Muhammad Sadequzzaman Sharif RSS feed

Muhammad Sadequzzaman Sharifএর খেরোর খাতা।

আরও পড়ুন...
সাম্প্রতিক লেখালিখি RSS feed
  • ধর্ষকের মৃত্যুদন্ড দিলেই সব সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে ?
    যেকোন নারকীয় ধর্ষণের ঘটনা সংবাদ মাধ্যমে প্রতিফলিত হয়ে সামনে আসার পর নাগরিক হিসাবে আমাদের একটা ঈমানি দায়িত্ব থাকে। দায়িত্বটা হল অভিযুক্ত ধর্ষকের কঠোরতম শাস্তির দাবি করা। কঠোরতম শাস্তি বলতে কারোর কাছে মৃত্যুদন্ড। কেউ একটু এগিয়ে ধর্ষকের পুরুষাঙ্গ কেটে নেওয়ার ...
  • তোমার পূজার ছলে
    বাঙালি মধ্যবিত্তের মার্জিত ও পরিশীলিত হাবভাব দেখতে বেশ লাগে। অপসংস্কৃতি নিয়ে বাঙালি চিরকাল ওয়াকিবহাল ছিল। আজও আছে। বেশ লাগে। কিন্তু, বুকে হাত দিয়ে বলুন, আপনার প্রবল ক্ষোভ ও অপমানে আপনার কি খুব পরিশীলিত, গঙ্গাজলে ধোওয়া আদ্যন্ত সাত্ত্বিক শব্দ মনে পড়ে? না ...
  • The Irishman
    দা আইরিশম্যান। সিনেমা প্রেমীদের জন্য মার্টিন স্করসিসের নতুন বিস্ময়। ট্যাক্সি ড্রাইভার, গুডফেলাস, ক্যাসিনো, গ্যাংস অব নিউইয়র্ক, দা অ্যাভিয়েটর, দ্য ডিপার্টেড, শাটার আইল্যান্ড, দ্য উল্ফ অব ওয়াল স্ট্রিট, সাইলেন্টের পরের জায়গা দা আইরিশম্যান। বর্তমান সময়ের ...
  • তোকে আমরা কী দিইনি?
    পূর্ণেন্দু পত্রী মশাই মার্জনা করবেন -********তোকে আমরা কী দিইনি নরেন?আগুন জ্বালিয়ে হোলি খেলবি বলে আমরা তোকে দিয়েছি এক ট্রেন ভর্তি করসেবক। দেদার মুসলমান মারবি বলে তুলে দিয়েছি পুরো গুজরাট। তোর রাজধর্ম পালন করতে ইচ্ছে করে বলে পাঠিয়ে দিয়েছি স্বয়ং আদবানীজীকে, ...
  • ইশকুল ও আর্কাদি গাইদার
    "জাহাজ আসে, বলে, ধন্যি খোকা !বিমান আসে, বলে, ধন্যি খোকা !এঞ্জিনও যায়, ধন্যি তোরে খোকা !আসে তরুণ পাইওনিয়র,সেলাম তোরে খোকা !"আরজামাস বলে একটা শহর ছিল। ছোট্ট শহর, অনেক দূরের, অন্য মহাদেশে। অনেক ছোটবেলায় চিনে ফেলেছিলাম। ভৌগোলিক দূরত্ব টের পাইনি।টের পেতে দেননি ...
  • ছন্দহীন কবিতা
    একদিন দুঃসাহসের পাখায় ভর করে,ছুঁতে চেয়েছিলাম কবিতার শরীর ।দ্বিখন্ডিত বাংলার মত কবিতা হয়ে উঠলোছন্দহীন ।অর্থহীন যাত্রার “কা কা” চিৎকারে,ছুটে এলোপ্রতিবাদী পাঠক।ছন্দভঙ্গের নায়কডানা ভেঙ্গে পড়িপুঁথি পুস্তকের এক দোকানে।আলোক প্রাপ্তির প্রত্যাশায়,যোগ ধ্যানে কেটে ...
  • হ্যালোউইনের ভূত
    হ্যালোউইন চলে গেল। আমাদের বাড়িতে হ্যালোউইনের রীতি হল মেয়েরা বন্ধুদের সঙ্গে ট্রিক-অর-ট্রিট করতে বেরোয় দল বেঁধে। পেছনে পেছনে চলে মায়েদের দল। আর আমি বাড়িতে থাকি ক্যান্ডি বিতরণ করব বলে। মুহূর্মুহূ কলিং বেল বাজে, আমি হাসি-হাসি মুখে ক্যান্ডির গামলা নিয়ে দরজা ...
  • হয়নি
    তুমি ভালবাসতে চেয়েছিলে।আমিও ।হয়নি।তুমিঅনেক দূর অব্দি চলে এসেছিলে।আমিও ।হয়নি আর পথ চলা।তুমি ফিরে গেলে,জানালে,ভালবাসতে চেয়েছিলেহয়নি। আমি জানলামচেয়ে পাইনি।হয়নি।জলভেজা চোখে ভেসে গেলআমাদের অতীত।স্মিত হেসে সামনে এসে দাঁড়ালোপথদুজনার দু টি পথ।সেপ্টেম্বর ২২, ...
  • তিরাশির শীত
    ১৯৮৩ র শীতে লয়েডের ওয়েস্টইন্ডিজ ভারতে সফর করতে এলো। সেই সময়কার আমাদের মফস্বলের সেই শীতঋতু, তাজা খেজুর রস ও রকমারি টোপা কুলে আয়োজিত, রঙিন কমলালেবু-সুরভিত, কিছু অন্যরকম ছিলো। এত শীত, এত শীত সেই অধুনাবিস্মৃত কালে, কুয়াশাআচ্ছন্ন পুকুরের লেগে থাকা হিমে মাছ ...
  • ‘দাদাগিরি’-র ভূত এবং ভূতের দাদাগিরি
    রণে, বনে, জলে, জঙ্গলে, শ্যাওড়া গাছের মাথায়, পরীক্ষার প্রশ্নপত্রে, ছাপাখানায় এবং সুখী গৃহকোণে প্রায়শই ভূত দেখা যায়, সে নিয়ে কোনও পাষণ্ড কোনওদিনই সন্দেহ প্রকাশ করেনি । কিন্তু তাই বলে দুরদর্শনে, প্রশ্নোত্তর প্রতিযোগিতার অনুষ্ঠানেও ? আজ্ঞে হ্যাঁ, দাদা ভরসা ...


