Muhammad Sadequzzaman Sharif RSS feed

Muhammad Sadequzzaman Sharifএর খেরোর খাতা।

আরও পড়ুন...
সাম্প্রতিক লেখালিখি RSS feed
  • পার্টিশানের অজানা গল্প ১
    এই ঘোর অন্ধকার সময়ে আরেকবার ফিরে দেখি ১৯৪৭ এর রক্তমাখা দিনগুলোকে। সেই দিনগুলো পার করে যাঁরা বেঁচে আছেন এখনও তাঁদেরই একজনের গল্প রইল আজকে। পড়ুন, জানুন, নিজের দিকে তাকান...============...
  • কাশ্মীরের ইতিহাস : পালাবদলের ৭৫ বছর
    কাশ্মীরের ইতিহাস : পালাবদলের ৭৫ বছর - সৌভিক ঘোষালভারতভুক্তির আগে কাশ্মীর১ব্রিটিশরা যখন ভারত ছেড়ে চলে যাবে এই ব্যাপারটা নিশ্চিত হয়ে গেল, তখন দুটো প্রধান সমস্যা এসে দাঁড়ালো আমাদের স্বাধীনতার সামনে। একটি অবশ্যই দেশ ভাগ সংক্রান্ত। বহু আলাপ-আলোচনা, ...
  • গাম্বিয়া - মিয়ানমারঃ শুরু হল যুগান্তকারী মামলার শুনানি
    নেদারল্যান্ডের হেগ শহরে অবস্থিত আন্তর্জাতিক বিচার আদালতে (ইন্টারন্যাশনাল কোর্ট অব জাস্টিস—আইসিজে) মিয়ানমারের বিরুদ্ধে করা গাম্বিয়ার মামলার শুনানি শুরু হয়েছে আজকে। শান্তি প্রাসাদে শান্তি আসবে কিনা তার আইনই লড়াই শুরু আজকে থেকে। নেদারল্যান্ডের হেগ শহরের পিস ...
  • রাতপরী (গল্প)
    ‘কপাল মানুষের সঙ্গে সঙ্গে যায়। পালানোর কি আর উপায় আছে!’- এই সপ্তাহে শরীর ‘খারাপ’ থাকার কথা। কিন্তু, কিছু টাকার খুবই দরকার। সকালে পেট-না-হওয়ার ওষুধ গিলে, সন্ধেয় লিপস্টিক পাউডার ডলে প্রস্তুত থাকলে কী হবে, খদ্দের এলে তো! রাত প্রায় একটা। এই গলির কার্যত কোনো ...
  • রাতপরী (গল্প)
    ‘কপাল মানুষের সঙ্গে সঙ্গে যায়। পালানোর কি আর উপায় আছে!’- এই সপ্তাহে শরীর ‘খারাপ’ থাকার কথা। কিন্তু, কিছু টাকার খুবই দরকার। সকালে পেট-না-হওয়ার ওষুধ গিলে, সন্ধেয় লিপস্টিক পাউডার ডলে প্রস্তুত থাকলে কী হবে, খদ্দের এলে তো! রাত প্রায় একটা। এই গলির কার্যত কোনো ...
  • বিনম্র শ্রদ্ধা অজয় রায়
    একুশে পদকপ্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধা অধ্যাপক, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষক অজয় রায় (৮৪) আর নেই। সোমবার ( ৯ ডিসেম্বর) দুপুরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ঢাকার একটি হাসপাতালে শেষনিশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। অধ্যাপক অজয় দীর্ঘদিন বার্ধক্যজনিত নানা অসুখে ভুগছিলেন।২০১৫ ...
  • আমাদের চমৎকার বড়দা প্রসঙ্গে
    ইয়ে, স-অ-অ-অ-ব দেখছে। বড়দা সব দেখছে। বড়দা স্রেফ দেখেনি ওইখানে এক দিন রাম জন্মালেন, তার পর কারা বিদেশ থেকে এসে যেন ভেঙেটেঙে মসজিদ স্থাপন করল, কেন না বড়দা তখন ঘুমোচ্ছিলেন। ঘুম ভাঙল যখন, চোখ কচলেটচলে দেখলেন মস্ত ব্যাপার এ, বড়দা বললেন, ভেঙে ফেলো মসজিদ, জমি ...
  • ধর্ষকের মৃত্যুদন্ড দিলেই সব সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে ?
    যেকোন নারকীয় ধর্ষণের ঘটনা সংবাদ মাধ্যমে প্রতিফলিত হয়ে সামনে আসার পর নাগরিক হিসাবে আমাদের একটা ঈমানি দায়িত্ব থাকে। দায়িত্বটা হল অভিযুক্ত ধর্ষকের কঠোরতম শাস্তির দাবি করা। কঠোরতম শাস্তি বলতে কারোর কাছে মৃত্যুদন্ড। কেউ একটু এগিয়ে ধর্ষকের পুরুষাঙ্গ কেটে নেওয়ার ...
  • তোমার পূজার ছলে
    বাঙালি মধ্যবিত্তের মার্জিত ও পরিশীলিত হাবভাব দেখতে বেশ লাগে। অপসংস্কৃতি নিয়ে বাঙালি চিরকাল ওয়াকিবহাল ছিল। আজও আছে। বেশ লাগে। কিন্তু, বুকে হাত দিয়ে বলুন, আপনার প্রবল ক্ষোভ ও অপমানে আপনার কি খুব পরিশীলিত, গঙ্গাজলে ধোওয়া আদ্যন্ত সাত্ত্বিক শব্দ মনে পড়ে? না ...
  • The Irishman
    দা আইরিশম্যান। সিনেমা প্রেমীদের জন্য মার্টিন স্করসিসের নতুন বিস্ময়। ট্যাক্সি ড্রাইভার, গুডফেলাস, ক্যাসিনো, গ্যাংস অব নিউইয়র্ক, দা অ্যাভিয়েটর, দ্য ডিপার্টেড, শাটার আইল্যান্ড, দ্য উল্ফ অব ওয়াল স্ট্রিট, সাইলেন্টের পরের জায়গা দা আইরিশম্যান। বর্তমান সময়ের ...


