souvik ghoshal RSS feed

souvik ghoshalএর খেরোর খাতা।

আরও পড়ুন...
সাম্প্রতিক লেখালিখি RSS feed
  • লাল ঝুঁটি কাকাতুয়া
    -'একটা ছিল লাল ঝুঁটি কাকাতুয়া।আর ছিল একটা নীল ঝুঁটি মামাতুয়া।'-'এরা কারা?' মেয়েটা সঙ্গে সঙ্গে চোখ বড়ো করে অদ্ভুত লোকটাকে জিজ্ঞেস করে।-'আসলে কাকাতুয়া আর মামাতুয়া এক জনই। ওর আসল নাম তুয়া। কাকা-ও তুয়া বলে ডাকে, মামা-ও ডাকে তুয়া।'শুনেই মেয়েটা ফিক করে হেসে ...
  • স্টার্ট-আপ সম্বন্ধে দুচার কথা যা আমি জানি
    স্টার্ট-আপ সম্বন্ধে দুচার কথা যা আমি জানি। আমি স্টার্ট-আপ কোম্পানিতে কাজ করছি ১৯৯৮ সাল থেকে। সিলিকন ভ্যালিতে। সময়ের একটা আন্দাজ দিতে বলি - গুগুল তখনও শুধু সিলিকন ভ্যালির আনাচে-কানাচে, ফেসবুকের নামগন্ধ নেই, ইয়াহুর বয়েস বছর চারেক, অ্যামাজনেরও বেশি দিন হয়নি। ...
  • মৃণাল সেন : এক উপেক্ষিত চলচ্চিত্রকার
    [আজ বের্টোল্ট ব্রেশট-এর মৃত্যুদিন। ভারতীয় চলচ্চিত্রে যিনি সার্থকভাবে প্রয়োগ করেছিলেন ব্রেশটিয় আঙ্গিক, সেই মৃণাল সেনকে নিয়ে একটি সামান্য লেখা।]ভারতীয় চলচ্চিত্রের ইতিহাসে কীভাবে যেন পরিচালক ত্রয়ী সত্যজিৎ-ঋত্বিক-মৃণাল এক বিন্দুতে এসে মিলিত হন। ১৯৫৫-তে মুক্তি ...
  • দময়ন্তীর সিজনস অব বিট্রেয়াল পড়ে
    পড়লাম সিজনস অব বিট্রেয়াল গুরুচন্ডা৯'র বই দময়ন্তীর সিজনস অব বিট্রেয়াল। বইটার সঙ্গে যেন তীব্র সমানুভবে জড়িয়ে গেলাম। প্রাককথনে প্রথম বাক্যেই লেখক বলেছেন বাঙাল বাড়ির দ্বিতীয় প্রজন্মের মেয়ে হিসেবে পার্টিশন শব্দটির সঙ্গে পরিচিতি জন্মাবধি। দেশভাগ কেতাবি ...
  • দুটি পাড়া, একটি বাড়ি
    পাশাপাশি দুই পাড়া - ভ-পাড়া আর প-পাড়া। জন্মলগ্ন থেকেই তাদের মধ্যে তুমুল টক্কর। দুই পাড়ার সীমানায় একখানি সাতমহলা বাহারী বাড়ি। তাতে ক-পরিবারের বাস। এরা সম্ভ্রান্ত, উচ্চশিক্ষিত। দুই পাড়ার সাথেই এদের মুখ মিষ্টি, কিন্তু নিজেদের এরা কোনো পাড়ারই অংশ মনে করে না। ...
