জান্নাতুল ফেরদৌস লাবণ্য RSS feed

জান্নাতুল ফেরদৌস লাবণ্যের খেরোর খাতা।

আরও পড়ুন...
সাম্প্রতিক লেখালিখি RSS feed
  • মিঞা কবিতা এবং আসামের বীভৎস মজা
    আসামের নাগরিকপঞ্জি নিয়ে কী বীভৎস মজা চলছে, কাল তিস্তা শেতলবাদের লেখা ( https://www.telegrap...
  • সেলিব্রিটির প্রতি ভালোবাসা
    নিউজফিড ঘাঁটতে ঘাঁটতে বর্তমানের ফেমাস সিঙ্গার, মেয়েদের ক্রাশ মাঈনুল আহসান নোবেলের একটা ছবি হঠাৎ সামনে চলে এলো। ছবিটা দেখামাত্র আমার পা থেকে মাথা পর্যন্ত একটা শিহরণ বয়ে গেল। ইউরেকা! পেয়েছি! আমার জীবনসঙ্গী,আমার বাচ্চার বাপ, আমার নাতি-পুতির দাদা। সেই ...
  • ভ্যান গগ ও একটি কুৎসিত তৈলচিত্র
    রঙ! শব্দটা শুনলে একটা অদ্ভুত অনুভূতি জাগে মনে। হঠাৎ যেন মনে হয় কেউ এক মুঠো লাল - হলুদ আবির ছড়িয়ে দিল হাওয়ায়। রঙ শুনলে আমার কেন জানি মনে হয়, একটা ক্যানভাসে খুব পাৎলা করে কেউ ক্রিমসন রেডের একটা শেডের উপরে ক্রোম ইয়োলোর এক পোঁচ ভেজা রঙ লাগিয়েছে। আপনাদের কি ...
  • সম্রাট ও সারমেয়
    একটি খুব স্নেহের মেয়ে, বিদেশে পড়াশুনো করছে, সূর্যের নীচে সবকিছু ভালোর জন্যই ওর গভীর ভালবাসা। মাঝে মাঝে পাগলামি করে বটে,আবার শুধরে নেওয়ায় কোন অনীহা নেই।আমার খুব পছন্দের মানুষ !সে একদিন লিখলো ইসলামে কুকুর নাপাক জীব। এইটাতে সে ভয়ানক খাপ্পা, কারণ কুকুর তার ...
  • ইন্দুবালা ভাতের হোটেল-৬
    চিংড়ির হলুদ গালা ঝোলকোলাপোতা গ্রামটার পাশ দিয়ে বয়ে চলেছে কপোতাক্ষ। এছাড়া চারিদিকে ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে খাল বিল পুকুর। সবুজ জংলা ঝোপের পাশে সন্ধ্যামণি ফুল। হেলেঞ্চার লতা। উঠোনের কোন ঘেঁষে কাঠ চাঁপা। পঞ্চমুখী জবা। সদরের মুখটায় শিউলি। সাদা আঁচলের মতো পড়ে থাকে ...
  • যৌন শিক্ষা মহাপাপ...
    কিছুদিন ধরে হুট করেই যেন ধর্ষণের খবর খুব বেশি পাওয়া যাচ্ছে। যেন হুট করে কোন বিষাক্ত পোকার কামড়ে পাগলা কুকুরের মত হয়ে গেছে কিছু মানুষ। নিজের খিদে মিটাতে শিশু বৃদ্ধ বাছ বিচার করারও সময় নাই, হামলে পড়ছে শুধু। যদি বিষাক্ত পোকার কামড়ে হত তাহলে এই সমস্যার সমাধান ...
  • ইতিহাসবিদ সব্যসাচী ভট্টাচার্য
    আধুনিক ভারতের ইতিহাস চর্চায় সব্যসাচী ভট্টাচার্য এক উল্লেখযোগ্য নাম। গবেষক লেখক শিক্ষক এবং শিক্ষা প্রশাসক হিসেবে তাঁর অবদান বিশেষ উল্লেখযোগ্য। সবসাচীবাবুর বিদ্যালয় শিক্ষা বালিগঞ্জ গভর্মেন্ট হাই স্কুলে। তারপর পড়তে আসেন প্রেসিডেন্সি কলেজের ইতিহাস বিভাগে। ...
  • পাগল
    বিয়ের আগে শুনেছিলাম আজহারের রাজপ্রাসাদের মতো বিশাল বড় বাড়ি! তার ফুপু বিয়ে ঠিকঠাক ‌হবার পর আমাকে গর্বের সাথে বলেছিলেন, "কয়েক একর জায়গা নিয়ে আমাদের বিশাল বড় জমিদার বাড়ি আছে। অমুক জমিদারের খাস বাড়ি ছিল সেইটা। আজহারের চাচা কিনে নিয়েছিলেন।"সেইসব ...
  • অশোক দাশগুপ্ত
    তোষক আশগুপ্ত নাম দিয়ে গুরুতেই বছর দশেক আগে একটা ব্যঙ্গাত্মক লেখা লিখেছিলাম। এটা তার দোষস্খালন বলে ধরা যেতে পারে, কিন্তু দোষ কিছু করিনি ধর্মাবতার।ব্যাপারটা এই ২০১৭ সালে বসে বোঝা খুব শক্ত, কিন্ত ১৯৯২ সালে সুমন এসে বাঙলা গানের যে ওলটপালট করেছিলেন, ঠিক সেইরকম ...
  • অধিকার এবং প্রতিহিংসা
    সল্ট লেকে পূর্ত ভবনের পাশের রাস্তাটায় এমনিতেই আলো খুব কম। রাস্তাটাও খুব ছোট। তার মধ্যেই ব্যানার হাতে একটা মিছিল ভরাট আওয়াজে এ মোড় থেকে ও মোড় যাচ্ছে - আমাদের ন্যায্য দাবী মানতে হবে, প্রতিহিংসার ট্রান্সফার মানছি না, মানব না। এই শহরের উপকন্ঠে অভিনীত হয়ে ...


