বন্ধু শুভ RSS feed

কাকাতুয়া=মামাতুয়া তুয়া তুয়া কেটে গেল সুতরাং কাকা=মামা' বাবার ভাই=মায়ের ভাই

আরও পড়ুন...
সাম্প্রতিক লেখালিখি RSS feed
  • তিরাশির শীত
    ১৯৮৩ র শীতে লয়েডের ওয়েস্টইন্ডিজ ভারতে সফর করতে এলো। সেই সময়কার আমাদের মফস্বলের সেই শীতঋতু, তাজা খেজুর রস ও রকমারি টোপা কুলে আয়োজিত, রঙিন কমলালেবু-সুরভিত, কিছু অন্যরকম ছিলো। এত শীত, এত শীত সেই অধুনাবিস্মৃত কালে, কুয়াশাআচ্ছন্ন পুকুরের লেগে থাকা হিমে মাছ ...
  • ‘দাদাগিরি’-র ভূত এবং ভূতের দাদাগিরি
    রণে, বনে, জলে, জঙ্গলে, শ্যাওড়া গাছের মাথায়, পরীক্ষার প্রশ্নপত্রে, ছাপাখানায় এবং সুখী গৃহকোণে প্রায়শই ভূত দেখা যায়, সে নিয়ে কোনও পাষণ্ড কোনওদিনই সন্দেহ প্রকাশ করেনি । কিন্তু তাই বলে দুরদর্শনে, প্রশ্নোত্তর প্রতিযোগিতার অনুষ্ঠানেও ? আজ্ঞে হ্যাঁ, দাদা ভরসা ...
  • আর কিছু নয়
    প্রতিদিন পণ করি, তোমার দুয়ারে আর পণ্য হয়ে থাকা নয় ।তারপর দক্ষিণা মলয়ের প্রভাবে, পণ ভঙ্গ করে, ঠিক ঠিকখুলে দেই নিজের জানা-লা। তুমি ভাব, মূল্য পড়ে গেছে।আমি ভাবি, মূল্য বেড়ে গেছে।কখন যে কার মূল্য বাড়ে আর কার কমে , এই কথা ক'জনাই বা জানে?এই না-জানাদের দলে আমিই ...
  • একা আমলকী
    বাইরে কে একটা চিৎকার করছে। বাইরে মানে এই ছোট্টো নোংরা কফির দোকানটা, যার বৈশিষ্ট্যহীন টেবিলগুলোর ওপর ছড়িয়ে রয়েছে খাবারের গুঁড়ো আর দেয়ালে ঝোলানো ফ্যাকাশে ছবিটা কোনো জলপ্রপাত নাকি মেয়ের মুখ বোঝা যাচ্ছে না — এই দোকানটার দরজার কাছে দাঁড়িয়ে কেউ চিৎকার করছে। ...
  • গল্পঃ রেড বুকের লোকেরা
    রবিবার। সকাল দশটার মত বাজে।শহরের মিরপুর ডিওএইচেসে চাঞ্চল্যকর খুন। স্ত্রীকে হত্যা করে স্বামী পলাতক।টিভি স্ক্রিণে এই খবর ভাসছে। একজন কমবয়েসী রিপোর্টার চ্যাটাং চ্যাটাং করে কথা বলছে। কথা আর কিছুই নয়, চিরাচরিত খুনের ভাষ্য। বলার ভঙ্গিতে সাসপেন্স রাখার চেষ্টা ...
  • মহাভারতের কথা অমৃতসমান ২
    মহাভারতের কথা অমৃতসমান ২চিত্রগুপ্ত: হে দ্রুপদকন্যা, যজ্ঞাগ্নিসম্ভূতা পাঞ্চালী, বলো তোমার কি অভিযোগ। আজ এ সভায় দুর্যোধন, দু:শাসন, কর্ণ সবার বিচার হবে। দ্রৌপদী: ওদের বিরূদ্ধে আমার কোনও অভিযোগ নেই রাজন। ওরা ওদের ইচ্ছা কখনো অপ্রকাশ রাখেন নি। আমার অভিযোগ ...
  • মহাভারতের কথা অমৃতসমান
    কুন্তী: প্রণাম কুরুজ্যেষ্ঠ্য গঙ্গাপুত্র। ভীষ্ম: আহ্ কুন্তী, সুখী হও। কিন্তু এত রাত্রে? কোনও বিশেষ প্রয়োজন? কুন্তী: কাল প্রভাতেই খান্ডবপ্রস্থের উদ্দেশ্যে যাত্রা করব। তার আগে মনে একটি প্রশ্ন বড়ই বিব্রত করছিল। তাই ভাবলাম, একবার আপনার দর্শন করে যাই। ভীষ্ম: সে ...
  • অযোধ্যা রায়ঃ গণতন্ত্রের প্রত্যাশা এবং আদালত
    বাবরি রায় কী হতে চলেছে প্রায় সবাই জানতেন। তার প্রতিক্রিয়াও মোটামুটি প্রেডিক্টেবল। তবুও সকাল থেকে সোশ্যাল মিডিয়া, মানে মূলতঃ ফেবু আর হোয়াটস অ্যাপে চার ধরণের প্রতিক্রিয়া দেখলাম। বলাই বাহুল্য সবগুলিই রাজনৈতিক পরিচয়জ্ঞাপক। বিজেপি সমর্থক এবং দক্ষিণপন্থীরা ...
  • ফয়সালা বৃক্ষের কাহিনি
    অতিদূর পল্লীপ্রান্তে এক ফয়সালা বৃক্ষশাখায় পিন্টু মাষ্টার ও বলহরি বসবাস করিত । তরুবর শাখাবহুল হইলেও নাতিদীর্ঘ , এই লইয়া , সার্কাস পালানো বানর পিন্টু মাষ্টারের আক্ষেপের অন্ত ছিলনা । এদিকে বলহরি বয়সে অনুজ তায় শিবস্থ প্রকৃতির । শীতের প্রহর হইতে প্রহর ...
  • গেরিলা নেতা এমএন লারমা
    [মানবেন্দ্র নারায়ণ লারমার ব্যক্তি ও রাজনৈতিক জীবনের মধ্যে লেখকের কাছে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ মনে হয়েছে, তার প্রায় এক দশকের গেরিলা জীবন। কারণ এম এন লারমাই প্রথম সশস্ত্র গেরিলা যুদ্ধের মাধ্যমে পাহাড়িদের আত্মনিয়ন্ত্রণের অধিকার প্রতিষ্ঠার স্বপ্ন দেখান। আর তাঁর ...


