Binary RSS feed

Binary এর খেরোর খাতা।

আরও পড়ুন...
সাম্প্রতিক লেখালিখি RSS feed
  • দক্ষিণের কড়চা
    গরু বাগদির মর্মরহস্য➡️মাঝে কেবল একটি একক বাঁশের সাঁকো। তার দোসর আরেকটি ধরার বাঁশ লম্বালম্বি। সাঁকোর নিচে অতিদূর জ্বরের মতো পাতলা একটি খাল নিজের গায়ে কচুরিপানার চাদর জড়িয়ে রুগ্ন বহুকাল। খালটি জলনিকাশির। ঘোর বর্ষায় ফুলে ফেঁপে ওঠে পচা লাশের মতো। যেহেতু এই ...
  • বাংলায় এনআরসি ?
    বাংলায় শেষমেস এনআরসি হবে, না হবে না, জানি না। তবে গ্রামের সাধারণ নিরক্ষর মানুষের মনে তীব্র আতঙ্ক ছড়িয়েছে। আজ ব্লক অফিসে গেছিলাম। দেখে তাজ্জব! এত এত মানু্ষের রেশন কার্ডে ভুল! কয়েকজনের সাথে কথা বলে জানলাম প্রায় সবার ভোটারেও ভুল। সব আইকার্ড নির্ভুল আছে এমন ...
  • যান্ত্রিক বিপিন
    (১)বিপিন বাবু সোদপুর থেকে ডি এন ৪৬ ধরবেন। প্রতিদিন’ই ধরেন। গত তিন-চার বছর ধরে এটাই বিপিন’বাবুর অফিস যাওয়ার রুট। হিতাচি এসি কোম্পানীর সিনিয়র টেকনিশিয়ন, বয়েস আটান্ন। এত বেশী বয়েসে বাড়ি বাড়ি ঘুরে এসি সার্ভিসিং করা, ইন্সটল করা একটু চাপ।ভুল বললাম, অনেকটাই চাপ। ...
  • কাইট রানার ও তার বাপের গল্প
    গত তিন বছর ধরে ছেলের খুব ঘুড়ি ওড়ানোর শখ। গত দুবার আমাকে দিয়ে ঘুড়ি লাটাই কিনিয়েছে কিন্তু ওড়াতে পারেনা - কায়দা করার আগেই ঘুড়ি ছিঁড়ে যায়। গত বছর আমাকে নিয়ে ছাদে গেছিল কিন্তু এই ব্যপারে আমিও তথৈবচ - ছোটবেলায় মাথায় ঢুকিয়ে দেওয়া হয়েছিল ঘুড়ি ওড়ানো "বদ ছেলে" দের ...
  • কুচু-মনা উপাখ্যান
    ১৯৮৩ সনের মাঝামাঝি অকস্মাৎ আমাদের বিদ্যালয়ের ষষ্ঠ(ক) শ্রেণী দুই দলে বিভক্ত হইয়া গেল।এতদিন ক্লাসে নিরঙ্কুশ তথা একচ্ছত্র আধিপত্য বিস্তার করিয়া ছিল কুচু। কুচুর ভাল নাম কচ কুমার অধিকারী। সে ক্লাসে স্বীয় মহিমায় প্রভূত জনপ্রিয়তা অর্জন করিয়াছিল। একটি গান অবিকল ...
  • 'আইনি পথে' অর্জিত অধিকার হরণ
    ফ্যাসিস্ট শাসন কায়েম ও কর্পোরেট পুঁজির স্বার্থে, দীর্ঘসংগ্রামে অর্জিত অধিকার সমূহকে মোদী সরকার হরণ করছে— আলোচনা করলেন রতন গায়েন। দেশে নয়া উদারবাদী অর্থনীতি লাগু হওয়ার পর থেকেই দক্ষিণপন্থার সুদিন সূচিত হয়েছে। তথাপি ১৯৯০-২০১৪-র মধ্যবর্তী সময়ে ...
  • সম্পাদকীয়-- অর্থনৈতিক সংকটের স্বরূপ
    মোদীর সিংহগর্জন আর অর্থনৈতিক সংকটের তীব্রতাকে চাপা দিয়ে রাখতে পারছে না। অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন শেষ পর্যন্ত স্বীকার করতে বাধ্য হয়েছেন যে ভারতের অর্থনীতি সংকটের সম্মুখীন হয়েছে। সংকট কতটা গভীর সেটা তার স্বীকারোক্তিতে ধরা পড়েনি। ধরা পড়েনি এই নির্মম ...
  • কাশ্মীরি পন্ডিত বিতাড়নঃ মিথ, ইতিহাস ও রাজনীতি
    কাশ্মীরে ডোগরা রাজত্ব প্রতিষ্ঠিত হবার পর তাদের আত্মীয় পরিজনেরা কাশ্মীর উপত্যকায় বসতি শুরু করে। কাশ্মীরি ব্রাহ্মণ সম্প্রদায়ের মানুষেরাও ছিলেন। এরা শিক্ষিত উচ্চ মধ্যবিত্ত ও মধ্যবিত্ত শ্রেনি। দেশভাগের পরেও এদের ছেলেমেয়েরা স্কুল কলেজে পড়াশোনা করেছে। অন্যদিকে ...
  • নিকানো উঠোনে ঝরে রোদ
    "তেরশত নদী শুধায় আমাকে, কোথা থেকে তুমি এলে ?আমি তো এসেছি চর্যাপদের অক্ষরগুলো থেকে ..."সেই অক্ষরগুলোকে ধরার আরেকটা অক্ষম চেষ্টা, আমার নতুন লেখায় ... এক বন্ধু অনেকদিন আগে বলেছিলো, 'আঙ্গুলের গভীর বন্দর থেকে যে নৌকোগুলো ছাড়ে সেগুলো ঠিক-ই গন্তব্যে পৌঁছে যায়' ...
  • খানাকুল - ২
    [এর আগে - https://www.guruchan...


