Animesh Baidya RSS feed

[email protected]
নিজের পাতা

Animesh Baidyaএর খেরোর খাতা।

আরও পড়ুন...
সাম্প্রতিক লেখালিখি RSS feed
  • ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা... বাংলাদেশের রাজনীতির গতিপথ পরিবর্তন হওয়ার দিন
    বিএনপি এখন অস্তিত্ব সংকটে আছে। কিন্তু কয়েক বছর আগেও পরিস্থিতি এমন ছিল না। ক্ষমতার তাপে মাথা নষ্ট হয়ে গিয়েছিল দলটার। ফলাফল ২০০৪ সালের ২১ আগস্টে তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেত্রী শেখ হাসিনাকে গ্রেনেড মেরে হত্যার চেষ্টা। বিরোধীদলের নেত্রীকে হত্যার চেষ্টা করলেই ...
  • তোমার বাড়ি
    তোমার বাড়ি মেঘের কাছে, তোমার গ্রামে বরফ আজো?আজ, সীমান্তবর্তী শহর, শুধুই বেয়নেটে সাজো।সারাটা দিন বুটের টহল, সারাটা দিন বন্দী ঘরে।সমস্ত রাত দুয়ারগুলি অবিরত ভাঙলো ঝড়ে।জেনেছো আজ, কেউ আসেনি: তোমার জন্য পরিত্রাতা।তোমার নমাজ হয় না আদায়, তোমার চোখে পেলেট ...
  • বার্সিলোনা - পর্ব ২
    বার্সিলোনা আসলে স্পেনের শহর হয়েও স্পেনের না। উত্তর পুর্ব স্পেনের যেখানে বার্সিলোনা, সেই অঞ্চল কে বলা হয় ক্যাটালোনিয়া। স্বাধীনদেশ না হয়েও স্বশাসিত প্রদেশ। যেমন কানাডায় কিউবেক। পৃথিবীর প্রায় সব দেশেই মনে হয় এরকম একটা জায়গা থাকে, দেশি হয়েও দেশি না। ...
  • বার্সিলোনা - পর্ব ১
    ঠিক করেছিলাম আট-নয়দিন স্পেন বেড়াতে গেলে, বার্সিলোনাতেই থাকব। বেড়ানোর সময়টুকুর মধ্যে খুব দৌড় ঝাঁপ, এক দিনে একটা শহর দেখে বা একটা গন্তব্যের দেখার জায়গা ফর্দ মিলিয়ে শেষ করে আবার মাল পত্তর নিয়ে পরবর্তী গন্তব্যের দিকে ভোর রাতে রওনা হওয়া, আর এই করে ১০ দিনে ৮ ...
  • লাল ঝুঁটি কাকাতুয়া
    -'একটা ছিল লাল ঝুঁটি কাকাতুয়া।আর ছিল একটা নীল ঝুঁটি মামাতুয়া।'-'এরা কারা?' মেয়েটা সঙ্গে সঙ্গে চোখ বড়ো করে অদ্ভুত লোকটাকে জিজ্ঞেস করে।-'আসলে কাকাতুয়া আর মামাতুয়া এক জনই। ওর আসল নাম তুয়া। কাকা-ও তুয়া বলে ডাকে, মামা-ও ডাকে তুয়া।'শুনেই মেয়েটা ফিক করে হেসে ...
  • স্টার্ট-আপ সম্বন্ধে দুচার কথা যা আমি জানি
    স্টার্ট-আপ সম্বন্ধে দুচার কথা যা আমি জানি। আমি স্টার্ট-আপ কোম্পানিতে কাজ করছি ১৯৯৮ সাল থেকে। সিলিকন ভ্যালিতে। সময়ের একটা আন্দাজ দিতে বলি - গুগুল তখনও শুধু সিলিকন ভ্যালির আনাচে-কানাচে, ফেসবুকের নামগন্ধ নেই, ইয়াহুর বয়েস বছর চারেক, অ্যামাজনেরও বেশি দিন হয়নি। ...
  • মৃণাল সেন : এক উপেক্ষিত চলচ্চিত্রকার
    [আজ বের্টোল্ট ব্রেশট-এর মৃত্যুদিন। ভারতীয় চলচ্চিত্রে যিনি সার্থকভাবে প্রয়োগ করেছিলেন ব্রেশটিয় আঙ্গিক, সেই মৃণাল সেনকে নিয়ে একটি সামান্য লেখা।]ভারতীয় চলচ্চিত্রের ইতিহাসে কীভাবে যেন পরিচালক ত্রয়ী সত্যজিৎ-ঋত্বিক-মৃণাল এক বিন্দুতে এসে মিলিত হন। ১৯৫৫-তে মুক্তি ...
  • দময়ন্তীর সিজনস অব বিট্রেয়াল পড়ে
    পড়লাম সিজনস অব বিট্রেয়াল গুরুচন্ডা৯'র বই দময়ন্তীর সিজনস অব বিট্রেয়াল। বইটার সঙ্গে যেন তীব্র সমানুভবে জড়িয়ে গেলাম। প্রাককথনে প্রথম বাক্যেই লেখক বলেছেন বাঙাল বাড়ির দ্বিতীয় প্রজন্মের মেয়ে হিসেবে পার্টিশন শব্দটির সঙ্গে পরিচিতি জন্মাবধি। দেশভাগ কেতাবি ...
  • দুটি পাড়া, একটি বাড়ি
    পাশাপাশি দুই পাড়া - ভ-পাড়া আর প-পাড়া। জন্মলগ্ন থেকেই তাদের মধ্যে তুমুল টক্কর। দুই পাড়ার সীমানায় একখানি সাতমহলা বাহারী বাড়ি। তাতে ক-পরিবারের বাস। এরা সম্ভ্রান্ত, উচ্চশিক্ষিত। দুই পাড়ার সাথেই এদের মুখ মিষ্টি, কিন্তু নিজেদের এরা কোনো পাড়ারই অংশ মনে করে না। ...
  • পরিচিতির রাজনীতি: সন্তোষ রাণার কাছে যা শিখেছি
    দিলীপ ঘোষযখন স্কুলের গণ্ডি ছাড়াচ্ছি, সন্তোষ রাণা তখন বেশ শিহরণ জাগানাে নাম। গত ষাটের দশকের শেষার্ধ। সংবাদপত্র, সাময়িক পত্রিকা, রেডিও জুড়ে নকশালবাড়ির আন্দোলনের নানা নাম ছড়িয়ে পড়ছে আমাদের মধ্যে। বুঝি না বুঝি, পকেটে রেড বুক নিয়ে ঘােরাঘুরি ফ্যাশন হয়ে ...


