Prativa Sarker RSS feed

Prativa Sarkerএর খেরোর খাতা।

আরও পড়ুন...
সাম্প্রতিক লেখালিখি RSS feed
  • আমাদের চমৎকার বড়দা প্রসঙ্গে
    ইয়ে, স-অ-অ-অ-ব দেখছে। বড়দা সব দেখছে। বড়দা স্রেফ দেখেনি ওইখানে এক দিন রাম জন্মালেন, তার পর কারা বিদেশ থেকে এসে যেন ভেঙেটেঙে মসজিদ স্থাপন করল, কেন না বড়দা তখন ঘুমোচ্ছিলেন। ঘুম ভাঙল যখন, চোখ কচলেটচলে দেখলেন মস্ত ব্যাপার এ, বড়দা বললেন, ভেঙে ফেলো মসজিদ, জমি ...
  • ধর্ষকের মৃত্যুদন্ড দিলেই সব সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে ?
    যেকোন নারকীয় ধর্ষণের ঘটনা সংবাদ মাধ্যমে প্রতিফলিত হয়ে সামনে আসার পর নাগরিক হিসাবে আমাদের একটা ঈমানি দায়িত্ব থাকে। দায়িত্বটা হল অভিযুক্ত ধর্ষকের কঠোরতম শাস্তির দাবি করা। কঠোরতম শাস্তি বলতে কারোর কাছে মৃত্যুদন্ড। কেউ একটু এগিয়ে ধর্ষকের পুরুষাঙ্গ কেটে নেওয়ার ...
  • তোমার পূজার ছলে
    বাঙালি মধ্যবিত্তের মার্জিত ও পরিশীলিত হাবভাব দেখতে বেশ লাগে। অপসংস্কৃতি নিয়ে বাঙালি চিরকাল ওয়াকিবহাল ছিল। আজও আছে। বেশ লাগে। কিন্তু, বুকে হাত দিয়ে বলুন, আপনার প্রবল ক্ষোভ ও অপমানে আপনার কি খুব পরিশীলিত, গঙ্গাজলে ধোওয়া আদ্যন্ত সাত্ত্বিক শব্দ মনে পড়ে? না ...
  • The Irishman
    দা আইরিশম্যান। সিনেমা প্রেমীদের জন্য মার্টিন স্করসিসের নতুন বিস্ময়। ট্যাক্সি ড্রাইভার, গুডফেলাস, ক্যাসিনো, গ্যাংস অব নিউইয়র্ক, দা অ্যাভিয়েটর, দ্য ডিপার্টেড, শাটার আইল্যান্ড, দ্য উল্ফ অব ওয়াল স্ট্রিট, সাইলেন্টের পরের জায়গা দা আইরিশম্যান। বর্তমান সময়ের ...
  • তোকে আমরা কী দিইনি?
    পূর্ণেন্দু পত্রী মশাই মার্জনা করবেন -********তোকে আমরা কী দিইনি নরেন?আগুন জ্বালিয়ে হোলি খেলবি বলে আমরা তোকে দিয়েছি এক ট্রেন ভর্তি করসেবক। দেদার মুসলমান মারবি বলে তুলে দিয়েছি পুরো গুজরাট। তোর রাজধর্ম পালন করতে ইচ্ছে করে বলে পাঠিয়ে দিয়েছি স্বয়ং আদবানীজীকে, ...
  • ইশকুল ও আর্কাদি গাইদার
    "জাহাজ আসে, বলে, ধন্যি খোকা !বিমান আসে, বলে, ধন্যি খোকা !এঞ্জিনও যায়, ধন্যি তোরে খোকা !আসে তরুণ পাইওনিয়র,সেলাম তোরে খোকা !"আরজামাস বলে একটা শহর ছিল। ছোট্ট শহর, অনেক দূরের, অন্য মহাদেশে। অনেক ছোটবেলায় চিনে ফেলেছিলাম। ভৌগোলিক দূরত্ব টের পাইনি।টের পেতে দেননি ...
  • ছন্দহীন কবিতা
    একদিন দুঃসাহসের পাখায় ভর করে,ছুঁতে চেয়েছিলাম কবিতার শরীর ।দ্বিখন্ডিত বাংলার মত কবিতা হয়ে উঠলোছন্দহীন ।অর্থহীন যাত্রার “কা কা” চিৎকারে,ছুটে এলোপ্রতিবাদী পাঠক।ছন্দভঙ্গের নায়কডানা ভেঙ্গে পড়িপুঁথি পুস্তকের এক দোকানে।আলোক প্রাপ্তির প্রত্যাশায়,যোগ ধ্যানে কেটে ...
  • হ্যালোউইনের ভূত
    হ্যালোউইন চলে গেল। আমাদের বাড়িতে হ্যালোউইনের রীতি হল মেয়েরা বন্ধুদের সঙ্গে ট্রিক-অর-ট্রিট করতে বেরোয় দল বেঁধে। পেছনে পেছনে চলে মায়েদের দল। আর আমি বাড়িতে থাকি ক্যান্ডি বিতরণ করব বলে। মুহূর্মুহূ কলিং বেল বাজে, আমি হাসি-হাসি মুখে ক্যান্ডির গামলা নিয়ে দরজা ...
  • হয়নি
    তুমি ভালবাসতে চেয়েছিলে।আমিও ।হয়নি।তুমিঅনেক দূর অব্দি চলে এসেছিলে।আমিও ।হয়নি আর পথ চলা।তুমি ফিরে গেলে,জানালে,ভালবাসতে চেয়েছিলেহয়নি। আমি জানলামচেয়ে পাইনি।হয়নি।জলভেজা চোখে ভেসে গেলআমাদের অতীত।স্মিত হেসে সামনে এসে দাঁড়ালোপথদুজনার দু টি পথ।সেপ্টেম্বর ২২, ...
  • তিরাশির শীত
    ১৯৮৩ র শীতে লয়েডের ওয়েস্টইন্ডিজ ভারতে সফর করতে এলো। সেই সময়কার আমাদের মফস্বলের সেই শীতঋতু, তাজা খেজুর রস ও রকমারি টোপা কুলে আয়োজিত, রঙিন কমলালেবু-সুরভিত, কিছু অন্যরকম ছিলো। এত শীত, এত শীত সেই অধুনাবিস্মৃত কালে, কুয়াশাআচ্ছন্ন পুকুরের লেগে থাকা হিমে মাছ ...


