RSS feed

দ'এর খেরোর খাতা।

আরও পড়ুন...
সাম্প্রতিক লেখালিখি RSS feed
  • দক্ষিণের কড়চা
    গরু বাগদির মর্মরহস্য➡️মাঝে কেবল একটি একক বাঁশের সাঁকো। তার দোসর আরেকটি ধরার বাঁশ লম্বালম্বি। সাঁকোর নিচে অতিদূর জ্বরের মতো পাতলা একটি খাল নিজের গায়ে কচুরিপানার চাদর জড়িয়ে রুগ্ন বহুকাল। খালটি জলনিকাশির। ঘোর বর্ষায় ফুলে ফেঁপে ওঠে পচা লাশের মতো। যেহেতু এই ...
  • বাংলায় এনআরসি ?
    বাংলায় শেষমেস এনআরসি হবে, না হবে না, জানি না। তবে গ্রামের সাধারণ নিরক্ষর মানুষের মনে তীব্র আতঙ্ক ছড়িয়েছে। আজ ব্লক অফিসে গেছিলাম। দেখে তাজ্জব! এত এত মানু্ষের রেশন কার্ডে ভুল! কয়েকজনের সাথে কথা বলে জানলাম প্রায় সবার ভোটারেও ভুল। সব আইকার্ড নির্ভুল আছে এমন ...
  • যান্ত্রিক বিপিন
    (১)বিপিন বাবু সোদপুর থেকে ডি এন ৪৬ ধরবেন। প্রতিদিন’ই ধরেন। গত তিন-চার বছর ধরে এটাই বিপিন’বাবুর অফিস যাওয়ার রুট। হিতাচি এসি কোম্পানীর সিনিয়র টেকনিশিয়ন, বয়েস আটান্ন। এত বেশী বয়েসে বাড়ি বাড়ি ঘুরে এসি সার্ভিসিং করা, ইন্সটল করা একটু চাপ।ভুল বললাম, অনেকটাই চাপ। ...
  • কাইট রানার ও তার বাপের গল্প
    গত তিন বছর ধরে ছেলের খুব ঘুড়ি ওড়ানোর শখ। গত দুবার আমাকে দিয়ে ঘুড়ি লাটাই কিনিয়েছে কিন্তু ওড়াতে পারেনা - কায়দা করার আগেই ঘুড়ি ছিঁড়ে যায়। গত বছর আমাকে নিয়ে ছাদে গেছিল কিন্তু এই ব্যপারে আমিও তথৈবচ - ছোটবেলায় মাথায় ঢুকিয়ে দেওয়া হয়েছিল ঘুড়ি ওড়ানো "বদ ছেলে" দের ...
  • কুচু-মনা উপাখ্যান
    ১৯৮৩ সনের মাঝামাঝি অকস্মাৎ আমাদের বিদ্যালয়ের ষষ্ঠ(ক) শ্রেণী দুই দলে বিভক্ত হইয়া গেল।এতদিন ক্লাসে নিরঙ্কুশ তথা একচ্ছত্র আধিপত্য বিস্তার করিয়া ছিল কুচু। কুচুর ভাল নাম কচ কুমার অধিকারী। সে ক্লাসে স্বীয় মহিমায় প্রভূত জনপ্রিয়তা অর্জন করিয়াছিল। একটি গান অবিকল ...
  • 'আইনি পথে' অর্জিত অধিকার হরণ
    ফ্যাসিস্ট শাসন কায়েম ও কর্পোরেট পুঁজির স্বার্থে, দীর্ঘসংগ্রামে অর্জিত অধিকার সমূহকে মোদী সরকার হরণ করছে— আলোচনা করলেন রতন গায়েন। দেশে নয়া উদারবাদী অর্থনীতি লাগু হওয়ার পর থেকেই দক্ষিণপন্থার সুদিন সূচিত হয়েছে। তথাপি ১৯৯০-২০১৪-র মধ্যবর্তী সময়ে ...
  • সম্পাদকীয়-- অর্থনৈতিক সংকটের স্বরূপ
    মোদীর সিংহগর্জন আর অর্থনৈতিক সংকটের তীব্রতাকে চাপা দিয়ে রাখতে পারছে না। অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন শেষ পর্যন্ত স্বীকার করতে বাধ্য হয়েছেন যে ভারতের অর্থনীতি সংকটের সম্মুখীন হয়েছে। সংকট কতটা গভীর সেটা তার স্বীকারোক্তিতে ধরা পড়েনি। ধরা পড়েনি এই নির্মম ...
  • কাশ্মীরি পন্ডিত বিতাড়নঃ মিথ, ইতিহাস ও রাজনীতি
    কাশ্মীরে ডোগরা রাজত্ব প্রতিষ্ঠিত হবার পর তাদের আত্মীয় পরিজনেরা কাশ্মীর উপত্যকায় বসতি শুরু করে। কাশ্মীরি ব্রাহ্মণ সম্প্রদায়ের মানুষেরাও ছিলেন। এরা শিক্ষিত উচ্চ মধ্যবিত্ত ও মধ্যবিত্ত শ্রেনি। দেশভাগের পরেও এদের ছেলেমেয়েরা স্কুল কলেজে পড়াশোনা করেছে। অন্যদিকে ...
  • নিকানো উঠোনে ঝরে রোদ
    "তেরশত নদী শুধায় আমাকে, কোথা থেকে তুমি এলে ?আমি তো এসেছি চর্যাপদের অক্ষরগুলো থেকে ..."সেই অক্ষরগুলোকে ধরার আরেকটা অক্ষম চেষ্টা, আমার নতুন লেখায় ... এক বন্ধু অনেকদিন আগে বলেছিলো, 'আঙ্গুলের গভীর বন্দর থেকে যে নৌকোগুলো ছাড়ে সেগুলো ঠিক-ই গন্তব্যে পৌঁছে যায়' ...
  • খানাকুল - ২
    [এর আগে - https://www.guruchan...