বইমেলা হোক বা নাহোক চটপট নামিয়ে নিন রঙচঙে হাতে গরম গুরুর গাইড ।

Animesh Baidya প্রদত্ত সর্বশেষ দু পয়সা

লেখকের আরও পুরোনো লেখা >> RSS feed

রোহিতকে ঘিরে প্রচলিত কিছু প্রশ্ন

রোহিত ভেমুলা নিয়ে সর্বত্র কথা হচ্ছে। এক দিকে রোহিতের বিচার চেয়ে চলছে আন্দোলন এবং অন্যদিকে রোহিতের বিরুদ্ধে উঠে আসছে কিছু অভিযোগ। ওই অভিযোগগুলো একটু দেখা যাক। নানান জায়গায় রোহিতের ফেসবুক পোস্টের স্ক্রিন-শট দেখছি এবং তাই উৎসাহিত হয়ে তার ফেসবুক ওয়ালে বেশ কিছু সময় ধরে গত রাতে ঘুরে বেড়ালাম।

সবথেকে গুরুতর অভিযোগ হলো, রোহিত 'দেশদ্রোহী'। এই অভিযোগের পিছনে কারণ কী? কারণ হলো, তিনি ইয়াকুব মেমনের ফাঁসির বিরোধিতা করেছিলেন। অভিযোগের প্রমাণ হিসেবে তার একটি ফেসবুক পোস্ট অনেকেই তুলে ধরছেন। কী সেই পোস্