বইমেলা হোক বা নাহোক চটপট নামিয়ে নিন রঙচঙে হাতে গরম গুরুর গাইড ।

প্রেমের জীবন চক্র অথবা প্রেমিক-প্রেমিকার

বন্ধু শুভ

"তোমার মিলনে বুঝি গো জীবন, বিরহে মরণ"।
প্রেমের চরম স্টেজটা পার করতে গিয়ে এই রকম একটা অনুভূতি আসে। একজন আরেকজনকে ছাড়া বাঁচে না। এই স্টেজটা যদি কোনভাবে খারাপের দিকে যায় তখন মানুষের নানা পাগলামি লক্ষ্য করা যায়। কখনো কখনো পাগলামিটা তার গন্ডি ছাড়িয়ে ছাগলামিতে রূপ নেয়। আমি একজন প্রেমিককে চিনি যে প্রেমের কঠিন স্টেজটা পার করার সময় নিজেকে ছাগল মনে করতো। তখন চারপাশের কাঁঠাল গাছগুলো তার ভয়ে ভীতসন্ত্রস্ত হয়ে থাকতো। ভালোর দিকে গেলেও কখনো কখনো সেইম কেস দেখা যায় (অন্যদিন বলবো)! তবু তো সময় বহিতে হয়। ৭ গোল খেয়ে নিশ্চিত হারতে বসা ব্রাজিল ফুটবল টিমটাও তো শেষ বাঁশি শোনার জন্য অপেক্ষা করেছিল। তাই না?