বইমেলা হোক বা নাহোক চটপট নামিয়ে নিন রঙচঙে হাতে গরম গুরুর গাইড ।

সম্রাট ও সারমেয়

Prativa Sarker

একটি খুব স্নেহের মেয়ে, বিদেশে পড়াশুনো করছে, সূর্যের নীচে সবকিছু ভালোর জন্যই ওর গভীর ভালবাসা। মাঝে মাঝে পাগলামি করে বটে,আবার শুধরে নেওয়ায় কোন অনীহা নেই।
আমার খুব পছন্দের মানুষ !

সে একদিন লিখলো ইসলামে কুকুর নাপাক জীব। এইটাতে সে ভয়ানক খাপ্পা, কারণ কুকুর তার প্রাণ।

আমি তখন সদ্য গিয়াসউদ্দিন তুঘলকের সমাধিক্ষেত্রে ঢুকছি। আমার সঙ্গে হিস্টরিওয়ালা অমিত মিত্র।Amit Mitra দিল্লীর পুরো ইতিহাস যার ঠোঁটস্থ। কিছুদূরে অপেক্ষা করছে আর এক বন্ধু শুক্লা বোস।

উলটো দিকে তুঘলকাবাদের ধ্বংসস্তূপে মেয়েদের মসজিদ, যার ছাদ বাংলাদেশের কুটিরের মতো ঢালু আর গড়ানে, মীনা বাজারের লম্বা আন্ধার গলি, অজস্র ভগ্ন প্রাসাদকক্ষ দেখে বেরিয়েছি। প্রচণ্ড রোদ। তবু এইবার তার স্রষ্টা গিয়াসউদ্দিন তুঘলকের সমাধি দেখব। পাশে শুয়ে তাঁর ছেলে "পাগলা রাজা" মহম্মদ বিন তুঘলক। আর একপাশে বেগম সাহেবা।

অনেকটা সেতুপথের ওপর দিয়ে গিয়ে তবে এখানে ধুকতে হয়। বোঝাই যায় কয়েক শতাব্দী আগে নীচে বইতো গভীর কালো জল।
অসাধারণ এই আটকোণা লাল পাথরের সৌধ। সবুজ ঘাসের বাগিচায় মোড়া। পাথুরে দেওয়ালের গায়ে গা লাগিয়ে চলা ছাদওয়ালা লম্বা পথ, মোটা পাথুরে স্তম্ভ সারি দিয়ে চলেছে, ঘিরে রেখেছে গোটা সমাধিক্ষেত্রকে। ঢুকেই বাঁদিকে কিছুটা এগোলে বোর্ডে নজর পড়ল। লেখা আছে এখানে রয়েছে সুলতানের আদরের কুকুরের সমাধি।

