Sumit Roy RSS feed

Sumit Royএর খেরোর খাতা।

আরও পড়ুন...
সাম্প্রতিক লেখালিখি RSS feed
  • দক্ষিণের কড়চা
    গরু বাগদির মর্মরহস্য➡️মাঝে কেবল একটি একক বাঁশের সাঁকো। তার দোসর আরেকটি ধরার বাঁশ লম্বালম্বি। সাঁকোর নিচে অতিদূর জ্বরের মতো পাতলা একটি খাল নিজের গায়ে কচুরিপানার চাদর জড়িয়ে রুগ্ন বহুকাল। খালটি জলনিকাশির। ঘোর বর্ষায় ফুলে ফেঁপে ওঠে পচা লাশের মতো। যেহেতু এই ...
  • বাংলায় এনআরসি ?
    বাংলায় শেষমেস এনআরসি হবে, না হবে না, জানি না। তবে গ্রামের সাধারণ নিরক্ষর মানুষের মনে তীব্র আতঙ্ক ছড়িয়েছে। আজ ব্লক অফিসে গেছিলাম। দেখে তাজ্জব! এত এত মানু্ষের রেশন কার্ডে ভুল! কয়েকজনের সাথে কথা বলে জানলাম প্রায় সবার ভোটারেও ভুল। সব আইকার্ড নির্ভুল আছে এমন ...
  • যান্ত্রিক বিপিন
    (১)বিপিন বাবু সোদপুর থেকে ডি এন ৪৬ ধরবেন। প্রতিদিন’ই ধরেন। গত তিন-চার বছর ধরে এটাই বিপিন’বাবুর অফিস যাওয়ার রুট। হিতাচি এসি কোম্পানীর সিনিয়র টেকনিশিয়ন, বয়েস আটান্ন। এত বেশী বয়েসে বাড়ি বাড়ি ঘুরে এসি সার্ভিসিং করা, ইন্সটল করা একটু চাপ।ভুল বললাম, অনেকটাই চাপ। ...
  • কাইট রানার ও তার বাপের গল্প
    গত তিন বছর ধরে ছেলের খুব ঘুড়ি ওড়ানোর শখ। গত দুবার আমাকে দিয়ে ঘুড়ি লাটাই কিনিয়েছে কিন্তু ওড়াতে পারেনা - কায়দা করার আগেই ঘুড়ি ছিঁড়ে যায়। গত বছর আমাকে নিয়ে ছাদে গেছিল কিন্তু এই ব্যপারে আমিও তথৈবচ - ছোটবেলায় মাথায় ঢুকিয়ে দেওয়া হয়েছিল ঘুড়ি ওড়ানো "বদ ছেলে" দের ...
  • কুচু-মনা উপাখ্যান
    ১৯৮৩ সনের মাঝামাঝি অকস্মাৎ আমাদের বিদ্যালয়ের ষষ্ঠ(ক) শ্রেণী দুই দলে বিভক্ত হইয়া গেল।এতদিন ক্লাসে নিরঙ্কুশ তথা একচ্ছত্র আধিপত্য বিস্তার করিয়া ছিল কুচু। কুচুর ভাল নাম কচ কুমার অধিকারী। সে ক্লাসে স্বীয় মহিমায় প্রভূত জনপ্রিয়তা অর্জন করিয়াছিল। একটি গান অবিকল ...
  • 'আইনি পথে' অর্জিত অধিকার হরণ
    ফ্যাসিস্ট শাসন কায়েম ও কর্পোরেট পুঁজির স্বার্থে, দীর্ঘসংগ্রামে অর্জিত অধিকার সমূহকে মোদী সরকার হরণ করছে— আলোচনা করলেন রতন গায়েন। দেশে নয়া উদারবাদী অর্থনীতি লাগু হওয়ার পর থেকেই দক্ষিণপন্থার সুদিন সূচিত হয়েছে। তথাপি ১৯৯০-২০১৪-র মধ্যবর্তী সময়ে ...
  • সম্পাদকীয়-- অর্থনৈতিক সংকটের স্বরূপ
    মোদীর সিংহগর্জন আর অর্থনৈতিক সংকটের তীব্রতাকে চাপা দিয়ে রাখতে পারছে না। অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন শেষ পর্যন্ত স্বীকার করতে বাধ্য হয়েছেন যে ভারতের অর্থনীতি সংকটের সম্মুখীন হয়েছে। সংকট কতটা গভীর সেটা তার স্বীকারোক্তিতে ধরা পড়েনি। ধরা পড়েনি এই নির্মম ...
  • কাশ্মীরি পন্ডিত বিতাড়নঃ মিথ, ইতিহাস ও রাজনীতি
    কাশ্মীরে ডোগরা রাজত্ব প্রতিষ্ঠিত হবার পর তাদের আত্মীয় পরিজনেরা কাশ্মীর উপত্যকায় বসতি শুরু করে। কাশ্মীরি ব্রাহ্মণ সম্প্রদায়ের মানুষেরাও ছিলেন। এরা শিক্ষিত উচ্চ মধ্যবিত্ত ও মধ্যবিত্ত শ্রেনি। দেশভাগের পরেও এদের ছেলেমেয়েরা স্কুল কলেজে পড়াশোনা করেছে। অন্যদিকে ...
  • নিকানো উঠোনে ঝরে রোদ
    "তেরশত নদী শুধায় আমাকে, কোথা থেকে তুমি এলে ?আমি তো এসেছি চর্যাপদের অক্ষরগুলো থেকে ..."সেই অক্ষরগুলোকে ধরার আরেকটা অক্ষম চেষ্টা, আমার নতুন লেখায় ... এক বন্ধু অনেকদিন আগে বলেছিলো, 'আঙ্গুলের গভীর বন্দর থেকে যে নৌকোগুলো ছাড়ে সেগুলো ঠিক-ই গন্তব্যে পৌঁছে যায়' ...
  • খানাকুল - ২
    [এর আগে - https://www.guruchan...