  • পরিচিতির রাজনীতি: সন্তোষ রাণার কাছে যা শিখেছি
    দিলীপ ঘোষযখন স্কুলের গণ্ডি ছাড়াচ্ছি, সন্তোষ রাণা তখন বেশ শিহরণ জাগানাে নাম। গত ষাটের দশকের শেষার্ধ। সংবাদপত্র, সাময়িক পত্রিকা, রেডিও জুড়ে নকশালবাড়ির আন্দোলনের নানা নাম ছড়িয়ে পড়ছে আমাদের মধ্যে। বুঝি না বুঝি, পকেটে রেড বুক নিয়ে ঘােরাঘুরি ফ্যাশন হয়ে ...
  • দক্ষিণের কড়চা
    (টিপ্পনি : দক্ষিণের কথ্যভাষার অনেক শব্দ রয়েছে। না বুঝতে পারলে বলে দেব।)দক্ষিণের কড়চা▶️এখানে মেঘ ও ভূমি সঙ্গমরত ক্রীড়াময়। এখন ভূমি অনাবৃত মহিষের মতো সহস্রবাসনা, জলধারাস্নানে। সামাদভেড়ির এই ভাগে চিরহরিৎ বৃক্ষরাজি নুনের দিকে চুপিসারে এগিয়ে এসেছে যেন ...
  • জোড়াসাঁকো জংশন ও জেনএক্স রকেটপ্যাড-১৪
    তোমার সুরের ধারা ঝরে যেথায়...আসলে যে কোনও শিল্প উপভোগ করতে পারার একটা বিজ্ঞান আছে। কারণ যাবতীয় পারফর্মিং আর্টের প্রাসাদ পদার্থবিদ্যার সশক্ত স্তম্ভের উপর দাঁড়িয়ে থাকে। পদার্থবিদ্যার শর্তগুলি পূরণ হলেই তবে মনন ও অনুভূতির পর্যায় শুরু হয়। যেমন কণ্ঠ বা যন্ত্র ...
  • উপনিবেশের পাঁচালি
    সাহেবের কাঁধে আছে পৃথিবীর দায়ভিন্নগ্রহ থেকে তাই আসেন ধরায়ঐশী শক্তি, অবতার, আয়ুধাদি সহসকলে দখলে নেয় দুরাচারী গ্রহমর্ত্যলোকে মানুষ যে স্বভাবে পীড়িতমূঢ়মতি, ধীরগতি, জীবিত না মৃতঠাহরই হবে না, তার কীসে উপশমসাহেবের দুইগালে দয়ার পশমঘোষণা দিলেন ওই অবোধের ...
  • ৪৬ হরিগঙ্গা বসাক রোড
    পুরোনো কথার আবাদ বড্ড জড়িয়ে রাখে। যেন রাহুর প্রেমে - অবিরাম শুধু আমি ছাড়া আর কিছু না রহিবে মনে। মনে তো কতো কিছুই আছে। সময় এবং আরো কত অনিবার্যকে কাটাতে সেইসব মনে থাকা লেখার শুরু খামখেয়ালে, তাও পাঁচ বছর হতে চললো। মাঝে ছেড়ে দেওয়ার পর কিছু ব্যক্তিগত প্রসঙ্গ ...