বইমেলা হোক বা নাহোক চটপট নামিয়ে নিন রঙচঙে হাতে গরম গুরুর গাইড ।

চশমা

জান্নাতুল ফেরদৌস লাবণ্য

পুরোপুরি সেজেগুজে পাত্রপক্ষের সামনে যাওয়ার আগে ভাবী চোখ থেকে চশমা খুলে রেখে বললো, পাত্রপক্ষের সামনে চশমা পরে যাওয়ার দরকার নাই। এমনিই যাও।

আমি গেলাম।

বসার ঘরে অনেকে বসে আছেন। বয়স্কা কেউ একজন বলে উঠলেন, মা! ছেলের পাশে বসো।

আমি বসে পড়লাম।

সেই ভদ্রমহিলা আবার হায়হায় করে উঠে‌ বললেন, আরে আরে! এইটা তো ছেলের চাচা! ছেলের পাশে বসো মা।

আমি বলতে যাচ্ছিলাম, আমি দেখতে পাচ্ছি না ছেলে কোনটা।‌ কার পাশে বসবো একটু দেখিয়ে দেন।

এমন সময় ভাইয়া আমার হাত ধরে নিয়ে গিয়ে ছেলের পাশে বসিয়ে দিলো।

নানান আলাপ আলোচনার পর ছেলের বাবা বললেন, শোনো মা! আমরা আধুনিক মানুষ! ছেলে মেয়ে দুজনের‌ মতামতের আমাদের কাছে সমান গুরুত্ব। তোমার কি ছেলে পছন্দ? যদি পছন্দ হয় হ্যাঁ বলো। না হলে না বলবা আমরা কিছু মনে করবো না।

আমি ছেলের দিকে তাকালাম। বিস্কিট কালারের একটা মুখ আমার চোখের সামনে ভাসছে। সাদা সাদা দাঁত বের করে হাসলো। এর বেশী আর কিছু আমি দেখতে পেলাম না। সুতরাং মাথা নিচু করে হ্যাঁ সূচক মাথা নেড়ে দিলাম। সব‌ দোষ ভাবীর। আমাকে যদি চশমাটা আনতে দিতো। আজ চশমার অভাবে না দেখে বিয়ে করতে হবে!