বইমেলা হোক বা নাহোক চটপট নামিয়ে নিন রঙচঙে হাতে গরম গুরুর গাইড ।

বার্সিলোনা - পর্ব ১

Binary

ঠিক করেছিলাম আট-নয়দিন স্পেন বেড়াতে গেলে, বার্সিলোনাতেই থাকব। বেড়ানোর সময়টুকুর মধ্যে খুব দৌড় ঝাঁপ, এক দিনে একটা শহর দেখে বা একটা গন্তব্যের দেখার জায়গা ফর্দ মিলিয়ে শেষ করে আবার মাল পত্তর নিয়ে পরবর্তী গন্তব্যের দিকে ভোর রাতে রওনা হওয়া, আর এই করে ১০ দিনে ৮ টা শহর/গন্তব্য দেখে ফেলার মত ফিলোজফিতে আমাদের বিশ্বাস নেই। এমনিতে বেড়াতে যাওয়ার ঠিক তিন রকম ভার্টিকাল থাকে। একনম্বর যতটা সম্ভব হয় ততটা দেখা , দুনম্বর ছুটি উপভোগ করা আর তিন নম্বর নতুন দেশ/শহর/সংস্কৃতি অনুভব করা। এরমধ্যে শেষ দুটোয় গুরুত্ব দেওয়াই আমাদের (মানে সপরিবারে) দস্তুর।

