বিপ্লব রহমান RSS feed

বিপ্লব রহমানের ভাবনার জগৎ *(c) লেখার স্বত্ত্ব : লেখক।

আরও পড়ুন...
সাম্প্রতিক লেখালিখি RSS feed
  • আর কিছু নয়
    প্রতিদিন পণ করি, তোমার দুয়ারে আর পণ্য হয়ে থাকা নয় ।তারপর দক্ষিণা মলয়ের প্রভাবে, পণ ভঙ্গ করে, ঠিক ঠিকখুলে দেই নিজের জানা-লা। তুমি ভাব, মূল্য পড়ে গেছে।আমি ভাবি, মূল্য বেড়ে গেছে।কখন যে কার মূল্য বাড়ে আর কার কমে , এই কথা ক'জনাই বা জানে?এই না-জানাদের দলে আমিই ...
  • একা আমলকী
    বাইরে কে একটা চিৎকার করছে। বাইরে মানে এই ছোট্টো নোংরা কফির দোকানটা, যার বৈশিষ্ট্যহীন টেবিলগুলোর ওপর ছড়িয়ে রয়েছে খাবারের গুঁড়ো আর দেয়ালে ঝোলানো ফ্যাকাশে ছবিটা কোনো জলপ্রপাত নাকি মেয়ের মুখ বোঝা যাচ্ছে না — এই দোকানটার দরজার কাছে দাঁড়িয়ে কেউ চিৎকার করছে। ...
  • গল্পঃ রেড বুকের লোকেরা
    রবিবার। সকাল দশটার মত বাজে।শহরের মিরপুর ডিওএইচেসে চাঞ্চল্যকর খুন। স্ত্রীকে হত্যা করে স্বামী পলাতক।টিভি স্ক্রিণে এই খবর ভাসছে। একজন কমবয়েসী রিপোর্টার চ্যাটাং চ্যাটাং করে কথা বলছে। কথা আর কিছুই নয়, চিরাচরিত খুনের ভাষ্য। বলার ভঙ্গিতে সাসপেন্স রাখার চেষ্টা ...
  • মহাভারতের কথা অমৃতসমান ২
    মহাভারতের কথা অমৃতসমান ২চিত্রগুপ্ত: হে দ্রুপদকন্যা, যজ্ঞাগ্নিসম্ভূতা পাঞ্চালী, বলো তোমার কি অভিযোগ। আজ এ সভায় দুর্যোধন, দু:শাসন, কর্ণ সবার বিচার হবে। দ্রৌপদী: ওদের বিরূদ্ধে আমার কোনও অভিযোগ নেই রাজন। ওরা ওদের ইচ্ছা কখনো অপ্রকাশ রাখেন নি। আমার অভিযোগ ...
  • মহাভারতের কথা অমৃতসমান
    কুন্তী: প্রণাম কুরুজ্যেষ্ঠ্য গঙ্গাপুত্র। ভীষ্ম: আহ্ কুন্তী, সুখী হও। কিন্তু এত রাত্রে? কোনও বিশেষ প্রয়োজন? কুন্তী: কাল প্রভাতেই খান্ডবপ্রস্থের উদ্দেশ্যে যাত্রা করব। তার আগে মনে একটি প্রশ্ন বড়ই বিব্রত করছিল। তাই ভাবলাম, একবার আপনার দর্শন করে যাই। ভীষ্ম: সে ...
  • অযোধ্যা রায়ঃ গণতন্ত্রের প্রত্যাশা এবং আদালত
    বাবরি রায় কী হতে চলেছে প্রায় সবাই জানতেন। তার প্রতিক্রিয়াও মোটামুটি প্রেডিক্টেবল। তবুও সকাল থেকে সোশ্যাল মিডিয়া, মানে মূলতঃ ফেবু আর হোয়াটস অ্যাপে চার ধরণের প্রতিক্রিয়া দেখলাম। বলাই বাহুল্য সবগুলিই রাজনৈতিক পরিচয়জ্ঞাপক। বিজেপি সমর্থক এবং দক্ষিণপন্থীরা ...
  • ফয়সালা বৃক্ষের কাহিনি
    অতিদূর পল্লীপ্রান্তে এক ফয়সালা বৃক্ষশাখায় পিন্টু মাষ্টার ও বলহরি বসবাস করিত । তরুবর শাখাবহুল হইলেও নাতিদীর্ঘ , এই লইয়া , সার্কাস পালানো বানর পিন্টু মাষ্টারের আক্ষেপের অন্ত ছিলনা । এদিকে বলহরি বয়সে অনুজ তায় শিবস্থ প্রকৃতির । শীতের প্রহর হইতে প্রহর ...
  • গেরিলা নেতা এমএন লারমা
    [মানবেন্দ্র নারায়ণ লারমার ব্যক্তি ও রাজনৈতিক জীবনের মধ্যে লেখকের কাছে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ মনে হয়েছে, তার প্রায় এক দশকের গেরিলা জীবন। কারণ এম এন লারমাই প্রথম সশস্ত্র গেরিলা যুদ্ধের মাধ্যমে পাহাড়িদের আত্মনিয়ন্ত্রণের অধিকার প্রতিষ্ঠার স্বপ্ন দেখান। আর তাঁর ...
  • হ্যামলিনের বাঁশিওলা
    হ্যামলিনের বাঁশিওলার গল্পটা জানিস তো? একটা শহরে খুব ইঁদুরের উপদ্রব হয়েছিল। ইঁদুরের জ্বালায় শহরের লোকের ত্রাহি ত্রাহি রব। কিছুতেই ইঁদুর তাড়ান যাচ্ছেনা। এমন সময়ে হ্যামলিন শহর থেকে একজন বাঁশিওলা বাঁশি নিয়ে এল। শহরের মেয়রকে বলল যে উপযুক্ত পারিশ্রমিক পেলে সে ...
  • প্রেমের জীবন চক্র অথবা প্রেমিক-প্রেমিকার
    "তোমার মিলনে বুঝি গো জীবন, বিরহে মরণ"।প্রেমের চরম স্টেজটা পার করতে গিয়ে এই রকম একটা অনুভূতি আসে। একজন আরেকজনকে ছাড়া বাঁচে না। এই স্টেজটা যদি কোনভাবে খারাপের দিকে যায় তখন মানুষের নানা পাগলামি লক্ষ্য করা যায়। কখনো কখনো পাগলামিটা তার গন্ডি ছাড়িয়ে ছাগলামিতে ...


