Sumit Roy RSS feed

Sumit Royএর খেরোর খাতা।

আরও পড়ুন...
সাম্প্রতিক লেখালিখি RSS feed
  • স্টার্ট-আপ সম্বন্ধে দুচার কথা যা আমি জানি
    স্টার্ট-আপ সম্বন্ধে দুচার কথা যা আমি জানি। আমি স্টার্ট-আপ কোম্পানিতে কাজ করছি ১৯৯৮ সাল থেকে। সিলিকন ভ্যালিতে। সময়ের একটা আন্দাজ দিতে বলি - গুগুল তখনও শুধু সিলিকন ভ্যালির আনাচে-কানাচে, ফেসবুকের নামগন্ধ নেই, ইয়াহুর বয়েস বছর চারেক, অ্যামাজনেরও বেশি দিন হয়নি। ...
  • মৃণাল সেন : এক উপেক্ষিত চলচ্চিত্রকার
    [আজ বের্টোল্ট ব্রেশট-এর মৃত্যুদিন। ভারতীয় চলচ্চিত্রে যিনি সার্থকভাবে প্রয়োগ করেছিলেন ব্রেশটিয় আঙ্গিক, সেই মৃণাল সেনকে নিয়ে একটি সামান্য লেখা।]ভারতীয় চলচ্চিত্রের ইতিহাসে কীভাবে যেন পরিচালক ত্রয়ী সত্যজিৎ-ঋত্বিক-মৃণাল এক বিন্দুতে এসে মিলিত হন। ১৯৫৫-তে মুক্তি ...
  • দময়ন্তীর সিজনস অব বিট্রেয়াল পড়ে
    পড়লাম সিজনস অব বিট্রেয়াল গুরুচন্ডা৯'র বই দময়ন্তীর সিজনস অব বিট্রেয়াল। বইটার সঙ্গে যেন তীব্র সমানুভবে জড়িয়ে গেলাম। প্রাককথনে প্রথম বাক্যেই লেখক বলেছেন বাঙাল বাড়ির দ্বিতীয় প্রজন্মের মেয়ে হিসেবে পার্টিশন শব্দটির সঙ্গে পরিচিতি জন্মাবধি। দেশভাগ কেতাবি ...
  • দুটি পাড়া, একটি বাড়ি
    পাশাপাশি দুই পাড়া - ভ-পাড়া আর প-পাড়া। জন্মলগ্ন থেকেই তাদের মধ্যে তুমুল টক্কর। দুই পাড়ার সীমানায় একখানি সাতমহলা বাহারী বাড়ি। তাতে ক-পরিবারের বাস। এরা সম্ভ্রান্ত, উচ্চশিক্ষিত। দুই পাড়ার সাথেই এদের মুখ মিষ্টি, কিন্তু নিজেদের এরা কোনো পাড়ারই অংশ মনে করে না। ...
  • পরিচিতির রাজনীতি: সন্তোষ রাণার কাছে যা শিখেছি
    দিলীপ ঘোষযখন স্কুলের গণ্ডি ছাড়াচ্ছি, সন্তোষ রাণা তখন বেশ শিহরণ জাগানাে নাম। গত ষাটের দশকের শেষার্ধ। সংবাদপত্র, সাময়িক পত্রিকা, রেডিও জুড়ে নকশালবাড়ির আন্দোলনের নানা নাম ছড়িয়ে পড়ছে আমাদের মধ্যে। বুঝি না বুঝি, পকেটে রেড বুক নিয়ে ঘােরাঘুরি ফ্যাশন হয়ে ...
  • দক্ষিণের কড়চা
    (টিপ্পনি : দক্ষিণের কথ্যভাষার অনেক শব্দ রয়েছে। না বুঝতে পারলে বলে দেব।)দক্ষিণের কড়চা▶️এখানে মেঘ ও ভূমি সঙ্গমরত ক্রীড়াময়। এখন ভূমি অনাবৃত মহিষের মতো সহস্রবাসনা, জলধারাস্নানে। সামাদভেড়ির এই ভাগে চিরহরিৎ বৃক্ষরাজি নুনের দিকে চুপিসারে এগিয়ে এসেছে যেন ...
  • জোড়াসাঁকো জংশন ও জেনএক্স রকেটপ্যাড-১৪
    তোমার সুরের ধারা ঝরে যেথায়...আসলে যে কোনও শিল্প উপভোগ করতে পারার একটা বিজ্ঞান আছে। কারণ যাবতীয় পারফর্মিং আর্টের প্রাসাদ পদার্থবিদ্যার সশক্ত স্তম্ভের উপর দাঁড়িয়ে থাকে। পদার্থবিদ্যার শর্তগুলি পূরণ হলেই তবে মনন ও অনুভূতির পর্যায় শুরু হয়। যেমন কণ্ঠ বা যন্ত্র ...
  • উপনিবেশের পাঁচালি
    সাহেবের কাঁধে আছে পৃথিবীর দায়ভিন্নগ্রহ থেকে তাই আসেন ধরায়ঐশী শক্তি, অবতার, আয়ুধাদি সহসকলে দখলে নেয় দুরাচারী গ্রহমর্ত্যলোকে মানুষ যে স্বভাবে পীড়িতমূঢ়মতি, ধীরগতি, জীবিত না মৃতঠাহরই হবে না, তার কীসে উপশমসাহেবের দুইগালে দয়ার পশমঘোষণা দিলেন ওই অবোধের ...
  • ৪৬ হরিগঙ্গা বসাক রোড
    পুরোনো কথার আবাদ বড্ড জড়িয়ে রাখে। যেন রাহুর প্রেমে - অবিরাম শুধু আমি ছাড়া আর কিছু না রহিবে মনে। মনে তো কতো কিছুই আছে। সময় এবং আরো কত অনিবার্যকে কাটাতে সেইসব মনে থাকা লেখার শুরু খামখেয়ালে, তাও পাঁচ বছর হতে চললো। মাঝে ছেড়ে দেওয়ার পর কিছু ব্যক্তিগত প্রসঙ্গ ...
  • কাশ্মীরের ভূ-রাজনৈতিক ইতিহাসঃ ১৯৩০ থেকে ১৯৯০
    ভারতে ব্রিটিশ সাম্রাজ্যবাদের সূর্য অস্ত যায় ১৯৪৭ এ। মূল ভারত ভূখন্ড ভেঙে ভারত ও পাকিস্তান নামে দুটি আলাদা রাষ্ট্র গঠিত হয়। কিন্তু ভুখন্ডের ভাগবাঁটোয়ারা সংক্রান্ত আলোচনচক্র ওতটাও সরল ছিল না। মূল দুই ভূখণ্ড ছাড়াও তখন আরও ৫৬২ টি করদরাজ্য ছিল। এগুলোতে ...