বইমেলা হোক বা নাহোক চটপট নামিয়ে নিন রঙচঙে হাতে গরম গুরুর গাইড ।

ইতিহাসবিদ সব্যসাচী ভট্টাচার্য

souvik ghoshal

আধুনিক ভারতের ইতিহাস চর্চায় সব্যসাচী ভট্টাচার্য এক উল্লেখযোগ্য নাম। গবেষক লেখক শিক্ষক এবং শিক্ষা প্রশাসক হিসেবে তাঁর অবদান বিশেষ উল্লেখযোগ্য। সবসাচীবাবুর বিদ্যালয় শিক্ষা বালিগঞ্জ গভর্মেন্ট হাই স্কুলে। তারপর পড়তে আসেন প্রেসিডেন্সি কলেজের ইতিহাস বিভাগে। সেখানে তখন অধ্যাপণা করছেন প্রবাদ প্রতিম শিক্ষক সুশোভন সরকার। ইতিহাস কীভাবে পড়তে হয়, কীভাবে প্রশ্ন তুলতে হয়, সমস্যাকে বিশ্লেষণ করতে হয় সুশোভনবাবুর কাছ থেকে যোগ্য ছাত্র হিসেবে তা শিখে নিয়েছিলেন সব্যসাচীবাবু। পরবর্তীকালে দিল্লির জওহরলাল বিশ্ববিদ্যালয়ে দীর্ঘ চার দশক অধ্যাপণা করার সূত্রে ইতিহাস পড়ার সেই পদ্ধতিকে তিনি জীবন্তভাবে শিখিয়ে গেছেন তাঁর ছাত্রদের। তাঁর বিশিষ্ট ছাত্ররা, যাঁদের অনেকেই আজ যশস্বী ইতিহাসবিদ, অত্যন্ত শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করেছেন তাঁদের মাস্টারমশাই সব্যসাচীবাবুর শিক্ষক সত্তাকে। প্রেসিডেন্সি কলেজের পর কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে এবং অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে তিনি পড়াশুনো করেছিলেন।
অসামান্য শিক্ষক – এই পরিচয়ের পাশাপাশি অসামান্য গবেষক হিসেবেও তাঁকে উত্তরকাল মনে রাখবে। তাঁর গবেষণার সূত্রপাত আর এক বিশিষ্ট ইতিহাসবিদ অমলেশ ত্রিপাঠী মহাশয়ের কাছে, কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে। সব্যসাচীবাবুর প্রথম গবেষণা ছিল ব্রিটিশ রাজের অর্থনৈতিক ভিত্তি নিয়ে। এই অসামান্য গবেষণাটি পরিমার্জিত আকারে বই হিসেবে বেরনোর পর তিনি ইতিহাসচর্চার জগতে নজর কাড়েন। এই কাজটিতে সব্যসাচীবাবু দেখিয়েছেন ব্রিটিশ রাজের রাজস্ব তথা কর কাঠামো কেমন ছিল, বিনিয়োগের ধরণ ধারণ কী ছিল, বাজেট কী ধরণের ছিল ইত্যাদি। রজনী পাম দত্তেরা ব্রিটিশ রাজত্বের অর্থনৈতিক ইতিহাসের ওপর যে গবেষণা শুরু করেছিলেন, সেই ধারাতেই অত্যন্ত উল্লেখযোগ্য সংযোজন বলে পরিগণিত হয় সব্যসাচীবাবুর কাজটি।
গবেষণার কাজ শেষ হবার পর অশোক মিত্র ও বরুণ দের আগ্রহে সব্যসাচী ভট্টাচার্য যুক্ত হন ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অব ম্যানেজমেন্ট এ। এখানে থাকতে থাকতেই তিনি পড়তে যান প্রথমে শিকাগো বিশ্ববিদ্যালয়ে এবং তারপর অক্সফোর্ড এ। অক্সফোর্ডে পড়াশুনোর জন্য সব্যসাচীবাবু আগাথা হ্যারিসন ফেলোশিপ পেয়েছিলেন।