বইমেলা হোক বা নাহোক চটপট নামিয়ে নিন রঙচঙে হাতে গরম গুরুর গাইড ।

নিশুতিরাতে পাহাড়ে প্রলয়

বিপ্লব রহমান

২০১৭ সালের ১২-১৩ জুন রাতে শুরু হয় একের পর এক পাহাড় ধসের যজ্ঞ। এক সঙ্গে রাঙামাটি, খাগড়াছড়ি, বান্দরবান, চট্টগ্রাম ও কক্সবাজারে পাহাড় ধসে ব্যপক হতাহতের খবর চমকে ওঠে দেশ। এরমধ্যে রাঙামাটিই সবচেয়ে বেশী ক্ষতিগ্রস্ত হয়। অতি বৃষ্টি আর পাহাড়ি ঢলে বিপন্ন, লণ্ডভণ্ড হয় পার্বত্য জনপদ।

সে সময় একজন পাহাড়ি বন্ধু ফেসবুকে মাটিচাপা পড়া দুটি নিস্পাপ শিশু ভাইবোনের কাদামাখা নিথর দেহের ছবি পোস্ট করেন। সঙ্গে সঙ্গে কেউ একজন মন্তব্য করেন এরকম, “ছবিটি কেউ সরাবেন প্লিজ? আমি আর নিতে পারছি না!“

গণমাধ্যমের খবরে জানা যায়, ১৪ জুন রাঙামাটি থেকে আরও ১২ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়। এ নিয়ে এ জেলায় পাহাড়ধসে মৃতের সংখ্যা দাঁড়ায় ১০৫ জনে। বান্দরবান ও চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়া থেকে উদ্ধার করা হয় আরও তিনজনের লাশ। সেদিন রাতে নতুন করে পাহাড়ধসে কক্সবাজারের টেকনাফে দুজন, খাগড়াছড়িতে একজন ও চট্টগ্রামের ফটিকছড়ি উপজেলায় আরও একজন মারা যান। সব মিলিয়ে তিন পার্বত্য জেলা এবং চট্টগ্রাম ও কক্সবাজার জেলায় পাহাড়ধসে মারা যান ১৪০ জন।

