার কীসে উপশমসাহেবের দুইগালে দয়ার পশমঘোষণা দিলেন ওই অবোধের ...
  • ৪৬ হরিগঙ্গা বসাক রোড
    পুরোনো কথার আবাদ বড্ড জড়িয়ে রাখে। যেন রাহুর প্রেমে - অবিরাম শুধু আমি ছাড়া আর কিছু না রহিবে মনে। মনে তো কতো কিছুই আছে। সময় এবং আরো কত অনিবার্যকে কাটাতে সেইসব মনে থাকা লেখার শুরু খামখেয়ালে, তাও পাঁচ বছর হতে চললো। মাঝে ছেড়ে দেওয়ার পর কিছু ব্যক্তিগত প্রসঙ্গ ...


বইমেলা হোক বা নাহোক চটপট নামিয়ে নিন রঙচঙে হাতে গরম গুরুর গাইড ।

সুকান্ত ঘোষ প্রদত্ত সর্বশেষ দু পয়সা

<< লেখকের আরও নতুন লেখা      লেখকের আরও পুরোনো লেখা >> RSS feed

পারফিউম

এত প্রশ্ন আমাকে আগে কেউ করেছে কিনা আমার ঠিক মনে পড়ল না। সেই প্রশ্ন কর্তাদের লিষ্টে অন্তর্ভুক্ত আছেঃ

১। অ্যালাপ্যাথি ডাক্তার।

হোমিওপ্যাথি ডাক্তার নয় কিন্তু – তাদের আবার বিরাট রেঞ্জের প্রশ্ন ক্ষেপণের স্বভাব আছে। আমাদের নিমো বাস স্ট্যান্ডের নারাণ ডাক্তার আমার লাইফ প্রশ্নবাণে যাকে বলে জর্জরিত করে দিয়েছিল একবার। সেবার ডান হাতের তর্জনীর তালুর দিকে একটা কি ফোঁড়ার মতন হল – মাল আর ফাটছে না, এদিকে উইকেট কিপিং করতে গিয়ে দেদার লাগছে। বেশ ভজকট অবস্থা। বাপকে বলতেও পারছি না যে কিপিং করতে অসুব

ক্রিকেট

১।

সেলিব্রিটি পাবলিকদের মাঝে মাঝে সাংবাদিকরা ইন্টারভিউ নেবার সময় গুগলি প্রশ্ন দেবার চেষ্টা করে। তেমনি এক অখাদ্য গুগলি টাইপের প্রশ্ন হল, আপনি জীবনে সবচেয়ে বড় কমপ্লিমেন্ট কি পেয়েছেন এবং কার কাছ থেকে। বলাই বাহুল্য আমি বিখ্যাত কেউ নেই, তাই আমাকে এই প্রশ্ন কেউ করে নি। কিন্তু আমি নিজে নিজেকে অনেক করেছি সেই জিজ্ঞাসা।

প্রচন্ড ভেবে ভেবে দেখা গেল - লাইফে কমপ্লিমেন্ট পাবার মতন তেমন কিছু তো করি নি! অবশ্য ক্লাস সেভেন থেকে প্রায় টুয়েলভ পর্যন্ত কার্তিক, চঞ্চল সহ অনেক জনতাকে দায়িত্ব নিয়ে ইংরাজ

তাতেও কোন সমস্যা হয় নি কোনদিন

গরমের দিনে মাটির কলসী, শীতের দিনে আসকে পিঠে বানাবার মাটির সড়া, সরুচাকলীর তাওয়া, সর্বসময়ের ধুনুচী, পুজোর সিজিনের ঘট, মোচ্ছবের – হব্যিষ্যির মালসা ইত্যাদি নানা মাটির জিনিসের ওয়ান স্টপ শপ্‌ আমাদের গ্রামে ছিল রশিদ চাচার দোকান। চাচার বাড়ির কাঠামো ছিল অনেকটা প্যারিসের ল্যুভের মিউজিয়ামের মত, মানে তিন দিক খোলা, একদিক ফাঁকা – আর যে তিন দিক ঘেরা তার দুই দিকে যথাক্রমে পুরানো এবং নতুন বাড়ি এবং একদিকে পাঁচিল। বাকি খালি দিকে রইল গিয়ে জুঙ্গিতে নামক এক দীঘি এবং চাচার অন্দর মহলের অপার রহস্য। এমন নয় যে চাচার অনেক