পাঠক, বুঝতেই পারছেন– আমার আজকের খিচুড়ি "প্রেমিক-প্রেমিকা, তাদের মধ্যে প্রবাহমান প্রেম এবং তার প্রতিক্রিয়া" নিয়ে। আমার আজকের বক্তব্যে আমি- জনজীবনের উপর (প্রেম) পতিত হওয়ার ধরণ ও প্রতিক্রিয়া বিচার করে একে তিনটি শ্রেণিতে ভাগ করেছি। যা নিম্নরূপ-
১। প্রেমের চেষ্টা থেকে চূড়ান্ত রূপ লাভ করার পূর্ব পর্যন্ত
২। প্রেমের চূড়ান্ত পর্যায়
৩। বিচ্ছেদ কিংবা মিলনাত্মক পর্যায়।
আজ এই তিনটি পর্যায়ের প্রাথমিক হালনাগাদ করা হবে। পরবর্তীতে কোন একদিন প্রতিটি বিষয়ের আলাদা আলাদা খিচুড়ি পরিবেশন করা হবে। আপাতত বসে পড়ুন।

পর্যায়-১ঃ
এই একটি পর্যায় তথা সময় চির বসন্তকাল। ফাল্গুনের ছোঁয়া পেয়ে শীত যেমন সটকে পড়ে, তেমনি প্রেমের প্রাথমিক সময়টাতে ছেলেমেয়েদের যাবতীয় লজ্জা শরম অদৃশ্য হয়ে যায়। যে ছেলেটা একটা মেয়ের সাথে বা মেয়েটা একটা ছেলের সাথে কথা বলতে, বিশেষ করে প্রেমসংক্রান্ত বিষয়ে কথা বলতে পারতো না, বললেও লজ্জায় মুখখানা খয়েরি কিংবা বেগুনি হয়ে যেত, সেই ছেলে বা মেয়েটাই পানাহারের সাথে লাজলজ্জার মাথা খেয়ে আরেকজনের পেছেনে ঘুরতে শুরু করে। প্রেমের চেষ্টাকারী মেয়ে হলে নতুন করে নতুন রঙের লিপস্টিক ও অন্যান্য প্রসাধনী যোগ করতে থাকে তার ড্রয়ারে। চুলগুলো বেনী করতে শুরু করে, সাথে আয়নার সামনে দাড়ানোর পরিমানটা বাড়িয়ে দেয়।

আর যদি চেষ্টাকারী হয় ছেলে, তবে তো তার প্রেমচেষ্টা আরো অধিক। সে মাথায় তেল দিয়ে উসখোখুশকো চুলকে বশে আনার চেষ্টা করে। একটা চিরুনি ফুলহাতা শার্টের বুক পকেটে কিংবা সেলাই করা টরি কাপড়ের প্যান্টে পার্মানেন্ট লালন করে এবং তা দিয়ে চুলকে বিশেষ কদর করে। এসবের মধ্য দিয়ে শুরু হয় মেয়েটাকে করায়ত্ত করার অবিরাম চেষ্টা। ফোন নম্বর সংগ্রহ থেকে শুরু করে ফেসবুক কিংবা ই-মেইল কিছুই বাদ যায় না। ভার্চুয়াল কানেক্টেভিটির সাথে ভিজ্যুয়াল যোগসূত্র তৈরি না হলে হয় নাকি! সুতরাং মেয়েটার পড়াশোনা কিংবা চাকুরি– সূত্র যাই হোক সেখানে ছেলেটা ঢু মারতে থাকে। চেষ্টা চালাতে শুরু করে কিভাবে তাকে বশ করা যায়, তার।
ছেলেমেয়েরা এটা করতে করতে একটা চূড়ান্ত রূপের দিকে এগিয়ে যেতে থাকে। শেষতক যারা সফল বনে যেতে পারে এখানে তাদের কথা বলছি। নানা স্টেজে যারা ব্যর্থ হয়, তারা এই বক্তব্যের বাইরে।