অগাস্টের মাঝামাঝি মেডিটেরিয়ান স্প্যানিশ শহরে বেশ উষ্ণ । যে কদিন ছিলাম, খুব চনচনে রোদ ছিল। তাপমাত্রা ৩৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসের কাছাকাছি। দুপুরে রাস্তায় বেরোলে রীতিমত ঝামাপোড়া গরম। তবে সমুদ্র শহর হলেও ঘেমো গরম নয়, বাতাসে ধোঁয়া ধুলো একেবারেই নেই, আর সন্ধ্যের পরে মনোরম হাওয়া এইসব মিলিয়ে নাতিশীতষ্ণ মনমাতানো পরিবেশ। তো, আমরা বার্সিলোনা ঘুরেছি প্রায় চষে ফেলার মত। পাবলিক বাস, ট্রাম, মেট্রো, ট্যাক্সি তে ঘুরেছি এপ্রান্ত সেপ্রান্ত। পায়ে হেঁটে ঘুরেছি রোজ প্রায় গড়ে ১৩/১৪ কিলোমিটার। ঝাঁ চকচকে রেস্তোরায় যেমন খেয়েছি , তেমনি আবার প্রাণ ভোরে খেয়েছি স্ট্রিট ফুড। ছোট্ট পানশালায় বসে ফ্লেমিঙ্ক নাচ দেখেছি। রাস্তার ফেরিওয়ালার সাথে জিনিস কেনা নিয়ে দরদাম করেছি। রাজপথ ছেড়ে শহরের অলিতে গলিতে ঘুরে বেড়িয়েছি স্থানীয় একটা উৎসব-এর সাজ দেখবো বলে। বাসে-ট্রামে ফান্টুস ছোকরা , রাস্তার পার্কে বয়স্ক মানুষ, হোটেলের প্রগলভা ওয়েট্রেস , রাস্তার ফেরিওয়ালা, ওষুধের দোকানের কর্মচারী যারা-ই একটু ভাঙা ভাঙা ইংরেজি বলতে পারে তাদের সাথে বাকতাল্লা করেছি বিস্তর। ফুটপাথের ধারের চেয়ার সাজানো পান ভোজনের জায়গায় বসে সাংগ্রিয়া খেয়েছি আরাম করে।

দেখার জিনিস যা দেখলাম , তা নিয়ে অনুপুঙ্খ বর্ণনা দিতে যাবোনা। ইচ্ছে হলেই সেসব গুগুল কে জিজ্ঞেস করলে পাওয়া যায়। যেমন একশ বছর ধরে তৈরী হওয়া রোমান ক্যাথলিক চার্চ সাগ্রাদা ফ্যামিলিয়া। স্প্যানিশ আর্কিটেক্ট এন্টোনি গাউদি-র বাড়ি ক্যাসমিলা। পাহাড়ের মাথায় মন্টজিক ক্যাসেল। মেসির ক্লাব এফসি বার্সিলোনার ফুটবল স্টেডিয়াম ক্যাম্প নৌ। মাউন্ট মোন্তাস্রেট আর সেখানে ৮০০ শতকের সান্তামারিয়া মনাস্ট্রি। নয়নাভিরাম ঘন নীল জলের বার্সিলোনা বিচ। ক্লসেরেলা পাহাড়ে পার্ক গুয়েল। সেখানকার চিত্তাকর্ষক স্থাপত্য। বার্সিলোনাআর্ট মিউজিয়াম আর তার সামনে ম্যাজিক ফাউন্টেন আর তার স্তম্ভিত করার মতো জলের খেলা। এসব দেখা তো অবশ্যিকতার মধ্যে পরে। তার চেয়ে বরং সেসব নিয়ে ছোট ছোট অভিজ্ঞতার কথা বলি। আর বলি কিছু মনে রাখার মত মানুষের গল্প।

আমাদের হোটেল থেকে ৫০০ মিটার মত হেঁটে ট্রাম স্টপ। এখানে বলে রাখি বার্সিলোনায় ট্রাম আর মেট্রো , আর দুয়ে মিলে একটা খুব উন্নত মানের ট্রান্সপোর্ট নেটওয়ার্ক আছে। শহরের যেকোনো কোনায় পৌঁছানোর জন্য আদর্শ। এরপরেও আছে অসংখ্য পাবলিক বাস। আর ট্রাম মানে নিশ্চয়ই ভাবছেন না , আমাদের ১৯ শতকের কলকাতার ট্রাম। ট্রাম এখানে শীততাপ নিয়ন্ত্রিত , প্রায় আমাদের কলকাতার লোকাল ট্রেনের মতো গতিময়। তো, প্রথমদিন ট্রাম স্টপে গিয়ে দেখি টিকিট কিনতে হবে অটোম্যাটিক কিয়স্ক থেকে। তাতে অসুবিধা হল , সব আগাপাশতলা স্প্যানিশে। কোনো টিকিটবাবু নেই যে ছাপছাড়া ইংরেজিতে বোঝানো যাবে। প্রথমবার ক্রেডিট কার্ড ঢুকিয়ে কিছু বুঝতে না পেরে গুবলেট হয়ে গ্যালো। তারপর কিছুটা আন্দাজ করে স্টেপ বাই স্টেপ এগোচ্ছি। এক জায়গায় এসে দেখি 'সিক্রেতো নুমরো' তারপরে হিজিবিজি লেখা আর সেখান থেকে নড়ে না। ধুত্তোর। এরমধ্যে দেখি একজন হাফপ্যান্ট পড়া খোঁচা খোঁচা দাড়িওয়ালা রোগা বেঁটে মত লোক ট্রাম ধরতে এসেছে। চেহারা দেখে যদিও ভরসা হচ্ছিল না , তাও কপাল ঠুকে জিজ্ঞেস করলাম কি করতে হবে। সে বেচারা প্রথমে বুঝতে পারে না , আর বুঝতে যে পারছে না সেটা আমায় বোঝাতেও পারছে না। তো নিরুপায় হয়ে তাকে হাত ধরে কিয়স্কের সামনে এনে স্ক্রিন দেখিয়ে মানে জিজ্ঞেস করলাম। সে ভাব করল 'ও হরি, এই ব্যাপার?'। তারপর দুহাত আঁজলা করে গোপন জিনিস লুকোচ্ছে এরকম ভাব দেখালো। আর আমার ধাঁ করে মাথায় খেলে গেল 'সিক্রেতো নুমরো' মানে পিন নাম্বার। তারপরে টিকিট কাটতে আর অসুবুবিধে হয়নি।