বইমেলা হোক বা নাহোক চটপট নামিয়ে নিন রঙচঙে হাতে গরম গুরুর গাইড ।

মাসকাবারি বইপত্তর

অত্যন্ত লজ্জার সাথে স্বীকার করি, আমি রিজিয়া রহমানের নামও জানতাম না। কখনও কোনও আলোচনাতেও শুনি নি। এঁর নাম প্রথম দেখলাম কুলদা রায়ের দেয়ালে, রিজিয়া রহমানের মৃত্যুর পরে অল্প কিছু কথা লিখেছেন। কুলদা'র সংক্ষিপ্ত মূল্যায়নটুকু পড়ে খুবই আগ্রহ জাগে, কুলদা তৎক্ষণাৎ দুটি বইয়ের ই-কপির খোঁজও দেন। এরপরেরদিনই একটি বইয়ের গ্রুপে রিজিয়া রহমানের 'ইজ্জত' গল্পটি পড়ে তীক্ষ্ণ, শক্তিশালী একটি কলমের আন্দাজ পেয়েছিলাম।
.
আজ প্রায় একবসায় শেষ করলাম 'রক্তের অক্ষরে'। কি আশ্চর্য্য লেখনী! নেকুপুষু আতুপুতু মধ্যবিত্তপনার গল্প লেখেন নি ভদ্রমহিলা, এক জোরালো চাবুক সপাটে মেরেছেন প্রচলিত ব্যবস্থা, সমাজ, গুছিয়ে নেওয়া ভদ্রজনের মুখের উপরে। এ গল্প বাংলাদেশের যৌনকর্মীদের এক পাড়ার গল্প, যেখানে নানা জায়গা থেকে মেয়েদের ভুলিয়ে বা চুরি করে নিয়ে এসে বিক্রি করে যায় মেয়েধরা দালালরা। বিবিধ মূল্যে কেনা সেই মেয়েদের দাম উশুল হয় প্রতিদিন খাবলে খুবলে কামড়ে কুমড়ে নেওয়া নারীমাংসে। সেই রৌরব নরকে এক কেমনধারা মেয়ে ইয়াসমিন, বাংলাদেশ সরকারের দেওয়া 'বীরাঙ্গনা' খেতাবপ্রাপ্ত। সেকথা অবশ্য পাড়ার অন্য মেয়েরা জানে না, তারা শুধু জানে ইয়াসমিন যেন কেমন, সবদিন ঘরে খদ্দের বসায় না, ঝগড়াঝাঁটি করে না, রোজ কাগজ পড়ে, বই পড়ে আর একবার যে খদ্দের ইয়াসমিনের ঘরে যায় সে দ্বিতীয়বার আর ওমুখো হয় না।
.
এই 'বীরাঙ্গনা' খেতাবটি স্বাধীন বাংলাদেশ সরকার মুক্তিযুদ্ধে ধর্ষিতা সমস্ত মেয়েকে দিয়েছিল। এটা নিয়ে যে প্রশ্নটা ভাবায়, সব মহিলাই হয়ত মুক্তিযুদ্ধে স্বে্ছায় বা অনিচ্ছায় সরাসরি যুক্ত হন নি, অনেকে হয়ত এমনিই আচমকা খানসেনাদের দ্বারা আক্রান্ত হয়েছেন, অথবা গ্রাম বা বাড়িসুদ্ধ পুরুষকে মেরে ফেলে মেয়েদের লুঠে নিয়ে গেছে, যেমনটা প্রায় সব যুদ্ধেই হয়। পার্টিশানের সময়ও হয়েছে বহু, সব্পক্ষেই। মেয়েরা তো আফটার অল লুটের মাল হিসেবেই গ্রাহ্য অন্তত পৃথিবীর এই কোণটাতে তো বটেই। তা যাঁরা যুদ্ধে সক্রিয় অংশগ্রহণকারিণী নন কিন্তু ধর্ষণের শিকার তাঁদের তো আইনত বিচার পাওয়ার কথা, এটা ফৌজদারী অপরাধ সেই অনুযায়ীই বিচার পাওয়ার কথা। তো, একটা যথেষ্ট হোস্টাইল সমাজে বিচার বা উপযুক্ত সমাজ সংস্কারের বদলে একটা খেতাব দিয়ে আসলে কতটুকু সুবিধে হয়? এই বইয়ে ইয়াসমিনের আখ্যানটুকু এই প্রশ্নটিকেই একেবারে রক্ত মাংসের চেহারায় সামনে দাঁড় করিয়ে দিল।
.
তা'বলে এ বই শুধুই ইয়াসমিনের গল্প বলে না, বলে বকুল বা জাহান-আরার গল্পও বলে, বলে ক্ষমতার ভারসাম্য বদলের গল্পও। বলে নিরুপায় শিশুদের খদ্দের না নিলে দিনের পর দিন মার খাওয়ার, উপোসী থাকার হিংস্র গল্প। আর এইসবকিছুর শেষে পড়ে থাকে এক দমবন্ধ শূন্যতা ও অপার অন্ধকার, জীবনে যেমনটা হয় আর কি।
.
এমন আশ্চর্য্য শক্তিশালী কলমের খোঁজ আগে পাইনি কেন! খোঁজ দেওয়ার জন্য কুলদা রায়কে অজস্র কৃতজ্ঞতা।
.
বইঃ 'রক্তের অক্ষর'
লেখকঃ রিজিয়া রহমান