পর্যায়-২ঃ
এটা অসাধারণ একটা সময়। প্রেমের এই স্টেজটাতে সব কিছু কেবল প্রেম প্রেম লাগে।পৃথিবীর কোন দুর্যোগ এই স্টেজ পার করতে থাকা পাব্লিকগুলোকে স্পর্শ করতে পারে না। সাতদিন উপোস করেও (এদের) মনে হয় তাদের মতো ভরপেট মানুষ পৃথিবীতে খুব কম আছে। এই স্টেজটাতে প্রেমিক-প্রেমিকার কিছু সমস্যা) দেখা দেয়। সবচে' বেশি যাদের সমস্যা হয় তারা হচ্ছে 'মন' এবং 'চোখ'। (হাত-পায়ের কি সমস্যা হয় সেটা অন্যদিন বলা যাবে)। চোখের সমস্যাটা চোখের একা না। মগজ থাকে সিগনাল পাঠায়। তখন চোখ দেখে রঙিন চিত্র। এবার সমস্যার ধরণ-টা একটু বলা যাক। ধরুন, একজন প্রেমিক (অথবা প্রেমিকা) টাউনহল মাঠে দাড়িয়ে আছে। একটা কাপল ফুচকা খাচ্ছে। তখন তার কাছে মনে হতে থাকে তারা প্রেম খাচ্ছে।

শুধু কি প্রেম খাচ্ছে? ফুচকাওয়ালা মামা যে ফর্মুলা মেনে ফুচকা তৈরি করে দিচ্ছেন তার প্রতিটি পর্যায়েই প্রেমের মিশ্রণ দেখতে পায় তারা। এমনকি মামা যে তেঁতুল রস দিচ্ছে, প্রেমের ফাইনাল স্টেজে থাকা পাব্লিকটা সে তেঁতুল রসটাকেও প্রেম ভেবে বসে। আহারে প্রেম! শুধু ফুচকা না। পান–বিড়ি–সিগারেট সবকিছুতেই প্রেম। প্রেমিকা যদি ২৫ কেজি ওজনের একটা ঘুষি দেয়, প্রেমিক তাতেও প্রেম খুঁজে পায়। পায় কী(!) তার কাছে মনে হতে থাকে যেন ২৫ কেজি ওজনের একটা প্রেম দিল! কামার যখন দা-বটি বানাতে উত্তপ্ত লোহার উপর সর্বোচ্চ শক্তিতে আঘাত করে, তখনও প্রেমের সর্বোচ্চ পর্যায়ে অবস্থান করা যুগল ভাবে– আহ! কত বড় একটা প্রেম দিল!

এই পর্যায়টাতে তারা কিছু গান গায়। রোমান্টিকতা প্রকাশ করার জন্য না। এটা তাদের ন্যাচার হয়ে যায়। এক অপ্রকাশিত গবেষণায় দেখা গেছে "বাথরুম সিঙ্গার" কথাটার জন্ম হয়েছে প্রেমিক-প্রেমিকাদের সম্মিলিত কর্মপ্রচেষ্টায়। এই স্টেজে তারা উভয়েই মনের ভেতর গান লালন করে। একটা গান মনে হয় সবচে' বেশি বার গাওয়া হয়েছে। গানটা এমন–
যো ওয়াদা কিয়া ও নিভানা পাড়েগা
রোকে যামানা চাহে রোকে খুদাই তুমকো
আনা পাড়েগা।

প্রভাবিত হওয়ার কথা আর কী বলল। প্রেমের চূড়ান্ত পর্যায়ে পৌছলে তাদের প্রভাবিত হওয়ার ক্ষমতা (পড়ুন, প্রবণতা) বেড়ে যায় হাজারগুণ। একটি উদাহরণ দিচ্ছি–
প্রেমে পড়লে এমনিতেই ন্যাকামি করার প্রবণতা বাড়ে। তখন প্রেমিকা যদি বলে "ইস! ছাগলটা কত্ত সুন্দর করে কাঁঠালপাতা খাচ্ছে"। ঠিক তখনি প্রেমিক মহাপুরুষটি নিজেকে ছাগল ভেবে কাঁঠালপাতা খেতে শুরু করে। যদি খেতে নাও পারে তবে প্রেমিক মহাপুরুষটি নিদেনপক্ষে এটুকু বলে "ইস! আমি যদি ছাগল হতাম তবে কত সুন্দর করেই না কাঁঠালপাতা খেতে পারতাম!"