এ ঘটনার পর নিরাপত্তা বাহিনীর জরুরি উদ্ধার ও ত্রাণ তৎপরতা চালায়। তারা দ্রুততার সাথে সড়ক-ব্রিজ-কালভার্ট মেরামত করে। রাঙামাটি জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সমন্বয় করা হয় ত্রাণ তৎপরতা। সারাদেশের মানুষ হাত বাড়ান পার্বত্য বাসীর সহায়তায়।

লক্ষ্যনীয়, প্রশাসনের পক্ষ থেকে মাসখানেক ধরে আশ্রয় শিবির খুলে ক্ষতিগ্রস্তদের থাকা-খাওয়ার যে ব্যবস্থা করা হয়, সেখানে পাহাড়ি পরিবার প্রায় ছিলই না। বরাবরই দেখা গেছে, পাহাড় ও প্রকৃতি সমর্পকে বাস্তবিক জ্ঞান থাকার কারণে পাহাড় ধসের মতো ঘটনায় আদিবাসী পাহাড়িরা অনেক কম ক্ষতিগ্রস্ত হন।

সবুজ মরুভূমি____________
আমরা যারা প্রাণ-প্রকৃতি পরিবেশ রক্ষার কথা বলি, তারা মানবাধিকার, তথা পরিবেশগত ঝুঁকির কারণেও বহুবছর ধরে পাহাড়ে বহিরাগত বাঙালিদের (যারা স্থানীয়ভাবে ‘সেটেলার‘ হিসেবে পরিচিত) বেআইনি বসতি স্থাপন বন্ধের কথা বলে আসছি।

কিন্তু ভোটের হিসেব কষে পাহাড়ে আদিবাসী পাহাড়িদের সংখ্যালঘু করতে ও বাঙালি সেটেলার ভোট বাড়াতে দিনের পর দিন সেখানে বহিরাগতদের বসতি দেওয়া হয়েছে। নদীভাঙা, হত-দরিদ্র সমতল অঞ্চলের এসব মানুষের পাহাড়-অরণ্য ও প্রকৃতি সম্পর্কে নূন্যতম ধারণা নেই। তাই বন উজার ও গাছ কেটে লাকড়ি সংগ্রহ করা তাদের প্রধান পেশা হয়ে দাঁড়িয়েছে। বসতি গড়তে গিয়ে যথেচ্ছ পাহাড়-টিলা কাটা ছাড়াও রয়েছে বেআইনি ইটভাটার দৌরাত্ব।

রাঙামাটি, খাগড়াছড়ি ও বান্দরবানে শহরের উপকন্ঠেই চোখে পড়বে পাহাড় কেটে নাশ করা অসংখ্য ইটভাটার দৌরাত্ব। এসব নিয়ে প্রতিবেদন করতে গিয়ে কিছুদিন আগেও সাংবাদিক সহকর্মি বুদ্ধজ্যোতি চাকমা প্রভাবশালী মহলের রোষানলে পড়েছেন।

আর দিনের পর দিন পাহাড় থেকে প্রাকৃতিক বন ও বড় বড় গাছ কাটার ফলে কথিত অরণ্যভূমি পার্বত্যাঞ্চল আসলে পরিনত হয়েছে সবুজ মরুভূমিতে। সেখানে ‘গহিন বিস্তৃর্ণ প্রাকৃতিক বন‘ বলতে সত্যিকার অর্থে খুব বেশীকিছু আর নেই, রয়েছে কিছু জঙ্গল।

পর্যটন নগরী রাঙামাটির কথাই বলা যাক। ছোট্ট এ শহর ঘুরলেই চোখে পড়বে যত্রতত্র ছড়িয়ে থাকা প্রায় ২০০টি আসবাবপত্রের দোকান। শাল-সেগুন কাঠের দামী আসবাবপত্র সেসব দোকানে ঠাসা। রাঙামাটিবাসী কতো আসবাব ব্যবহার করেন? আর বিপুল সংখ্যক এতো দামী আসবাবের ক্রেতাই বা এই গরীব পাহাড়ের দেশে কারা?