বইমেলা হোক বা নাহোক চটপট নামিয়ে নিন রঙচঙে হাতে গরম গুরুর গাইড ।

যুক্তরাষ্ট্রের স্বাধীনতা যুদ্ধে লড়াই করা একজন জেনারেল সম্ভবত ট্রান্সজেন্ডার ছিলেন, সেই যুক্তরাষ্ট্র যেখানে নিষিদ্ধ হতে যাচ্ছে ট্রান্সজেন্ডারদের সেনাবাহিনীতে প্রবেশ

Sumit Roy


https://cdn.iflscience.com/images/335ec271-65b5-52c9-8d7e-af64a5859cc9
/extra_large-1554643000-cover-image.jpg


মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের স্বাধীনতা যুদ্ধে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখা একজন পোলিশ জেনারেলের কঙ্কাল পাওয়া গেছে। আর সেই কঙ্কালের গঠন নারীর কঙ্কালের মত। আমরা জানি না খাজিমিয়ের্জ পুয়াস্কি (Casimir Pulaski) তার নিজের শরীর সম্পর্কে জানতেন কিনা, কিন্তু মনে হচ্ছে আজ যদি তিনি জীবিত থাকতেন তাহলে তিনি ইন্টারসেক্স বা ট্রান্সম্যান হিসেবে চিহ্নিত হতেন। যুক্তরাষ্ট্রের সেনাবাহিনী গড়ে তোলার ক্ষেত্রে পুয়াস্কি একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিলেন, কিন্তু আজকের দিনে হলে ট্রাম্পের ট্রান্সজেন্ডার নিষেধাজ্ঞা সম্ভবত তাকে এই কাজটি থেকে বিরত রাখত।

