Sumon Ganguly Bhattacharyya RSS feed

Sumon Ganguly Bhattacharyyaএর খেরোর খাতা।

আরও পড়ুন...
সাম্প্রতিক লেখালিখি RSS feed
  • বদল
    ছাত্র হয়ে অ্যামেরিকায় পড়তে যারা আসে - আমি মূলতঃ ছেলেদের কথাই বলছি - তাদের জীবনের মোটামুটি একটা নিশ্চিত গতিপথ আছে। মানে ছিল। আজ থেকে কুড়ি-বাইশ বছর বা তার আগে। যেমন ধরুন, পড়তে এল তো - এসে প্রথম প্রথম একেবারে দিশেহারা অবস্থা হত। হবে না-ই বা কেন? এতদিন অব্দি ...
  • নাদির
    "ইনসাইড আস দেয়ার ইজ সামথিং দ্যাট হ্যাজ নো নেম,দ্যাট সামথিং ইজ হোয়াট উই আর।"― হোসে সারামাগো, ব্লাইন্ডনেস***হেলেন-...
  • জিয়াগঞ্জের ঘটনাঃ সাম্প্রদায়িক রাজনীতি ও ধর্মনিরপেক্ষতা
    আসামে এনার্সি কেসে লাথ খেয়েছে। একমাত্র দালাল ছাড়া গরিষ্ঠ বাঙালী এনার্সি চাই না। এসব বুঝে, জিয়াগঞ্জ নিয়ে উঠেপড়ে লেগেছিল। যাই হোক করে ঘটনাটি থেকে রাজনৈতিক ফায়দা তুলতেই হবে। মেরুকরনের রাজনীতিই এদের ভোট কৌশল। ঐক্যবদ্ধ বাঙালী জাতিকে হিন্দু মুসলমানে ভাগ করা ...
  • অরফ্যানগঞ্জ
    পায়ের নিচে মাটি তোলপাড় হচ্ছিল প্রফুল্লর— ভূমিকম্পর মত। পৃথিবীর অভ্যন্তরে যেন কেউ আছাড়ি পিছাড়ি খাচ্ছে— সেই প্রচণ্ড কাঁপুনিতে ফাটল ধরছে পথঘাট, দোকানবাজার, বহুতলে। পাতাল থেকে গোঙানির আওয়াজ আসছিল। ঝোড়ো বাতাস বইছিল রেলব্রিজের দিক থেকে। প্রফুল্ল দোকান থেকে ...
  • থিম পুজো
    অনেকদিন পরে পুরনো পাড়ায় গেছিলাম। মাঝে মাঝে যাই। পুরনো বন্ধুদের সঙ্গে দেখা হয়, আড্ডা হয়। বন্ধুদের মা-বাবা-পরিবারের সঙ্গে কথা হয়। ভাল লাগে। বেশ রিজুভিনেটিং। এবার অনেকদিন পরে গেলাম। এবার গিয়ে শুনলাম তপেস নাকি ব্যবসা করে ফুলে ফেঁপে উঠেছে। একটু পরে তপেসও এল ...
  • কাঁসাইয়ের সুতি খেলা
    সেকালে কাঁসাই নদীতে 'সুতি' নামের একটা খেলা প্রচলিত ছিল। মাছ ধরার অভিনব এক পদ্ধতি, বহু কাল ধরে যা চলে আসছে। আমাদের পাড়ার একাধিক লোক সুতি খেলাতে অংশ নিত। এই মৎস্যশিকার সার্বজনীন, হিন্দু ও মুসলিম উভয় সম্প্রদায়ে জনপ্রিয়। মনে আছে ক্লাস সেভেনে পড়ার সময় একদিন ...
  • শুভ বিজয়া
    আমার যে ঠাকুর-দেবতায় খুব একটা বিশ্বাস আছে, এমন নয়। শাশ্বত অবিনশ্বর আত্মাতেও নয়। এদিকে, আমার এই জীবন, এই বেঁচে থাকা, সবকিছু নিছকই জৈবরাসায়নিক ক্রিয়া, এমনটা সবসময় বিশ্বাস করতে ইচ্ছে করে না - জীবনের লক্ষ্য-উদ্দেশ্য-পরিণ...
  • আবরার ফাহাদ হত্যার বিচার চাই...
    দেশের সবচেয়ে মেধাবীরা বুয়েটে পড়ার সুযোগ পায়। দেশের সবচেয়ে ভাল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নিঃসন্দেহে বুয়েট। সেই প্রতিষ্ঠানের একজন ছাত্রকে শিবির সন্দেহে পিটিয়ে মেরে ফেলল কিছু বরাহ নন্দন! কাওকে পিটিয়ে মেরে ফেলা কি খুব সহজ কাজ? কতটুকু জোরে মারতে হয়? একজন মানুষ পারে ...
  • ইন্দুবালা ভাতের হোটেল-৭
    চন্দ্রপুলিধনঞ্জয় বাজার থেকে এনেছে গোটা দশেক নারকেল। কিলোটাক খোয়া ক্ষীর। চিনি। ছোট এলাচ আনতে ভুলে গেছে। যত বয়েস বাড়ছে ধনঞ্জয়ের ভুল হচ্ছে ততো। এই নিয়ে সকালে ইন্দুবালার সাথে কথা কাটাকাটি হয়েছে। ছোট খাটো ঝগড়াও। পুজো এলেই ইন্দুবালার মন ভালো থাকে না। কেমন যেন ...
  • গুমনামিজোচ্চরফেরেব্বাজ
    #গুমনামিজোচ্চরফেরেব্...