বইমেলা হোক বা নাহোক চটপট নামিয়ে নিন রঙচঙে হাতে গরম গুরুর গাইড ।

মানুষের একজন প্রাচীন পূর্বপুরুষের করোটি আমাদেরকে দিচ্ছে আমাদের বিবর্তনীয় ইতিহাস সম্পর্কে নতুন ধারণা

Sumit Roy

২০১৬ সালে ইথিওপিয়ার গোদায়া উপত্যকায় একটা মাথার খুলি উদ্ধার করা হয়েছিল, পরে জানা যায় এটি Australopithecus anamensis প্রজাতিটির। গবেষকগণ এটা দেখে তো অবাক। কেন অবাক হবেন না বলুন, আজ পর্যন্ত যে প্রজাতির ভাঙ্গা কিছু হাড়, ভাঙ্গা দাত, আর চোয়ালের হাড়ের টুকরো ছাড়া আর কিছুই পাওয়া যায় নি, এবারে কিনা পাওয়া গেল তার আস্ত একটা মাথার খুলি! গবেষকরা তো সব হুমরি খেয়ে পড়লেন সেই খুলিটির উপর। শুরু হল গবেষণা, তো এই ২৮ তারিখ এটি নিয়ে দু-দুটো গবেষণাপত্র নেচার জার্নালে এলো। আর সেটা দেখে সবাই আরও অবাক? কেন হবেনা বলুন? এটা মানুষের বিবর্তনের ইতিহাসের একটি অন্যতম অজানা অধ্যায়ের উন্মোচন করেছে যে…

আচ্ছা, বিস্তারিত বলছি শুনুন। সম্প্রতি প্রাচীন মানব পূর্বপুরুষের একটি মাথার খুলি বা করোটি আবিষ্কার হয়েছে, যা মানব বিবর্তন সম্পর্কে সঠিক ধারণা পাবার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এই মাথার খুলিটি হচ্ছে এর প্রজাতির অবশেষ থেকে পাওয়া মাথার খুলিগুলোর মধ্যে সবচাইতে বেশি পূর্ণাঙ্গ।

২০১৬ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে, ইথিওপিয়া এর ওরানসো-মিলে এর ধূলিময় গোদায়া উপত্যকায় ইয়োহানেস হাইলে-সেলাসি এবং নৃতাত্ত্বিকদের একটি আন্তর্জাতিক দল একটি প্রাথমিক হোমিনিন প্রায়-পূর্ণাঙ্গ করোটি মাটি খুড়ে উদ্ধার করেছিল। Nature জার্নালে এই ২৮ তারিখে এই নিয়ে দুটো গবেষণাপত্র প্রকাশিত হয়েছে।[১][২] আর এগুলোতে গবেষকগণ দেখান যে, এই করোটিটি Australopithecus anamensis নামক প্রজাতির, এবং এরা আজ থেকে ৪২ থেকে ৩৮ লক্ষ বছর পূর্বে পৃথিবীতে বর্তমান ছিল। উল্লেখ্য, ৩৮ লক্ষ বছরের ব্যাপারটা জানা গেছে এই করোটিটি নিয়ে গবেষণা করার পর, কেননা এটা ৩৮ লক্ষ বছর পুরনো। এর আগে বিজ্ঞানীদের ধারণা ছিল না যে এরা ৩৮ লক্ষ বছর পূর্বেও ছিল, বিজ্ঞানীদের জন্য এই ৩৮ লক্ষ বছর পূর্বের হওয়াটা বেশ অবাকের, কারণ এটা বলছে যে এই প্রজাতি তাদের ধারণার চেয়েও অনেক পরে বিলুপ্ত হয়েছে। কেন সেটা একটু পরে বলছি।