বিয়ে পাকা হয়ে গেল। তারা চলে যেতেই আমি ঘরে এসে শুয়ে ঘুমিয়ে পড়লাম। গতরাতে পাত্রপক্ষ আসবে সেই টেনশনে ঘুমাইনি।

সকাল দশটার দিকে ফুফাতো বোন ইরা ফোন দিয়ে বললো, আপু! এক্ষুনি ক্যাফেতে আসো। সারপ্রাইজ আছে।

আমি কোনো কথা না বলে উঠে হাতমুখ ধুয়ে রেডি হতে হতে ভাবছি, আজ কি?

আমার জন্মদিন? না!
ঈদ? না!
পহেলা বৈশাখ? না!
এপ্রিল ফুল? না!

তাহলে কিসের সারপ্রাইজ? বিয়ে হয়ে যাওয়ার আগে সিঙ্গেলস পার্টি হয় সেরকম কিছু হবে হয়তো!

আমি ক্যাফেতে গেলাম। ইরা পেছন থেকে দুইহাতে খানিকক্ষণ আমার চোখ ধরে রেখে তারপর ছেড়ে দিয়ে বললো, সারপ্রাইজ! দেখোতো কে আসছে!!!

আমি খানিকক্ষণ অপলক তাকিয়ে রইলাম। একটা ছেলে আসছে। কিন্তু তাতে আমার কি? আমি কেন সারপ্রাইজ হবো?

আমি ইরার দিকে খানিকক্ষণ তাকিয়ে থেকে বললাম, এটা কে?

ইরা অবাক হয়ে আমার দিকে তাকিয়ে আছে। ছেলেটা নিজেই জবাব দিলো,

আমি হলাম সে যার সাথে আপনার বিয়ে ঠিক হয়েছে।

এতক্ষনে আমি সবটা বুঝতে পেরে মাথা নাড়লাম। নাহ! ছেলেটা ভালোই দেখতে।

ছেলেটার সাথে সেদিন অনেকক্ষণ গল্প করলাম। সে আসলেই অনেক ভালো একজন মানুষ। অন্তত কথা বলে তাই মনে হলো।

জানলাম অফিসের কাজে খুব শিগগিরই তিন মাসের জন্য ছেলেকে সুইজারল্যান্ড যেতে হবে। তাই সে চায় তাড়াতাড়ি বিয়েটা হয়ে যাক।

যেহেতু আমার কোন অমত নেই সুতরাং আমিও আর কিছু বললাম না। বিয়ে পাকা হয়ে গেল।

আজ শুক্রবার। আমার বিয়ের দিন। পার্লার থেকে সাজ কমপ্লিট করে চোখে চশমা দিতে যাবো এমন সময় ভাবী হাত থেকে চশমা কেড়ে নিয়ে বললো, তুমি কি পাগল? বিয়ের আসরে চশমা পরলে আত্নীয় স্বজন কি বলবে জানো? বলবে, মেয়ে কানা। রাখো চশমা।

অসহায়ভাবে আমি বিয়ের আসরে গিয়ে বসলাম। কাজী সাহেব যখন কাগজ কলম বাড়িয়ে দিয়ে বললেন, মা! এইখানে স‌ই করো! আমি স‌ই করতে গিয়ে জান্নাতুল লিখলাম কাগজে আর ফেরদৌস লিখলাম কাজীর হাতে।

কাজী সাহেব তাড়াতাড়ি হাত সরিয়ে নিয়ে বললেন, মা! আমার হাতে লিখতেছো কেন? এখানে স‌ই করো! এখানে!

আমি অসহায় ভাবে কাজী সাহেবের মুখের দিকে তাকিয়ে আছি এমন সময় ভাবী আমার চশমাটা বাড়িয়ে ধরলো।

স‌ই শেষে আবার চশমাটা খুলে নিয়ে চলে গেল।

আমার নতুন শ্বাশুড়িমা কাকে যেন নিয়ে এসে আমার সাথে পরিচয় করিয়ে দিয়ে বললেন,

এ আমাদের অনেক কাছের আত্নীয়। সেই পিরোজপুর থেকে এসেছে।

আমি অনুমানে তাকে সালাম করে বললাম, ভাইয়া বসেন!