কম্প্যানি কোম্পানি কনফারেন্স

নব্বই এর দশকে “শাসো কি জরুরত হ্যা জ্যায়সে...” এবং “ইয়ে কালে কালে আঁখে...” এই দুই যুগান্তকারী ঢেঊয়ের মধ্যবর্তী কোন এক সময়ে আমাদের সাথে পরিচয় হয় ‘ক্যালোরি’ নামক জিনিসটির। তবে সেই ক্ষণে ক্যালোরির অর্থ আমাদের কাছে নিতান্তই আক্ষরিক ছিল – শক্তির একক হিসাবে। আরো খুলে বলতে গেলে যান্ত্রিক শক্তি কেবলমাত্র। পড়াশুনার গন্ডির বাইরে এই ক্যালোরি জিনিসটি নিয়ে যে নাড়াঘাঁটা করতে হতে পারে ভবিষ্যতে, সেই ভাবনা আমাদের কল্পনাতেও আসে নি। তবে কিনা ট্রুথ ইজ স্ট্রেঞ্জার দ্যান ফিকশন এই প্রবাদবাক্য মেনে অভিজ্ঞতা হল যে খাবার

ফোর-ফোর-টু

আমরা প্রফেশনাল জীবনে কতটা ‘স্বাধীন’, তার কবল থেকে আমাদের ‘মুক্তি’র সংজ্ঞা কি ইত্যাদি ইত্যাদি চর্বিত চর্বণ আলোচনার প্রায় শেষের দিকে এসে সেদিন হঠাৎ করে কয়েক বছর আগে পড়া জনাথন উইলসন-এর (মূলত ক্রীড়া সাংবাদিক) একটি লেখার কথা মনে পড়ে গেল। আপাত দৃষ্টিতে আমাদের শুরুর আলোচনার সাথে ফুটবলের কোন সম্পর্ক ছিল না - কিন্তু কোথা থেকে কি হয়ে গেল – আমার মাথার মধ্যে ‘মুক্তি’ কথাটি গাঁথল এবং তার সাথে প্রফেশনাল জুড়ে থাকার জন্য মনটা হঠ করে ফুটবল-ফুটবল করে আনচান করে উঠল!

জনাথনের ততদিনে বেশ নামডাক হয়ে গেছে ফুট

ক্যেয়া ইয়ে ক্ষীর হ্যায়?

ঘুরে ফিরে আবার সেই সরস্বতী পূজো চলে এলো। ইস্কুল জীবন শেষ হবার পর বিশেষ একটা মাথা ঘামাই নি কবে বা কিভাবে সরস্বতী পূজা হবে সেই সব নিয়ে। পূজো বিষয়ে আমার জীবনের রেফারেন্স পয়েন্ট ছিল বলতে গিয়ে দূর্গা পূজা। দেশে কবে ফিরব এবং দেশ থেকে কবে আবার বিদেশে ফিরে যাব, কেনাকাটা কবে হবে, কার সাথে দেখা হবে – সেই সবই মাপা হত সপ্তমী বা দশমীর দিন থেকে। এর প্রধান কারণ ছিল আমার বাড়িতে দূর্গা পূজো হওয়া। ওই এক সময় গেলে সবার সাথে দেখা – বৃহত্তর পরিবারের আরো বিস্তৃত আত্মীয় পরিজনের সাথে দেখা করতে গেলে তার থেকে ভালো সুযোগ আ

যে শহরে আমি বেমানান

আমি তখন নিজের শহর খুঁজে বেড়াচ্ছি। আমার শহরে একটা নদী থাকবে, অসংখ্য গাছ, বৃষ্টিভেজা পাখিরা জানালার কার্ণিশে এসে বসবে, রোদ ঝলমলে দিনে নদীর পাশ দিয়ে হাঁটতে বেড়ানো যাবে আর তৃষ্ণা পেলে ঢেউ খেলানো জলের দিকে মুখ করে বসানো চেয়ারের একটা কফির দোকান থেকে নিয়ে নেওয়া যাবে পছন্দের কাগজের কাপ – আরো অনেক কিছু – শহর আমাকে নষ্টালজিক করে তুলবে –

নষ্টালজিক কাকে বলে? আমার তো কোন শহর ছিল না কোন দিন – তাহলে শহর কি করে আমাকে ফিরিয়ে দেবে নষ্টালজিয়া? আমি ঠিক জানি না – নাকি আমি প্রকৃত অর্থে জানিই না যে নষ্টালজিয়া