বইমেলা হোক বা নাহোক চটপট নামিয়ে নিন রঙচঙে হাতে গরম গুরুর গাইড ।

লে. জে. হু. মু. এরশাদ

Muhammad Sadequzzaman Sharif

বাংলাদেশের রাজনৈতিক ইতিহাসের একটা অধ্যায় শেষ হল। এমন একটা চরিত্রও যে দেশের রাজনীতিতে এত গুরুত্বপূর্ণ অবস্থানে থাকতে পারে তা না দেখলে বিশ্বাস করা মুশকিল ছিল, এ এক বিরল ঘটনা। মুক্তিযুদ্ধকালীন সময়ে যুদ্ধ না করে কোন সামরিক অফিসার বাড়িতে ঘাপটি মেরে বসে ছিলেন আবার পরবর্তীতে ঘটনার ঘূর্ণিপাকে সেই দেশের প্রধান হয়ে দেশ চালিয়েছেন! এ কী সোজা কথা? দেশ চালিয়েছেন, স্বৈরশাসক হিসেবে পরিচিতি পেয়েছেন, বিশ্ব বেহায়া খেতাব পেয়েছিলেন শিল্পী কামরুল হাসানের কাছ থেকে, জেল খেটেছেন, জেল থেকে বের হয়ে আবার রাজনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ অবস্থানে চলে গেছেন! একজন পুরুষের বা একজন ক্ষমতাবান পুরুষের যতপ্রকার দোষ থাকা সম্ভব তার বেশিরভাগ নিয়ে বসে ছিলেন অথচ দেশের অনেক মানুষ, যারা তার ভক্ত তারা তাকে খাটি মুসলিম, ইসলাম প্রেমিক হিসেবে মানেন! ভণ্ডামির মাত্রা কোন পর্যায় গেলে এমন সম্ভব হয় জানা নেই, এর মনে হয় মাত্রা নেইও, তিনি নিজেই একটা মাত্রা, পাল্লার বাটখারা! কোন মাপের ভণ্ড? অর্ধেক এরশাদ না পুরো এরশাদ?

আজকে আওয়ামীলীগ ক্ষমতায়। ক্ষমতার হিসেবটা অন্য রকম। তাই লালদীঘি ময়দানে জে এরশাদ শেখ হাসিনাকে মেরে ফেলতে সোজা গুলি চালিয়ে দিয়েছিল, জনসভায় আসা ২৪ জন মানুষ গুলিতে মারা যায়, শেখ হাসিনা নিজে নিশ্চিত মৃত্যুর হাত থেকে বেঁচে জান, সেই এরশাদের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ হয়েছে প্রধানমন্ত্রীর তরফ থেকে, রাষ্ট্রপতির তরফ থেকে! পিছিয়ে নেই ছাত্রলীগও, শোক প্রকাশ করেছে তারাও, যদিও এরশাদ বিরোধী আন্দোলনে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় যুগ্ম সম্পাদক এবং ঢাবি ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শহীদ রাউফুন বসুনিয়া নিহত হোন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে তাঁর আবক্ষ ভাস্কর্য আছে। ছাত্রলীগ প্রতি বছর তাতে ফুল দেয় । আসলেই রাজনীতিতে সম্ভবত শেষ বলে কিছুই নেই।