এক আর্চের ভেতর থেকে উঁকি দিচ্ছে ছোট সাদা পাথরের সমাধি। সেই পোষ্যের নাম কী, কোথা থেকে তাকে আনা হয়েছিল তুঘলকাবাদে, কেমন ছিল তাকে দেখতে, কী তার কাহিনী, সে ব্যাপারে ইতিহাস বড় নিশ্চুপ।

তবু কল্পনা করে নেওয়াই যায় মোঙ্গলদের বার বার হাটিয়ে দিয়ে দিল্লীতে তুঘলক শাসনের প্রতিষ্ঠাতা বীর গিয়াসউদ্দিন যখন ঘোড়ায় চেপে উঠে আসতেন তুঘলকাবাদের প্রধান দ্বার হয়ে প্রশস্ত চড়াই রাস্তায়, তখন উজির নাজির, মোসাহেব আর সৈন্যদলের সবার আগে থাকতো এই চারপেয়ে। প্রভুকে অনেকদিন বাদে দেখতে পাবার উত্তেজনায় সে হাঁপাচ্ছে, লেজ নাড়ছে প্রাণপণ, মুখে অনবরত আনন্দের গর্জন। একমাত্র তারই অনুমোদন ছিল ছ' ফুট লম্বা সুদেহী এই বীরের কাঁধ স্পর্শ করে সটান দাঁড়িয়ে পড়ার, যতক্ষন না প্রভু সস্নেহে তার পিঠ চাপড়ে দেন। কোন সৈন্য এসে শেকল ধরে তাকে নামিয়ে নেয়, তারপর সে হাঁটতে থাকে সুলতানের পাশাপাশি, বার বার মুখ তুলে দ্যাখে প্রভুর গতি প্রাসাদের অভ্যন্তর-মুখী কিনা, ঐ ছড়ানো হাতের পাঞ্জা আবার তাকে সস্নেহে স্পর্শ করে কিনা।

যখন বঙ্গদেশে সুশাসন প্রতিষ্ঠা করে তুঘলকাবাদে ফিরছেন গিয়াসউদ্দিন, তখন দিল্লীর উপকন্ঠে তৈরি হচ্ছে তাঁকে অভ্যর্থনা জানাবার জন্য এক অপূর্ব স্থাপত্য। যখনই সুলতান তার ভেতর প্রবেশ করবেন তখনই সেটা ভেঙ্গে পড়বে তাঁর মাথায়। কনিষ্ঠ পুত্রকে সঙ্গে নিয়ে নিহত হবেন তিনি। এটা দুর্ঘটনা না সিংহাসনলোভীদের ষড়যন্ত্র, তা আজ অব্দি নির্ভুল জানা গেল না। শুধু কল্পনা করে নেওয়া যায় সেখানে উপস্থিত ছিল ঐ অতি বিশ্বস্ত সারমেয়। প্রভুকে আগাম অভ্যর্থনা জানাতে অন্যদের সঙ্গে সেও উপস্থিত ছিল বিজয়মঞ্চে। নাহলে মৃত্যুর পরেও সুলতানের এতো নৈকট্য পাবে কেন এই প্রাসাদপালিত চতুষ্পদ !

আর বাকী থাকে ইসলামে নাপাক সারমেয়। সেও ইতিহাস প্রণোদিত বিতর্কের বিষয়। কোরাণে কোন পশুবিদ্বেষ নেই। বরং পশুপালের পাহারাদার হিসেবে কুকুরের কদর করা হয়েছে। কাহিনী আছে, মরুঅঞ্চলের কোন ভ্রষ্টা ( এই শব্দটি কেবল কাহিনীর মূল সুরকে ধরবার প্রচেষ্টায় ব্যবহৃত) আর কোনো পাত্র না পেয়ে পায়ের মোজা খুলে মৃতপ্রায় সারমেয়কে জলপান করিয়েছিলেন বলে তার ইচ্ছানুযায়ী সমস্ত অতীতের ভার লাঘব করা হয়েছিল।

পরবর্তী হাদিশে দেখা যায় কুকুরকে বা আরো নির্দিষ্ট করে বলতে গেলে কুকুরের লালা পরিহার করবার কথা।

একটি মানবগোষ্ঠী অনেক পথ হেঁটে এসেছেন। এখন তাঁদের কী মনোভাব জানতে উৎসুক।

123 বার পঠিত (সেপ্টেম্বর ২০১৮ থেকে)

শেয়ার করুন



আপনার মতামত দেবার জন্য নিচের যেকোনো একটি লিংকে ক্লিক করুন