Muhammad Sadequzzaman Sharif RSS feed

Muhammad Sadequzzaman Sharifএর খেরোর খাতা।

আরও পড়ুন...
সাম্প্রতিক লেখালিখি RSS feed
  • দক্ষিণের কড়চা
    গরু বাগদির মর্মরহস্য➡️মাঝে কেবল একটি একক বাঁশের সাঁকো। তার দোসর আরেকটি ধরার বাঁশ লম্বালম্বি। সাঁকোর নিচে অতিদূর জ্বরের মতো পাতলা একটি খাল নিজের গায়ে কচুরিপানার চাদর জড়িয়ে রুগ্ন বহুকাল। খালটি জলনিকাশির। ঘোর বর্ষায় ফুলে ফেঁপে ওঠে পচা লাশের মতো। যেহেতু এই ...
  • বাংলায় এনআরসি ?
    বাংলায় শেষমেস এনআরসি হবে, না হবে না, জানি না। তবে গ্রামের সাধারণ নিরক্ষর মানুষের মনে তীব্র আতঙ্ক ছড়িয়েছে। আজ ব্লক অফিসে গেছিলাম। দেখে তাজ্জব! এত এত মানু্ষের রেশন কার্ডে ভুল! কয়েকজনের সাথে কথা বলে জানলাম প্রায় সবার ভোটারেও ভুল। সব আইকার্ড নির্ভুল আছে এমন ...
  • যান্ত্রিক বিপিন
    (১)বিপিন বাবু সোদপুর থেকে ডি এন ৪৬ ধরবেন। প্রতিদিন’ই ধরেন। গত তিন-চার বছর ধরে এটাই বিপিন’বাবুর অফিস যাওয়ার রুট। হিতাচি এসি কোম্পানীর সিনিয়র টেকনিশিয়ন, বয়েস আটান্ন। এত বেশী বয়েসে বাড়ি বাড়ি ঘুরে এসি সার্ভিসিং করা, ইন্সটল করা একটু চাপ।ভুল বললাম, অনেকটাই চাপ। ...
  • কাইট রানার ও তার বাপের গল্প
    গত তিন বছর ধরে ছেলের খুব ঘুড়ি ওড়ানোর শখ। গত দুবার আমাকে দিয়ে ঘুড়ি লাটাই কিনিয়েছে কিন্তু ওড়াতে পারেনা - কায়দা করার আগেই ঘুড়ি ছিঁড়ে যায়। গত বছর আমাকে নিয়ে ছাদে গেছিল কিন্তু এই ব্যপারে আমিও তথৈবচ - ছোটবেলায় মাথায় ঢুকিয়ে দেওয়া হয়েছিল ঘুড়ি ওড়ানো "বদ ছেলে" দের ...
  • কুচু-মনা উপাখ্যান
    ১৯৮৩ সনের মাঝামাঝি অকস্মাৎ আমাদের বিদ্যালয়ের ষষ্ঠ(ক) শ্রেণী দুই দলে বিভক্ত হইয়া গেল।এতদিন ক্লাসে নিরঙ্কুশ তথা একচ্ছত্র আধিপত্য বিস্তার করিয়া ছিল কুচু। কুচুর ভাল নাম কচ কুমার অধিকারী। সে ক্লাসে স্বীয় মহিমায় প্রভূত জনপ্রিয়তা অর্জন করিয়াছিল। একটি গান অবিকল ...
  • 'আইনি পথে' অর্জিত অধিকার হরণ
    ফ্যাসিস্ট শাসন কায়েম ও কর্পোরেট পুঁজির স্বার্থে, দীর্ঘসংগ্রামে অর্জিত অধিকার সমূহকে মোদী সরকার হরণ করছে— আলোচনা করলেন রতন গায়েন। দেশে নয়া উদারবাদী অর্থনীতি লাগু হওয়ার পর থেকেই দক্ষিণপন্থার সুদিন সূচিত হয়েছে। তথাপি ১৯৯০-২০১৪-র মধ্যবর্তী সময়ে ...
  • সম্পাদকীয়-- অর্থনৈতিক সংকটের স্বরূপ
    মোদীর সিংহগর্জন আর অর্থনৈতিক সংকটের তীব্রতাকে চাপা দিয়ে রাখতে পারছে না। অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন শেষ পর্যন্ত স্বীকার করতে বাধ্য হয়েছেন যে ভারতের অর্থনীতি সংকটের সম্মুখীন হয়েছে। সংকট কতটা গভীর সেটা তার স্বীকারোক্তিতে ধরা পড়েনি। ধরা পড়েনি এই নির্মম ...
  • কাশ্মীরি পন্ডিত বিতাড়নঃ মিথ, ইতিহাস ও রাজনীতি
    কাশ্মীরে ডোগরা রাজত্ব প্রতিষ্ঠিত হবার পর তাদের আত্মীয় পরিজনেরা কাশ্মীর উপত্যকায় বসতি শুরু করে। কাশ্মীরি ব্রাহ্মণ সম্প্রদায়ের মানুষেরাও ছিলেন। এরা শিক্ষিত উচ্চ মধ্যবিত্ত ও মধ্যবিত্ত শ্রেনি। দেশভাগের পরেও এদের ছেলেমেয়েরা স্কুল কলেজে পড়াশোনা করেছে। অন্যদিকে ...
  • নিকানো উঠোনে ঝরে রোদ
    "তেরশত নদী শুধায় আমাকে, কোথা থেকে তুমি এলে ?আমি তো এসেছি চর্যাপদের অক্ষরগুলো থেকে ..."সেই অক্ষরগুলোকে ধরার আরেকটা অক্ষম চেষ্টা, আমার নতুন লেখায় ... এক বন্ধু অনেকদিন আগে বলেছিলো, 'আঙ্গুলের গভীর বন্দর থেকে যে নৌকোগুলো ছাড়ে সেগুলো ঠিক-ই গন্তব্যে পৌঁছে যায়' ...
  • খানাকুল - ২
    [এর আগে - https://www.guruchan...


