জান্নাতুল ফেরদৌস লাবণ্য RSS feed

জান্নাতুল ফেরদৌস লাবণ্যের খেরোর খাতা।

আরও পড়ুন...
সাম্প্রতিক লেখালিখি RSS feed
  • ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা... বাংলাদেশের রাজনীতির গতিপথ পরিবর্তন হওয়ার দিন
    বিএনপি এখন অস্তিত্ব সংকটে আছে। কিন্তু কয়েক বছর আগেও পরিস্থিতি এমন ছিল না। ক্ষমতার তাপে মাথা নষ্ট হয়ে গিয়েছিল দলটার। ফলাফল ২০০৪ সালের ২১ আগস্টে তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেত্রী শেখ হাসিনাকে গ্রেনেড মেরে হত্যার চেষ্টা। বিরোধীদলের নেত্রীকে হত্যার চেষ্টা করলেই ...
  • তোমার বাড়ি
    তোমার বাড়ি মেঘের কাছে, তোমার গ্রামে বরফ আজো?আজ, সীমান্তবর্তী শহর, শুধুই বেয়নেটে সাজো।সারাটা দিন বুটের টহল, সারাটা দিন বন্দী ঘরে।সমস্ত রাত দুয়ারগুলি অবিরত ভাঙলো ঝড়ে।জেনেছো আজ, কেউ আসেনি: তোমার জন্য পরিত্রাতা।তোমার নমাজ হয় না আদায়, তোমার চোখে পেলেট ...
  • বার্সিলোনা - পর্ব ২
    বার্সিলোনা আসলে স্পেনের শহর হয়েও স্পেনের না। উত্তর পুর্ব স্পেনের যেখানে বার্সিলোনা, সেই অঞ্চল কে বলা হয় ক্যাটালোনিয়া। স্বাধীনদেশ না হয়েও স্বশাসিত প্রদেশ। যেমন কানাডায় কিউবেক। পৃথিবীর প্রায় সব দেশেই মনে হয় এরকম একটা জায়গা থাকে, দেশি হয়েও দেশি না। ...
  • বার্সিলোনা - পর্ব ১
    ঠিক করেছিলাম আট-নয়দিন স্পেন বেড়াতে গেলে, বার্সিলোনাতেই থাকব। বেড়ানোর সময়টুকুর মধ্যে খুব দৌড় ঝাঁপ, এক দিনে একটা শহর দেখে বা একটা গন্তব্যের দেখার জায়গা ফর্দ মিলিয়ে শেষ করে আবার মাল পত্তর নিয়ে পরবর্তী গন্তব্যের দিকে ভোর রাতে রওনা হওয়া, আর এই করে ১০ দিনে ৮ ...
  • লাল ঝুঁটি কাকাতুয়া
    -'একটা ছিল লাল ঝুঁটি কাকাতুয়া।আর ছিল একটা নীল ঝুঁটি মামাতুয়া।'-'এরা কারা?' মেয়েটা সঙ্গে সঙ্গে চোখ বড়ো করে অদ্ভুত লোকটাকে জিজ্ঞেস করে।-'আসলে কাকাতুয়া আর মামাতুয়া এক জনই। ওর আসল নাম তুয়া। কাকা-ও তুয়া বলে ডাকে, মামা-ও ডাকে তুয়া।'শুনেই মেয়েটা ফিক করে হেসে ...
  • স্টার্ট-আপ সম্বন্ধে দুচার কথা যা আমি জানি
    স্টার্ট-আপ সম্বন্ধে দুচার কথা যা আমি জানি। আমি স্টার্ট-আপ কোম্পানিতে কাজ করছি ১৯৯৮ সাল থেকে। সিলিকন ভ্যালিতে। সময়ের একটা আন্দাজ দিতে বলি - গুগুল তখনও শুধু সিলিকন ভ্যালির আনাচে-কানাচে, ফেসবুকের নামগন্ধ নেই, ইয়াহুর বয়েস বছর চারেক, অ্যামাজনেরও বেশি দিন হয়নি। ...
  • মৃণাল সেন : এক উপেক্ষিত চলচ্চিত্রকার
    [আজ বের্টোল্ট ব্রেশট-এর মৃত্যুদিন। ভারতীয় চলচ্চিত্রে যিনি সার্থকভাবে প্রয়োগ করেছিলেন ব্রেশটিয় আঙ্গিক, সেই মৃণাল সেনকে নিয়ে একটি সামান্য লেখা।]ভারতীয় চলচ্চিত্রের ইতিহাসে কীভাবে যেন পরিচালক ত্রয়ী সত্যজিৎ-ঋত্বিক-মৃণাল এক বিন্দুতে এসে মিলিত হন। ১৯৫৫-তে মুক্তি ...
  • দময়ন্তীর সিজনস অব বিট্রেয়াল পড়ে
    পড়লাম সিজনস অব বিট্রেয়াল গুরুচন্ডা৯'র বই দময়ন্তীর সিজনস অব বিট্রেয়াল। বইটার সঙ্গে যেন তীব্র সমানুভবে জড়িয়ে গেলাম। প্রাককথনে প্রথম বাক্যেই লেখক বলেছেন বাঙাল বাড়ির দ্বিতীয় প্রজন্মের মেয়ে হিসেবে পার্টিশন শব্দটির সঙ্গে পরিচিতি জন্মাবধি। দেশভাগ কেতাবি ...
  • দুটি পাড়া, একটি বাড়ি
    পাশাপাশি দুই পাড়া - ভ-পাড়া আর প-পাড়া। জন্মলগ্ন থেকেই তাদের মধ্যে তুমুল টক্কর। দুই পাড়ার সীমানায় একখানি সাতমহলা বাহারী বাড়ি। তাতে ক-পরিবারের বাস। এরা সম্ভ্রান্ত, উচ্চশিক্ষিত। দুই পাড়ার সাথেই এদের মুখ মিষ্টি, কিন্তু নিজেদের এরা কোনো পাড়ারই অংশ মনে করে না। ...
  • পরিচিতির রাজনীতি: সন্তোষ রাণার কাছে যা শিখেছি
    দিলীপ ঘোষযখন স্কুলের গণ্ডি ছাড়াচ্ছি, সন্তোষ রাণা তখন বেশ শিহরণ জাগানাে নাম। গত ষাটের দশকের শেষার্ধ। সংবাদপত্র, সাময়িক পত্রিকা, রেডিও জুড়ে নকশালবাড়ির আন্দোলনের নানা নাম ছড়িয়ে পড়ছে আমাদের মধ্যে। বুঝি না বুঝি, পকেটে রেড বুক নিয়ে ঘােরাঘুরি ফ্যাশন হয়ে ...