পুলস্কি তার পোলিশ সম্ভ্রান্ত পরিবার দ্বারা একটি ছেলে হিসাবে পালিত হয়েছিলেন। রুশ আধিপত্যে থাকা পোল্যান্ডের বিরুদ্ধে বিদ্রোহে তিনি তার সাহস ও সিনিয়র কমান্ডারদের আদেশ প্রত্যাখ্যানের জন্য বিখ্যাত হয়ে ওঠেন। পোলিশ বিদ্রোহের পরাজয়ের পর তিনি ফ্রান্সে যান। তারপর যুক্তরাষ্ট্রের বিপ্লবী যুদ্ধে সহায়তা করার জন্য বেঞ্জামিন ফ্র্যাংকলিন তার ব্যাপারে প্রস্তাব করেন। যুদ্ধের পর তিনি "যুক্তরাষ্ট্রের অশ্বারোহী দলের পিতা" হিসাবে পরিচিত হন। ১৭৭৭ সালে ব্র্যান্ডিওয়িনের যুদ্ধে তিনি তার অসাধারণ অশ্বারোহী দক্ষতায় জর্জ ওয়াশিংটনকে সম্ভাব্য মৃত্যু বা বন্দিত্বের হাত থেকে উদ্ধার করেন। সেই যুগে নারীদের সৈন্য হওয়া প্রায় অসম্ভব ছিল। আর তাই কেউই পুয়াস্কির লিঙ্গ নিয়ে প্রশ্ন তোলে নি।

পুয়াস্কির মৃত্যুর কয়েক দশক পর জর্জিয়ার মন্টেরি স্কয়ারে তাঁর একটি স্মৃতিস্তম্ভ নির্মিত হয়েছিল। যুদ্ধে গ্রেপশটের আঘাতে পুয়াস্কির মৃত্যু হয়। এরপর তার মৃতদেহ যার তত্ত্বাবধানে বহন করা হয় সেও যুদ্ধে মারা যায়। তাই পুয়াস্কির প্রকৃত মৃতদেহ কোথায় ও কিভাবে সমাহিত হয় তা নিয়ে সন্দেহ ছিলই। পুয়াস্কির মৃতদেহ ধারণা করে একটি মৃতদেহকে সেই মন্টেরি স্কয়ারের স্মৃতিস্তম্ভটিতে সমাহিত করা হয়। ১৯৯৬ সালে স্মৃতিস্তম্ভটির পুনঃস্থাপনের প্রয়োজন হলে তার মৃতদেহ খনন করে তোলা হয় এবং পরীক্ষা করা হয়।

কঙ্কালের উচ্চতা এবং করোটি ও হাতগুলির ক্ষত পুলেস্কির ও যুদ্ধে তার আঘাতের বর্ণনার সাথে মিলে যায়। চোখের নিচে একটি সম্ভাব্য টিউমারও পুয়াস্কির তিনটি সমসাময়িক পোর্ট্রেটগুলির বিবর্ণতার সাথে মিলে যায়। যাইহোক, কঙ্কালের পেলেভিসে এমন বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা দেখে প্রত্নতাত্ত্বিকগণ সাধারণত কঙ্কালকে জীববিজ্ঞানগতভাবে নারী হিসেবে চিহ্নিত করেন।

এই ঘটনাগুলো এক দশক আগে প্রকাশ করা হয়েছিল, কিন্তু এটি পুয়াস্কিরই দেহ কিনা তা নিশ্চিত করার জন্য এর কোন পারিবারিক ডিএনএ ছিল না। যাই হোক, এখন ডিএনএ প্রযুক্তির অগ্রগতির কল্যাণে পুয়াস্কির নাতির (গ্র্যান্ডনিস) কবর থেকে পাওয়া মাইটোকন্ড্রিয়াল ডিএনএ এর সাথে পুয়াস্কির মাইটোকন্ড্রিয়াল ডিএনএ তুলনা করা সম্ভব। যার ফলে এখন নিশ্চিত হওয়া গেছে যে, দাফনকৃত শরীরটা পুয়াস্কিরই ছিল।