বইমেলা হোক বা নাহোক চটপট নামিয়ে নিন রঙচঙে হাতে গরম গুরুর গাইড ।

Green Book - just a masterpiece

Muhammad Sadequzzaman Sharif

Tony Lip Vallelonga একজন নাইট ক্লাবের বাউন্সার।তিনি একজন অল্পশিক্ষিত ইটালিয়ান আমেরিকান।তার চরিত্রের মধ্যে অন্যতম বৈশিষ্ট্য হচ্ছে তিনি এক রোখা, এগুয়ে, জেদি, দুনিয়ায় চলার তার সম্পূর্ণ নিজস্ব দৃষ্টিভঙ্গি আছে, প্রচুর খেতে পারেন, সমস্যা সমাধানের অদ্ভুত দক্ষতা আছে, বাস্তববাদী, কালোদের প্রতি দৃষ্টিভঙ্গি ভাল না এবং নীতি ঠিক রেখে টাকার জন্য সব কিছুই করতে রাজি। নাইট ক্লাব সাময়িক ভাবে বন্ধের জন্য চাকরি খুঁজছেন তিনি। লোভনীয় অফার সহ চাকরি পেলেন D. Don Shirley নামের একজন পিয়ানিস্টের গাড়ি চালক এবং দেহরক্ষীর কাজ। পিয়ানিস্ট আমেরিকার দক্ষিণ দিক ঘুরে ঘুরে কনসার্ট করবেন আর টনি লিপের দায়িত্ব হচ্ছে তাকে সমস্ত জায়গায় নিরাপদে সময়মত পৌঁছে দেওয়া। সমস্যা হচ্ছে Don Shirley একজন নিগ্রো, আফ্রিকান আমেরিকান, কিন্তু যেহেতু টাকা ভাল দিবে আর টনি টাকার জন্য নীতি ঠিক রেখে সব করতে পারে তাই সে কালদের পছন্দ না করলেও রাজি হয়ে যায় এই চাকরির জন্য। নির্ধারিত দিনে যাত্রা শুরু করার সময় টনির হাতে ধরিয়ে দেওয়া হয় এক অদ্ভুত বই, Green Book, যাতে দেওয়া আছে কালোদের জন্য নিরাপদ হোটেল গুলার নাম, কোথায় কোথায় কোন প্রকার বাধা ছাড়া থাকতে পারবে তার পরিচয়। গ্রিন বুক সাথে নিয়ে শুরু হয় তাদের যাত্রা। সময়টা হচ্ছে ১৯৬২ সাল।

Don Shirley কে শুধু পিয়ানিস্ট বললে কম বলা হয়। তিনি সেই সময়ের খুব বিখ্যাত পিয়ানিস্টদের মধ্যে অন্যতম ছিলেন। তিনি জানতেন কালো বলে তাকে এই পুরো সফরে নানা ঝামেলা পোহাতে হবে কিন্তু তবুও তিনি এই পথেই যেতে চেয়েছেন। সফল মানুষ হওয়ার পরেও নিজের কালো পরিচয় নিয়ে তিনি অবলীলায় রাজি ছিলেন কালোদের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ এই সব এলাকায় কনসার্ট করতে। দুই মাসের এই সফর উনার নিজের জায়গা থেকে বর্ণবাদের বিরুদ্ধে একটা প্রতিবাদ বলা যেতে পারে।

গ্রিন বুক নিয়ে একটু বলা প্রয়োজন এখানে। ১৯৩৬ সালে Victor Hugo Green নামের একজন এই ভ্রমণ গাইড প্রকাশ করে যা মূলত কালোদের জন্য। গ্রিন বুকের মূল নাম হচ্ছে The Negro Motorist Green Book, যেখানে নিজেদের গাড়ি নিয়ে যারা ঘুরতে বের হয় তাদের জন্য নিরাপদে কোথায় রাত কাটাতে পারবে তার নাম পরিচয় সব দেওয়া আছে। তিনি কালোদের প্রতিনিয়ত রাস্তা ঘাটে বিপদে পড়তে দেখে এই বই প্রকাশের সিদ্ধান্ত নেন। ১৯৩৬ থেকে প্রকাশ হয়ে এই বই ১৯৬৬ সাল পর্যন্ত প্রকাশ হয়েছে। তথাকথিত সভ্য সাদারা কী দারুণ সভ্যই না ছিল সে সময়!