ইফতার পার্টি এবং একটি প্রস্ন

গত ৮ জুলাই আনন্দবাজার পত্রিকার সম্পাদকীয়র পাতায় বিশিষ্ট আইনজীবী এক্রামুল বারি 'কেন এই ভন্ডামি' শিরোনামে একটি লেখা লেখেন। লেখাটি ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ এবং প্রাসঙ্গিকও বটে। লেখাটির মূল বক্তব্য হলো ইফতার পার্টির হাত ধরে আমাদের নানান রাজনৈতিক দল সংখ্যালঘুদরদী হওয়ার একটা অদ্ভুত প্রতিযোগিতায় নাম লিখিয়েছে। ইফতার পার্টি আয়োজনে তাদের যে তাগিদ দেখা যায় সংখ্যালঘু মুসলমান সমাজের উন্নতি সাধনে সে তাগিদ তাদের নেই। ইফতার পার্টি আয়োজন যেন রাজনৈতিক স্বার্থ সিদ্ধির উৎসবে পরিণত হয়েছে। এমনকি যে উৎসবে সামিল আর.এস.এস.-এর

শৈশবঃ কয়েক ফালি রোদ আর আমার না পাওয়া গভীর অন্ধকার

রহস্যের সঙ্গে ভালো থাকার একটা সম্পর্ক আছে বলেই মনে হয়। রহস্য, কৌতুহল জীবনকে রঙীন করে তোলে। তাই হয়তো শৈশব এতো প্রিয় সময়। যতো বড় হয়েছি সব ততো ফর্মুলায় বসে গিয়েছে আর হারিয়ে গিয়েছে রঙের বৈচিত্র্য। আজ একটু শৈশব যাপন করা যাক।

ছোটবেলায় গোটা পৃথিবীটাই ছিল রহস্যে মোড়া। বাড়ির মধ্যে সব থেকে রহস্যের ছিলো টেলিভিশন বস্তুটা। ছবি কী ভাবে আকাশে ভেসে ভেসে এসে টিভির মধ্যে ঢোকে!! অ্যান্টেনার দিকে অবাক দৃষ্টিতে তাকিয়ে থাকতাম কতো দিন। দেখার চেষ্টা করতাম ছবি ভেসে আসতে দেখা যায় কি না। আরেকটা জিনিস হতো, আমি

আজগুবি

১.
'চোরের মায়ের বড় গলা'- এমনটা বলতে নেই।
জিরাফেরা দুঃখ পায়।

২.
ফেসবুকে আমরা সকলেই টিকটিকি।
Wall-এ Wall-এ ঘুরে বেড়াই।

৩.
এক সুন্দরী বান্ধবী সে দিন এসে বললো, আমায় কেমন লাগছে আজ?
উত্তরে বললাম- 'কি উট'।
সে রেগে বললো- মরূভূমির।

'কি উট-কো' ঝামেলারে বাবা!

৪.
একটা জলাশয়ের ধারে থাকে একটি মাছ এবং একটি ব্যাঙ। তাদের খুব বন্ধুত্ব।
একদিন মাছটি আদর করে ডাকলো, ব্যাঙ গো....
ব্যাঙ- হ্যাঁ, জানি জানি, আমায় নিয়ে তো ব্যাঙ্গই করবে। জানো, ম

আমরাও কি রাষ্ট্রদ্রোহী ছিলাম না সে দিন?

(একটা ভিন্ন পরিপ্রেক্ষিতে এই লেখাটা আগে লিখেছিলাম। ছাপা হয়েছিল অন্যত্র। তবে আজকের সময়ে ফের বিষয়টা নতুন করে মনে পড়ল। আজকের বাস্তবতা এবং পরিপ্রেক্ষিত অনুযায়ী লেখাটা পরিমার্জন করে এখানে দিচ্ছি।)

চারিদিকে বিরাট তর্ক-বিতর্ক। ভারত-বাংলাদেশ বিশ্বকাপ ক্রিকেট ম্যাচ নিয়ে। পশ্চিমবঙ্গের বাঙালিদের মধ্যে তৈরি হয়ে গিয়েছে বিভাজন। কেউ কেউ ভাষাগত আত্মপরিচয়ের ভিত্তিতে নির্ধারণ করছেন তাদের অবস্থান এবং সমর্থনের অভিমুখ। আর অন্য বড় অংশের লোকেরা রাষ্ট্রীয় মানচিত্রের নিরিখে নির্ধারণ করছেন তাদের অবস্থান ও সমর্

রিলিজ....