অ্যারিজোনা স্টেট ইউনিভার্সিটির প্রফেসর চার্লস মার্বস শরীরের ফরেনসিক বিশ্লেষণটিতে অবদান রাখেন এবং এএসইউ নিউজকে বলেন: "একটি কঙ্কালের পক্ষে যতটা নারী হওয়া সম্ভব কঙ্কালটি তাই।"

"America's Hidden Stories: Episode 6 The General Was Female?" নামে একটি স্মিথসোনিয়ান ডকুমেন্টারিতে বলা হয়, প্রত্নতাত্ত্বিকগণ সম্প্রতি স্বীকার করতে শুরু করেছে যে, লিঙ্গ দ্বারা লাশ শ্রেণীবদ্ধ করার পুরানো উপায়টি যৌনতা ও লিঙ্গের ক্ষেত্রে মানব বৈচিত্র্যকে বিবেচনায় নিতে ব্যর্থ। একটি তত্ত্ব বলছে যে, পুয়াস্কির কনজেনিটাল অ্যাড্রেনাল হাইপারপ্ল্যাসিয়া ছিল, যা ইন্টারসেক্স এর একটি প্রকরণ। পুয়াস্কির অভিসিঞ্চনের নোটগুলি নির্দেশ করছে, জন্মের পর থেকেই তার মধ্যে কিছু অস্বাভাবিক ব্যাপার ছিল। আবার এটিও সম্ভব যে, তিনি জৈবিকভাবে নারী ছিলেন, কিন্তু সবসময় নিজেকে একটি ছেলে এবং একজন পুরুষ হিসেবে চিহ্নিত করে গেছেন।

মার্বস বলেন "আমি মনে করি না, তার জীবনে যে কোন সময়ে, তিনি মনে করেন তিনি একজন নারী ছিলেন। আমার মনে হয়, তিনি মনে করতেন যে তিনি একজন পুরুষ ছিলেন এবং তার শরীরে কিছু একটা ভুল ছিল।" মার্বস তার গবেষণাকে "A political hot potato" হিসাবে বর্ণনা করেন এবং বলেন ইতিমধ্যেই তাকে চুপ থাকার জন্য চাপ প্রয়োগ করা হচ্ছে।

যুক্তরাষ্ট্রের স্বাধীনতা অবশ্যম্ভাবী ছিল, কিন্তু পুয়াস্কির দক্ষতা ও সাহস, ও একই সাথে বিপ্লবী অশ্বারোহী বাহিনীর প্রস্তুত ও প্রশিক্ষণ সেই দেশটিকে অতিরিক্ত কয়েক বছরের অত্যাচার থেকে রক্ষা করেছিল। কিন্তু তিনি যদি আজ জীবিত থাকতেন, তবে সেনাবাহিনীতে তার স্বীকৃতি একটি আইনি ও সামাজিক বিতর্কের বিষয়ে পরিণত হত।

১২ এপ্রিল, ২০১৯ সাল থেকে যুক্তরাষ্ট্রে কোন ট্রান্সজেন্ডার বা রূপান্তরিত লিঙ্গ যুক্তরাষ্ট্রের সেনাবাহিনীতে যোগদান করতে পারবেন না, প্রাইভেট হিসেবেও না। ডোনাল্ড ট্রাম্প একবার টুইট করেছিলেন, "...ট্রান্সজেন্ডারদের কারণে সামরিক বাহিনীতে যে প্রচুর চিকিৎসার খরচ হয় ও বিঘ্ন ঘটে তা হতে দেয়া চলবে না।" ট্রাম্প সরকার ট্রান্সজেন্ডারদের নিষেধাজ্ঞার যে সংস্করণটি দেন তাতে মোটামুটিভাবে বলা ছিল, যদি কারও মধ্যে জেন্ডার ডিসফোরিয়া থাকে তবে তাকে মিলিটারিতে নেয়া হবে না, আর যদি কোন ট্রান্সজেন্ডার মিলিটারিতে প্রবেশ করতে চায় তাকে অন্তত ৩৬ মাস স্ট্যাবল অবস্থায় থাকতে হবে, মানে রূপান্তরিত হবার পর ৩৬ মাসের মধ্যে মিলিটারিতে প্রবেশ করতে পারবেন না। যাই হোক, বেশিরভাগ ট্রান্সজেন্ডার ও ট্রান্সসেক্সুয়ালই এই নিষেধাজ্ঞায় মিলিটারি থেকে ছাটাই হয়ে যাবেন।