অক্সফোর্ড থেকে ফিরে এসে সব্যসাচীবাবু যোগ দেন নবগঠিত জহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগে। তাঁর খ্যাতনামা সহকর্মীদের মধ্যে ছিলেন বিপান চন্দ্র, রোমিলা থাপার, এস গোপাল প্রমুখরা। এখানে তিনি চার দশক অধ্যাপণা করেছেন এবং দেশের অসংখ্য ইতিহাসবিদ, গবেষক, অধ্যাপকদের কাছে তাঁর সেই অধ্যাপণা অমূল্য স্মৃতিতে রূপান্তরিত হয়েছে। এখানে পড়ানোর পাশাপাশিই লেখক ও সম্পাদক হিসেবে তিনি এমন কিছু কাজ করেছেন, ইতিহাসচর্চায় যাদের ভূমিকা অপরিসীম। কেম্ব্রিজ ইকনমিক হিস্ট্রি অব ইন্ডিয়া এবং টুয়ার্ডস ফ্রিডম সিরিজ এর বইগুলো তাঁর সম্পাদনায় প্রকাশিত হয়, ইতিহাস চর্চায় যেগুলি অসামান্য মূল্যবান আকর বলে পরিগণিত। অর্থনৈতিক ইতিহাসের ওপর পাণ্ডিত্যপূর্ণ গ্রন্থরাজির পাশাপাশি সাধারণভাবে আগ্রহী পাঠকের জন্য আকর্ষণীয়ভাবে লেখা তাঁর ‘ঔপনিবেশিক ভারতের অর্থনীতি’ বইটি বিশেষ জনপ্রিয়তা পেয়েছে।
বাংলায় ১৯২০ র দশকে এক নতুন ধরনের রাজনৈতিক ধারার উদ্ভব বিকাশ আমরা লক্ষ্য করি মূলত দেশবন্ধু চিত্তরঞ্জন দাশের নেতৃত্বে। সব্যসাচী ভট্টাচার্য তাঁর ‘দ্য ডিফাইনিং মোমেন্টস ইন বেঙ্গল (১৯২০-৪৭) নামের বিখ্যাত বইতে সে সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করেছেন। অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটি প্রেস থেকে প্রকাশিত এই বইটির একটি বাংলা অনুবাদও হয়েছে ‘বাংলায় সন্ধিক্ষণ’ নামে। বাংলার রাজনীতিতে সেই সময় এক নতুন প্রাদেশিক আবেগের জোয়ার দেখা দিয়েছিল। সব্যসাচীবাবু মনে করেছেন তা ভারতীয় জাতিয়তাবাদের সাথে সাংঘর্ষিক ছিল না সত্য, কিন্তু সর্বাংশে তার অনুগামী না হয়ে নিজস্ব পথে চলার চেষ্টা করেছিল। এই প্রাদেশিক চেতনার বিকাশ যে শুধু বাংলাতেই হয়েছিল তা নয়, ভারতের অন্যান্য কিছু অঞ্চলেও তা বিকাশ লাভ করেছিল। রাজনীতির আঙিনার বাইরে সাহিত্য সংস্কৃতির দিকপাল লেখকদের মধ্যেও এর প্রকাশ লক্ষ্য করা যায়। এই সম্পর্কে সে সময়ের প্রভাবশালী সাহিত্যিক, বিখ্যাত সবুজপত্র পত্রিকার সম্পাদক প্রমথ চৌধুরীর লেখালেখির স্বাক্ষ্য আমরা গ্রহণ করতে পারি।
এই বৈশিষ্ট্য সবচেয়ে তীক্ষ্ণ ও প্রভাবসঞ্চারীভাবে আত্মপ্রকাশ করেছিল অবশ্যই চিত্তরঞ্জন দাশের মাধ্যমে। সেই সময় বাংলায় কংগ্রেসের পুরনো দিনের নেতৃত্ব উমেশচন্দ্র বন্দ্যোপাধ্যায়, বিপিনচন্দ্র পাল প্রমুখদের প্রভাব কমেছে এবং চিত্তরঞ্জন বাংলার সবচেয়ে জনপ্রিয় রাজনৈতিক নেতা হিসেবে সামনে এসেছেন। নতুন ধরনের এক রাজনীতি চিত্তরঞ্জনের মধ্যে দিয়ে আত্মপ্রকাশ করে। সে সময় নির্বাচনী রাজনীতির আত্মপ্রকাশের কারণে