ভোজ-পুজো অথবা পুজো-ভোজ

ইস্কুলের সেক্রেটারীর কি মাহাত্ম্য সে বোঝার বয়স তখনো হয় নি, কিন্তু পটল বিষয়ীর মহিমা বোঝার মত বয়স হয়ে গিয়েছিল। সবে আনন্দমার্গ ইংরাজী মিডিয়াম স্কুলে প্রাথমিক শিক্ষা শেষ করে মেমারী বিদ্যাসাগর স্মৃতি বিদ্যামন্দিরে ক্লাস ফাইভে ঢুকেছি – সেক্রেটারী কি জিনিস জানা নেই – পটল বিষয়ীকে চিনি না। এমন অবস্থায় দুরদার করে চলে এল হাইস্কুলে আমার প্রথম সরস্বতী পুজো আর তখনি একদিন দুম্‌ করে সেক্রেটারী পটল বিষয়ীর ব্যাপারটা ক্লীয়ার হয়ে গেল। এক সিনিয়ার দাদা ফিসফাস করে আমাদের জানালো পটল বিষয়ীর সেক্রেটারী রয়ে যাবার পিছনে মূ

সড়া অন্ধ অছি

বেশ কিছু বছর আগে Dateline NBC কতৃপক্ষ তাদের প্রতিবেদক যোস ম্যানকিউিজ ডেকে বলল, খুড়ো, একটা স্টোরী যে তোমাকে বানাতে হবে – এবং এমন ভাবে বানাতে হবে যাতে পাবলিক হালকা চমকে বলে ওঠে তাই তো, তাইতো এবং আলতো করে বলে কি দিলে গুরু! যোস খুড়ো ভাবছেন এবং ভাবছেন কি স্টোরী করা যায় – একদিন সন্ধ্যাবেলা বাড়িতে টিভিতে সিনেমা দেখতে বসে ইউরেকা বলে চিৎকার করে উঠলেন। গিন্নী ‘ইউরেকা’ শব্দ শুনে ছুটে এসে প্রথমেই এসশিওর করে নিলেন যোসে দিগম্বর কিনা – তারপর বাতচিৎ করে বুঝতে পারলেন এই ইউরেকার কারণ তিনি টপিক খুঁজে পেয়েছেন স্টোর

সাহেব

সামাদ সাহেবের কাছে ওই বইটা থাকার কোন কথাই ছিল না – অন্তত তেমনটাই অনেক দিন পরে ভাবতে বসে যুক্তিজাল বিছিয়ে দেখেছি। অথচ তখন এমন কিছু অসম্ভব লাগে নি ব্যাপারটা বা অন্যভাবে বলতে গেলে এই সব নিয়ে ভাবার কোন সময় ছিল না আমাদের। এর থেকে বরং ময়রাদের চাঁদু যখন সাহেবের কোন এক আলমারীর ঘোঁজ থেকে এক পিস ডেবোনিয়ার ম্যাগাজিন উদ্ধার করল – ব্যাপারটা অনেকটা স্বাভাবিক এবং সঙ্গতিপূর্ণ বলেই আমারা রায় দিয়েছিলাম।

নিমো স্টেশন থেকে নেমে ‘ঠাকুরঝি’ নামক পুকুর পাড় দিয়ে হেঁটে গ্রামে ঢোকার ঠিক সামনের বাড়িটাই সামাদ সাহেবে
<< লেখকের আরও নতুন লেখা <<     >> লেখকের আরও পুরোনো লেখা >>