বইমেলা হোক বা নাহোক চটপট নামিয়ে নিন রঙচঙে হাতে গরম গুরুর গাইড ।

চলো এগিয়ে চলি 3

Sumon Ganguly Bhattacharyya

#চলো এগিয়ে চলি
#সুমন গাঙ্গুলী ভট্টাচার্য

আমরা যখন ছোট তখন থেকেই দেখবেন মা -বাবা রা আমাদের সম্ভাব্য বিপদ সম্পর্কে শেখান।সাঁতার না জানলে পুকুরের ধারে যাবেনা,খোলা ইলেকট্রিক তার এ হাত দিতে নেই,ভিজে হাতে সুইচ বোর্ড ধরতে নেই, ইত্যাদি। আমাদের সন্তান রা যেহেতু একটু পিছিয়ে তাই এই বিপদের সম্ভবনা কিন্তু তাদের
অনেক বেশি।আমাদের মধ্যে অনেকের সন্তান
হয় তো বিপদের আন্দাজ করতে পারেন না সেই ভাবে তাই আমরা যারা স্পেশাল বাচ্চার বাবা-মা আমাদের যুদ্ধ টা হয় তো একটু বেশি।
আমি বিশেষজ্ঞ নই আমার অভিজ্ঞতা লিখছি আপনাদের জন্য যদি আপনাদের কাজে লাগে।
দেখুন আমাদের বাচ্চা দের ইনফিনিটি বিপদ ঘরের মধ্যে গ্যাস সিলিন্ডার,ইলেকট্রিক সুইচ,টেবিল ফ্যান,ধারালো কিচেন নাইফ,কাঁচের শিশি,ভারি জলের বোতল, হাতুড়ি জাতীয় যন্ত্র সাবধানে রাখুন।চেষ্টা করুন টেবিলের কোণা, আর দরজা মুক্ত ঘর করার।ওল্টানো U shape এর ডিজাইন যদি করা যায় দরজার বদলে ।
আর একটি ঘরের বিপদ হলো ঘরের কিছু মানুষের ব্যবহার।ধরুন আপনি বাচ্চাকে শেখাচ্ছেন বাইরের খাবার, মিষ্টি ক্ষতিকর, বা খালি গায়ে থাকা অনুচিত,চেঁচিয়ে কথা বলা অনুচিত,মুখ ব্যাকানো ঠিক নয়।কিন্তু বাচ্চা বাড়ির কোন মানুষ কে দেখছে বাড়ির কাজের মানুষ এর সাথে চেঁচিয়ে কথা বলছেন,অথবা
খালি গায়ে ঘুরছেন অথবা এক বাক্স বাইরের খাবার রোজ বাড়িতে আনছেন এবং খাচ্ছেন।
আপনার বাচ্চা কিন্তু গুলিয়ে ফেলতে পারে।
এই ব্যাপারে যদি বাড়ির সবাই টিম হিসেবে কাজ করেন ভালো হয়।
বাচ্চা সাধারণ স্কুল এ গেলে সেখানে অন্য বাচ্চাদের কাছ থেকে বুলিড হলে এদের আত্মবিশ্বাস তলানিতে ঠেকে যায়। আমি আমার ছেলের ক্ষেত্রে ওকে একটি ক্লোজ গ্রুপ
করে দিয়েছিলাম।ওরা 3 চার জন বন্ধু গাড়ি,স্কুল, বসার বেঞ্চ,সেকশন share করেছিল একসাথে। একটু হলেও বুলিড হওয়া কমেছিল তার ক্ষেত্রে। স্পেশাল স্কুল হোক বা নর্মাল স্কুল বাচ্চা রা একত্রে থাকলে মারামারি হবেই যদি একটু লক্ষ্য রাখা যায়।স্কুল কতৃপক্ষের কাছে আবেদন করা সিসি টিভি বসানোর জন্য।বাচ্চা কে স্কুলে ভর্তি করার আগে স্কুলের ন্যূনতম সিকিউরিটি ব্যবস্থা দেখুন।দারোয়ান,গেট, আয়া ইত্যাদি।বিপদ কখনো বলে আসে না।সাবধান হতে ক্ষতি নেই।লিঙ্গবাদ নয়, প্রতিটি মানবশিশুর নিরাপত্তা জরুরী।সময় থাকতে সাবধান হওয়া।