বইমেলা হোক বা নাহোক চটপট নামিয়ে নিন রঙচঙে হাতে গরম গুরুর গাইড ।

ষড়যন্ত্র তত্ত্ব...

Muhammad Sadequzzaman Sharif

আমরা ষড়যন্ত্র ত্বতে খুব সহজে বিশ্বাস আনি। দীর্ঘ পরাধীনতা থেকেই সম্ভবত এই বিশেষ গুণ আমাদের জিনে বাসা করেছে। হোক না হোক আপনি একটা ষড়যন্ত্র তত্ত্ব বাজারে ছাড়ুন বিশ্বাস করার লোকের অভাব হবে না। একই সাথে সব কিছুতেই সন্দেহ এবং সহজে বিশ্বাস আনা সম্ভবত এই দুনিয়ায় আমরাই পারি। এই রোগ আমাদের গভীরে প্রোথিত হয়ে গেছে, এর আর নড়নচড়ন নাই।

আমরা বিশ্বাস করি আমরা বাদে বাকি দুনিয়া আমাদের কে ধ্বংস করার জন্য সকালে উঠে নাস্তা না করেই, চোখে মুখে পানি দিয়েই আমাদের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করা শুরু করে। ষড়যন্ত্র করেই আমাদেরকে দাবিয়ে রাখা হয়েছে, না হলে এতদিনে আমরা পৃথিবী ছেড়ে মঙ্গলের পথে পা বাড়াতাম না? এই যে পা বাড়াতে পারলাম না, কেন পারলাম না? ষড়যন্ত্র! আবার কী!

ফুটবল খেলা দেখে আর ষড়যন্ত্র তত্ত্ব বিশ্বাস করে না এমন আদমি এই দুনিয়ায় পাওয়া যাবে না।ফুটবলের ক্ষেত্রে ষড়যন্ত্র ত্বতে সম্ভবত পুরো দুনিয়াই মাতাল, আমাদের এদিকে এইটা আরও বেশি করে আছে। রিয়েলের সমর্থকরা দাবী করে বার্সা বরাবর রেফারীর অনুকম্পা পায়, ঠিক বিপরীত দাবী বার্সার! কোকেন খেয়ে ম্যারাডোনা নিষিদ্ধ হল, আর্জেন্টিনার সমর্থকরা প্রবল ভাবে বিশ্বাস করল যে এটা ষড়যন্ত্র! না হলে ফুলের মত চরিত্রের একজনের নামে এমন অপবাদ দেও কেউ! এখন হলে হয়ত ব্রাজিলের নাম বলত কিন্তু তখন দোষ গিয়ে পড়েছিল জার্মানির ঘাড়ে! তখন জার্মানি সদ্য কাপ জয়ী দল, ষড়যন্ত্র করলে আর ক্যাডায় করব? জার্মানি ষড়যন্ত্র করে ম্যারাডোনাকে খেলা থেকে দূরে রাখতে এই কাজ করেছে।

ইহুদিদের কাজ কী? ষড়যন্ত্র করা! আশ্চর্য! আবার কী? সকাল সকাল উঠেই ষড়যন্ত্র শুরু করে কিভাবে মুসলিমদের বাঁশ দেওয়া যায়! আর কোন কাজ কাম নাই ওদের। বিশ্বাস না হলে একটু কান, চোখ খোলা রেখে ঘুরে দেখুন। লক্ষ লক্ষ মানুষ সাক্ষ্য দিবে যে ইহুদিরা একটা কাজই করে তা হচ্ছে ষড়যন্ত্র করা। কোথাও মুসলিম সমাজ বা রাষ্ট্র বিপদে পরল? কার কাজ? ইহুদিদের! সোজা হিসাব। মুসলিমরা মুসলিমদের ধরে ধরে মারছে? নিশ্চয়ই পিছনে ইহুদিদের ষড়যন্ত্র আছে, না হলে মারবে কেন!