391 বার পঠিত (সেপ্টেম্বর ২০১৮ থেকে)

শেয়ার করুন


Avatar: দ

Re: মাসকাবারি বইপত্তর

#
Avatar: Ela

Re: মাসকাবারি বইপত্তর

পড়ার ইচ্ছে রইল।

সমাজ সংস্কারের আগে তো নিজেদের সংস্কারের প্রয়োজন। সেটা যে সহজ কাজ নয়। তার থেকে একটা খেতাব বা ক্ষতিপূরণ দিয়ে দেওয়া তো দু’মিনিটের মামলা। ওতেই লোকে ধন্য ধন্য করে।

সার্থক জনম মাগো, জন্মেছি এই দেশে
সার্থক জনম মাগো তোমায় ভালোবেসে
Avatar: i

Re: মাসকাবারি বইপত্তর

মাসকাবারি বই পত্তরের কথা কিঞ্চিৎ ঘন ঘন হউক। খুব দরকার।
Avatar: দ

Re: মাসকাবারি বইপত্তর

এলা ই-কপিতে অসুবিধে না হলে এখান থেকে নামিয়ে নিতে পারেন

http://www.amarboi.com/2015/11/rokter-okkhor-rijiya-rahman.html?m=1&am
p;fbclid=IwAR3QWpzw8T9BVeFXkb0FHTgwnrMuHZvV4cbzOClj3d-WAgg9RTqY4rZv8ww


ছোটাই, ☺
Avatar: avi

Re: মাসকাবারি বইপত্তর

এই বইটার রিভিউ ফেসবুকে দ-দির দেওয়া দেখে নামিয়ে পড়লাম এই দুদিনে। একটানা পুরোটা পড়া যায় নি। থেমে থেমে পড়লাম। চাবুক লেখা। নির্লিপ্তি ভাবটা খুব জোরালো।
Avatar: Ela

Re: মাসকাবারি বইপত্তর

দ, অনেক অনেক ধন্যবাদ।

ই-বুকে আবার অসুবিধে কী, এখন তো এটাই সবথেকে সুবিধে হয়। পড়ে জানাবো।
Avatar: Ela

Re: মাসকাবারি বইপত্তর

দ, পড়ে জানাবো লিখেছিলাম। তাই বলতে এলাম। যদিও বলার কিছু নেই। বড্ড কষ্ট। ফুলমতীর বাচ্চাটার মত একবার চিৎকার করতে পারলে…

আবারও, অনেক ধন্যবাদ আপনাকে বইটি পড়ানোর জন্য।
Avatar: দ

Re: মাসকাবারি বইপত্তর

দু'কথা লিখে দেওয়ায় অভি আর এলা পড়ে ফেললেন - আক আরো টুকটাক লিখে রাখা যাবে নিশ্চিন্তে।
Avatar: স্বাতী রায়

Re: মাসকাবারি বইপত্তর

বইটা পড়লাম। এক সিটিং এই। বলিষ্ঠ লেখা । তবু মনে হল আরও কিছু পাওয়ার ছিল - শেষটা কেমন জোর করে শেষ করা মনে হল।

এই কলাম টা রেগুলার হোক।
Avatar: দ

Re: মাসকাবারি বইপত্তর

আচ্ছা ভিন্নমত পাওয়া গেল।
Avatar: দ

Re: মাসকাবারি বইপত্তর

আচ্ছা ভিন্নমত পাওয়া গেল।


আপনার মতামত দেবার জন্য নিচের যেকোনো একটি লিংকে ক্লিক করুন