এই নমুনাটি ঘিরে যে কারণে উত্তেজনা রয়েছে তা হল এর পূর্ণাঙ্গ অবস্থা। এই আবিষ্কারটির আগ পর্যন্ত এই প্রজাতিটির শরীরের কেবল ছড়ানো ছিটানো চোয়ালের হাড়, ভাঙ্গা দাঁত, এবং খুব কম পরিমাণে অঙ্গ-প্রত্যঙ্গের ভাঙ্গা হাড় পাওয়া গিয়েছিল। এখন গবেষকদের হাতে আমাদের এই দুঃসম্পর্কের আত্মীয়ের একটি প্রায়-পূর্ণাঙ্গ করোটি রয়েছে, তারা এখন ডিজিটাল প্রযুক্তি ব্যাবহার করে বের করতে পারবেন যে, এরা কিরকম দেখতে ছিল।

এই ২৭ তারিখ মঙ্গলবার ক্লিভল্যান্ড মিউজিয়াম অফ ন্যাচারাল হিস্টোরি এর ফিজিকাল এনথ্রোপলজি এর প্রধান ইয়োহানেস হাইলে-সেলাসি বলেন, “এই নমুনাটি আমাদেরকে প্রথমবারের মত আভাস দিচ্ছে যে আসলে Australopithecus anamensis দেখতে কিরকম ছিল। এটি আমাদের দেখাচ্ছে যে, Homo গণের আবির্ভাবের পূর্বে মানুষের পূর্বপুরুষ দেখতে খুবই “আদিম” ছিল। তখনও তাদের মধ্যে এপ বা বনমানুষদের মত মুখমণ্ডল এবং করোটিসংক্রান্ত অঙ্গসংস্থানও বনমানুষদের মতই ছিল।”

এই করোটির আকার ছোট, কিন্তু তাও এটি একটি প্রাপ্তবয়স্ক পুরুষের করোটি, এবং এই করোটিটি যার ছিল সে শুষ্ক গুল্মভূমিতে (dry shrubland) বাস করত, কিন্তু তৃণভূমি (grassland), জলাভূমি (wetland) এবং নদীর পার্শ্ববর্তী বনাঞ্চলে সময় কাটাতো। Australopithecus হচ্ছে একটি প্রাথমিক দ্বিপদ হোমিনিন এর একটি গণ যারা আজ থেকে ৪ মিলিয়ন বছর পূর্বে পৃথিবীতে বাস করত। তাদের এই অস্ট্রালোপিথেকাস নামটি হচ্ছে ল্যাতিন ও রোমান ভাষার মিশ্রণ যার অর্থ হচ্ছে “দক্ষিণাঞ্চলীয় বনমানুষ” (“southern ape”), যদিও এরা প্রায় ২ মিলিয়ন বছর পূর্বে বিলুপ্ত হবার পূর্বে দক্ষিনাঞ্চলীয়, পূর্বাঞ্চলীয় এবং উত্তর-মধ্য আফ্রিকার বিভিন্ন স্থানেই বাস করত।

তবে তাদের বিলুপ্তির ঘটনা কেবলই গল্পটির শুরু। এই অস্ট্রালোপিথেকাস প্রজাতিটি মানব বিবর্তনের নাটকের একটি গুরুত্বপূর্ণ চরিত্র। আমাদের অর্থাৎ Homo sapien এর যে Homo গণটি রয়েছে তা এই অস্ট্রালোপিথেকাস থেকেই ৩০ লক্ষ বছর পূর্বের কিছু সময় পর আবির্ভূত হয়েছিল। এই রহস্যময় পূর্বপুরুষ নিয়ে গবেষকগণ পূর্বে যে পূর্বানুমানগুলো করেছিল এই নতুন করোটিটি সেগুলোর অনেক কিছুকেই চ্যালেঞ্জ করছে। এই অস্ট্রালোপিথেকাস গণের সবচাইতে সেলিব্রিটি সদস্যটি হচ্ছে Australopithecus afarensis, যাকে বিখ্যাত “লুসি” নামক ফসিলটি প্রতিনিধিত্ব করে।[৩] লুসি কেন গুরুত্বপূর্ণ তা নিয়ে পরে কিছু লেখার ইচ্ছা আছে। যাই হোক, পূর্বের গবেষণাগুলোর বিরুদ্ধে গিয়ে এই নতুন প্রাপ্তিটি আমাদের বলছে যে A. afarensis এর সাথে এই নতুন পাওয়া A. anamensis এর চেহারার মধ্যে বেশ পার্থক্য রয়েছে।