আমেরিকারও বসে বসে ষড়যন্ত্র করে। আমেরিকার ষড়যন্ত্র করার ক্ষেত্রের অভাব নাই। প্রতিটা স্বল্প উন্নত দেশকে কিভাবে পথে বসান যায়, কিভাবে মুসলিমদের অধিকার খর্ব করা যায় এসবই আমেরিকার প্রধান কাজ।সব মার্কিন ষড়যন্ত্র এই বানী শুনে নাই এমন ব্যক্তি কোথাও খুঁজে পাওয়া যাবে? সম্ভবত না। বাম রাজনীতি নিয়ে নাড়াচাড়া করে আর মার্কিন ষড়যন্ত্র কপচায় নাই? এ হবার লয়!

বেশ কিছুদিন আগে ( মানুষের মুখে শুনে আর বই পত্র পড়ে বলছি, আমার দেখা ইতিহাস না) বাংলাদেশে চলত হচ্ছে সব র’এর ষড়যন্ত্র! র ছাড়া আর কে এই কাজ করবে? এখন আর র বলে না। সরাসরি ভারতের চাল এইটা, গভীর ষড়যন্ত্র বলে বসে থাকে। আমাদের এলাকায় এক বড় ভাই ছিল, ছিল বলছি কারন তিনি মারা গেছেন, আর তাই নাম উল্লেখ্য করলাম না। এলাকার যে কোন অনভিপ্রেত ঘটনার দোষ তার ঘাড়ে পড়ত। কোন কারন ছাড়াই, কেউ একজন বলে বসত এইটা ওর কাজ! ব্যস সবাই মনে মনে বিশ্বাস করে ফেলত, হুম, এইটা অমুক ছাড়া আর কেউ করতেই পারে না। দিনের পর দিন তিনি এই অপবাদ ঘাড়ে নিয়ে চলেছেন!! দুনিয়ার সকল না হোক, আমাদের দেশের সত্তর ভাগ সমস্যা ভারতের সৃষ্টি এই তত্ত্ব অবিশ্বাস করবে না সত্তর ভাগ মানুষও। সব বিরোধী দলের চক্রান্তের মতই সব ভারতের চক্রান্ত প্রচার ও বিশ্বাস করার লোকের অভাব এই দেশে নাই।

তবে সব ষড়যন্ত্রের সেরা ষড়যন্ত্র হচ্ছে আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্র! এই আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্র যে কত কী করে ফেলল তার কোন ইয়ত্তা নেই। ঘরের সুই হারানো থেকে শুরু করে রানা প্লাজা ধ্বংস সব আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্রের অংশ। ধানের ফলন কম হইছে? এটা আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্র ছাড়া আর কী? যে কোন সমস্যায় আপনি আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্র উল্লেখ্য করে দেখুন, ঠিক ঠিক খাপে খাপ মিলে যাবে।আপনার ব্যক্তিগত সমস্যাও আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্র বলে চালায় দিতে পারবেন নিশ্চিন্তে। এমনকি আপনার পেটের গ্যাসের সমস্যাও!

এত এত অবিশ্বাস নিয়ে কিভাবে বেঁচে আছি এ এক রহস্য। প্রবল সন্দেহ আবার সহজেই বিশ্বাস, এই বিপরীতমুখী আচরণ নিয়ে আমরা দিব্যি বেঁচে আছি। যে কোন সমস্যায়, যে কোন পরাজয়ে ষড়যন্ত্র খুঁজে পেলে মনের দিক থেকে একটা আলাদা শান্তি পাওয়া যায়। মনে হয়, না, আমাকে তো ষড়যন্ত্র করে হারিয়েছে! কিন্তু এই মিথ্যা বিশ্বাস আসলে কী আমাদের উপকার করে? সবেতেই এই তত্ত্ব খাটিয়ে দিন দিন কোথায় গিয়ে দাঁড়াচ্ছি? নিজের দিকে কবে দৃষ্টি দেওয়া হবে?

( ষড়যন্ত্র তত্ত্ব নতুন করে প্রবল ভাবে শোনার জন্য তৈরি থাকুন। দিন সমাগত। ভারত ইংল্যান্ডের কাছে হেরে গেছে কেন? ষড়যন্ত্র! আবার কী!! দুই তারিখ ষড়যন্ত্র তত্ত্বর আপডেট ভার্সন গুলোর জন্য অপেক্ষায় আছি!)


332 বার পঠিত (সেপ্টেম্বর ২০১৮ থেকে)

শেয়ার করুন


Avatar: dd

Re: ষড়যন্ত্র তত্ত্ব...

ষড়যন্ত্র ম্যানিয়া সর্বত্রই দেখি।

আগে ভাবতাম ওটা বামপন্থীদের খাসতালুক, এখন দেখিসব পক্ষই এই কনস্পি তত্ত্বের ইজারাদার। আর সোস্যাল মিডিয়া হওয়ায় "আজকের ষড়যন্ত্র" বলে রোজ একটা পোস্ট না হলে পেট ভরে না অনেকেরই।


আপনার মতামত দেবার জন্য নিচের যেকোনো একটি লিংকে ক্লিক করুন