বইমেলা হোক বা নাহোক চটপট নামিয়ে নিন রঙচঙে হাতে গরম গুরুর গাইড ।

ইন্ট্রোভার্ট

জান্নাতুল ফেরদৌস লাবণ্য

ডাক্তার সাহেব গম্ভীর গলায় বললেন, আপনার ছেলের সমস্যা কি?

আমি চিন্তিত গলায় বললাম, আমার ছেলে একটু ইন্ট্রোভার্ট টাইপের। কোনোকিছুতেই রিয়াক্ট করে না। এই ধরেন কোথাও ব্যাথা পেল,কিছু হারিয়ে গেলো,অসুস্থ হলো অথবা ধরেন জন্মদিনে প্রচুর গিফট পেয়েছে,পরীক্ষায় ভালো রেজাল্ট করেছে বা ক্রিকেট খেলায় বাংলাদেশ জিতেছে কোনোকিছু নিয়েই ফেসবুকে পোস্ট দেয় না। ওর জন্মদিন উপলক্ষে কতবড় পার্টি করলাম একটাও সেলফি তোলে নাই। ইন্সটাগ্রাম,ট্যুইটার,ফেসবুকেও ওর কোন আগ্রহ নাই। ঈদের সময় কাউকে 'ঈদ মোবারক' মেসেজ পর্যন্ত দেয় না।

ডাক্তার সাহেব তার ফ্রেঞ্চকাট দাঁড়িতে হাত বুলাতে বুলাতে চিন্তিত গলায় বললেন, হু! খুব রেয়ার কেস। লাস্ট দুই ইয়ারে এই টাইপ কেস মাত্র তিনটা ফেস করেছি। বাচ্চা রিয়াক্ট করে না! এই ধরনের বাচ্চারা বাইরে রিয়াক্ট না করতে পারার কারণে ভেতরে ভেতরে অদ্ভুত ইমাজিনেশনের ভেতরে থাকে।এদের মনের ভেতরটা একটা ডাস্টবিনের মতো হয়ে যায়! রিয়াক্ট করাটা জরুরী।

আমি চিন্তামিশ্রিত গলায় বললাম, অনেক চেষ্টা করেছি। ও তো ফেসবুকে পর্যন্ত রিয়াক্ট করে না। সিম্পল লাইক দিয়ে চলে যায়। ল্যাপটপ কিনে দিয়েছি চালাতে পর্যন্ত পারে না। সারাদিন ব‌ই পড়ে আর টিভি দেখে।‌ ওর বন্ধুরা সারাদিন কত সেলফি আপলোড করে তারমধ্যে কখনো ওকে দেখা যায় না।

ডাক্তার সাহেব নিলয়ের দিকে তাকিয়ে বললো, খোকা! ক্রিকেটে তোমার কাকে পছন্দ? ম্যাশ না সাকিব?