এই রকম অদ্ভুত সুন্দর কিন্তু সত্য গল্প নিয়ে তৈরি Green Book সিনেমাটি। সিনেমার সংলাপ থেকে শুরু করে অভিনয়, সিনেমাটোগ্রাফি আর সঙ্গিত এক কথায় দুর্দান্ত। গল্পের প্রাণ হচ্ছে দুই প্রধান চরিত্র। দুইজন একে অপরের বিপরীত মেরুর হয়েও আস্তে আস্তে তাদের মাঝে বন্ধুতা তৈরি হওয়া এক কথায় অসাধারণ। তবে সব কিছু ছাপিয়ে আসলে গল্পটা গ্রিন বুকের। যেখানে কালোদের পদে পদে অপমানের, কষ্টের কথা ফুটে উঠে এসেছে। D. Don Shirley কোন একটা কনসার্টে প্রবেশ করার আগে তাকে দেওয়া হয় উষ্ণ সম্বর্ধনা, ফুলেল শুভেচ্ছা অথচ কনসার্ট চলাকালীন সময়েই তিনি যখন অল্প বিরতি নিয়ে বাথরুমে যেতে চাইলেন তখন তাকে দেখিয়ে দেওয়া হল বাড়ির বাহিরে, কালোদের জন্য আলাদা করে বানানো টয়লেট। তার পিয়ানো শুনবে অথচ তাকে হোটেলের নিজস্ব রেস্টুরেন্টে খেতে দিচ্ছে না, খাওয়ার অনুমতি নাই। কেউ কেউ বিশ্বাসই করছে না কালো একজন মানুষ সাদা গাড়ি চালক নিয়ে ঘুরছে, কোন কারন ছাড়াই তাই পুলিশ দিচ্ছে নানা রকমের ঝামেলা। বর্ণবৈষম্য নিয়ে এমন ডার্ক কমেডি স্টাইলে আর কোন সিনেমা তৈরি হয়েছে কিনা আমার জানা নেই।

গ্রিন বুকের আগে পরিচালক Peter Farrelly তৈরি করেছিলেন কমেডি ছবি Dumb and Dumber, কিন্তু এবার তিনি নিজেকে নিয়ে গেছেন অন্য উচ্চতায়। গ্রিন বুক ইতিমধ্যে গোল্ডেন গ্লোব জিতে নিয়েছেন। এবার চোখ অস্কারে। ছবির দুই প্রধান চরিত্র D. Don Shirley ও Tony Lip চরিত্রে যথাক্রমে দুর্দান্ত অভিনয় করেছেন মাহারশালা আলী ও ভিগো মর্টেনসন। দুই জনই অস্কার মনোনয়ন প্রায় নিশ্চিত করে ফেলেছেন। মাহারশালা আলী অনবদ্য ছিলেন পুরো সিনেমা জুড়ে। পিয়ানো বাজানর সময় তিনি এত দুর্দান্ত ছিলেন যে বোঝা মুশকিল ছিল যে তিনি অভিনয় করছেন, মনে হচ্ছিল আসলেই তিনি মাস্টার কোন পিয়ানো বাদক। অন্য দিকে ভিগো মর্টেনসন টনি চরিত্র করতে গিয়ে পুরোপুরি হারিয়ে গেছেন টনির মাঝে। এত চমৎকার অভিনয় করেছেন বিশেষ করে খাওয়ার দৃশ্য গুলাতে তিনি জাস্ট অসাধারণ ছিলেন।

আইএমডিবি রেটিং এ ৮.৩/১০ পাওয়া এই ছবিটা সিনেমা প্রেমীদের জন্য পরম পাওয়া একটা সিনেমা, না দেখাটা রীতিমত অন্যায় হবে।কিছু সিনেমা থাকে যা দেখার পর তৃপ্তিতে মন ভরে উঠে, গ্রিন বুক তেমনই একটা সিনেমা।




393 বার পঠিত (সেপ্টেম্বর ২০১৮ থেকে)

শেয়ার করুন


Avatar: Kihobejene

Re: Green Book - just a masterpiece

Thanks for the review. Dekha hoi ni ekhono cinema ta.

Roma dekhlen? Kemon laaglo?
Avatar: Muhammad Sadequzzaman Sharif

Re: Green Book - just a masterpiece

রোমা ভাল লেগেছে। বিদেশি ভাষা বিভাগে সেরা ছবির পুরস্কার প্রায় নিশ্চিত।


আপনার মতামত দেবার জন্য নিচের যেকোনো একটি লিংকে ক্লিক করুন