** আমি কানাডার মোবাইলের ডাটা বন্ধ করে রেখেছিলাম, পেটমোটা-বিল আসার হার্টএটাক-এর ভয়ে , নয়তো গুগুল ট্রান্সলেটে থাকতে আমি কি ডরাই কভু ভিখারি রাখবে ?

225 বার পঠিত (সেপ্টেম্বর ২০১৮ থেকে)

শেয়ার করুন


Avatar: Binary

Re: বার্সিলোনা - পর্ব ১


Avatar: Binary

Re: বার্সিলোনা - পর্ব ১

মন্সটারেৎ **
Avatar: দ

Re: বার্সিলোনা - পর্ব ১

আহা কদ্দিন বাদে!
লেখো লেখো।
Avatar: sm

Re: বার্সিলোনা - পর্ব ১

binary, র ট্রাভেলগ গুলো পড়তে খুব ভাল লাগে।এটাও নিশ্চয় বেশ সুখপাঠ্য হবে।পড়ছি।
চালিয়ে যান।
Avatar: dc

Re: বার্সিলোনা - পর্ব ১

ভালো লাগলো। ওই তিনটে ভার্টিকালের মধ্যে তৃতীয়্টা আমারও প্রাথমিক উদ্দেশ্য থাকে, তারপর দ্বিতীয়টা, তারপর প্রথমটা। কোন জায়গায় ঘুরতে যাবার আগে মেয়েকে ভার দি সেখানকার খাবার, কালচার ইত্যাদি খুঁজে বার করতে, কোন লোকাল রেস্তোরাঁয় ভালো খাবার পাওয়া যায় সেসব জানতে।
Avatar: shakil

Re: বার্সিলোনা - পর্ব ১

Its really awesome story ... I love it thank you...
https://bestbuycapm.com/best-backpacking-tripod/
Avatar: শিবাংশু

Re: বার্সিলোনা - পর্ব ১

কতোদিনের ইচ্ছে বার্সিলোনা যাবো। একটা গোটা পদ্যও নামিয়ে ফেলেছিলুম না-দেখা শহরটাকে নিয়ে। তাও হয়ে গেলো তিরিশ বছর।

Binaryর সঙ্গে আমার বেড়াতে যাওয়ার ফিলোজফি বেশ মিলছে। বাকি অংশের অপিক্ষে রইলো....
Avatar: খ

Re: বার্সিলোনা - পর্ব ১

খুব সুন্দর। কোন অঞ্চল টায় ছিলেন বুঝতে পারলাম না।


Avatar: Binary

Re: বার্সিলোনা - পর্ব ১

পর্ব ১ তুলে দিলুম
Avatar: খ

Re: বার্সিলোনা - পর্ব ১

যা হরি , আমি নামের সিকোয়েন্স দেখে ভাবলাম আমার প্রশ্ন উত্তর এসে গেছে।


আপনার মতামত দেবার জন্য নিচের যেকোনো একটি লিংকে ক্লিক করুন