বিভিন্ন মহল থেকে বলা হচ্ছে ট্রাম্প এই কাজ কোন নীতিমালার প্রেক্ষিতে করেন নি, পুরোটাই রাজনীতির খেলা। কেবল ডেমোক্র্যাটদেরকে পরাজিত করার বাসনা থেকেই এটা করা হয়েছে, মাঝখান থেকে ট্রান্সজেন্ডাররা কোপানলে পতিত হল। ট্রান্সজেন্ডারদের জেন্ডার রিএসাইনমেন্ট এর জন্য মিলিটারি থেকে দেয়া খরচ অত বেশি কখনই হয়না, মিলিটারিদের জন্য যে খরচ করা হয় তার তুলনায় এটা নগণ্য। কানাডা, ইজরাইল, ইংল্যান্ডের সেনাবাহিনীতে ট্রান্সজেন্ডাররা আছে, তাদের চিকিৎসা খরচ নিয়ে কখনও কিছু বলতে শোনা গেল না, এক যুক্তরাষ্ট্রেরই সেটা নিয়ে প্রবলেম!

২০১৬ সালে RAND corporation নামে একটি প্রতিষ্ঠান সামরিক বাহিনীতে ট্রান্সজেন্ডারদের নিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করে, সেটায় কয়েকটা বিষয় উঠে এসেছে। সংক্ষেপে এখানে বলছি:

(ক) যুক্তরাষ্ট্রের ১৩ লক্ষ সেনার মধ্যে ট্রান্সজেন্ডারের সংখ্যা ২৪৫০ জন মাত্র, আর এদের মধ্যে খুব কমই জেন্ডার এফার্মিং কেয়ার চায়, দেখা গেছে প্রতি বছর মাত্র ২৯ থেকে ১২৯ জন ট্রাঞ্জিশন সম্পর্কিত কেয়ার চায়।

(খ) এইরকম কেয়ার বা চিকিৎসার ফলে সেনাবাহিনীর রেডিনেস এ কোন প্রভাবই পড়ে না বলতে গেলে। দেখা গেছে সেনাবাহিনীর মোট শ্রমঘণ্টার ০.০০১৫% এরও কম খরচ হয় ট্রান্সজেন্ডারদের এরকম চিকিৎসা বা কেয়ারের জন্য। এদিকে ২০১৫ সালে প্রায় ৫০,০০০ জন সক্রিয় সামরিক কর্মচারীকে বিভিন্ন আইনগত, চিকিৎসা সংক্রান্ত ও প্রশাসনিক কারণে ডিপ্লয় করা যায় না। এই সংখ্যাটা সেনাবাহিনীর সক্রিয় অংশের প্রায় ১৪%। এরকম শৎকরা হারের নিষ্ক্রিয়তাকে ধরে নিয়েই বিবেচনা করতে হয়। ট্রান্সজেন্ডার সামরিক কর্মীদের সংখ্যা তো এর তুলনায় অনেক অনেক কম।

(গ) এদিকে রূপান্তর সম্পর্কিত চিকিৎসার খরচও মিলিটারির জন্য অনেক কম। সামরিক বাহিনীর এক্টিভ কম্পোনেন্ট এর চিকিৎসা ও স্বাস্থ্যের জন্য যে পরিমাণ খরচ হয়, ট্রান্সজেন্ডারদের জন্য সেই খরচ মাত্র ০.০৪% থেকে ০.১৩% বৃদ্ধি পায়।