নিলয় জবাব দিল, সাকিব।

-তো সাকিব যখন সেঞ্চুরি করে তুমি ওর ছবি ফেসবুকে কভার পিকে দাও না?

:না!

-বাংলাদেশ যখন হারে তখন কেন হারলো,কার দোষে এটা হলো,কাকে দল থেকে বাদ দেয়া উচিত এরকম শিক্ষামূলক স্টাটাস দাও না?

-জ্বী না।

:যখন ঢাকার বাইরে ঘুরতে যাও Traveling to... স্টাটাস দিতে মন চায় না তোমার? অথবা কোনো রেস্টুরেন্টে গেলে চেক ইন দিতে বা কোনো গান শুনলে,মুভি দেখলে এক্টিভিটি আপডেট দিতে ইচ্ছা করে না?

-না!

ডাক্তার সাহেব আমার দিকে তাকিয়ে চিন্তিত ভঙ্গিতে মাথা নাড়লেন যার অর্থ হলো, অবস্থা খুব খারাপ।

তিনি নিলয়ের নাড়ি দেখলেন। প্রেশার,হার্টবিট সব চেক করে আবার বললেন,

আচ্ছা খোকা, তোমার কি কখনো মন চায় না তোমার হাজার হাজার ফলোয়ার হোক। সবাই তোমার পোস্ট শেয়ার করুক। কখনো কবিতা লিখতে ইচ্ছা করে না? অথবা শিক্ষামূলক লেখা, সাকিব আল হাসানের ব‌উ কেন পর্দা করে না বা ধরো, জয়া আহসান, পূর্ণিমার যে বয়স বাড়ে না অথবা মেহজাবিনের চোখের পানি এসব নিয়ে পোস্ট দিতে মন চায় না?

নিলয় না সূচক মাথা নাড়লো।

ডাক্তার সাহেব এবার রেগে গেলেন। তেজী স্বরে আমাকে বললেন, আপনার ছেলে ক্রিমিনাল অথবা সাইকোপ্যাথ। সারাক্ষণ ওর মাথায় খুনের পরিকল্পনা ঘোরে। এভাবে চুপচাপ থাকতে থাকতে একদিন আপনাদের সবাইকে খুন করে ফেলবে!

আমি আঁতকে উঠে বললাম, এইসব কি বলেন? আমার ছেলেটা একটু অস্বাভাবিক। রিয়াক্ট করে না। কিন্তু তার মধ্যে মানবিকতা আছে। রাস্তায় কুকুর দেখলে বাড়িতে নিয়ে এসে খেতে দেয়,ভিখিরি দেখলে টাকা দেয়। একবার শীতে ওর বয়সী একটা ছেলেকে নিজের দামী জ্যাকেট খুলে দিয়ে দিয়েছিলো।

ডাক্তার সাহেব মানতে নারাজ। তিনি দুইদিকে ঘাড় নেড়ে‌ বললেন, উহু! তাহলে ছবি ক‌ই? ছবি দেখান। আছে ছবি? তুলেছে আপনার ছেলে ওদের সাথে কোনো সেলফি বলেন? আমি সাইক্রিয়াটিস্ট। গ্যারান্টি দিয়ে বলতে পারি সে ছবি তোলেনি।

আমি মাথা নিচু করলাম। সত্যিই ছবি তোলেনি।

ডাক্তার সাহেব বিজয়ীর হাসি দিয়ে বললেন, আপনার ছেলে অস্বাভাবিক। ওর কাউন্সিলিং দরকার। এদেশে হবে না বিদেশে নিয়ে চিকিৎসা করান। নাহলে অনেক বড় সমস্যা দেখা দেবে। ভবিষ্যতে বিয়ে করবে ম্যারিড স্টাটাস দেবে না। বাচ্চা হবে কভার ফটো দেবে না। ব‌উয়ের সাথে পিক তুলতে আপত্তি করবে। চাকরী পাবে কিন্তু বায়ো চেঞ্জ করবে না। চাকরীতেও টিকতে পারবে না। যে ছেলে দেশের কারেন্ট ইস্যুর সাথে তাল মিলিয়ে চলতে পারে না সেই ছেলে কি স্বাভাবিক বলুন আপনি? বলুন!