আম জনতাকে প্রভাবিত করার একটা তাগিদ উদ্ভূত হয়েছিল। প্রবীণ কংগ্রেসীদের মতো বিলেত ফেরৎ নামী ব্যারিস্টার হলেও চিত্তরঞ্জন রাজনীতির ভাষা হিসেবে ইংরেজীর জায়গায় বাংলাকে স্থান করে দিলেন। পাশাপাশি বাংলার দুই প্রধান সম্প্রদায় হিন্দু মুসলিমের ঐক্যের জায়গাটিতে সবচেয়ে বেশি জোর দিলেন। এই বইতে বাঙালি সত্তার পুনঃনির্মাণের পাশাপাশি যে সমস্ত জরুরী বিষয়গুলো নিয়ে সব্যসাচীবাবু আলোচনা করেছেন তার মধ্যে আছে নতুন ভদ্রমহিলার উদ্ভাবন, জাতিগত ও সাম্প্রদায়িক সত্তা, গান্ধীবাদী রাজনীতি ও তার বিকল্প, বিভেদের রাজনীতির দিনগুলি (১৯৩৬ থেকে ১৯৪৬) এবং আগ্নেয়গিরির মুখে দাঁড়ানো ১৯৪৬-৪৭ এর সময়পর্ব। অবিভক্ত বাংলার শেষ দিনগুলির আলোচনায় তিনি নিয়ে এসেছেন হৃদয়ের বিভাজনের প্রসঙ্গ। দেশভাগ তথা বাংলাভাগ সম্পর্কে শেষতম গবেষণার উপাদানকে প্রৌঢ়ত্বের সীমা পেরিয়ে আসা বইতে যেভাবে তিনি সমন্বিত ও বিশ্লেষণ করেছেন, তা ইতিহাসবিদ হিসেবে তাঁর অসামান্যতার পরিচয় বহন করে।
১৯১৫ থেকে ১৯৪১ পর্যন্ত সময়কাল জুড়ে গান্ধী ও রবীন্দ্রনাথের মধ্যবর্তী পত্রালাপ ও বিতর্কগুলি নিয়ে সব্যসাচী ভট্টাচার্যের সম্পাদিত ও সংকলিত ‘দ্য মহাত্মা অ্যান্ড দ্য পোয়েট’ বইটি এ যুগের অন্যতম প্রধান দুই মনীষীর সম্পর্ক ও চিন্তাভাবনা বুঝতে অত্যন্ত কার্যকরী। বইটির শুরুতে যে অসামান্য ভূমিকা লিখেছেন সব্যসাচীবাবু তা গান্ধী রবীন্দ্রনাথ চর্চায় এক গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। ‘বন্দে মাতরম : দ্য বায়োগ্রাফি অফ এ সঙ’ সব্যসাচীবাবুর একটি ব্যতিক্রমী বই, যেখানে একটি গানকে ধরে ইতিহাসের নানা পরত উন্মোচিত হয়েছে। কিশোরদের জন্য তিনি গৌতম বুদ্ধের একটি জীবনী গ্রন্থও লিখেছেন। শ্রমিক আন্দোলনের ইতিহাস নিয়ে সব্যসাচীবাবু যে কাজ করেছেন তা ইতিহাসবিদদের পাশাপাশি রাজনীতি ও ট্রেড ইউনিয়ন জগতের মানুষজনের কাছেও খুব গুরুত্বপূর্ণ মনে হবে।
প্রশাসক হিসেবে সব্যসাচীবাবুর দক্ষতার পরিচয় আছে বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য হিসেবে কাজের মধ্যে। ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অব হিস্টোরিক্যাল রিসার্চ এবং সেন্টার ফর স্টাডিজ ইন সোশ্যাল সায়েন্সেস, কোলকাতার চেয়ারম্যান হিসেবেও তিনি তাঁর পারদর্শিতার পরিচয় দিয়েছেন। তাঁর মৃত্যুর মধ্যে দিয়ে আধুনিক ভারতের ইতিহাসচর্চার একটা উজ্জ্বল অধ্যায়ের সমাপ্তি ঘটল।


56 বার পঠিত (সেপ্টেম্বর ২০১৮ থেকে)

শেয়ার করুন



আপনার মতামত দেবার জন্য নিচের যেকোনো একটি লিংকে ক্লিক করুন