পর্যায়-৩ঃ
এই স্টেজটাতে সাহিত্যিক উপাদানের সাথে ঐতিহাসিক সত্যতার ব্যাপক অমিল রয়েছে। প্রায় সকল রূপকথার গল্পে "অতঃপর তাহারা সুখে শান্তিতে বসবাস করিতে লাগিল" টাইপ কথা থাকলেও বাস্তবতা ভিন্ন। প্রেমের প্রথম ও দ্বিতীয় পর্যায় শেষ হওয়ার পর বস্তুত প্রেমের পরিসমাপ্তি ঘটে। অর্থাৎ প্রেমের তৃতীয় পর্যায় মূলত প্রেম পরবর্তী পর্যায়। ইতোপূর্বে প্রেমের দ্বিতীয় পর্যায়কে আমি প্রেমের "চূড়ান্ত" পর্যায় বলে অভিহিত করেছি, সচেতন পাঠক মাত্রই লক্ষ্য করেছেন বিশ্বাস করি। তাহলে আরেকটা প্রকরণ কেন করলাম? করলাম এই কারণে, প্রেমের যে ফলটা তখনো বাকি থাকে, তার রূপরেখা তুলে ধরতে।

প্রেমের চূড়ান্ত পর্যায় অতিক্রান্ত হওয়ার পর যদি প্রেমিক-প্রেমিকা যুদ্ধ করতে (পড়ুন, বিবাহ করতে) সম্মত হয় তবে জীবনের বাকিটা সময় একটা মহাযুদ্ধ লেগেই থাকে এবং একই সাথে ভালোবাসাটা মরে যায়। আর যদি অর্থ–যশ–খ্যাতি–বংশ–চাহিদা–ইগো–বয়স–ধৈর্য্য ইত্যাদি কারণে শেষতক সংসার পাতা সম্ভব না হয়ে উঠে তবে দুই মেরুতে থেকে তাদের ভালোবাসা ঠিক থাকে কি-না তা বলা মুশকিল। তবে কলিজাপোড়া গন্ধ নিয়ে বেঁচে থাকে দু'জনই, ইহা সত্য। দূরত্ব বজায় রেখে বেঁচে থাকা দুজন মানুষের ভালোবাসাটা একটা নির্দিষ্ট সময় ধরে ফিকে হতে হতে এক সময় কর্পূরের ন্যায় উবে যায়।

এ অবস্থায় নানা প্রকার গান শোনা যায়। আসলে এই সময়ের গানের ধরণটা নির্ভর করে দীর্ঘদিনের প্রেমের বর্তমান অবস্থা ও তার স্থায়ী পরিণতির উপর।
কমন একটা গান দিয়ে আজকের খিচুড়ি শেষ করা যাক।
"আমি কাউকে বলিনি সে নাম
কেউ জানেনা না জানে আড়াল।।"

অথবা এমন কিছু আসতে পারে–
"কংক্রিট মন মিছে আলাপন
বিসর্জনে ক্লান্ত ভীষণ।।"

468 বার পঠিত (সেপ্টেম্বর ২০১৮ থেকে)

শেয়ার করুন


Avatar: বিপ্লব রহমান

Re: প্রেমের জীবন চক্র অথবা প্রেমিক-প্রেমিকার

লেখাটি কী অসম্পূর্ণ? পরকীয়া প্রেম বাদ পড়েছে।

মানে ... লোকে বলে, ফোন কিনলে নোকিয়া, প্রেম করলে পরকীয়া... :পি


আপনার মতামত দেবার জন্য নিচের যেকোনো একটি লিংকে ক্লিক করুন