-তাহলে এখন কি করবো ডাক্তার সাহেব?

:এখনো আপনার ছেলে ছোট। এখন থেকেই কাউন্সিলিং করলে ঠিক হলেও হতে পারে। যত বয়স বাড়বে সমস্যা তত গুরুতর হবে।

নিলয় এতক্ষণ ধরেই চুপ করে আছে। সব‌ই শুনছে কিন্তু একটা কথাও বলছে না। ডাক্তারের ফিস মিটিয়ে আমি ওকে নিয়ে বের হয়ে রিকশা নিলাম।

এতক্ষণে নিলয় মুখ খুললো, আম্মু আইসক্রিম খাবো। ঐ দেখো দোকান।

আমি দুইটা আইসক্রিম কিনলাম। একটা ওর হাতে দিয়ে একটা নিজে নিলাম। তারপর বললাম, বাবা! আসো একটা সেলফি তুলি।

নিলয় না সূচক মাথা নাড়লো।

আমি দুঃখী গলায় বললাম, একদিন আমি বেঁচে থাকবো না। তোমার বাবা বেঁচে থাকবে না। এই সেলফিগুলো দেখেই তোমার আমাদের কথা মনে পড়বে। প্লিজ একটা সেলফি তুলি?

নিলয় আবার না সূচক মাথা নেড়ে আইসক্রিমে কামড় দিলো।

আমি রিকশায় উঠলাম। একহাতে নিলয়কে শক্ত করে জড়িয়ে ধরে ভেজা চোখে ভাবতে লাগলাম, যেভাবেই হোক ওকে সুস্থ করতে হবে। প্রয়োজনে যত জমিজমা,গয়নাগাটি আছে সব বিক্রি করে বিদেশের সবচেয়ে বড় ডাক্তার দিয়ে ওর কাউন্সিলিং করাবো।

নিলয়কে সুস্থ হতেই হবে। সেইসাথে আজ‌ই ফেসবুকে ওরজন্য দোয়া চেয়ে একটা স্টাটাস লিখতে হবে।

লেখা- জান্নাতুল ফেরদৌস লাবণ্য

629 বার পঠিত (সেপ্টেম্বর ২০১৮ থেকে)

শেয়ার করুন


Avatar: S

Re: ইন্ট্রোভার্ট

দারুন হয়েছে এটা।
Avatar: PM

Re: ইন্ট্রোভার্ট

খুব ভালো লিখছেন আপনি।
Avatar: dd

Re: ইন্ট্রোভার্ট

হ্যাঁ, বেশ মজার লাগলো।
Avatar: aranya

Re: ইন্ট্রোভার্ট

লাবণ্য-র লেখায় একটা বেশ সহজ, সাবলীল, স্বতঃস্ফুর্ত ব্যাপার থাকে। ভাল লাগে।

Avatar: বেঙ্গলী

Re: ইন্ট্রোভার্ট

বাহ, বেশ।
Avatar: বিপ্লব রহমান

Re: ইন্ট্রোভার্ট

বাপ্রে! 😝
Avatar: Kaju

Re: ইন্ট্রোভার্ট

হাসির ছলে থাপ্পড় মারা।

এরই কাছাকাছি একটা সত্যি ঘটনা মনে পড়ল। তখনো ফেবু-র কাল আসেনি। লোকের হাতে সস্তা সেই পাতি ফোন। তো আমার এক পরিচিত দাদা, নতুন নতুন ফোন কিনেছে, এসেমেস করতে খুব মজা পেয়েছে। ঘুরতে ফিরতে এসেমেস মেরে দিচ্ছে। একদিন আমাকে বলল - "জানিস অরুণদাকে এসেমেস করলাম, রিপ্লাই দিল না, কিছুতেই উত্তর দেয় না শালা কিপটে।"
- "কেন কী এসেমেস করলে আবার?"
- "আরে শেয়ালদা স্টেশনের টয়লেটে মাইনাস করতে করতে অরুণদাকে লিখে পাঠিয়ে দিলাম 'ইউরিনেটিং নাউ', একটা স্মাইলি তো দিবি উত্তরে ! কী সব মাইরি..."
Avatar: ম

Re: ইন্ট্রোভার্ট

অনেক দিন পরে চমৎকার একটা লেখা
Avatar: স্বাতী রায়

Re: ইন্ট্রোভার্ট

বাঃ - সুন্দর লাগল।


আপনার মতামত দেবার জন্য নিচের যেকোনো একটি লিংকে ক্লিক করুন