কিন্তু সে মেয়েলী গলায় বললো, কে ভাইয়া! আমি তো রুবেল ভাইয়ের ফুফাতো বোনের ননদ। তুমি আমাকে ভাইয়া বলছো কেন?

আমি জবাব দিলাম না। অসহায় ভঙ্গিতে এদিক ওদিক তাকাতে লাগলাম। তখন কে যেন এসে ওকে ডেকে নিয়ে চলে গেল।

অনেক ঝামেলা করে বিয়ে শেষ করে বাসরঘরে এসে বসেছি। এতক্ষনে মনে হচ্ছে প্রাণে বেঁচেছি। চশমা ছাড়া আমি যে কতটা অসহায় তা হাড়ে হাড়ে টের পাচ্ছি।

এখন আমার বাসররাত,বর,বিয়ে এসব কিছুই মাথায় ঢুকছে না। আমার মাথায় শুধু ঘুরছে, ভাবী কি আজ চশমাটা দেবে? অলরেডি আমার মাথা ঘুরতে শুরু করেছে চশমার অভাবে।

একজন এসে আমার বরকে ঘরের ভেতর দিয়ে ঠাট্টা করে বললো, আপু! দুলাভাই টাকা দিতে ঝামেলা করছিলো তাই একটু দেরী হয়ে গেল।

গলা শুনে বুঝলাম আমার ফুফাতো বোন ইরা। ওকে বললাম, তুই ভাবীকে একটু ডাক দে। তাড়াতাড়ি প্লিজ।

অবশেষে আমি চশমা পেয়েছি। এতক্ষনে বুকভরা একটা প্রশান্তি নিয়ে বাসরঘরে ঘোমটা টেনে বসে আছি। দেখলাম আমার বর দরজা বন্ধ করে ফিরে আসতে গিয়ে একটা হোঁচট খেল। বেচারা! বিয়ের টেনশন!

সে এসে আমার ঘোমটা তুলে দিশাহারা ভঙ্গিতে খানিকক্ষণ তাকিয়ে থেকে বললো, লাবণ্য! একটা ছোট্ট সমস্যা আছে। অভয় দিলে বলি।

আমি অবাক হয়ে তার দিকে তাকালাম। তবে কি ওর প্রেমট্রেম আছে? আগে এত কথা হলো তখন তো বলেনি!

আমি ভয়ে ভয়ে বললাম,শিওর! বলুন।

সে নিচু স্বরে বললো, চশমাটা খুঁজে পাচ্ছি না। বিয়ের ঝামেলায় কোথায় যে পড়েছে!

আসলে চশমা ছাড়া আমি কিছুই দেখি না। তোমার সাথে যে কয়বার দেখা হয়েছে আমার মা চশমা পরে যেতে দেননি। বলেছেন, মেয়ে ভাববে তুই কানা।
তোমাকে আমি এখনো দেখিনাই। এই মুহূর্তেও দেখতে পারছি না।

আমি অত্যাশ্চর্য হয়ে প্রশ্ন করলাম, আপনার চশমার পাওয়ার কতো?

-থ্রি পয়েন্ট জিরো।

আমি আমার চশমাটা খুলে তারদিকে বাড়িয়ে দিয়ে বললাম, আমারো সেম। কিছুক্ষণ আপনি আমাকে দেখেন তারপর চশমা ফিরিয়ে দিলে আমি আপনাকে দেখবো।

লেখা- জান্নাতুল ফেরদৌস লাবণ্য

455 বার পঠিত (সেপ্টেম্বর ২০১৮ থেকে)

শেয়ার করুন


Avatar: shakil

Re: চশমা

amazing article ...... i love it
https://bestbuycapm.com/tripods-for-iphone-8-plus/
Avatar: dc

Re: চশমা

বাঃ ঃ-)


আপনার মতামত দেবার জন্য নিচের যেকোনো একটি লিংকে ক্লিক করুন