থোর বড়ি খাড়া, খাড়া বড়ি থোর,
যেমনটা আমারও, তেমনটাই তোর।
রোজকার জীবনে জমা যতো গ্লানি,
মুখ বুজে সয়ে যাই মুখচোরা প্রাণী।
না পাওয়া জমা হয়, জমা হয় রাগ,
গোপনে গোপনে পুষি যন্ত্রণা দাগ।
শাসকের কড়া চোখ, বসেরও কড়া,
চেপে রাখা কাম নিয়ে গোপনে মরা।
এ ভাবেই দিন কাটে, দিনের শপথ,
অবদমন খুঁজে ফেরে মুক্তির পথ।
ক্রোধ জমে প্রতিদিন, বেড়ে চলে কিস্তি,
জমে চলে রোজ রোজ না দেওয়া খিস্তি।
হতাশায় খুঁজে চলা কার্নিভাল রাস্তা,
যা কিছু চেপে রাখা বের করো আজ তা।
বিশ্বকা

মৌলবাদ...কিছুটা বলি, কিছুটা বাদ...

ধর্মীয় মৌলবাদ হাত ধরাধরি করে চলে। ইসলামী মৌলবাদের রমরমা একই সঙ্গে হিন্দু মৌলবাদকেও ডেকে আনে।

বহু প্রগতিশীল লোককে বরাবর দেখেছি মৌলবাদ-বিরোধী বক্তৃতা করতে, আরএসএস কে খিস্তি করতে এবং একই সঙ্গে ইসলামী মৌলবাদ নিয়ে আপাত ভাবে চুপ থাকতে। অন্য কেউ খোঁচালে, ইসলামী মৌলবাদ তথা সন্ত্রাসবাদের পিছনে আসলে সিআইএ-র হাত, এই বহু ব্যবহৃত বাগধারা বলে যেতে দেখেছি তাদের। কথা সত্য, তাতে কোনও ভুল নেই। কিন্তু যেটা সমস্যা সেটা হলো, এই ক্রমশ নীরবতা ইসলামী মৌলবাদীদের জন্য এক ধরনের প্রয়োজনীয় আড়াল তৈরি করে। আর সেই আড

ধর্মের নামে পশুবলি...কয়েকটা কথা বলি...

দুর্জনেরা বলে ইদ মানে নাকি আমাদের (কিছু কিছু হিন্দুদের) নিজেদের সেকুলার প্রদর্শন করার দিন। রোজকার যাপনে যতোই মৌলবাদ প্রকাশ করি না কেন, ওই দিন গদ-গদ ভাবে 'ইদ মুবারক' জানিয়ে আমরা সেকুলার সাজি। সে যাই হোক, এর মধ্যে কতোটা সত্যতা আর কতোটা মিথ্যাচার তা নিয়ে নিশ্চয়ই বিতর্ক থাকবে। সে প্রশ্নে যাচ্ছি না।

আমার দেখা অনেকেই ধর্মের নামে পশুবলি প্রথার বিরোধিতা করেন। কালী পুজোয় পাঁঠা-বলি নিয়ে অনেক অনেক কথা বলেন। তারা নিজেদের বরাবর সেকুলার হিসেবে দাবি করেন বলেও জানি। কিন্তু এই তাদেরই অনেককে কুরবানির ইদে

জীবনে আনন্দ নাই

সমস্ত তৃণের শেষে শিশিরের শব্দের মতন
সিবিআই আসে; ডানার পুরনো কালি মুছতে চায় চিল;
আশার সব আলো নিভে গেলে অবস্থান করে আয়োজন
তখন গল্পের তরে অস্বীকারের রঙে ঝিলমিল;
সব প্রমাণ ঘরে আসে- সিবিআই কুড়ায় তাঁর সাথে সব লেনদেন;
ডাকে শুধু বন্ধ দ্বার, মুখোমুখি বসিবার সুদীপ্ত সেন।