খোঁজ নিলেই জানা যাবে, এসব আসবাবের মূল ক্রেতা আসলে সেখানে বেড়াতে আসা শহুরে বাবুরা। যেহেতু গণমাধ্যম আগের চেয়ে অনেক বেশী সক্রিয়, তাই সরাসরি এখন দিনেদুপুরে কাঠ পাচার করা যাচ্ছে না। আসবাবপত্র বানিয়ে সেগুলোকে এখন পাচার করা সহজ হয়েছে। পাহাড়ের আসবাব আবার ঢাকাসহ বড় বড় শহরের শোরুমগুলোর শোভা বর্ধন করে চলেছে। আসবাবের আড়ালে কাঠপাচার প্রতিযোগিতায় খাগড়াছড়ি ও বান্দরবানও পিছিয়ে নেই।

আমরা বলি, সর্বজন!_____________
এভাবে রাজনৈতিক কারণে জনসংখ্যার ভারসাম্য নষ্ট করে পাহাড়ে বাঙালি ভোটের পাল্লা ভাড়ি করতে গিয়ে সেখানে বেআইনি বসতি স্থাপন, উন্নয়নের নামে ইটভাটার দৌরাত্ম বৃদ্ধি, যথেচ্ছ পাহাড় ও বনভূমি উজার করার প্রত্যক্ষ ফল হচ্ছে এইসব পাহাড় ধস। গাছ কাটার ফলে গাছের শেকড় আগের মতো মাটি জমাটবদ্ধ করে ধরে রাখতে পারছে না। ফলে সামান্য ভাড়ি বৃষ্টিতেই বেলেমাটির পাহাড়ে ধস নামছে। চাপা পড়ছে জনপদ, বসতঘর, সড়ক যোগাযোগ। [দ্র. শঙ্খ নদী : একটি সংক্ষিপ্ত পর্যালোচনা]

জনসংখ্যার চাপে আগের মতো এখন ১০-১২ বছর পতিত রাখার পর একই পাহাড়ে আবার জুম (পাহাড়ের ঢালে বিশেষ চাষাবাদ) চাষ করা সম্ভব হয় না। পাহাড়ি জুমিয়ারা মাত্র ৫-৬ বছর পর পর একই পাহাড়ে জুম চাষ করছেন। প্রান্তিক জুম চাষীদের জীবন ধারণের আর কোনো পথও খোলা নেই। ফলে পাহাড়গুলো উর্বরতা তো হারাচ্ছেই, ভূমি ক্ষয়ও বাড়ছে। [দ্র. জুম চাষ : একটি সংক্ষিপ্ত পর্যালোচনা]

ভূমির ক্ষয় বাড়তে থাকায় পার্বত্যাঞ্চলে নদী-জলাশয়গুলোও ভরাট হয়ে যাচ্ছে। বান্দরবানের শংখ নদী ভরাট হতে হতে এমন দশা যে, সামান্য বৃষ্টি হলেই খোদ শহরের ভেতরেই নিম্নাঞ্চল তলিয়ে যাচ্ছে, নদী আর আগের মতো পানি ধরে রাখতে পারছে না।

বরাবরই পাহাড় ধসের ঘটনা কিছু না কিছু ঘটে আসছে, সে সবই ছিল বিচ্ছিন্ন ঘটনা। কিন্তু গত এক দশকে এতো বড় একটি ঘটনা নিছক প্রাকৃতিক দুর্যোগ নয়। এর আগে ২০০০ সালে অতিবর্ষণে বান্দরবানের লামার চিয়রতলি এলাকায় ছোটবড় শতাধিক পাহাড় ধসের ঘটনা ঘটে।

এসব ঘটনা প্রমান করে দিচ্ছে, পাহাড়ে বেআইনী বসতি বেড়ে চলেছে। আর সেখানে পরিবেশ বিরুদ্ধ দেদার বসতি স্থাপন ও বন উজাড় বন্ধ না হলে এমন প্রকৃতির প্রতিশোধ হতেই থাকবে।

সবশেষ, এ বছর গত ৮ জুলাই অতি বর্ষণে কাপ্তাইয়ে পাহাড় ধসে শিশুসহ দুজন মারা গেছে। পরিস্থিতি এমন যে, টানা বৃষ্টি হলেই পাহাড়ে আতংক ছড়িয়ে পড়ে।

153 বার পঠিত (সেপ্টেম্বর ২০১৮ থেকে)

শেয়ার করুন



আপনার মতামত দেবার জন্য নিচের যেকোনো একটি লিংকে ক্লিক করুন