সব মানুষের সাঁতার শেখা জরুরি।আমাদের বাচ্চাদের জন্য ভীষণ জরুরি। এই এক্সারসাইজের মাধ্যমে মস্তিস্ক এবং অঙ্গ প্রত্যঙ্গের সঞ্চালনের অসুবিধে কাটিয়ে উঠতে পারে এরা অনেকেই। অনেক বাচ্চা ই জলের কাছে গিয়ে চিল চিৎকার করে ট্যান্টরম শুরু করে ,চেষ্টা চালিয়ে যেতেই হয়।আমার ছেলে কে গত 4 বছর চেষ্টা করছি কিছুই শেখেনি,আমি হাল ছাড়িনি।সামনের বছর আবার যাবো পুলে।প্রসঙ্গ ক্রমে বলি অনেক বাচ্চা পুকুরে ঝাঁপ দিয়ে দেয়, বোঝেনা বিপদ টা ঠিক কোথায় তাই সাবধান।কোন হোটেল যদি সুইমিংপুল থাকে,সেখানে থাকলে নজর রাখুন।বাড়ির আসে পাশে পুকুর থাকলে খেয়াল রাখুন।
লাল আলো,খুলি চিহ্ন,মাতাল,কুকুর,বিদ্যুতের
খুঁটি,কাঁটা তার বিপদজনক এটা বোঝাবেন দরকার হলে ছবি ,ভিডিও দেখিয়ে।পাড়ার চায়ের দোকান হোক বা জমায়েত বাচ্চা কে
সাবধান করে রাখবেন।গুপি গাইন সিনেমার প্রথমে ভাবুন এক ঝাঁক তথাকথিত পন্ডিত জটলা কিভাবে ভালো মানুষ গুপি কে বোকা বানিয়েছিল।মেয়ে বাচ্চা হোক বা ছেলে বাচ্চা
এখন কেউ নিরাপদ নয়।থেরাপি সেন্টার হোক
বা স্কুল সিসি টিভি বসানোর ব্যবস্থা আমাদের করতেই হবে মাথায় রাখি আমরা।
বাচ্চা কে লোকালয় চেনাতে হলে রাস্তায় একা
ছাড়তে হবেই ।কিন্তু এক্ষেত্রে খুব বিচক্ষণতার সাথে শেখাতে হবে।আপনার বাচ্চা যদি গাড়ি থেকে কি বিপদ আসতে পারে সেটা না বোঝে তবে তাকে আগে সেটা শেখান।ক্রমাগত গাড়ির ছবি,ধাক্কা লাগছে এই ছবি,জিভ বার করে মারা পড়বো অভিনয় করে বোঝান,সিগন্যাল ইত্যাদি দেখান।খুব ছোট থেকে কোমরের বেল্টের সাথে দড়ি বেঁধে আমি গন্ডি চিনিয়েছি বাচ্চা কে।ভোর বেলা ফাঁকা রাস্তায় দুজনে হাঁট তাম তারপর রাস্তায় একা ছেড়েছি।এই একা ছাড়া ব্যাপার টি খুবই চিন্তা ভাবনা করে সিদ্ধান্ত নেবেন তবে ছাড়বেন।কারণ আমরা যখন থাকবোনা ওদের একা করতে হবে সব।
তবু সব বাচ্চা তো সমান নয়।
বাচ্চারা যদি খেলতে পারে কোথাও খেলতে দিন। জাম্প করতে করতে,জিক জ্যাক পথে দৌড়াতে দৌড়াতে কখন দেখবেন বাস্তবে কাজে লাগাচ্ছে।বাচ্চার সাইকেল নিয়ে ঘোরার
অভ্যেস থাকলে লোকালয় এর যতসম্ভব মানুষ কে তার সম্পর্কে জানিয়ে রাখুন।রুট বেঁধে দিন সেখানেই থাকতে বলুন। সেখানেও
বাচ্চার বোধ শক্তি কত টা দেখে তাকে ছাড়ুন।
আমি আমার জীবনের ছোট ঘটনা share করছি মাত্র।আপনাদের কাছে অনুরোধ আপনারা বিশেষজ্ঞ মানুষের পরামর্শ নেবেন।
আপনারাও বলুন আর কি সম্ভ্যাব্য বিপদ থাকতে পারে।আসুন সবাই মিলে ওদের পথের
কাঁটা সরাই।
এক নীল সমুদ্র ভালোবাসা।
সুমন।

https://m.facebook.com/story.php?story_fbid=10214826722293374&id=15857
35784


616 বার পঠিত (সেপ্টেম্বর ২০১৮ থেকে)

শেয়ার করুন


Avatar: বিপ্লব রহমান

Re: চলো এগিয়ে চলি 3

শিশুদের যৌন হয়রানি সম্পর্কেও ধারণা দেওয়া উচিত। আশাকরি, এই নিয়ে লিখবেন।
Avatar: Sumon Ganguly Bhattacharyya

Re: চলো এগিয়ে চলি 3

হ্যাঁ লেখার ইচ্ছে আছে ধন্যবাদ।


আপনার মতামত দেবার জন্য নিচের যেকোনো একটি লিংকে ক্লিক করুন