হুমায়ুন আজাদ লিখেছিলেন - “খলতা , ভণ্ডামো, ভাঁড়ামো,নারী লিপ্সা, চরিত্রহীনতা, অভিনয়, দুর্নীতিতে এরশাদ তুলনাহীন, সে গোপাল ভাঁড় ও ক্যাসানোভা ও জল্লাদের এক তিক্ত মিশ্রণ । এমন কোন কোন অপরাধ নেই যা সে করে নি , এমন কোন পদ্ম নেই যা সে দূষিত করে নি, এবং সে আমাদের প্রচুর মজাও দিয়েছে । ধর্ম থেকে কবিতা পর্যন্ত সবকিছু সে নষ্ট করে।” এ সব কোন কিছুই তাকে স্পর্শ করেনি। সদা হাস্যমুখে সকল অপমান দারুণ ভাবে, কোন এক অলৌকিক ক্ষমতায় নিজের পক্ষে নিয়ে গেছেন, কখনো কথার মাধ্যমে, কখনো কাজের মাধ্যমে, মিথ্যে কথার ফুলঝুরিতে তিনি সকল অপমানকে নিজের পক্ষে নিয়ে গেছেন। ক্ষমতায় থাকাকালীন নিজেকে বাঁচানোর জন্য এক অদ্ভুত আইন বানিয়েছিলেন, যে আইনে আকারে-ইঙ্গিতে কেউ তার সামরিক শাসনের সমালোচনা বা বিরোধিতা করলে সাত বছরের সশ্রম কারাদণ্ডের বিধান রাখা হয়।কিন্তু শেষ রক্ষা হয়নি। ছাত্ররাই টেনে নামিয়েছিল ক্ষমতার মসনদ থেকে।

এদেশেই সম্ভব এসব। সব সম্ভবের দেশ বাংলাদেশ। সকালে মারা গেছে এরশাদ, এর মধ্যে যে পরিমাণ শোক প্রকাশ শুরু হয়েছে তা দেখে মনে হচ্ছে কোন রেকর্ড ফেকর্ড করে ফেলেও ফেলতে পারে। শোকবার্তা দিয়ে ভাসিয়ে দেওয়াদের নিয়ে চিন্তা নেই, এরা নুর হোসেন দিবস পালন করে আবার এরশাদের গালেও চুমু খায়! এরা দাবি করে স্বাধীন বাংলাদেশের পক্ষের জনতা আবার গোলাম আজমের জানাজায় ভিড় করে। বুক ফুলিয়ে বলে দেখছ, কত্ত মানুষ হইছে?

তিনি মারা গেলেন এবং মরে বেঁচে গেলেন। মঞ্জুরের পরিবারকে আর মিথ্যা বিশ্বাস নিয়ে বাঁচতে হবে না যে একদিন মঞ্জুর হত্যার বিচার হবে। কিংবা এখন হয়ত আদালতের সময় হবে বিচার শেষ করার। ৩৫ বছর পর তাহেরের পরিবার তাহের হত্যার বিচার পেয়েছিল। মঞ্জুরের পরিবারকে আর কত অপেক্ষা করতে হবে কে জানে? তবে বিচারের বানী উচ্চারিত হওয়া জরুরি। এখন আর কোন হিসেব নিকেশ নেই, এখন আর দাবার চল পরিবর্তন হবে না, এখন অন্তত সত্যটা উচ্চারিত হোক। মঞ্জুরের পরিবার অন্তত জানুক বিচার হয়েছে।
দুঃখিত, এরশাদের জন্য শোক বাণী আমার কাছে নাই।





259 বার পঠিত (সেপ্টেম্বর ২০১৮ থেকে)

শেয়ার করুন


Avatar: aranya

Re: লে. জে. হু. মু. এরশাদ

'দেশের অনেক মানুষ, যারা তার ভক্ত তারা তাকে খাটি মুসলিম, ইসলাম প্রেমিক হিসেবে মানেন'
- খাঁটি মুসলিম, ইসলাম প্রেমিক না খুঁজে দেশে লোক যদি খাঁটি মানুষ, মানবপ্রেমিক নেতা খুঁজতেন, ভাল হত
Avatar: বিপ্লব রহমান

Re: লে. জে. হু. মু. এরশাদ

সব শালা কবি হবে; পিপড়ে গোঁ ধরেছে, উড়বেই; বন থেকে দাঁতাল শুয়োর রাজাসনে বসবেই;" (মোহাম্মদ রফিক/ খোলা কবিতা)...

১৯৯০ এ জেনারেল এরশাদ বিরোধী ছাত্র আন্দোলনের সময়ে লেখা আগুন ঝরানো কবিতা।


আপনার মতামত দেবার জন্য নিচের যেকোনো একটি লিংকে ক্লিক করুন