একসময় মনে করা হয়েছিল যে Australopithecus anamensis থেকেই একটি একক বিবর্তনগত বংশধারায় Australopithecus afarensis এর আবির্ভাব ঘটে। কিন্তু এই নতুন পাওয়া নমুনাটি আমাদের বলছে, এই দুটো প্রজাতি অন্ততপক্ষে এক লক্ষ বছর ধরে একই সাথে পৃথিবীতে বর্তমান ছিল। আগেই বলেছিলাম A. anamensis এর অস্তিত্ব এখন পাওয়া গেল অন্তত ৪২ থেকে ৩৮ লক্ষ বছর পূর্বের সময়কালের মধ্যে। এদিকে A. afarensis পৃথিবীতে বিচরণ করেছে ৩৯ থেকে ২৯ লক্ষ বছর পূর্ব পর্যন্ত। মানে এই দুই প্রজাতি অন্তত এক লক্ষ বছর ধরে একসাথে পৃথিবীতে ছিল। তারমানে পূর্বে এদের বিবর্তন যতটা সরল ধরা হয়েছিল, আসলে তেমনটা ঘটে নি। বরং এই দুই প্রজাতির বিবর্তনে উপরিপাতন, ক্রিস ক্রসের ঘটনা ঘটেছে। মানুষের বিবর্তনের ইতিহাসে অস্ট্রালোপিথেকাসের বিবর্তন নিঃসন্দেহে গুরুত্বপূর্ণ। আর এই আবিষ্কারের কারণে আমরা অস্ট্রালোপিথেকাস নিয়ে নতুন করে ভাবছি বলেই এই নতুন করোটিটি এতটা গুরুত্বপূর্ণ।

ইউনিভার্সিটি কলেজ লন্ডন এর হিউম্যান ইভোল্যুশন এনাটমি এর অধ্যাপক ফ্রেড স্পুর[৪] কী বলছেন তা বলে শেষ করছি। ফ্রেড স্পুর এই গবেষণাটির সাথে যুক্ত নন, কিন্তু এই প্রসঙ্গে তিনি একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রবন্ধ লিখেছেন, যা রেফারেন্সে অংশে দিয়ে দিয়েছি।[৫] তিনি বলছেন, “এই করোটিটি মানব বিবর্তনের আরেকটি সেলিব্রিটি চরিত্র তৈরি করতে যাচ্ছে। Australopithecus গণটির উদ্ভব নিয়ে আমাদের যে চিন্তাধারাটি রয়েছে, এই আবিষ্কারটি তাকে উল্লেখযোগ্য পরিমাণে প্রভাবিত করবে।

এখানে আবিষ্কৃত মাথার খুলি ও তার রিকনস্ট্রাকশনের ছবিটি দেয়া হল -
https://i1.wp.com/www.nastikya.com/wp-content/uploads/2019/08/Capture-
4.png?zoom=1.25&resize=628%2C445&ssl=1


তথ্যসূত্র -
১। https://www.nature.com/articles/s41586-019-1513-8
২। https://www.nature.com/articles/s41586-019-1514-7
৩। https://www.iflscience.com/plants-and-animals/lucy-australopithecus-fi
ve-things-you-may-not-have-known-0/

৪। https://www.nhm.ac.uk/our-science/departments-and-staff/staff-director
y/fred-spoor.html

৫। https://www.nature.com/articles/d41586-019-02520-9

191 বার পঠিত (সেপ্টেম্বর ২০১৮ থেকে)

শেয়ার করুন


Avatar: Sumit Roy

Re: মানুষের একজন প্রাচীন পূর্বপুরুষের করোটি আমাদেরকে দিচ্ছে আমাদের বিবর্তনীয় ইতিহাস সম্পর্কে নতুন ধারণা

টইতে তুললাম
Avatar: S

Re: মানুষের একজন প্রাচীন পূর্বপুরুষের করোটি আমাদেরকে দিচ্ছে আমাদের বিবর্তনীয় ইতিহাস সম্পর্কে নতুন ধারণা

মন ভরলো না। আরো বিস্তারিত লেখা চাই।


আপনার মতামত দেবার জন্য নিচের যেকোনো একটি লিংকে ক্লিক করুন