এই প্রতিবেদন থেকেই পরিষ্কার হয়ে যায়, যুক্তরাষ্ট্রের সেনাবাহিনীতে ট্রান্সজেন্ডার ও ট্রান্সসেক্সুয়ালদের প্রতি নিষেধাজ্ঞা অন্য কোন সুবিধার জন্য আসেনি, বরং এসেছে ট্রান্সজেন্ডারদের প্রতি বিদ্বেষ থেকে। এই নিষেধাজ্ঞা সমাজে যুক্তরাষ্ট্রে ট্রান্সজেন্ডারদের অবস্থানকে আরও খাটো করে ফেলল। তাদেরকে বলল যে তারা সমাজের অন্যদের মত নয়, অন্যেরা সমাজে যেরকম সুযোগ সুবিধা পায়, তারা সেই সুযোগ সুবিধা পাবে না। পুয়াস্কাদেরকে এভাবেই লড়াই করতে হয়। অষ্টাদশ শতকের পুয়াস্কাকে লড়তে হয়েছিল যুদ্ধের ময়দানে। এই একবিংশ শতকে এসে পুয়াস্কাদেরকে লড়তে হচ্ছে বরং যুদ্ধের ময়দানে লড়াই করবার জন্য। যাই হোক, হাউজে ট্রাম্পের এই মতের বিরুদ্ধে একটি নন-বাইন্ডিং রেজোল্যুশন পাশ হয়েছে, দেখা যাক ভবিষ্যতে কী হয়।

তথ্যসূত্র:
1. http://www.poles.org/L_Kaz/E_Kaz.html
2. https://asunow.asu.edu/20190405-discoveries-asu-bioarchaeologist-uncov
ers-200-year-old-mystery

3. https://www.smithsonianchannel.com/shows/americas-hidden-stories/the-g
eneral-was-female/1005729/3469173

4. https://asunow.asu.edu/20190405-discoveries-asu-bioarchaeologist-uncov
ers-200-year-old-mystery

5. http://www.rand.org/pubs/research_reports/RR1530.html
6. https://www.vox.com/identities/2017/7/26/16034366/trump-transgender-mi
litary-ban

7. https://www.nydailynews.com/news/national/ny-trump-military-ban-transg
ender-20190327-nukbdzpmdrgplcaeqzrp5s3ahq-story.html


265 বার পঠিত (সেপ্টেম্বর ২০১৮ থেকে)

শেয়ার করুন


Avatar: Sumit Roy

Re: যুক্তরাষ্ট্রের স্বাধীনতা যুদ্ধে লড়াই করা একজন জেনারেল সম্ভবত ট্রান্সজেন্ডার ছিলেন, সেই যুক্তরাষ্ট্র যেখানে নিষিদ্ধ হতে যাচ্ছে ট্রান্সজেন্ডারদের সেনাবাহিনীতে প্রবেশ

সংশোধন: ড: মার্বস এই খবর প্রকাশ করতে চাপে পড়েছেন তা কোন নির্ভরযোগ্য সূত্রের দ্বারা নিশ্চিত করা যায়নি। তাই কথাটি হয়তো সঠিক নয়।
Avatar: কেদার

Re: যুক্তরাষ্ট্রের স্বাধীনতা যুদ্ধে লড়াই করা একজন জেনারেল সম্ভবত ট্রান্সজেন্ডার ছিলেন, সেই যুক্তরাষ্ট্র যেখানে নিষিদ্ধ হতে যাচ্ছে ট্রান্সজেন্ডারদের সেনাবাহিনীতে প্রবেশ

কিন্তু ওর নাম কী, মাপ করবেন বৈকুণ্ঠবাবু--কিছু বাদসাদ দিয়েই নাম রাখতে হয় , কিন্তু লেখা যা হয়েছে সে পড়তে পড়তে, ওর নাম কী, শরীর রোমাঞ্চ হয়ে ওঠে!


আপনার মতামত দেবার জন্য নিচের যেকোনো একটি লিংকে ক্লিক করুন