রাষ্ট্রীয় অজুহাত

আসলে জানি রাষ্ট্রশক্তির একই রকম ভাষা,
বয়ান সবই বদলে যায় উলটে গেলে পাশা।
রাষ্ট্রশক্তি সরল শিশু, আসল দোষ তো ওদের,
ওরাই শুধু জ্বালায় আগুন মিথ্যে প্রতিশোধের।
রাষ্ট্র জানি আঘাত করে না, আত্মরক্ষা করে,
অনিচ্ছেতে তার হাতে তাই কিছু মানুষ মরে।
ওরাই বরং বানিয়ে রাখে নারী শিশুর ঢাল,
সবই এক, হামাস কিংবা মাওবাদীদের চাল।
রাষ্ট্র জানি নিরীহ ভীষণ, শুধুই চায় শান্তি,
ওরাই বরং ছড়িয়ে দেয় লোকের মনে ভ্রান্তি।
রাষ্ট্র কখনও রক্ত চায় না, আসলে সে শুদ্ধ,
ওদের জন্যই বাধ্য হয়ে রাষ্
>> লেখকের আরও পুরোনো লেখা >>

এদিক সেদিক যা বলছেনঃ

11 Jul 2015 -- 11:12 PM:মন্তব্য করেছেন
আর শিরোনামে 'প্রশ্ন' বানানটা ভুল করে 'প্রস্ন' হয়ে গিয়েছে। ক্ষমা প্রার্থনীয়।
11 Jul 2015 -- 11:09 PM:মন্তব্য করেছেন
প্রথম প্রশ্নটি করতে ভুলে গেলাম। এখানে করছি। "যারা উপবাস করেননি, তাদের ইফতারে যোগদান করা ইসলামে অনুমো ...
08 Oct 2014 -- 08:30 PM:মন্তব্য করেছেন
প্রথমত, নাল্টিমেটলি টা দারুন পছন্দ হয়েছে। দ্বিতীয়ত, গরুর মাংস হোক বা শুয়োরের মাংস কি কচ্ছপের মা ...
28 Jul 2014 -- 12:18 AM:মন্তব্য করেছেন
a x, ঠিক যে কারণে আপনি হয়তো আমার উদ্দেশ্যে ওই নানান রকম লিঙ্ক পোস্ট করে প্রতিনিয়ত প্রমাণ করার চেষ্টা ...
27 Jul 2014 -- 09:47 PM:মন্তব্য করেছেন
a x, প্রথমত, আপনার সঙ্গে আমার মত মিলতেই হবে এমন কোনও কথা নেই। সুতরাং, আমার কাছে ধর্মের নামে, রাষ্ট্র ...
24 Jul 2014 -- 09:55 PM:মন্তব্য করেছেন
a x, আসলে অতো বোধগম্যতা নেই তো। তাই একটু সহজ করে প্রত্যেকটা প্রশ্ন ধরে ধরে উত্তর দিলে সুবিধে হতো। এম ...
24 Jul 2014 -- 02:38 PM:মন্তব্য করেছেন
a x, আমার আপনার প্রতি অনেকগুলো প্রশ্ন ছিলো। সেগুলোর তো কোনও উত্তর পেলাম না আর। উত্তর পেলে ভালো লাগতো ...
24 Jul 2014 -- 05:44 AM:মন্তব্য করেছেন
আপনাকে একটু খেই ধরিয়ে দিই। এই আলোচনাটা যে পোস্টের সূত্রে উঠে এসেছে সেটা যদি আরও এক বার পরে নেন আপনি। ...
23 Jul 2014 -- 09:37 PM:মন্তব্য করেছেন
যেহেতু মূল লেখাটা আমার তাই দুটো কথা বলা উচিৎ। মৃত্যুদণ্ড উচিত কি অনুচিত তা নিয়ে বিতর্ক চলছে। আমি ব্য ...
13 Jun 2014 -- 10:05 PM:মন্তব্য করেছেন
@Ranjan Roy- আমি ছান্দসিক নই। আমি বরং ছান্দ-SICK। ভালো লাগলো আপনার 'শুদ্ধিকরণ'। ভালো থাকবেন।