এদিক সেদিক যা বলছেনঃ

19 Dec 2017 -- 07:24 PM:মন্তব্য করেছেন
অনেক দিন লেখা হয় না এটা - আজকে সপ্তম পর্ব দিলাম। হয়ত কেউ কেউ এখনো ফলো করছেন -
05 Jan 2016 -- 02:39 PM:মন্তব্য করেছেন
আরে, আমি তো জানতমই না যে গুরুচণ্ডালিতে বোম্বে-হাই তে বসে পড়ার লোকও আছে! ভালো থাকবেন নির - আচ্ছে দিন ...
04 Jan 2016 -- 02:42 PM:মন্তব্য করেছেন
অমিতাভদা, পড়ার জন্য অনেক ধন্যবাদ - রেফারেন্স দরকার হলে অবশ্যই জানাবো - কিছু ভুল ভাল লিখল ...
28 Dec 2015 -- 05:03 PM:মন্তব্য করেছেন
অনেক দিন পর আপডেট করলাম - জানিনা কেউ পড়ছেন কিনা, তবুও দিয়ে রাখলাম
26 Aug 2015 -- 05:07 PM:মন্তব্য করেছেন
দ এবং sinfaut, অনেক ধন্যবাদ। আর ধন্যবাদ বইটির খোঁজ দেবার জন্য। এটা আমার কাছে ...
23 Aug 2015 -- 10:25 AM:মন্তব্য করেছেন
যাঁরা পড়ছেন তাঁদের অনেক ধন্যবাদ। একক, আপনি ঠিকই বলেছেন - প্রভব হয়ত পড়েছেই। আমার লে ...
18 May 2015 -- 01:48 PM:মন্তব্য করেছেন
b-বাবু, d-বাবু এঁরা সবাই ঠিকই বলছেন - তপন বাবুর বই "রোমন্থন অথবা -" এর নতুন সংস্করণে এমন একটি প্রবন্ ...
13 May 2015 -- 04:10 PM:টইয়ে লিখেছেন
এই থোড়-বড়ি-খাড়া আর বড়ি-খাড়া-থোড় আলোচনা আর কত দিন চলবে? সেই এক জিনিস! হীরকের রানী ভগবান থ্রেডের আলোচন ...
13 May 2015 -- 04:07 PM:মন্তব্য করেছেন
ভালো লাগল
13 May 2015 -- 04:06 PM:মন্তব্য করেছেন
আরে অমিতাভদা, লেয়ার বাই লেয়ার সেটা তো উল্লেখ করেছি। কিন্তু পরিবেশন এর সময় তো আর লেয়ার বাই লেয়ার করা ...
29 Apr 2015 -- 04:19 PM:মন্তব্য করেছেন
আরে অমিত কি আমাদের অমিতাভদা নাকি? ব্রুনাই আর মালয়েশিয়ার মাঝখানে সেই মদের দোকানের ঠিক সামনে ...
24 Apr 2015 -- 06:05 PM:মন্তব্য করেছেন
সকলকে ধন্যবাদ পড়ার আর আরো বেশী তত্থ্য যোগানোর জন্য। ন্যাড়াদা, কোথায় আবার ফাটতে দেখলেন!
10 Nov 2014 -- 03:39 PM:মন্তব্য করেছেন
সবাইকে ধন্যবাদ লেখা পড়ার জন্য। ন্যাড়া (দা), আসলে লেখা হয়ে উঠছে না। আর লেখা হলেও টাইপ করার ...
05 Sep 2014 -- 05:13 PM:মন্তব্য করেছেন
আপনার লেখা খুব ভালো লাগে - ঠিক বর্ণনা করতে পারবো না, তবে আপনার লেখাতে যেন এক ধরণের কবিত্ব লুকানো থাক ...
08 Jun 2014 -- 07:45 AM:মন্তব্য করেছেন
সংখ্যার 'আবিষ্কার' বা 'উদ্ভব' নিয়ে অনেকে বললেন - অনেক কিছু নতুন জানতে পারলাম। N কিছু লিখলেন প্লেটোনি ...
07 Jun 2014 -- 11:10 AM:মন্তব্য করেছেন
আর একটি বিখ্যাত কবিতা - নাম "যুক্ত সমীকরণ" "যে কোন গণিতসূত্র নিয়ে তার পরিবর্তীদের বাঁ ...
07 Jun 2014 -- 11:00 AM:মন্তব্য করেছেন
স্পুতনিক গাণিতিক কবিতার দাবি করেছেন - একটি বিখ্যাত কবিতা নীচে দিলাম, নাম "ভারতীয় গণিত"" "ক্ ...
01 Jun 2014 -- 05:34 PM:মন্তব্য করেছেন
কল্লোলদা, অভিক, শুদ্ধসত্ত্ব, ঈশান, সৌভিক, শ্রী সদা সহ আরো যারা উৎসাহ দিলেন সবাইকে ধন্যবাদ। N আর T কে ...
01 Jun 2014 -- 09:53 AM:মন্তব্য করেছেন
খুব সুন্দর আলোচনা হচ্ছে - অনেক কিছু জানতে পারছি। আরো বুঝতে পারছি যে গলদ জায়গায় খাপ খুলেছি - ...
31 May 2014 -- 04:37 PM:মন্তব্য করেছেন
যেহেতু আমি গণিত নিয়ে পড়ি নি তাই 'N' এর প্রশ্নের উত্তর দেবার এক্তিয়ার আমার নেই - তবে সূত্র সিলেকটিভ র ...